পাচারের সময় চকরিয়া থেকে ২০ টন সরকারি চাল জব্দ


 

নিজস্ব প্রতিবেদক

বিদেশ থেকে ভূর্তিকি দিয়ে সরকারের আমদানীকৃত উন্নতমানের ২০ মেট্রিক টন চাল পাচারের সময় চকরিয়া মালুমঘাট থেকে জব্দ করেছে হাইওয়ে পুলিশ।

কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রাম পাচারের সময় সোমবার(১৯মার্চ) সন্ধ্যা ৭টায় চকরিয়া হাইওয়ে পুলিশ একটি শাহপরী কার্গো সার্ভিসসহ এসব চাল জব্দ করে। যার নং ৫২৯৬। ওএমএস ও হত দরিদ্র এবং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সরবরাহ করার জন্য সরকার এসব উন্নতমানের চাল বিদেশ থেকে আমদানী করেন। মুজিব সিন্ডিকেটের সদস্যরা এসব উন্নত মানের চাল পাচার করে  হত দরিদ্র ও রোহিঙ্গা ক্যাম্পে নিম্মমানের চাল সরবরাহ করছে বলে অভিযোগ।

চকরিয়া হাইওয়ে পুলিশের ওসি মো. আলমগীর হোসেন বলেন-গোপন সংবাদ পেয়ে স্থানীয় লোকজন মালুমঘাট এলাকায় একটি চালভর্তি কার্গো সার্ভিস আটক করেন। তা খবর পেয়ে আমরা সেখান যায়। গিয়ে দেখি এতে ২০ টন সরকারের উন্নতমানের চাল রয়েছে। এসব চাল গুলো চট্টগ্রাম নিয়ে যাওয়া হচ্ছে বলে তারা জানিয়েছে। বর্তমানে চাল গুলো জব্দ করে হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে রাখা হয়েছে।

এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন-চালের গাড়ির সাথে থাকা লোকজন ৫০ বিজিবির একটি ডিও দেখান। তারা বলছে এসব চাল বিজিবির।

এবিষয়ে জানতে চাইলে ৫০ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল গোলাম মো. তানভীর আলী বলেন- প্রশ্নেই আসেনা। এসব চাল আমাদের নয়।

এদিকে এসব চাল গুলো পাচারের সাথে কক্সবাজার সদর উপজেলা এলাকার মুজিব ও রামু খাদ্য গুদাম কর্মকর্তা কপিল উদ্দিন জড়িত রয়েছে বলে জানা গেছে। তবে কপিল উদ্দিন তা অস্বীকার করেন। বিগত ১/১১ সময়ে জরুরি অবস্থা জারি হলে সরকারি চাল পাচারের অভিযোগ মামলা দায়ের করা হয়েছিল কালোবাজারি মুজিবের বিরুদ্ধে।

উল্লেখ্য যে, কয়েক মাসের ব্যবধ্যানে কক্সবাজারে সরকারি চাল জব্দের হিড়িক পড়েছে। পাচারের সময় এবং নিন্মমানের চাল মজুদের সময় গত দুই মাসে চারটি চালান জব্দ করেন সদর উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা মো. নোমান হোসেন, সদর থানা পুলিশ ও সদর সহকারী কমির্শনার (ভূমি) নাজিম উদ্দিন। সদর উপজেলা গেইট, খুরুশকুল  ও শহরের কালুর দোকান এলাকা থেকে এসব কয়েক হাজার টন চাল জব্দ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *