সীমান্তে অতিরিক্ত সেনা : মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব


ডেস্ক নিউজ:
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমব্রু সীমান্তের ওপারে ভারী অস্ত্রসহ মিয়ানমারের অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনকে কেন্দ্র করে দেশটির রাষ্ট্রদূত লুইন উককে তলব করেছে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার বিকেলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব এম খোরশেদ আলমের দফতরে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করা হয়। এসময় বাংলাদেশের পক্ষ থেকে তাকে একটি নোট ভারবাল দেয়া হয়। সীমান্তে অতিরিক্ত সেনা মোতায়েনের বিষয়ে তার কাছে জানতে চাওয়া হয়। এমন আচরণ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের জন্য ভালো নয় বলে তাকে জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, মিয়ানমার সেনাবাহিনী তুমব্রু সীমান্তে অবস্থান নেয়ায় সেখানকার রোহিঙ্গাদের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তুমব্রু সীমান্তের এক কিলোমিটার মধ্যে দেশটির দুই শতাধিক সেনা সদস্য সশস্ত্র অবস্থান নেয়।

এই পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার পিলখানায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদরদফতরে সংবাদ সম্মেলন ডেকে বাহিনীর অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মুজিবুর রহমান জানান, মিয়ানমারের সেনা সদস্যরা ভারী অস্ত্র ও গোলাবারুদ নিয়ে সীমান্তে অবস্থান নিয়েছে। এ প্রেক্ষিতে সীমান্তে সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বিজিবি।

গত আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইনে দমন-পীড়ন শুরু করলে প্রায় ৭ লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশ আশ্রয় নেয়। সবমিলিয়ে এ দেশে আশ্রিত রোহিঙ্গার সংখ্যা ১০ লাখেরও বেশি। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চাপের মুখে নেপিদো তাদের এই বিপুল জনগোষ্ঠীকে প্রত্যাবাসনে সমঝোতায় পৌঁছালেও হঠাৎ সীমান্তে তাদের অস্ত্র-গোলাবারুদ জমার কার্যক্রম বিস্মিত করছে ঢাকাকে।

নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সরোওয়ার কামাল বলেন, নো ম্যান্স ল্যান্ডে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের ভয়ভীতি দেখানোর জন্য মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এমন কাজ করেছে। কেউ যেন অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেজন্য সীমান্তে বিজিবি সদস্যরা সতর্ক অবস্থায় রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, মিয়ানমার কেন সমরাস্ত্র প্রদর্শন করছে তা জানার চেষ্টা করেছি।তারা জানিয়েছে, রোহিঙ্গারা নিজ গ্রামে ফেরত যাচ্ছে- এমন খবরে মিয়ানমারের বিজিপি (বর্ডার গার্ড পুলিশ) নিরাপত্তা বৃদ্ধি করেছে।

সীমান্তে ফাঁকা গুলি

সীমান্তের শূন্যরেখায় ক্যাম্প করে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সরে যেতে ভয়-ভীতি দেখানো মিয়ানমার সৈন্যরা ফাঁকা গুলি ছুড়েছে। বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তমব্রু সীমান্তের ওপারে অবস্থানরত মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ সদস্যরা দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।

ঘুনধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর আজিজ চৌধুরী গণমাধ্যমকে বলেন, মিয়ানমার সৈন্যদের ফাঁকা গুলিবর্ষণের পর এলাকায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে।মিয়ানমারের রাখাইনে সেনাবাহিনীর দমন-পীড়নের মুখে পালিয়ে আসা অন্তত ১৭ হাজার রোহিঙ্গা বান্দরবান সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে আশ্রয় নিয়ে আছে। তাদের মধ্যে প্রায় সাত হাজার রোহিঙ্গা রয়েছে তুমব্রু সীমান্তের শূন্য রেখায়।

এই রোহিঙ্গাদের শূন্য রেখা থেকে সরে যেতে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষীরা ফেব্রুয়ারির প্রথম থেকে নানাভাবে হুমকি-ধমকি দিচ্ছিল বলে জানান বিজিবি ৩৪ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মঞ্জুরুল হাসান খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *