নাইক্ষ্যংছড়ি হাট-বাজারের পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নামেন ইউএনও


নাইক্ষ্যংছড়ি  প্রতিনিধি:

স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে নাইক্ষ্যংছড়িতে এ প্রথমবারের মতো কোন হাট-বাজারে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানে নামেন কোন  সরকারি কর্মকর্তা। বিশেষ করে উপজেলার সীমান্তবর্তী ২টি হাট বাজারের এ ধরনের অভিযানে  সরকারি কর্মকর্তা  হিসেবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাঠে নেমে আসায় ব্যবসায়ীদের মাঝে প্রাণ চাঞ্চল্যতা ফিরে আসে ব্যবসা বাণিজ্যেও।

খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ৫ ইউনিয়নে হাট বাজার রয়েছে ৮টি। এর মধ্যে সদরে আছে ২টি। এ ২টি হলো নাইক্ষ্যংছড়ি সদর বাজার আর অপরটি হলো চাকঢালা বাজার। এ বাজার ২টি সীমান্তের খুবই কাছাকাছি। এখানে প্রতিদিন এবং সাপ্তাহিক ২ হাটের দিন শতশত ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগম হয়। ভদ্র সমাজ থেকে নিম্ন শ্রেণির সবাইকেই এ বাজারে নিয়মিত আসতে হয়। কিন্তু এখানে এতোদিন কোন উন্নয়ন হয়নি। প্রশাসনের লোকজন তদারকিও করে নি। সদর বাজার এলাকার  সত্তরোর্ধ বয়সের বাসিন্দা নূরুজ্জামান  এ প্রতিবেদককে জানান, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এখানে যে উন্নয়ন হওয়ার কথা তা হয় নি। কোন নেতা বা সরকারি কর্মকর্তাও  এ বাজারের প্রতি আন্তরিক ছিল না।

ময়লা আবর্জনার মাঝে ব্যবসায়ীরা কোন মতে ব্যবসা করছেন। কোন শৌচাগার নেই বর্তমানে। ব্যবসাযীরা ঝোঁপজঙ্গলে তাদের প্রয়োজন সারেন। এভাবে ব্যবসায়ী বা ভোক্তা সাধারণের কোন সুযোগ সুবিধা নাইক্ষ্রংছড়ি সদর বাজার ও চাকঢালা বাজারে নেই। এ অবস্থায় এ বিষয়ে মনযোগ দেন নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা অফিসার এসএম সরওয়ার কামাল ও তরুন আওয়ামী লীগ নেতা তসলিম ইকবাল চৌধুরী। যিনি ক’মাস আসে উপরির্বাচনে সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বিপুলভোটে।

তিনি আরো জানান, তারা দুজন মিলে এখন এ বাজার দুটিকে মডেল বাজার গড়ে তুলতে ঘোষণা দেন বুধবার (১ নভেম্বর) পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান পরিচালনাকালে। বুধবার দুপুরে চাকঢালা বাজার সত্তরে আয়োজিত এ সংক্ষিপ্ত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব ইমরান মেম্বার,উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাঈনুদ্দিন খালেদ, সাবেক ভারপ্রাপ্ত ফরিদুল আলম, সমাজ সেবক নুরুল ইসলাম ও এলাকার মেম্বার ফয়েজউল্লাহ মেম্বার প্রমুখ।

এর আগে উপজেলা নিবার্হী অফিসার সদর বাজারে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানের উদ্বোধন করেন।

নাইক্ষ্যংছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরী জানান, পাহাড়ের উন্নয়নের কর্ণধার মন্ত্রী বীর বাহাদুরের বদন্যতায় এবং নাইক্ষ্যংছড়ি ইউএনওর পরামর্শে তিনি তার পরিষদ এলাকার উন্নয়নের কাজ শুরু করেছেন। হাট বাজার, রাস্তা-ঘাট, গ্রামীন সালিশ ও সরকারের অন্যান্য কর্মকাণ্ডে তিনি কাজ করতে চান সর্বোচ্চ অগ্রাধিকারের ভিত্তিতে।  এ বিষয়ে তিনি সকলের সহযোগিতা চান সবার আগে। আর এরই ধারাবাহিকতায় তিনি শুরু করেছেন এলাকার ২টি বাজারের উন্নয়ন ও পরিচ্ছন্নতা অভিযানের মতো কর্মসূচি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *