মায়ানমার সীমান্তে বিষ্ফোরকের আঘাতে গুরুতর আহত ১

Ruma pic-2
রুমা প্রতিনিধি :
বান্দরবানের রুমায় মায়ানমারের সীমান্ত এলাকায় পাহাড়ে ঝুম কাটতে গিয়ে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী বম সম্প্রদায়ের একজন বিষ্ফোরকের আঘাতে গুরুতর আহত হয়েছেন। তার নাম ভানরাম ঙাক বম। রোববার সন্ধ্যা পর্যন্ত রুমাতেই তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়, এর পর আরো উন্নত চিকিৎসার জন্য রাত সাড়ে দশটায় বান্দরবান জেলা সদরে প্রেরণ করা হয়েছে।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্র জানায়, রুমা উপজেলার রেমাক্রীপ্রাংশা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের এলাকা ও মায়ানমারের সীমান্তঘেঁষা চইখ্যং পাড়া বাসিন্দা তিনজন লোক শনিবার সকালে ঝুম করার জন্য স্থান নির্বাচন করতে জঙ্গলে যান। জঙ্গলে ঘুরতে গিয়ে বেলা ১১টার দিকে গর্তে পা পড়ে গেলে বিষ্ফোরকের আঘাতে ভানরামঙাক(৩৫) নামে এক ব্যক্তি গুরুত্বর আহত হন। এতে তার দুটি পা ও বাম হাত মারাত্মক জখম হন।

রুমা থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম শফিক জানান এটি এক ধরনের উন্নতমানের  বিষ্ফোরক হলেও স্থল মাইন নাও হতে পারে।

প্রত্যক্ষদর্শী ইউপি‘র সাবেক সদস্য লালএংলিয়ান বম জানান, জঙ্গলে বিষ্ফোরণের সময় সামনে ও পিছনে আনুমানিক আট ফুটের দূরে ছিলেন তারা। বিকট শব্দে ধোয়া ও ধুলো বালু উঠে আসে। তার সাথে আহত ব্যক্তি চিৎকার করতে থাকে। আহত ব্যক্তিকে উদ্ধার করে পাড়ায় নিয়ে আসার পর রোববার সকাল থেকে পিঠে বহন করে রুমা সদরে নিয়ে আসা হয়েছে বলে জানান তিনি।




অসহায় মানুষের কল্যাণে দায়বদ্ধতা নিয়ে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে

apex club pic 15.01

রামু প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের সহকারি পুলিশ সুপার (এএসপি) মোহাম্মদ আফরুজুল হক টুটুল বলেছেন, সমাজে অসহায় মানুষের কল্যাণ ও সমস্যা নিরসনে সকলকে দায়বদ্ধতা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। এপেক্স ক্লাব এমন দায়বদ্ধতা থেকেই মানবতার কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছে। এরচেয়ে উত্তম কাজ আর কিছুই হতে পারে না।

এপেক্স ক্লাব অব কক্সবাজার’র উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ, অতিথি সংবর্ধণা ও ৬০৫তম ডিনার মিটিংয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শনিবার (১৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় হোটেল সিলভার সাইন সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, এপেক্স ক্লাব অব কক্সবাজার’র প্রেসিডেন্ট এপে. মাস্টার জামাল হোছাইন চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, বিশেষ অতিথি চেয়ারম্যান এপেক্স গ্লোবাল ও পিএনপি এপে. মোহাম্মদ আসলাম হোসেন, সম্মানিত অতিথি জেলা গভর্ণর এপে. এডভোকেট মীর ফেরদৌস আলম সেলিম, আইপিডিজি এপে. নুরুল আমিন চৌধুরী আরমান, ডিজি (নির্বাচিত) এপে. মো. ইলিয়াছ জসিম, সংবর্ধিত অতিথি পিডিজি এপে. এডভোকেট আলহাজ্ব রমিজ আহমদ, পিপি এপে. মাস্টার রমজান আলী, এপে. মাস্টার সালাহ উদ্দিন, এপে. জামাল হোছাইন চৌধুরী।

এছাড়া পিপি. এপে. একে নোমান আব্বাসী, পিপি এপে. মাস্টার সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী সেলিম, পিপি এপে. শেখ সেলিম, ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়া ক্লাবের পিপি এপে. জিল্লুর রহমান, পতেঙ্গা ক্লাবের সদস্য এপে. মো. ইলিয়াছ, পিপি এপে. ওমর হাসান, আইপিপি এপে. রাসেল উদ্দিন, এসভিপি এপে. বেলাল আহমেদ, জেভিপি এপে. শাহ আলম কাজল, ট্রেজারার এপে. এমইউ হাসান তালুকদার, সেবা পরিচালক এপে. সুলতান আহমেদ, সাবেক সেক্রেটারি এপে. মুহিবুল্লাহ চৌধুরী জিল্লু, এপে. শফিকুল ইসলাম, এপে. ফরিদুল আলম, সেক্রেটারি এপে. সাঈদ হোসাইন আকাশ, সাংবাদিক ইমাম খাইর, জাতীয় পরিবেশ মানবাধিকার সোসাইটির চেয়ারম্যান এসএম ছৈয়দুল আজাদ, মাস্টার মো. সিরাজুল ইসলাম, ওয়াসিম হাসনাত, মাস্টার ফিরোজ আহমদ, মৌলানা জয়নাল আবেদিন প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাও কালিরছড়া নূরানী মাদ্রাসা ও এতিমখানার শিশু শিক্ষার্থীদের শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করা হয়। এতে সম্মানিত অতিথিদের ক্রেস্ট ও ফুল দিয়ে সংবর্ধিত করা হয়।

এপেক্স ক্লাব অব কক্সবাজার’র প্রেসিডেন্ট এপে. মাস্টার জামাল হোছাইন চৌধুরী জানিয়েছেন, এপেক্স ক্লাব অব কক্সবাজার’র প্রতিষ্ঠাকালীন প্রেসিডেন্ট ও সদ্য মনোনীত লাইফ মেম্বার এপে. এডভোকেট আয়াছুর রহমানের ঐকান্তিক প্রচেষ্টা কক্সবাজারে ১৯৯১ সালে এপেক্স ক্লাবের কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর থেকে এপেক্স ক্লাব অব কক্সবাজার সমাজের সুবিধা বঞ্চিত, অসহায় মানুষের কল্যাণে বিভিন্ন উন্নয়ন ও সহায়তামূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে। এসব কর্মকাণ্ডের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ, এতিমদের খাবার বিতরণ, সেলাই মেশিন বিতরণ, বৃক্ষরোপন, হুইল চেয়ার বিতরণ, জনসচেতনতামূলক প্রচারনার জন্য বিলবোর্ড স্থাপন, শিক্ষা উপকরণ বিতরণ, ফ্রি চিকিৎসা সেবা ও খৎনা ক্যাম্প, কন্যাদায়গ্রস্ত পরিবারকে সহায়তা প্রদান উল্লেখযোগ্য। তিনি শীতবস্ত্র বিতরণসহ সকল মানবিক কাজে এগিয়ে আসার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।




রুমায় শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা

mela-3-copy

রুমা প্রতিনিধি:

বান্দরবানের রুমায় এক বর্ণাঢ্য র‌্যালির মধ্য দিয়ে সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা-২০১৭। রূপকল্প-২০২১বাস্তবায়নে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে উৎসাহিত করাসহ সরকারের সাফল্য ও উদ্যোগগুলো উপস্থাপনসহ উন্নয়নমূলক কার্যক্রমে জনগণকে সম্পৃক্তকরণের লক্ষ্যে উপজেলা প্রশাসন এ মেলার আয়োজন করেছে।

তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলা লাল ফিতা কেটে উদ্বোধন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান অংথোয়াইচিং মারমা।

প্রধান অতিথি অংথোয়াইচিং মারমা বলেন, সরকারের মহা পরিকল্পনায় রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নের ফলে এ উপজেলায় বগালেক-কেওক্রাডং রাস্তাসহ অবকাঠামোগত উন্নয়ন হলেও শিক্ষায় অনেক পিছিয়ে রয়েছে। ২০১৬সালের শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার ফলাফল বিপর্যয়ের কথা উল্লেখ করে উপজেলা চেয়ারম্যান বলেন, শিক্ষার মান উন্নয়ন করতে হলে শিক্ষকদের আন্তরিকতা নিয়ে দায়িত্ব পালন করা দরকার।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) মুহাম্মদ শরিফুল হকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ও অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা দেন জেলা পরিষদের সদস্য জুয়েল বম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জিংএংময় বম, সাংগু কলেজের অধ্যক্ষ সুইপ্রুচিং মারমা ও পাইন্দু ইউপি চেয়ারম্যান উহ্লামং মারমা।

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহর উপস্থাপনায় মেলার তাৎপর্য তুলে ধরে স্বাগত বক্তব্য দেন উপজেলা কৃষি অফিসার মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান।

সভাপতির বক্তব্যে ইউএনও শরিফুল হক বলেন, ব্যক্তি স্বার্থ চিন্তা না করে উন্নয়নের কার্যক্রমকে সামনে এগিয়ে নিতে হবে। বান্দরবানের সবচেয়ে অপরূপ সৌন্দর উপজেলা হচ্ছে- এ রুমা। তাই আরও দৃষ্টি নন্দন ও উন্নয়নের সমষ্টি চিন্তা করতে এক সাথে কাজ করার জন্য উপস্থিত সকলের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। পরে অতিথিরা মেলা পরিদর্শন করে স্টলে সংশ্লিষ্টদের বিভিন্ন বিষয়ে খোঁজ খবর নেন। সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ৩০টিরও বেশি স্টল এ মেলায় অংশ নেয়।




রুমায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের দায়ে পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা

ff-copy

রুমা প্রতিনিধি:

অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রির অভিযোগে মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম (২৮) নামে এক ব্যক্তিকে পঞ্চাশ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। তার বাড়ি নোয়াখালীর চাপারাশি গ্রামে।

শনিবার দেড়টায় রুমা সদর ইউনিয়নের থানাপাড়া এলাকায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুহাম্মদ শরিফুল হক ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এ দণ্ড দেন।

প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, শনিবার দুপুরে ইউএনও থানা পাড়া এলকার সাংগু নদীর চড়ে পরিদর্শনে গেলে ব্যাপকহারে বালু উত্তোলনের দৃশ্য দেখতে পান। ওই সময় এক শ্রমিককে আটক করতে সক্ষম হয়। পরে পরিবেশের ক্ষতি করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন ও বিক্রির অভিযোগে তাৎক্ষণিক ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০’র ১১ধারায় মোহাম্মদ সাইফুল ইসলামকে ৫০হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

 




রুমায় সরকারি হিসেবে নতুন একটি প্রাথমিক বিদ্যালয় চালু

ruma-ghuna-school-copy

রুমা প্রতিনিধি:

বান্দরবানের রুমায় সরকারি হিসেবে নতুনভাবে একটি  বিদ্যালয় পাঠদান কার্যক্রম চালু হচ্ছে। প্রধান মন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী সারা দেশের ১৫শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নতুনভাবে স্থাপন কর্মসূচির আওতায় বিদ্যালয়টি নির্মাণ করার পর চালু হতে যাচ্ছে। এতে সরকারি হিসবে নতুন একটি যোগ হয়ে রুমা উপজেলায় ৩৭থেকে ৩৮-এ উন্নীত হল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। বিদ্যালয়ের আনুষ্ঠানিকভাবে পাঠদান চালু হওয়া মাত্র সময়ে ব্যাপার এখন।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তর(এলজিইডি) বাস্তবায়নে ২০১৩-২০১৪অর্থবছরে ৬৩লক্ষ টাকার ব্যয়ে রুমা সদরে ঘোনা পাড়ায় একটি বিদ্যালয় নির্মাণ করা হয়। এ বিদ্যালয়টি নামকরণ নিয়ে এখনো রয়েছে সিদ্ধান্তহীনতায়। নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হলেও এতোদিন এখানে কোনো শ্রেণি পাঠদান চালু হয় নি। তবে বিদ্যালয়টি চালু করতে ইতোমধ্যে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি পাওয়ার পর পাঠদানের কার্যক্রম চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করে প্রশাসন। জমিদাতার “চিত্ররথ-কাসেম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়” নামকরণের প্রস্তাবটি সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের এখনো কোনো অনুমোদন না পাওয়ায় আপাতত ‘ঘোনা পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়’ নামে পরিচিতি ও পরিচালনা করা হচ্ছে বলেও জানা গেছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের সংশ্লিষ্টরা বুধবার(৪জানুয়ারি) দুপুরে পার্বত্যনিউজ’কে এতথ্য জানিয়েছেন।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন জানান চলতি বছর জানুয়ারি মাসের মধ্যে প্রেষণে দুইজন শিক্ষক নিয়োগসহ শিক্ষার্থীর ভর্তির প্রক্রিয়া শেষ করে পাঠদান শুরু হবে। তবে প্রাথমিকভাবে এবছর ক্যাচম্যান এলাকা থেকে শুধুমাত্র প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে।




রুমায় নতুন বই বিতরণ উৎসব

book-1
রুমা প্রতিনিধি:
সমাজের শিক্ষকেরা শিক্ষার ধারক-বাহক হিসেবে কাজ করছে। তবে তার দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে   বারবার ভুল করলে তা হবে না। এ ভুলের সীমাবদ্ধতা থেকেই শিক্ষকদেরকে শিক্ষা নিতে হবে। আদর্শ শিক্ষায় শতভাগ অর্জন করানো না গেলেও কমপক্ষে ৮০ ভাগ অর্জিত হওয়া উচিত। বান্দরবানের রুমা সদরে রুমা বাজার আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রোববার (১জানুয়ারি) সাড়ে  ১১টায় এক সভায়  এসব কথা বলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শরিফুল হক।

এতে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাবিব উল্লাহ, প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলাল হোছাইন, সদর ইউপি চেয়ারম্যান শৈমং মারমা, বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি শৈহ্লাচিং মারমা, প্রধান শিক্ষক চিত্তরঞ্জন চাকমা ও আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ আবু সিদ্দিক। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শরিফুল হক তার সমাপণির বক্তৃতায় উদ্বোধন ঘোষনার মাধ্যমে প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়া হয়।

এদিকে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জানান, চলতি ২০১৭ শিক্ষা বর্ষে উপজেলা ৩৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ মোট ৭৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য চাহিদা অনুযায়ী ১৯ হাজার পাঁচশত ৩০ সেট বই পাওয়া গেছে। এসব বই ১৯ ডিসেম্বর থেকে স্ব-স্ব বিদ্যালয়ে নিয়ে গেছে। ফলে ১ জানুয়ারি সব বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের নতুন বই বিতরণ করা হচ্ছে।

অন্যদিকে সাড়ে ১২ টায় রুমা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন বই বিতরণ উপলক্ষে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান অংথোয়াইচিং মারমা। উপজেলা নিবাহী অফিসার মুহাম্মদ শরিফুল হকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. হাবিব উল্লাহ, মো. বেলাল হোছেইন ও প্রধান শিক্ষক হ্লাশৈনু মারমাসহ শিক্ষকবৃন্দ।




ভাষাগত দূর্বলতার কারণে শিক্ষার মান কম পাহাড়ি শিক্ষার্থীদের

ruma-school-copy

রুমা প্রতিনিধি:

পাহাড়ি শিক্ষার্থীদের ভাষাগত দূর্বলতার কারণে এখানকার শিক্ষার মান কম। এজন্য দায়ী প্রশাসনিক দূর্বলতা ও অভিভাবকদের অসচেতনতা। শনিবার দুপুরে রুমা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষার পরিদর্শন শেষে বান্দরবানের রুমা উপজেলার নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) মুহাম্মদ শরিফুল হক সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, পাহাড়ি শিক্ষার্থীদের ভাষাগত দুর্বলতা কাটিয়ে উঠতে অভিভাবকরা নিজ নিজ বাসায় ছেলে-মেয়েদের বাংলা বলার অভ্যাস করানো দরকার। এটা করা গেলে শিক্ষার্থীদের জন্য ভাল হবে।

এদিকে রুমা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হ্লাশৈনু মারমা জানান, এবার ৬ষ্ঠ শ্রেণিতে ভর্তি হবার জন্য ১৪৬জন ফরম সংগ্রহ করলেও পরীক্ষায় ৩২জন ভর্তি পরীক্ষা দিতে আসেনি। পরীক্ষায়  অংশ নেয়া ১১৪জনের মধ্য থেকে ফলাফলের মেধা অনুযায়ী ৬০জনকে ভর্তির সুযোগ দেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।




রুমায় বন্যপ্রাণী শিকারের অপরাধে এক ব্যক্তিকে অর্থদণ্ড

dd-1-copy

রুমা প্রতিনিধি:

বান্দরবানের রুমা সদরে অবাধে বন্যপ্রাণী শিকারের অপরাধে এক ব্যক্তিকে ৫০০ টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

বুধবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও প্রথম শ্রেণির ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ শরিফুল হক এ জরিমানা করেন। দণ্ডিত ব্যক্তির নাম সুলতান আহম্মদ, তার পিতার নাম উল্লাহ মিয়া। তার বাড়ি কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার তৈতং এলাকায় বলে জানা গেছে।

জানা যায়, বুধবার দুপুর ১টার দিকে বন্যপ্রাণী  হরিণের একটি শাবকসহ সুলতান আহম্মদ নামের ওই ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশ। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ভ্রাম্যমাণ আদালতে বন্যপ্রাণী(সংরক্ষণ) আইনের ১৮ ধারায় উল্লেখিত বন্যপ্রাণী শিকারের অপরাধে সুলতান আহাম্মদকে ৫০০ টাকা অর্থদণ্ড দেন।




কিশোরী’র ধর্ষণকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তির দাবিতে রুমায় মানববন্ধন

m-copy

রুমা প্রতিনিধি:

বান্দরবানের রাজপূণ্যাহ মেলায় এসএসসি পরীক্ষার্থী এক কিশোরী’র ধর্ষণকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে কঠোর শাস্তির দাবিতে রুমা সদরে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে। মারমা ইয়ূথ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন’র আয়োজনে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় এক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

ইয়ুথ ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সভাপতি অংসিংথোয়াই মারমার সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সমাজ সংগঠক মংমংসিং মারমা, যুব নেতা ঞ্হ্লা মারমা, ছাত্র নেতা মংমিন মারমা, ও থুইনুপ্রু মার্মা প্রমূখ।

 মংক্যচিং মারমা’র উপস্থাপনায় বক্তারা বলেন, ক্ষমতাসীন দলের লোকেরা দিনে সাধারণ মানুষকে দেশ উন্নয়নের ডিজিটালাইজের কথা প্রচার করে বেড়ায়। আবার রাতে তারাই জোরপূর্বক নারীদের  গণধর্ষণ করতে কোনো দ্বিধাবোধ করে না।

প্রশাসনও এনিয়ে কঠোর কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না। প্রশাসন এব্যাপারে বিন্দুমাত্রও উদ্যোগী হত, তবে এ ডিজিটাল উন্নয়নের ক্ষেত্র তৈরির সময়ে আসামীরা এতোদিন ধরা ছোঁয়ার বাইরে থাকতো না।

তারা আরও বলেন, বান্দরবানের রাজপূন্যাহয় ওই কিশোরী ধর্ষণকারী অভিযুক্ত আরও তিনজনকেও ৭দিনের মধ্যে গ্রেফতার পূর্বক আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি দাবি জানান । তা না হলে কঠোর কর্মসূচি গ্রহণের হুশিয়ারি উচ্চারণ করেন বক্তারা।

এর আগে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত মোট ৪৫মিনিট রুমা বাজার হরিমন্দির মার্কেটের সামনে মানববন্ধন পালন করা হয়। বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও সুশীল সমাজের লোকজন এতে স্বত;স্ফূর্ত অংশ নেয়।

উল্লেখ্য যে, বান্দরবানের রাজকর সভা রাজ পূণ্যাহ‘য় মেলা দেখতে গিয়ে শুক্রবার রাতে কিশোরীর প্রেমিক উপোছাই মারমা‘র সাথে রোয়াংছড়ি বাসস্টেশন পার্শ্ববর্তী এলাকায় বেড়াতে গেলে গণধর্ষনের শিকার হয় ১৭বছর বয়সী এ কিশোরী। তার বাড়ি রুমায় থানা পাড়া এলাকায়। এঘটনায় বান্দরবান সদর থানা পুলিশ মুণ্ডি ব্যবসায়ী ও যুবলীগ নেতা কাজল বড়ুয়া নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে।




রুমায় গণধর্ষনের শিকার, ওই কিশোরীর বাড়ি পরিদর্শনে ইউএনও

untitled-1-copy

রুমা প্রতিনিধি:

গণধর্ষনের শিকার এসএসসি পরীক্ষার্থী ১৭ বছরের ওই কিশোরীর পরিবারে গিয়ে পরিদর্শন করে খোঁজ খবর নিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার(ইউএনও) মুহাম্মদ শরিফুল হক। রোববার বিকেলে রুমা সদর ইউনিয়নের থানা পাড়ায় ওই কিশোরীর মা ও বোনের সাথে কথা বলেন তিনি।

ইউএনও কিশোরীর মা‘কে বলেন আসন্ন এসএসসি পরীক্ষায় তার মেয়ের জন্য বই খাতাসহ দরকারি যাবতীয় সহযোগিতা দেবে উপজেলা প্রশাসন। ধর্ষনের ঘটনায় অভিযুক্ত কাজল বড়ুয়া নামে এক আসামীকে গ্রেফতারের কথা জানিয়ে শরিফুল হক বলেন, বাকী আসামীদেরও আইনের আওতায় আনতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জিংএংময় বম, থানা অফিসার্স ইনচার্জ মোহাম্মদ শফিকুর ইসলাম শফিক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি উহ্লাচিং মারমা ও কোলাদি মৌজার হেডম্যান শৈচিংথুই মারমাসহ সামাজিক ও বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

বান্দরবানের রাজকর সভা রাজ পূণ্যাহ‘য় মেলা দেখতে গিয়ে শুক্রবার রাতে কিশোরীর প্রেমিক উপোছাই মারমা‘র সাথে রোয়াংছড়ি বাসস্টেশন পার্শ্ববর্তী এলাকায় বেড়াতে গেলে গণধর্ষনের শিকার হয় ১৭বছর বয়সী এ কিশোরী। তার বাড়ি রুমায় থানা পাড়া এলাকায়। এঘটনায় বান্দরবান সদর থানা পুলিশ মুণ্ডি ব্যবসায়ী ও যুবলীগ নেতা কাজল বড়ুয়া নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে।