গুইমারায় গৃহবধু ফাতেমা অপহরণের প্রধান আসামি আটক


গুইমারা প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির গুইমারায় পিস্তল ও গুলিসহ গৃহবধু ফাতেমা অপহরণ মামলার প্রধান আসামি সজীব ত্রিপুরাকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। সজীব ত্রিপুরা বাইল্যাছড়ি ২নং রাবার বাগান এলাকার মনোরঞ্জন ত্রিপুরার ছেলে।

শনিবার(৩মার্চ) দিবাগত রাত দুইটার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বাইল্যাছড়ি এলাকায় নিরাপত্তাবাহিনী ও পুলিশের যৌথ অভিযানে তাকে আটক করে। এসময় তার বালিশের নিচ থেকে একটি ২.২ পিস্তল ও ১০ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। আটককৃত সজীব চাকমা ইউপিডিএফ সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কর্মী।


  1. ফাতেমা অপহরণ নিয়ে আরো খবর পড়ুন
  2. কর্মীদের স্বীকারোক্তিতে ফাতেমা অপহরণ নিয়ে ইউপিডিএফের অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত
  3. ফাতেমা অপহরণের স্বীকারোক্তি দিয়েছে ইউপিডিএফের তিন কর্মী
  4. গুইমারায় ফাতেমা অপহরণের সাথে জড়িত ইউপিডিএফের ৫ কর্মী আটক
  5. ফাতেমা অপহরণের সাথে জড়িত রুবেল ত্রিপুরাকে আটক করেছে নিরাপত্তাবাহিনী
  6. অপহরণের দুই দিনেও উদ্ধার হয়নি গৃহবধু ফাতেমা বেগম: ২ ইউপিডিএফ কর্মী আটক
  7. মাটিরাঙ্গায় বাঙালী স্বামীর সামনে থেকেই উপজাতীয় স্ত্রীকে অপহরণ করলো পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা

পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃত সজীব ত্রিপুরা গৃহবধু ফাতেমা বেগমকে অপহরণ এবং ইউপিডিএফের সদস্যরা মিলে পালাক্রমে ধর্ষণের কথা  স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছেন গুইমারা থানা  অফিসার ইনচার্জ মো. সাহাদাত হোসেন টিটো। সবমিলিয়ে এ মামলার ১২জন আসামিদের মধ্যে আটকের বাকি রইলো একজন। তবে এখন পর্যন্ত অপহৃত গৃহবধূ ফাতেমাকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়নি।

প্রসঙ্গত, গেল বছর ৮ সেপ্টেম্বর (শুক্রবার) ঈদের ছুটি শেষে স্বামীসহ একটি যাত্রীবাহী বাসে চট্টগ্রাম যাবার পথে গুইমারা উপজেলার বাইল্যাছড়ি সাইনবোর্ড এলাকায় বাসের গতিরোধ করে বাস থেকে স্বামীর পাশে বসে থাকা স্ত্রীকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছিলো।

উল্লেখ্য, গত ৮ সেপ্টেম্বর ঈদের ছুটি শেষে স্বামী মো. নাজমুল হোসেন তার  স্ত্রী ফাতেমা বেগমকে নিয়ে বাসযোগে (বিছমিল্লাহ পরিবহন) কর্মস্থল চট্টগ্রাম যাওয়ার পথে গুইমারার বাইল্যাছড়ি সাইনবোর্ড এলাকায় ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)‘র ১৫/১৬ জন কর্মী বাসের গতিরোধ করে ও  স্বামীর পাশে বসা ফাতেমা বেগমকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এসময় স্বামী মো. নাজমুল হোসেন বাধা দিলে সন্ত্রাসীরা তাকেও অপহরণের হুমকি দেয়।

প্রসঙ্গত, পাঁচ বছর আগে (০১/১১/২০১২ইং) খাগড়াছড়ির পানছড়ির লোগাং বাজার পাড়ার মনতাজ মিয়ার ছেলে মো. নাজমুল হোসেন ভালোবেসে বিয়ে করে বজেন্দ্র মাষ্টার পাড়ার ফলেন্দ্র ত্রিপুরার মেয়ে নয়না ত্রিপুরাকে। বিয়ের পুর্বেই স্বেচ্ছায় ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে নয়না ত্রিপুরা ফাতেমা ফাতেমা বেগম নাম ধারণ করে। তারপর থেকেই তারা সুখে-শান্তিতে দাম্পত্য জীবন-যাপন করে আসছে। বিয়ের এক বছরের মধ্যই তাদের কোলজুড়ে আসে এক পুত্রসন্তান। ভালবেসে বাঙালী ছেলেকে বিয়ে করার অপরাধেই তাকে অপহরণ ও ধর্ষণ করা হয়।

2 thoughts on “গুইমারায় গৃহবধু ফাতেমা অপহরণের প্রধান আসামি আটক

  1. এক জায়গায় সজীব ত্রিপুরা,, আরেক জায়গায় সজীব চাকমা

  2. পাহাড়ীরা ধর্ষন শব্দটি আগে কোন দিন শুনেনি। সমতল থেকে কিছু অসদ চরিত্রের লোক এসে শব্দটি বেবহার হচ্ছে। পাহাড়ীদের ধ্বংস করতে রাষ্ট্র এবং সেটেলারা মিলে নীল নকসা তৈরির নমুনা এটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *