অভিমান করে তিন সন্তানের জনকের  আত্মহত্যা


 


চকরিয়া প্রতিনিধি:
কক্সবাজারের চকরিয়ায় পরিবারের সাথে অভিমান করে মালেশিয়া প্রবাসী তিনকন্যা সন্তানের জনক আবুল হাসেম (৪৫) নামের এক ব্যাক্তি তার বাড়ির ভেতরে সিলিং ফ্যানের সাথে গলায় রশি দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। নিহত আবুল হাসেম চকরিয়া পৌরসভার ২নম্বর ওয়ার্ডের জালিয়া পাড়া এলাকার মৃত আবদু রজ্জাকের পুত্র বলে জানাগেছে।

২৮ আগস্ট সোমবার রাত দেড়টার দিকে  এ মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, চকরিয়া পৌরসভার ২নম্বর ওয়ার্ডের আবুল হাসেম বিগত ৭ মাস পূর্বে মালেশিয়া থেকে দেশে ফিরেন। দেশে ফেরার পর তার স্ত্রী ও সন্তানের সাথে প্রায় সময় ঝগড়া করতো। সর্বশেষ ২৮ আগস্ট রাত ৯টার দিকে বাসায় ভাত খেয়ে বাহিরে চলে যান। একঘন্টা পর বাহির থেকে এসে পরিবারের কারো সাথে কোনা কথা না বলে রুমে ঢুকে দরজা হুক লাগিয়ে বন্ধ করে দেন।

তার ঘন্টা খানেক পর বাড়ির বড় মেয়ে রুম থেকে ব্যবহারের জন্য কিছু জিনিষপত্র আনতে গেলে তার পিতাকে ডাকাডাকি করলে কোন সাড়া না দেয়ায় স্থানীয় লোকজনকে খবর দেয়। পার্শ্ববর্তী লোকজন স্থানীয় কাউন্সিলর রেজাউল করিমকে বিষয়টি অবহিত করলে সে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে দেখতে পায় রুমের দরজা বন্ধ অবস্থায় হুক লাগানো। কাউন্সিলর রেজাউল তাৎক্ষনিকভাবে  চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.বখতিয়ার চৌধুরীকে অবহিত করলে তিনি থানার উপপরিদর্শক (এস আই) গোবিন্দ শর্মার নেতৃত্বে একদল পুলিশ ফোর্স ঘটনাস্থলে পৌছে স্থানীয় কাউন্সিলরের সহযোগীতায় রুমের বন্ধ দরজা ভেঙ্গে বাড়ির ভেতর থেকে গলায় ফাঁস লাগানো ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে।

থানার উপপরিদর্শক (এস আই) গোবিন্দ শর্মা বলেন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকাবাসীর সহযোগীতায় আবুল হাসেম নামের এক ব্যাক্তির   গলায় ফাঁস লাগানো ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশের প্রাথমিক সুরতহাল রির্পোট তৈরি করে লাশ ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়।
নিহতের স্ত্রীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, হঠাৎ বাহির থেকে এসে বাড়ির কারো সাথে কোন কথা না বলে রুমের ভিতর ঢুকে দরজা বন্ধ করে হুক লাগিয়ে দেয়। দুই ঘন্টা পরও যখন রুম থেকে বের হয়নি তখন মনের ভিতর সন্দেহ সৃষ্টি হলে স্থানীয় লোকজনকে বিষয়টি জানানো হয়। পরে পুলিশ এসে রুমের দরজা ভেঙ্গে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় লাশ উদ্ধার করেন। কি কারণে আত্মহত্যা করেছে তা বুঝতে পারছিনা বলে কান্না জড়িত কন্ঠে তিনি জানান।

নিহতের পরিবারে তিনটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

এ বিষয়ে চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পুলিশ গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলন্ত একটি লাশ উদ্ধার করেছে। জেলা সদর হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে লাশ পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট পাওয়ার পর ঘটনার প্রকৃত সত্য উদঘাটন করা যাবে। তবে এবিষয়ে থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *