খাগড়াছড়িতে ফরহাদ নির্বাচনী মাঠে সরব, নিস্তেজ সমীরন


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

খাগড়াছড়ি আসনে নির্বাচনী মাঠে সরব রয়েছেন খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. শহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া ফরহাদ। ওয়াদুদ ভূঁইয়ার অনুপস্থিতিতে তিনিই নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত রাখাসহ দলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে দিনরাত ঘরোয়া বৈঠক ও যোগাযোগ রেখে চলেছেন। পক্ষান্তরে অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী সমীরণ দেওয়ানকে এখনো মাঠে দেখা যায়নি।

খাগড়াছড়ি আসনে জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভূইয়াকে একক প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করেন, বিএনপির মনোনয়ন বোর্ড। মামলা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে পরবর্তিতে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শহীদুল ইসলাম ফরহাদ ও বিএনপির নেতা সমীরণ দেওয়ানকে বিকল্প প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করে। মো. শহীদুল ইসলাম ফরহাদ উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। বাছাইয়ের দিন তৃণমূল নেতাকর্মীদের আস্থার প্রতীক ওয়াদুদ ভূঁইয়ার মনোনয়নপত্র বাতিল হলে  বড় ধরনের ধাক্কা লাগে বিএনপি শিবিরে। কিন্তু সে ধাক্কা সামাল দেন বিকল্প প্রার্থী মো. শহীদুল ইসলাম ফরহাদ। বাছাইয়ে মনোনয়নপত্র বৈধ হওয়ার পর থেকে মো. শহীদুল ইসলাম ফরহাদ দিনে-রাতে নেতাকর্মীদের নিয়ে ঘরোয়া বৈঠকসহ নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ করে চলেছেন। ফলে নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে পুরোদমে সাংগঠনিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। পক্ষান্তরে নির্বাচনের  মাঠে দেখা মিলছে না বিএনপির অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী সমীরণ দেওয়ানের।

বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী মো. শহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া ফরহাদ জানান, খাগড়াছড়ি ওয়াদুদ ভুইয়ার হাতে গড়া দুর্গ। এ দুর্গ রক্ষায় শেষ পর্যন্ত যাকে মনোনয়ন দেবে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তার পক্ষেই কাজ করব। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করাসহ ভোটের মাঠে সমান সুযোগ নিশ্চিত করা হলে বিএনপি প্রার্থী বিজয়ী হবে।

অপর দিকে নির্বাচনী মাঠে না থাকলেও চূড়ান্ত মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী সমীরণ দেওয়ান। তিনি  ঢাকায় অবস্থানরত সমীরণ দেওয়ান বলেন, শেষ পর্যন্ত কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত  মেনেই আমি ভোটের মাঠে কাজ করবো।

নয়টি উপজেলা ও তিনটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত পর্যটনের জনপদ খাগড়াছড়ি আসনে এবার ভোটার ৪ লাখ ৪১হাজার ৬৮ জন। পুরুষ ভোটার  ২লাখ  ২৬ হাজার ৮৬৯এবং নারী ভোটার ২ লাখ ১৪ হাজার ১৯৯ জন। তার মধ্যে প্রায় অর্ধেক ভোটার উপজাতি।৫৯ হাজার নতুন ভোটার। ভোট কেন্দ্র ১’শ ৮৭টি।  তার মধ্যে দীঘিনালা একটি ও লক্ষ্মছড়িতে দুটি কেন্দ্রে হেলিকপ্টার ব্যবহার করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *