আলীকদমে ইয়বাসহ আটক-২

নিজস্ব প্রতিনিধি:

বান্দরবানের আলীকদমে ১২৩পিস ইয়াবাসহ দুইজনকে আটক করেছে নিরাপত্তাবাহিনী।

শনিবার সন্ধ্যায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আলীকদম বাজার মার্মাপাড়াস্থ জনৈক বাবলী মার্মার বাড়ি থেকে ইয়াবা ও ইয়াবা সেবনের সরঞ্জামসহ তাদের আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলো- ক্যশিমংমার্মা ও হাবিব উল্লাহ হাসান জিসান। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে আরও দুই ব্যক্তি পালিয়েছে বলে স্বীকার করেছে।

জানা গেছে, ইয়াবা মজুদ রেখে ব্যবসা করা হচ্ছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে আলীকদম জোন উপ অধিনায়ক মেজর এএসএম ফখরুল ইসলাম চৌধুরীর নেতৃত্বে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা অভিযান চালায়।

এসময় ঘটনাস্থল থেকে ধৃত দুই ব্যক্তির কাছ থেকে ১২৩পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। পরে ধৃতদের আলীকদম পুলিশে সোপর্দ করা হয়। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন আলীকদম থানা অফিসার ইনচার্জ রফিকুল আলম।

খেলাধুলা উন্নত জাতি গঠনে সহায়ক: আলীকদম জোন কমান্ডার

নিজস্ব প্রতিনিধি:

আলীকদম জোন কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কর্নেল সাইফ শামীম পিএসসি বলেন, শুধু পড়া লেখায় নয়, ভাল মানুষ এবং সুনাগরিক হতে হলে খেলাধুলার বিকল্প নেই। খেলাধুলা উন্নত জাতি গঠনে সহায়ক এবং শরীর ও মনকে সতেজ রাখে।

শনিবার বান্দরবানের আলীকদম সেনা জোন পরিচালিত ‘আলীকদম কিন্ডার গার্ডেন’ স্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া, পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ উপলক্ষে সকাল থেকে আলীকদম বিজিবি ক্যাম্প এলাকায় দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠানের এই আয়োজন করা হয়।

স্কুল অধ্যক্ষ হোসনে আরার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মিসেস নাহিদ ফারজানা, মেডিকেল অফিসার ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ আসিকুর রহমান খান। এছাড়াও অনুষ্ঠানে অভিভাবক, শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আলীকদম-থানচি সড়কে পাথর বোঝাই ট্রাক দুর্ঘটনায় চালকসহ আহত ৩

নিজস্ব প্রতিনিধি:

বান্দরবানের আলীকদমে পাথর বোঝাই ট্রাক দুর্ঘটনায় চালকসহ ৩জন গুরুতর আহত হয়েছেন।

শনিবার বেলা ১২টার দিকে আলীকদম-থানচি সড়কের ৭মাইল এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় আহতরা হলেন- গাড়ি চালক কাজল দে (৩২), নুরুল কবির (২৭) ও আসাব উদ্দিন (২৮)। তারা সকলে আলীকদম উপজেলার নয়াপাড়া, উত্তর পালংপাড়া এলাকার বাসিন্দা।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে- আলীকদম-থানচি সড়কের ৭কি.মি এলাকায় জনৈক জামাল চেয়ারম্যানের পাহাড়ি পাথর নিয়ে মিনি ট্রাক (ডাম্পার) ফিরোজপুর-ড-১১-০১১৮ উপজেলা সদরের দিকে যাওয়ার পথে কাঁচা রাস্তা থেকে প্রায় তিনশ ফিট নিচে খাঁদে পড়ে গেলে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় গাড়ির সামনের পুরো অংশ দুমড়ে মুছড়ে যায়।

এসময় স্থানীয়রা আহতদের দ্রুত উদ্ধার করে আলীকদম হাসপাতালে প্রেরণ করে। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেছে চিকিৎসক।

এবিষয়ে আলীকদম থানা অফিসার ইনচার্জ রফিক উল্লাহ জানান- দুর্ঘটনায় আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনাসস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ।

আলীকদমে বন কর্মকর্তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে কাটা হচ্ছে মূল্যবান সেগুন গাছ

নিজস্ব প্রতিনিধি:

বান্দরবানের আলীকদম বন বিভাগের মাতামুহুরী সংরক্ষিত বনাঞ্চল থেকে অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সহযোগিতায় নির্বিচারে গাছ কাটছে বনদস্যুরা। এতে করে সরকার বড় অংকের রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে পাশাপাশি ধ্বংস হচ্ছে বনজ সম্পদ।

সম্প্রতি সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, আলীকদম উপজেলার মাতামুহুরী সংরক্ষিত বনাঞ্চলের বালু ঝিরি ও ঠান্ডা ঝিরি নামক স্থানে জনসম্মুখে কাঠ পাচাররকারীরা বড় সেগুন গাছ কেটে টুকরা টুকরা করে পাচার করার উদ্দেশ্যে স্তুপ করে রেখেছে। এসময় ওই স্থানে বন বিভাগের কোন টহল দল বা পাহাড়ায় নিয়োজিত কোন কর্মকর্তাকে চোখে পড়েনি।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে গাছ পাচারকারীরা গাছ কাটলেও বন বিভাগের কোন কর্মচারীকে টহল বা পাহারা দিতে দেখা যায়নি। ফলে কোটি টাকার গাছ কর্তন করে নিয়ে যাচ্ছে কাঠ পাচারকারীরা এবং সে গাছ স্থানীয় কাঠ ব্যাবসায়ী ও জোত মালিকদের নিকট বিক্রয় করছে।

কাগজে কলমে গাছ কাটা ও পাচার বন্ধ থাকলেও প্রকৃতপক্ষে গোপনে গাছ কর্তন করে পাচার করছে প্রতিনিয়ত। মাঝে মাঝে লোক দেখানো কিছু অভিযান পরিচালনা করে কিছু কাঠ জব্দ করে হতদরিদ্র মানুষের। চুরি কিংবা গাছ কর্তনের অপরাধে গুটিকয়েক মামলা দেওয়া হলেও মূল কাঠ পাচারকারী চক্রটি থেকে যায় ধরা ছোঁয়ার বাইরে। ফলে কাঠ পাচারকারী চক্রটি আরও আগ্রাসী হয়ে উঠছে।

সংরক্ষিত বনাঞ্চলের উপকারভোগী মোঃ আলমগীর বলেন, আমরা উপকারভোগীরা বনাঞ্চল থেকে গাছ কর্তনে বাধা দিলে, তারা সঙ্গবদ্ধ হয়ে মারধর করে এবং তাদের সঙ্গীয় মহিলা দিয়ে সম্মানহানি করার হুমকি দেয়। তাই সম্মান খোয়ানোর ভয়ে নীরব থাকি।

এ বিষয়ে আলীকদম মাতামুহুরী রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা জমির উদ্দিন মিয়া চৌধুরী বলেন, মাঝে মাঝে কিছু লোক চুরি করে গাছ কর্তন করে নিয়ে যায়। সেটা যেমন সত্য তেমনি চুরি করা গাছ অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় সেটিও যথাযথ সত্য।

তিনি আরও বলেন মাতামুহুরী সংরক্ষিত ১২ হাজার ৮ শ’ ৫২ একর বনাঞ্চল। কিন্তু আমাদের লোকবল মাত্র ৪ জন। তবুও আমরা দিনরাত বনাঞ্চল পাহারা দিয়ে যাচ্ছি।

লামা বনবিভাগের বন কর্মকর্তা মোঃ কামাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, কাঠ পাচারকারী চক্রের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। বনাঞ্চলটি দূর্গম এবং পাহাড়ী অঞ্চল হওয়ায় লোকবল স্বল্পতার কারণে কিছুটা সমস্যা হলেও আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। মাতামুহুরী বনাঞ্চল তদারকির জন্য আরও জনবল প্রয়োজন, উপর মহলে জনবল বাড়ানোর বিষয়টি বারংবার জানানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচন: আলীকদমে আওয়ামী লীগ সরব, বিএনপি নীরব

আলীকদম প্রতিনিধি:

আসন্ন ২০১৯ উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগে সম্ভাব্য প্রার্থীর দৌড়ঝাঁপ লক্ষ্য করা গেলেও বিএনপিসহ অন্য দলীয় প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছে নীরবতা।

চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগে ২২ জন প্রার্থীর নাম পাওয়া গেছে। ব্যক্তি জনপ্রিয়তার চেয়েও দলীয় প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে এসব প্রার্থীরা মরিয়া হয়ে উঠেছে। যে যার মতো তদবির চালাচ্ছেন দলীয় ফোরামে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ১৯৮২ সালে প্রশাসন বিকেন্দ্রীকরণের ফলে আলীকদম মানোন্নীত থানা হয়। ১৯৮৫ সালে দেশের প্রথম অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনে মাস্টার আবু জাফর চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৮৯ সালের নির্বাচনেও তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন।

২০০৮ ও ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন উপজেলা বিএনপি’র তৎকালীন সভাপতি মোহাম্মদ আবুল কালাম। একসময় এ উপজেলায় বিএনপির জনসমর্থন বেশি থাকলেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে দলীয় অন্তঃকোন্দলে জর্জরিত দলটি। অপরদিকে, আওয়ামী লীগ টানা সরকারের থাকার কারণে মূল দল ও অঙ্গ সংগঠনে নেতাকর্মীর সংখ্যা বেড়েছে।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের  পর আগামী মার্চের দিকে সারাদেশে উপজেলা নির্বাচনের ঘোষণা আসায় উপজেলা আওয়ামী লীগের নানাস্তরের নেতাকর্মীদের মাঝে শুরু হয়েছে প্রার্থী মনোনয়ন ও বাছাই নিয়ে নানা হিসেবে নিকেশ।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দুংড়ি মং মার্মা জানান, এ পর্যন্ত চেয়ারম্যান পদে ৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১১ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫ জন সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকা তারা পেয়েছেন।

চেয়ারম্যান পদে যাদের নাম পাওয়া গেছে তারা হলেন, বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মোজাম্মেল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মংব্রাচিং মার্মা, আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও ১নং আলীকদম ইউপি চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন, ৪নং কুরুপপাতা ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ক্রাতপুং ম্রো, আওয়ামী লীগের কার্যকরী সদস্য ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নাছির উদ্দিন, ও উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আনোয়ার জিহাদ।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন ফরম জমা দিয়েছেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি উইলিয়াম মার্মা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রাংক্লাং মুরুং, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও যুবলীগের সাবেক সভাপতি কফিল উদ্দিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কফিল উদ্দিন বিএসসি, কার্যকরী সদস্য রেংকই মুরুং, চৈক্ষ্যং ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি সজিব কামাল, সদর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক ফিলিপ ত্রিপুরা, উপজেলা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম মাহমুদ এনামুল, চৈক্ষ্যং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম ও চৈক্ষ্যং ইউনিয়ন কৃষকলীগের সভাপতি শামসুল আলম।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এনুচা মার্মা, সাধারণ সম্পাদক রোজিনা আক্তার, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক ব্যরী মার্মা, কার্যকরী সদস্য ইয়াছমিন আক্তার ও ৬নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রিনা ত্রিপুরা মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন বলে দলীয় সূত্র নিশ্চিত করেছে।

২০১৪ সালের চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির মোহাম্মদ আবুল কালাম জয়ী হয়েছিলেন। অল্পভোটের ব্যবধানে হেরে যান আওয়ামী লীগের প্রার্থী জামাল উদ্দিন। তবে এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে। বিএনপির দলীয় কোন্দলে নিজ দলের আস্থা হারিয়েছে মো. আবুল কালাম। বাদ পড়েছেন উপজেলা বিএনিপর সভাপতি থেকেও। জেলা বিএনপি’র বর্তমান কমিটিরও বিরাগভাজন তিনি। তাছাড়া বর্তমান উপজেলা বিএনপির কমিটি তার অনুকূলে নয়।

অন্যদিকে, আওয়ামী লীগে মনোনয়ন ভাগিয়ে নিতে প্রার্থীরা যে যার মতো লবিং চালালেও হাই কমান্ড যাকে মনোনয়ন দেন তার পক্ষেই নির্বাচন করতে নেতাকর্মীরা ঐক্যবদ্ধ কাজ করবে বলে জানা গেছে।

বর্তমান উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবুল কালামের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, তিনি এবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না। তবে বিএনপি নেত্রী ও বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শিরিনা আক্তার জানান, তিনি নির্বাচনে অংশ নিবেন।

বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা জেএসএস এর সভাপতি কাইনথপ ম্রো জানান, তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন।

আলীকদমে ডাকাতির সময় অস্ত্রসহ ৪ জন আটক

আলীকদম প্রতিনিধি:

বৃহস্পতিবার (২৪ জানুয়ারি) ভোর রাতে বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় একটি খামার বাড়িতে ডাকাতির সময় দেশীয় তৈরি ৪টি একনলা বন্দুক, ২টি বন্দুকের কাঠের বড়ি, কাতুর্জ ও বন্দুক তৈরির বিভিন্ন সরঞ্জামসহ ৪ ডাকাতকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়,  ১নং আলীকদম ইউনিয়নের বাঘের ঝিরি এলাকার আমিনুল ইসলামের খামার বাড়িতে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে তিনটার সময় ডাকাতিকালে গৃহকর্তা থানায় বিষয়টি মুঠোফোনে জানায়।

এর পরপরই থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিক উল্লাহ’র নেতৃত্বে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কানন চৌধুরী, এসআই মো. আজমগীর, এএসআই শামীম হোসেনসহ সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে থেকে দুইজনকে গ্রেফতার করে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার দুই ব্যক্তি আরও দুইজনের নাম বলে দেয় এবং অস্ত্র থাকার কথা স্বীকার করে। পরে পুলিশ পার্শ্ববর্তী চাকনায় পাড়ায় অভিযান চালিয়ে মোট ৪টি অস্ত্র ও সরঞ্জাম উদ্ধার করে।

আটককৃতরা হলেন- চেনতুই মুরুং (২২), চংঅং মুরুং (২৮), চেখইং মুরুং (৫৬) ও দেওয়াই মুরুং (১৮)।

অফিসার ইনচার্জ মো. রফিক উল্লাহ্ জানান, বাঘেরর ঝিরিস্থ একটি খামার বাড়িতে গ্রেফতারকৃতরা  ডাকাতির উদ্দেশ্যে গৃহকর্তাকে মারধরসহ টাকা ও মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে এক রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে।

খবর পেয়ে পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে আসামিদের গ্রেফতার করে অস্ত্র, কার্তুজ ও বন্দুক তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে। আটককৃতের বিরুদ্ধে মামলার রুজুর প্রক্রিয়া চলছে।

আলীকদমে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার

jjjbbf

স্টাফ রিপোর্টার:

বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করেছে সেনাবাহিনীর সদস্যরা। মঙ্গলবার রাত ১টার দিকে গোপন সংবাদের দিকে আলীকদম– থানছি সড়কের ছয় কিলোমিটার এলাকায় অভিযান চালিয়ে দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ সময় কাউকে আটক করতে পারেনি সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

 

সূত্র জানায়, ওই সড়কে আগ্নেয়াস্ত্র রয়েছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে সেনাবাহিনীর একটি দল রাতে আলীকদম-থানছি সড়কের ছয় কিলোমিটার এলাকায় অভিযান চালায়। এসময় সড়ক থেকে পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি এলজি উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারকৃত এলজি অস্ত্রটি বুধবার সকালে সেনা সদস্যরা আলীকদম থানা পুলিশের হাতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

আলীকদম জোনের ক্যাপ্টেন সাইদুর রহমান বলেন, উদ্ধারকৃত অস্ত্রটি বুধবার সকালে আলীকদম থানায় জমা দেওয়া হয়েছে। আলীকদম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হোসাইন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আলীকদমে শিশু অপহরণের পর মুক্তিপণ দাবী

অপহরণ

আলীকদম প্রতিনিধি:
বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় সাহাব উদ্দিন নামে ১১ বছরের এক শিশু অপহরণের শিকার হয়েছে। সে উপজেলার দক্ষিণ পূর্বপালং পাড়ার ফজল কবিরের ছেলে।

পারিবারিক ও স্থানীয় সুত্রগুলো জানিয়েছে, গত বুধবার রাতে দক্ষিণ পূর্বপালং পাড়ার নিজ বাড়ি থেকে অনুমানিক ১০০ গজের দূরে গরু আনতে যায় শিশুটি। এসময় কে বা কারা তাকে অপহরণ করে অজ্ঞাতস্থানে নিয়ে যায়। পরে প্রতিবেশিদের সাথে নিয়ে পরিবারের লোকজন শিশুটিকে সম্ভাব্য বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তার সন্ধান পায়নি।

গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর রাতে শিশুটির বাবার মুঠোফোনে অজ্ঞাত একটি নম্বর থেকে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপণে চাঁদা দাবী করা হয়। তখনই শিশুটির পরিবার অপহরণের বিষয়টি নিশ্চিত হয়।
আলীকদম থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হোছাইন বলেন, এ ঘটনার বিষয়ে কেউ থানায় অভিযোগ করেনি।

আলীকদমে স্কুলছাত্রী ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা : বিচারের বাণী নিভৃতে কাঁদছে

16

আলীকদম (বান্দরবান) প্রতিনিধি:
বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় ৫ম শ্রেণীর এক ছাত্রী প্রায় পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে বিচারের আশায় দ্বারে দ্বারে ঘুরছে। পিতৃহীনা এ স্কুল ছাত্রী ও তার মা এ ঘটনাটি সমাজের সর্দারসহ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সমাজের গণ্যমান্যদের জানিয়েছেন। কিন্তু এ পর্যন্ত কেউ সহযোগিতার হাত বাড়াননি। শেষ মেষ গতকাল সোমবার ওই ছাত্রীর মা বান্দরবান জেলা জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটির সহায়তায় আলীকদম থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোঃ হোসাইন জানিয়েছেন তদন্ত করে তিনি মামলাটি রেকর্ডভূক্ত করবেন।

থানায় প্রদত্ত এজাহারে উপজেলার চৈক্ষ্যং ইউনিয়নের নয়াপাড়া বশির সর্দার পাড়ার মৃত আহামদ হোসেনের স্ত্রী ছিরলোক বেগম (৪০) বলেন, স্বামীর মুত্যৃর পর তিনি মেয়েকে নিয়ে স্থানীয় মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে শামশুল আলম (৩৫) এর বাড়িতে সাত বছর ধরে আশ্রিতা ছিলেন। তার মেয়েটি নয়াপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী।

অভিযোগে বলা হয়, বাড়ির কর্তা লম্পট শামশুল আলম তের বছর বয়সী ওই ছাত্রীকে নানা প্রলোভন দিয়ে কৌশলে ২০১৩ সালের ডিসেম্বরের ৮ তারিখ থেকে পরপর চারবার ধর্ষণ করে। মেয়েটি বর্তমানে সাড়ে চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা।

