পার্বত্য এলাকায় অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে বিশেষ অভিযান পরিচালনার পরামর্শ সংসদীয় কমিটির

10393594_783185798379591_277003112317858855_n

পার্বত্যনিউজ রিপোর্ট :

পার্বত্য চট্টগ্রামে সাম্প্রতিক সংগঠিত সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, খুন ও অপহরণ এবং চাঁদাবাজির ঘটনা বন্ধে সেখানে উপজাতীয় সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোর কাছে থাকা অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে বিশেষ অভিযান চালানোর পরামর্শ দিয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।

সাম্প্রতিক সময়ে সীমান্ত এলাকায় অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধারের প্রেক্ষিতে এই সুপারিশ করা হয়। একই সঙ্গে ব্যাপক কর্মসৃজনের মাধ্যমে অর্থনৈতিক কর্মকান্ড জোরদার করার ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি পার্বত্য অঞ্চলে সকল সরকারি অফিসে শূন্য পদগুলো অবিলম্বে পূরণের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে অনুষ্ঠিত কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়।

কমিটির সভাপতি উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। কমিটির সদস্য ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উ শৈ সিং, মোহাম্মদ সুবিদ আলী ভূঁইয়া, এম আবদুল লতিফ, উষাতন তালুকদার এবং ফিরোজা বেগম চিনু বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

পার্বত্যাঞ্চলের সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, অপহরণ ও বিদ্যমান উপজাতীয় গোষ্ঠীগুলোর কথা উল্লেখ করে বৈঠকে বলা হয়েছে, সেখানে অবৈধ অস্ত্র রয়েছে। সেগুলো উদ্ধার করা জরুরী হয়ে পড়েছে। প্রয়োজনে পার্বত্যাঞ্চলে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা যেতে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তবে এর মাধ্যমে যেন কোন নিরীহ মানুষ হয়রানির শিকার না হয় তাও খেয়াল রাখতে হবে।

বৈঠক শেষে কমিটির সদস্য এম. আবদুল লতিফ বিজিবির সদর দফতর স্থাপনকে কেন্দ্র করে যে ঘটনা ঘটেছে তা দু:খজনক উল্লেখ করে সাংবাদিকদের বলেন, খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় ৫১, বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়র-বিজিবি‘র ব্যাটালিয়ন সদর দফতর স্থাপনে উচ্ছেদ হওয়া পাহাড়ি পরিবারগুলোকে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে অন্যত্র পুনর্বাসন এবং ভবিষ্যতে কোনো স্থাপনা তৈরির আগে পার্বত্য জেলা পরিষদের সঙ্গে আলোচনার পরামর্শ দিয়েছে সংসদীয় কমিটি। সংসদীয় কমিটি ভবিষ্যতে এ জাতীয় ঘটনা রোধে মন্ত্রণালয়কে আরও সজাগ থাকার পরামর্শ দিয়েছে। পাহাড়ী-বাঙ্গালী সমস্যা মোকাবেলায় জনপ্রতিনিধিদেরও সম্পৃক্ত করারও পরামর্শ দিয়েছে সংসদীয় কমিটি ।

বৈঠক সম্পর্কে সংসদ সচিবালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, কমিটি পার্বত্য জেলাসমূহের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের সমতলে বদলির পূর্বে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে বদলির পরামর্শ দেওয়া হয়। তাছাড়া বদলিকৃত ব্যক্তির স্থলে অন্য কাউকে নিয়োগ না দেওয়া পর্যন্ত বদলিকৃত ব্যক্তিকে অবমুক্ত না করারও পরামর্শ প্রদান করা হয় বৈঠকে।

পার্বত্যাঞ্চলের মানুষের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতকরণে পার্বত্য এলাকায় শূন্য পদগুলো পূরণে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে কমিটির পক্ষ থেকে। পার্বত্য এলাকার স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে চিকিৎসকদের শূন্যপদ পূরণের জন্য স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্য থেকে এমবিবিএস পাসকৃতদের বিসিএস অথবা এডহক ভিত্তিতে নিয়োগের বিষয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে পত্র পাঠানো হয়েছে বলে বৈঠকে জানানো হয়।