৩০০ কি.মি. মানববন্ধন নেটওয়ার্ক জেলা উপজেলা সদরে সীমাবদ্ধ

প্রথমবারের মতো তিন পার্বত্য জেলা জুড়ে জেএসএস ও ইউপিডিএফ’র অঘোষিত ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী পালন

12485993_787861114693615_5916404005061567791_o

স্টাফ রিপোর্টার:

আয়োজক তিন সংগঠন থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের দাবীতে তিন পার্বত্য জেলা জুড়ে ৩০০ কি. মি. ব্যাপী গণ-মানববন্ধন সফল হওয়ার দাবী করা হলেও কিন্তু অনুসন্ধান চালিয়ে দেখা গেছে, প্রধানত: জেলা ও উপজেলা সদরেই সীমাবদ্ধ ছিলো এ মানববন্ধন। এর বাইরে বিপুল এলাকায় মানববন্ধনকারীদের কোনো অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। এর মধ্যে প্রশাসনের অনুমতি না থাকায় খাগড়াছড়িতে মানববন্ধনের চেষ্টা করা হলেও পুলিশি বাধায় তা পণ্ড হয়ে যায়।

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম (পার্বত্য চট্টগ্রাম শাখা) ও সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্ক এ মানববন্ধনের ডাক দিলেও এতে পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএস(মূল ও সংস্কার) ইউপিডিএফ নেতারা এ মানববন্ধনে অংশ নিয়েছে। এর বাইরেও বিভিন্ন উপজাতীয় সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এ মানববন্ধনে অংশ নেয়। তবে এ মানববন্ধনের উল্লেখযোগ্য বিষয় ছিলো, প্রথমবারের মতো তিন পার্বত্য জেলা জুড়ে জেএসএস ও ইউপিডিএফ’র অঘোষিত ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী পালন করা।

খাগড়াছড়ি

18.01

খাগড়াছড়ি থেকে পার্বত্যনিউজের জেলা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির যথাযথ, দ্রুত ও পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন এবং সমতল অঞ্চলে আদিবাসীদের জন্য পৃথক ভূমি কমিশনের দাবীতে পাহাড়ি তিনটি সংগঠনের ডাকা মানববন্ধন কর্মসূচীটি খাগড়াছড়িতে পুলিশি বাঁধায় পন্ড হয়ে যায়।

 শহরের চেঙ্গী স্কোয়ার মাইনী ভ্যালী এলাকায় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সদস্য ইউ কে জেন’র নেতৃত্বে মানববন্ধন কর্মসূচীতে দাঁড়ালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এনায়েত হোসেন মান্না প্রশাসনিক অনুমতি না থাকায় তাদের বাধাঁ দিয়ে সরিয়ে দেন। পরে তাৎক্ষনিক জেলা শহরের মহাজন পাড়াস্থ একটি কনভেনশন সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে আন্দেলনরতরা।

এতে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি,বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম ও সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সদস্য খাগড়াছড়ি সরকারি সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর বোধিসত্ত্ব দেওয়ান। এ সময় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সদস্য ফেসর (অব) ড. সুধীন কুমার চাকমা, মধুমঙ্গল চাকমা, শেফালিকা ত্রিপুরা এসময় উপস্থিতি ছিলেন।

সংগঠনগুলো শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে বাঁধা প্রদানের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে, অবিলম্বের পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন ও সমতলের আদিবাসীদের জন্য স্বতন্ত্র ভূমি কমিশন গঠন, আদিবাসীদের ঐতিহ্যগত ও প্রথাগত ভূমি অধিকারের স্বীকৃতি প্রদানের দাবী জানান নেতৃবৃন্দরা।

এদিকে মহালছড়ি সদর ও মাইচছড়িতে পুলিশী বাধার কারণে মানববন্ধন পণ্ড হয়ে যায়। এসময় পুলিশের সাথে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটেছে।

রাঙামাটি

দতকব

পূর্বঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসাবে রাঙামাটির বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন পালিত হয়েছে বিনা বাধায়। শহরের কল্যাণপুর এলাকায় এ মানববন্ধনের নেতৃত্ব দেন জেএসএস সভাপতি সন্তু লারমা এবং জেলা প্রশাসন অফিস প্রাঙ্গনে মানবন্ধনের আহ্বায়ক ও নাগরিক কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান এবং লংগদুতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে নেতৃত্ব দেন চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় ও তার স্ত্রী য়েন য়েন।

রাঙামাটিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম (পার্বত্য চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি আহবায়ক গৌতম দেওয়ান, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে সদস্য নিরূপা দেওয়ান, সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের সাধরাণ সম্পাদক শান্তি বিজয় চাকমা প্রমুখ।

মানববন্ধনে ওই সংগঠনের নেতারা অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ ১৮বছরেও সরকার পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের কোন আগ্রহ প্রকাশ করেনি। ভবিষ্যতে এ চুক্তি বাস্তবায়ন করা হবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন এখন পার্বত্যাঞ্চলের মানুষের মনে। সরকারের প্রতিনিধিরা বিভিন্ন সভা সমাবেশে বলেন ২০০৮সালের আওয়ামীলীগের নির্বাচনীয় সনদ হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করা। কিন্তু কবে এ সনদ বাস্তবায় করা হবে। সরকারের পক্ষ থেকে কোন সুনিদিষ্ট ঘোষণা দেওয়া হয়নি। তাই পার্বত্যাঞ্চলের মানুষ এখন হতাশ। পাহাড়ের জুম্মজাতিরা এখন আর সরকারের উপর বিশ্বাস রাখেনা।

তারা মনে করে সরকার চুক্তি বাস্তবায়ন না করলে, আন্দোলনের মধ্যমে সরকারকে চুক্তি বাস্তবায়নে বাধ্য করা হবে। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হলে আর কঠোর কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলে হুমকি দেন ওই সংগঠনের নেতারা।

বান্দরবান

Bandarban pic-3, 18.1

পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ও সমতলে ‘আদিবাসীদের’ জন্য আলাদা ভূমি কমিশনের দাবিতে বান্দরবানে গণ মানববন্ধন করেছে পাহাড়ে বসবাসরত ক্ষুদ্র ও নৃ-গোষ্ঠীরা। মানববন্ধনে সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক উ নি হ্লা মানববন্ধন সফল করায় সকলকে ধন্যবাদ জানান।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রোয়াংছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেএসএস জেলা সাধারণ সম্পাদক ক্যবামং মারমা, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়রম্যান ও জেলা হিলউম্যান্স ফেডারেশনের সভানেত্রী ওয়াইচিং প্রু, অনন্যা নারী কল্যাণ সংস্থার পরিচালক ডনাই প্রু নেলী, পাহাড়ী বম সম্প্রদায়ের নেতা জিরকুম সাহা, এনজিও সংস্থার কর্মী অংচ মং মারমাসহ সংগঠনের নেতৃবিন্দরা।

মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে জেএসএস জেলা সাধারণ সম্পাদক ক্যবামং মারমা বলেন, শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের নামে কালক্ষেপন করছে সরকার। পাহাড়ে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠায় পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নের বিকল্প কিছু নেই।

মানবন্ধন সফল হওয়ার দাবী তিন আয়োজক সংগঠনের

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির যথাযথ, দ্রুত ও পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন এবং সমতল অঞ্চলে আদিবাসীদের জন্য ভূমি কমিশনের দাবিতে আহুত গণ-মানববন্ধনে তিন পার্বত্য জেলার আপামর জনগণ শান্তিপূর্ণ, সুশৃংখল ও স্বত:স্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে মানববন্ধন সফল হওয়ার দাবী করে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম (পার্বত্য চট্টগ্রাম শাখা) ও সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের পক্ষ থেকে সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানানো হয়েছে।

সংগঠনের পক্ষ থেকে নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক গৌতম দেওয়ানের পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, খাগড়াছড়ি জেলার জেলা প্রশাসন মানববন্ধন করার অনুমতি দেয়নি। ফলে প্রশাসন খাগড়াছড়ি সদরে মানববন্ধন আয়োজনে বাধা প্রদান করে এবং মানববন্ধনে আসা লোকদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এছাড়া মহালছড়ি উপজেলাধীন মাইসছড়ি ইউনিয়ন ও মহালছড়ি সদরে বাধা প্রদান করে। প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনীর এ ধরণের গণতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনী কর্তৃক বাধা প্রদান ও মানববন্ধনে আসা লোকজনের উপর নির্যাতন করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। 

তবে বাধার মুখেও খাগড়াছড়ি জেলার অন্যান্য জায়গায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে দাবী করে বিবৃতিতে তিন পার্বত্য জেলার মধ্যে রাঙ্গামাটি ও বান্দরবান জেলা প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনীর সার্বিক সহযোগিতার জন্য তাদের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়।

পূর্ণাঙ্গ শান্তিচুক্তি কারো পক্ষেই বাস্তবায়ন সম্ভব নয়- গওহর রিজভী

গওহর-রিজভী

পার্বত্যনিউজ রিপোর্ট:

প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী জানিয়েছেন,শতভাগ শান্তিচুক্তি কারো পক্ষেই বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। তবে যেটুকু বাস্তবায়নযোগ্য তা বছরের মধ্যেই বাস্তবায়ন করা হবে।

 

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন (এনএইচসি) ও বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম (বিআইপিই) আয়োজিত ‘আদিবাসী অধিকার উপলদ্ধি এবং আইএলও কনভেনশন, ১৬৯’ শীর্ষক জাতীয় সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

গওহর রিজভী বলেন, দেশে ইতোমধ্যে ৩৩টি মন্ত্রণালয়ের মধ্যে ২৫টি স্থানান্তরিত হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যে ৩টি স্থানান্তরিত হবে। বাকি ৩টি এ বছরের মধ্যে স্থানান্তর করা হবে। তিনি বলেন, এ বছরের শান্তিচুক্তির বাকি কাজ শেষ করা হবে। কাজ শেষ হলে চুক্তি পুরোপুরি বাস্তবায়িত হবে।

চুক্তি বাস্তবায়নে ষড়যন্ত্রকারীদেরকে বাধা না দেয়ার আহ্বান জানিয়ে গওহর বলেন, ‘বাধা দিলে চুক্তি বাস্তবায়ন হবে না। এ চুক্তি বাস্তবায়ন আদিবাসীদের অধিকার। বর্তমান সরকার এই চুক্তি করেছে এবং এই সরকারই চুক্তি বাস্তবায়ন করবে’।

অনুষ্ঠানে ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীর সদস্যরা আদিবাসী নন- বারবার এ ব্যাখ্যা দেন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনি ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ। তৎকালীন দুই মন্ত্রী কেন আদিবাসীদের নিয়ে এমন ব্যাখ্যা দিয়েছেন তা আমাদের বুঝে আসছে না’। তবে এ ধরনের ব্যাখ্যা না দিতে সবার প্রতি আহবান জানান তিনি।
 
তিনি আরো বলেন, ‘জাতিসংঘ থেকে শুরু করে সব জায়গায় আদিবাসীদের অধিকার নিয়ে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন সুপারিশ করে আসছে। জাতীয় মানবাধিকার কমিশন আইন, পন্থা ও নীতির প্রশ্নে কখনো আপোষ করে না। সরকার ও আদিবাসীদের মধ্যে পারস্পরিক যে দূরত্বের সৃষ্টি হয়ে হয়েছে, তা দূর করতে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন কাজ করছে। একই সঙ্গে জাতীয় মানবাধিকার কমিশন আদিবাসীদের সঙ্গে সব ধরনের উন্নয়নে অনুঘটক হিসেবে কাজ করতে চায়’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমার কষ্ট হয় যখন আমার নিজ জন্মস্থান গাইবান্ধায়ও ঢোকার পথে জেলখানা চোখে পড়ে। আরও বেশি কষ্ট হয় যখন অন্য আরো একটি শহরে ঢোকার পথে (পাবর্ত্য চট্টগ্রামে) সেনানিবাস অতিক্রম করতে হয়। রাষ্ট্রের এমন কদর্য চেহারা আমরা দেখতে চাই না’।

তিনি আরো বলেন, ইতিমধ্যে আমরা জানতে পেরেছি রামুতে একটি সেনানিবাসের জন্য ১৬ শ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ও মানবাধিকার বিষয়ে সুপারিশ গ্রহণে আগামী ৩১ মে রাঙামাটিতে আলোচনা সভার আয়োজন করা হচ্ছে। আলোচনায় উত্থাপিত বিষয়গুলো সংশ্লিষ্টদের নজরে দেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. রোবায়েত ফেরদৌস বলেন, হয় পূর্ণাঙ্গ শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন করুন না হয় আদিবাসীদের দাবী মেনে পূর্ণ স্বায়ত্বশাসন প্রদান করুন।
 
অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, আশা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. ডালিম চন্দ্র বর্মন প্রমূখ সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন।
 
অনুষ্ঠানে ‘আদিবাসী অধিকার উপলদ্ধি এবং আইএলও কনভেনশন নং ১০৭, ১৬৯’ এর ওপর কি-নোট উপস্থাপন করেন বিআইপিই’র সাধারণ সম্পাদক সঞ্জীব দ্রং।