রামগড়-সাব্রুম স্থল বন্দর চালুর উদ্যোগ : ফেনী নদীর ওপর মৈত্রী সেতু নির্মাণে ভারতের দরপত্র আহ্বান

Ramgarh 20.1
রামগড় প্রতিনিধি :
খাগড়াছড়ির রামগড়- সাব্রুম স্থল বন্দর চালুর লক্ষ্যে সীমান্তবর্তী ফেনীনদীর ওপর বাংলাদেশ ভারত মৈত্রী সেতু-১ নির্মাণের ঠিকাদার নিয়োগের জন্য দরপত্র আহবান করেছে ভারত। সেদেশের ন্যাশনাল হাইওয়েস এন্ড ইনফ্রাস্টাকচার ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন লিমিটেড (এনএইচআইডিসিএল) নামে সংস্থাটি অনলাইন দরপত্রটি আহবান করে।

ত্রিপুরার বহুল প্রচারিত পত্রিকা দৈনিক সংবাদ ও প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব ওয়েবসাইটে  দরপত্র বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশিত হয়। ফেনীনদীর উপর এক্সটা ডোজড/ ক্যাবল স্টেইড আরসিসি সেতু নির্মাণের দরপত্র দাখিলের শেষ তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি।

জানা যায়, প্রায় ১০০ কোটি ভারতীয় রুপি ব্যয় করে সেতুটি নির্মাণ করবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। আর্ন্তজাতিক মানের  দুই লেনের এ সেতুতে থাকবে ফুটওয়ে এবং এ্যাপ্রোচ রোড। নির্মাণের সময়সীমা ধরা হয়েছে দুই বছর পাঁচ মাস।

এদিকে ত্রিপুরার আগরতলা থেকে প্রকাশিত ডেইলি দেশের কথা পত্রিকায় ১৬ জানুয়ারি‘ফেনী সেতুর অনলাইন টেন্ডার ডাকা হলো’ শিরোনামে প্রকাশিত এক রির্পোটে বলা হয়, ফেনী নদীর উপর প্রস্তাবিত এই আর্ন্তজাতিক সেতু নির্মিত হলে শুধু ভারতের পূর্বোত্তরই নয়, খুলে  যাবে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সাথে বাণিজ্যিক সম্ভাবনা। সেতুটি হলে বাংলাদেশের সঙ্গে সড়কপথে ত্রিপুরাসহ উত্তরপূর্ব রাজ্যগুলোর বাণিজ্যিক আদানপ্রদানের সম্ভাবনা কয়েকগুণ বেড়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শুধু তাই নয়, কাছে এসে যাবে চট্টগ্রাম নৌ বন্দর। সমুদ্র পথে পণ্য পরিবহনের সুযোগও মিলবে।  রামগড়ে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ত্রিপুরা স্টুডেন্টস ফোরামের এক অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে ভারতের লোকসভার পূর্ব ত্রিপুরার এমপি ও ত্রিপুরা রাজ্যসভার  প্রাক্তন মন্ত্রী কমডর জীতেন্দ্র চৌধুরিও বলেছেন, ১-২ মাসের মধ্যে মৈত্রী সেতুর নির্মাণ কাজ শুরু হবে। আর সেতুটি নির্মিত হলে দুদেশের বাণিজ্যিকসহ সার্বিক সর্ম্পক আরও জোরদার হবে।

রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল মামুন মিয়া পার্বত্যনিউজকে বলেন, সেতু নির্মাণের বিষয় নিয়ে রামগড়ে বাংলাদেশ ও ভারতের পদস্থ কর্মকর্তাদের যৌথসভা অনুষ্ঠিত হওয়ার পর গত ডিসেম্বর মাসেই দুদেশের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা যৌথভাবে সরেজমিনে পরিদর্শন-পরিমাপ করে সেতু নির্মাণের প্রস্তাবিত মহামুনি এলাকায় সেতুর এলাইনমেন্টের কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, সর্বশেষ গত ২ জানুয়ারি খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বাংলাদেশ স্থল বন্দর কর্তৃপক্ষের আহবানে রামগড় স্থল বন্দর উন্নয়ন বিষয়ে এক গণ পরামর্শ সভাও অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে, গত বৃহষ্পতিবার ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের উদয়পুর সেক্টরের আইজি মি. ইউপি সারেনঙীর নেতৃত্বে উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা মৈত্রী সেতু নির্মাণের প্রস্তাবিত স্থান সরেজমিনে পরিদর্শন করেছেন। সীমান্তের ওপাড়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র পার্বত্যনিউজকে জানায়, রামগড়ের মহামুনি এলাকার বিপরীতে ভারতের সাব্রুম মহকুমার সীমান্তবর্তী আনন্দপাড়া ও নবীনপাড়ায় সেতু নির্মাণের প্রস্তাবিত এলাকাটি তাঁরা পরিদর্শন করেন। পরিদর্শকদলে বিএসএফের ডিআইজি(অপারেশন) ডিকে বোড়া, ৫১ বিএসএফের কমান্ডিং অফিসার জিএন মিনাসহ মহকুমা প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তারাও ছিলেন।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৬ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতু-১ নামে ফেনী নদীর ওপর প্রস্তাবিত সেতুটির ভিত্তিপ্রস্তরের ফলক উন্মোচন করেন।




রামগড়ের গর্জনতলিতে পৌর কাউন্সিলরের উদ্যোগে কম্বল বিতরণ

IMG_20170111_133130_285 copy

রামগড় প্রতিনিধি:
খাগড়াছড়ির রামগড় পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের গর্জনতলি এলাকায় পৌরসভার কাউন্সিলরের উদ্যোগে দরিদ্র শীতার্তদের মাঝে ৩০০টি কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের উত্তর গর্জনতলি ও দক্ষিণ গর্জনতলি এলাকায় কয়েক দফায় এ কম্বল বিতরণ করা হয়।

ওয়ার্ড কাউন্সিলর বিষ্ণু দত্ত জানান, প্রচণ্ড শীতে দরিদ্র অসহায় মানুষ চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। এসব মানুষের কষ্ট লাঘবে ব্যক্তিগত উদ্যোগে তিনি তার ওয়ার্ডে এ পর্যন্ত প্রায় ৩০০টি কম্বল বিতরণ করেন।




রামগড় ও হালদাভ্যালী চা বাগানে শ্রমিকদের মাঝে ২৩শ কম্বল বিতরণ

RAMGARH 17

রামগড় প্রতিনিধি:

লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং ও পেড্রোলো কোম্পানির উদ্যোগে রামগড় এবং হালদাব্যালী চা বাগানের শীতার্ত চা শ্রমিকদের মাঝে প্রায় দুই হাজার ৩’শটি কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।  কয়েকদিন ধরে প্রচণ্ড শীতে কাঁতর দরিদ্র চা শ্রমিকরা এ কম্বল পেয়ে দারুণ খুশী।

মঙ্গলবার দুপুরে রামগড় চা বাগানের অফিস আঙ্গিনায় ৮শ ৫৩জন পুরুষ ও নারী শ্রমিকের মাঝে একটি করে কম্বল বিতরণ করা হয়। বাগানের সিনিয়র ব্যবস্থাপক মো. জাহাঙ্গীর আলম এ কম্বল বিতরণ করেন।

এ সময়  উপস্থিত ছিলেন, বাগানের  পঞ্চায়েতের সভাপতি মদন রাজঘর, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব মুণ্ডা, ভ্যালী সম্পাদক পরিমল দে ছাড়াও সহকারী ব্যবস্থাপক অসিত সেন গুপ্ত, মো. জাবেদ, মো. জাকির হোসেন, রফিকুল ইসলাম রুবেল, মোহাম্মদ উল্লাহ প্রমুখ ।

এর আগে সোমবার হালদাভ্যালী চা বাগানের শ্রমিক কর্মচারীদের মাঝে প্রায় ১৪শ কম্বল বিতরণ করা হয়। বাগানের সিনিয়র ব্যবস্থাপক মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, কয়েকদিনের প্রচণ্ড শীতে শ্রমিকরা খুব কষ্ট করছিলো। লায়ন্স ক্লাব অব চিটাগাং ও পেড্রোলো কোম্পানি এসব শীতার্ত দরিদ্র শ্রমিকদের দু:খ, কষ্ট লাঘবে কম্বল বিতরণের উদ্যোগ নেয়।




বিশিষ্ট উপজাতীয় নেতা শিক্ষাবিদ নকুল চন্দ্র ত্রিপুরা আর নেই

Ramgarh 14.1.17
রামগড় প্রতিনিধি :
বিশিষ্ট উপজাতীয় নেতা ও পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক যোগাযোগ কমিটির অন্যতম সদস্য শিক্ষাবিদ নকুল চন্দ্র ত্রিপুরা(৯৬) আর নেই। ১৪ জানুয়ারি শনিবার বেলা ২টায় রামগড় পৌরসভার ডেবারপাড় এলাকায় তাঁর নিজ গৃহে তিনি পরলোকগমন করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি চির কুমার ছিলেন।

১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর পার্বত্য শান্তি চুক্তি সম্পাদনের পূর্বে তৎকালীন শান্তিবাহিনীর রাজনৈতিক শাখা পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির নেতৃবৃন্দের সাথে সরকারের যোগাযোগ স্থাপনের অন্যতম মধ্যস্থতাকারীর ভূমিকা পালন করেন তিনি। এ সংক্রান্ত গঠিত পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক যোগাযোগ কমিটির তিনি ছিলেন অন্যতম সদস্য।

এছাড়া ভারতের ত্রিপুরায় আশ্রয় নেয়া পার্বত্য চট্টগ্রামের উপজাতীয় শরণার্থীদের দেশে ফিরিয়ে আনার প্রক্রিয়ায়ও তিনি সরকারকে সহায়তা করেন।

১৯৫২ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ১৯৬৭ সাল পর্যন্ত তিনি রামগড় সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত ছিলেন। বিদ্যালয়টি জাতীয়করণের পর তিনি চাকুরি ছেড়ে দেন। ১৯৬৪ সালে তাঁর উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় রামগড় বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়টি। অনগ্রসর পার্বত্য জনগোষ্ঠীর মাঝে শিক্ষার আলো ছড়াতে তিনি ব্যাপক ভূমিকা রাখেন।

বার্ধ্যক্যের কারণে তিনি বেশ কিছুদিন ধরে স্বাভাবিক চলাফেরা করতে পারছিলেন না। শনিবার তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। প্রবীণ এ নেতার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

রবিবার বেলা ২টায় রামগড় পৌরসভার মহামুনিতে পারিবারিক শ্মশানে তাঁর অন্ত্যেষ্টিক্রীয়া অনুষ্ঠিত হবে বলে স্বজনরা জানিয়েছেন।




৭১’এ বাংলাদেশিদের ত্রিপুরায় আশ্রয় ও সহায়তা দেয়া ছিল আমাদের নৈতিক দায়িত্ব : ত্রিপুরার সাংসদ জীতেন্দ্র

20170113_135444-2 copy
রামগড় প্রতিনিধি :
ভারতের লোকসভার পূর্ব ত্রিপুরার সাংসদ  জীতেন্দ্র  চৌধুরী  বলেছেন, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে  বাংলাদেশের মানুষকে ত্রিপুরায় আশ্রয় ও সহায়তা দেয়া হয়  নৈতিক দায়িত্বে। প্রতিবেশীর প্রতি এটা নৈতিক দায়িত্ব  ছিল ভারতের।  তিনি আরো বলেন, ত্রিপুরার বিলোনীয়ার যুত্যা খোলা নামক স্থানে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি  ক্যাম্প ছিল। সেখানে ভারত বাংলাদেশ মৈত্রী পার্ক নামে একটি পার্ক নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে মুক্তিযোদ্ধাদের তৈরি করা ক্যাম্পের মত একটি  ক্যাম্প নির্মাণ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তৎকালীন ভারতের প্রধান মন্ত্রী  ইন্দিরাগান্ধীর প্রতি মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। আগামী  মার্চ বা এপ্রিল মাসে  পার্কটি উদ্বোধনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

শুক্রবার খাগড়াছড়ির রামগড়ে বাংলাদেশ ত্রিপুরা স্টুডেন্টস ফোরামের দুই যুগ পূর্তি  ও ১২তম কাউন্সিল  উপলক্ষে  আয়োজিত আলোচনা সভায়  গেস্ট অব অনারের বক্তব্যে শ্রী জীতেন্দ্র চৌধুরী এ কথা বলেন।  তিনি আরো বলেন, দারিদ্রতা, অশিক্ষা, কুসংস্কার শুধু ভারত বাংলাদেশের শত্রু নয়। এটা উপমহাদেশের বড় শত্রু।  এই শত্রুর বিরুদ্ধে দুদেশকে এক সাথে লড়তে হবে।

তিনি আরও বলেন, ফেনী নদীর ওপর বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী সেতুর নির্মাণ কাজ খুব শীঘ্রই আরম্ভ করবে ভারত সরকার। দুদেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারের সাথে সাথে সাংস্কৃতিক আদান প্রদানেও এ মৈত্রী সেতু বড় ভূমিকা রাখবে। বাংলাদেশ ভারতের মধ্যে সহযোগিতা আরও জোরদার করতে হবে। বড় দেশ বা ছোট দেশ হিসাবে নয়, সমান মর্যাদায় এগিয়ে যেতে হবে দুদেশকে। ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ভাষা সংস্কৃতি হারিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, পৃথিবী দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। টিকে থাকতে হলে আমাদের ভাষা, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য রক্ষা করতে হবে। এ জন্য দুদেশে নৃ-গোষ্ঠীর মধ্যে যোগাযোগ সমন্বয় থাকা দরকার।

ত্রিপুরা স্টুডেন্টস ফোরামের কেন্দ্রীয় কমিটির  সভাপতি  উবিক ত্রিপুরার সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন খাগড়াছড়ি  জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান  কংজরী  চৌধুরী। প্রথম অধিবেশনে অন্যান্যের মধ্যে রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আল মামুন মিয়া, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের প্রাক্তন সদস্য ভুবন মোহন ত্রিপুরা, সাবেক তথ্য কর্মকর্তা সুরেশ মোহন ত্রিপুরা, ইউপি চেয়ারম্যান মনিন্দ্র ত্রিপুরা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় অধিবেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রামের সংরক্ষিত আসনের মহিলা এমপি ফিরোজা বেগম চিনু। অন্যান্যের মধ্যে রাঙ্গামাটি প্রেসক্লাবের সভাপতি সাখাওয়াৎ হোসেন রুবেল, স্টুডেন্টস ফোরামের নেতা দেবাশীষ ত্রিপুরা, খগেশ্বর ত্রিপুরা প্রমুখ বক্তব্য দেন।

দ্বিতীয় অধিবেশনের পর সন্ধ্যায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

এর আগে শুক্রবার সকালে উপজেলা পরিষদ এলাকা থেকে একটি বর্নাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান র‌্যালির উদ্বোধন করেন। র‌্যালিটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে লেক পার্কে শেষ হয়। তিন পার্বত্য জেলা ছাড়াও চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে যোগ দিতে আসা ত্রিপুরা সম্প্রদায়ের বিপুল সংখ্যক ছাত্রছাত্রী ও বিভিন্ন পেশাজীবী নারী পুরুষ  র‌্যালিতে অংশ গ্রহণ করেন।




রামগড়ে বিজিবির অভিযানে অপহৃত ব্যক্তি উদ্ধার, অস্ত্রসহ চার অপহরণকারী আটক

Ramgarh 12

রামগড় প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির রামগড় উপজেলার দুর্গম পাহাড়ি এলাকা হাতিরখেদায় অভিযান চালিয়ে অপহৃত এক ব্যক্তিকে উদ্ধার ও অপহরণের ঘটনায় জড়িত চার ব্যক্তিকে আটক করেছে বিজিবি। অপহরণকারীর ডেরা থেকে বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্রও উদ্ধার করা হয়। বুধবার গভীর রাতে রামগড়স্থ ৪৩ব্যাটালিয়নের বিজিবি এ অভিযান পরিচালনা করে। বৃহস্পতিবার আটক চার অপহরণকারীকে রামগড় থানায় সোপর্দ ও এ ব্যাপারে পৃথক দুটি মামলা হয়েছে বলেও পুলিশ জানায়।

বিজিবি ও অপহৃতরা জানায়, পূর্ব পরিচয়ের সুবাদে বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে মো. হাসান নামে এক ব্যক্তি এখলাস মিয়া(৩০) ও হোসাইন আহমেদ আনোয়ার(২৮)কে বেড়ানোর কথা বলে রামগড়ের দুর্গম পাহাড়ি এলাকা হাতিরখেদায় নিয়ে যায়। সেখানে একটি বাড়িতে হাত-পা বেঁধে দুজনকে বেদম মারপিট করে ৪৪ হাজার টাকা ও দুটি মোবাইল ফোন সেট ছিনিয়ে নেয় অপহরণকারীরা। এসময় অপহৃতদের কাছ থেকে দুই লক্ষ টাকা মুক্তিপণ দাবী করা হয়। রাত সাড়ে ১১টার দিকে আনোয়ারকে আটকে রেখে এখলাসকে ছেড়ে দেয়া হয় মুক্তিপণের টাকা আনার জন্য। ছাড়া পেয়ে তিনি রামগড়ের মহামুনি ক্যাম্পে এসে ঘটনাটি জানালে নায়েক নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে বিজিবির একটি দল বুধবার রাত দেড়টার দিকে হাতিরখেদায় অভিযান চালায়। বিজিবি দুর্গম ঐ পাহাড়ি এলাকায় অপহরণকারীদের ডেরায় হানা দিয়ে অপহৃত  আনোয়ারকে উদ্ধার করে। এসময় চার অপহরণকারী মো. হাসান, শহিদুল ইসলাম, কালামিয়া ও ওমর ফারুককে আটক করা হয়।  ডেরা তল্লাসী করে পাইপগানের আদলে তৈরী একটি দেশীয় অস্ত্র ও  কিরিচের মত লম্বা দুটি ধারালো দা উদ্ধার করে বিজিবি।

অপহৃত এখলাসের বাড়ি হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলা ও আনোয়ারের বাড়ি মৌলভিবাজারের রাজনগরে। তারা হাই ম্যাক্স ইউনানি নামে একটি ওষুধ কোম্পানির বিক্রয় প্রতিনিধি বলে জানায়। অপহরণকারী হাসানও ঐ কোম্পানিতে কাজ করতো। সেই সুবাদে ওর সাথে তাদের পরিচয় হয় বলেও জানায় এখলাস।

রামগড় থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আনোয়ার জানান, অপহরণ ঘটনার সাথে জড়িত আটক চার ব্যক্তির বিরুদ্ধে  বৃহস্পতিবার থানায় অস্ত্র আইন ও অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়ের অভিযোগে পৃথক পৃথক দুটি মামলা রুজু করা হয়েছে।




রামগড়ে তিন দিনের উন্নয়ন মেলার সমাপ্তি

2017-01-11-13-16-11

রামগড় প্রতিনিধি :
রামগড় উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে আয়োজিত তিন দিনের উন্নয়ন  মেলা সমাপ্ত হয়েছে। বুধবার  মেলার  সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রামগড়  উপজেলা নির্বাহী  অফিসার মো. আল মামুন মিয়া। বিশেষ অতিথির  বক্তব্য  রাখেন সহকারী কমিশনার(ভূমি) তামান্না নাসরিন উর্মি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান  আব্দুল  কাদের।

মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে সেরা স্টলের পুরস্কার  বিতরণ  করা হয়। সেরা স্টল হিসাবে প্রথম স্থান লাভ করে রামগড় পাহাড়াঞ্চল কৃষি গবেষণা কেন্দ্র ও কৃষি বিভাগের স্টলটি।

উপজেলা পরিষদ  এলাকায়  টেনিস মাঠে বিভিন্ন  সরকারি  বিভাগ ও ব্যাংক  মেলায় স্টল স্থাপন করে তাদের  উন্নয়ন কার্যক্রম উপস্থাপন করে। ২৭টি স্টলে সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচি  উপস্থাপন করা হয়।

মঙ্গলবার আয়োজন করা হয় মনোজ্ঞ সংগীতানুষ্ঠান। স্থানীয়  শিল্পীরা এতে গান পরিবেশন করেন। গত সোমবার দেশের অন্যান্য  স্থানের মত রামগড়ে তিন দিনব্যাপী  এ উন্নয়ন  মেলার উদ্বোধন করা হয়।




রামগড়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পুলিশসহ আহত ১৩, গ্রেফতার ৪

ramgarh-pic-4

রামগড় প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির রামগড়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনকে কেন্দ্র করে বুধবার ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় তিন পুলিশসহ অন্তত ১৩ জন আহত হয়েছে। এদিকে পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় ছাত্রলীগের  ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে  কলেজ ছাত্রলীগের উদ্যোগে একটি র‌্যালি রামগড় বাজারে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে আসার সময় সিনেমা হল এলাকায় ছাত্রলীগের অপর গ্রুপের নেতাকর্মীদের সাথে মুখোমুখী হয়। ঐ  এলাকায় শিল্পী কমিউনিটি সেন্টারে ছাত্রলীগের ছোটন গ্রুপ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এ সময় র‌্যালিতে বাধা দেয়াকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়।

এ সময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও লাঠিসোটা দিয়ে হামলার ঘটনা ঘটে। এতে কর্তব্যরত পুলিশের এএসআই রফিক, কনস্টেবল মুনির খান ও বাহারসহ অন্তত ১৩ জন আহত হয়। এদের মধ্যে ২-৩ জন ছাত্রীও রয়েছে। আহত পুলিশ সদস্য মনির খানকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক কাউছার হাবিব শোভন অভিযোগ করে বলেন, কলেজ ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা র‌্যালী নিয়ে দলীয় অফিসে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে আসার সময় সিনেমা হল এলাকায় ছোটন গ্রুপের নেতাকর্মীরা তাদের উপর হামলা চালায়। এতে ৫-৬ জন আহত হয়। তারা র‌্যালিতে অংশ নেয়া ছাত্রীদেরও লাঞ্চিত করে।

অন্যদিকে উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আনোয়ার জাহিদ ছোটন বলেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার অফিসে মঙ্গলবার সিদ্ধান্ত হয়েছিল কোন পক্ষ শোভাযাত্রা বা র‌্যালি করতে পারবে না। এ ব্যাপারে দুই পক্ষই লিখিত অঙ্গীকারনামা দেয় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে। এ সিদ্ধান্ত লঙ্ঘন করে তারা র‌্যালি নিয়ে যাওয়ার সময় ওখানে উপস্থিত থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে এর প্রতিবাদ জানানো হয়। এ সময় র‌্যালি থেকে ইট ছুঁড়ে মারার পর দুপক্ষের মধ্যে সংর্ঘষ শুরু হয়। এতে তার গ্রুপের কমপক্ষে ৫ জন আাহত হয় বলেও তিনি জানান।

রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মাইন উদ্দিন খান বলেন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে যোগ দিতে কলেজ ছাত্রলীগের ছেলে মেয়েরা দলীয় অফিসে যাওয়ার সময় সিনেমা হল এলাকায় ছোটন গ্রুপ তাদের উপর ইট পাটকেল ছুঁড়ে মারে। এসময় পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে কর্তব্যরত এএসআই রফিক, কনস্টেবল মুনির খান ও বাহার আহত হন। এদের মধ্যে কনস্টেবল মনির খানকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে  তিনজন পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় পৌর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জাহিদুল আলম(২০), সদস্য জয়নাল আবেদীন সোহাগ(২০), জহিরুল হক মুন্না(১৮) ও রুবেল(১৮)কে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। এরা সকলে উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আনোয়ার জাহিদ ছোটনের গ্রুপের সদস্য বলে জানা গেছে। ছোটন অভিযোগ করে বলেন, শিল্পী কমিউনিটি সেন্টারে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান শেষ হওয়ার পর পুলিশ তাদের উপর বেধরক লাঠি পেটা করে। এ সময় তাদের ৪ জন নেতাকর্মীকে বেদম প্রহার করে আহত অবস্থায় পুলিশ ধরে নিয়ে যায়।

রামগড় থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আনোয়ার হোসেন বলেন, পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় ২৭ জনকে আসামী করে থানায় একটি ‘পুলিশ এসল্ট’ মামলা রুজু করা হয়েছে। তিনি নিজে এ মামলার বাদি। আটককৃত ৪ জন এ মামলার এজাহারভুক্ত আসামী।




রামগড় স্থলবন্দর নির্মাণের কাজ চলতি বছরের শেষ দিকে শুরু

untitled-1-copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বাংলাদেশ স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান তপন কুমার চক্রবর্তী বলেছেন, বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে শত কোটি টাকা ব্যয়ে খাগড়াছড়ির রামগড় স্থলবন্দর নির্মাণের কাজ চলতি বছরের শেষ দিকে শুরু হবে। ফেনী নদীর উপর মৈত্রী সেতুর ব্যয় বহন করবে ভারত।

তিনি খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে খাগড়াছড়ি জেলার সীমান্ত শহর রামগড়ে প্রস্তাবিত স্থলবন্দর উন্নয়ন বিষয়ে গণপরামর্শ সভায় এ তথ্য জানান।

তিনি আরও জানান, রামগড় স্থলবন্দর  হবে বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যে ২৩তম স্থলবন্দর। ইতিমধ্যে স্থলবন্দর নির্মাণের জন্য রামগড়ের মহামনি এলাকায় ১০ একর জমি অধিগ্রহণের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে। এ সংক্রান্ত প্রকল্প পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মুহাম্মদ ওয়াহিদুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য পরিকল্পনা নুরুল আলম চৌধুরী, বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ নুরুল ইসলাম, স্থলবন্দর কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. হাসান আলী।

সভায় আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য রক্তোৎপল ত্রিপুরা, রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম ফরহাদ ও জেলা পরিষদ মংশেপ্রু চৌধুরী অপু, চেম্বার্স অব কমার্সের সভাপতি সুদর্শন দত্ত, রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাঈন উদ্দিন খান, প্রফেসর সুধীন কুমার চাকমা, ধীমান খীসা, খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের মোহাম্দ, সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কানন আচার্য্যসহ জনপ্রতিনিধি ও সাংবাদিকসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিরা বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ, ২০১৫ সালের  ৬ জুন ঢাকা সফরকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বাংলাদেশের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা এক আনুষ্ঠানিকভাবে খাগড়াছড়ি জেলার সীমান্ত রামগড়ের ফেনী নদীর উপর রামগড়-সাব্রুম মৈত্র সেতু ১ এর ভিত্তি প্রস্তর প্রতিস্থাপন করেন। ইতিমধ্যে বাংলাদেশের রামগড় ও ভারতের সাব্রুম স্থলবন্দর কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষে ভারতীয় অর্থায়নে ফেনী নদীর উপর ৪১২ মিটার দৈর্ঘ্যের মৈত্রী সেতু ১ এর নির্মাণ কাজসহ বাংলাদেশ অংশে অ্যাপ্রোচ সড়কের এলাইনম্যান নির্ধারন করা হয়েছে। ১৫০ মিটার মৈত্রী সেতুর কাজ চলতি মাসেই শুরু হওয়ার কথা রয়েছে।




রামগড়ে গ্রীনহীল এগ্রো ফার্মের মোশাররফ সীড স্টোরের উদ্বোধন

received_344564595924854-1

রামগড় প্রতিনিধি :
রামগড়ে পাহাড়িয়া সোসাইটির উদ্যোগে রবিবার  গ্রীনহীল  এগ্রো ফার্মের মোশাররফ  সীড ষ্টোরের উদ্বোধন হয়েছে।
রবিবার  সন্ধ্যায় রামগড়  বাজারে নতুন প্রতিষ্ঠানটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মো.  মাঈন উদ্দিন আহমেদ।

বিশেষ অতিথি  ছিলেন, উপজেলা  প্রাণী সম্পাদক  কর্মকর্তা ডা. তারেক মাহমুদ। পাহাড়িয়া সোসাইটির চেয়ারম্যান  মোশাররফ  হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ব্যবসায়ী, কৃষকসহ বিভিন্ন পেশাজীবীগণ  উপস্থিত ছিলেন।