পেরুর বিরুদ্ধে জিততেই হবে মেসিদের



পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

পরিসংখ্যানটা শুনলে চমকে উঠতে পারেন আর্জেন্তিনার সমর্থকরা। রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে ১৬ টি ম্যাচে লিওনেল মেসিদের দলের গোল সংখ্যা মাত্র ১৬। অর্থ্যাৎ ম্যাচ পিছু একটি করে গোল করেছেন জর্জ সাম্পাওলির ছেলেরা।

এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ( ৬ অক্টোবর) ভোরে পেরুর মুখোমুখি হতে চলেছে ম্যারাডোনার দেশ। আগামী বছর রাশিয়া বিশ্বকাপে যেতে গেলে যে ম্যাচে জিততেই হবে মেসিদের। ফল অন্য রকম হলেই বিশ্বকাপের মূলপর্বে যাওয়ার স্বপ্ন ফিকে হতে পারে মেসিদের।

দশ দলের লাতিন আমেরিকা গ্রুপে (কনমেবল) এই মুহূর্তে আর্জেন্তিনার পয়েন্ট ২৪। মেসিরা এই মুহূর্তে রয়েছে পঞ্চম স্থানে। গ্রুপের প্রথম চার দল সরাসরি খেলবে রাশিয়ায়। পঞ্চম দলকে ওসেনিয়া গ্রুপের দলের সঙ্গে প্লে-অফ খেলে যেতে হবে বিশ্বকাপে। খুব সম্ভবত সেই দলটি নিউজিল্যান্ড।

ফলে ঘরের মাঠে পেরু এবং তার পর অ্যাওয়ে ম্যাচে ইকুয়েডরকে হারালে বিশ্বকাপের টিকিট মিলতে পারে ১৯৭৮ ও ১৯৮৬-র বিশ্বকাপ জয়ী দেশের। কিন্তু পেরুর বিরুদ্ধে নামার আগে অনেক ‘যদি’, ‘কিন্তু’ অপেক্ষা করে রয়েছে আর্জেন্টিনার সামনে। কারণ, ১৬ ম্যাচে পেরুর পয়েন্টও ২৪। গোল পার্থক্যে তারা রয়ে গিয়েছে শেষ চারে। আর্জেন্টিনার চেয়ে এক পয়েন্ট পিছনে রয়েছে চিলে।

ফলে পেরুর বিরুদ্ধে জিতেও যদি আর্জেন্টিনা ইকুয়েডরের বিরুদ্ধে ড্র করে তা হলে নির্ভর করে থাকতে হবে চিলের উপর। তখন চিলেকে হারতে হবে বাকি দুই ম্যাচে। আর পেরুর বিরুদ্ধে ড্র করলে ইকুয়েডরকে দুই বা তার চেয়েও বেশি গোলে হারাতে হবে আর্জেন্টিনাকে। যাতে লিগ টেবলে পেরুর উপরে থাকতে পারে তারা। কিন্তু পেরুর বিরুদ্ধে হেরে গেলে মেসিদের মূলপর্বে যাওয়া বেশ কষ্টকর হবে। তখন আর্জেন্টিনাকে তাকিয়ে থাকতে হবে চিলের ফল খারাপ হয় কি না সে দিকে।

এ রকম অবস্থায় আর্জেন্টিনা কোচ জর্জ সাম্পাওলির রাতের ঘুম গিয়েছে, গত সপ্তাহে তাঁর অন্যতম ফরোয়ার্ড সের্জিও আগুয়েরো নেদারল্যান্ডসে গাড়ি দুর্ঘটনায় পাঁজরের হাড় ভাঙায়। তাই ডাকা হয়েছে দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে থাকা ফের্নান্দো গাগো-কে। এরই মাঝে আর্জেন্টিনাকে নিয়ে হুঙ্কার ছেড়েছে পেরু। বলে দিয়েছে, মেসিকে নিয়ে বিশেষ কোনও পরিকল্পনা নেই তাদের। পেরুর আর্জেন্টাইন কোচ রিকার্ডো গারেকা বলেছেন, মেসিকে ম্যান মার্কিং করার রাস্তায় কোনও ভাবেই হাঁটবেন না তারা। তাঁর কথায়, ‘‘মেসি নিঃসন্দেহে এই বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ফুটবলার। কিন্তু ওর জন্য বিশেষ পরিকল্পনা আমাদের নেই। বরং ওকে জোনাল মার্কিং করব আমরা।’’

তবে পেরু শিবিরে দুঃসংবাদ কার্ড সমস্যায় এই ম্যাচে তাঁরা পাচ্ছে না চার নির্ভরযোগ্য ফুটবলার, পাওলো হুর্তাদো, ক্রিশ্চিয়ান কুয়েভা, আন্দ্রে ক্যারিলো এবং ক্রিশ্চিয়ান রমোসকে। আর্জেন্তিনা কোচ জর্জ সাম্পাওলি যদিও জেতার ব্যাপারে একশো শতাংশ আশাবাদী। বলছেন, ‘‘জেতা ছাড়া আর কোনও রাস্তা নেই। বিশ্বকাপের মূলপর্বে যাওয়ার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী আমাদের গোটা দল। ছেলেরা কথা দিয়েছে, পর পর দু’টো ম্যাচ জিতে তা বাস্তবে পরিণত করবে।’’

এরই মাঝে বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচ খেলতে এ দিন বলিভিয়া রওনা হল ব্রাজিল। লা পাজে বিশ্বের সবচেয়ে উচ্চতম ফুটবল মাঠে বলিভিয়ার মোকাবিলা করার অনেক আগেই মূলপর্বে চলে গিয়েছে তিতের ব্রাজিল। ফলে পেলের দেশ য়খন নিয়মরক্ষার ম্যাচ খেলতে নামছে, তখন ম্যারাডোনার দেশের কাছে জেতা ছাড়া অন্য কোনও রাস্তা আর খোলা নেই।

অন্যদিকে, ভেনেজুয়েলাকে হারালেই বিশ্বকাপের টিকিট পাকা করে ফেলবে দ্বিতীয় স্থানে থাকা উরুগুয়ে। তৃতীয় স্থানে থাকা কলম্বিয়া প্যারাগুয়েকে হারালে আর চিলে ঘরের মাঠে ইকুয়েডরের কাছে হারলে বিশ্বকাপের টিকিট হাতে চলে আসবে হামেস রদরিগেজ-দের হাতে।

নিউজটি খেলা বিভাগে প্রকাশ করা হয়েছে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *