উখিয়ায় বসত বাড়ী ভাংচুর ও লুটপাট আহত-৭


উখিয়া প্রতিনিধি:

উখিয়ার দক্ষিণ হলদিয়া গ্রামে বসত বাড়ী ভাংচুর ও ব্যাপক লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে। বাঁধা দিতে গিয়ে আহত হয়েছে মহিলা সহ ৭ জন। আহতদের মধ্যে বয়োবৃদ্ধ আব্দুল কাদের সহ ২ জনের অবস্থা আশাংকা জনক। আহতদেরকে উখিয়া ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবার ভোর সকালে ঘাটি পাড়া গ্রামে রক্তক্ষয়ী এ সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আব্দুল কাদের দীর্ঘদিন ধরে তার মালিকানাধীন ভোগদখলীয় জায়গায় বসবাস করে আসছে। উক্ত জায়গা জবর দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠে একই এলাকার পেঠান ফকির ও চাঁদ মিয়া সওদাগর গং। ইতিপূর্বেও জবর দখলকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের মধ্যে বেশ কয়েকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এদিকে শুক্রবার ভোর সকালে চাঁদ মিয়া সওদাগরের নেতৃত্বে একদল লাটিয়াল বাহিনী অবৈধ ভাবে জায়গা জবর দখল করতে বসত বাড়ীতে ব্যাপক ভাংচুর লুটপাট চালায়।  এসময় জায়গার মালিক আব্দুল কাদের ও তার পরিবারের সদস্যরা বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা করলে দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষের ৭ জন আহত হয়। আহতরা হলেন, আব্দুল কাদের (৭৫), স্ত্রী গোলবাহার (৬৫), প্রতিবন্ধি কন্যা মরিয়ম খাতুন (৩৮) ও বোন রহিমা বেগম (৩৫) এছাড়াও চাঁদ মিয়া সওদাগর ও তার ছেলে। আহতদেরকে রক্তাক্ত অবস্থায় উখিয়া ও কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত বয়োবৃদ্ধ আব্দুল কাদের অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ বছর ধরে আমরা উক্ত জায়গাটি ভোগদখল করে আসছি। প্রভাবশালী চাঁদ মিয়ার নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী লাঠিয়াল বাহিনী অবৈধ অস্ত্র নিয়ে বসতবাড়ী ভাংচুর সহ জায়গা জবর দখলের চেষ্টা চালায়। এতে বাঁধা দেওয়ার চেষ্টা করলে আমাকে সহ আমার পরিবার পরিজনের উপর ধারালো দা দিয়ে এলো পাতাড়ী হামলা করে। এ ঘটনায় থানায় মামলা রুজু হয়েছে বলে জানা গেছে।

গ্রামবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, উপজেলার হলদিয়াপালং ইউনিয়নের ঘাটি পাড়া গ্রামে দখলীয় পিএফ জায়গার আব্দুল কাদের ও তার প্রতিবন্ধি মেয়ে মরিয়ম খাতুন দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে। কিন্তু উক্ত জায়গার মালিকানা নিয়ে আব্দুল কাদের ও রত্মাপালংয়ের হাকিম আলী মাতব্বর পাড়া গ্রামের চাঁদ মিয়া সওদাগরের মধ্যে  দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। উক্ত ঘটনা নিয়ে আদালতে মামলা পর্যন্ত গড়ায়। এমনকি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে কয়েক দফা সালিশী বৈঠকে উপস্থিত চেয়ারম্যান-মেম্বারগণ আব্দুল কাদেরের ছেলে আব্দু শুক্কুরের জায়গা হিসাবে রায়ও প্রদান করা হয়।

সর্বশেষ খবরে জানা যায়, বর্তমানে এ জায়গার বিরোধীয় বিষয়টি থানা পুলিশের কাছে বিচারাধীন রয়েছে।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *