রোয়াংছড়িতে বৃষ্টি উপেক্ষা করে দুঃস্থ পরিবারের মাঝে সোলার প্যানেল বিতরণ

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়ি উপজেলার নোয়াপতং ইউনিয়নে দুঃস্থ পরিবারের মাঝে রোয়াংছড়ি উপজেলার প্যানেল চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা উপস্থিত থেকে সোলার প্যানেল বিতরণ করেন।

রোববার সকাল ১১টায় দিকে রোয়াংছড়ি সদর গ্রামীন শক্তি কার্যালয়ে আয়োজিত সোলার প্যানেল বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন নোয়াপতং ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান উবাপ্রু মারমা, নোয়াপতং ইউপির ১নং ওয়ার্ড মেম্বার থোয়াইচিং মারমা, ২নং ওয়ার্ড মেম্বার লঙ্কার মনি ত্রিপুরা, ৫নং ওয়ার্ড মেম্বার মিচিং মারমা, ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার মুইসাচিং মারমা প্রমুখ।

এসময় চেয়ারম্যান উবাপ্রু মারমা বলেন, প্রথম পর্যায়ের ৩৭টি সোলার প্যানেল বিভিন্ন সোলার প্যানেল ওয়াট ক্যাটাগরিতে দুঃস্থ পরিবার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিতরণ করা হবে। সরকার থেকে যা দিয়েছে তা আমাদের নোয়াপতং ইউনিয়নের যারা গরীব আছে তাদেরকে বিতরণ করা হয়েছে।

যাদের নামের তালিকা করা হয়েছে তারা দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় বসবাসকারী। ওইখানে সোলার প্যানেল ছাড়া বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার মতো উপযুক্ত জায়গা নাই। অন্তত ওইখানকার শিক্ষার্থীরা পড়া লেখা করতে সুবিধা পাবে। মানুষেরাও সবাই উপস্থিত হয়েছে এবং নিজ নিজ প্রাপ্য সোলার প্যানেলগুলো গ্রহণ করেছে। এদিকে যারা দরিদ্র পরিবারের আছে তারা এ সোলার প্যানেলগুলো পেয়ে অত্যান্ত খুশি হয়েছে।




রোয়াংছড়িতে গবাদি পশু ও উন্নতমানের ফলদ চারা বিতরণ

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

বান্দরবান জেলা পরিষদ, রোয়াংছড়ি উপজেলায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও প্রাণীসম্পদ অধিদপ্তর কর্তৃক আয়োজিত গবাদি পশু ও উন্নতমানের ফলদ চারা বিতরণ উপজেলা কৃষি অফিস প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় অনুষ্ঠিত গবাদি পশু ও উন্নতমানের ফলদ চারা তিবরণ অনুষ্ঠানে বান্দরবান জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. আলতাফ হোসেন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বান্দরবান জেলা পরিষদের অন্যতম সদস্য ক্যসাপ্রু মারমা, সদস্য কাঞ্চনজয় তঞ্চঙ্গ্যা, উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা, নির্বাহী অফিসার রবীন্দ্র চাকমা, বান্দরবান ডিএডিসি উপ-পরিচালক দীপক কুমার দাশ, জেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা মো. আনিসুর রহমান প্রমুখ।

এছাড়াও রোয়াংছড়ি সদর ইউপির চেয়ারম্যান চহ্লামং মারমা, আলেক্ষ্যং ইউপির চেয়ারম্যান বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যা, তারাছা  ইউপির চেয়ারম্যান উথোয়াইচিং মারমা, নোয়াপতং ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান উবাপ্রু মারমা, উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা অমিত কুমার দে, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি মেম্বার, কারবারী ও গণ্যমান্য ব্যক্তি বর্গ উপস্থিত ছিলেন। উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা প্রকাশ বড়ুয়ার সঞ্চলনায় উপজেলায় কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুন নেছা স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

এসময় অন্যান্য বক্তারা বলেন, কৃষিকে বাঁচতে হলে কৃষি কাজে উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে। কৃষি কাজে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে। যাতে কৃষকরা উন্নতমানের ফসল উৎপাদন করে লাভবান হতে পারে। নানা কাজের পাশাপাশি মৌসুম অনুযায়ী ফলদ ও বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগাতে হবে।

বনবিভাগে ২৫ শতাংশ বন না থাকায় বর্তমানে পানি সংকটময় হযে যাচ্ছে। এ অবস্থা হলে ভবিষ্যতে আরো সমস্যা হবে। ইতোমধ্যে জনগণের সচেতনতা না থাকায় প্রায় বনাঞ্চল প্রাকৃতিক গাছ পালাগুলো উজার হয়ে যাচ্ছে। কৃষি কাজে বাঁচাতে হলে প্রচুর পরিমাণে নানাধিক গাছ রোপন করা প্রয়োজন বলেও মনে করেন বক্তারা।

প্রধান অতিথি ক্যসাপ্রু মারমা বলেন, সরকার কৃষকদের পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা দিয়ে থাকেন। যাতে কৃষকদের বিভিন্ন সমস্যা পোহাতে না হয় এমব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকি। তবে কৃষকরাও কৃষি কাজের মনো নিবেশ করে উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে। শুধু তাই নয় কৃষকরা চাইলে পরস্পর সহযোগিতার মাধ্যমে দেশকে বদলে দিতে পারেন। কৃষি উন্নয়নে বাংলাদেশ সরকার সাফল্যের দিকে ধাবিত হচ্ছে। কৃষি উন্নয়নে বিপ্লব ঘটেছে  বাংলাদেশে। বিশ্বের দিকে তাকালে দেখা যায় পাশ্ববর্তী দেশ শ্রীলঙ্কার মধ্যে শতভাগ কৃষি কাজে জরিত। ওই দেশে শিক্ষিত হয়েও প্রান্তিক কৃষক হিসেবে পরিচিত লাভ করেছে।

সভা শেষে লটারির মাধ্যমে বাছাই করে কৃষকদের মাঝে নগদ অর্থসহ গরু, ছাগল ও নানা প্রজাতির উন্নতমানের ফলদ চারা বিতরণ করা হয়।




রোয়াংছড়িতে দীর্ঘ ২১ বছর পর পলাতক আসামী আটক

 

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়িতে টানা ২১ বছর পর পলাতক আসামী সাহ্লাপ্রু খিয়াংকে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, যবুক বয়সে রাঙ্গামাটি জেলার রাজস্থলী উপজেলাতে সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজি মামলার আসামী ছিলেন চাইহ্লাপ্রু খিয়াং। তিনি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে লিপ্ত থাকায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়।

এরপর তিনি আত্মগোপন করে দীর্ঘ ২১ বছর ধরে আন্ডারগ্রাউন্ডে ছিলেন। পুলিশ বিভিন্নভাবে অভিযান চালিয়েও তার কোন হদিস পায়নি। অবশেষে তাকে বুধবার বিকালে পুলিশের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে নোয়াপতং ইউনিয়নের গংজক হেডম্যান পাড়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করে।

এব্যাপারে রোয়াংছড়ি থানার উপ পরিদর্শক মনির জানান, অনেক বছর পর আমরা পলাতক আসামীকে গ্রেফতার করতে পেরেছি। তার বিরুদ্ধে আদালতে মামলা বিচাররাধীন রয়েছে।




রোয়াংছড়িতে ৩ দিনব্যাপী ফলদ বৃক্ষ রোপন ও ফলদ বৃক্ষ মেলা উদ্বোধন


রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়ি উপজেলায় প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কর্তৃক যৌথ আয়োজিত অনুষ্ঠানে “স্বাস্থ্য পুষ্টি অর্থ চাই দেশি ফলের গাছ লাগাই” প্রতিবাদ্যকে সামনে রেখে ৩ দিনব্যাপী ফলদ বৃক্ষ রোপন পক্ষ ও ফলদ বৃক্ষ মেলা উপলক্ষ্যে উপজেলা চত্বর থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে উপজেলায় কৃষি অফিস প্রাঙ্গনের এসে অনুষ্ঠানটি উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে আলোচনা সভার শুরুতে কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. আলবেলা।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা প্রকাশ বড়ুয়ার সঞ্চালনায় ও নির্বাহী অফিসার রবীন্দ্র চাকমার সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভাইস চেয়ারম্যান ক্যসাইনু মারমা, মন্ত্রী প্রতিনিধি নেইতং বইতিং বম, আলেক্ষ্যং ইউপির চেয়ারম্যান বিশ্বাথ তঞ্চঙ্গ্যা, উপজেলায় কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুন নেছা প্রমুখ। এছারাও সরকারি-বেসকারি বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাসহ সুশীল সমাজের গণ্যমান্যসহ অত্র অফিসের সকল কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় বক্তারা বলেন, কৃষি অফিসের সহায়তায় কৃষকদের কৃষি উৎপাদনে সফলতা ও লাভবান হয়েছে। ফলদ বৃক্ষ রোপনে ব্যাপক পরিমাণে লাভ জনক হয়েছে প্রায় কৃষক। এলাকার যোগাযোগ সুবিধার ফলে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সরবরাহ করতে পাচ্ছে। এর ফলে অর্থনৈতিক ভাবে লাভবানের কারণে পারিবারিক ভাবে স্বচ্ছল হচ্ছে। এক সিজনের ৬ লক্ষ থেকে ৭লক্ষ টাকা পর্যন্ত উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাত করে লাভবান হচ্ছে।

চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা বলেন, কৃষি দেশ বাংলাদেশ, রোয়াংছড়ি উপজেলা বাসী সকলেই প্রান্তি কৃষক। কৃষক কৃষাণী ফলানো ও উৎপাদিত কৃষিপণ্যগুলো শুধু এ উপজেলাতে সিমিত না রেখে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে সরবরাহ করতে পারে এমন ব্যস্থায় গ্রহণ ও উদ্যোগ নিতে হবে। সরকার কৃষির প্রতি গুরুত্ব দিয়ে নানা দিক থেকে সহায়তা প্রদান করে থাকেন। উপজেলায় কৃষি অধিদপ্তর থেকেও দেখভাল করতে ব্লক ভিত্তি সুপার ভাইজার দিয়ে সযোগিতা দেন। উৎপাদিত ফলনের মাধ্যমে পণ্য বিক্রি করে কৃষকরা অর্থনৈতিক ভাবে লাভবান হচ্ছে। আগামীতে আরও কৃষকদের কৃষি সম্প্রসারণ করতে কৃষি বিভাগকে সার্বিক সযোগিতা প্রদানে আহ্বান জনান।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন কৃষক সুজিক কুমার দাশ, যোসেফ প্রীতি কান্তি ত্রিপুরা, মৎস কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা অরুন নাথ, পাইক্ষ্যং রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. আনিসুল হক, কৃষক মো. মোর্শেদ প্রমুখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে ২৭জন সফল কৃষকদের মাঝে বীজ সংরক্ষণের লক্ষে উপজেলায় কৃষি অফিস থেকে প্লাষ্টিক ড্রাম বিতরণ করা হয়।




রোয়াংছড়িতে নির্বাহী অফিসার বিদায় ও বরণ

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়ি উপজেলায় প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত নির্বাহী অফিসার বিদায় ও বরণ অনুষ্ঠান উপজেলা পরিষদ হল রুমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিদায়ী নির্বাহী অফিসার মো. দাউদ হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভাইস চেয়ারম্যান ক্যসাইনু মারমা, সদ্য যোগদানকৃত নির্বাহী অফিসার রবিন্দ্র চাকমা, রোয়াংছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান চহ্লামং মারমা, আলেক্ষ্যং ইউপির চেয়ারম্যান বিশ্বাথ তঞ্চঙ্গ্যা, তারাছা ইউপির চেয়ারম্যান উথোয়াইচিং মারমা, নোয়াপতং ইউপির চেয়ারম্যান ভারপ্রাপ্ত উবাপ্রু মারমা।

এছাড়াও সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তাসহ সুশীল সমাজের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা বলেন, সদ্য বিদায়ী নির্বাহী অফিসার মো. দাউদ হোসেন চৌধুরী গরীব ও হতদরিদ্র মানু্ষের পাশে থেকে জনসেবায় স্বতঃর্স্ফুত ভাবে কাজ করেছেন। এ দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় এসে একজন জনসেবক হিসেবে জনকল্যাণমূলক কাজ করেছেন তিনি। কোন কাজে হেলা না করে গুরুত্ব দিয়ে উৎসাহ যোগাতে অনুপ্রেরণা দিতেন জনগণকে। সদ্য যোগদানকৃত নির্বাহী অফিসারও জনসেবায় স্বতঃর্স্ফুত ভাবে কাজ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন।




রোয়াংছড়িতে বিনামূল্যে সোলার প্যানেল বিতরণ

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়ি উপজেলায় প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় কর্তৃক পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের বিশেষ বরাদ্ধ ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়ন রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) ও সংস্কারের (কাবিটা) কর্মসূচির আওতায় প্রথম পর্যায়ের দুর্গম এলাকার আলেক্ষ্যং ইউপির চেয়ারম্যান বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যাসহ যৌথ উদ্যোগে সামাজিক প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও দুঃস্থ পরিবারের মাঝে বিনামূল্যে বিভিন্ন কেটাগড়িতে ওয়াগয় পাড়ায় গ্রামীন শক্তি কার্যালয়ের এ সোলার প্যানেল বিতরণের কর্মসুচি উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি ও বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদের অন্যতম সদস্য কাঞ্চনজয় তঞ্চঙ্গ্যা।

বুধবার সকাল ১০টার আয়োজিত অনুষ্ঠানে আলেক্ষ্যং ইউপির চেয়ারম্যান বিশ্বাথ তঞ্চঙ্গ্যা সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলার আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রীর প্রতিনিধি নেইতন বইতিং বম, আলেক্ষ্যং ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান উ চাইনিং ও আলেক্ষ্যং ইউনিয়ন পরিষদের স্ব স্ব ওয়ার্ডে সদস্যগণ উপস্থিত ছিলেন।

এসময় কাঞ্চনজয় তঞ্চঙ্গ্যা বলেন, বর্তমান সরকার গরীব ও হতদরিদ্র মানু্ষের মাঝে পাশে থেকে জনসেবা কাজে স্বত:র্স্ফুত ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। দুর্গম পাহাড়ি এলাকার হয়েও উন্নয়নমূখী স্থান হয়ে উন্নয়নে ছোঁয়ায় পৌঁছে দিচ্ছে সারকার। জনগণের মৌলিক শিক্ষাকে গুরুত্ব দিয়ে পাহাড়ের শিক্ষার্থীদের উৎসাহ যোগাতে ঝলমল আলোতে শিশুদের পড়া লেখা করতে মনোযোগ হবে। বিদ্যুৎ বিহীন এলাকাগুলো বিনামুল্যে সোলার প্যানেল বিতরণে কর্মসুচি হাতে নিয়ে অন্তত চাহিদা পূর্ণ হয়েছে। সভার শেষে এ কর্মসুচির আওতায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও দুঃস্থ পরিবারের মাঝে বিভিন্ন কেটাগরিতে ৬০টি সোলার প্যানেল বিতরণ করা হয়।

 




পবিত্র ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষ্যে রোয়াংছড়িতে ভিজিএফ চাউল বিতরণ

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়ি উপজেলার তারাছা ও নোয়াপতং ইউনিয়নের পবিত্র ঈদ-উল ফিতর উপলক্ষ্যে গরীব দু:খি পরিবারের মাঝে তারাছা ও নোয়াপতং ইউনিয়নে পৃথক পৃথক ভাবে যথা সময়ে ১০ কেজি পরিমাণের ভিজিএফ চাউল বিতরণ করা হয়েছে।

শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় তারাছা ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ে রোয়াংছড়ি উপজেলায় নির্বাহী অফিসার মো. দাউদ হোসেন চৌধুরী উপস্থিত থেকে এ চাউল বিতরণ করা হয়।

এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, তারাছা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান উথোয়াইচিং মারমা, ত্রাণ কর্মকর্তা তর্পন দেওয়ান, টেক অফিসার পুলুপ্রু মারমা প্রমুখ।

এছাড়া আরো নোয়াপতং ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে চেয়ারম্যান ভারপ্রাপ্ত উবাপ্রু মারমা ও  টেক অফিসার হিসেবে উপজেলায় শিক্ষা অফিসার ভারপ্রাপ্ত মো. কামাল হোসেন উপস্থিত থেকে পৃথক ভাবে ১০ কেজি পরিমাণে ভিজিএল চাউল বিতরণ করা হয়।

এসময় চেয়ারম্যান উবাপ্রু মারমা বলেন, দেশের পবিত্র রমজান মাসের ঈদ উদযাপন উপলক্ষ্যে সরকার যা দিয়েছে, তা আমরা নোয়াপতং ইউনিয়নের যারা গরীব গণ্য আছে তাদেরকে নিজ হাতে ভিজিএফ চাউল বিতরণ করেছি। আমি ও টেক অফিসার উপস্থিত থেকে চাউল বিতরণ করতে পেরে আনন্দিত হয়েছি। পাহাড়ে এলাকার মানুষেরা সবাই উপস্থিত হয়েছে এবং নিজ নিজ প্রাপ্য চাউলগুলো গ্রহণ করে নিচ্ছে।

এদিকে যারা দরিদ্র পরিবারের আছে তারা এ চাউল পেয়ে অত্যন্ত খুশি হয়েছে। আমার ইউনিয়নে দুর্গম পাহাড়ি এলাকা হলেও এ চাউলগুলো পৌঁছে দিতে পেরে আনন্দিত। আগামীতেও জনগণের পাশে থেকে সহায়তা প্রদান ও সেবা দিতে চাই।




অনৈতিক কাজের জন্য রোয়াংছড়িতে দুই জনকে ৪২দিনের কারাদণ্ড

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়িতে মো. শুক্কর আলী (২২) ও জান্নাতুল ফেরদৌস (১৮) নামে দুই জনকে ৪২দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রামমান আদালত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী অফিসার মো. দাউদ হোসেন চৌধুরী।

শুক্রবার রাত প্রায় সাড়ে ১০টায় নাগাদ রোয়াংছড়ি বাজারস্থ রাঁধামন আবাসিক হোটেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোয়াংছড়ি থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে অশ্লীল কাজ করার দায়ে মো. শুক্কর আলী (২২) ও জান্নাতুল ফেরদৌস (১৮) এ দুই জনকে গ্রেফতার করেন।

শনিবার সকাল প্রায় ১১টার দিকে নির্বাহী কার্যালয়ে মোবাইল কোর্ট বা ভ্রামমান আদালতের পরিচালনার মাধ্যমে দণ্ডবিধি ১৮৬০ এর ২৯৪ ধারায় এ দুই জনকে ৪২দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন ভ্রামমান আদালত।

সূত্রে জানা গেছে, মো. শুক্কর আলী (২২)পটুয়াখালীর দশ মিনার থানার নেহালগঞ্জ’র মো. আব্দুল জব্বার চৌকিদার এর ছেলে ও জান্নাতুল ফেরদৌস (১৮)চট্টগ্রাম এর লোহাগাড়ার  মৃত রশ্মীদ আহমেদ এর মেয়ে।

বর্তমানে মো. শুক্কর আলী বান্দরবানে ক্যচিং ঘাটে থাকেন এবং জান্নাতুল ফেরদৌস বান্দরবান মধ্যম পাড়ায় থাকেন।




রোয়াংছড়িতে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

 

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়ি উপজেলায় ১নং রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়নের দুর্গম পাহাড়ি এলাকার তুলাছড়ি আগা পাড়ায় এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় বাড়ি ঘর পুড়ে যাওয়ায় ৩টি পরিবারের ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ে রোয়াংছড়ি উপজেলা প্রশাসন ও রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক যৌথ ভাবে উপজেলায় পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা উপস্থিত থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলায় নির্বাহী অফিসার মো. দাউদ হোসেন চৌধুরী, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান ক্যসাইনু মারমা, রোয়াংছড়ি সদর ইউপির চেয়ারম্যান চহ্লামং মারমা, ত্রাণ কর্মকর্তা (পিআইও) তর্পন দেওয়ান প্রমুখ।

সূত্রে জানা গেছে, গত শুক্রবার (৯জুন) পদামা ত্রিপুরার বাড়ির রান্না ঘর থেকে আগুনে সূত্রপাত হয়ে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ সময় পদামা বাড়ির লোকজন জুমের কাজে ব্যস্ত ছিলেন। তবে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মনিজয় ত্রিপুরা, রামন্দ ত্রিপুরা এবং পদামা ত্রিপুরার নামে ৩টি পরিবার সম্পূর্ণ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আরও আশে পাশে থাকার ২টি বাড়িও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রাথমিক ভাবে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা ধরা হচ্ছে।




রোয়াংছড়িতে পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে বিনামূল্যে সোলার প্যানেল বিতরণ

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

রোয়াংছড়ি উপজেলায় প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় কর্তৃক পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের বিশেষ বরাদ্ধ ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়ন রক্ষণাবেক্ষণ (টিআর) ও সংস্কারের (কাবিটা) কর্মসূচির আওতায় প্রথম পর্যায়ের নির্বাচনী এলাকার উপজেলা পরিষদ ও রোয়াংছড়ি সদর ইউপির চেয়ারম্যান চহ্লামং মারমার যৌথ উদ্যোগে সামাজিক প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও দুঃস্থ পরিবারের মাঝে বিনা মূল্যে বিভিন্ন ক্যাটাগড়িতে রোয়াংছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ের  সোলার প্যানেল বিতরণের কর্মসূচি  উদ্বোধন করেন উপজেলা পরিষদের (ভারপ্রাপ্ত) চেয়ারম্যান মাউসাং মারমা।

শনিবার সকাল ১০টায়  অনুষ্ঠানে রোয়াংছড়ি সদর ইউপির চেয়ারম্যান চহ্লামং মারমার সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলার আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রীর প্রতিনিধি নেইতন বইতিং বম, আলেক্ষ্যং ইউপির চেয়ারম্যান বিশ্বনাথ তঞ্চঙ্গ্যা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আনন্দসেন তঞ্চঙ্গ্যা প্রমুখ।

এসময় মাউসাং মারমা বলেন, বর্তমান সরকার গরীব দুখীদের পাশে থেকে একজন জনসেবক হিসেবে স্বতঃর্স্ফুত ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। দুর্গম পাহাড়ী এলাকায় ও উন্নয়নের ছোঁয়া পৌঁছে দিচ্ছে সরকার। পাশাপাশি মৌলিক শিক্ষাকে গুরুত্ব দিয়ে পাহাড়ের শিক্ষার্থীদের উৎসাহ যোগাতে ও  দুবেলা দুমুঠো ভাত খেয়ে যেন পড়া লেখা করতে পারে এমন ব্যাবস্থা করে দিচ্ছে সরকার। বিদ্যুৎবিহীন এলাকাগুলোতে বিনামুল্যে সোলার প্যানেল বিতরণের কর্মসূচিও হাতে নিচ্ছে। তাই এলাকার শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রেখে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করা আহ্বান জানান তিনি।

সভার শেষে এ কর্মসুচির আওতায় ২৭টি প্রতিষ্ঠানকে ১টি করে ৮৫ ওয়াট ও ৪৬টি পরিবারকে ৩০ ওয়াট করে সোলার প্যানেল বিতরণ করা হয়।