শহীদ জিয়া ছিলেন স্বনির্ভর বাংলাদেশের রূপকার

ramu pic bnp 19.01

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

রামুতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা, মহান স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৮১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকাল তিনটায় রামু চৌমুহনীস্থ উপজেলা বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, রামু উপজেলা বিএনপির সভাপতি এসএম ফেরদৌস।

সভায় বক্তারা বলেন, গণতান্ত্রিক, আধুনিক দেশ গঠনে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান যে দৃষ্টান্ত দেখিয়েছিলেন, তা বিশ্বে বিরল। তিনি ছিলেন, স্বনির্ভর বাংলাদেশের রূপকার। এমন সফল রাষ্ট্রনায়কের আদর্শ লালন করেই বেগম খালেদা জিয়া পরবর্তীতে উন্নয়নশীল দেশ গঠনে ভূমিকা রেখেছেন। অথচ আওয়ামী লীগ অবৈধ ক্ষমতার জোরে উন্নয়নের পরিবর্তে লুটপাট আর গণতন্ত্রকে কবর দিয়ে আবারও সেই বাকশাল কায়েম করেছে। এ দুঃশাসন আর লুটপাটের জবাব বাংলার মানুষ নিশ্চয় দেবে।

রামু উপজেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক ফয়েজ উদ্দিন রাশেদ’র সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা বিএনপির উপদেষ্টা আখতারুল আলম চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফোরকান আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মেরাজ আহমেদ মাহিন চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক টিপু সুলতান চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক শাহনুর উদ্দিন বাবু, রামু উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক জয়নাল আবেদীন, রামু উপজেলা ছাত্রদলের সহ সভাপতি এইচএম মাসুদ, ছাত্রনেতা মিথুন বড়ুয়া বোথাম, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন যুবদলের আহ্বায়ক মনোয়ার আলম, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক জয়নাল আবেদিন, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন যুবদলের সভাপতি হালিমুর রহমান, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি কাউছার আলম ইমু, কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম, যুবদল নেতা হেমসেল, আবদুল গনি, মো. সোহেল, নুরল আলম, আবদু রহিম, ইসমাঈল, আনোয়ার, শহিদুল ইসলাম, আবদুল্লাহ, সরওয়ার, এহছান, শওকত, সাহেদ উল্লাহ প্রমুখ।

সভায় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।




কক্সবাজার জেলা শ্রেষ্ঠ তরুণ উদ্ভাবকের তালিকায় দ্বিতীয় স্থান পেয়েছেন রামুর নিকারুজ্জামান

ramu ac land pic 16.01.17
রামু প্রতিনিধি :
রামু উপজেলা উন্নয়ন মেলায় সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের মধ্যে প্রথম স্থান অর্জনের পর এবার কক্সবাজার জেলা প্রশাসন আয়োজিত ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় ‘শ্রেষ্ঠ তরুণ উদ্ভাবক’ এর দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছেন রামু উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. নিকারুজ্জামান।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসন আয়োজিত ৩ দিনব্যাপী ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার সমাপনী দিনে বিভিন্ন সংগঠন, প্রতিষ্ঠান, এবং স্টলকে তাদের ডিজিটাল কার্যক্রমের জন্য পুরস্কার প্রদান করেছেন জেলা প্রশাসন। এবারের মেলায় ‘শ্রেষ্ঠ তরুণ উদ্ভাবক’ এর দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছেন রামু উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো. নিকারুজ্জামান। রামু ভূমি অফিসের কার্যক্রমকে ডিজিটালাইজ করে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি হ্রাস, ভূমি সংক্রান্ত কাজকে মোবাইল এ্যাপসের মাধ্যমে গতিশীল করে সেবা প্রাপ্তি সহজীকরণের জন্য তাকে এ শ্রেষ্ঠত্বের পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য তিনি সম্প্রতি রামু উপজেলা উন্নয়ন মেলায় সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের মধ্যে প্রথম স্থান অর্জন করেন।

গত শনিবার কক্সবাজার পাবলিক লাইব্রেরীর মাঠে মো. নিকারুজ্জামানকে এ পুরস্কার প্রদান করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রধান অতিথি রামু- সদরের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাংসদ খোরশেদ আরা হক, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ আলী হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইটি মো. সাইফুল ইসলাম মজুমদার, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারন সম্পাদক মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যানসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ।

এর আগে গত ১১ জানুয়ারি রামুতে অনুষ্ঠিত তিন দিনব্যাপী উন্নয়ন মেলার সমাপনী দিনে সবগুলো স্টলের মধ্যে শীর্ষ স্থান অধিকার করে রামু ভূমি অফিস। ওই অনুষ্ঠানে রামু সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নিকারুজ্জ্মানসহ কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি। এ সময় রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, ভাইস চেয়ারম্যান মো. আলী হোসেন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াছমিন, রামু থানার (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর উপস্থিত ছিলেন।




রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ে ছাত্রীদের মানববন্ধন

ramu school pic 16.01

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে সাময়িক বরখাস্ত করার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা। সোমবার সকালে বিদ্যালয়ের সামনের সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের বিলুপ্ত কমিটি কর্তৃক এধরনের বেআইনী সিদ্ধান্তে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

শিক্ষার্থীরা বলেন, কেবল রামু নয় পুরো জেলার মধ্যে এ বিদ্যালয়টি ভালো ফলাফল করে সুনামের সাথে এগিয়ে যাচ্ছে। এমন সময়ে কতিপয় ব্যক্তি বিগত ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে পরাজিত হয়ে এবং লোভের বশবর্তী হয়ে সৎ, ন্যায় পরায়ন প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে বরখাস্ত করার নামে হেয় করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি প্রধান শিক্ষক ছিলেন, থাকবেন। কেউ ষড়যন্ত্র করে সফল হবে না।

প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিম বলেন, যে কমিটি তাকে বরখাস্ত করেছে সেই কমিটির মেয়াদ অনেক আগেই উত্তীর্ণ হয়েছে। তাই এ সিদ্ধান্ত বেআইনী। এছাড়া বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক কর্মচারিদের বেতন ভাতা উত্তোলন সংক্রান্ত বিষয়ে কমিটি নিয়ে মামলা চলমান থাকলে শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন ভাতা জেলা পর্যায়ে জেলা প্রশাসক এবং উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং প্রধান শিক্ষকের যৌথ স্বাক্ষরে উত্তোলন করার জন্য সরকারী নির্দেশনা রয়েছে। তাই ৬ মাস পূর্বে মেয়াদ উত্তীর্ণ কমিটি কিছুতেই বিদ্যালয়ে হস্তক্ষেপ করতে পারে না।




রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের বিতর্কিত প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিম সাময়িক বরখাস্ত

 

ramu pic soyad karim 15.01

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের বহু বিতর্কিত প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। রবিবার সকালে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভা শেষে এ সিদ্ধান্তের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট শিক্ষক, উপজেলা প্রশাসন, ব্যাংকসহ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে অবহিত করা হয়। সেই সাথে বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক এম জয়নাল আবেদিনকে প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বভার প্রদান করা হয়।

রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সোহেল সরওয়ার কাজল প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে সাময়িক বরখাস্ত করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

তিনি জানিয়েছেন, নৈতিক স্খলন, বিদ্যালয়ের অফিস সহকারীকে শারীরিক নির্যাতন, শিক্ষক-কর্মচারীদের মধ্যে দলাদলি সৃস্টি ও শৃংখলা বিরোধি কর্মকাণ্ড এবং আর্থিক অনিয়মের কারণে বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চাকুরি বিধি ১১ এবং ১৩ (১) ও (২) ধারা মোতাবেক সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে।

এক লিখিত আদেশে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের কাছে যাবতীয় রেজিস্ট্রার, ক্যাশবই, ব্যাংক হিসাবের কাগজপত্র ও প্রতিষ্ঠানের সকল চাবি হস্তান্তরের জন্য বরখাস্ত হওয়া শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি সোহেল সরওয়ার কাজল জানিয়েছেন, ইতিপূর্বে নারী কেলেংকারী সহ নানা অনিয়মের অভিযোগে রামুর সচেতন জনতা প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমের বিরুদ্ধে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহা পরিচালকের কাছে অভিযোগ দেন। এরই প্রেক্ষিতে ১৪ ডিসেম্বর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর চট্টগ্রাম’র আঞ্চলিক উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আজিজ উদ্দিন বিদ্যালয়ে এসে এসব অভিযোগ তদন্ত করেন।

মহা পরিচালকের কাছে দেয়া লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, ২০০৬ সালে বিদ্যালয়ের হোস্টেলে থাকা এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করেন প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিম। ওই ঘটনায় ধর্ষিতার অভিভাবক বাদি হয়ে রামু থানায় মামলা (জি আর ৫৭/০৬) করেন। ওই সময় পুলিশ প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে গ্রেফতার করেছিলো এবং তাকে প্রধান শিক্ষকে পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। পরে নানা কৌশলে ছৈয়দ করিম এ ঘটনা ধামাচাপা দিয়ে পূনরায় বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। এছাড়া সম্প্রতি ছৈয়দ করিম বিদ্যালয়ের এক হোস্টেল সুপার এবং একাধিক ছাত্রীর সাথে অনৈতিক সর্ম্পকে জড়িয়ে ফের আলোচনায় চলে আসেন।

অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, বিদ্যালয়ের আভ্যন্তরিন পরীক্ষার প্রশ্ন নির্ধারিত সময়ের পূর্বে খুলে তিনি তার সাথে সম্পর্কে জড়ানো শিক্ষার্থীদের সরবরাহ করতেন। ইতিপূর্বে এমন অভিযোগে তাকে কেন্দ্র সচিবের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতিও দেয়া হয়েছিলো।

বিতর্কিত এ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে রামুতে প্রতিবাদ সভা, মানববন্ধন এবং পোস্টার’র মাধ্যমে প্রতিবাদি প্রচারনা চালানো হয়েছে।

রামুর সচেতন মহল কক্সবাজারের ঐতিহ্যবাহি এ নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভাবমূর্তি ও শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ এবং ছাত্রীদের সম্ভ্রম রক্ষায় প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ করিমকে অব্যাহত/অপসারণ করে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জোর দাবি জানিয়েছে।




রামুর দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইসলামীয়া মাদরাসা কমিটির অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতি বন্ধের দাবি

 

ramu pic manobbondon 14.01.17 (2)

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

কক্সবাজার রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইসলামীয়া দাখিল মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির অনিয়ম দূর্নীতি স্বেচ্ছাচারিতা বন্ধ এবং সুষ্ঠ নির্বাচনের মাধ্যমে মাদ্রাসার সামগ্রিক উন্নয়নসহ বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি অফিস কক্ষে টাঙ্গানোর দাবী জানিয়ে মানববন্ধন করেছে মাদ্রাসার শিক্ষক, অভিভাবক ও ছাত্র-ছাত্রী বৃন্দ। শনিবার বেলা ১২টার দিকে দক্ষিণ  মিঠাছড়ি ফকিরা মুরা মাদ্রাসার সামনে টেকনাফ কক্সবাজার সড়কে এ মানববন্ধন করা হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন শিক্ষক, অভিভাবক ও ছাত্র-ছাত্রী প্রতিনিধি বৃন্দ। এ ব্যাপারে দক্ষিণ মিঠাছড়ির চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা ইউনুচ ভূট্টো জানান, ফকিরা মুরা ইসলামীয়া দাখিল মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির দূর্ণীতি অনিয়মের বিষয় আমি শুনেছি। তিনি আরও জানান দ্রুত মাদ্রাসার উন্নয়ন ও লেখাপড়ার মান উন্নয়নের স্বার্থে সুষ্ঠ নির্বাচনের মাধ্যমে মাদ্রাসার সুষ্ঠ পরিবেশ ফিরে আনার চেষ্টা করবেন।

এ বিষয়ে রামু উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. শাহজান আলি জানান, ফকিরা মুরা ইসলামী দাখিল মাদ্রাসার দুর্ণীতির বিষয় আমি অবগত হয়েছি। তদন্তে মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির যে কোন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুর্ণীতির অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তার কাছে এ মাদ্রাসাটির পরিচালনা কমিটির সুষ্ঠু নির্বাচন, দূর্ণীতি ও অনিয়ম বন্ধে অভিযোগ দিয়েছে।

মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত সুপার সিরাজুল ইসলাম, সহকারী শিক্ষক শহিদুল্লাহ, অভিভাবক প্রতিনিধি সুলতান আহম্মদ ও মোহাম্মদ তারেক হোসেন জানান, কমিটির সভাপতি রফিকুল আলম চৌধুরী মাদ্রাসার অর্থ আত্মসাত করেন এবং গোষ্ঠিগত প্রভাব বিস্তার করে কমিটিকে নিজের আওতায় কুক্ষিগত করে রাখেন। তারা আরও জানান, বিনা অজুহাতে শিক্ষকদের প্রায়সময় তিনি অসংলগ্ন কতাবার্তা বলেন এবং কেউ এসবের প্রতিবাদ করলে তাকে চাকরিচ্যুত করার হুমকি দিতেন। নানাভাবে তিনি শিক্ষক-কর্মচারিদের মানসিক চাপে রাখেন। এছাড়া মাদ্রাসার অফিস কক্ষে সরকারী আদেশমতে বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমান ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছবি টাঙ্গানোর দাবী জানালে রফিক মিয়া এর বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে তা বাস্তবায়ন করতে দেননি।

এলাকাবাসী মাদ্রাসার চলমান অনিয়ম, বিশৃংখলা ও স্বজনপ্রীতি বন্ধ করে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশে ফিরিয়ে আনতে সংশ্লিষ্ট সকল কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

এদিকে দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুচ ভূট্টো কক্সবাজার থেকে পরিষদে ফেরার পথে মানববন্ধনে অংশগ্রহনকারী শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের সাথে দেখা করেন। এসময় মানববন্ধনে অংশ গ্রহণকারীরা চেয়ারম্যানকে এসব অনিয়মের কথা তুলে ধরে সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করার দাবি জানান।




৩৪ বিজিবি কর্তৃক ৪২০ প্যাকেট বার্মিজ সিগারেট ও এনার্জি প্লাস আটক

14.01

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

৩৪ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ’র মরিচ্যা যৌথ চেকপোস্ট’র সদস্যগণ বিপুল পরিমাণ বার্মিজ সিগারেট এবং এনার্জি প্লাস আটক করেছে।

নিজস্ব গোয়েন্দা সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার বেলা পৌনে ২টায় কক্সবাজার’র রামু উপজেলার ৯নং খুনিয়াপালং ইউনিয়নের মরিচ্যা যৌথ চেকপোস্টে টেকনাফ হতে কক্সবাজারগামী যাত্রীবাহী বাস তল্লাশী করে মালিক বিহীন ২৭,৫০০ (সাতাশ হাজার পাঁচশত) টাকা মূল্যের ৪২০ প্যাকেট বার্মিজ নিম্নমানের সিগারেট এবং ২৬ প্যাকেট বার্মিজ এনার্জি প্লাস আটক করতে সক্ষম হন বিজিবির সদস্যরা।

জব্দকৃত এনার্জি প্লাস বালুখালী শুল্ক কার্যালয়ে জমা করা হয়েছে। জব্দকৃত বার্মিজ নিম্নমানের সিগারেট স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।

 




৩৪ বিজিবি কর্তৃক মটর সাইকেলসহ ১০ গ্রাম বার্মিজ গাঁজা আটক

 motar-cycle-copy

বিজ্ঞপ্তি:

৩৪ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মরিচ্যা যৌথ চেকপোস্ট’র সদস্যগণ নিজস্ব গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউপি’র খুনিয়াপালং নামক স্থানে চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালিয়ে মালিক বিহীন পরিত্যাক্ত অবস্থায় ২,০০,১৫০ (দুই লক্ষ একশত পঞ্চাশ) টাকা মূল্যের ১ টি মটর সাইকেল এবং ১০ গ্রাম বার্মিজ গাঁজা জব্দ করতে সক্ষম হয়।

জব্দকৃত মটর সাইকেল এবং গাঁজা রামু থানায় সোপর্দ করা হয়েছে, যার মামলা নম্বর-০৮ তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০১৭।




বাঁকখালী নদীর দু’পাশে গড়ে তোলা হবে পর্যটন স্পট

unnamed-copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কক্সবাজার ও রামুর সিংহভাগ মানুষের জীবন-জীবিকার প্রধান উৎসস্থল বাঁকখালী নদীর দু’পাশে পর্যটন স্পট গড়ে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান লে. কর্ণেল (অব:) ফোরকান আহমদ এলডিএমসি, পিএসসি। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত তিনি ঐতিহ্যবাহী এ নদীর বিভিন্ন পয়েন্ট পরিদর্শন করেন। প্রথমে তিনি পিএমখালীর রাবার ডেম এলাকা পরিদর্শন করেন। পরে নৌকা যোগে চলে আসেন খুরুশকুল ব্রীজ এলাকায়। এসময় নদীর দু’পাশে অবৈধদখল, নদীর গতিরোধ ও ভাঙ্গন দৃশ্য দেখে তিনি বিস্মিত হন।

পরিদর্শনকালে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, নদীর পানি প্রবাহ আপন ধারায় পরিচালিত হতে না পারলে স্বাভাবিকভাবে নদী ক্ষতিগ্রস্থ হয়। বাঁকখালী নদীর দু’পাশে কিছু মানুষ তাদের জমি রক্ষার্থে যেসব ‘প্রতিবন্ধকতা’ সৃষ্টি করেছে তাতে নদী ভরাট হয়ে গতি পরিবর্তন হচ্ছে। ফলে অপর কূল ভেঙ্গে যাচ্ছে। একারণেই হাজার হাজার জেলে মাছ শিকার থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

নদীর দু’পাশে অবৈধ দখল ও দূষণ রোধ করতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, শীঘ্রই প্রশাসনের উর্ধ্বতন মহলে নদীর ব্যাপারে বৈঠক হবে। নদীর সীমানা নির্ধারণের পাশাপাশি দু’কূলে পর্যটন স্পট গড়ে তোলা হবে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এরকম নদী কেন্দ্রিক গড়ে ওঠা পর্যটন শিল্প দেশের রাজস্ব আদায়ে ব্যাপক ভূমিকা রাখছে।

তিনি নদীর কস্তুরাঘাট, ৬নং ঘাটসহ আরও বিভিন্ন পয়েন্ট ঘুরে দেখেন। পরিদর্শনকালে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ক্যাপ্টেন ওয়ালি উল্লাহ, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সেকশন অফিসার মো. সেলিম উল্লাহ, আলহাজ্ব জহিরুল হক প্রমূখ।




বিজিবি’র রেজখাল যৌথ চেকপোষ্ট ও তুমব্রু বিওপি কর্তৃক মালামাল আটক

untitled-1-copy

বিজ্ঞপ্ত:

বৃহস্পতিবার রাত প্রায় পৌনে ১১টার দিকে ৩৪বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ’র রেজুখাল যৌথ চেকপোস্টের সদস্যগণ নিয়মিত তল্লাশীর প্রাক্কালে কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার ৯নং খুনিয়াপালং ইউপি’র সোনার পাড়া নামক স্থানে চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালিয়ে মালিক বিহীন ১,৪৫,০০০(এক লক্ষ পঁয়তাল্লিশ হাজার) টাকা মূল্যের ৫প্যাকেট বার্মিজ কারেন্ট জাল এবং ১টি বার্মিজ মোটর সাইকেলের ইঞ্চিন আটক করতে সক্ষম হয়।

অপর অভিযানে শুক্রবার ১টায় ৩৪বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ’র তুমব্রু বিওপি’র সদস্যগণ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ৩নং ঘুমধুম ইউপি’র তুমব্রু চাকমা পাড়া নামক স্থানে চোরাচালান বিরোধী অভিযান চালিয়ে পরিত্যাক্ত অবস্থায় মালিক বিহীন ৪,৮৭,২২০(চার লক্ষ সাতাশি হাজার দুইশত বিশ) টাকা মূল্যের ২৫৯০টি বার্মিজ কুইনলি ক্রীম, ১২৫৫৬টি বার্মিজ সাবান এবং ৪৫৪টি বার্মিজ লোশন আটক করতে সক্ষম হয়।

উভয় অভিযানে জব্দকৃত মালামালের সর্বমোট মূল্য ৬,৩২,২২০(ছয় লক্ষ বত্রিশ হাজার দুইশত বিশ) টাকা। জব্দকৃত কারেন্ট জাল, মোটর সাইকেলের ইঞ্চিন, কুইনলি ক্রীম, সাবান এবং বার্মিজ লোশন বালুখালী শুল্ক কার্যালয়ে জমা করার কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।




ডিজিটাল বাংলাদেশের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে

unnamed-1-copy

রামু প্রতিনিধি:

রামুতে ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেছেন, আমরা মানুষকে স্বপ্ন দেখাতে চাই। সন্তানের কাছে যদি একটি স্বপ্ন না থাকে, সেই সন্তান জীবনে এগিয়ে যেতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিকে ‘দিন বদলের বাংলাদেশ’ ও ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ নামে দু’টো স্বপ্ন দেখিয়েছেন। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হচ্ছে। শেখ হাসিনা’র স্বপ্ন ‘দিন বদল’ ও ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’। বাংলাদেশ অর্থনৈতিক উন্নয়নের দিকে দ্রুত এগিয়ে চলছে। রোববার রাত ১১টায় রামু মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সাবেক বন ও পরিবেশ মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ এ কথা বলেন।

‘মুক্তিযুদ্ধের বিজয় বীর বাঙালির হাজার বছরের পরাধীনতার প্রতিশোধ’ প্রতিপাদ্যে অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার তৃতীয় দিনের স্মৃতিচারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম।

রামু খিজারী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, কক্সবাজার-৩ আসনের সাংসদ রামু মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা উদযাপন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ তাঁতী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাধনা দাশ গুপ্তা, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মো. ইউনুচ  বাঙ্গালী, সদস্য অ্যাডভোকেট সুলতানুল আলম প্রমূখ।

ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেন, ঘুমন্ত জাতিকে জাগ্রত করেছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। হাজার বছর ধরে বাঙ্গালি জাতি স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করেছেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করে। সেই জন্যে বঙ্গবন্ধু হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য বঙ্গবন্ধু রাজনীতি করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশকে দু’তিন বছরের মধ্যে সংগঠিত  করেছিলেন। বাংলাদেশ যখন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে অর্থনৈতিক অগ্রগতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল, ঠিক তখনই বঙ্গবন্ধুকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়।

বিজয় মেলা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম-মহাসিচব তপন মল্লিক ও ছাত্র লীগ নেতা সাদ্দাম হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত স্মৃতিচারণ সভায় বক্তব্য রাখেন, গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সৈয়দ নজুরল ইসলাম, জেলা স্বেচ্ছা সেবক লীগ সভাপতি কায়সার উল হক জুয়েল, জেলা তাঁতী লীগের সভাপতি নুরুল আলম চৌধুরী, রামু উপজেলা কৃষক লীগ আহ্বয়ক মো. সালাহ উদ্দিন, আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ মোহাম্মদ আবদুস শুক্কুর, রামু উপজেলা তাঁতী লীগের সভাপতি নুরুল আলম জিকু, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন যুব লীগের সাধারণ সম্পাদক আনছারুল হক, স্বেচ্ছা সেবক লীগ নেতা আজিজুল হক আজিজ, ছাত্রলীগ নেতা শাহজাহান সিরাজ প্রমুখ।

বিজয় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাফর আলম চৌধুরী, মহিলা সম্পাদক মুসরাত জাহান মুন্নী, রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য শামশুল আলম, নুরুল হক, রামু উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক নীতিশ বড়ুয়া প্রমূখ।

মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ শেষে বিজয় মঞ্চে রাতব্যাপী অনুষ্ঠিত হয় সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠান। এতে কবিতা পাঠ, নৃত্য ও সংগীতানুষ্ঠানে স্থানীয় ও বাংলাদেশ বেতার কক্সবাজার কেন্দ্রের শিল্পীরা অংশ নেন।