সব সময়ের জন্য সম্প্রীতির বন্ধন বজায় রাখতে হবে


লংগদু  প্রতিনিধি:

অতীতে আমরা যে সম্প্রীতির বন্ধনে ছিলাম সেটা সবসময়ের জন্য বজায় রাখতে হবে। এলাকায় সম্প্রীতি বজায় না থাকলে কখনও উন্নয়ন হবেনা। সেক্ষেত্রে অন্যরা এগিয়ে যাবে আমরাই শুধু পিছিয়ে থাকবো।

বুধবার(৭ ফেব্রুয়ারি) লংগদু উপজেলার নিরাপত্তাজোন সদর দপ্তরে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে খাগড়াছড়ি রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার আব্দুল মোতালেব সাজ্জাদ মাহমুদ একথা বলেন।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে অনেকখানি পিছিয়ে গেছে এখানকার উন্নয়ন। সেটা আমাদের বুঝতে হবে। এখানে আমরা যে ধর্মের যে গোত্রের হইনা কেন মনে রাখতে হবে আমরা সবাই লংগদু উপজেলাবাসী। আমাদের উন্নয়ন আমাদের ভাগ্য আমাদেরই বদলাতে হবে।

তিনি আরো বলেন, কিছু বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটতে পারে সেটাকে বড় কিছু মনে না করে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে। কিন্ত সেটাকে আঞ্চলিক রাজনৈতিক রুপদিয়ে বড় করে পরিস্থিতি ঘোলাটে করা যাবেনা।

সাজ্জাদ মাহমুদ বলেন, এখানকার পরিস্থিতি, উন্নয়ন ও সমস্যা সম্পর্কে জোন কিভাবে আপনাদের বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা করতে পারে সে সম্পর্কে আমি অনেক পরামর্শ বা গাইডলাইন দিয়ে থাকি। কিন্ত আজকে আপনাদের সাথে মতবিনিময় করার অর্থ হচ্ছে এখানকার পরিস্থিতি ও সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার জন্য রাজনৈতিক, জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন প্রশাসনের সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন পর্যায়ে আপনারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন সেটা যাতে আরো বৃদ্ধি করা যায় তাই, আপনাদের সাথে মিলিত হওয়া।

লংগদু নিরাপত্তাজোনের জোন কমান্ডার লে. কর্নেল আঃ আলীম চৌধুরী পিএসসি এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, লংগদু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মোসাদ্দেক মেহেদী ইমাম, বরাদম বৌদ্ধ বিহারের ভান্তে কল্যাণ জৌতি ভিক্ষু, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মো. জানে আলম, আটারকছড়া ইউপি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমা।

এসময় বাঘাইহাট জোনের(১২বীর) জোন কমান্ডার লে. কর্নেল মো. গোলাম আজম,দীঘিনালা জোনের(২০ বেঙ্গল) জোন কমান্ডার লে.কর্নেল ফেরদৌস জিয়া উদ্দিন মাহমুদসহ বিভিন্ন নিরাপত্তা কর্মকর্তা ও এলাকার জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, গন্যমান্যব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন।

খাগড়াছড়ি রিজিয়ন কমান্ডার আব্দুল মোতালেব সাজ্জাদ মাহমুদ বক্তব্যে আরো বলেন, সকল ধর্মে মানব ধর্মের কথা বলা হয়েছে। রাষ্ট্র আপনাকে অধিকার আদায়ের কথা বলার অধিকার দিয়েছে। কিন্তু অন্যের ক্ষতি করে এবং আইন নিজের হাতে তুলে নেওয়ার কথা বলেনি।

আপনারা হলেন সমাজের একেকটি কাঠামো। সমাজের আইন আপনাদের মানতে হবে। কোন মিথ্যা পাতানো ফাঁদে পা দেওয়া যাবে না। সন্ত্রাস যতবড় হোকনা কেন কোন অবস্থাতেই ছাড় দেওয়া যাবেনা। যারা এখানকার ক্ষতিগ্রস্ত তাদেরকে ক্ষতিপূরণ পেতে সহযোগিতা করুন। সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকলে উন্নয়ন হবে। পার্বত্য এলাকায় উন্নয়নের জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ হচ্ছে কিন্তু পলিটিক্সের কারণে তা ব্যহত হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *