মগনামা সাবেক চেয়ারম্যানের উপর হামলা, বসতবাড়ি ভাংচুর-আহত ৬


পেকুয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের পেকুয়ার মগনামায় এস আলম গ্রুপের জমি নিয়ে গুলাগুলির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় দুর্বৃত্তের হামলায় মগনামা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ইউনুছ চৌধুরী গুরুতর আহত হয়েছে। এসময় দুর্বৃত্তরা তার বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর চালিয়েছে বলে দাবি করেছেন ইউনুছের পরিবার। আর এ ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ ৬জন আহত হয়েছে। ১৩ জানুয়ারি (শনিবার) সন্ধ্যায় মগনামা ইউনিয়নের কাকপাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটেছে।

পরিবার সূত্রে জানাযায়, সন্ত্রাসীরা ইউনুছ চেয়ারম্যানের বাড়িতে হামলা চালিয়ে পরিবারের সদস্যদেরকে মারধর করে তাকে কালারপাড়া এলাকার নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। সেখানে তাকে বেধড়ক মারধর করে চোখ তুলে নেওয়ায় চেষ্টা চালায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে পেকুয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

পেকুয়া সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত ডা. মুজিবুর রহমান বলেন, আহতের অবস্থা গুরুতর। তার মাথা, চোখসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত রয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

ইউনুছ চেয়ারম্যানের স্ত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, সকাল থেকে সন্ত্রাসীরা আমাদের বসতবাড়ি লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ অব্যাহত রাখে। এসময় স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তা চেয়েও আমরা পাইনি। পরে সন্ধ্যায় মগনামা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিমের নেতৃত্বে কালার পাড়া এলাকার কানা মানিক, পশ্চিম কূল এলাকার জিয়াবুল, কাজী মার্কেট এলাকার আব্দুল করিম, লিটন, আফজলীয়া পাড়া এলাকার কায়সার ও জয়নাল সহ অর্ধশতাধিক সন্ত্রাসী বাড়িতে হামলা চালায়। এসময় তারা ব্যাপক ভাংচুর চালিয়ে গুলিবর্ষণ করতে করতে আমার স্বামীকে তুলে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতা আমার স্বামীকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করি।

ইউনুছ চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করতে গিয়ে স্থানীয় পাঁচ লবণচাষী আহত হয়েছেন। আহতরা হলেন চান্দার পাড়া এলাকার মো. আব্দুর রহিমের ছেলে মো. হেলাল (২৫), আকতার হোসেনের ছেলে লোকমান(১৬), মোক্তার হোসেনের ছেলে মো. রিদুয়ান(২২), আব্দু জলিলের ছেলে আহমদ নবী (১৮) ও মো. ইব্রাহিম (২০)।

মগনামা ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা সুলতান মো. রিপন বলেন, চলতি মৌসুমের শুরুতে সাবমেরিন স্টেশনের জন্য অধিগ্রহণ করা সরকারি জমি লবণ চাষের জন্য অবৈধ দখল নেয় মগনামা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ ওয়াসিম। জমির বিনিময়ে প্রান্তিক লবণ চাষীদের কাছ থেকে তিনি অর্থ আদায় করতে থাকেন।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ষড়যন্ত্রমূলক ফাঁসানো মামলায় দীর্ঘ দশমাস কারাভোগ করার পর শুক্রবার (১২জানুয়ারি) বিশাল গণ সংবর্ধনার মাধ্যমে এলাকায় ফিরেন আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুছ চেয়ারম্যান। তার ফিরে আসাতে প্রাণসঞ্চার হয় অত্যাচারিত জনসাধারণের। প্রতিবাদ মুখর হয়ে উঠে চাষীরা। বন্ধ করে দেয় চেয়ারম্যান ওয়াসিমকে অনৈতিক চাঁদা প্রদান। আর এতেই ফুঁসে উঠে ওয়াসিমের সশস্ত্র বাহিনী। তাই পরিকল্পিতভাবে তার উপর এ হামলা চালানো হয়।

এ ব্যাপারে জানতে মগনামা ইউপির চেয়ারম্যান শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিমের সাথে যোগাযোগ করার জন্য ওনার ব্যবহৃত মোবাইল নম্বারে বহুবার কল দিলেও সংযোগ না পাওয়ায় বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার ওসি (তদন্ত) মনজুর কাদের মজুমদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান পূর্ব শত্রুতা এবং এস. আলম গ্রুপের জমির দখল সংক্রান্ত বিষয়ে নিয়ে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছি। ইউনুছ চেয়ারম্যানের উপর হামলাকারীদের ধরতে পুলিশের অভিযান চলছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *