সমাজ অপরাধমুক্ত করতেই মাদক প্রতিরোধ করতে হবে

রামু প্রতিনিধি:
কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন, ইয়াবা ব্যবসায়িদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাবো। সমাজকে অপরাধমুক্ত করতে হলে সর্বপ্রথম মাদক প্রতিরোধ করতে হবে। চুরি-ডাকাতি বন্ধ করতে হলেও নিজের সন্তানদের মাদক থেকে দূরে রাখতে হবে। কারন ইয়াবা, মদ, গাঁজা সেবনের জন্য যে ছেলেরা আজ বাপের টাকা খরচ করছে, সে অন্যদিন বাপের টাকা না পেলে পরের বসত বাড়ি, দোকান-পাট ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে চুরি-ডাকাতি সংগঠিত করতে পারে। আইনশৃংখলা বাহিনী সবার ঘরে গিয়ে সন্তানদের পাহারা দিতে পারবে না। সন্তানদের মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার প্রধান দায়িত্ব বাবা-মা, পরিবার-পরিজনের। এখানে কোন অপরাধমূলক কর্মকান্ড হলে এলাকাবাসী তার দায় এড়াতে পারবে না। তবে পুলিশ যেন কোন নিরাপরাধ ব্যক্তিকে হয়রানি না করে সে ব্যাপারে তিনি সজাগ ভূমিকা পালন করবেন।

সাংসদ কমল বুধবার (১৬ আগষ্ট) সন্ধ্যায় রামুর জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের উত্তর মিঠাছড়ি চা বাগান বাজারে চুরি-ডাকাতি, মাদকের প্রসার বন্ধ ও অসামাজিক কার্যকলাপ বন্ধে স্থানীয় জনতার সাথে মতবিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

স্থানীয় প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা ও সাবেক ইউপি সদস্য মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে আয়োজিত মতবিনিময় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজ উল আলম, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান সুপ্ত ভূষন বড়–য়া, জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ প্রিন্স, রামু কেন্দ্রিয় সীমা বিহারের সাধারণ সম্পাদক তরুন বড়–য়া, রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নীতিশ বড়–য়া, জেলা যুবলীগ নেতা পলক বড়ুয়া আপ্পু, আওয়ামীলীগ নেতা সৈয়দ মো. আবদু শুক্কুর, যুবলীগ নেতা নবীউল হক আরকান, মাসুদুর রহমান ও ওসমান গনি, জোয়ারিয়ানালা ইউপি সদস্য জসিমুল ইসলাম, স্থানীয় সমাজসেবক ফরিদুল আলম, চা বাগান বাজার কমিটির সভাপতি ছাবের আহমদ, সাধারণ সম্পাদক দিদারুল আলম, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আজিজুল হক, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের আহবায়ক একেরামুল হাসান ইয়াছিন।

মতবিনিময় অনুষ্ঠানে স্থানীয় জনতা সাংসদ কমলের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানান এবং উত্তর মিঠাছড়ি ও আশপাশের একাটিকে মাদক ও অপরাধমুক্ত করতে সাংসদ কমল ও আইনশৃংখলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

জবাবে সাংসদ কমল বলেন, জোয়ারিয়ানালার উত্তর মিঠাছড়ির বৌদ্ধ বিহারগুলো দেখতে প্রতিদিন দেশ-বিদেশের পর্যটকরা এখানে ছুটে আসছেন। তাই এ এলাকাটিকে আরো সুন্দর ও অপরাধমুক্ত করতে করণীয় সকল উদ্যোগ নেয়া হবে। এজন্য এলাকার সব মানুষের অংশগ্রহনে আগামী কোরবানীর ঈদের দুদিন পর বৃহৎ আয়োজনে আরো একটি মতবিনিময় সভা করা হবে। আলোচনা সভায় রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ, ব্যবসায়ি এবং সর্বস্তুরের শত শত জনতা উপস্থিত ছিলেন।




রামুতে বৌদ্ধ বিহারে দুর্ধর্ষ ডাকাতি, নগদ টাকাসহ মালামাল লুট

রামু প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের রামু উপজেলায় বৌদ্ধ বিহারে দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। সংঘবদ্ধ ডাকাতদল অস্ত্রের মুখে বিহারের অধ্যক্ষ ও সেবককে জিম্মি করে নগদ টাকাসহ মালামাল লুট করেছে। রামুর জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের উত্তর মিঠাছড়ি প্রজ্ঞামিত্র বন বিহারে মঙ্গলবার (১৫ আগস্ট) দিবাগত রাত পৌনে ২টায় এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

খবর পেয়ে বুধবার (১৬ আগস্ট) সকালে কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন ও পুলিশ সুপার ড. ইকবাল হোসেন ঘটনাস্থল দেখতে যান।

বিহারের অধ্যক্ষ সারমিত্র মহাথের জানান, অস্ত্রধারি ডাকাতদল বিহারে প্রবেশ করে সেখানে ঘুমিয়ে থাকা ধন বড়ুয়াকে মারধর শুরু করে। তার আত্মচিৎকারে তিনিও জেগে কক্ষ থেকে বের হতেই ডাকাতদল তাদের দুজনকে অস্ত্রের মুখি জিম্মি করে ফেলে। এসময় আরো কয়েকজন ডাকাত বিহারের নিচতলা ও দ্বিতীয় তলায় চারটি কক্ষে চারটি আলমিরা ভেঙ্গে লুটপাট চালাতে থাকে। প্রায় ৪৫ মিনিট লুটপাট শেষে ডাকাতদল তাদের ভয়ভীতি দেখিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।

ডাকাতদল বিহার থেকে ৪৭ হাজার নগদ টাকা, একটি এলইডি টিভি, ২টি মোবাইল ফোন সেট, দানবাক্সের টাকা সহ বেশকিছু মালামাল লুট করে।

বিহারের সেবক ধন বড়ুয়া জানান, ডাকাতরা বিহারের দ্বিতীয় তলার খোলা জানালা দিয়ে ভিতরে প্রবেশ করে। বিহারে ঢুকে প্রথমে তাকে জোরে লাথি মেরে ঘুম থেকে জাগিয়ে তুলে। এরপর তাকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে চাবি দিতে বলে। তার চিৎকার শুনে বিহারাধ্যক্ষ সারমিত্র মহাথের রুম থেকে বাইরে এলে ডাকাতরা তাকেও জিম্মি করে ফেলে।

পরিদর্শনকালে সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল এ ঘটনাকে নিন্দনীয় উল্লেখ করে বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের রেহাই দেয়া হবে না। অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য তিনি আইনশৃঙ্ক্ষলা বাহিনীকে নির্দেশ দেন। এছাড়া বিহারের নিরাপত্তায় তিনি আইনশৃঙ্ক্ষলা বাহিনীকে আরো কঠোর হওয়ার আহ্বান জানান।

জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন ও পুলিশ সুপার ড. ইকবাল হোসেন বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। অপরাধিদের আইনের আওতায় আনতে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।

এদিকে এ ঘটনার পর পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব এর উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দসহ রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শাজাহান আলি, রামু উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নিকারুজ্জামান ও রামু থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. লিয়াকত আলীও ঘটনাস্থলে যান।




বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে ঠাঁই দিয়েছেন- সাংসদ কমল


রামু প্রতিনিধি:
কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কেবল বাঙ্গালী জাতির নয়, তিনি ছিলেন বিশ্ব নেতা। তাঁর কারণেই বাংলাদেশ বিশ্বের বুকে ঠাঁই করে নিয়েছে। তিনি বেঁচে থাকলে বাংলাদেশ আজ উন্নত দেশের একটিতে পরিনত হতো। আজ তিনি না থাকলেও তাঁর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশে রূপ দিয়ে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। যারা জাতির পিতাকে ভালোবাসে না, যারা আওয়ামীলীগকে ভালোবাসে না, তারা কখনো বাংলাদেশকে ভালোবাসতে পারে না। জাতির পিতা দেশের জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন। আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরাও দেশের জন্য জীবন দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তিনি জাতীয় শোককে শক্তিতে রুপান্তর করে আগামী জাতীয় নির্বাচনে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করার সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়ার আহবান জানান।

সাংসদ কমল মঙ্গলবার (১৫ আগষ্ট) জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে রামু উপজেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি জাফর আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজ উল আলম, কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মুসরাত জাহান মুন্নী, জেলা পরিষদ সদস্য শামসুল আলম চেয়ারম্যান ও নুরুল হক, প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা মাস্টার ফরিদ আহমদ, হাবিব উল্লাহ চৌধুরী, গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদেও চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভূট্টো, রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নীতিশ বড়ুয়া, যুবলীগ নেতা নবীউল হক আরকান, উপজেলা কৃষকলীগের আহবায়ক সালাহ উদ্দিন, যুগ্ন আহবায়ক মিজানুর রহমান, রামু উপজেলা ওলামালীগ সভাপতি মাওলানা নুরুল আজিম, উপজেলা তাঁতীলীগ সভাপতি নুরুল আলম জিকু, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাক আহমদ, উপজেলা শ্রমিকলীগ আহবায়ক শফিকুল আলম কাজল, যুগ্ন আহবায়ক সাহাব উদ্দিন ও আরিফুল ইসলাম, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর ছিদ্দিক, উপজেলা মৎস্যজীবি লীগের সভাপতি সেলিম উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম হোসেন ও মোহাম্মদ নোমান, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদের আহবায়ক একেরামুল হাসান ইয়াছিন।

আলোচনা সভা সঞ্চালনায় ছিলেন, আওয়ামীলীগ নেতা সৈয়দ মো. আবদু শুক্কুর ও ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আজিজুল হক। সভায় রামু উপজেলা আওয়ামীলী, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগ, তাঁতীলীগ, বঙ্গবন্ধু ছাত্র পরিষদ, সৈনিকলীগসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের শত শত নেতাকর্মী ও সর্বস্তুরের জনতা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে রামুতে ২দিন ব্যাপী কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। এরমধ্যে গতকাল ১৫ আগষ্ট ভোরে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত উত্তোলন, কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাজ ধারন, সকাল ১০টায় কোরআনখানি মিলাদ মাহফিল, বিকাল তিনটায় শোকর‌্যালী ও আলোচনা সভা, দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধুর ভাষন প্রচার করা হয়। অনুরুপ কর্মসূচি উপজেলার প্রত্যেক ওয়ার্ড ও ইউনিয়নে পালিত হয়েছেন। কর্মসূচির অংশ হিসেবে আগামী ২২ আগষ্ট রামু স্টেডিয়ামে মেজবানের আয়োজন করা হয়েছে।




রামুতে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালিত

রামু প্রতিনিধি:

রামু উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি পালন করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিলো, ভোর ৬টায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পূষ্পমাল্য অর্পণ, ৬টা ২০মিনিটে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল সাড়ে ৯টায় পবিত্র কোরআনখানি ও মিলাদ মাহফিল।

সকাল ১০টায় রামু চৌমুহনীস্থ দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও রামু উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান সোহেল সরওয়ার কাজল। রামু উপজেলা আওয়ামী লীগ সহ সভাপতি মাস্টার নুরুল আমিনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম মণ্ডল।

ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহিম মুন্সীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি বৃন্দের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি নুর হোসেন মেম্বার, তপন বড়ুয়া, হানিফ বিন নজির ও নুরুল ইসলাম বকুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সুজন শর্মা ও মৃনাল বড়ুয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল হক চৌধুরী, ইউনুচ রানা চৌধুরী, শেখ জুনায়েদ বিপ্লব, অর্থ সম্পাদক সাংবাদিক নুরুল ইসলাম সেলিম, আওয়ামী লীগ নেতা ফরিদুল আলম, ফজল করিম, নাছির উদ্দিন সিকদার, সাবেক ছাত্র নেতা সাব্বির আহমদ, রাজারকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি তারেক সরওয়ার, সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার কমল সোহেল, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ফিরোজ আহমদ, সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহিম, কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মোহা. হোছাইন মেম্বার প্রমুখ।




পর্যটন নগরীর সম্প্রীতি বিশ্বময় ছড়িয়ে দিতে হবে

রামু প্রতিনিধি:

কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্জ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন, কক্সবাজার বিশ্বজুড়ে পরিচিত একটি নন্দিত পর্যটন স্পট। এ শহরের মানুষদের সম্প্রীতিও বিশ্বময় ছড়িয়ে দিতে হবে। লোভ লালসা ভুলে আমাদের মানবিক কাজে নিবেদিত হতে হবে। সন্ত্রাস-জঙ্গীবাদ মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সরকারের পাশাপাশি সব ধর্ম ও মতের মানুষকে একযোগে কাজ করতে হবে।

সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল সোমবার (১৪ আগস্ট) সকালে কক্সবাজার গোলদিঘীর পাড়ে সনাতনী সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভা ও মহা শোভাযাত্রায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

সাংসদ কমল আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার দেশকে অসাম্প্রদায়িক, ক্ষুধা, দারিদ্রমুক্ত করার লক্ষ্যে জনকল্যাণমুখি নানা পদক্ষেপ সফলভাবে বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। যার ফলে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে পরিনত হচ্ছে। সারাদেশে চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের আওতায় পর্যটন নগরী কক্সবাজারকে ঘিরে ব্যাপক উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হচ্ছে। চলমান প্রকল্পগুলোর কাজ শেষ হলেই কক্সবাজার একটি বিশ্বমানের পর্যটন নগরীতে রুপ নেবে।

জেলা জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে ও জেলা প্রশাসনের সহায়তায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ছিলেন, কক্সবাজার জেলা পরিষদের প্রশাসক মোস্তাক আহমদ চৌধুরী। রাজবিহারী দাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক আনোয়ারুল নাসের, কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার ড. একেএম ইকবাল হোসেন, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি অধ্যাপক প্রিয়তোষ শর্মা চন্দন, অধ্যাপক সোমেস্বর চক্রবর্তী, কক্সবাজার পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত মেয়র মাহবুবুর রহমান, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি এডভোকেট রনজিত দাশ, সাধারণ সম্পাদক বাবুল শর্মা, শহর পূজা উদযাপন পরিষদের দীপক দাশ, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) বাবুল চন্দ্র বণিক ও ডিএসবি কাজী মো. হারুন অর রশিদ, সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রনজিত বড়ুয়া প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষ্যে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি কক্সবাজার গোল দিঘীর পাড় থেকে শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।




ঈদগাও ফরিদ আহমদ কলেজে শোক দিবসের আলোচনা সভা

রামু প্রতিনিধি:
কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সোনার বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই বাস্তবায়ন হচ্ছে। জাতির জনক না হলে যেমন বাংলাদেশকে ভাবা যায় না, তেমনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ছাড়া উন্নয়নশীল বাংলাদেশের কথা কল্পনা করা যাবে না। বাংলাদেশ এখন উন্নয়ন, অগ্রযাত্রায় বিশে^র বিস্ময়। আওয়ামীলীগ যখনই ক্ষমতায় এসেছে এদেশে দারিদ্র দূরীকরণসহ মানুষের ভাগ্য পাল্টে গেছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার সফল কারিগর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আগামীতে একটি বিশ^মানের উন্নয়নশীল দেশে রুপ নেবে বাংলাদেশ। এজন্য শিক্ষার্থীদের তথ্য প্রযুক্তিগত জ্ঞানে আরো বেশী উৎকর্ষতার সাথে এগিয়ে যেতে হবে।

সাংসদ কমল রবিবার (১৩ আগষ্ট) দুপুরে ক্সবাজার সদর উপজেলা ঈদগাও ফরিদ আহমদ কলেজে ১৫ আগষ্ট জাতির জনকের শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত শোক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু তালেব, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল করিম মাদু, কক্সবাজার জেলা যুবলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক হুমায়ন কবির চৌধুরী হিমু, ঈদগাহ সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু হেনা বিশাদ, সদর উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি মিজানুল হক প্রমূখ।

অধ্যাপক এছারুর রহমানের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় অধ্যাপক জসিম উদ্দিন, অধ্যাপক হায়দার আলী, অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম বক্তব্য রাখেন।




রামুতে যাত্রীবাহী বাস খাদে, নিহত ১, আহত ২০


রামু প্রতিনিধি:
কক্সবাজারের রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়নের রাবার বাগান এলাকায় চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কে যাত্রীবাহী বাস উল্টে ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহত ইয়াহিয়া ওই বাসের যাত্রী। এ ঘটনায় বাসটির অন্তত ২০ জন যাত্রী আহত হয়েছে। শুক্রবার (১১ আগষ্ট) ভোর ৬টায় এ দূর্ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, কক্সবাজারমুখি সৌদিয়া পরিবহনের বাস (চট্টমেট্টো ব ১১ ০৭২৭) রাবার বাগান মোড়ে পৌছার আগেই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশর্^বর্তী খাদে পড়ে উল্টে যায়। এসময় আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করে। এসময় গাড়ির ভিতরে আটকে পড়া ও আহত যাত্রীরা আর্তচিৎকার দিতে থাকে। গাড়িতে থাকা ৪৫ জন যাত্রীর মধ্যে অন্যান্য যাত্রীরাও আহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক রাজেদ আল হাসান জানিয়েছেন, এ দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত ইয়াহিয়া, ফরহাদ, রাজেশ বড়ুয়া ও ফখরুলকে রামু হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। এরমধ্যে ইয়াহিয়া ও ফরহাদকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয়।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে ইয়াহিয়া প্রাণ হারান। এছাড়া উন্নত চিকিৎসার জন্য গুরুতর আহত ফরহাদকে সকালেই চট্টগ্রাম নিয়ে যাওযা হয়েছে।

ঘটনার পর রামু থানা ও হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে উদ্ধার তৎপরতা চালায়। দূর্ঘটনায় বাসটিও ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

রামু থানার ওসি লিয়াকত আলী খান এ ঘটনায় ১জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।




শীঘ্রই বাঁকখালী নদী শাসনের কাজ শুরু হবে

রামু প্রতিনিধি:

কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল রামু উপজেলার রাজারকুল ইউনিয়নের শর্মা পাড়ায় বাঁকখালী নদীর ভাঙ্গন পরিদর্শন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রানসামগ্রী বিতরণ করেছেন।

এসময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, নদী ভাঙ্গনের শিকার পরিবারগুলোকে দুই বান্ডিল করে ডেউটিন, বাড়ি নির্মাণে অর্থ সহায়তা ও তাদের পূণর্বাসনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে স্থানীয় চেয়ারম্যানের মাধ্যমে চাল পাঠিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত কোন মানুষকে যেন অনাহারে থাকতে না হয় আমি সে ব্যবস্থা করেছিলাম।

রামু কক্সবাজারের দু’একটি ইউনিয়ন ছাড়া সবকটি ইউনিয়ন বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রত্যেক ইউনিয়নেই আমরা ত্রাণ তৎপরতা অব্যহত রেখেছি। সাইমুম সরওয়ার কমল আগামী বছর থেকে রামু-কক্সবাজারের মানুষ বন্যার কবল থেকে মুক্ত থাকতে পারে উল্লেখ করে বলেন, ইতোমধ্যে বাঁকখালী নদী শাসনের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয় থেকে দুইশ তিন কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। আগামী দু’এক মাসের মধ্যেই কাজ দৃশমান হবে।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার জনবান্ধব সরকারের সময়কালে কেউ না খেয়ে থাকবেনা। কোন মানুষ গৃহহীন থাকবেনা। প্রত্যেকের জন্য খাদ্য ও বাসস্থান নিশ্চিত করছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। এমপি কমল বলেন, আওয়ামী লীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকলেই দেশের মানুষ সুখে থাকে, দেশের উন্নয়ন হয়। দেশের সুখ, শান্তি, সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে আগামীতেও শেখ হাসিনার সরকারকে পুনঃ রাষ্ট্রক্ষমতায় আনার আহ্বান জানান তিনি।

রবিবার (৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় বাকঁখালী নদীর ভাঙ্গন পরিদর্শন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রানসামগ্রী বিতরণকালে তিনি এ কথা বলেন।

রাজারকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুফিজুর রহমান মুফিজ’র সভাপতিত্বে সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জাফর আলম চৌধুরী চেয়ারম্যান, রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজ উল আলম।

এতে অন্যান্যদের মধ্যে রাজারকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি তারেক সরওয়ার, রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নীতিশ বড়ুয়া, যুবলীগ নেতা মাসুদুর রহমান, নবীউল হক আরকান, রাজারকুল ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি মাশেকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক জমির উদ্দিন, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুল ইসলাম জয়, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বক্তব্য রাখেন। সভা শেষে সাংসদ কমল সহ নেতৃবৃন্দ বন্যার্ত ও নদী ভাঙ্গনের শিকার জনগণকে ত্রানসামগী বিতরণ করেন।




ক্যান্সারে আক্রান্ত রামু কলেজের মেধাবি ছাত্র নুরুল কবিরকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

রামু প্রতিনিধি:

রামু কলেজের এইচএসসি ব্যবসায় শিক্ষা শাখার মেধাবী ছাত্র নুরুল কবির দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়েছেন। তাকে বাঁচাতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সমাজের বিত্তবান সহ সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন। নুরুল কবির রামু উপজেলার দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়নের উমখালী আবু বক্কর পাড়ার মো. ইউসুফ ও রাজিয়া বেগমের ছেলে। সাম্প্রতিক সময়ে নুরুল কবিরের দেহে ক্যান্সার ধরা পড়ে। বর্তমানে তিনি কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

নুরুল কবিরের বাবা-মা জানিয়েছেন, ছেলের পাকস্থলীতে ক্যান্সার ধরা পড়েছে। অপরারেশনের মাধ্যমে এখন তাকে সুস্থ করা যাবে। কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. নুরুল আলম ও ডা. আরিফ তাদের জানিয়েছেন, ঢাকায় অপারেশন করে নুরুল কবিরকে সুস্থ করা যাবে।

এজন্য প্রায় ৫ লাখ টাকা প্রয়োজন হবে। চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নেয়ার পরামর্শও দিয়েছেন। তবে অর্থের অভাবে দরিদ্র পিতা-মাতার পক্ষে তা সম্ভব হচ্ছে না।

রামু বিশ^বিদ্যালয় কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ আবদুল হক জানিয়েছেন, নুরুল কবির এ কলেজের এইচএসসি ব্যবসায় শিক্ষা শাখার প্রথম বর্ষের মেধাবি ছাত্র। তার রোল নং ২৯৭। নুরুল কবির বর্তমানে মরনব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত। তার বাবা হতদরিদ্র কৃষক। নিজের সর্বস্ব দিয়ে ছেলেকে শিক্ষিত করার স্বপ্ন শুধু নয়, এখন নিজের ছেলের এমন জীবনঘ্যাতি রোগের ফলে একেবারেই দিশেহারা হয়ে পড়েছেন নুরুল কবিরের বাবা-মা সহ পরিবার-পরিজন। তিনি সমাজের বিত্তবান ব্যক্তি, সকল পেশাজীবী এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নুরুল কবিরের চিকিৎসার জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদানের জন্য আবেদন জানিয়েছেন।

কলেজের শিক্ষার্থী তারমিনা আকতার কাজল জানিয়েছেন, সহপাঠি নুরুল কবিরকে দেখার জন্য অনেক শিক্ষার্থী হাসপাতালে গিয়েছিলেন। এমনকি শিক্ষার্থীরাও সামর্থ অনুযায়ী সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের আকুল আবেদন তাদের সহপাঠিকে বাঁচাতে যেন সবাই উদার হস্তে এগিয়ে আসে।

এদিকে রামু উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের ছাত্রীরা একবেলা টিফিনের অর্থ শিক্ষার্থী নুরুল কবিরের চিকিৎসার্থে প্রদান করেছেন বলে জানিয়েছেন, বিদ্যালয়টির শিক্ষক সুমথ বড়ুয়া।

এদিকে সোমবার (৭ আগস্ট) রাতে মুঠোফোনে কথা হয় ক্যান্সার আক্রান্ত নুরুল কবিরের সাথে। নুরুল কবির বাঁচার তীব্র আকুতি জানিয়ে বলেন, বর্তমানে তিনি কক্সবাজার সদর হাসপাতালের ৫ তলায় সার্জারী বিভাগে চিকিৎসাধিন রয়েছেন। তিনি জানান, এখনও তার ক্যান্সার নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। কক্সবাজারে অপারেশন করালে আবার ঢাকায় গিয়ে থেরাপি দিতে হবে। তাতে তিনি ঝূঁকিতে পড়বেন। তাই তাকে চিকিৎসকরা বলেছেন যেভাবে হোক ঢাকায় অপরারেশন করাটাই অনেক নিরাপদ হবে। আর্থিক সংকট সত্ত্বেও আজ মঙ্গলবার (৮ আগস্ট) নুরুল কবির ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেবেন বলেও জানান। নুরুল কবির সকলের কাছে আর্থিক সহায়তা চেয়েছেন।

মেধাবি ছাত্র নুরুল কবিরের চিকিৎসা সহায়তার জন্য নিম্নোক্ত সঞ্চয়ী হিসাব ও বিকাশে অর্থ পাঠানো যাবে। সঞ্চয়ী হিসাব নং, ০১০০১০০৬৯১২৩৪,  জনতা ব্যাংক, রামু শাখা, রামু, কক্সবাজার। বিকাশ নং-০১৬১৯-৫১৯৭৪০। এছাড়া অন্যান্য তথ্যের জন্য মোবাইল ফোন নং ০১৮৭৮-০৫০৯১৭ (নুরুল কবির) ও রামু কলেজের শিক্ষক শহিদ কাজলের মোবাইল ফোন নং ০১৮১৯-৫১৯৭৪০ এ যোগাযোগ করা যাবে।




রামুর গর্জনিয়ায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত হচ্ছে রাবার ড্যাম

রামু প্রতিনিধি:

কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্জ্ব সাইমুম সরওয়ার কমলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় রামু উপজেলার শষ্য ভাণ্ডার হিসেবে খ্যাত দূর্গম পাহাড়ি অঞ্চল গর্জনিয়া ইউনিয়নের গর্জই খালে ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে রাবার ড্যাম নির্মিত হচ্ছে। এরফলে হাজার হাজার কৃষক স্বল্প খরচে চাষাবাদের সুযোগ পাবে। চাষাবাদের আওতায় আসবে বিপুল অনাবাদি জমি। ইউনিয়নের থোয়াইংগ্যাকাটা এলাকায় গর্জই খালের উপর কাঙ্খিত এ রাবার ড্যামের স্থান নির্ধারণ করা হয়েছে।

রবিবার (৬ আগস্ট) দুপুরে রাবার ড্যাম নির্মাণের স্থান পরিদর্শন করেন,  কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল, বিএডিসি’র রাবার ড্যাম নির্মাণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ধীরেন্দ্র চন্দ্র দেবনাথ, রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজ উল আলম, বিএডিসি চট্টগ্রাম অঞ্চলের নির্বাহী প্রকৌশলী (সওকা) আশরাফুজ্জামান, রাবার ড্যাম নির্মাণ প্রকল্পের পরামর্শক মানিক চন্দ্র রুদ্র, গর্জনিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজরুল ইসলাম ও আল নজির ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. হারুন আজীজী।

পরিদর্শনকালে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল স্থানীয়দের উদ্দেশ্যে বলেন, গর্জনিয়া-কচ্ছপিয়া রামুর শষ্য ভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত। এখানে রাবার ড্যাম নির্মাণ হলে এ অঞ্চলের কৃষিক্ষেতে আরো উন্নয়ন সাধিত হবে। কৃষকরা স্বল্প খরচে ধান ও অন্যান্য শষ্য চাষাবাদের সুযোগ পাবে। আবাদী জমিগুলোও চাষাবাদের আওতায় এলে কৃষকরা বাড়তি আয়ের সুযোগ পাবে।

তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার কৃষক ও কৃষির উন্নয়নে অধিক গুরুত্ব দিয়েছে। যার কারণে বর্তমানে দেশে খাদ্য ঘাটতি নেই। আবার কৃষি পণ্যের ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করতে কৃষকদের ভুর্তুকিও দেয়া হচ্ছে।  কৃষকদের উন্নতমানের কৃষি সরঞ্জাম প্রদান করে অধিক ফসল উৎপাদন করা হচ্ছে।

সাংসদ কমল বলেন, কেবল কৃষি নয়, প্রতিটি ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ সরকারের যুগোপুযোগী কর্মকাণ্ডের সুফল জনগণ ভোগ করছে। আগামীতে আওয়ামী লীগ সরকারকে ক্ষমতায় আনার মাধ্যমে দেশের চলমান উন্নয়ন অগ্রযাত্রা ধরে রাখতে হবে।

বিএডিসি’র রাবার ড্যাম নির্মাণ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ধীরেন্দ্র চন্দ্র দেবনাথ জানিয়েছেন, প্রাথমিকভাবে এ প্রকল্পের ব্যয়ভার নির্ধারণ করা হয়েছে ৮ থেকে ১০ কোটি টাকা। আগামী অক্টোবরে দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে নভেম্বরে নির্মাণ কাজ শুরু করা হবে।

পরে সাংসদ কমল থোয়াইংগাকাটা এলাকায় নব প্রতিষ্ঠিত গর্জনিয়া আদর্শ শিক্ষা নিকেতন পরিদর্শন করেন।

এসময় সাংসদ কমলের আহ্বানে সাড়া দিয়ে আল নজির ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ড. হারুন আজীজী একটি ভবন প্রদানের ঘোষণা দেন। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে রামু উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নীতিশ বড়ুয়া, গর্জনিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আইয়ুব সিকদার, যুবলীগ নেতা নবীউল হক আরকান, কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ নাছির উদ্দিন সোহেল সিকদার, সাংসদ কমলের একান্ত সহকারী মিজানুর রহমান, ইউপি মেম্বার আবদুল জব্বার ও সৈনিকলীগ নেতা হুমায়ন কবির উপস্থিত ছিলেন। বিকাল চারটায় সাংসদ কমলসহ নেতৃবৃন্দ গর্জনিয়া ইউনিয়নে চলমান বিদ্যুতায়ন কাজ তদারক করেন।

পরে তিনি রামু উপজেলার রাজারকুল ইউনিয়নের শর্মা পাড়ায় বাঁকখালী নদীর ভাঙ্গন পরিদর্শন ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রানসামগ্রী বিতরণ করেন। এসময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। অন্যান্যদের মধ্যে জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জাফর আলম চৌধুরী, রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজ উল আলম, রাজারকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুফিজুর রহমান মুফিজ, রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নীতিশ বড়ুয়া, যুবলীগ নেতা মাসুদুর রহমান ও নবীউল হক আরকান, রাজারকুল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তারেক সরওয়ার, দক্ষিণ মিঠাছড়ি ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুল ইসলাম জয়, রাজারকুল ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি মাশেকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক জমির উদ্দিন, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ। সভাস্থলে সাংসদ কমল সহ নেতৃবৃন্দ বন্যার্ত ও নদী ভাঙ্গনের শিকার জনগণকে ত্রানসামগী বিতরণ করেন। তিনি নদী ভাঙ্গনের শিকার পরিবারগুলো ডেউটিন ও নগদ অর্থ প্রদান ও তাদের পূর্ণবাসনের ঘোষণা দেন।