জুম্মল্যান্ড বানানোর স্বপ্ন অলীক, অবাস্তব- দীপঙ্কর তালুকদার


%e0%a6%be%e0%a6%87%e0%a6%aa%e0%a6%9f

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

অসহযোগ আন্দোলন করতে হলে সরকারী সুযোগ সুবিধা বাদ দিয়ে আঞ্চলিক পরিষদ থেকে সন্তু লারমাকে পদত্যাগ করার পরামর্শ দীপংকর তালুকদার। তিনি বলেন, আপনি সরকারী সুযোগ সুবিধা গ্রহণ করবেন আবার সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলবেন এটা কোন ভাবেই মেনে নেয়া যায় না। জনগনের কাছে থাকতে চাইলে জনগনের কাছে থাকুন। তিনি সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডে বাধা দিয়ে পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নে বাধাগ্রস্ত না করার আহবান জানান।

তিনি বলেন, অসহযোগ আন্দোলন বলতে আমরা কি বুঝি- এজন্য সন্তু লারমাকে পার্বত্য আঞ্চলিক পরিষদ থেকে পদত্যাগ করতে হবে। সরকারি বাড়ি, গাড়ি, অফিস সব ছেড়ে দিতে হবে। তাহলে আমরা বুঝতে পারব যে, সন্তু লারমা প্রকুতপক্ষে সরকারের বিরুদ্ধে অসহযোগ আন্দোলন করছেন। কিন্তু সন্তু লারমা তা না করে তিনি সরকারি গাড়িতে চড়ছেন, আমাদের জাতীয় পতাকা উড়াচ্ছেন। সরকারি বাড়িতে আছেন, সরকারি অফিস করছেন এবং সরকারের সব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছেন।

৪ জানুয়ারী বুধবার সকালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৬৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত র‌্যালী পরবর্তী আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে দীপংকর তালুকদার এসব কথা বলেন।

পরে ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভা। জেলা ছাত্র লীগের সভাপতি আব্দুল জব্বার সুজনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী দীপংকর তালুকদার। জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক জসিম উদ্দিন বাবুল, জেলা পলিষদের সাবেক চেয়ারম্যান চিংকিউ রোয়াযা, পৌর মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী, ছাত্রলীগের সম্পাদক প্রকাশ চাকমা।

দীপংকর তালুকদার বলেন, অনেকে আছে ঢাকায় বসবাস করে সরকারী সুযোগ সুবিধা নেয়ার পরে তারা যখন পার্বত্য চট্টগ্রামে ছুটিতে আসেন তখন বলে উঠেন আমরা জুম্মল্যান্ডে ফিরে যাচ্ছি, পার্বত্য চট্টগ্রামকে জুম্মল্যান্ড বানানোর স্বপ্ন অনেকটাই অলিক, যা কখনো সম্ভব নয়। পার্বত্য চট্টগ্রাম হচ্ছে সকল সম্প্রদায়ের বসবাসের আবাসভূমি, পার্বত্যাঞ্চলে সকল সম্প্রদায়ের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ভিত অত্যন্ত শক্তিশালী। কোন সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এখানে তাদের অপরাজনীতি করতে পারবেনা।

%e0%a6%a1%e0%a6%aa%e0%a7%8d%e0%a6%9f%e0%a6%a1%e0%a6%aa

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কার্যনির্বাহী সদস্য সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও রাঙ্গামাটি জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার বলেছেন, সন্তু লারমা শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে এখনো মিথ্যাচার অব্যাহত রেখেছে। সন্তু লারমা চুক্তি বাস্তবায়নের দাবীতে পার্বত্যাঞ্চলে যে অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন তা জনগন প্রত্যাখান করলে ও সন্তু লারমার অসহযোগ এখনো তুলে নেয়া হয়নি। তিনি বলেন, তখন জনগন বুঝবে আপনার কথা ও কাজের সাথে মিল রয়েছে।

দীপংকর তালুকদার আরও বলেন, সন্তু লারমা একদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম থেকে সেনাবাহিনী প্রত্যাহারের কথা বলেন, আবার অন্যদিকে বলেন পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীর কার্যক্রম প্রশংসনীয়। আর এমপি ঊষাতন তালুকদার পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন করায় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দিয়েছেন কিন্তু শান্তিচুক্তি বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে বলেছেন, সরকার চুক্তি বাস্তবায়ন করছে না। তাহলে জনগণ কোনটা বিশ্বাস করবে ?

সন্তু লারমার উদ্দেশ্যে দীপংকর বলেন, আপনার অসহযোগ আন্দোলন অনেকটাই বেগম খালেদা জিয়ার মতো জনবিরোধী জননিন্দিত কর্মসূচী, যা জনগন প্রত্যাখান করেছে। সারা বাংলাদেশে বেগম খালেদা জিয়ার ঘোষিত অবরোধ কর্মসূচীর মতো পার্বত্য চট্টগ্রামে সন্তু লারমার অবরোধ ও চলমান রয়েছে, যার কোন ভিত্তি নাই।

বিএনপির রাজনীতির সমালোচনা করে দীপংকর তালুকদার আরো বলেন, বিএনপি বলে জামায়াতের সাথে তাদের সর্ম্পক নেই, তারা ভিতরে ভিতরে কি কাজ করছে আমি সেই দিকে যাচ্ছি না। সকলেই বলে বিএনপির এখন নেতৃত্বের সংকট। কেউ একজন বলে যে, দীপেন দেওয়ানকে দলীয় মনোনয়ন দিলে ভাল হবে, আরেকজন বলে পুরাতন মানুষকে দিলে ভাল হয়, আবার কেউ বলে মনীষ দেওয়ানকে দিলে ভাল হয়। আসলে এদের একজন বিএনপির প্রোডাক্ট না তারা হাফ বিএনপি করে তাই নেতৃেত্বর সংকটে ভোগে। অর্জিনালিটি একমাত্র আমরা, যাকে মনোনয়ন দেওয়া হোক, আমরা মনে করি যে, ঠিক হয়েছে। সাথে সাধারণ মানুষও বলে যে, ঠিক হয়েছে আওয়ামীলীগের প্রার্থী।

দীপংকর তালুকদার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে আরো বলেন, যখন দেখি ছাত্রলীগ ভালো কাজ করছে তখন গর্বে বুকটা ভরে উঠে, আর যখন দেখি ছাত্রলীগ অপকর্ম করছে তখন খারাপ লাগে।

ছাত্রলীগের কোন নেতা কর্মী অপকর্ম করলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারণ করে দীপংকর তালুকদার বলেন, ছাত্রলীগকে কেউ ব্যক্তিস্বার্থে ব্যবহার করলে তাকে ছাড় দেয়া হবেনা।

সকালে রাঙ্গামাটি সরকারী কলেজ ক্যাম্পাস থেকে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। সাবেক পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য দীপংকর তালুকদার র‌্যালীর উদ্বোধন করেন।

বণাঢ্য র‌্যালিটি রাঙ্গামাটি সরকারী কলেজ, উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স, বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্য এলাকা প্রদক্ষিণ শেষে রাঙ্গামাটি ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়। পরে অতিথিদ্বয় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেক কেটে দলীয় নেতা-কর্মীদের মাঝে কেক ও মিস্টি বিতরণ করেন।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *