কল্পনা চাকমা ইস্যুতে রহস্যময় আচরণ

কাজী সোহাগ |

হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেত্রী কল্পনা চাকমা অন্তর্ধান হয়েছেন ২২ বছর আগে। আজও তার অন্তর্ধানের রহস্য খোলাসা হয়নি। বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। সেখানেও ইস্যুটি রয়েছে অমীমাংসিত। সর্বশেষ ২৫শে এপ্রিল রাঙ্গামাটি জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে কল্পনা চাকমার কথিত অপহরণ মামলার শুনানি হয়। শুনানি শেষে আদালত ৯ই জুলাই পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য করেন । অথচ কল্পনা চাকমার বিষয়টি নিয়ে উপজাতিদের কয়েকটি সংগঠন পাহাড়ে আজও জল ঘোলা করার চেষ্টা করছে। নানা ধরনের উস্কানিমূলক কর্মসূচির মাধ্যমে উত্তাপ ছড়িয়ে দেয়ার কৌশল করছে।

এ নিয়ে বিদেশ থেকে ফান্ড আনারও অভিযোগ রয়েছে। সভা-সমিতি, বক্তৃতা আর বিবৃতির মাধ্যমে বছরের পর বছর টিকিয়ে রাখছেন এ ইস্যুটি। একইসঙ্গে দেশের অখণ্ডতার ধারক-বাহক সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নেরও চেষ্টা হচ্ছে। শান্তিবাহিনীর সন্ত্রাসী কার্যকলাপ আড়াল ও সেনাবাহিনীর সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান প্রশ্নবিদ্ধ করতে এ চেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এই আলোচিত অপহরণ মামলার ব্যাপারে কল্পনা চাকমার পরিবার ও পাহাড়ি সংগঠনগুলোর আচরণও রহস্যজনক। বিচার প্রক্রিয়া দীর্ঘায়িত করে এবং বিভিন্ন পর্যায়ে নারাজি দিয়ে কথিত অপহরণ মামলাটি বছরের পর বছর ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। ১১ই জুন কল্পনা চাকমার অন্তর্ধান দিবস হিসেবে পালন করে আসছে উপজাতিদের কয়েকটি সংগঠন। ১৯৯৬ সালের এই দিনে কল্পনা চাকমা অন্তরালে যান বলে জানান।

অবশ্য কেউ বলেন অপহরণ করে তাকে গুম করা হয়েছে আবার কেউ বলেন স্বেচ্ছায় অন্তর্ধান হয়েছেন। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, মূলত কল্পনা চাকমাকে পুঁজি করে অনেকেই এখন আঙুল ফুলে কলাগাছ হয়েছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ১৯৯৬ সালের ৭ই সেপ্টেম্বর সরকার সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মো. আবদুল জলিলকে সভাপতি করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে। ওই কমিটি কল্পনা চাকমা নিজ ইচ্ছায় হোক বা অনিচ্ছায় হোক অপহৃত হয়েছে বলে মতামত দেন। কিন্তু কার দ্বারা অপহৃত হয়েছে তা নির্ণয় করতে অক্ষমতা প্রকাশ করেন।


এ সংক্রান্ত আরো লেখা


এ প্রেক্ষিতে তারা কারও বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয়ার সুপারিশ করেনি। ১৯৯৭ সালের ১৭ই জানুয়ারি বাঘাইছড়ি থানার মামলাটি জেলার বিশেষ শাখায় হস্তান্তর করা হয়। এরপর ২০০৪ সালের ২৬শে ডিসেম্বর মামলাটি আবারো বাঘাইছড়ি থানা গ্রহণ করে দীর্ঘ অনুসন্ধান চালিয়ে ২০১০ সালের ২১শে মে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। মামলার বাদী কালিন্দী কুমার চাকমা এর বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি আবেদন করলে আদালত ২০১০ সালের ২রা সেপ্টেম্বর মামলাটি তদন্তে সিআইডির চট্টগ্রাম জোনকে নির্দেশ দেয়। সিআইডি দীর্ঘ ২ বছর তদন্ত করে ২০১২ সালের ২৭শে সেপ্টেম্বর আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। কিন্তু কালিন্দী চাকমা আবারো নারাজি দেন। আদালত তার আবেদনের প্রেক্ষিতে ২০১৩ সালের ১৬ই জানুয়ারি রাঙ্গামাটির পুলিশ সুপারকে তদন্ত ভার দিয়ে ৪ দফা নির্দেশনা দেয়।

পুলিশ সুপার দীর্ঘ তদন্ত চালান। তদন্তের স্বার্থে কল্পনা চাকমার দুই বড় ভাইয়ের ডিএনএ সংগ্রহের জন্য অনুমতি চাইলে আদালত ২০১৩ সালের ২২শে ডিসেম্বর ডিএনএ নমুনা সংগ্রহের আদেশ দেন। কিন্তু কালিন্দী কুমার চাকমা এবং লালবিহারি চাকমা (ক্ষুদিরাম) ডিএনএ দিতে রাজি হননি। তারা ২০১৪ সালের ৬ই মার্চ আদালতের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহের আদেশ প্রত্যাহারের আবেদন করেন। কিন্তু আদালত তার আদেশ বহাল রাখেন। পরে পুলিশ দীর্ঘ অনুসন্ধান চালিয়েও কল্পনা চাকমার অপহরণ সংক্রান্ত কোনো তথ্য প্রমাণ এবং সাক্ষী পায়নি। এ প্রেক্ষিতে গত বছরের ১৫ই সেপ্টেম্বর মামলার কার্যক্রম বন্ধের জন্য আদালতে আবেদন করে। আবেদনটি এখন আদালতের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছে।

এদিকে কল্পনা চাকমা ইস্যু নিয়ে কাজ করা একটি তদন্ত সংস্থা মানবজমিনকে জানিয়েছে, ঘটনার তদন্তে পুলিশ কল্পনা চাকমার বাসায় গেলে তার ব্যবহার্য পোশাক থেকে শুরু করে বই-পুস্তক, তৈজসপত্র কিছুই খুঁজে পায়নি। এমনকি কল্পনা চাকমার মা বাধুনি চাকমা পর্যন্ত বলেছিলেন যে, কল্পিত অন্তর্ধানের পরও তার মেয়ে দু’বার তার সঙ্গে যোগাযোগ করেছে।

সর্বশেষ ১৯৯৬ সালের ১লা আগস্ট সে যোগাযোগ করেছিল। কল্পনা চাকমার অপহরণ ঘটনা নিয়ে মামলায় বলা হয়, ১৯৯৬ সালের ১১ই জুন রাত একটায় লেফটেন্যান্ট ফেরদৌসের নেতৃত্বে একদল সৈনিক কল্পনা চাকমাসহ তার দুই ভাইকে অপহরণ করে। তার ভাইয়েরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও ২৩ বছর বয়সী কল্পনা চাকমাকে গুম করা হয়েছে। কালিন্দী কুমার চাকমা ঘটনার পরদিন ১২ই জুন বাঘাইছড়ি থানায় যে মামলা করে (মামলা নং-২/৯৬১, তারিখ-১২.০৬.১৯৯৬ ইং, ধারা-৩৪৬) সেখানে কিছু অপরিচিত লোকের কথা থাকলেও সেনাবাহিনী এবং গোলাগুলির কথা বলা হয়নি।

অথচ বিশেষ ওই মহলের ইন্ধনে ১৩ই জুন লালবিহারি চাকমা দাবি করেন যে, রাতের আঁধারে কিংবা টর্চ লাইটের আলোয় লেফটেন্যান্ট ফেরদৌসসহ তিনজন সেনা সদস্যকে চিনতে পেরেছে। মামলায় এসব কথা যোগ করা হলে কয়েক দফা তদন্তে এর সত্যতা পায়নি সংশ্লিষ্ট তদন্ত কমিটির সদস্যরা। এ প্রসঙ্গে তদন্ত সংশ্লিষ্টরা মানবজমিনকে জানান, লেফটেন্যান্ট ফেরদৌস ঘটনার দিন সকালে নির্বাচন উপলক্ষে দায়িত্ব পালনের জন্য উগলছড়ি ক্যাম্পে আসেন। যা কল্পনা চাকমার বাড়ির কাছেই ছিল। আর সেই ক্যাম্পে লেফটেন্যান্ট ফেরদৌস একা নয়, ক্যাম্পে তার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, একজন মেজরসহ আরো দু’জন অফিসার এবং প্রায় ৯০ জন সৈনিক ছিল।

সেনাবাহিনীর সদস্যরা ছাড়াও নির্বাচন পরিচালনা কাজে নিয়োজিত প্রিজাইডিং অফিসার জ্ঞানময় চাকমা, পুলিশের সুবেদার ইদ্রিস আলীসহ ৬ জন পুলিশ কনস্টেবল ওইদিন উগলছড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাত যাপন করে। তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, এতজন লোকের মাঝে লেফটেন্যান্ট ফেরদৌস কয়েকজন সৈনিক নিয়ে একটা অপহরণের ঘটনা ঘটালো, গোলাগুলি করলো অথচ কেউ গোলাগুলির শব্দ শুনলো না বা চিৎকার-চেঁচামেচির শব্দও শুনলো না? অথচ কে না জানে পার্বত্য এলাকার রাতের নিস্তব্ধ নিরিবিলি পরিবেশে এ ধরনের শব্দ অনেকদূর পর্যন্ত শুনতে পাওয়ার কথা। বলা হয়, কল্পনা চাকমার ভাইদের লক্ষ্য করে গুলি চালানো হয়েছিল।

সেক্ষেত্রে কারও গায়ে গুলির আঁচড় পর্যন্ত নেই কেন? তদন্ত সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রশ্ন আসতে পারে, সেনা ক্যাম্পে বেশ কয়েকজন অফিসার থাকতে কেন লেফটেন্যান্ট ফেরদৌসকে নিয়ে এই অপপ্রচার। আসলে লেফটেন্যান্ট ফেরদৌস-এর ওপরে শান্তিবাহিনীর ক্ষোভ অনেক পুরনো। সে সময়ে বাঘাইছড়ি এলাকায় অনেক সফল অভিযানের নায়ক তিনি। একারণেই তার ওপরে প্রতিশোধ নিতেই এ অপহরণ নাটকের দৃশ্যায়ন করা হয়। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কল্পনা চাকমা ইস্যুতে বছরের পর বছর লাভবান হচ্ছেন এমন পাহাড়ি সংগঠনগুলো সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে ক্রমাগত অপপ্রচার চালিয়ে আসছে। শান্তিবাহিনীর সন্ত্রাসী কার্যকলাপ আড়াল ও সেনাবাহিনীর সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান প্রশ্নবিদ্ধ করতে তাদের এ প্রচেষ্টা।

সূত্র: মানবজমিন

কল্পনা চাকমা অপহরণ না অন্তর্ধান

 মাহের ইসলাম

(১ম পর্ব)

কল্পনা চাকমার সবচেয়ে বড় পরিচয় – তিনি ছিলেন ‘ভীষণ সাহসী, প্রতিবাদী ও প্রগতিশীল’। পার্বত্য চট্রগ্রামের নারী আন্দোলনের এক উজ্জল নক্ষত্র ‘হিল উইমেন ফেডারেশনের তৎকালীন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদিকা কল্পনা চাকমা পাহাড়িদের আত্ননিয়ন্ত্রনাধিকারের মাধ্যমে নারীদের সম-অধিকার আদায়ে সচেষ্ট ছিলেন।

অগ্নিকন্যা কল্পনা চাকমার ১৯৯৬ সালের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাকে অপহরণ হিসেবে দাবি করে ইতোমধ্যেই মামলা হয়েছে। তবে, এখানে যে অন্তর্ধানের ঘটনাও ঘটে থাকতে পারে, তেমন ব্যাখ্যাও দেয়া হয়েছে অনেক ক্ষেত্রে।

“কল্পনা ইস্যুটি যেহেতু বহুল আলোচিত এবং দেশে জনগণের বিবেকে নাড়া দেয়া ঘটনার একটি, কাজেই সুযোগ সন্ধানী ধান্ধাবাজরা (পাহাড়ি-বাঙ্গালি উভয়ই) এ থেকে ব্যক্তিগত ফায়দা লুটতে বেশ তৎপর।” (কল্পনা অপহরণ: গোটা রাস্ট্রীয় ব্যবস্থায় এখনো একটি ‘দুষ্ট ক্ষত’, উৎপল খীসা, ২০০৬, পাহাড়ের রুব্ধকন্ঠ, ১৮-২৫ দ্রষ্টব্য।)

যার অবশ্যম্ভাবী ফলাফল হিসেবে, এই ঘটনা নিয়ে প্রতি বছরই অনেক লেখালেখি হয়, তাই ঘটনার বিশদ বিবরণের পরিবর্তে এর সম্ভাব্য কারণ অনুসন্ধান করাই এই লেখার প্রতিপাদ্য হিসেবে বেছে নেয়া হয়েছে।
প্রকৃত অপরাধীর শাস্তি দাবি করে, কল্পনা চাকমাকে নিয়ে গত দুই যুগেরও অধিককাল ধরে আন্দোলন, মানববন্ধন, সমাবেশ ইত্যাদি যেমন হয়েছে, তেমনি প্রচুর লেখালেখি হয়েছে। তন্মধ্যে কিছু কিছু লেখা যেমন তথ্যবহুল ও প্রাসঙ্গিক তেমনি আবেগময়। অন্যদিকে, প্রচুর লেখায় শুধুমাত্র আবেগের উপর ভিত্তি করে বিভ্রান্তিকর ও বিতর্কিত তথ্যের পাশাপাশি অযৌক্তিক ও বাস্তবতাবিবর্জিত বিষয়ের উপস্থাপনাও চোখে পড়েছে।
বিভিন্ন সময়ের লেখক/লেখিকাগনের চিন্তাভাবনার যে বহিঃপ্রকাশ লেখনীতে ফুটে উঠেছে, সেগুলো বিবেচনা করলে, দেখা যায় প্রত্যেকেরই কিছু কিছু যুক্তি আছে।

তাদের লেখা হতে, কল্পনা চাকমা নিখোঁজ হওয়ার মোটা দাগে তিনটি সম্ভাবনা বের করা যেতে পারে, যেগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার সুযোগ রয়েছে।
১। প্রেম বিষয়ক ঘটনার প্রেক্ষিতে অন্তর্ধান হয়ে থাকতে পারে।
২। নিরাপত্তা বাহিনী কর্তৃক অপহৃতা হতে পারে।
৩। নিজেদের উপদলীয় কোন্দলের বলির শিকার হয়ে থাকতে পারে।

উপরের তালিকা অনেককেই ক্ষুব্ধ করবে, নিঃসন্দেহে। কিন্তু, যেহেতু বিভিন্ন লেখালেখিতে উঠে এসেছে, তাই তর্কের খাতিরে সম্ভাব্য কারণ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

কল্পনা চাকমার নিখোঁজ হওয়ার পিছনে আপাত দৃষ্টিতে সবচেয়ে দুর্বল সম্ভাবনা হিসেবে বিবেচিত হলেও ঘটনাটিকে ‘হ্রদয়ঘটিত ব্যাপার’ হিসেবে অনেকেই দাবি করেছিলেন বলে জানা যায়। এমনকি, তত্তাবধায়ক সরকারের এক উপদেষ্টাও কল্পনা চাকমার অন্তর্ধানের বিষয়টি ‘হ্রদয়ঘটিত ব্যাপার’ হিসেবেই আখ্যা দিয়েছিলেন। সঙ্গতকারণেই, এই ব্যাপারটিকেও গোনার মধ্যে রাখতে হয়েছে। বিভিন্ন তথ্য অনুসন্ধান করে এবং তৎকালীন সময়ের অনেকগুলো সংবাদ পর্যালোচনা করে ‘হ্রদয়ঘটিত ব্যাপার্!” এর ঘটার সম্ভাবনা এবং বাস্তবে কতটা যৌক্তিক সেটা পর্যালোচনা করা যেতে পারে।


এ সংক্রান্ত আরো লেখা


কল্পনা চাকমার এক দূর সম্পর্কের আত্নীয় অরুণ বিকাশ চাকমা ভারতের অরুণাচল প্রদেশের ভারতীয় যুব কংগ্রেসের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল। অরুণ কয়েকবার কল্পনাদের বাড়ীতে বেড়াতেও এসেছিল। দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠলেও পারিবারিকভাবে বিষয়টি মেনে নেয়া হয়নি। তাই, তৎকালীন শান্তিবাহিনী আর পিসিপি’র সহায়তায় অরুণ বিকাশ কল্পনাকে অপহরণ করে, যা অনেকটা স্বেচ্ছা অপহরণের নামান্তর বলা যেতে পারে। বিষয়টি তার পরিবারের সকলেই জানেন। বিভিন্ন সুত্রে এমনটিই উল্লেখ আছে।

১৯৯৬ সালের বেশ কয়েকটি পত্রিকায় বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের উদ্ধৃতি দিয়ে দাবি করা হয় যে, কল্পনা চাকমা অপহরণ বিষয় সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য, দলিল, এবং সাক্ষ্য প্রমাণে এটাই প্রমাণিত হয় যে, কল্পনা চাকমা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তাদেরই সমর্থিত লোকজন দ্বারা নিখোঁজ রয়েছেন।

৮ আগস্ট ১৯৯৬ সালে, জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন কর্তৃক কল্পনা চাকমা অপহরণ ঘটনার সরজমিন তদন্ত প্রতিবেদন উপস্থাপন উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয় যে, কল্পনা চাকমা ঐ সময় ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের গংগাছড়া মহকুমার ৪ মাইল পূর্বে ‘শুক্রে’ নামক স্থানে অবস্থান করছিলেন।

পরেরদিন ৯ আগস্ট ১৯৯৬ সালে বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক দৈনিকে তদন্ত কমিশনকে উদ্ধৃত করে কল্পনা চাকমার বেঁচে থাকা এবং অপহরণের সাথে নিরাপত্তা বাহিনী জড়িত নয় বলে সংবাদ প্রকাশিত হয়।
তদন্ত কমিশন অনেক পাহাড়ী, বাঙ্গালী, সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তার সাক্ষ্য নিয়ে ভিডিও ক্যাসেট, রেকর্ডার ও বিভিন্ন দালিলিক প্রমাণাদি উপস্থাপন করেন। রাংগামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলার লাইল্যাঘোনায় কল্পনা চাকমার বাড়িতে তার মা মাধবী চাকমা ছাড়াও চাচাতো বোন ছবিময় চাকমা, প্রতিবেশি কৃষ্ণমোহন চাকমা, শান্তিবাহিনীর হিরো চাকমা, নিশি কুমার, প্রতিবেশি পিসিপি’র দেবাশীষ ও প্রতিবেশী সতীশ কারবারীসহ এলাকার উপস্থিত আরো অনেকের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়।

আরো যাদের সাক্ষাৎকার নেয়া হয়েছিল, তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, প্রাক্তন উপদেষ্টা, উপজাতীয় নেতা ও রাঙ্গামাটির হেডম্যানদের সভাপতি বি কে দেওয়ান, রাঙামাটি পৌরসভার চেয়ারম্যান ও পার্বত্য চট্রগ্রাম জনসংহতি সমিতির প্রাক্তন সদস্য মনি স্বপন দেওয়ান, পার্বত্য মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি দীপ্তিময় চাকমা, রাঙ্গামাটির জেলা প্রশাসক শাহ আলম, রাঙ্গামাটির ব্রিগেড কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার আ ত ম জহিরুল আলম, পি এস সি, রাঙামাটি প্রেসক্লাবের সভাপতি এ কে এম মাকসুদ আহমেদ, বাঘাইছড়ি থানা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম, মারিশ্যা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, বাঘাইছড়ি নাগরিক কমিটির আহবায়ক শামসুল হুদা, সদস্য সচিব নিজাম উদ্দিন বাবু, রূপকারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলী হোসেন, মারিশ্যা সাব জোনের মেজর আতিয়ার রহমান এবং চট্রগ্রামের জিওসি মেজর জেনারেল আজিজুর রহমান, বীর উত্তম, ।

সংবাদ সম্মেলনে কল্পনা চাকমার মায়ের উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয় যে, ১১ জুন দিবাগত রাত ২ টার দিকে ১০/১২ জন লুঙ্গি পরিহিত সশস্ত্র লোক দূর থেকে কল্পনাকে ডাকতে ডাকতে ঘরের কাছে আসে এবং দরজা কেটে ভিতরে প্রবেশ করে। কিছুক্ষণ পর কল্পনার বড় ভাই কালেন্দ্র কুমার চাকমাকে নিয়ে ঘরের পশ্চিম দিকে বিলের সামনে কিছুক্ষণ কথা বলার পর ফিরে আসে এবং কল্পনাসহ তার দুই ভাই কালেন্দ্র কুমার চাকমা এবং খুদিরাম চাকমাকে (লালবিহারী চাকমা) নিয়ে ঘর থেকে চলে যায়। চলে যাওয়ার সময় তিনি ২টি গুলির শব্দ শোনেন। প্রায় ২ ঘন্টা পর কল্পনার দুই ভাই মা মা বলে চিৎকার করতে করতে অক্ষত অবস্থায় ঘরে ফিরে আসে এবং কল্পনা চাকমাকে নিয়ে গেছে বলে জানায়।

তিনি আরো জনিয়েছিলেন যে, কণ্ঠস্বর শুনে তিনি সশস্ত্র ব্যক্তিদেরকে সামরিক বাহিনীর লোক বলে অনুমান করেছেন। তবে, লে. ফেরদৌসকে তিনি কখনো দেখেননি বলেও জানান। তদন্তকালে প্রতিবেশিরা কল্পনা চাকমার অপহরণের ব্যাপারে কিছু বলতে পারেনি। এমনকি, তারা কেউ ঐ রাতে গুলির শব্দ শোনেননি বলে জানান।

কমিশন আরো জানায় যে, কল্পনা চাকমার মা শিকার করেছেন যে, উক্ত ঘটনার পর কল্পনা চাকমা তার মায়ের সাথে দুইবার যোগাযোগ করেছিল। এর মধ্যে সর্বশেষ যোগাযোগ হয়েছে ১ আগস্ট ১৯৯৬। তদন্তকালে, যখন কল্পনা চাকমার মাকে প্রশ্ন করা হয়েছিল যে, কল্পনা চাকমাকে নিয়ে যাওয়ার পরে তিনি বা তার পরিবারের অন্যরা রাতেই কেন আশেপাশের লোকজনকে বলেননি বা কোন উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেননি– এর উত্তরে তিনি চুপ ছিলেন।

উল্লেখ্য যে, কল্পনা চাকমার চার ভাইয়ের মধ্যে আরো ২ভাইয়ের বাড়ি কল্পনা চাকমার ঘরের প্রায় একশ’ গজের মধ্যেই ছিল। তন্মধ্যে অভিজিত কুমার চাকমার বাড়ির কাছেই ছিল গোসলের ঘাট যেখানে দুই ভাইয়ের উপর গুলিবর্ষণ ও কল্পনা চাকমার চিৎকারের ঘটনা ঘটে। কিন্তু তারাও কেউই রাতে গুলির শব্দ বা কল্পনার চিৎকার শুনতে পায়নি। বরং সে পুরো ঘটনা জানতে পারে ভোরে ঘুম ভাঙ্গার পর।

এখানে আরো উল্লেখ্য যে, নির্বাচনের আগের রাত বলে কল্পনা চাকমাদের বাড়ি থেকে ৬০০/৭০০ গজ দূরে স্কুলে নির্বাচনী দায়িত্ব পালনে আসা অনেক বেসামরিক লোক ছিল, কিন্তু তাদের কেউই কোন গুলির শব্দ শুনেনি। অর্থাৎ, গুলির কোন ঘটনা আদৌ ঘটে ছিল কিনা – তা নিয়ে সন্দেহের অবকাশ রয়েছে। এখানেও বলা যেতে পারে যে, সম্ভবত কোন অপহরণ হয়নি, বরং অন্তর্ধান হতে পারে।

স্মরণযোগ্য যে, নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণার পূর্বে মৃগাংগ খীসা ও বর্ডিকা চাকমা স্বাক্ষরিত ১২ জুন ১৯৯৬ সালের এক যৌথ প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে শান্তি বাহিনীর অংগসংগঠন পাহাড়ি ছাত্র পরিষদ ( পিসিপি) এবং হিল উইমেন ফেডারেশন (এইচ ডব্লিউ এফ) জানিয়েছিল যে, “একদল বাঙ্গালী অনুপ্রবেশকারী সশস্ত্রাবস্থায় হামলা চালিয়ে বৃহত্তর পার্বত্য চট্রগ্রামের জুম্ম নারী সংগঠন ‘হিল উইমেন ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদিকা কল্পনা চাকমাকে জোরপূর্বক নিজ বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায় এবং তার বড় দুই ভাইকে লক্ষ্য করে ব্রাশ ফায়ার করে।”

কিন্তু নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পরে যখন দেখা গেল যে, শান্তিবাহিনী সমর্থিত পাহাড়ি গণ পরিষদ (পিজিপি) এর প্রেসিডিয়াম সদস্য বিজয় কেতন চাকমা আওয়ামী লীগের দিপংকর তালুকদারের কাছে পরাজিত হয়েছে, তখন ১৩ জুন তারিখে পিসিপি, পিজিপি ও এইচডব্লিউএফ এর পক্ষে এক যৌথ বিবৃতিতে দাবি করা হয় যে, “লে. ফেরদৌসের নেতৃত্বে (১৭ বেংগল) ১০-১৫ জন সেনাবাহিনী লাইল্যো ঘোনা গ্রামে হিল উইমেন ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদিকা মিস কল্পনা চাকমার বাড়িতে ঢুকে দুই ভাই সহ তাকে অপহরণ করা হয়। এক পর্যায়ে তার দুই ভাই পালিয়ে আসতে সক্ষম হয় এবং লে. ফেরদৌস এর গোমড় ফাঁস হয়ে যায়।”

আবার ১৪ জুন ১৯৯৬ তারিখের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয় যে, কল্পনা চাকমাকে অস্ত্রের মুখে সেনাবাহিনীর কতিপয় সন্ত্রাসী জোয়ান স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রসহ ঘর থেকে জোরপূর্বক অপহরণ করে নিয়ে যায়।
অথচ, ১৬ জুনের রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক বরাবর প্রেরিত স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয় যে, লেফটেন্যান্ট ফেরদৌসের নেতৃত্বে ৮/৯ জন সেনাসদস্য এবং ভিডিপি’র সদস্য পিসি নুরুল হক ও সালেহ আহম্মেদসহ আরো কয়েকজন ভিডিপি সদস্য জোরপূর্বক দরজা খুলে কল্পনা চাকমার বাড়ীতে অনুপ্রবেশ করে তার দুই ভাইসহ কল্পনা চাকমাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়।

স্বল্প কথায়, প্রেস বিজ্ঞপ্তি ও স্মারকলিপিতে পরস্পরবিরোধী তথ্য রয়েছে। এমনকি, সময়, স্থান ও পরিস্থিতির পরিবর্তনের সাথে সাথে অপহরণকারীও পরিবর্তিত হয়েছে।  ভিন্ন এক সুত্র মতে জানা যায় যে, ঘটনা পরবর্তী তদন্তের সময় পুলিশ কল্পনা চাকমার ঘরে তার ব্যবহৃত কোন কাপড়চোপড় এবং পড়ার বইপত্র পায়নি। জোরপূর্বক কল্পনা চাকমাকে নিয়ে গেলে, তার কাপড়চোপড় এবং বইপত্র ঘরে থাকা স্বাভাবিক ছিল। কল্পনা চাকমার মত একজন তেজস্বী নেত্রী আপোসে সব কিছু নিয়ে কোন ধরণের প্রতিরোধ বা টানা-হেঁচড়া ছাড়া শান্ত মেয়ের মত বাড়ির উঠোন, রাস্তা পেরিয়ে গোসলের ঘাট পর্যন্ত গেছেন– এটা কতটা অস্বাভাবিক হতে পারে, তা বলাই বাহুল্য। ভিন্নভাবে বললে, তিনি স্বেচ্ছায় গিয়েছিলেন– এমন দাবি করলে খুব বেশী অযৌক্তিক মনে হবে না।

১২ জুন ১৯৯৬ সালের সংসদ নির্বাচনে খুদিরাম চাকমা ভোট দিয়েছিলেন বলে জানা যায়। সঙ্গতকারণেই প্রশ্নের উদ্রেক হয় যে, ব্যাপারটি কি স্বাভাবিক? এর আগের রাতেই তার একমাত্র বোনকে অপহরণ করা হয়েছে এবং তাকেও হত্যার চেষ্টা করা হয়েছিল। এমন পরিস্থিতিতে ভোট দেয়ার মানসিক অবস্থা থাকার কথা নয়।
১৯৯৯ সালের ১৪ জুনের প্রথম আলোকে সুত্র হিসেবে উল্লেখ করে, হিল উইমেন ফেডারেশনের এক লিফলেটে (১০ জুন ২০০৬) দাবি করা হয়েছে যে, এক সেনা কর্মকর্তা সাংবাদিক আবেদ খানকে নিশ্চিত করেছিলেন যে কল্পনাকে সেনা গোয়েন্দারা ত্রিপুরায় দেখে এসেছে। এমনকি ঐ সেনা কর্মকর্তা সাংবাদিক আবেদ খানের কাছে ‘ কল্পনা অবশ্যই বেঁচে আছে এবং সেনা গোয়েন্দা তাকে ত্রিপুরায় দেখে এসেছে এমন কথাও নিশ্চিত করে জানিয়েছিলেন (সূত্র: প্রথম আলো, ১৪ জুন ’৯৯)।” (হিল উইমেন্স ফেডারেশন, ২০০৬)

‘কল্পনা চাকমা কি বেঁচে আছেন?’ শিরোনামের পার্বত্যনিউজের ১১ জুন ২০১৬ সালের এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন হতে জানা যায়, “তদন্ত কমিটির এক সদস্য ভারতে অরুণাচলে অবস্থিত কল্পনা চাকমার সাথে যোগাযোগ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তিনি কল্পনা চাকমাকে বাংলাদেশে ফিরে আসার আহবান জানিয়ে চিঠি লিখেছিলেন। কল্পনা চাকমা ফিরতি চিঠিতে তাকে জানান, তিনিও দেশে ফিরতে আগ্রহী। কিন্তু তিনি দেশে ফিরলে তাকে পাহাড়িদের পক্ষ থেকে হত্যা করা হতে পারে আশঙ্কা করেন।” এমনকি, কল্পনার লেখা চিঠির কপিও প্রকাশ করা হয়েছিল ওই অনলাইনে।

ভারতের অরুণাচল থেকে ২০ সেপ্টেম্বর ১৯৯৯ সালের তারিখে লিখিত ঐ চিঠিতে কল্পনা চাকমা উল্লেখ করেছেন যে, প্রায় মাস খানেক আগে তিনি মা হয়েছেন। তিনি আরো বলেছেন যে, আত্নীয় স্বজনদের নিষেধ অমান্য করে বিয়ে করায় তিনি নিজের মাতৃভুমি থেকে দুরে চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন।
প্রকৃতপক্ষে কি ঘটেছিল কল্পনা চাকমার ভাগ্যে– তা জানতে কতদিন অপেক্ষা করতে হতে পারে, তা অনুমান করাও কষ্টসাধ্য। তবে উপরের বিস্তারিত পর্যালোচনা যে সিদ্ধান্তের দিকে ধাবিত করছে, সেটি হল– কল্পনা চাকমা তার কাপড়চোপড় গুছিয়ে পিসিপির সহায়তায় স্বামীর সাথে ভারতে চলে গিয়েছিল। সেক্ষেত্রে, ভুলের মাত্রা কী পরিমাণ হবে, সেটা পাঠক কুলের বিবেচনায় ছেড়ে দেয়াই সর্বোত্তম।

  • তথ্যসূত্র
  • ১। হিল উইমেন্স ফেডারেশন. (২০০৬, জুন ১০). কল্পনা অপহরনের ১০ বছর – ২৪ পদাতিক ডিভিশন সেনা সদর অভিমুখে পদযাত্রা. চট্রগ্রাম.
    ২। ‘মায়ের স্বীকারোক্তি কল্পনা চাকমা এখন ত্রিপুরায়’- দৈনিক মিল্লাত, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ৩। ‘কল্পনা চাকমা এখন ত্রিপুরায়: মা’র সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে তার’- দৈনিক দিনকাল, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ৪। ‘কল্পনা চাকমা জীবিত এবং কোথায় আছেন তা তার মা ভালভাবেই জানেন’- দৈনিক ইনকিলাব, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ৫। ‘কল্পনা চাকমা ত্রিপুরায় আছেন, অপহরণ সাজানো নাটকঃ মানবাধিকা৮র কমিশনের তথ্য প্রকাশ’- দৈনিক পূর্বকোণ, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ৬। ‘বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের ভাষ্য কল্পনা চাকমা ত্রিপুরায়’- দৈনিক ভোরের কাগজ, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ৭. ‘কল্পনা চাকমা ভারতে আছেন’- দৈনিক সংগ্রাম, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ৮। ‘সাংবাদিক সম্মেলনে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, কল্পনা চাকমা ভারতের ত্রিপুরায়।। অপহরণ ঘটনার সাথে সামরিক বাহিনী জড়িত নয়’- দৈনিক আজাদী, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ৯। ‘অবশেষে রহস্য ফাঁস কল্পনা চাকমা ভারতে’- দৈনিক দেশজনতা, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ১০। ‘মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্ট প্রকাশ পরিকল্পিতভাবে কল্পনা চাকমাকে নিখোঁজ রাখা হয়েছে’- দৈনিক সবুজ দেশ, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ১১। ‘সংবাদ সম্মেলনে মানবাধিকার কমিশন, কল্পনা চাকমা এখনো বেঁচে আছেন’- দৈনিক লাল সবুজ, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ১২। ‘কল্পনা চাকমা ত্রিপুরার গঙ্গাছড়া এলাকায় রয়েছে।। মানবাধিকার কমিশন’- দৈনিক সকালের খবর, ৯ আগস্ট ১৯৯৬।
    ১৩। `Kalpana Chakma Traced, living in Tripura’- The New Nation, August 9, 1996.
    ১৪. ‘A Month After Abduction, Kalpana Chakma Yet to be Rescued’, The Daily Star, July 13, 1996.

মাহের ইসলামের আরো লেখা পড়ুন:

  1. পার্বত্য চট্টগ্রামে অপপ্রচার: মুদ্রার অন্য দিক
  2. মারমা দুই বোন, অপপ্রচার এবং ডিজিটাল যুগের দুর্বলতা
  3. পাহাড়িদের সরলতা কি গুটিকয়েকজনের ক্রীড়নক: প্রেক্ষিত বিলাইছড়ি ইস্যু
  4. পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীঃ নির্দোষ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত দোষী
  5. মিথুন চাকমার প্রতি সহানুভুতি কি অবিচার ?
  6. দেশের সার্বভৌমত্ব, জাতীয় চেতনা ও নাগরিক নিরাপত্তা নিয়ে অপপ্রচার বন্ধে কোনো ছাড় নয়
  7. ইমতিয়াজ মাহমুদ- মিথ্যা বিভ্রান্তি ছড়িয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি না করে অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে শেখান(ভিডিও)
  8. অপহরণের প্রতিবাদ: মানবিক, বাণিজ্যিক, না রাজনৈতিক?
  9. রোহিঙ্গা নিধনে ফেসবুকের অপব্যবহার এবং পার্বত্যাঞ্চলে বাঙ্গালী বিদ্বেষী অপপ্রচার
  10. পাহাড়ী সন্ত্রাসীদের ব্যক্তি স্বার্থের কাছে জিম্মি সমাজ ও রাষ্ট্র
  11. ব্যাক্তিগত বিশ্বাস, সংবাদ মাধ্যম ও নৈতিকতার মানদণ্ড
  12. কাপ্তাই বাঁধ প্রকল্পের ক্ষতিপূরণঃ ব্যক্তি স্বার্থের রাজনীতির শিকার নিরীহ পাহাড়ি
  13. ভূষণছড়াঃ যেখানে শুধু কুকুরই বেঁচে ছিল!
  14. প্রেক্ষাপট বিচারে কল্পনা চাকমার ‌‌’অপহরণ’ যাচাই

প্রেক্ষাপট বিচারে কল্পনা চাকমার ‌‌’অপহরণ’ যাচাই

মাহের ইসলাম:

একজন মাত্র ব্যক্তিকে কেন্দ্র করে সংঘটিত ঘটনাবলীর মধ্যে পার্বত্য চট্রগ্রামের সবচেয়ে আলোচিত এবং বিতর্কিত ঘটনা হল কল্পনা চাকমার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা। ঘটনাটি আসলে অন্তর্ধান না অপহরণ সে নিয়ে বিতর্ক থাকলেও, কেন আলোচিত বলা হচ্ছে, সেটা বলাই বাহুল্য।

বিতর্কিত ট্যাগ লাগানোয় অনেকে মনঃকষ্ট পেতে পারেন বিধায়, স্মরণ করা যেতে পারে যে, ২০০৬ সালে হিল উইমেন্স ফেডারেশন কর্তৃক প্রকাশিত পাহাড়ের রুদ্ধকন্ঠ, দ্বিতীয় সংখ্যা থেকে জানা যায়, “৯৮ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি খাগড়াছড়ি স্টেডিয়ামে অস্ত্র সমর্পণের পরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় কালে তিনি (সন্তু লারমা) ‘কল্পনা অপহরণ ও লোগাঙ গণহত্যাকে বিতর্কিত বিষয়’ বলে উড়িয়ে দেন।“ (পাহাড়ের রুদ্র কণ্ঠ, দ্বিতীয় সংখ্যা, হিল উইমেন্স ফেডারেশন, ২০০৬, পৃ. ৬০ দ্রষ্টব্য)।

আপাতদৃষ্টিতে, বিশ্লেষণের আঙ্গিকে এই ঘটনাটি যেমন একদিকে সম্পূর্ণ ব্যতিক্রমী এবং পার্বত্য চট্রগ্রামের ক্ষেত্রে অনন্য এক ঘটনা হিসেবে প্রতীয়মান; তেমনি অন্যদিকে নৈমিত্তিক ও একই ধরণের প্রচেষ্টার বিপরীতে অভাবনীয় ফলদায়ক এক অনন্য সাধারণ ঘটনা হিসেবে প্রমাণিত। আর এ কারণেই, এই ঘটনার সত্যাসত্য নির্ণয়ের দুঃসাহস না দেখিয়ে বরং দৃষ্টির আড়ালে রয়ে যাওয়া ঘটনার প্রেক্ষাপটের বাস্তবতায় আলোকপাত করা শ্রেয়।


এ সংক্রান্ত আরো লেখা


ঘটনার প্রেক্ষাপট বিবেচনা করা যে কোন ঘটনার কারণ বের করার পূর্বশর্তস্বরূপ। পার্বত্য চট্রগ্রামের ঘটনাবলীর উপর নজর রাখেন এমন সকলেই স্বীকার করবেন যে, আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোর কোনটিই তাদের বিরুদ্ধবাদীদের সহজে মেনে নেয় না। এক্ষেত্রে, শাস্তিস্বরূপ শারীরিক নির্যাতন, জরিমানা, ধর্ষণ, অপহরণ, এমনকি হত্যা পর্যন্ত করা হয়।

সাম্প্রতিক কালের মণ্টি চাকমা আর দয়াসোনা চাকমার অপহরণের ঘটনা দেখে অনেকের মনে হতে পারে, এসব হয়ত শুধু এখনকার সময়ে ঘটে। এমন ধারণা পোষণকারীদের ভুল ভাঙাতে ১৯৯৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রকাশিত লে. আবু রুশদ (অব.) এর ‘পার্বত্য চট্রগ্রাম, শান্তিবাহিনী ও মানবাধিকার’ নামক বই থেকে তৎকালীন সময়ের কিছু উদাহরণ দেয়া হলঃ

১। সংবাদ সংস্থা মিডিয়া সার্ভিস ‘তিনটি পার্বত্য জেলার আইন শৃংখলা পরিস্থিতি’ শিরোনামের এক রিপোর্টে জানুয়ারি ১৯৯৬ তে জানায়, “পিসিপি (পাহাড়ী ছাত্র পরিষদের) -পিজিপি’র (পাহাড়ী গণপরিষদের) সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আলোক চাকমা বলেন যে, শান্তিবাহিনীর এসব সমর্থক সংগঠনের সন্ত্রাস এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, এদের বিরুদ্ধে কথা বললেই ধরে নিয়ে যাওয়া হয় এবং নির্যাতনের মাধ্যমে মেরে ফেলা হয়।‍‍‍”

২। ১২ সেপ্টেম্বর (১৯৯৫), খাগড়াছড়ির পোছেড়া গ্রামের “বিভা বসু চাকমার পুত্র কালোমানি চাকমাকে পিসিপি’র কর্মীরা ধরে নিয়ে হত্যা করে”।

৩। “সন্ত্রাস প্রতিরোধ কমিটির সক্রিয় কর্মী সুকুমার চাকমা, রুইথুই মারমা এবং বোধিমিত্র চাকমাকে পাহাড়ী ছাত্র – গণপরিষদের কর্মীরা অপহরণ করে নিয়ে যায়। ”

৪। ২৩ ডিসেম্বর (১৯৯৫), “পানছড়ি এলাকা থেকে পিপিএসপি’র সদস্যা ধীমান দেওয়ান এর মা শেফালীকা দেওয়ান ও তার মামা নবকুমার দেওয়ানকে অপহরণ করা হয়।”

৫। ২০ জানুয়ারি (১৯৯৬), পানছড়ি থেকে পাইলট ফার্ম প্রাইমারি স্কুলের প্রধান শিক্ষককে অপহরণ করা হয়।

৬। পিসিপি’র পানছড়ির সম্পাদক ২৪ ডিসেম্বর (১৯৯৫) তারিখে পিসিপি’র প্রধান প্রসীত বিকাশ চাকমার কাছে এক গোপন চিঠি পাঠিয়ে, “সন্ত্রাসবিরোধী সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আলোক চাকমাসহ উষাতন, অরুণ, আলো, দেবাশীষ এবং মিলন চাকমাকে মেরে ফেলার জন্য” অনুমতি চায়। (লে. আবু রুশদ, পার্বত্য চট্রগ্রাম শান্তিবাহিনী ও মানবাধিকার; জেড, আর প্রকাশনী, ঢাকা, ১৯৯৭, পৃষ্ঠা ৪৮-৪৯ দ্রষ্টব্য।)
(রুশদ, ১৯৯৭, pp. ৪৮-৪৯)

সংগত কারণেই, এমন অসংখ্য উদাহরণ থাকা সত্ত্বেও এই তালিকা দীর্ঘ করার প্রয়োজন নেই। বরং, কল্পনা চাকমার ঘটনার সময়কাল বিবেচনা করা বেশি প্রয়োজন।

“১৯৯৬ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাঙামাটি জেলায় পাহাড়ি সংগঠনগুলো নিজস্ব প্রার্থী হিসেবে তাদের অঙ্গ সংগঠন পাহাড়ী গণপরিষদের কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য বিজয় কেতন চাকমাকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে (প্রজাপতি মার্কা) দাঁড় করায়। তার পক্ষে প্রচারণা চালানোর জন্য তাদের প্রকাশ্য সংগঠন পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ (পিসিপি), পাহাড়ী গণপরিষদ (পিজিপি) ও হিল উইমেন ফেডারেশন (এইচডব্লিউএফ) কে নির্দেশ দেয়।

অপরদিকে রাঙামাটিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী দীপংকর তালুকদারের পক্ষে নাগরিক কমিটিসহ বেশীরভাগ ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী ও বাঙ্গালী জনগন সমর্থন দেয় এবং প্রচারণায় নামে।

তৎকালীন শান্তিবাহিনীর দোসর পিসিপি, পিজিপি ও এইচডব্লিউএফ দীপংকর তালুকদারের জনপ্রিয়তায় শঙ্কিত হয়ে তার সমর্থক বিভিন্ন নেতৃত্বস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ও সাধারণ উপজাতীয়দের হুমকি দেয়া ও হয়রানি করা শুরু করে। পরিসংখ্যান থেকে জানা যায় যে, পাহাড়ি সন্ত্রাসীরা সেসময় সমগ্র পার্বত্যাঞ্চলে প্রায় ৩৫ জন আওয়ামীলীগ সমর্থককে নির্বাচনের আগে ও পরে অপহরণ করে।

এদিকে কল্পনা চাকমা আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর হয়ে প্রচার কাজ চালাচ্ছিলেন, যদিও তিনি হিল উইমেন ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদিকা ছিলেন। এসব মিলিয়ে ঘটনাটি তাদের উপদলীয় কোন্দলের সৃষ্টি করেছিল এবং তাকে উক্ত প্রচার থেকে বিরত থাকার জন্য সন্ত্রাসীরা বেশ কয়েকবার হুমকিও দিয়েছিল।” (কল্পনা চাকমা কি বেঁচে আছেন?, পার্বত্যনিউজ, ১১ জুন ২০১৬)।

উপরোক্ত উদাহরণসমূহ এবং ঘটনার প্রেক্ষাপটে কল্পনা চাকমাকে অপহরণ করা কাদের স্বার্থে জরুরী হয়ে দাঁড়িয়েছিল, সে প্রশ্নের উত্তর খুঁজে নেয়ার ভার পাঠকের হাতেই ছেড়ে দেয়া হল।

পাঠকের দোদুল্যমনতা দূরীকরণের অভিপ্রায়ে আরো কিছু তথ্য দেয়া প্রাসঙ্গিক নিঃসন্দেহে। পূর্বোক্ত বইয়ের তথ্যানুযায়ী, ১৯৭৬ সাল হতে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত পাহাড়ী ও বাঙ্গালী মিলিয়ে মোট ২৩৮৯ জন অপহরণ ও গুম হয়েছেন। শান্তি চুক্তির পরে গত বিশ বছরে অপহৃত হয়েছে প্রায় হাজার দেড়েক মানুষ। অর্থাৎ অদ্যবধি, পার্বত্য চট্রগ্রামে পাহাড়ী – বাঙ্গালী মিলিয়ে প্রায় চার হাজার মানুষ অপহরণের শিকার হয়েছেন। আর, এই সকল অপহরণের প্রায় শতভাগই হয়েছে পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের হাতে। ( অপহরণের আরো কিছু উদাহরণ জানতে চাইলে এই লিঙ্কে (http://www.somewhereinblog.net/blog/MaherIslam/30235131) যাওয়া যেতে পারে। )

♦ মাহের ইসলাম: পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক গবেষক।


মাহের ইসলামের আরো লেখা পড়ুন:

  1. পার্বত্য চট্টগ্রামে অপপ্রচার: মুদ্রার অন্য দিক
  2. মারমা দুই বোন, অপপ্রচার এবং ডিজিটাল যুগের দুর্বলতা
  3. পাহাড়িদের সরলতা কি গুটিকয়েকজনের ক্রীড়নক: প্রেক্ষিত বিলাইছড়ি ইস্যু
  4. পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাবাহিনীঃ নির্দোষ প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত দোষী
  5. মিথুন চাকমার প্রতি সহানুভুতি কি অবিচার ?
  6. দেশের সার্বভৌমত্ব, জাতীয় চেতনা ও নাগরিক নিরাপত্তা নিয়ে অপপ্রচার বন্ধে কোনো ছাড় নয়
  7. ইমতিয়াজ মাহমুদ- মিথ্যা বিভ্রান্তি ছড়িয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি না করে অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে শেখান(ভিডিও)
  8. অপহরণের প্রতিবাদ: মানবিক, বাণিজ্যিক, না রাজনৈতিক?
  9. রোহিঙ্গা নিধনে ফেসবুকের অপব্যবহার এবং পার্বত্যাঞ্চলে বাঙ্গালী বিদ্বেষী অপপ্রচার
  10. পাহাড়ী সন্ত্রাসীদের ব্যক্তি স্বার্থের কাছে জিম্মি সমাজ ও রাষ্ট্র
  11. ব্যাক্তিগত বিশ্বাস, সংবাদ মাধ্যম ও নৈতিকতার মানদণ্ড
  12. কাপ্তাই বাঁধ প্রকল্পের ক্ষতিপূরণঃ ব্যক্তি স্বার্থের রাজনীতির শিকার নিরীহ পাহাড়ি
  13. ভূষণছড়াঃ যেখানে শুধু কুকুরই বেঁচে ছিল!

 

কল্পনা চাকমা কি বেঁচে আছেন?

kalpona chakma

পার্বত্যনিউজ রিপোর্ট:

কল্পনা চাকমা বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামের ইতিহাসে বহুল আলোচিত ও বিতর্কিত নাম। ১২ জুন ১৯৯৬ সালে রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ির নিউ লাইল্লাঘোনা গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে অপহৃত হয় কল্পনা চাকমা। অপহরণের সময় আঞ্চলিক সংগঠন হিল উইমেন্স ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। রাজনীতি, আন্দোলন ও নেতৃত্বে স্বল্প সময়ের মধ্যেই দক্ষতার পরিচয় দিয়েছিলেন তিনি। ফলে তার অপহরণ ঘটনা নিয়ে পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক সংগঠনগুলো জোরদার আন্দোলন গড়ে তোলে। অপহরণের পরদিন কল্পনা চাকমার বড় ভাই কালিন্দী কুমার চাকমা বাদী হয়ে স্থানীয় থানায় একটি মামলা করেন।

সে সময়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মো. আবদুল জলিলকে প্রধান করে তিন সদস্যবিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিশন গঠন করা হয়েছিল। কমিশন ৯৪ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেও এ অপহরণের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কাউকে শনাক্ত করতে পারেনি। তবে সরকার সেই তদন্ত প্রতিবেদন আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশও করেনি। মামলা দায়েরের ১৪ বছর পর ২০১০ সালের ২১ মে মামলাটির প্রথম চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। ১৪ বছর তদন্তাধীন থাকার পর চূড়ান্ত প্রতিবেদনে আসামিদের অজ্ঞাতনামা উল্লেখ করে তা দাখিল করা হয়। বাদী ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে নারাজি দিলে পরবর্তী সময়ে অধিকতর তদন্তের জন্য আদালত মামলাটি সিআইডির কাছে হস্তান্তর করেন। সিআইডি দুই বছর সময় নিয়ে অবশেষে ২০১২ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর তাদের চূড়ান্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করে।সব মিলিয়ে এ ঘটনার তদন্ত হয়েছে তিনবার। এর মধ্যে দুবার তদন্ত করেছে সিআইডি। তাতে দু’বারই নারাজি আবেদন করে কল্পনা চাকমার পরিবার।

images

সর্বশেষ রাঙামাটির পুলিশ সুপার আমেনা বেগমের দেয়া তদন্ত রিপোর্টও প্রত্যাখ্যান করে মামলার বাদী। অপহরণের পর থেকে মামলার বাদী ও পাহাড়ি সংগঠনগুলো অপহরণের জন্য এক সেনা কর্মকর্তা লে. ফেরদৌস ও তিনজন ভিডিপি সদস্যকে দায়ী করে। কিন্তু দীর্ঘ ১৮ বছরের একাধিক তদন্ত প্রতিবেদনে অভিযুক্তদের নাম না আসায় ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবী জানিয়ে নারাজি আবেদন দিয়ে যাচ্ছেন মামলার বাদী। বর্তমানে কল্পনা চাকমা অপহরণ মামলাটি রাঙামাটি জেলা পুলিশ সুপারের অধীনে পুনঃ তদন্তাধীন।

রাঙামাটির বর্তমান পুলিশ সুপার সাইদ তারিকুল হাসানের কাছে এ মামলার তদন্তের সর্বশেষ অগ্রগতি জানতে চাইলে তিনি আবারো বলেন, ‘মামলাটি তদন্তাধীন। আদালতের নির্দেশে মামলার তদন্ত কাজ চলছে। আদালত যেসকল বিষয়ে আলাদা আলাদা করে অবজারভেশন নিয়ে তদন্ত করতে বলেছে আমরা সেগুলো তদন্ত করছি। এটি অনেক পুরাতন মামলা। তাই সময় লাগছে’।

কল্পনা চাকমার অপহরণের তদন্ত নিয়ে যেমন দীর্ঘসূত্রিতা হয়েছে। তেমনি জিইয়ে থাকার সুযোগে একটি মহল এই মামলাকে সামনে রেখে গত ২০ বছর ধরে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে বাঙালী ও সেনাবাহিনীর অবস্থান নিয়ে দেশে বিদেশে ব্যাপক প্রপাগাণ্ডা চালিয়েছে যার বেশিরভাগই মিথ্যা।

Kalpana-Chakma-poster-in-Bengali

উদাহরণ স্বরূপ, চলছি বছর জুন মাসের শুরু থেকে পাহাড়ীদের বিভিন্ন ওয়েব সাইট ও ফেসবুক পেইজে বলা হয়, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল কল্পনা চাকমার বিচার দাবীতে বাংলাদেশ সরকারের উপর চাপ সৃষ্টির লক্ষে ‘ফটো একশন’ নামে একটি ক্যাম্পেইন চালু করেছে। এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের লোগোসহ কল্পনা চাকমার ছবি হাতে নিয়ে তা পাঠাতে বলা হয়েছে। কিন্তু এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের ওয়েবসাইট খুঁজে এ ধরনের কোনো ক্যাম্পেইনের খবর পাওয়া যায়নি।  অনুসন্ধান করে দেখা গেছে, একটি মহল থেকে এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের লোগো ও কল্পনা চাকমা ছবি দিয়ে একটি এ্যাপ তৈরী করা হয়েছে। এ্যাপটিতে নিজের ছবি লাগিয়ে পোস্ট করলে আয়োজকরা বিভিন্ন সামাজিক গণমাধ্যমে এমনেস্টির লোগোসহ ব্যাক্তির ছবির সাথে কল্পনা চাকমার ছবি প্রচার করছে। অথচ এই প্রপাগাণ্ডায় ব্যবহার করা হচ্ছে এমনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের নাম।

প্রশ্ন হচ্ছে, কল্পনা চাকমা কোথায়? তিনি কি আদৌ অপহৃত হয়েছিলেন? তিনি কি সেনাবাহিনীর সদস্য কর্তৃক অপহৃত হয়েছিলেন? তিনি কি স্বজন বা পরিচিত কারো দ্বারা অপহৃত হয়েছিলেন? তিনি কি মারা গেছেন? তিনি কি বেঁচে আছেন? বেঁচে থাকলে কোথায় আছেন? — এমন প্রশ্ন বিগত ২০ বছর ধরেই ঘুরপাক খাচ্ছে জনমনে।

পার্বত্যনিউজের তরফে এসকল প্রশ্নের সমাধান খুঁজতে গিয়ে বিগত ২০ বছরের অনেক তথ্য, উপাত্ত, প্রমাণ, রিপোর্ট, বর্ণণা আমাদের পরীক্ষা করে দেখতে হয়। এই মামলা নিয়ে কাজ করেছেন, শুরু থেকে মামলা পর্যবেক্ষণ করেছেন এমন কিছু লোকের সাথেও কথা হয়।


এ সংক্রান্ত আরো খবর পড়ুন


রাঙামাটি জেলার একজন আইনজীবী শুরু থেকেই কল্পনা চাকমা অপহরণের ঘটনাবলীর উপর নজর রেখেছিলেন।  নিরাপত্তার কারণে না প্রকাশ না করার শর্তে পার্বত্যনিউজকে বলেন, কল্পনা চাকমার অপহরণ তদন্ত করতে গেলে ঘটনার সময় বিচার করা জরুরী। তিনি বলেন, ১৯৯৬ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাঙ্গামাটি জেলায় পাহাড়ী সংগঠনগুলো নিজস্ব প্রার্থী হিসেবে তাদের অঙ্গ সংগঠন পাহাড়ী গণপরিষদ কেন্দ্রীয় প্রেসিডিয়াম সদস্য বিজয় কেতন চাকমাকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে (প্রজাপতি মার্কা) দাঁড় করায়। তার পক্ষে প্রচারণা চালানোর জন্য তাদের প্রকাশ্য সংগঠন পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ (পিসিপি), পাহাড়ী গণপরিষদ (পিজিপি) ও হিল উইমেন ফেডারেশন (এইচডব্লিউএফ)কে নির্দেশ দেয়। অপরদিকে রাঙামাটিতে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী দীপংকর তালুকদারের পক্ষে নাগরিক কমিটিসহ বেশিরভাগ ক্ষুদ্র-নৃ-গোষ্ঠী ও বাঙ্গালী জনগন সমর্থন দেয় এবং প্রচারণায় নামে । তৎকালীন শান্তিবাহিনীর দোসর পিসিপি, পিজিপি ও এইচডব্লিউএফ দীপংকর  তালুকদারের জনপ্রিয়তায় শঙ্কিত হয়ে তার সমর্থক বিভিন্ন নেতৃত্বস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ও সাধারণ উপজাতীয়দের হুমকি দেয়া ও হয়রানি করা শুরু করে ।

kalpana-chakma_1_808

পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা সেসময় সমগ্র পার্বত্যাঞ্চলে প্রায় ৩৫ জন আওয়ামীলীগ সমর্থককে নির্বাচনের আগে ও পরে অপহরণ করে । এদিকে কল্পনা চাকমা আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীর হয়ে প্রচার কাজ চালাচ্ছিলেন যদিও তিনি হিল উইমেন ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদিকা ছিলেন। এসব মিলিয়ে ঘটনাটি তাদের উপদলীয় কোন্দলের সৃষ্টি করেছিল এবং তাকে উক্ত প্রচার থেকে বিরত থাকার জন্য সন্ত্রাসীরা বেশ কয়েকবার হুমকিও দিয়েছিল। এ অবস্থায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে কল্পনা চাকমাকে অপহরণের নাটক সাজিয়ে শান্তিবাহিনী ও পিসিপি ভোটের পূর্বের রাতে তাৎক্ষণিক একটি ইস্যু তৈরি করে নির্বাচনে জনমতকে তাদের পক্ষে নিয়ে যাবার অপচেষ্টা চালিয়েছিল।

উক্ত ঘটনার আকষ্মিকতায় এমন পরিস্থিতি তৈরী হয়েছিল যে, প্রিজাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসারদের তথ্য মতে, পাহাড়ী ভোটাররা সকাল ৮ ঘটিকায় ভোট কেন্দ্রে উপস্থিত থাকা সত্ত্বেও ভোট দেয়া থেকে বেশ কিছুক্ষণ বিরত থাকেন। ঐ সময় প্রার্থী নির্বাচনে তারা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে বিলম্ব করেন বলেও জানা যায়।

পুরাতন তথ্য বিশ্লেষণ করে ওই আইনজীবী আরো জানান, এরপর ১৭ জুন ১৯৯৬ তারিখ পাহাড়ী গণপরিষদ, পাহাড়ী ছাত্র পরিষদ এবং হিল উইমেন ফেডারেশন কর্তৃক জেলা প্রশাসক বরাবর একটি স্বারকলিপি প্রেরণ করে। কল্পনা চাকমার অপহরণের জন্য সংগঠনগুলো তৎকালীন উগলছড়ি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার লে. ফেরদৌসকে দায়ী করেন। সংগঠনগুলোর ভাষ্য মতে, ঐদিন দিবাগত রাতে উক্ত কর্মকর্তাসহ নিরাপত্তাবাহিনীর ৮/৯ জন সদস্য উগলছড়ি আর্মি ক্যাম্প থেকে নিউ লাইল্লাঘোনায় এসে জোরপূর্বক কল্পনা চাকমাকে অপহরণ করে।

kalpona chakma 1

ঘটনার সময় খাগড়াছড়িতে কর্মরত ছিলেন এমন একজন অবসরপ্রাপ্ত সেনাকর্মকর্তা পার্বত্যনিউজকে বলেন, লে. ফেরদৌস কচুছড়ি আর্মি ক্যাম্পে ক্যাম্প কমান্ডারের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন । তিনি ১১ জুন ১৯৯৬ তারিখে কচুছড়ি সেনা ক্যাম্প থেকে একটি টহল দলকে নেতৃত্ব দিয়ে উগলছড়ি সেনা ক্যাম্পে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ডিউটির জন্য আসেন। তার সাথে আরও তিনজন কর্মকর্তা উগলছড়ি ক্যাম্পে রাত্রিযাপন করেন । ফেরদৌস তার টহলদল ও নির্বাচনী কর্মকর্তাদের নিয়ে ১২ জুন ১৯৯৬ তারিখ সকাল সাতটায় নির্বাচনী দায়িত্ব পালনের উদ্দেশ্যে ক্যাম্প থেকে পোলিং সেন্টারের উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে যান।

তিনি আরো বলেন, লে. ফেরদৌস শান্তিবাহিনীর অবৈধ কার্যকলাপের বিরুদ্ধে সাফল্যজনক কয়েকটি অপারেশন পরিচালনা করেন । ঘটনার কিছুদিন পূর্বে বাঘাইছড়ি ইউনিয়নের প্রাক্তন চেয়ারম্যান সম্রাট সুর চাকমার বাড়ীতে অবৈধ চাঁদা আদায়কারীদের অবস্থানের খবর পেয়ে তিনি একটি তল্লাশী অভিযান চালান । এছাড়াও তিনি আরেকটি অপারেশন চালিয়ে পিসিপির দুইজন অবৈধ চাঁদাবাজকে হাতেনাতে গ্রেফতার করেন । এরপর থেকে সম্রাট সুর চাকমা ও পিসিপি লে. ফেরদৌসকে শায়েস্তা করার জন্য নানা চেষ্টা করে আসছিলেন। তার এই অপারেশন কার্যক্রমে দিশেহারা হয়ে শান্তিবাহিনী ও পিসিপি তার পেট্রোল এর উপর বেশ কয়েকবার এম্বুশ করেও তার কোন ক্ষতি করতে পারেনি। দুঃসাহসিক ও নিবেদিত প্রাণ এই কর্মকর্তা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তার অপারেশনাল কর্মকাণ্ড নিষ্ঠার সাথে পালন করে যাচ্ছিলেন।  উপায়ান্তর না দেখে উক্ত অফিসার তথা সেনাবাহিনীকে ঘায়েল করার ভিন্ন পথ খুঁজে নেয় পাহাড়ী সন্ত্রাসীরা। তারা মিথ্যা অভিযোগ ও অপপ্রচারের অস্ত্র ব্যবহার করার পরিকল্পনা ফাঁদে।

তবে পার্বত্য নাগরিক পরিষদের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আলকাস আল মামুন ভুঁইয়া পার্বত্যনিউজকে বলেন, আমরা শুনেছিলাম, কল্পনা চাকমার তৎকালীন প্রেমিক ও পরবর্তীতে স্বামী অরুণ বিকাশ চাকমা ভারতের অরুণাচল প্রদেশের ভারতীয় যুব কংগ্রেসের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সাথে সম্পৃক্ত ছিল। তারা উভয়েই দূরসম্পর্কের আত্মীয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। কিন্তু তাদের প্রেমের ব্যাপারে পারিবারিক বাঁধা থাকায় অরুণ বিকাশ কল্পনাকে অপহরণ করে বলে বিভিন্ন সূত্র অবগত করে। আর এই সুযোগটিই কাজে লাগিয়েছিল তৎকালীন শান্তিবাহিনী আর পিসিপি’র সদস্যরা। তিনি বলেন, কল্পনা চাকমার প্রেমিক পিসিপি’র সহযোগিতায় এই অপহরণের ঘটনা ঘটিয়েছে। বিষয়টি তার পরিবারের সকলেই অবগত।

ঘটনার পর তদন্ত করতে গিয়ে কল্পনা চাকমার বাড়ীতে তার পরিধেয় বস্ত্র, বইপুস্তক ও নিত্য ব্যবহার্য কোন সামগ্রী খুঁজে পায়নি তদন্ত কমিটি। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন আসে তিনি অপহৃত হয়েছেন, নাকি স্বেচ্ছায় আত্মগোপন করে নিরাপত্তা বাহিনীকে জড়িয়ে একটি ইস্যু তৈরি করেছেন । এ যাবত পরিচালিত কোন তদন্তেই কল্পনা চাকমা অপহৃত হয়েছেন এমন কোন আলামত পাওয়া যায়নি। পাওয়া যায়নি কথিত অপহরণের সাথে নিরাপত্তাবাহিনীর সংশ্লিষ্টতার কোন প্রমাণ।

Kalpana Chakma 10

কল্পনা চাকমার অপহরণ ঘটনা নিয়ে একটি স্বতন্ত্র তদন্ত করেছিল তৎকালীন মানবাধিকার কমিশন। এ তদন্তের বিষয়ে ১৯৯৬ সালের ৮ আগস্ট রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে তদন্তের নানা তথ্য, উপাত্ত, ভিডিও প্রদর্শন করেন। সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের অবৈতনিক নির্বাহী পরিচালক ও জাতীয় সমন্বয়কারী এডভোকেট কে এম হক কায়সার বলেছেন, “পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তারই লোকজন দ্বারা কল্পনা চাকমা নিখোঁজ রয়েছে।  লে. ফেরদৌস অথবা অন্য কোনো সামরিক বাহিনীর সদস্যই যে, এই ঘটনার সাথে জড়িত নয় তা কল্পনা চাকমার মা, আত্মীয় স্বজন ও স্থানীয় জনগণের বক্তব্যে প্রকাশ পায়। তিনি আরো বলেন, কল্পনা চাকমা বর্তমানে ত্রিপুরা রাজ্যের গণ্ডাছড়া মহকুমার শুক্রে নামক স্থানে অবস্থান করছে। ….বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত প্রতিবেদন পাঠ করেন, সংগঠনের অবৈতনিক নির্বাহী পরিচালক ও জাতীয় সমন্বয়কারী এডভোকেট কে এম হক কায়সার। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এসোসিয়েট প্রফেসর ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ, সাইফুল ইসলাম দিলদার, মুনির উদ্দীন খান, সুপ্রীম কোর্টের এডভোকেট ইতরাত আমিন, মানবাধিকার গবেষণা সহকারী সাহেলা পারভীন লুনা। বিভিন্ন তথ্য প্রমাণসহ লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কল্পনা চাকমা শেষ কবে মার সাথে যোগাযাগ করেছে, এই প্রশ্নের জবাবে মা বাধনী চাকমা জানান, নিখোঁজ হওয়ার পর দুই বার যোগাযোগ করেছে, এবং সর্বশেষে যোগাযোগ হয়েছে ১ আগস্ট ’৯৬। এতে প্রমাণিত হয় যে, কল্পনা চাকমা বেঁচে আছেন এবং কোথায় আছেন তা তার মা বেশ ভাল ভাবেই জানেন।”(দৈনিক মিল্লাত ৯ আগস্ট, ১৯৯৬)।

এ প্রেস কনফারেন্সের পরদিন ৯ আগস্ট ১৯৯৬ সালে বিভিন্ন জাতীয় ও আঞ্চলিক দৈনিকে প্রকাশিত রিপোর্টের শিরোনাম দেখা যেতে পারে। ‘মায়ের স্বীকারোক্তি কল্পনা চাকমা এখন ত্রিপুরায়’- দৈনিক মিল্লাত, ‘কল্পনা চাকমা এখন ত্রিপুরায়: মা’র সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে তার’- দৈনিক দিনকাল, ‘কল্পনা চাকমা জীবিত এবং কোথায় আছেন তা তার মা ভালভাবেই জানেন’- দৈনিক ইনকিলাব, ‘কল্পনা চাকমা ত্রিপুরায় আছেন, অপহরণ সাজানো নাটকঃ মানবাধিকার কমিশনের তথ্য প্রকাশ’- দৈনিক পূর্বকোণ, ‘বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের ভাষ্য কল্পনা চাকমা ত্রিপুরায়’- দৈনিক ভোরের কাগজ, ‘কল্পনা চাকমা ভারতে আছেন’- দৈনিক সংগ্রাম, ‘সাংবাদিক সম্মেলনে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, কল্পনা চাকমা ভারতের ত্রিপুরায়।। অপহরণ ঘটনার সাথে সামরিক বাহিনী জড়িত নয়’- দৈনিক আজাদী, ‘অবশেষে রহস্য ফাঁস কল্পনা চাকমা ভারতে’- দৈনিক দেশজনতা, ‘মানবাধিকার কমিশনের রিপোর্ট প্রকাশ পরিকল্পিতভাবে কল্পনা চাকমাকে নিখোঁজ রাখা হয়েছে’- দৈনিক সবুজ দেশ, ‘সংবাদ সম্মেলনে মানবাধিকার কমিশন, কল্পনা চাকমা এখনো বেঁচে আছেন’- দৈনিক লাল সবুজ, ‘কল্পনা চাকমা ত্রিপুরার গঙ্গাছড়া এলাকায় রয়েছে।। মানবাধিকার কমিশন’- দৈনিক সকালের খবর, `Kalpana Chakma Traced, living in Tripura’- The New Nation.

কল্পনা চাকমাকে গঠিত একটি তদন্ত কমিটির সদস্য ভারতের অরুণাচলে অবস্থিত কল্পনা চাকমার সাথে যোগাযোগ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। তিনি কল্পনা চাকমাকে বাংলাদেশে ফিরে আসার আহ্বান জানিয়ে চিঠি লিখেছিলেন।  কল্পনা চাকমা ফিরতি চিঠিতে তাকে জানান, তিনিও দেশে ফিরতে আগ্রহী। কিন্তু তিনি দেশে ফিরলে তাকে পাহাড়ীদের পক্ষ থেকে হত্যা করা হতে পারে আশঙ্কা করেন।

প্রকৃতপক্ষে কল্পনা চাকমা পার্বত্য চট্টগ্রামের ইতিহাসে একটি মিস্টিরিয়াস ক্যারেক্টার। প্রকৃতপক্ষে তিনি অপহৃত হয়েছেন, পালিয়ে গিয়েছেন, ধর্ষিতা হয়েছিলেন, মারা গিয়েছেন নাকি বেঁচে আছেন এ নিয়ে রয়েছে রহস্যের বিশাল ধুম্রজাল। দেশের স্বার্থে, পার্বত্য চট্টগ্রামের শান্তি, সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি, জাতীয় মর্যাদার স্বার্থে এই রহস্যের উদঘাটন জরুরী। কল্পনা চাকমা অপহরণ মামলা ঝুলে থাকা জাতির জন্য কল্যাণকর হচ্ছে না। তাই দ্রুত গতিতে এই মামলার তদন্ত ও বিচারকাজ সমাপ্ত করে এই ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের চিহ্নিত করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান জরুরী।

রাঙামাটিতে কল্পনা চাকমা অপহরণের সুষ্ঠু বিচার ও দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী

পাহাড়ি নারী সংগঠনে বিভিন্ন কর্মসূচী পালিত

Kalpanaprogram,12June2014, kudukchari1

স্টাফ রিপোর্টার, রাঙামাটি: 

হিল উইমেন্স ফেডারেশনের নেত্রী কল্পনা চাকমা অপহরণের সুষ্ঠু বিচার ও দোষীদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি জানিয়ে রাঙামাটিতে মানববন্ধন, প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে, জেএসএস ও ইউপিডিএফ সমর্থীত কয়েকটি পাহাড়ি নারী সংগঠন।

বৃহষ্পতিবার সকালে কল্পনা চাকমা অপহরণের ১৮তম প্রতিবাদ দিবসে উপলক্ষে রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে পার্বত্য চট্টগ্রাম মহিলা সমিতির ও হিল উইমেন্স ফেডারেশনের যৌথ উদ্যোগে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এসময় মহিলা সমিতির সভাপতি জরিতা চাকমার সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জনসংহতি সমিতির কেন্দ্রীয় সহতথ্য ও প্রচার সম্পাদক সজীব চাকমা, বিশিষ্ট আইনজীবী অ্যাডভোকেট জুয়েল দেওয়ান, পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল চাকমাসহ অন্যরা।

সমাবেশে বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, অপহরণের ১৮ বছরেও কল্পনা চাকমার চিহ্নিত অপহরণকারী ও তার দোসরদের আইনের আওতায় আনা হয়নি। অপহরণ ঘটনার প্রায় ১৪ বছর পর ২০১০ সালের ২১ মে ঘটনার বিষয়ে পুলিশের চূড়ান্ত তদন্ত রিপোর্ট পেশ করা হয়, যাতে অভিযুক্ত ও প্রকৃত দোষীদের সম্পূর্ণভাবে এড়িয়ে যাওয়া হয়। ফলে বাদী কালিন্দী কুমার চাকমা ওই প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি আবেদন দাখিল করেন। বক্তারা অবিলম্বে অপহৃত হিল উইমেন্স ফেডারেশনের তৎকালিন সাংগঠনিক সম্পাদক কল্পনা চাকমার অপহরনের সুষ্ঠু তদন্ত ও এর সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তি মূলক ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবী জানান।

অন্যদিকে একই দাবীতে রাঙামাটি সদরের কুতুকছড়িতে প্রতিবাদ সমাবেশে ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) সমর্থনপুষ্ট হিল উইমেন্স ফেডারেশন। সকাল সাড়ে ১০টায় বড়মহাপুরম উচ্চবিদ্যালয় গেট এলাকা থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল শুরু হয়ে কুতুকছড়ি বাজার ঘুরে যাত্রী ছাউনীর সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, হিল উইমেন্স ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সভাপতি নিরূপা চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম নারী সংঘের কেন্দ্রীয় সদস্য কজলী ত্রিপুরা ও পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় অর্থ সম্পাদক বাবলু চাকমা। সমাবেশ পরিচালনা করেন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক রিনা চাকমা।

এছাড়া জেলার বাঘাইছড়ি সাজেকের গঙ্গারাম উজোবাজারে সাজেক ভুমিরক্ষা কমিটি ও সাজেক নারী সমাজের অফিসে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় সভাপতিত্ব করেন পিসিপি সাজেক বিশেষ থানা শাখার সভাপতি রিপনজ্যোতি চাকমা। বক্তব্য রাখেন, ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের সংগঠক ও সাজেক এলাকার সমন্বয়ক মিঠুন চাকমা, সাজেক ভুমিরক্ষা কমিটির সভাপতি জ্ঞানেন্দ বিকাশ চাকমা, উজোবাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি জ্যোতিলাল চাকমা, গণতান্ত্রিক যুবফোরাম সাজেক শাখার অর্থ সম্পাদক মিলন চাকমা প্রমুখ।
উল্লেখ্য, ১৯৯৬সালের ১২জুন বাঘাইছড়ি উপজেলার পশ্চিম লাইল্যাঘোনা নিজ বাসা থেকে অপহরণ করা হয় কল্পনা চাকমাকে।