ইয়াবা মামলায় প্রথম সর্বোচ্চ দণ্ডদেশ


চকরিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজার টেকনাফের সাবরং ইউনিয়নের শাহপরীর উপকূলে বঙ্গোপসাগরে চার লক্ষ ইয়াবা উদ্ধার ও ১৯জন আসামিকে গ্রেফতার করেছিল তৎকালীন টেকনাফ থানার চৌকস পুলিশ কর্মকর্তা। বর্তমানে চকরিয়া থানায় কর্মরত উপপরিদর্শক (এস আই) গৌতম রায় সরকার। জেলায় আজকের আলোচিত ১৯জন ইয়াবা ব্যবসায়ীর ১০ বছরের কারাদণ্ডের চার্জশীট প্রদানকারী তদন্ত কর্মকর্তা হলেন উদ্দমী, নিষ্ঠাবান এ পুলিশ কর্মকর্তা।

তিনি ২৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে টেকনাফে কোস্টগার্ডের সহায়তায় তৎকালীন সময়ে ৪ লাখ পিস ইয়াবাসহ ১৯জনকে সাগর পথে এসআই গৌতম রায়ের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করেছিল। এ পুলিশ কর্মকর্তা চকরিয়া থানায়ও যোগদানের পর থেকে অত্যন্ত দক্ষ, নিষ্ঠা ও সাহসিকতার সহীত দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

জানা গেছে, সোমবার ২১ আগস্ট সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কক্সবাজার অতিরিক্ত জেলা দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. ওসমান গণি ৪ লাখ ইয়াবা আটক ও ১৯ আসামিকে দশ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো তিনমাস কারাদণ্ডাদেশ দেন।

২২ আগস্ট মঙ্গলবার বিকালে গৌতম রায় সরকার পার্বত্যনিউজ এর সাথে একান্ত স্বাক্ষাতকালে বলেন, পুলিশ পেশাকে দেশ মাতৃকার জন্য শতভাগ কাজে লোভের উর্ধ্বে থেকে ইয়াবা নিয়ে ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে এ চার্জশীটটি দিয়েছিলাম। ইয়াবার কোন মামলায় বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক সর্বপ্রথম সর্বোচ্চ সাজার বিষয়টি দেখে সত্যিই ভাল লাগছে এবং নিজেকে গর্বিত মনে করছি। বিজ্ঞ আদালতের কাছে আমি কৃতজ্ঞ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *