মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে তিন শতাধিক বাংলাদেশী পাহাড়ী যুবককে নিয়োগ দেয়া হয়েছে

পার্বত্যনিউজ রিপোর্ট:

বান্দরবান জেলার মিয়ানমার সংলগ্ন দূর্গম উপজেলা থানচি ও রুমা থেকে পাহাড়ী যুবকদের নিয়ে গিয়ে খোদ মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে নিয়োগ দানের চাঞ্চল্যকর খবর পাওয়া গেছে।  বান্দরবান জেলার বিভিন্ন স্থানের উপজাতীয় বাসিন্দাদের প্রলোভন দেখিয়ে মিয়ানমার নিয়ে রোহিঙ্গাদের ফেলে আসা ভূমিতে পুনর্বাসন ও পাহাড়ী যুবকদের সেদেশের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন আরাকান আর্মিতে নিয়োগদানের জন্য চিঠির ইস্যু খবর ইতোমধ্যে জাতীয় মিডিয়াগুলোতে আলোচিত হয়েছে।

কিন্তু এবারে পাওয়া গেলো আরো গুরুত্বপূর্ণ ও চাঞ্চল্যকর তথ্য।  অনুসন্ধানে জানা গেছে, ইতোমধ্যে এই তিন শতাধিক পাহাড়ী যুবককে মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে নিয়োগ দেয়া হয়েছে এবং তারা কর্মরত রয়েছে।

এলাকার বিভিন্ন নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, বান্দরবানের মার্মা সম্প্রদায়ের বেশকিছু যুবক মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে কর্মরত রয়েছে দীর্ঘ দিন ধরে।  সম্প্রতি মিয়ানমারের সেনা বাহিনীর জন্য সীমান্ত এলাকা থেকে আরো যুবক সংগ্রহের পাঁয়তারা শুরু করলে এখবর প্রকাশ্যে আসে।

জানা গেছে, মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়া যুবকরা ছুটি পেলে বাংলাদেশে আসে।  যা এলাকার চেয়ারম্যান, হেডম্যান ও কার্বারীরা জানেন।  স্থানীয়দের আশঙ্কা, দু দেশের নাগরিক এসব সশস্ত্র প্রশিক্ষিত যুবকরা বাংলাদেশের রাস্তাঘাট চেনে, স্থানীয় ভাষা ও জনগনের সাথে তাদের রয়েছে নিবিড় যোগাযোগ এবং এরা স্থানীয় পাহাড়ী সশস্ত্র বাহিনীর সাথে মিলে যে কোন সময় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ চালাতে পারে।  বিষয়টি স্থানীয় ও জাতীয় নিরাপত্তার জন্য বিরাট ঝুঁকির সৃষ্টি করেছে।


এ সংক্রান্ত আরো খবর


বাংলাদেশের ভোটার থানছি উপজেলার বাসিন্দা অথচ দীর্ঘদিন থেকে মিয়ানমার সেনা বাহিনীতে কর্মরত রয়েছে এমন কয়েকজন যুবকের নাম পাওয়া গেছে অনুসন্ধানে।  একধিক জনপ্রতিনিধি এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, এ পর্যন্ত ৩ শতের বেশী বাংলাদেশী মার্মা ও চাকমা সম্প্রদায়ের যুবক মিয়ানমারে নিয়মিত সেনা বাহিনীতে যোগ দিয়েছে ও কর্মরত রয়েছে।

থানচি উপজেলার তিন্দু ইউনিয়নের ফো-সু পাড়ার বাসিন্দা মং মং ছেন এসএসসি পরীক্ষা দেয়ার পর গত ২০১৩ সালে  মিয়ানমারে চলে যায়।  বর্তমানে মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে মংডু জেলায় কর্মরত আছেন।

থানচি উপজেলার রেমাক্রি বাজার এলাকায় ঙা নু মে মার্মার পুত্র ক্য ই হ্লা মং ৪/৫ বছর যাবৎ মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে বুচিডং এ অপারেশনে কর্মরত রয়েছে বলে জানা যায়।

থানচি উপজেলার রেমাক্রি ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড পাই মং পাড়ার (বড় মদক বাজার পাড়া) চিং সা নু মার্মার ছেলে মং হ্লা খই ৩ বছর আগে মিয়ানমারে যায়। বর্তমানে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নিয়মিত সৈনিক হিসেবে মংডুতে কর্মরত রয়েছে।  তার বাংলাদেশী ভোটার আইডি নং- ০৩০১৫২১৮১২৪৮।

থানচি উপজেলার রেমাক্রি ইউনিয়নের খু সা অং পাড়া (তং পাড়া), বড় মদক বিজিবি ক্যম্পের পাশে চ নু প্রায় ১১ বছর যাবৎ মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে কর্মরত।  বর্তমানে সেনাবাহিনীতে হাবিলদার পদে কর্মরত রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্র জানায়।

স্থানীয় জন প্রতিনিধিদের দাবী, বান্দরবান জেলার সাথে মিয়ানমারের প্রায় ১৭৬.৪২ কি. মি. সীমানা রয়েছে।  অধিকাংশ দুর্গম ও যাতায়াত ব্যবস্থা না থাকায় সীমান্তের পুরো এলাকা নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন হয়ে পড়েছে।  এসব সীমান্ত এলাকায় স্থানীয় জেএসএস এর সশস্ত্র বাহিনী ও মিয়ানমারের একধিক বিদ্রোহী বাহিনী রয়েছে।  স্থানীয়দের জীবনের নিরাপত্তা বজায় রাখতে এসব সন্ত্রাসীদের মন যুগিয়ে চলতে হয়।

রেমাক্রী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুইশৈথুই মারমা (রনি) উল্লিখিত ব্যক্তিদের চিনেন বলে প্রতিনিধির কাছে স্বীকার করেন। তিনি বলেন, রুমা ও থানছি থেকে প্রায় ৩০০ বেশী মার্মা সম্প্রদায়ের যুবক মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে কর্মরত আছেন।  এসব ব্যক্তিরা পরিবার পরিজন নিয়ে স্থায়ীভাবে মিয়ানমারে বসবাস করছে।  এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, পাহাড়ের দুর্গম এলাকায় বসবাস ও যাতায়াত করতে হলে সব বাহিনীকে ম্যানেজ করে চলতে হয়। ২০০৮ ড্যানিডা কর্মকর্তা সুমন অপহণের ঘটনার জের ধরে আমার বড় ভাই হেডম্যানসহ আরো ২জন কার্বারীকে এএলপি হত্যা করে বলে তিনি জানান।

উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং বলেন, দূর্গমতা ও যোগাযোগ বিচ্ছিন্নতার কারণে থানছি উপজেলাকে একসময় মনে হত এটি বার্মার রাজ্য।  বার্মার স্বাধীনতাকামী সশস্ত্র বাহিনীর আনাগোনা ছিল প্রকাশ্য।  কয়েক বছর ধরে পরিবেশ পরিস্থিতি পাল্টেছে। এখানে বিজিবির তিনটি ব্যাটালিয়ন কাজ করছে। নতুন নতুন বিওপি করা হচ্ছে। সীমান্ত সড়ক হয়ে গেলে যোগাযোগ যেমন বৃদ্ধি পাবে তেমনি সন্ত্রাসীদের আনাগোনা কমে যাবে।

তিনি আরো বলেন, তিন পার্বত্য জেলা থেকে মার্মা, চাকমা, ত্রিপুরা জাতির কয়েক হাজার পরিবার মিয়ানমারে বসবাস করছেন। তাদের মধ্য অনেকে আবার বাংলাদেশেও যাতায়ত করেন।  বাংলাদেশী প্রায় তিনশত জন মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে রয়েছে।

থানছি ইউএনও জাহাঙ্গীর আলম বলেন, বাংলাদেশের কোন নাগরিক যদি বিনা অনুমতিতে অন্যদেশের নাগরিক হয়ে সেনা বাহিনীতে কর্মরত থাকেন সেটি অপরাধ।  এবিষয়ে তথ্য নিয়ে মিয়ানমারে নাগরিক হওয়া ব্যক্তিদের তালিকা সরকারের কাছে পাঠানো হবে।

বলিপাড়া বিজিবি কমান্ডার হাবিবুর রহমান বলেন, সীমান্ত এলাকার পাহাড়ী জনগণ গরীব। তারা কৃষিকাজের জন্য মিয়ানমারে গিয়ে থাকে, আবার ফিরেও আসে।  সম্প্রতি কোন যুবক মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে যোগদান করেছে এমন তথ্য জানা নেই। দিনদিন আমাদের নতুন নতুন বিওপি হচ্ছে এবং সীমান্ত সুরক্ষিত হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে স্থানীয় একটি গোয়েন্দা সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে পার্বত্যনিউজকে জানায়, বিষয়টি তারাও জেনেছেন এবং এ বিষয় নিয়ে তারা কাজ করছেন।

সূত্র মতে, বান্দরবানের রুমা, থানচি ও আলীকদম উপজেলা মিয়ানমারের সীমান্তবর্তী এলাকায় মার্মা, ম্রো, ত্রিপুরাসহ বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর লোকজনের বসবাস।  চেহারা, ধর্ম ও ভাষার মিল থাকায় সীমান্তের অপর পাড়ে মিয়ানমারের বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর সাথে তাদের সম্প্রদায়গত ও ব্যক্তিগত যোগাযোগ রয়েছে। বিশেষ করে মার্মা সম্প্রদায়কে মিয়ানমারে রাখাইন/মগ নামে অভিহিত করা হয়।

ফলে এ সমস্ত সম্প্রদায়ের লোকজন বিভিন্ন সময়ে মিয়ানমারে চলে যায়। কেউ কেউ আবার ফিরেও আসে। আবার অনেকে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন।  তাদের অনেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীতে যোগ দিয়ে থাকতে পারে। তাদের সাথে এ দেশে থাকা তাদের আত্মীয় স্বজনের যোগাযোগ রয়েছে। সেই সূত্রে আসা যাওয়াও রয়েছে।  তাদের সাথে স্থানীয় পাহাড়ী সন্ত্রাসী সংগঠনের যোগাযোগ রয়েছে। ফলে বিষয়টি জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি সৃষ্টি করেছে।  তাই বিষয়টি আমরা গুরুত্ব দিয়ে খতিয়ে দেখছি।

পাহাড় ধসে রাঙামাটি, বান্দরবান, চট্টগ্রামে নিহত ৮৬ : সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যহত

স্টাফ রিপোর্টার: 

গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, বান্দরবান ও চট্টগ্রামে পাহাড় ধসে ৮৬ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে রাঙামাটিতে ২ সেনা কর্মকর্তাসহ ৫৪ জন, বান্দরবানে ৯ জন এবং চট্টগ্রামে ২৩ জন মারা গেছেন। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। কারণ এখনও মাটির নিচে অনেকে চাপা পড়ে আছেন। সোমবার মধ্য রাতে থেকে আজ মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত প্রাণহানির এ ঘটনা ঘটেছে। প্রতিনিধিদের পাঠানো রিপোর্ট:

রাঙামাটিতে পাহাড় ধসে মৃত ৪৫

রাঙামাটি শহর ও বিভিন্ন উপজেলায় প্রবল বর্ষণের ফলে পাহাড় ধসে কমপক্ষে ৪৫ জন নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে রাঙামাটি সদরে দুই সেনা কর্মকর্তা ও দুই সেনা সদস্যসহ ২০ জন, কাপ্তাইয়ে ১১ জন ও কাউখালীতে ২১ জন, বিলাইছড়িতে ২ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। রাঙামাটি সদর হাসপাতালে আহত ৫৬ জন ভর্তি রয়েছেন।

রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের সিভিল সার্জন ডা. শহীদ তালুকদার জানান, চার সেনা সদস্যসহ সদর হাসপাতালে ২০টি মৃতদেহ আছে। এই সংখ্যা বাড়তে পারে।

সকালে শহরের যুব উন্নয়ন, ভেদভেদী, শিমুলতলি, রাঙাপানিসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে পাহাড় ধসের খবর আসতে থাকে। দুপুর ১টা পর্যন্ত রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে রাঙামাটি সদর হাসপাতালে ১১ জনের মৃতদেহ এসেছে। এরা সবাই বিভিন্নস্থানে বাড়ীর উপর পাহাড়ধসের ঘটনায় মৃত্যুবরণ করেছেন।

নিহতরা হলেন- রুমা আক্তার,নুরিয়া আক্তার,হাজেরা বেগম,সোনালি চাকমা,অমিত চাকমা, আইয়ুশ মল্লিক,লিটন মল্লিক, চুমকি দাশ এবং আরো তিনজনের নাম তাৎক্ষনিকভাবে জানা যায়নি।

এদিকে কাপ্তাই উপজেলায় ১১ জন, কাউখালী উপজেলায় ২১ জন মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তবে এখনো পর্যন্ত কারো নাম জানা যায়নি ।

সূত্রে জানা গেছে, রাঙামাটি শহর থেকে ২ কি. মি দুরে শহরের প্রবেশমুখে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কের পাহাড় ধ্বসের কারণে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ হয়ে আছে এমন খবরের ভিত্তিতে রাঙামাটি সদর জোনের সেনাবাহিনীর ১৬ সদস্যের একটি দল উদ্ধার কাজ চালাতে যায়। দলটি ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। এসময় অকষ্মাৎ নতুন করে পাহাড় ধস শুরু হলে সেনা সদস্যরা ৩০ ফুট নিচে পড়ে মাটি চাপা পড়ে এ দূর্ঘটনা ঘটে।

 রাঙামাটি সেনাবাহিনীর আঞ্চলিক মুখপাত্র জানিয়েছেন, সকালে রাঙামাটি মানিকছড়ি সেনা ক্যাম্পের সামনে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম প্রধান সড়ক যান চলাচল স্বাভাবিক করতে গিয়ে ক্যাম্পের পাহাড় ধসে চার সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ বিভাগের সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম জানিয়েছেন, রাঙামাটিতে পাহাড় ধসের ঘটনায় কয়েকজন সেনা কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। এখনও তাদের উদ্ধার কাজ চলছে। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত জানানো হবে।

নিহত সেনা কর্মকর্তাগণ হলেন, মেজর মাহফুজ (৪৪ লং কোর্স), ক্যাপ্টেন তানভির (৬৪ লং কোর্স)। এবং আহত অপর দুই সেনা সদস্য হলেন কর্পোরাল আজিজ ও সৈনিক শাহীন। মেজর মাহফুজের ৫ বছরের একটি সন্তান রয়েছে এবং ক্যাপ্টেন তানভির সালমান নববিবাহিত।

এ ঘটনায় আরো ১০-১২ জন সেনা সদস্য আহত ও ১ জন নিখোঁজ রয়েছে। নিখোঁজ সৈনিকের নাম আজিজ। আশঙ্কাজনক পাঁচ সেনা সদস্য হচ্ছেন সৈনিক আজমল, মামুন, ফিরোজ, মোজাম্মেল ও সেলিম। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারযোগে ঢাকার সিএমএইচে নেয়া হয়েছে। বাকিরা মানিকছড়ি রিজিয়ন সিএমএইচে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে কাপ্তাই উপজেলার রাইখালি ইউনিয়নের কারিগরপাড়া এলাকায় মাটিচাপা পড়ে উনু চিং মারমা এবং নিকি মারমা মারমা নামের দুইজন নিহত হয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন রাইখালি ইউপি চেয়ারম্যান ছায়ামং মারমা।

কাপ্তাই উপজেলার নতুন বাজার এলাকায় গাছ চাপা পড়ে আবুল হোসেন (৪৫) নামের এক ব্যক্তি মারা গেছেন এবং ইকবাল নামের এক ব্যক্তি কর্ণফুলি নদীতে নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন।

এদিকে প্রবল বর্ষণে রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন স্থানে মাটিচাপা পড়েছে অসংখ্য মানুষ। ফায়ার সার্ভিসের রাঙামাটি টিমকে সহযোগিতা করতে চট্টগ্রামের হাটহাজারি থেকেও বাড়তি ইউনিট আসছে বলে জানিয়েছেন ফায়ারসার্ভিস কর্মকর্তারা। রাঙামাটি শহরে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা।

রাঙামাটির কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মুহম্মদ রশীদ জানিয়েছেন, এটা একটা ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয়। মৃতের সংখ্যা আরো অনেক বাড়বে। অনেক স্থানেই এখনো মানুষ মাটি চাপা পড়ে আছে।

বান্দরবানে পাহাড় ধ্বসে শিশুসহ ৯ জনের মৃত্যু

আমাদের বান্দরবান প্রতিনিধি জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় মোরা’র ক্ষত শুকাতে না শুকাতে নিম্নচাপে টানা তিন দিনের বর্ষণে ও পাহাড়ী ঢলে বান্দরবানে পাহাড় ধ্বসে মাটি চাপা পড়ে একই পরিবারের তিন শিশুসহ ৯ জন নিহত হয়েছে। নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে বান্দরবানের সাথে সারা দেশের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

দমকল বাহিনী ও স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার রাতে প্রবল বর্ষণে ৩টার দিকে কালাঘাটার কবরস্থানের পাশে, জেলেপাড়া ও লেমুঝিরি আগাপাড়া পাহাড় ধ্বসের ঘটনা ঘটে। এসময় ঘুমন্ত অবস্থায় তিন শিশুসহ ৬জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছে ৪জন। আহতদের উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কালাঘাটার কবরস্থানের পাশে পাহাড় ধ্বসে রেবা ত্রিপুরা (১৮) নামের এক কলেজ শিক্ষার্থী মাটি চাপা পড়ে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। জেলে পাড়ায় মা-মেয়ে কামুরন নাহার ও সুফিয়া বেগম মাটি চাপায় নিখোঁজ রয়েছেন এবং লেমুঝিরি আগাপাড়া এলাকায় পাহাড় ধসে একই পরিবারের তিন শিশু শুভ বড়ুয়া (৮), মিঠু বড়ুয়া (৬), লতা বড়ুয়া (৫) নিহত হয়েছেন। আহতরা হলেন পসান ত্রিপুরা (২২), বীর বাহাদুর ত্রিপুরা (১৬) ও দুজাকিন ত্রিপুরাসহ (২৬) আরও দু’জন।

এছাড়া মঙ্গলবার সকালে কুহালং ইউনিয়নের পূর্ব ধোপাছড়ি এলাকার সম্বুনিয়া পাড়ায় পাহাড় ধসে একই পরিবারের ঘুমন্ত অবস্থায় আরও তিনজন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন, মংকাউ খেয়াং (৫৫) মেম্রউ খেয়াং (১৩) ও ক্যসা খিয়াং (৭) বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন। এসময় চাইহ্লাউ (৩৫) ও সানু খেয়াং (১৮) নামে দু’জন আহত হয়েছেন।

ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মো. তারেক জানান, পাহাড় ধ্বসে এ পর্যন্ত ৪জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। গভীর মাটির নিচে মা ও মেয়ের লাশ পড়ে থাকায় এবং প্রবল বর্ষণের কারণে উদ্ধার তৎপরতা চালাতে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। এ দু’জনের লাশ উদ্ধারে সর্বাত্মক চেষ্টা চালানো হচ্ছে। কুহালং ইউনিয়নের পূর্ব ধোপাছড়ি এলাকার সম্বুনিয়া পাড়ায় পাহাড় ধ্বসে ঘটনা তার জানা নেই।

জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক জানান, প্রশাসনের পক্ষ থেকে পাহাড়ের পাদদেশে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে। ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে খোঁজ নেয়া হচ্ছে। এছাড়া জেলা সদর ও ছয় উপজেলায় পাহাড় ধ্বসে প্রায় একশ’র উপরে পাহাড় ধ্বসে ঘর বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার ভোরে চট্টগ্রামের চন্দনাইশ ও রাঙ্গুনিয়া উপজেলায় পাহাড় ধসে একটি শিশুসহ ১৭ জন নিহত হয়েছেন। এখনও নিখোঁজ রয়েছেন একজন।

টানা বর্ষণে বান্দরবানের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

রাঙামাটিতে সোমবার থেকে শুরু হওয়া বর্ষণে পাহাড়ের মাটি নরম হয়ে ধসে পড়ে। ধসে পড়া মাটির নিচে এখনও অনেকে চাপা পড়েছেন। তাদের উদ্ধারে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। তবে বৃষ্টি কারণে উদ্ধার কাজ চালাতে তাদের বেগ পেতে হচ্ছে।

মঙ্গলবার সকালে রাঙামাটি-চট্টগ্রাম প্রধান সড়ক যান চলাচল স্বাভাবিক করতে গিয়ে ক্যাম্পের পাহাড় ধসে চার সেনা সদস্য নিহত হয়েছেন। তারা হলেন, মেজর মাহফুজ, ক্যাপ্টেন তানভীর, করপোরাল আজিজ, সৈনিক শাহীন। মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন রাঙামাটি সেনাবাহিনীর আঞ্চলিক মুখপাত্র। এছাড়া আহত ৫ সেনা সদস্যকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হচ্ছে। তারা হচ্ছেন, এরা হচ্ছেন, সৈনিক আজমল, মামুন, ফিরোজ, মোজাম্মেল ও সেলিম।

এদিকে, টানা বর্ষণে বান্দরবানের কালাঘাটা এলাকায় তিনটি স্থানে পাহাড় ধসে পড়েছে। এতে তিন শিশুসহ ৭ জন প্রাণ হারিয়েছে। নিখোঁজ রয়েছেন আরও ২ জন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৫ জন। সোমবার রাত ৩টার দিকে প্রবল বর্ষণের সময় কালাঘাটা এলাকার কবরস্থানের পাশে, জেলেপাড়া ও লেমুঝিরি আগাপাড়া এলাকায় পাহাড় ধসে হতাহতের ঘটনা ঘটে।

পাহাড় ধসের কারণে বিভিন্ন স্থানে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যহত

টানা বর্ষণ ও ভয়াবহ পাহাড় ধসে তিন পার্বত্য জেলার বিভিন্ন স্থানে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যহত হয়েছে।নানান স্থানে নতুন করে পাহাড় ধসের ও সড়ক বন্ধের সংবাদ পাওয়া যাচ্ছে। পরিস্থিতি ক্রমশ খারাপ হচ্ছে। সেনাবাহিনী বেসামরিক প্রশাসনের সহায়তায় বেসামরিক ব্যক্তিবর্গকে যথাসাধ্য সাহায্য করছে। অতিবৃষ্টিপাত উদ্ধার কার্যক্রম ব্যহত করছে। বিশেষ করে খারাপ মোবাইল নেটওয়ার্কের কারণে সর্বত্র যোগাযোগ করা যাচ্ছে না।

রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কে পাহাড় ধসের কারণে নানান স্থানে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। কাপ্তাই-চট্টগ্রাম সড়ক ভূমিধ্বসে বন্ধ রয়েছে। বেসামরিক ব্যক্তিবর্গ সড়ক চালুর চেষ্টা করছে, কিন্তু বৃষ্টির কারণে ব্যহত হচ্ছে।

খাগড়াছড়িতে পাহাড় ধসের ঘটনা বা হতাহতের কোনো খবর না পাওয়া গেলেও তবে গুইমারাতে রাস্তা বন্ধের কারণে খাগড়াছড়ি-চট্টগ্রাম সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। চট্টগ্রাম-গুইমারা সড়ক গাড়িটানা পয়েন্টে (মানিকছড়ি ক্যাম্প থেকে ৭ কিমি দূরে) বন্ধ রয়েছে। ৩টি গাছ হাই-টেনশন তার আছড়ে পড়ে রাস্তার উপরে পড়ে রয়েছে। পিডিবি ও স্থানীয় প্রশাসন কার্যক্রম শুরু করেছে।

বান্দরবানে বান্দরবান-রুমা সড়ক পাহাড় ধসে কাটা পাহাড় এলাকায় (Y-জংশনের কাছে) বন্ধ রয়েছে।বান্দরবান-রুয়াংছড়ি সড়কে রামজাদি মন্দিরের কাছে ব্রিজ ডুবে যাওয়ায় চলাচল বন্ধ রয়েছে।

এদিকে তিন পার্বত্য জেলার বেশির ভাগ স্থানে গত ৪৮-৭২ ঘন্টা বিদ্যুৎ না থাকায় মোবাইল নেটওয়ার্ক অনেকাংশে অচল হয়ে পড়েছে। ক্ষয়ক্ষতির সংবাদ পেতে ও উদ্ধার তৎপরতা চালাতে নানা সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। সাংবাদিকরা খবর পাঠাতেও নানা সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন বলে জানিয়েছেন।

এদিকে অব্যহত পাহাড় ধসে মৃতের ঘটনায় শোক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

 

জেএসএস সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজীতে অতিষ্ঠ বান্দরবানবাসী (ভিডিওসহ)

পার্বত্যনিউজ রিপোর্ট:

অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি পার্বত্য চট্টগ্রাম।‌ পর্যটন ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর বৈচিত্রময় ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির জন্য দেশ ও দেশের বাহিরে এ অঞ্চলের পরিচিতি রয়েছে। অথচ একটি স্বার্থন্বেষী গোষ্ঠী নিজেদের হীন উদ্দেশ্য সাধনকল্পে বাংলাদেশের স্বাধীনতা লগ্ন থেকে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রমের মাধ্যমে অশান্ত করে তুলেছে পার্বত্য চট্টগ্রামকে। ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর করা হয় শান্তিচুক্তি। কিন্তু স্বার্থন্বেষী গোষ্ঠী ষড়যন্ত্র অব্যাহত রাখে। অস্ত্র ও ভয়ভীতির মাধ্যমে চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে যায়।

তাদের অস্ত্রের হুমকির মুখে সাধারণ উপজাতি সম্প্রদায় ও পাহাড়ি-বাঙালি উভয়ই ভীত-সন্ত্রস্ত। এ স্বার্থন্বেষী গোষ্ঠী পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি(পিসিজেএসএস) ও ইউনাইটড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ) নামে আঞ্চলিক দল গঠনের অন্তরালে পার্বত্য চট্টগ্রামের তিন জেলায় (খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি ও বান্দরবানে) ত্রাসের রাজ্য কায়েম করতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। শান্তিবাহিনী এই দলগুলোর সামরিক শাখা রয়েছে।

শান্তিচুক্তির পর শান্তিবাহিনী বিলুপ্ত হয়েছে বলে প্রচার রয়েছে। এখন স্থানীয় জনগনের কাছে তারা ‘ভেতর পার্টি’ বলে পরিচিত। গভীর জঙ্গলের ভেতরে তাদের সশস্ত্র অবস্থান ও কার্যকলাপ পরিচালিত হয় বলে তারা ‘ভেতর পার্টি’ নামে নিজেদের পরিচয় দিয়ে থাকে।  যার ফলশ্রুতিতে রাঙামাটি, খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানে সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপকে চাঁদা দিতে হয়।

মুরগি ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে গরু ব্যবসায়ী ও কাঠ ব্যবসায়ীকেও। এমনকি পাহাড়ের সাধারণ উপজাতি ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সম্প্রদায়কেও তাদের কষ্টার্জিত অর্থ পাহাড়ের এ সন্ত্রাসীদের দিতে হয়। সরকারি, বেসরকারি ও এনজিওর বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্প হতে চাঁদা দিতে হয় জেএসএস এর সশস্ত্র গ্রুপের চাঁদাবাজদের। সন্ত্রাসীদের চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে তাদের উপর হত্যা, অপহরণ, মারপিঠ ও ধর্ষণসহ নানা অত্যাচার করা হয়।

JSS Report3

সম্প্রীতির বান্দরবান হিসেবে পরিচিত পার্বত্য জেলাটিকেও অশান্ত করে তুলতে জেএসএস নামক দলটির সশস্ত্র গ্রুপ। বান্দরবানে সাতটি উপজেলায় তাদের চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম বৃদ্ধি করেছে। ফলে, পাহাড়ের সাধারণ জনগণ ও ব্যবসায়ীমহলের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে পড়ে। প্রতিনিয়ত একটির পর একটি অভিযোগ আসতে থাকে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নিকট। সম্প্রীতির বান্দরবানে শান্তি ফিরিয়ে আনতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তৎপরতায় সম্প্রতি গ্রেফতার হয়েছে বেশ কয়েকজন সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজকে।

গত ৪ ডিসেম্বর ২০১৬ থানচিতে জেএসএস এর নামে সন্তু লারমার কথা বলে চাঁদাবাজি করার সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে হাতেনাতে ধরা পড়ে তিন সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজ। তারা হল-ম্যান ক্রোই ম্রো, রেং হাই ম্রো ও মাংয়া ম্রো। তার মধ্যে ২জন কারাগারে রয়েছে। আটককৃত সন্ত্রাসীরা জিজ্ঞাসাবাদে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে চাঁদাবাজি সম্পর্কে বিস্ময়কর তথ্য দেয় বলে বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে।

তারা জানায়, অনেকের কাছ থেকে বিভিন্ন অঙ্কের টাকা আদায় করে তারা জয়সেন, উত্তম চাকমা ও সাইক্লোন চাকমাকে (তারা রাঙামাটি থেকে চাঁদাবাজির জন্য নিয়োগকৃত) দেয়। থানচি বাজারে বিভিন্ন অংকে চাঁদাবাজি করে, যেমন: পাবলিক পরিবহন হতে ১০,০০০(দশ হাজার টাকা, কলা ও কাঠবাহী গাড়ি থেকে ৫,০০০(পাঁচ হাজার টাকা), মটরসাইকেল হতে ২,৫০০(দুই হাজার পাঁচশত টাকা)হারে মাসিক চাঁদা আদায়ের জন্য লিফলেট বিতরণ করে ও চাঁদাবাজি করে। স্থানীয় জেএসএস নেতা, থানচি উপজেলার পরিষদের শীর্ষ স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতায় এ চাঁদাবাজি হয়ে থাকে বলে জানান তারা।

এদিকে গত ৬ ডিসেম্বর ২০১৬ রোয়াংছড়ি উপজেলা থেকে আইন শৃঙ্খলাবাহিনী আটক করে আরেক কুখ্যাত সন্ত্রাসী ও চাঁদবাজ পরান/আপন তঞ্চঙ্গাকে। উক্ত সন্ত্রাসী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরও বিস্ময়কর তথ্য দেয়। সে জানায়, সমস্ত বান্দরবানে তাদের সশস্ত্র গ্রুপ চাঁদাবাজি ও অপহরণ করে থাকে। রোয়াংছড়িতে একটি চাঁদাবাজির শক্তিশালী নেটওর্য়াক রয়েছে।

পরান তঞ্চঙ্গা, রুপন তঞ্চঙ্গা, প্রীতিসেন তঞ্চঙ্গা, অনীল তঞ্চঙ্গা, অপু তঞ্চঙ্গা, অনুপম তঞ্চঙ্গার নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী গ্রুপ রোয়াংছড়ি উপজেলা থেকে বান্দরবান জেলার চাঁদাবাজি ও সন্ত্রাসীদলের শীর্ষ নেতা এস মং (ছদ্মনাম ও রাঙ্গামাটি হতে আগত) এর প্রত্যক্ষ তত্ত্ববধানে সকল ব্যবসায়ী ও সাধারণ ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ও বাঙালীর নিকট হতে চাঁদা আদায় করে থাকে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে খুন ও অপহরণের মতো ঘটনায় স্বীকার হতে হয় পাহাড়ি সাধারণ জনগোষ্ঠীকে। পরান তঞ্চঙ্গার তথ্য মতে, উক্ত চাঁদাবাজির টাকা পিসিজেএস এর কেন্দ্রীয় শীর্ষ নেতার পিএসের নিকট প্রেরণ করা হয়। যে টাকা থেকে পার্টির সাংগঠনিক কার্যক্রম পরিচালনা, পার্টিকে শক্তিশালী করা, অস্ত্র ক্রয় এবং দেশীয় ও আন্তর্জাতিক লবিং, মিডিয়া লবিং এর কাজে ব্যবহার করা হয়।

গত ১৮ ডিসেম্বর ২০১৬ আলীকদম উপজেলার দশ কিলো এলাকা হতে চাঁদাবাজির অপরাধে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী আটক করে কেতং ত্রিপুরা, ক্যমং ত্রিপুরা ও ছবিরাম ত্রিপুরাকে। আটককৃত সন্ত্রাসীদের একইদিনে প্রেরণ করা হয় জেল হাজতে। কেতং ও ক্যমং ত্রিপুরার নিকট অবৈধ অস্ত্র ও গুলি রয়েছে বলে সূত্রে জানা যায়।

গত ২৬ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখ থানচি উপজেলার বলিপাড়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের সুয়ারাং পাড়ায় চাঁদা আদায়কালে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক আটক করা হয় আরও ৩ জন চাঁদাবাজ। তারা হলো, মংত্রচি মার্মা ওরফে রেচিং মার্মা, ম্যানথক ম্রো ও ম্যানপং ম্রোকে।

তাদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, তারা থানচি-আলীকদম সড়কের ১০কিলো, ১৫কিলো, ১৬কিলো ও ২৬কিলো এলাকায় চাঁদাবাজি করে। আটক হওয়ার সময় ম্যানপং ম্রো এর নিকট রাইফেলের গুলি পাওয়া যায়।

গত ২৫ ডিসেম্বর ২০১৬ ম্যাংপাই ম্রো বোথা ম্রো নামক ব্যক্তির কাছ থেকে রাইফেলের গুলি থানচি উপজেলা জেএসএস এর সভাপতি চষা থোয়াই মার্মার(পক্ সে) ভাই এর নিকট পৌঁছে দেয়ার জন্য তার ব্যাগে নিয়ে যায়। ম্যানপং ম্রো বর্তমানে কারাগারে রয়েছে।

এদিকে গত তিন ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ৪ জন অজ্ঞাত ব্যক্তি কর্তৃক রোয়াংছড়ি উপজেলার নোয়াপতং ইউনিয়নের বাগমারা ভিতরপাড়ার কারবারী মং শৈ থুই মার্মা অপহরণ করা হয়। আইন শৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক বর্ণিত ব্যক্তিকে বিভিন্ন স্থানে তল্লাশি করেও মেলেনি তার সন্ধান। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, জেলার রোয়াংছড়ি উপজেলার নোয়পতং ইউনিয়নের বাঘমারা ভিতর পাড়ায় অস্ত্রধারী ৪ সন্ত্রাসী অস্ত্রের মুখে বাঘমারা ভিতরপাড়া কার্বারী (পাড়া প্রধান) মংশৈথুই মারমাকে (৪২) অপহরণ করে নিয়ে গেছে। খবর পেয়ে পুলিশ ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও আশপাশের এলাকাগুলোতে অভিযান চালানো করেন।

প্রত্যক্ষদর্শী বাথোয়াই মার্মা বলেন, রাত নয়টার দিকে অস্ত্রধারী সন্ত্রসীরা কারবারীকে ডেকে আনতে আমাকে পাঠায়। তারা এসময় নিজেদেরকে শান্তি বাহিনীর (জেএসএস) লোক পরিচয় দেয়।

অপহৃত কারবারী মংশৈথুই’র ছোট বোন মা চ থুই বলেন, অস্ত্রধারী সন্ত্রসীরা আমার ভাইকে হাত ও চোখ বেঁধে পাহাড়ি পথ ধরে জঙ্গলের দিকে মারতে মারতে নিয়ে যায়। কিন্তু আমরা কোন প্রতিবাদ করতে পারিনি। এসময় তারা নিরাপত্তা বাহিনীকে ঘটনা সম্পর্কে না জানাতেও নির্দেশ দেয়। তবে ঘটনার পর আমরা পার্শ্ববর্তী সেনাক্যাম্পে বিষয়টি অবহিত করি।

জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক হ্লাথোয়হ্রী মারমা জানান, ইউপি নির্বাচনের পর থেকে জনসংহতি সমিতির সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলে আসছে আওয়ামী লীগের। এ ঘটনার জের ধরে জনসংহতি সমিতির লোকজন পাড়া কারবারিকে অপহরণ করেছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।

পরবর্তিতে গত ৫ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে বেথছড়া এলাকায় ওই কারবারীকে অসুস্থ্য অবস্থায় পাওয়া যায়। এতে সন্দেহজনকভাবে অনেকে আটক করা হলেও এখনো প্রকৃত অপহরণকারীদের খুঁজে বের করতে বিভিন্নভাবে তল্লাশি চালাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

গত ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখ আলীকদম উপজেলার রূপসি পাড়া ইউনিয়নের নাইক্ষ্যংমুখ এলাকায় জেএসএস এর সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা চাঁদাবাজি করছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গমন করলে চাঁদাবাজরা বর্ণিত দলকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি ছুঁড়ে। আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও পাল্টা গুলি করে। এতে জেএসএস এর একজন সশস্ত্র চাঁদাবাজ পূর্ণরতন চাকমা নিহত হয়। জেএসএস এর নিহত সন্ত্রাসীর পরনে ছিল জেএসএস দলের জলপাই কালার পোশাক।

ািু্বক-280x300

সূত্র জানিয়েছে, লামা থানার অন্তর্গত রূপসীপাড়া আর্মি ক্যাম্প থেকে আনুমানিক ৮ কি.মি. দুরে অবস্থিত নাইক্ষ্যংমুখ পাড়ায় সপ্তাহ খানেক আগে জেএসএস(মূল) দলের সাধন চাকমা ওরফে ওমাং গ্রুপের সন্ত্রাসীরা চাঁদা দাবী করে। সোমবার তাদের চাঁদা নেয়ার নির্ধারিত দিন ছিল।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ খবর পেয়ে সেনাবাহিনীর একটি টহল দল সোমবার ঘটনাস্থলের আশেপাশে গোপনে অবস্থান নেয়। এদিকে বিকাল চারটার দিকে জেএসএস সন্ত্রাসীদের ১৫ জনের একটি দল এসএমজি, এলএমজির মতো ভয়ঙ্কর আগ্নেয়াস্ত্রে সজ্জিত হয়ে চাঁদা আদায় করতে নাইক্ষ্যংমুখ পাড়ায় আগমন করে। এসময় তারা কাছের সেনাবাহিনী অবস্থান টের পেয়ে গুলিবর্ষণ শুরু করে।

সেনাবাহিনীও পাল্টা জবাবে গুলিবর্ষণ শুরু করলে সন্ত্রাসীরা গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে পালিয়ে যায়। এসময় ১৫ মিনিটব্যাপী বন্দুকযুদ্ধে উভয় পক্ষ আনুমানিক ৩০০ রাউন্ড গুলি বিনিময় করে। সেনাবাহিনীর গুলিতে পুর্ণ রতন চাকমা(২৮) নামের এক সন্ত্রাসী গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনা স্থলেই নিহত হয়। সে রাঙামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার হিরারচর গ্রামের রঙ্গু চাকমার পুত্র।

এদিকে গত ১৮ মার্চ পার্বত্য চট্টগ্রামের রাজনৈতিক সংগঠন জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) সামরিক শাখার থার্ড ইন কমান্ড ও বান্দরবান জেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত  ধনবিকাশ চাকমা (৬০) ওরফে উ মংকে তার ‍দুই সহযোগীসহ আটক করেছে র‌্যাব। তাদের কাছ থেকে প্রায় ১২ লাখ টাকা উদ্ধার করা হয়। রোববার (১৯ মার্চ) ভোরে তাদের চট্টগ্রামের হাটহাজারী থেকে আটক করা হয়েছে।

17361743_1279388035508316_5742224790216268162_n

সূত্রে জানা গেছে, র‌্যাব-৭ এর ডিএডি মো. শহীদুল্লাহর নেতৃত্বে একটি টিম রবিবার বিকেলে চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানা এলাকায় ডিউটিরত থাকাকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে, বান্দরবান থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সশস্ত্র শাখার একটি দল খুন, গুম, অপহরণ ও চাঁদাবাজির বিপুল পরিমাণ টাকাসহ মাইক্রোবাসে করে চট্টগ্রামের দিকে আসছে।

এ খবরের ভিত্তিতে ডিএডি মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে হাটহাজারী থানাধীন বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন নিউ শাহজাহান হোটেলের সামনে চেকপোস্ট বসিয়ে গাড়ি তল্লাশী শুরু করে।এই তল্লাশীকালে বিকাল সাড়ে চারটার দিকে চট্টগ্রামের দিক থেকে একটি কালো রঙের মাইক্রোবাস আসতে থাকলে তারা থামানোর সঙ্কেত দেয়। এতে মাইক্রোবাসটি চেকপোস্টের সামনে থামে এবং গাড়ির দরজা খুলে তিন/চারজন যাত্রীবেশী জেএসএস সন্ত্রাসীরা বেরিয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে।

এসময় র‌্যাব সদস্যরা তাদের চেজ করে আটক করতে সক্ষম হয়। আটককৃতরা হলো, ধনবিকাশ চাকমা, পিতা- মৃত বীরেন্দ্র চাকমা, মাতা- মায়াবী চাকমা, বাড়ি- পানখাইয়া পাড়া, খাগড়াছড়ি; প্রেম রঞ্জন চাকমা(৩২), পিতা- সুন্দর মণি চাকমা, বাড়ি- পূনর্বাসন পাড়া, বান্দরবান সদর এবং রুবেল বাবু তঞ্চঙ্গা, পিতা- রাজ্য মোগহন তঞ্চঙ্গা, বাড়ি- বিলাইছড়ি রাঙামাটি।’

সূত্রমতে, আটককালে ধনবিকাশ চাকমার হাতে রক্ষিত কালো রঙের একটি ব্যাগ ও সকলের পোশাকের বিভিন্ন পকেট তল্লাশী করে ১ হাজার টাকা, ৫০০ টাকা ও ১০০ টাকার বেশ কয়েকটি বান্ডিল উদ্ধার করা হয়। এসব বান্ডিলে প্রায় ১২ লক্ষ টাকা পাওয়া যায়।

গ্রেফতারকৃতরা র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে নিজেদের পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির সামরিক শাখার সদস্য বলে স্বীকার করে এবং আটককৃত টাকা বান্দরবান থেকে জনসংহতি সমিতির নামে খুন, অপহরণ, গুমের ভয় দেখিয়ে চাঁদাবাজির মাধ্যমে আয় করা বলে র‌্যাবের কাছে দেয়া স্বীকারোক্তিতে জানিয়েছে।

 গত বান্দরবান সদর উপজেলায় সুয়ালক ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ তিন সন্ত্রাসীকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন, রাঙ্গামাটির বরকল উপজেলার সুভলং ইউনিয়নের রিটু চাকমা (৩৪), বান্দরবান বলিপাড়ার অমল চাকমা ও টংকাবতীর শান্তি চাকমা। এসময় তাদের কাছ থেকে ৮ রাউন্ড গুলিসহ একটি বিদেশী পিস্তল ও ৫ রাউন্ড গুলিসহ একটি দুই নলা বন্ধুক উদ্ধার করা হয়।

বান্দরবান জেলা পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় জানান, সুয়ালক ইউনিয়নের ভাগ্যকুল এলাকার সামশুর রহমানের মাছের প্রজেক্টের পাশের ঝিরিতে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে স্থানীয়দের সহায়তায় মঙ্গলবার রাতে অস্ত্রসহ চাঁদাবাজ তিন সন্ত্রাসীকে আটক করে। অভিযান চলাকালে সন্ত্রাসীরা রাতের অন্ধকারে এলোপাতারী গুলি করে। এসময় পুলিশের গুলিতে রিটু চাকমা আহত হন।

তিনি জানান, এ তিন সন্ত্রাসী দীর্ঘ দিন ধরে ডাকাতি ও চাঁদাবাজি কাজে লিপ্ত রয়েছে। ১ মার্চ থেকে চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ও মাদকের বিরুদ্ধে বিশেষ অভিযান পরিচালিত হয়ে আসছে।

টংকাবতী একাধিক স্থানীয়রা জানান, জেএসএস’র কালেক্টর রিটু চাকমার নেতৃত্বে দীর্ঘ দিন ধরে এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ও চাঁদাবাজি চলে আসছে। কেউ তার বিরুদ্ধাচরণ করলে মারধরের স্বীকার হন। পুলিশ সূত্র জানা গেছে, অভিযানে সদর থানার পরির্দশক মো. রফিক উল্লাহসহ ৫ পুলিশ সদস্য আহত হন।

নীলগিরি, নীলাচল, শৈল প্রপাত, মেঘলা, বগা লেক, চিম্বুক ভ্যালি, তাজিং ডং, কেওকারাডং, বড় পাথর প্রভৃতি পর্যটন কেন্দ্র সম্বলিত বাংলাদেশের অত্যন্ত সৌন্দর্য মণ্ডিত জেলা বান্দরবান উপজাতীয় আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএসের সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী, খুন, ধর্ষণ, অপহরণে বিপন্ন।

তবে সেনাবাহিনী ও স্থানীয় আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এই সন্ত্রাস নির্মূলে তৎপর রয়েছে। তাদের তৎপরতায় সম্প্রতি বেশ কিছু জেএসএস সন্ত্রাসী আটক হওয়ায় অনেকটাই কোণঠাসা অবস্থায় রয়েছে। এই অভিযান চলমান থাকলে বান্দরবানে জেএসএস সন্ত্রাসীদের আস্তানা নির্মূল অনেকাংশেই সম্ভব হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন জেলাবাসী।

তাদের মতে, পার্বত্য বান্দরবান জেলায় জেএসএসের সশস্ত্র গ্রুপ ও চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে সকলস্তরের পাহাড়ি উপজাতি ও বাঙালিদের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রচেষ্টা সম্প্রীতি রক্ষা ও পর্যটন বিকাশে ভূমিকা রাখতে পারে। কাজেই এখনই সময় জেএসএস এর সন্ত্রাসীদের অপকর্ম ও চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার।

বুধবার থেকে খুলছে স্বর্ণ মন্দির

%e0%a6%b8%e0%a7%8d%e0%a6%ac%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%a3-%e0%a6%ae%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%b0

নিজস্ব প্রতিবেদক:
পর্যটকদের জন্য আবার খুলছে ‘বুদ্ধ ধাতু জাদি’ বা স্বর্ণ মন্দির। স্থানীয় প্রশাসন ও মন্দির কর্তৃপক্ষ আলোচনার পর অবশেষে পর্যটকদের জন্য বুধবার থেকে আবার খুলে দেয়া হবে। মন্দিরের পবিত্রতা রক্ষায় গত ফেব্রুয়ারিতে পর্যটকদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছিল কর্তৃপক্ষ মন্দির কতৃপক্ষ।

রবিবার (১৩ নভেম্বর) রাতে বান্দরবান কেন্দ্রীয় বৌদ্ধবিহারে কঠিন চীবরদান উৎসব শেষে মতবিনিময় সভায় স্বর্ণমন্দিরের প্রতিষ্ঠাতা জোত মহাথেরো উচহ্লা ভান্তে এ ঘোষণা দেন তিনি।

বান্দরবান জেলায় অবস্থিত অন্যতম একটি দর্শনীয় স্থান ‘বুদ্ধ ধাতু জাদি’ যেটি মূলত স্বর্ণ মন্দির নামেই পরিচিত। পর্যটকদের দর্শনীয় স্থানগুলোর মধ্য ‘বুদ্ধ ধাতু জাদি’ বা স্বর্ণ মন্দির নামেই বেশি পরিচিত।

প্রশাসন ও আইনশৃক্সখলা বাহিনীর নজরদারির মধ্যে পর্যটকরা প্রবেশ করতে পারবেন। প্রতিদিন সকাল ১০ থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সেখানে পর্যটকরা প্রবেশের সুযোগ পাবেন। মাঝে দুপুর ১২টা থেকে ২টা পযন্ত প্রার্থনার জন্যবন্ধ থাকবে।

নিষেধাজ্ঞার সময় মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিল, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পর্যটকরা বৌদ্ধ মন্দিরের পবিত্রতা নষ্ট করছে, বিভিন্নভাবে ভক্তদের হয়রানিও করেছে।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, দর্শনীয় স্থান স্বর্ণমন্দিরের নিরাপত্তায় ৫টি সিসি ক্যামেরা বরাদ্দ দিয়েছেন জন্য পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি। এ ছাড়াও প্রতিষ্ঠানের পবিত্রতা এবং নিরাপত্তায় প্রতিদিন ৫ জন করে পুলিশ সদস্য নিয়োজিত থাকবে। সেখানে প্রবেশ করতে হলে পর্যটকদের মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে তল্লাাশি করে ঢুকতে হবে।

স্বর্ণ মন্দিরের প্রধান পুরোহিত উপ ঞ ঞা জোত মহাথেরের সেক্রেটারি বাচ মং জানিয়েছেন, পর্যটকেরা মন্দিরের বিভিন্ন মূর্তি স্পর্শ করে, পূজার দ্রব্য ফেলে দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটিযয়েছে। এমনকি পূজার আসনে বসে মন্দিরের পবিত্রতা নষ্ট করছে। অনেক পর্যটক জুতা নিয়েও মন্দিরে প্রবেশ করে। তাদের বাধা দিতে বাকবিন্ডা তৈরি হয়েছে, মন্দিরের কর্মকর্তারা হুমকি-ধামকির মুখেও পড়েছেন-বলেন মি: মঙ।

জেলা শহর থেকে মাত্র ৪ কিলোমিটার দূরে বালাঘাটা এলাকায় প্রায় এক হাজার ৬০০ফিট উচ্চতায় পাহাড়ের চূড়ায় গড়ে উঠেছে বৌদ্ধ ধাতু জাদী (স্বর্ণজাদী)। স্থাপত্যের অপূর্ব নিদর্শন বৌদ্ধ ধাতু জাদী স্বর্ণমন্দির। বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছে এটি তীর্থস্থান হলেও পর্যটকদের কাছে বেশ আকর্ষণীয়।

শান্তিচুক্তি অনুযায়ী পাহাড়ে সরকারের কোনো খাস ভূমি নেই- বান্দরবানে ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি সহায়ক কমিটি গঠন সভায় অভিমত

bandarban-pic-1-10

নিজস্ব প্রতিবেদক

বান্দরবানে হেডম্যান কার্বারীদের নিয়ে ভূমি ব্যবস্থাপনার বিষয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার পার্বত্য জেলা পরিষদের সম্মেলন কক্ষে জেলা পরিষদের চেয়াম্যান ক্য শৈ হ্লা’র সভাপতিত্বে সভায় পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কমিশনকে সহায়তার জন্য ভূমি বিরোধ চিহ্নিতকরণ বিষয়ে হেডম্যানদের নিয়ে ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি সহায়ক কমিটি গঠন করা হয়।


নির্বাহী কর্মকর্তা নুরুল আবসার, জেলা পরিষদের সদস্য ক্যসা প্রু মারমা, থোয়াইচা হ্লা মারমা, হেডম্যান এসোসিয়েসনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক টি মং প্রুসহ ১০৯টি মৌজার মৌজার হেডম্যানরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বান্দরবান ৩১৬ নং বেতছড়া মৌজার হেমডম্যান হ্লাথোইহ্রী বলেন, আমার মৌজায় ১৯৮৩-৮৪ সালে বন বিভাগ ৩ হাজার একর ভূমির আবেদন করলে ইউএনও বিনা খাজনায় ১৯৮৮ সালে বন্দোবস্তকরণ করেন। কিন্তু বন বিভাগ ১৯৮১ সাল থেকে বনায়ন শুরু করেন। এই জায়গার সাথে চৌহদ্দিরও কোন মিল নাই তাই এই জায়গা বাতিলের জন্য পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কমিশনে পাঠানোর সুপারিশ করেন তিনি।

তিনি বলেন, শান্তিচুক্তি অনুযায়ী পাহাড়ে সরকারের খাস ভূমি নেই। কিন্তু পাহাড়ীরা কখনো না কখনো এইসব জায়গায় জুম চাষ করেছে। তাই এই ভূমির মালিক মৌজাবাসী।

৩৬৮ মৌজার হেডম্যান রুমার মুরংগো বাজারে খাস জমিতে স্থাপিত পুলিশ ক্যাম্প কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে সীমানা বর্ধিত করে সেগুন গাছসহ ভূমি দখলের অভিযোগ করেন।

এছাড়া রুমা ও পলি মৌজায় বন বিভাগের প্রায় ৬ হাজার একর বন্দোবস্তি ভূমি বাতিলের জন্য পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কমিশনে পাঠানো হবে বলে জানা গেছে।

সভায় হেডম্যান,কারবারিরা তাদের নিজ নিজ এলাকায় সম্প্রতিক সময়ে ভূমি দখলসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বলতে গিয়ে বলেন, পাহাড়ের ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠিরা দিন দিন ভূমি হারাচ্ছে, দ্রুত এসব বন্ধ না হলে সমস্যায় পড়বে।

নাইক্ষ্যংছড়ির দোছড়ি, বাইশারী লামাসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রভাবশালী ভূমি দখলদার চক্র নানাভাবে পাহাড়িদের ভূমি দখল করে নিচ্ছে। ইতোমধ্যে বাইশারী থেকে বেশ কয়েকটি পাড়া উচ্ছেদ হয়ে গেছে এবং লামার ফাসিয়াখালী এলাকায় ঢাকার একটি চক্র শত শত একর জায়গা দখল করেছে বলে হেডম্যানরা জানান।

সভায় হেডম্যানরা ভূমি দখলসহ নানা সমস্যার কথা তুলে ধরেন ও ভূমি কমিশনের মাধ্যমে সমস্যাগুলো সমাধানের আবেদন জানান এবং  রাঙ্গামাটি ও বান্দরবানে ভূমি কমিশনের দুটি ইউনিট অফিস স্থাপনেরও দাবী জানান হেডম্যানরা।

সভা শেষে হেডম্যান হ্লাথোয়াই হ্লী মারমাকে আহ্বায়ক ও উনিহ্লা মারমাকে সদস্য সচিব করে ১২ সদস্য বিশিষ্ট ভূমি বিরোধ নিষ্পত্তি সহায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সন্তু লারমার সফরের প্রতিবাদে বান্দরবানে বাঙালী সংগঠনগুলোর কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচি

সন্তু লারমা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

পার্বত্য জন সংহতি সমিতির সভাপতি ও আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান  সন্তু লারমার আগমনের প্রতিবাদে রবিবার বান্দরবানে বাঙ্গালী সংগঠনগুলো কালো পতাকা প্রদর্শনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে।


সফরসূচিতে কোন রাজনৈতিক কর্মসূচি না থাকলেও শুধুমাত্র বোমাং সার্কেল চিফ উচ প্রু চৌধুরীর সাথে সাক্ষাতের উদ্দেশ্য বান্দরবানে তিন দিনের সফরে আসছেন পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যান জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় ওরফে সন্তু লারমা।

সূত্র জানায়, রবিবার বান্দরবান-চন্দ্রঘোনা সড়ক পথ হয়ে বিকালে সন্তুু লারমার বান্দরবান এসে উন্নয়ন বোর্ড রেষ্ট হাউজে রাত্রি যাপন করার কথা রয়েছে। এসময় তার সফরসঙ্গী হিসাবে জেএসএস নেতাদের থাকার অভিযোগ উঠেছে।

সোমবার সকাল ১০ টায় বোমাং সার্কেল চিফ উচ প্রু চৌধুরীর সাথে সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে সন্তুু লারমার। ঐ বৈঠকে জেএসএস’র সতস্ত্র বাহিনীর সাথেও বৈঠক করবেন বলে গোপন সূত্রে জানা গেছে।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় সড়কপথে রাঙ্গামাটির উদ্দেশ্যে বান্দরবান ত্যাগ করার কথা রয়েছে তার। এসময় বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সাথে মতবিনিময় করার কথা রয়েছে।

এদিকে পার্বত্য নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি প্রকৌশলী আলকাছ আল মামুন ভুঁইয়া জানান, ‘পার্বত্য নাগরিক পরিষদ ও বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ পার্বত্য চট্টগ্রামের সন্ত্রাসীদের গড ফাদার সন্তু লারমার সফরকে কেন্দ্র করে আমরা কালো পতাকা প্রদর্শন কর্মসূচির ঘোষণা করেছি।’

আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর স্থানীয় সূত্রগুলো, সন্তু লারমার বান্দরবান আগমনের হেতু অনুসন্ধান করছে। শুধু বোমাং সার্কেল চিফের সাথে সাক্ষাতের উদ্দেশ্য তিনি বান্দরবানে তিনদিনের সফরে আসছেন- একথা স্থানীয় সচেতন নাগরিকরাও মানতে নারাজ।

সচেতন নাগরিকরা জানান, আওয়ামীলীগ নেতা মংপুকে অপহরণের পর থেকে সরকারী দল পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দৃষ্টি আর্কষণ করলে বান্দরবানে বেকাদায় রয়েছে সন্তুু লারমার নেতৃত্বাধীন জনসংহতি সমিতি (জেএসএস)। জেএসএস’র শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে অপহরণ ও হত্যা মামলা হওয়ায় গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে রয়েছে সবাই।

এরপর থেকে বান্দরবানে জেএসএস’র কোন কর্মসূচি কয়েক মাস যাবৎ নেই বললে চলে। এরই মধ্যে জেএসএসের অফিসগুলোতে নিরাপত্তা বাহিনী অপারেশন চালিয়ে কম্পিউটার ও অন্যান্য নথিপত্র পরীক্ষার জন্য নিয়ে গেছে। পরীক্ষার পর নিরাপত্তা বাহিনী এগুলো ফেরত দিতে চাইলেও ফেরত নেয়ার জন্য জেএসএসের কোনো নেতাকর্মীকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সূত্রগুলো জানায়, জেএসএস’র নেতা কর্মীদের চাঙ্গা ও তাদের শহরে প্রতিস্থাপন করতেই সন্তুু লারমা বান্দরবানে সফরে আসছেন। সফরকালীন সময়ে তার বান্দরবানে জেএসএস নেতাদের সাথে বৈঠক করার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গেছে। তবে এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য বান্দরবান জেএসএসের একাধিক নেতার টেলিফোনে কল করা হলেও কারো সংযোগ পাওয়া যায়নি।

বান্দরবানে বিদ্যুতের তারে শট খেয়ে বন্য হাতির তান্ডবে নিহত ১

%e0%a6%b9%e0%a6%be%e0%a6%a4%e0%a6%bf%e0%a6%b0-%e0%a6%86%e0%a6%95%e0%a7%8d%e0%a6%b0%e0%a6%ae%e0%a6%a3

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বান্দরবানে বন্য হাতির আক্রমণে মিনহাজ উদ্দিন (৫০) নামে একজন কৃষক নিহত হয়েছে। শুক্রবার ভোর রাতে সদর উপজেলার কদুখোলা এলাকায় নতুন পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

বান্দরবান সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবদুল কুদ্দুস জানান, ভোর রাতের দিকে ১২/১৪টি বন্য হাতির দল কদুখোলা এলাকায় ঢুকে বাড়ি-ঘরের ব্যাপক তান্ডব চালায়। পরে দলটি মিনহাজ উদ্দিনের বাড়িতে ঢুকে তাকে শুঁড় দিয়ে পেঁচিয়ে আছাড় মারে এবং পা দিয়ে তার দেহ থেঁতলে দেয়।

স্থানীয় সুত্র জানায়, রাতে ভাগ্যকুল এলাকায় ঢুকতে গিয়ে বিদ্যুতের তারে স্পৃষ্ট হয়ে হাতির দলটি ক্ষিপ্ত হয়ে আশপাশের এলাকায় তান্ডব চালায়। হাতির হামলায় গত ৬মাসে সুয়ালক ও টংকাবতি ইউনিয়নে ৭জন নারী-পুরুষের প্রাণহাতি ঘটলো বলে জানান তিনি।

বন্য হাতির আক্রমণ ঠেকাতে আন্তর্জাতিক সংস্থা আইইউসিএন ‘মানুষ ও হাতির মধ্যে বিরাজিত দন্দ নিরসন’ প্রকল্পের আওতায় ভাগ্যকুল এলাকায় পরীক্ষামূলকভাবে স্বল্প ক্ষমতার সোলার বিদ্যুতায়িত ফেন্সিং প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। গত ২৭ সেপ্টেম্বর প্রকল্পটির কাজ শেষ করে আনুষ্ঠানিক ভাবে বান্দরবান বন বিভাগের কাছে হস্তান্তর করার তৃতীয় দিনেই ক্ষিপ্ত বন্য হাতির আক্রমণের এই ঘটনা ঘটে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রফিক উল্লাহ বলেন,পাহাড় ও বন-জঙ্গল কেটে উজাড় করে ফেলার কারণে বন্য হাতিরা খাবারের সন্ধানে জনবসতিতে এলাকায় হানা দিচ্ছে। কমিউনিটি পুলিশিং সভার মাধ্যমে বন্য হাতির আক্রমন হতে রক্ষা পেতে এলাকাবাসীকে সতর্ক করা হয়েছে।

বান্দরবানে চলছে জেএসএসের চাঁদাবাজির মহোৎসব(ভিডিও)

চাঁদাবাজি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বান্দরবানে সন্তু লারমার নেতৃতাধীন জনসংহতি সমিতি (জেএসএস) নীরবে চলছে চাঁদাবাজির মহোৎসব। জেলার সাত উপজেলার শহরের বাইরে মুদি দোকান, কাট ব্যবসায়ী, ঠিকাদার,কৃষক, শ্রমিক, যানবাহন মালিক, সবাইকে চাঁদা দিয়ে নিজ নিজ পেশায় টিকে থাকতে হয়। শুধু ব্যবসা-বাণিজ্যই নয়, স্থানীয় উৎপাদিত কৃষিপণ্য এলাকার বাহিরে নিতে গেলেই জেএসএস সন্ত্রাসীদের চাঁদা দিতে হয়।

এর আগে ব্যবসায়ীদের প্রকার ভেদে চাহিদা মত টাকা দিয়ে বাৎসরিক টোকেন নিতে হয়। অন্যথায় তাদের উপর নেমে আসে অপহরণের হুমকি ও শারীরিক নির্যাতন। ব্যবসা চালানো ও নিরাপত্তার কথা ভেবে নীরবে চাঁদা দিয়ে আসছে পাহাড়ের ব্যবসায়ীরা। জেএসএস’র চাঁদা যেন বৈধতা পেয়ে গেছে পাহাড়ে। প্রশাসন যেন সন্ত্রাসীদের বিষয়ে নীরব ভূমিকা পালন করছে স্থানীয়দের অভিমত।

স্থানীয় গোয়েন্দা সংস্থা ও এলাকাবাসীর সূত্র জানায়, গত অর্থ বছরে সাত উপজেলার ব্রীক ফিল্ড, কাঠ ব্যাবসায়ী থেকে প্রতি ঘন ফুটে ৩৫ টাকা, ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান থেকে ১০%, লাকড়ি ব্যবসায়ী, বাঁশ ব্যবসায়ী, তামাক চাষীদের থেকে প্রতি কানি (৪০শতক) ১৪ হাজার টাকা, বাস, জীপ, ট্রাক প্রকার ভেদে ৮ হাজার থেকে ৩৫ হাজার টাকা পর্যন্ত।

আর কাঠ কাঁটা মাঝি, কাঠের চালির মাঝি, মাছ ধরার জেলে, বাজারের বিভিন্ন ব্যবসায়ী থেকে বাৎসরিক টোকেন নিতে হয়। এছাড়া কলা, আদা, মরিচ, ধান, , হলুদ, আনারস, লেবু, কমলা, কুমড়াসহ বিভিন্ন কৃষি পণ্য বাজার জাত করা কালে গরিব পাহাড়ী কৃষকদের চাঁদা দিতে হয়। এমনকি গবাদিপশু-পাখি বেচাকেনা করতে গিয়েও চাঁদা পরিশোধ করতে হয় স্থানয়িদের। অন্যথায় কোন কিছুই নয়। তবে এক্ষেত্রে পাহাড়ীদের থেকে বাঙ্গালীদের চাঁদার পরিমান একটু বেশী। আর চাঁদা আদায়ের দায়ীত্ব থাকে সশস্ত্র গ্রুপগুলো।

গোয়েন্দা সূত্র মতে, তিন পার্বত্য জেলায় জেএসএস’র পাঁচ হাজার সশস্ত্র বাহিনী রয়েছে। আর এ সশস্ত্র বাহিনী দেশের সেনা বাহিনীর আদলে গড়ে তোলা হয়েছে। এদের মধ্য সিপাহী থেকে শুরু করে মেজর জেনারেল পর্যন্ত রয়েছে। তাদের মাসিক বেতন, রেশন ও নিরাপত্তা ঝুঁকিও দেয়া হয় আদায়কৃত চাঁদার টাকা থেকে।

গোয়েন্দা সূত্র মতে আরো জানা যায়, জেএসএস চাঁদাবাজির মাধ্যমে গত অর্থ বছরে বান্দরবান জেলা থেকে ৩০ কোটি টাকা আদায় করেছে। চলতি অর্থ বছরে এর পরিমান ৫০ কোটি টাকা আদায়ের নির্ধারণ করা হয়েছে। আর এসব টাকায় তাদের সেনা ও নিরাপত্তা বাহিনীকে চ্যালেঞ্জ দিতে মিয়ানমার বিদ্রোহী বাহিনী, চীন ও ভারত থেকে অবৈধ অস্ত্র গোলা বারুদ আনা হয়। জেএসএস’র সশস্ত্র বাহিনীর আদায় কারা চাঁদার টাকা দিয়ে অধিকার আদায়ের নামে দেশের বিরুদ্ধে সশস্ত্র যুদ্ধ চালিয়ে যাচ্ছে। আর বছরের পর বছর নীরবে চাঁদা দিয়ে যাচ্ছেন তিন পার্বত্য জেলার অসহায় মানুষ।

তিন পার্বত্য জেলায় দুর্গম ও সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ায় পাহাড়ি এলাকা সন্ত্রাসীদের আস্তানা পর্যন্ত পৌঁছা কঠিন। এছাড়া পার্বত্য এলাকায় মোবাইল নেটওর্য়াক থাকায় নিরাপত্তা বাহিনী পৌছাঁর আগেই খবর পেয়ে সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা নিরাপদস্থলে চলে যায়।

গত মাসে বান্দরবান আইনশৃঙ্খলা সভায় জেএসএস’র সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পুলিশের রহস্যজনক ভূমিকা থাকায় পুলিশ সুপার আওয়ামীলীগের নেতাদের তোপের মুখে পড়তে হয়। পরে পুলিশ তৎপর হয়ে আ’লীগ নেতা অপহৃরত মংপু মার্মার অপহরণকারী এজাহারভূক্ত কয়েকজন আসামীকে আটক করে। প্রায় দু-মাস হলেও অপহৃরত আ’লীগ নেতাকে উদ্ধার করতে পারেনি।

চাঁদা আদায়ের বিষয়ে বান্দরবান প্রেস ক্লাবে আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কে এস মং বলেন, দেশের বড় রাজনৈতিক দলগুলোও চাঁদা করে। পাহাড়ে সংগঠন চালাতে হলে শুভাকাঙ্ক্ষীদের থেকে চাঁদা নিতে হয়।

মিয়ানমারে নারী পাচারের অভিযোগে বান্দরবানে বৌদ্ধ ভিক্ষু আটক

ততততত

স্টাফ রিপোর্টার:

বিনা খরচে উপজাতীয় দরিদ্র মেযেদের শিক্ষার নামে বৌদ্ধ মন্দিরে নিয়ে এসে মিয়ানমারে পাচার করার অভিযোগে  বান্দরবানে এক বৌদ্ধ ভিক্ষুকে আটক করা হয়েছে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার দুপুরে রাঙ্গামাটির কাপ্তাই উপজেলার মিতিঙ্গাছড়ি বৌদ্ধ মন্দির থেকে উঃ স্বীরি ভিক্ষু(৩৬) নামের এই বৌদ্ধ ভিক্ষুকে আটক করেছে যৌথ বাহিনীর একটি দল।বর্তমানে তিনি বান্দরবান সদর থানায় আটক রয়েছেন।

উঃ স্বীরি ভিক্ষুর বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি বান্দরবান জেলার রোয়াংছড়ি উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ১৪/১৫ জন উপজাতীয় দরিদ্র তরুণী মেয়েকে বিনা মূল্যে শিক্ষার কথা বলে মন্দিরে নিয়ে এসে পরে তাদের মিয়ানমারে পাচার করেছে।

পুলিশ সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, শুক্রবার জেলার রোয়াংছড়ি উপজেলার তালুকদার পাড়া গ্রামের মংপ্রু হ্লা মারমা(৪২) থানায় অভিযোগ করেন যে, তার মেয়ে নুচিং মারমা(১৫) কে উঃ স্বীরি ভিক্ষু নামের এক ব্যক্তি বিনা খরচে লেখাপড়া করার কথা বলে গত ১০ জানুয়ারি কাপ্তাইয়ের মিতিঙ্গাছড়ি বৌদ্ধ মন্দিরে নিয়ে যায়।

পরবর্তীতে তিনি জানতে পারেন উক্ত বৌদ্ধ ভিক্ষু রোয়াংছড়ির বিভিন্ন স্থান থেকে আরো ১৪/১৫ জন উপজাতীয় তরুনীকে বিনা মূল্যে শিক্ষার কথা বলে মিয়ানমারে পাচার করে দিয়েছে। খবর শুনে তিনি উক্ত বৌদ্ধ মন্দিরে মেয়েকে দেখতে গেলে সেখানে তার মেয়েকে পাননি। ফলে তিনি মেয়েকে উদ্ধারের জন্য থানায় মামলা করেন। মামলা নং- ১/ ১১-৩-২০১৬।

vante

মামলা হওয়ার পর গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমে উঃ স্বীরি ভিক্ষুর অবস্থান সনাক্ত করে বান্দরবান জেলা পুলিশের নেতৃত্বে যৌথবাহিনীর একটি দল কাপ্তাই থানা পুলিশের সহায়তায় মিটিঙ্গাছড়ি বৌদ্ধ মন্দিরে অভিযান চালিয়ে আটক করে। এসময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা উক্ত ভিক্ষুর বসতবাড়ির চারদিক ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা দ্বারা সুরক্ষিত দেখতে পেয়ে বিস্মিত হয়।

সূত্র জানিয়েছে, উঃ স্বীরি ভিক্ষুর বাড়ি মিয়ানমার। তিনি সেদেশের পটুক জেলার ছাইংদাম থানার সিত্তিয়া পাড়া গ্রামের অং সুই উ মারমার সন্তান। তার মাতার নাম সাই আ প্রু মারমা। ২০০৪ সালে তিনি প্রথম মিয়ানমার থেকে কক্সবাজারের রামুতে এসে বসবাস শুরু করেন। এরপর ২০০৭ সালে বর্তমান স্থানে এসে বসবাস করেন। তিনি এখন এই মন্দিরের প্রধান ভিক্ষু। বাংলাদেশে অবস্থানে তার কোনো বৈধ কাগজপত্র নেই। নিজেকে স্থানীয় নাগরিক দাবী করলেও তার কাছে কোনো পাসপোর্ট বা জাতীয় পরিচয় পত্র পাওয়া যায়নি।

পুলিশের কাছে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে উঃ স্বীরি ভিক্ষু জানান, মায়ানমারের মংন্ডু শহরতলীর কাছে নেজাদো মন্দিরে রোয়াংছড়ির ১১ জন মেয়েকে ধর্মীয় একটি অনুষ্ঠানে পাঠানো হয়েছে। কক্সবাজারের উখিয়ার হুয়াইক্ষ্যং দিয়ে ওপারে মেয়েদের পাঠান। তবে তিনি পাচার করেননি বলে জানিয়েছেন। তারা ফিরে আসবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

বান্দরবান সদর থানায় শুক্রবার রাতে অভিযুক্ত ঐ বৌদ্ধ ভিক্ষুকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: রফিক উল্লাহ জানান, রোয়াংছড়ির তারাছাসহ বেশ কয়েকটি এলাকা থেকে ১৩/১৪ জন মারমা যুবতী মেয়েকে বিনা পয়সায় পড়ালেখা করানোর প্রলোভন দেখিয়ে কাপ্তাই এর মিতিঙ্গাছড়ি বৌদ্ধ মন্দিরে নিয়ে যায় বৌদ্ধ ভান্তে।

রোয়াংছড়ি থানার এসআই এবং উক্ত মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. মোস্তফা পার্বত্যনিউজকে জানান, আত্মরক্ষার জন্য উঃ স্বীরি ভিক্ষু একেক সময় একেক কথা বলছেন। ভিক্ষুটি এ পর্যন্ত ১৪/১৫ জন উপজাতীয় মেয়েকে মিয়ানমারে পাচার করেছে। তবে সে একাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে এমনটা মনে করছেন না তিনি। তার মতে, উঃ স্বীরি ভিক্ষুর সাথে একটি বড় ধরণের চক্র কাজ করছে। তাকে আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে পুরো নেটওয়ার্কের খোঁজ পাওয়া যাবে বলে তিনি বিশ্বাস করেন।

বোয়াংছড়ির সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান হ্লাথোয়াইহ্রী মারমা জানান, নিখোঁজ মেয়েদের অভিভাবকরা নিরূপায় হয়ে মানবপাচারের মামলা করেছে। একই সাথে ১৩ জন মেয়ে নিখোঁজ হওয়া রহস্যজনক বলে তিনি জানান।

বান্দরবান চেম্বারের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ

Bandarban pic-2, 15.2

স্টাফ রিপোর্টার:

বান্দরবান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির উদ্যোগে গরীব শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার বঙ্গবন্ধু মুক্ত মঞ্চে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এফবিসিসিআই এর সহ-সভাপতি মাহবুবুল আলম শীতবস্ত্র বিতরণ করেন।

বান্দরবান চেম্বারের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা’র সভাপতিত্বে অন্যান্যের মাঝে আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কাজল কান্তি দাশ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শফিকুর রহমান, বান্দরবান উইমেন চেম্বারের সভাপতি লালসানি লুসাইসহ জেলার বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতা, মানবাধিকার নেত্রী ও নারী উদ্যোক্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় মাহবুবুল আলম বলেন, এফবিসিসিআই ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন। প্রতিবছর অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে অর্থনৈতিকভাবে সহায়তা করে যাচ্ছে সংগঠনটি । মানুষের কল্যাণে সর্বাত্বক প্রচেষ্টা অব্যহত রাখা হবে। পরে বেসরকারি হলিডে ইন রির্সোটে চেম্বার সদস্য ও স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মতবিনিময় সভা করা হয়।