জীবনে বড় কিছু অর্জন করতে হলে মেধাকে কাজে লাগাতে হবে 

IMG_20170428_165302 copy

লংগদু প্রতিনিধি:

রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলার ১নং আটারকছড়া ইউনিয়নের কৃতি সন্তান ও করল্যাছড়ি আরএস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র মো. আল-আমিন ৩৫তম বিসিএস পরীক্ষায় সফলভাবে উত্তীর্ণ হওয়ায় তাকে কৃতি সংবর্ধনা দিয়েছে এলাকাবাসী ও ছাত্রসমাজ।

শুক্রবার বিকালে উপজেলার আটারকছড়া ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে আনুষ্ঠানিকভাবে মো. আল-আমিনকে এ সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সংবর্ধনা দান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, লংগদু জোনের জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল আ. আলীম চৌধুরী পিএসসি।

তিনি বক্তব্যে বলেন, জীবনে বড় কিছু অর্জন করতে হলে মেধাকে কাজে লাগাতে হবে। গরীব আর হত দরিদ্র এ চিন্তা নিয়ে বসে থাকলে হবেনা। তার জন্য প্রয়োজন অদম্য ইচ্ছা শক্তি। একমাত্র ইচ্ছা শক্তিই পারে মেধা চর্চার মধ্যদিয়ে নিজের যোগ্যতাকে তুলে ধরতে। যার অনন্য উদাহরণ হচ্ছে লংগদু উপজেলার কৃতি সন্তান আল-আমিন।

তিনি আরও বলেন, আল-আমিন শত অভাব-অনটন আর প্রতিকুল পরিবেশের সাথে লড়াই করে ৩৫তম বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে সফলতার সাথে উত্তীর্ণ হয়ে এখন সরকারি চাকুরী করছে। তার এ সফলতা এ অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের জন্য একটি অনন্য উদাহরণ।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে আটারকছড়া ইউপি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, বান্দরবান সরকারি কলেজের শিক্ষক ও সংবর্ধিত মো. আল-আমিন, রাবেতা মডেল কলেজের অধ্যক্ষ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ। এসময় লংগদু জোনের সেনা অফিসার লে. মো. সাদেক উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান পরিচালনা ও স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উত্তর ইয়ারিংছড়ি সেনামৈত্রী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মালেক। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, করল্যাছড়ি আরএস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুর রহীম, মাইনীমুখ মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক রোফিকুন্নেছা রোজি, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার মো. খোরশেদ আলম, শিক্ষক সুলতান আহম্মদ, অভিভাবক গোলাম হোসেন কুঠি, ছাত্র নেতা মো. আলমগীর হোসেন।

সংবর্ধিত মো. আল-আমিন বলেন, অর্থনৈতিক সমস্যার কারণে একসময় লেখাপড়াই ছেড়ে দিতে ছেয়েছিলাম। কিন্তু মনের ইচ্ছা শক্তিকে কাজে লাগিয়ে সফলতা অর্জন করেছি। এলাকাবাসীরা আমাকে যে সংবর্ধনা দিচ্ছেন তাতে নিজেকে গর্বিত মনে হচ্ছে।




লংগদুতে সেনা জোনের সৌজন্যে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ

IMG_20170416_120154----------111111111111 copy

লংগদু প্রতিনিধি:

রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলায় সেনা জোন(জুনিয়র টাইগার্স)’র সৌজন্যে কালাপাকুজ্যা সেনামৈত্রী কিন্ডার গার্টেন স্কুলের ছাত্র ছাত্রীদের জন্য শিক্ষা সহায়ক উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে।

রোববার উপজেলার কালাপাকুজ্যা সেনামৈত্রী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে আয়োজিত শিক্ষা উপকরণ বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, কালাপাকুজ্যা সেনামৈত্রী কিন্ডার গার্টেন স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. জামাল হোসেন।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, লংগদু সেনা জোনের উপ-অধিনায়ক মেজর মো. রফিকুল ইসলাম পিএসসি। বক্তব্যে তিনি বলেন, লংগদুর প্রত্যন্ত দূর্গম এলাকাগুলোতে শিক্ষার মান উন্নয়নে নিরাপত্তাবাহিনী কাজ করে যাচ্ছে। সেনা জোনের উদ্যোগে দু’টি উচ্চ বিদ্যালয়, তিনটি কিন্ডার গার্টেন স্কুল প্রতিষ্ঠাসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন অনুদান ও শিক্ষা উপকরণ দিয়ে আসছে।

এছাড়া মেধাবী ছাত্র ছাত্রীদের শিক্ষা উপবৃত্তি, শিক্ষিত বেকার যুবকদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। যার ফলে এলাকায় পাহাড়ি বাঙালি নির্বিশেষে সকল জনগোষ্ঠীর মাঝে শিক্ষার পরিবেশ সৃষ্টি হচ্ছে। বাড়ছে শিক্ষার হার।

স্বাগত বক্তব্য রাখেন, কালাপাকুজ্জা সেনামৈত্রী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুর রহীম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সাবকে ওয়ার্ড মেম্বার মো. হাবিবুর রহমান, কালাপাকুজ্জা গুচ্ছগ্রাম সভাপতি মো. রজব আলী, গ্রামার স্কুল, মাইনীমুখের পরিচালক মো. ওছমান গণি লিটু।

তিনি অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা যদি সন্তানের ভালো কিছু আশা করেন, তাহলে সেই অনুযায়ী পরিকল্পনা করবেন। তাহলে ভালো কিছু হবে। পারিবারিক শিক্ষাই হচ্ছে আসল শিক্ষা।

তিনি আরও বলেন, এ স্কুলের ছাত্ররাই যেন একদিন দেশ পরিচালনার কাজে লাগে। সেই দিন আমাদের এ ক্ষুদ্র প্রয়াস সার্থক হবে। তিনি স্কুলের উত্তোরোত্তর সাফল্য কামনা করেন।

পরে প্রধান অতিথি কিন্ডার গার্টেন ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ স্কুল ব্যাগ, খাতা, কলম বিতরণ করেন।

অপরদিকে, পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে লংগদু সেনা জোনের সৌজন্যে উপজেলার দক্ষিণ রেংকাইজ্জা উচ্চ বিদ্যালয়ে পাহাড়ীদের বিজু উৎসবে বিভিন্ন খেলাধুলার পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

লংগদু জোনের অধিনায়কের পক্ষে জোনের প্রতিনিধি সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার বিশ্ব নাথ দাশ প্রধান অতিথি হিসেবে এ পুরষ্কার বিতরণ করেন। এ সময় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাবুজন মিত্র চাকমা, ওয়ার্ডের মহিলা মেম্বার স্মরনিকা চাকমা উপস্থিত ছিলেন।




লংগদুতে গুণীজন সম্মাননা

IMG_20170414_162613

লংগদু প্রতিনিধি :
রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলায় ‘বন্ধুপ্রিয় ক্রীড়া ও সমাজ কল্যাণ সংগঠন’ এর পঞ্চম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, এলাকার গুণীজনদের সম্মাননা প্রদান ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শুক্রবার, উপজেলার মাইনীমুখ মডেল হাই স্কুল মাঠে সকাল নয়টায় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শেষে বিদ্যালয়ের মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, ‘বন্ধুপ্রিয় ক্রীড়া ও সমাজ কল্যাণ সংগঠনের আহবায়ক মো. ইকবাল হোসেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, লংগদু জোনের উপ-অধিনায়ক মেজর মো. রফিকুল ইসলাম।

সংগঠনের সেক্রেটারী মো. আবুল কাশেম এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মো. জানে আলম।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন মাইনীমুখ ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল বারেক সরকার, লংগদু প্রেস ক্লাবের সভাপতি মো. এখলাস মিঞা খান।

পরে প্রধান অতিথি এলাকায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য আটজন গুণী ব্যাক্তিকে সম্মাননা স্বরূপ ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এরা হলেন, উপজেলার একজন শিক্ষানুরাগী ও শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য লংগদু জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল আব্দুল আলীম চৌধুরী (পক্ষে গ্রহণ করেন মেজর মো. রফিকুল ইসলাম), সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য মো. এখলাস মিঞা খান, রাজনীতিতে সফলতার জন্য মো. জানে আলম, সফল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হিসেবে আব্দুল বারেক সরকার, গাঁথাছড়া বায়তুশ শরফের বিশেষ অবদানের জন্য হাফেজ মাও. ফোরকান আহম্মদ (পক্ষে গ্রহণ করেন মো. ইলিয়াছ), শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদানের জন্য প্রভাষক মো. হারুনুর রশীদ ও মো. শাহ আলম, মাদ্রাসার শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদানের জন্য মাওলানা সাদুর রশীদ।

আলোচনা সভা শেষে প্রধান অতিথি ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে পুরস্কার তিরণ করেন।




লংগদুতে তিন গ্রামের মানুষের পারাপারের একমাত্র মাধ্যম বাঁশের সাঁকো

IMG_20161218_104447 copy

নিজস্ব প্রতিনিধি:

একটি ব্রিজের জন্য তিনটি গ্রামের মানুষকে ৩/৪ কিলোমিটার পথ ঘুরে বাজারে আসতে হয়। অনেক দিন আগে থেকে রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলার করল্যাছরি বাজারের উত্তর পাশে একটি ব্রিজ হবে তা শুনে আসছে এলাকার লোকজন। দীর্ঘ দিন পার হলেও দেখা মিলেনি করল্যাছরি বাজারের ব্রিজটি।

যার ফলে ওই সব গ্রামে উৎপাদিত পণ্যাদি বাজারজাত করতে স্থানীয়দের অনেক কষ্ট করতে হয়। ১নং আটারকছড়া ইউপি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমা বলেন, অনেক জায়গায় এ ব্রিজটির জন্য আবেদন করেছি কিন্তু কোন সাড়া পাচ্ছি না।

তিনি বলেন, ডানে আটারকছড়া, করল্যাছরি ও আনসার ক্যাম্প এলাকার জনগণের জন্য এ ব্রিজটি খুবই প্রয়োজন। তা ছাড়াও ওই গ্রামগুলোর ছেলে-মেয়েরা বিদ্যালয়ে যাতায়াত করতেও অনেক কষ্ট হয়। অনেক দূরের পথ ঘুরে তাদেরকে বিদ্যালয়ে আসতে হয়।

এলাকার ইউপি সদস্য আব্দুর রহমান জানান, এ ব্রিজটির জন্য জেলা পরিষদ, উন্নয়ন বোর্ড, এলজিইডিসহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছি এ পর্যন্ত কারও নজর পরেনি, কারও দয়া হয়নি। এ ব্রিজটি নির্মাণ করা হলে এলাকায় উৎপাদিত লক্ষ লক্ষ টাকার কাঁচামাল, ধান, কৃষিপন্য, বাজার জাত করা সহজ হতাে।

আব্দুর রহমান মেম্বার আরও বলেন, যে চরার উপর আমরা ব্রিজ নির্মাণের আবেদন করছি সে চরায় সারা বছর পানি থাকে। বাঁশের সাকো দিয়ে বিদ্যালয়ের বড় ছেলে মেয়েরা পার হতে পারলেও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনেক ছেলে মেয়ে বিদ্যালয়ে যেতে পারে না। ফলে এ এলাকার ছেলে মেয়েরা শিক্ষায় পিছিয়ে পড়ছে। সম্প্রতি করল্যাছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণীর একজন ছাত্রী ওই সাঁকো থেকে পানিতে পড়ে যায়। সৌভাগ্যক্রমে হাই স্কুলের একজন শিক্ষার্থী তাকে সাথে সাথে তুলে নেয়। যার কারণে সে বেঁচে যায়।

এলাকার লোকজন ক্ষোভের সাথে বলেন, অনেক জায়গায় ব্রিজ কালভাট নির্মাণ করা হয়েছে যা কোন কাজে লাগে না অথচ, এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান এখানে কোন ব্রিজ হয় না। তারা আরও বলেন, মাত্র ১০০ ফুট লম্বা একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হলে তাদের দুঃখ দূর হয়ে যেত ।

তাই, এলাকার লোকজন তাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের শিক্ষা, ব্যবসা বাণিজ্য ও এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে এ ব্রিজটি নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।




এলাকার উন্নয়নে যারা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করতে হবে- মানজারুল মান্নান

IMG_20170411_113023
নিজস্ব প্রতিনিধি :
লংগদু উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে “জনসেবার জন্য প্রশাসন” জনসাধারণ, জনপ্রতিনিধি, এবং বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার অংশ গ্রহণে মঙ্গলবার লংগদুতে অনুষ্ঠিত হয় গনশুনানী। লংগদু উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই শুনানীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসক মো. মাঞ্জারুল মান্নান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন লংগদু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেন, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোমিনুল ইসলাম, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ।

সভায় উপজেলা কৃষি করমকরতা,সমাজসেবা কর্মকর্তা জয়েস চাকমা, গুলশাখালী ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবু নাছির, আতারকছরা ইউপি চেয়ারম্যান মঙ্গল কান্তি চাকমা ,লংগদু ইউপি চেয়ারম্যান ও হেডম্যান কুলিন মিত্র আদু, কালাপাকুজ্জা ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা মিয়া, বগাচতর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রসিদ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নুর জাহান বেগম, মো. ফোরকান আহম্মদ, রবি রঞ্জন চাকমা, নুরুল করীম ও কল্যাছড়ি এর এস উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহিম প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক বলেন, এলাকার সাবিক উন্নয়নে সকলকে  মিলে মিশে থাকতে হবে। আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সজাগ থাকতে হবে। সন্ত্রাসী ও জঙ্গীদের প্রত্যাখ্যান করতে হবে। তিনি শিক্ষার উন্নয়নে অগ্রনী ভুমিকা পালনের জন্য জনপ্রতিনিধিদের প্রতি বিশেষ অনুরোধ জানান। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ প্রদানের জন্যও তিনি জন প্রতিনিধিদের আহ্বান জানান।

সরকারী কর্মকর্তাদেরকে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করে জনগণের কাংখিত সেবা প্রদানের জন্য তিনি সরকারী কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান।আ ছাড়াও তিনি সরকারের গৃহীত রুপকল্প বাস্তবায়ন করে আমাদের দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত করতে সকলকে সহজোগীতা করার আহ্বান জানান।




মাইনীমুখ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির নির্বাচিত কমিটির শপথ পাঠ

IMG_20170406_193137 copy

লংগদু প্রতিনিধি:

লংগদু উপজেলার বৃহত্তর ব্যবসায়ী সংগঠন মাইনীমুখ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির নব নির্বাচিত কার্যকারী কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ অন্যান্য সম্পাদকসহ সকল সদস্যদের শপথ গ্রহণ  অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহষ্পতিবার, রাত সাড়ে সাতটায় মাইনীমুখ বাজারস্থ মাইনীমুখ ইউপি কার্যালয়ে এ শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শপথ অনুষ্ঠানে মাইনীমুখ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির আহ্বায়ক শাহাদাৎ হোসেন শিপুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে নব নির্বাচিত কমিটিকে শপথ বাক্য পাঠ করান মাইনীমুখ ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল বারেক সরকার।

বিশেষ অতিথি হিসেবে লংগদু প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. এখলাস মিঞা খানসহ আরও গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব উছমান গণি লিটুর পরিচালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাইনীমুখ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার বলেন, এ সমিতিটি মাইনীমুখ বাজারের ব্যবসায়ীদের একটি বৃহত্তর সংগঠন। এটি কোন দলীয় কমিটি নয়। ব্যবসায়ী সমাজের উন্নয়নে কমিটির সকলকে নিরলসভাবে কাজ করতে হবে। সবকিছু আমাদের কাছে পাঠাবেন না। নিজেরাও কিছু কিছু সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করবেন। তিনি ব্যবসায়ীদের উত্তরোত্তর কামনা করে বলেন, আমার পরিষদের পক্ষ থেকে সবধরনের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

অনুষ্ঠানের সভাপতির বক্তব্যে আহ্বায়ক শাহাদাৎ হোসেন শিপু বলেন, তিন মাসের জন্য আহ্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে সুষ্ঠভাবে নির্বাচন সম্পন্ন করেছি। এটা কেবল সমিতির সদস্যদের আন্তরিক সহযোগিতার কারণে হয়েছে। তার সকলকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। সেই সাথে নব নির্বাচিত কমিটিকেও শুভেচ্ছ ও অভিনন্দন জানাচ্ছি যাতে সমিতির উন্নয়নে কাজ করে যেতে পারেন তারা।

সমিতির নব নির্বাচিত সভাপতি মো. কামাল পাশা, সহ-সভাপতি আব্দুর রশীদ, মো. রুস্তম সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক মীর সিরাজুল ইসলাম ঝান্টু চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক উছমান গণি লিটু, রাশেদ খান রাজু, সাংগঠনিক ও প্রচার ছোটন কুমার দাশ, কোষাদক্ষ ওমর ফারুক মেম্বার, দপ্তর সম্পাদক ওমর ফারক মুছা।

উল্লেখ্য, গত ১৯ মার্চ এ সমিতির কার্যকারী কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।




লংগদুতে মাটির দেয়াল ধ্বসে স্ত্রী নিহত, স্বামী গুরুতর আহত

লংগদু প্রতিনিধি:

রাঙ্গামাটির লংগদুতে পরিত্যক্ত গুদাম ঘরের মাটির দেয়াল ধ্বসে একজন নিহত ও একজন গুরুতর আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহতকে জরুরি ভিত্তিতে খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। নিহতের নাম জুলেখা বেগম(৫০) ও আহত তার স্বামী জয়নাল আবেদীন(৫৫)।

শুক্রবার, বেলা সাড়ে এগারটায় উপজেলার কালাপাকুজ্যা ইউনিয়নের ছালামপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে।

এলাকাবাসী সূত্রে  জানাযায়, উপজেলার ছালামপুর এলাকায় জয়নাল আবেদীন ও তার স্ত্রী জুলেখা বেগম দুজনে মিলে পরিশ্রম করে নিজ ভিটায় নতুন একটি ঘর তৈরি করে। একারণে পুরতান মাটির গুদাম ঘরটি আস্তে আস্তে ভেঙ্গে ফেলছে তারা।

সর্বশেষ শুক্রবার সাড়ে এগারটার সময় ঘরের বড় মাটির দেয়ালটি যাতে ভেঙ্গে পড়ে তার জন্য দেয়ালের গুড়ালির মাটি কেটে দিচ্ছিলেন। এসময় হঠাৎ মাটির দেয়ালটি বিপরীত দিকে ভেঙ্গে পড়লে স্বামী ও স্ত্রী দুইজনেই মাটি চাপা পড়ে। এলাকাবাসী ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা মাটি কেটে তাদের উদ্ধার করলেও স্ত্রী জুলেখা বেগম ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারায়। এঅবস্থায় দুইজনকে স্থানীয় রাবেতা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক জুলেখাকে মৃত ঘোষণা করেন।

অপরদিকে গুরুতর আহত জয়নাল আবদীনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তার পা থেকে ঘাড় পর্যন্ত একপাশ অবস হয়ে আছে এবং তার অবস্থাও আশঙ্কাজনক বলেও সূত্রে জানা গেছে।

কালাপাকুজ্যা ইউপি চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা মিয়া ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তিনি জানান, দেয়াল ভাঙ্গার সময় অসতর্কতার কারণে এ দুর্ঘটনাটি ঘটেছে।

লংগদু থানার ওসির দায়িত্বে থাকা এসআই মোসাদ্দেক আলী জানান, আমি এলাকাবাসীর কাছে দেয়াল ধ্বসে একজন নিহত ও একজন আহত হওয়ার ঘটনা শুনেছি। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে এব্যাপারে তদন্তের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়না তদন্ত ছাড়াই লাশ দাফন করার জন্য পরিবারের কাছে দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হবে।




লংগদুতে দুটি কেন্দ্রে এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষা চলছে

লংগদু প্রতিনিধি:

রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলার একমাত্র উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রাবেতা মডেল কলেজ ও আলিম পর্যায়ে এক মাত্র দ্বীনই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান মাইনীমুখ ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষার জন্য লংগদু সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়কে ভেন্যু নির্ধারণ করে দুই পার্শ্বে দুটি কেন্দ্র করা হয়েছে। নকল মুক্ত ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে এইচএসসি ও আলিম পরীক্ষা চলছে।

পরীক্ষার প্রথম দিনে বাংলা ১ম পত্রের পরীক্ষায় রাবেতা মডেল কলেজ থেকে সর্বমোট ২শত ৩৬জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে অংশ নিয়েছে ২শত ৩৫জন। একজন ছাত্রী অনুপস্থিত রয়েছে।

মাইনীমুখ ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার ৩৩জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৩২জন পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। আলিম পরীক্ষায়ও এক জন ছাত্রী অনুপস্থিত আছে।

লংগদু উপজেলায় ২০১৬ ও ২০১৭ এ দুই বছর ধরে আলিম পরীক্ষা কেন্দ্রে আলিম পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। পূর্বে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়াস্থ আলমশাহ পাড়া আলিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে পরীক্ষা দিতে হত। লংগদু উপজেলায় আলিম পরীক্ষা কেন্দ্র হওয়ায় ছাত্র ছাত্রীদের জন্য যথেষ্ট সুবিধা হয়েছে। এ জন্য অভিভাবক মহল খুবই খুশি। সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিকট অভিভাবক মহল কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।




কাচালং নদী থেকে চোরাই কাঠ জব্দ করেছে লংগদুর নিরাপত্তাবাহিনী

unnamed copy

লংগদু প্রতিনিধি:

বাঘাইছড়ি উপজেলার মাহিল্যা মোজাম্মেল পাড়া এলাকার কাচালং নদী থেকে ৮৭ পিচ কাঠ আটক করেছে লংগদু জোনের নিরাপত্তাবাহিনী।

সেনা জোন সূত্র জানায়, শুক্রবার ভোর ৬টায় মাহিল্যা মোজাম্মেল পাড়া এলাকার কাচালং নদীতে কে বা কারা পাচারের উদ্দেশ্যে ৮৭পিচ যার পরিমান ছাপ্পান্ন ফুট সাইজ করা চম্মাফুল গাছের কাঠ ফেলে রাখে।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে লংগদু জোনের আওতাধীন আমতলী সাব ক্যাম্পের দায়িত্বরত ওয়ারেন্ট অফিসার আক্তার হোসেনের নেতৃত্বে একটি টহল ওই এলাকার নদীতে অভিযান চালিয়ে এ কাঠগুলি জব্দ করে।

পরে জব্দকৃত কাঠ আমতলী বনবিভাগের নিকট হস্থান্তর করা হয়েছে। কে বা কারা নদী পথে পাচারের উদ্দেশ্যে ওই কাঠগুলি পানিতে ফেলে রাখে। নিরাপত্তাবাহিনীর উপস্থিতি টের পেয়ে কাঠের মালিক গা ঢাকা দিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।




লংগদুতে নির্বাহী কর্মকর্তা নেই ৩ মাস, ভোগান্তিতে উপজেলাবাসী

langadu
নিজস্ব প্রতিনিধি:
রাঙ্গামাটি জেলার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ লংগদু উপজেলায় প্রায় তিন মাস যাবত নেই  উপজেলা নির্বাহী অফিসার। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ নিজামুদ্দীন আহাম্মদ গত ২ জানুয়ারি ২০১৭ বদলী হয়ে যাওয়ার পর আজ পর্যন্ত কোন অফিসার লংগদুতে যোগদান করেননি। এতে লংগদুবাসীকে চরম ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে।

বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে লংগদু উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্ব প্রদান করা হলেও বাঘাইছরির মত ব্যস্ততম উপজেলার কাজ শেষ করে লংগদুতে তার পক্ষে সময় দেয়া অনেক কষ্টকর। মাসিক-এ অংশ গ্রহণ করা ছাড়া উপজেলার স্বাভাবিক কাজ করা তার পক্ষে অসম্ভব।

শুধু তাই নয়, হতভাগা লংগদু উপজেলাবাসীর জন্য নেই একজন সহকারী ভুমি কমিশনারও। ভুমি সংক্রান্ত একটি মামলায় একজন ভোক্তভুগী জানান, ২ মাস পার হয়েছে তার একটি মামলার শুনানী করতে পারছে না। উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে অনেক কষ্ট শিকার করে আসা লোকজন উপজেলা সদরে এসে তাদের কাজ কর্ম শেষ করতে না পারলে এক দিকে যেমন তাদের ভোগান্তি, অন্য দিকে আর্থিক অপচয়। শুধু তাই নয় মানসিক যন্ত্রণা ও হয়রানিতো আছেই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা না থাকার সুবাধে অনেক অফিস চলছে ঢিলেঢালাভাবে। এতে ভোগান্তির শিকার লোকজন কারো কাছে প্রতিকারও ছাইতে পারছে না। একজন নির্বাহী কর্মকর্তার অনুপস্থিতিতে একটি উপজেলার বাসিন্দাদের যে  সকল ভোগান্তির শিকার হতে হয় তার সবটুকু ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে লংগদুবাসীকে।