রাজস্থলীতে বিশ্ব খাদ্য দিবস ও ইদুর নিধন অভিযান উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

“অভিবাসনের ভবিষ্যত বদলে দাও খাদ্য নিরাপত্তা ও গ্রামীন উন্নয়নের বিনিয়োগ বাড়াও” এই প্রতিপাদ্যে সারা বিশ্বের মত পার্বত্য জনপদ রাজস্থলীতেও পালিত হয়েছে বিশ্ব খাদ্য দিবস ও ইদুর নিধন অভিযান।

সোমবার (১৬ অক্টোবর) রাজস্থলী উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে উপজেলা হল রুমে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুশফিকুর রহমান এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান উথিনসিন মারমা। বিশেষ অতিথি ছিলেন  উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা, ডা. রুইহ্লাঅং মারমা,  ২নং গাইন্দ্যা ইউপি চেয়ারম্যান উথান মারমা,  আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক পুচিংমং মারমাসহ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী,  সাংবাদিক,  রাজনীতিবিদ, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও শিক্ষার্থীবৃন্দ।

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসিবুল হাসান।

সভায় বক্তরা বলেন, সম্প্রতি সময়ে রোহিঙ্গা সংকটের মত বিশ্বব্যাপী অভিবাসন সমস্যা দিন দিন প্রকট হচ্ছে। যার প্রেক্ষাপটে খাদ্যের ঘাটতি দেখা দিচ্ছে। সংকট মেকাবেলায় বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি দ্রুত ফলনশীল ব্যবহার করে খাদ্য ঘাটতি পূরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হচ্ছে বলে বক্তারা জানান। এর পূর্বে প্রধান অতিথি ইদুর নিধন অভিযান উদ্ভোধন করেন।




রাজস্থলীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের দুস্থদের মাঝে সেনাবাহিনীর অনুদান  মাঝে সেনাবাহিনীর অনুদান বিতরণ

 

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়ন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মুলমন্ত্র এর ধারাবাহিকতায় গতকাল রাজস্থলী উপজেলার ১ নং ঘিলাছড়ি ইউনিয়নের রাজস্থলী শ্রী শ্রী হরি মন্দির প্রাঙ্গনে শারদীয় দূর্গোৎসব উদযাপন উপলক্ষ্যে হিন্দু সম্প্রদায়ের অসহায় হত দরিদ্র দুস্থদের মাঝে নগদ অনুদান বিতরণ করেন রাজস্থলী সেনা ক্যাম্পের ওয়ারেন্ট অফিসার মো. জামাল হোসেন।

এ সময় অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সার্জেন্ট এনায়েত হোসেন, রাজস্থলী থানা এএসআই (নিরস্ত্র) মো. শামীম আল মামুন, রাজস্থলী প্রেসক্লাব সভাপতি আজগর আলী খান, মন্দির কমিটির সদস্য ধনরাম কর্মকার, রতন সেন, দীপক চৌধুরী, সঞ্জীত চেীধুরী সহ অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

ওয়ারেন্ট অফিসার জামাল হোসেন বলেন, শারদীয়া দূর্গোৎসব পালনের লক্ষ্যে হিন্দু সম্প্রদায়ের দুস্থদের মাঝে কাপ্তাই ৫ আরই ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল মাহমুদ হাসান (পিএসসি) মহোদয়ের নির্দেশনায় এই অনুদান বিতরণ করা হয়েছে। সেনাবাহিনী পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি, সম্প্রীতি, উন্নয়ন, শিক্ষা, সাংস্কৃতিক ও চিকিৎসা সেবায় বিশেষ অবদান রেখেছেন। সম্প্রতি রাজস্থলী সদর হাসপাতালে প্রতিমাস অন্তর অন্তর ধাত্রী বিদ্যা প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছেন।

প্রশিক্ষণার্থী  রওশন আরা বেগম বলেন, সেনা বাহিনীর এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আমরা বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জন করে দুর্গম পার্বত্য অঞ্চলের খেটে খাওয়া দুস্থ নারীদের সন্তান প্রসবে অগ্রনী ভূমিকা রাখি।

 




রাজস্থলীতে এক যোগে ১০ হাজার তাল গাছের বীজ রোপন

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

বজ্রপাত ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের কবল থেকে মানুষকে রক্ষা করতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসকের সার্বিক তত্ত্বাবধানে সোমবার রাজস্থলী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন গ্রাম মহল্লা, পাড়া, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে এক যোগে ১০ হাজার তাল বীজ রোপন করা হয়েছে।

সোমবার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০ ঘটিকার সময় উপজেলা পুকুর পাড় সংলগ্ন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুশফিকুর রহমান এর সভাপতিত্বে আনুষ্ঠানিক ভাবে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উপজেলা চেয়ারম্যান উথিনসিন মারমা এ তাল গাছের বীজ রোপন করেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাসিবুল হাসান, বিআরডিবি কর্মকর্তা খন্দকার নুরনবি, একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের সমন্বয়কারী লুনা চাকমা, রাজস্থলী রেঞ্জ কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান, থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি উবাচ মারমা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোজাম্মেল হোসেন, ১নং ঘিলাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান সুশান্ত প্রশাদ তঞ্চঙ্গ্যা, উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জ্যোতি ত্রিপুরাসহ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারী, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিথ ছিলেন।

রাজস্থলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এই প্রতিবেদককে জানান, সম্প্রতি সারা দেশে বজ্র পাতে প্রানহানির সংখ্যা ও পরিবেশ বিপর্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই তাল গাছের বীজ রোপন করে বজ্রপাত হতে মানুষকে রক্ষা করতে সরকার এই কর্মসুচী বাস্তবায়ন করছে। তিনি আরো জানান, বজ্রপাত নিরোধক হিসেবে তাল গাছ রোপন করাটা এখন অনেক যুক্তি সংগত।

এর আগে শনিবার নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে এক প্রস্তুতিমুলক সভায় সরকারী-বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে তাল গাছের বীজ বিতরণ করা হয়।

এসব তাল গাছের বীজ রাস্তার পাশে, ইউনিয়ন পর্যায়ে সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান উন্মুক্ত স্থানে রোপন করা হয়েছে। এ মহতি উদ্যোগে সকলে স্বতস্ফুর্তভাবে অংশ গ্রহন করায় রাজস্থলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।




রাজস্থলীতে বর্ষাকালীন ফুটবল এর ফাইনাল সম্পন্ন

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

ঝিমিয়ে পড়া ক্রীড়াঙ্গনকে চাঙ্গা করতে রাজস্থলীতে এক সম্প্রীতি বন্ধনে বর্ষাকালীন ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। এতে ২৪টি দল অংশ গ্রহণ করে ও ফাইনাল খেলায় দুটি দল যথাক্রমে রাজস্থলী বাজার একাদশ বনাম খাগড়াছড়ি উষা ক্রীড়া সংগঠনের মধ্যে মুখোমুখি খেলায় ১-১ গোলে ড্র হয়।

খেলা অমিমাংসিত হওয়ায় ট্রাইবেকারে বাজার একাদশ ৪ গোলে খাগড়াছড়ি একাদশকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় গৌরব অর্জন করে।

অপরদিকে টুর্নামেন্টে কাপ্তাই ৫ আরই ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মাহমুদ হাসান পিএসসি মহোদয়ের পক্ষে রাজস্থলী ক্যাম্পের ওয়ারেন্ট অফিসার জনাব জামাল হোসেনের নেতৃত্বে খেলোয়রদের মধ্যে ৪টি ফুটবল বিতরণ করেন।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান উথিনসিন মারমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুশফিকুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা, অফিসার ইনচার্জ মাহবুল আলম, চেয়ারম্যান সুশান্ত প্রসাদ তঞ্চঙ্গ্যা, সার্জেন্ট হুমায়ুন কবির, এমপি প্রতিনিধি সুভাষ চন্দ্র তঞ্চঙ্গ্যা, বাজার কমিটির সভাপতি শেখ আহম্মদ, গাইন্দ্যা ইউপি চেয়ারম্যান উথান মারমা।

এছাড়াও অগনিত দর্শককের উপস্থিতি পুরো আয়োজনকে অত্যন্ত সফল করে তুলেছে।




‘সততা স্টোরে’ মুগ্ধ শিক্ষার্থীরা

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে সাজিয়ে রাখা হয়েছে বই, খাতা, কলম, পেন্সিল, চকলেট ও নিত্য প্রয়োজনীয় খাবার। কিন্তু সেখানে নেই কোন বিক্রেতা। নেই কোন ক্রেতা। বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে অবস্থিত এমন দোকানের ক্রেতা শিক্ষার্থীরাই।

ওই দোকানের নিয়ম হচ্ছে জিনিস কিনে বক্সে টাকা জমা রাখা। আর রেজিস্টার খাতায় লিপিবদ্ধ করে রাখা। নাম রাখা হয়েছে সততা স্টোর। দেশের নানা বিদ্যালয়ে সততা স্টোর নামে এ ধরণের দোকান চালু হয়েছে এর আগে। উদ্দেশ্য শিশু কাল থেকে শিক্ষার্থীদের শুদ্ধাচার চর্চায় আগ্রহী করে তোলা।

এবার রাঙ্গামাটি জেলাধীন রাজস্থলী উপজেলার রাজস্থলী তাইতং পাড়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে চালু করা হয়েছে সততা স্টোর নামে একটি দোকান। সম্প্রতি সরেজমিনে ঘুরেও দেখা গেছে উক্ত বিদ্যালয়ে একটি কক্ষে সাজিয়ে রাখা হয়েছে খাতা, কলম, পেন্সিল ও খাবারসহ নানা প্রয়োজনীয় জিনিস।

স্কুলের শিক্ষার্থীরা যার যার প্রয়োজন মতো জিনিস নিচ্ছে আর একটি খাতায় টাকার পরিমাণ বসিয়ে বাক্সে টাকা জমা দিচ্ছে।

গতকাল রাজস্থলী তাইতং পাড়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে সততা স্টোর উদ্ভোধন করেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা ও উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সঞ্জয় দেবনাথ, সাংবাদিক চাউচিং মারমা, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপারভাইজার অসিার বিভিশন চাকমা।

বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী আসমিনা খানম মায়া বলেন, এমন দোকান দেখে সত্যি অবাক হয়েছি। টিফিনের টাকা দিয়ে সে একটি খাতা ও একটি কলম কিনেছে। এমন দোকান দেখে খুবই ভাল লাগছে। এখানে কোন বিক্রেতা নেই। সবাই যার যার পছন্দমত জিনিস কিনে বাক্সে টাকা দিয়ে যাচ্ছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা স্নিগ্ধা চাকমা বলেন, দেশের অনেক বিদ্যালয়ে সততা স্টোর চালু হয়েছে। শিক্ষার্থীদের মধ্যে খুব ভাল সাড়া জাগিয়েছে এ কর্মসুচি। ভবিষ্যতে সৎ নাগরিক হয়ে উঠতে এ অভিজ্ঞতা কাজে আসবে তাদের।

সততা স্টোর সম্পর্কে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের আশা আগামী প্রজন্ম সৎ নাগরিক হয়ে উঠতে সততা স্টোরের শিক্ষা কাজে আসবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার শুধু দেশের উন্নয়ন করছে তা নয়। তিনি শিক্ষা ক্ষেত্রেও ব্যাপক পরিবর্তন এনেছেন। শিক্ষা ক্ষেত্রে পরিবর্তনের নতুন প্রকল্প হচ্ছে সততা স্টোর। এর মাধ্যমে ছাত্র ছাত্রীরা হয়ে উঠবে আদর্শবান, নৈতিক এবং ভদ্র আগামীতে এই উপজেলায় অন্যান্য বিদ্যালয় গুলোর মধ্যে সততা স্টোর চালু হবে।




বাঙ্গালহালিয়ায় নিরাপত্তাবাহিনীর উদ্যোগে মত বিনিময় সভা

 

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

শান্তি সম্প্রীতি উন্নয়ন এই ধারাকে অব্যাহত রেখে দুর্গম পার্বত্য রাজস্থলী উপজেলার বাঙ্গালহালিয়া সেনা ক্যাম্পের পরিচালনায় কাপ্তাই ৫ আরই ব্যাটালিয়নের উদ্যোগে এক মতবিনিময় সভা বৃহস্পতিবার ১০ টার সময় বাঙ্গালহালিয়া ক্যাম্প কমান্ডার মেজর ফজজুল কবির এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কাপ্তাই জোন এর উপ-অধিনায়ক ভারপ্রাপ্ত সিও মেজর তানভির আহম্মদ পিএসসি।

এসময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাঙ্গালহালিয়া ক্যাম্পের সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার এমদাদুল ইসলাম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান থোয়াইসুইখই মারমা, ৩নং বাঙ্গালহালিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ঞোমং মারমা ও চট্টগ্রাম জেলাধীন কোদালা ইউপি চেয়ারম্যান কাইয়ুম তালুকদার, ২নং রাইখালী ইউপি চেয়ারম্যান সায়মং মারমা, বাঙ্গালহালিয়া কলেজের প্রভাষক উট্টরা ভিক্ষু, সাংবাদিক মো. ইলিয়াস ও রাজস্থলী প্রেসক্লাবের সভাপতি মো. আজগর আলী খান, বাঙ্গালহালিয়া বাজার কমিটির সভাপতি আবু সয়দ তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক অরুন সেন, বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য, সদস্যা হেডম্যান, কার্বারী ও গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় প্রাধান অতিথি মেজর তানভির আহম্মদ বলেন, বর্তমান সময়ে মায়ানমারের রোহিঙ্গারা এ উপজেলায় অবস্থান করতে পারে। তাদেরকে স্ব-সম্মানে এনে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর মধ্যে সোপর্দ করতে হবে। তাদেরকে শারিরীকভাবে নির্যাতন নিপীড়ন হয়রানি না করার আহবান জানান।

তিনি আরো বলেন, অচেনা অপরিচিত লোক সন্দেহ করা হলে তাদেরকে আইনের আওতায় এনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে খবর দিতে হবে। সন্ত্রাসী, অস্ত্রধারী ও চাঁদাবাজ যে হোক না কেন তাদেরকে ছাড় দেওয়া যাবে না।

উন্নয়ন মূলক কর্মকাণ্ড ও এলাকার আর্থসামাজিক উন্নয়নে সার্বিক সহযোগিতা করার নিরাপত্তাবাহিনীর পক্ষথেকে আশ্বাস দেন আশ্বাস দেয়া হয়।




বাঙ্গালহালিয়ায় পারিবারিক কলহের জের ধরে এক ব্যক্তির আত্মহত্যা

 

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

জেলার রাজস্থলী উপজেলার ৩নং বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়নের খ্যংদং পাড়ায় অমর (২২) নামে এক ব্যক্তি স্ত্রীর সাথে অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে।

স্থানীয় ও ইউপি চেয়ারম্যান ঞোমং মারমা জানান, অমর প্রতিদিনের ন্যায় কাজকর্ম শেষে বাড়িতে ফিরলে স্ত্রীর সাথে কথা কাটাকাটি হয়। পরে তার স্ত্রী রাগান্বিত হয়ে অভিমান করে বাপের বাড়িতে চলে যায়। অপরদিকে অমর অপমান সহ্য করতে না পেরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে। সন্ধ্যায় তার স্ত্রী বাড়িতে এসে দেখতে পায় তার স্বামী ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। স্ত্রী তার লাশ দেখে চিৎকার করলে আশপাশের লোক এসে বিষয়টি তাৎক্ষনিক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে অবগত করেন।

পরে চেয়ারম্যান বাঙ্গালহালিয়া পুলিশ ফাঁড়িকে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে প্রাথমিক তদন্ত পর পরিবারের নিকট হস্তান্তর করেন। পরিবারের পক্ষে কোন অভিযোগ না থাকায় লাশ সৎকার করার অনুমতি দেন চন্দ্রঘোনা থানার পুলিশ। এ ব্যাপারে চন্দ্রঘোনা থানায় একটি ইউডি মামলা করা হয়েছে।




রাজস্থলীতে পোনা মাছ অবমুক্ত


রাজস্থলী প্রতিনিধি:

জেলার রাজস্থলী উপজেলা মৎস্য অফিস কর্তৃক রাজস্বখাতের আওতায় উপজেলার বিভিন্ন জলাশয় প্রাতিষ্ঠানিক ক্রীক ও পুকুরে পোনা মাছ সোমবার সকাল ৯টায় উপজেলা চেয়ারম্যান উথিনসিন মারমা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রায় ৩০০ কেজি ২৯টি জলাশয়ে পোনা মাছ অবমুক্ত করেন।

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলার মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আব্দুর রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অংনুচিং মারমা, মৎস্য অধিদপ্তর প্রতিনিধি সঞ্জয় কুমার মোহন্ত ফিশারী মেরিন অফিসার, উপজেলা আওমীলীগ সভাপতি উবাচ মারমা, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লংবতি ত্রিপুরা, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সঞ্জয় দেবনাথ, সাংবাদিক মো. আজগর আলী খানসহ বিভিন্ন ক্রীক ও জলাশয়ের মালিকগন।

বিতরণকালে প্রাধান অতিথি বলেন, সরকার প্রদত্ত দুর্গম পার্বত্য এলাকায় মাছের চাহিদা মিটাতে একর্মকান্ড হাতে নিয়েছেন। পোনাগুলো রক্ষনাবেক্ষন কওে এলাকায় মাছের চাহিদা পুরণ করতে হবে।




ঢলের পানিতে ভেসে যাওয়া মারমা নারীর লাশ উদ্ধার


নিজস্ব প্রতিনিধি : রাজস্থলীর কোলাগংশে মুখ গত রোববার সকাল সাড়ে দশটায় পাহাড়ী ঢলের পানিতে ভেসে যাওয়ায় মারমা নারী লাশ মঙ্গলবার (২৫ জুলাই) কাপ্তাই মুখ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। লাশটি মারমা সম্প্রদায়ের রীতিনীতি অনুসারে উদ্ধার হওয়া স্থানের পাশে কবর দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান উথান মারমা বলেন, কাপ্তাই মুখে গভীর পানিতে ঘুর্নায়ন অবস্থায় স্থানীয় কাজের লোকেরা দেখতে পায়। পরে মোবাইলের মাধ্যমে জানানো হয়। এদিকে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন পক্ষ থেকে নগদ বিশ হাজার টাকা ও ৩০ কেজি চাউল অনুদান দেয়া হয়েছে।




রাজস্থলীতে সিসিডিআর এর সঞ্চয়কৃত ১ কোটি টাকা ফেরৎ পাওয়ার আশা হারিয়েছে গ্রাহকেরা

রাজস্থলী প্রতিনিধি:

জেলার রাজস্থলী উপজেলায় সিসিডিআর (সেন্টার ফর কমিউনিটি ডেভেলবম্যান্ট এন্ড রিসার্চ) নামের একটি বেসরকারি এনজিও সংস্থা রাজস্থলীর গ্রাহকদের সঞ্চয়কৃত টাকা আদায় করে বর্তমানে নিরব ভূমিকা পালন করছে। অপর দিকে প্রশাসন সিসিডিআরএর কাউখালী, বান্দরবান ও চট্টগ্রাম জেলার রাউজান উপজেলার কার্যালয়গুলো বন্ধ করে দেওয়ার পর রাজস্থলী শাখায় কর্মরত কর্মীরা কার্যক্রম স্থগিত করে রেখেছে। রাজস্থলী গ্রাহকদের অভিযোগ রাজস্থলী বাজার মহব্বত পাড়া নামক স্থানে একজন ব্যবসায়ীর বাসায় ভাড়াকৃত সিসিডিআর এর অফিস। ওই অফিসে কর্মরত আছেন  রুবেল বড়ুয়া তার সহযোগী হিসেবে আছেন মাঠকর্মী লক্ষী চক্রবর্তী ও ঞোলিপ্রু মারমা এরা সবাই একই এলাকার ছেলে মেয়ে।

অফিস সূত্রে জানা যায়, প্রায় ৫ বছর পূর্ব হতে সিসিডিআর এর মাইক্রোক্রেডিট এর কার্যক্রম চালিয়ে আসছে তারা। কিন্তু কর্মী রদবদলের কারণে ওই প্রতিষ্ঠানের কোন হিসাব নিকাশ নেই বলে জানা গেছে। গ্রাহকদের সাথে কর্মীদের মধ্যে প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন না করায় অনেক সময় বাকবিতণ্ডার ঘটনা রয়েছে। আর এসব ঘটনা নিরসন করতে এলাকার জনপ্রতিনিধিদের দিয়ে সামাল দিতে হয়।

গ্রাহকরা আরো জানান, তাদের সঞ্চয়কৃত টাকা ৫ বছর পর একসাথে উত্তোলন করা যাবে বলে একটি চুক্তিবদ্ধ হয়। সঞ্চয়এর ফাঁকে ফাঁকে গ্রাহকদের বোনাস ও ঋন দেওয়া হবে বলে আশ্বাস প্রদান করেন। বোনাসতো দুরের কথা কিন্তু বোনাসের কথা বললে উল্টো সাশিয়ে দেন কর্মীরা।

কর্মীরা বলেন, নিয়মনিতির মধ্যে দিয়ে আপনারা সঞ্চয় প্রদান করলে ঋন ও বোনাস পেতে কোন অসুবিধা হবে না। আর ঋন পেতে গ্রাহকদের অপেক্ষারও শেষ ছিল না। নিয়ম অনুসারে জমাকৃত টাকার অনুকুলে সুধের হার ২৫% দেওয়ার কথা ছিল। তবে সেই অর্থও কেউ পায়নি।

সরেজমীনে দেখা গেছে, অনেক অনেক সম্ভ্রান্ত পরিবারের লোকজনও জমাকৃত অর্থ ফেরৎ পাওয়া নিয়ে সংশয়ে রয়েছে।

চন্দ্রঘোনা পত্রিকার এজেন্ট মো. আবু তাহের পার্বত্যনিউজকে জানান, তিনি ৪০ হাজার টাকা সঞ্চয় জমা করেছেন। অপরদিকে রাজস্থলী উপজেলার কয়েকজন গ্রাহক জানান, কেউ ৭০ হাজার আবার কেউ ৯০ হাজার এমনকি ১ লক্ষ টাকার উপরেও সিসিডিআর এ সঞ্চয় জমা করেছেন। এধরনের এ উপজেলায় প্রায় ৪২০জন গ্রাহকের জমা টাকা এ প্রতিষ্ঠানে রয়েছে। বর্তমানে গ্রাহকের এ টাকা ফেরৎ পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তায় ভুগছেন। অপরদিকে সিসিডিআরএর দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপক রুবেল বড়ুয়ার সাথে আলাপ করে জানা যায়, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর উপজেলা প্রশাসনের সাথে মিটিং বা আলোচনা সিসিডিআর এর কার্যক্রম নিয়ে কোন কথাবার্তা হয়নি।

এক প্রশ্নে জবাবে তিনি বলেন, আদায়কৃত সঞ্চয়গুলো বিকাশের মাধ্যমে সিসিডিআর এর হেড অফিসে পাঠানো হতো। টাকা আদায় এবং পাঠানোর বিল ভাউচার দেখাতে পারেননি। পূর্বের কর্মরত কর্মীদের কার্যক্রম সম্পর্কে সঠিক কোন তথ্য প্রদান করতে পারেননি। এব্যাপারে সিসিডিআর এর পরিচালক রাঙ্গামাটি তবলছরি স্বর্ণটিলা এলাকার অধিবাসী জাহিদুল আলম জাহিদের সাথে মুঠোফোনে সংযোগ নিতে চাইলে মুঠোফোন বন্ধ পাওয়ায় সঠিক বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। সিসিডিআরএর বিভিন্ন অভিযোগ রাজস্থলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা যতন মারমাকে অবহিত করেছেন বলে গ্রাহকরা জানান।

এসম্পর্কে নির্বার্হী কর্মকর্তার সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, সিসিডিআর এর বিরুদ্ধে গণমাধ্যমের অনেক পত্র পত্রিকায় শুনেছি । রাজস্থলীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাদের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেবেন বলেও জানান।