এ ঘটনার বিষয়ে ওই ছাত্রীর মা উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান, ইউপি চেয়ারম্যান, মহিলা মেম্বার, ইউপি মেম্বার ও সমাজের সর্দারসহ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিদের দ্বারস্থ হন। কিন্তু এ পর্যন্ত কেউই কোন সুরাহা দেননি বলে অভিযোগ করেন স্কুল ছাত্রীর মা। তিনি বলেন, বিষয়টি প্রকাশ হয়ে পড়ার পর লম্পট শামশুল আলম তাকেসহ তার মেয়েকে ঘর থেকে দুইমাস পূর্বে বের করে দিয়েছেন।

এ ঘটনাটি সমাজের সর্দারসহ গণ্যমান্যদের জানিয়েছেন মা ও মেয়ে। অভিহিত হয়েছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে উপজেলার শীর্ষ জনপ্রতিনিধিরাও। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে পিতৃহীনা এ স্কুলছাত্রী ও তার বিধবা মায়ের আর্তিতে কেউ সাড়া দেয়নি।
স্কুল ছাত্রীর মা ছিরলোক বেগম বলেন, “ইউপি চেয়ারম্যান জয়নালের কাছে আমি সহযোগিতা চাই। চেয়ারম্যান বলেন, আমার উপরে একজন আছেন। তিনি হলেন উপজেলা চেয়ারম্যান। তুমি তার কাছে যাও। পরে আমি উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালামের অফিসে গেলে তিনি আমাকে দেখমাত্র বলেন, এখানে কেন, তোমরা চলে যাও”। তার এ বক্তব্যের বিষয়ে উপজেলা চেয়ারম্যানের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

বান্দরবান জেলা জাতীয় মানবাধিকার ইউনিটির সিঃ সহ-সভাপতি কামরুল হাসান টিপু জানান, ঘটনাটি তারা জানতে পেরে স্কুল ছাত্রীটিকে আইনী সহায়তা দিতে তৎপর হয়েছেন। মানবাধিকার ইউনিটির সহযোগিতায় সোমবার ভিকটিমের মা অভিযোগ দায়ের করেছেন। এ বিষয়ে জানতে চাইলে চৈক্ষ্যং ইউপি সদস্যা ইয়াছমিন আক্তার বলেন, সপ্তাহ দুয়েক পূর্বে বিষয়টি তিনি শুনেছেন। ভিকটিমের মা তার কাছে মৌখিক বললেও লিখিত অভিযোগ করেননি!

চৈক্ষ্যং ইউপি চেয়ারম্যান মো. জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘ওই ছাত্রীকে আইনগত সহযোগিতা দেওয়ার জন্য ৪/৫দিন পূর্বে আমাকে ইউএনও কর্তৃক নির্দেশ দিয়েছিলেন। তবে ছাত্রীটি অন্তঃসত্ত্বা কিনা আমি নিশ্চিত নই। স্কুলছাত্রীর মা আমার কাছে লিখিত অভিযোগ না করায় এ পর্যন্ত সহযোগিতা করতে পারিনি’।

আনন্দ স্কুলের শিক্ষিকা ধর্ষিত

imagesবকত

আলীকদম প্রতিনিধি:
বান্দরবানের আলীকদম উপজেলায় সদ্য নিয়োগ পাওয়া আনন্দ স্কুলের এক শিক্ষিকা (১৮) ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ অভিযোগে গতকাল বৃহস্পতিবার এক লম্পটের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।

থানায় প্রদত্ত এজাহারে জানা গেছে, গত ৮ এপ্রিল সন্ধ্যায় আনন্দ স্কুলের চাকুরীর আবেদনপত্রের কাগজপত্র শিক্ষা অফিসে জমা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে ধর্ষণের শিকার হন ওই স্কুল শিক্ষিকা। ধর্ষক উপজেলার দক্ষিণ পূর্ব পালং পাড়ার মো. হামিদ হোসেনের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম প্রকাশ বুজুরুক মিয়া (২৩)।

এ ঘটনায় ২০০০ সালের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন (সংশোধনী) ২০০৩ এর ৯(১) মূলে আলীকদম থানায় মামলা নং- ৪ তারিখ- ১০/০৪/২০১৪ রুজু হয়েছে।