রমজান মাসের পবিত্রতা রক্ষা করা সকলের দায়িত্ব- কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা


মহালছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ি জেলার মহালছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ৬৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত ও পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি ২৯৮ নং খাগড়াছড়ি।

শুক্রবার বিকালে উপজেলা টাউন হলে আওয়ামী লীগ মহালছড়ি শাখা ও এর সকল সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত এই ৬৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন রমজান হচ্ছে পবিত্র মাস এ মাসের পবিত্রতা রক্ষা করা হচ্ছে সকলের দায়িত্ব।

প্রধান অতিথি আরো বলেন ধর্ম যার যার উৎসব সবার। এ উৎসব সবার মাঝে ছড়িয়ে দিয়ে সাম্পদায়িক সম্প্রীতি বন্দন অটুট থাকার আশা ব্যক্ত করেন। তিনি সাধারণ মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আওয়ামী লীগের সাথে থেকে এ সরকারের উন্নয়ন কাজকে গতিশীল করার আহ্বান যানান।

৬৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী ও ইফতার মাহফিলে মহালছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নিলুৎপল খীসার সভাপতিত্বে এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামিলীগের সহ সভাপতি কল্যাণ মিত্র বড়ুয়া, জেলা আওয়ামিলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদের সদস্য আশুতোষ চাকমা, এ্যডভোকেট সুপাল চাকমা, মহালছড়ি উপজেলা আওয়ামিলীগের সহ সভাপতি চিন্তা হরন শার্মা, সাধারন সম্পাদক ও মহালছড়ি ১নং সদর ইউপি চেয়ারম্যান রতন কুমার শীল, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক সুলতান মাহমুদ, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম মাসুদ, উপজেলা ছত্রলীগের সভাপতি জিয়াউর রহমান (জিয়া) ও আওয়ামিলীগের অংগসগঠনের নেতৃবৃন্দ সহ প্রমূখ।




পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের ইফতার মাহফিল


নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি :
জেলার পানছড়িতে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে এক ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহষ্পতিবার বিকাল ৫টা থেকে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. বাহার মিয়া।

যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ৩নং সদর পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ২৯৮ নং খাগড়াছড়ি আসনের সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। তিনি বলেন, ধর্ম যার যার, উৎসব সবার। পানছড়িতে যে সকল সম্প্রদায়ের সহবস্থান এই ইফতার মাহফিলের মধ্যে দিয়ে তার চিত্র ফুটে উঠেছে।

এ সময় অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য খগেশ্বর ত্রিপুরা, সতীশ চন্দ্র চাকমা, উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ আবুল হাশেম, অফিসার ইনচার্জ মো: আ: জব্বার, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জয়নাথ দেব, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক বিজয় কুমার দেব ও সকল ইউপি চেয়ারম্যান। ইফতার শুরুর পূর্বে দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি এবং শান্তি কামনায় বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।




লক্ষ্যারচর আওয়ামীলীগের ইফতার পাটি


চকরিয়া প্রতিনিধি :
চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম বলেছেন, আওয়ামীলীগের ভেতর খন্দকার মোস্তাকের অনুসারীরা বহাল তবিয়তে ছিলো বলেই সেইদিন বাঙ্গালী জাতির স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্ব-পরিবারে শাহাদাৎ বরণ করতে হয়েছিলো। জাতির পিতাকে হত্যার পর খুনী চক্র পেছনের দরজায় ক্ষমতায় এসে বাংলাদেশের রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব দেন। কিন্তু তাদের সেই খায়েশ বেশি দিন পুরণ হয়নি। বাঙ্গালী জাতি আবারো গর্জে উঠে সেই হায়েনাদের বিতাড়িত করতে, সফলও হয়েছে।

তিনি বলেন, অনেক ঘাত প্রতিঘাত অতিক্রম করে জাতির পিতার সুযোগ্য উত্তরসুরী দেশরত্ম শেখ হাসিনা বাংলাদেশে এসে কোটি মানুষের অনুপ্রেরণায় আওয়ামীলীগের হাল ধরেন। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে বাংলাদেশ সব ক্ষেত্রে এগিয়ে যাচ্ছে, বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনাময় রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। রোববার বিকেলে চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের আয়োজিত ইফতার পাটি ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ইউনিয়নের ছিকলঘাটস্থ আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি রেজাউল করিম সেলিমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক খ.ম বুলেটের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফাসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি সাবেক ছাত্রনেতা সরওয়ার আলম, সহ-সভাপতি মোক্তার আহমদ চৌধুরী, বাবু এমআর চৌধুরী, ছৈয়দ আলম কমিশনার, যুগ্ম সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা জামাল উদ্দিন জয়নাল, বিএমচর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বদিউল আলম, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কাকারা ইউপি চেয়ারম্যান শওকত ওসমান, সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক মিজবাউল হক, উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য নুরুল আবছার সওদাগর, বন ও পরিবেশ সম্পাদক সাহাব উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক মোহাম্মদ মুছা (দুবাই), সদস্য সামসুল আলম, আবছার উদ্দিন মাহমুদ। বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মহিউদ্দিন নোমান, জাফর আলম, আমান উল্লাহ আমান, যুগ্ম সম্পাদক কামাল উদ্দিন, শ্রম সম্পাদক আইযুব ড্রাইভার, প্রচার সম্পাদক আজহার উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তারেকুল ইসলাম চৌধুরী, অহিদুজ্জামান অহিদ, ইউপি মেম্বার সোহরাব হোসেন নান্নু,  উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম চৌধুরী, ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক মইনউদ্দিন, আকবর হোসেন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা ফরহাদ হোসেন, নয়ন, কৃষকলীগ নেতা মহিউদ্দিন, ছাত্রলীগ নেতা জাবেদ হোসেন ইরফান, সাদ্দাম হোসেন, মুরাদুল করিম সিপাত প্রমুখ।

এছাড়াও অনুষ্টানে উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিকলীগসহ সহযোগি সংগঠনের অসংখ্য নেতাকর্মী ও ইউনিয়নের কয়েকজন জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভা শেষে উপস্থিত সকলের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়।




রাঙ্গামাটিতে পাহাড়ধসে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছে বিএনপি


নিজস্ব প্রতিনিধি :

রাঙ্গামাটিতে পাহাড়ধসে নিহত ও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর পাশে দাঁড়াতে বিএনপির উচ্চ পর্যায়ের একটি প্রতিনিধিদল দুর্গত এলাকা পরিদর্শনে যাচ্ছে রোববার। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় পরিদর্শনে যাচ্ছেন তারা।

চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর নেতৃত্বে স্থানীয় বিএনপি নেতারাসহ পার্বত্য এলাকা পরিদর্শনে যাবেন।




মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত’র মৃত্যুতে বিএনপির সকল কর্মসূচী স্থগিত


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি: খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত (৫২) অকাল মৃত্যুতে জেলা সদরের জেলা বিএনপি, পৌর বিএনপি এবং জেলা ছাত্রদলের ইফতার মাহফিলসহ সকল প্রকার কর্মসূচী স্থগিত করা হয়েছে।

শুক্রবার দুপুর ১.৫০টায় ঢাকা পিজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫২ বছর। তার অকাল মৃতুতে জেলায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও দুই ছেলেসহ বহু আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব এবং গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

চলতি বছরের ২ মার্চ খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত। কিন্ত ঐ মহুর্তে তার ব্রেন ক্যানসার ধরা ধরে। রাজনীতিতে ত্যাগী ও আপোসহীন নেতা হিসেবে পরিচিতি মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত আন্দোলন করতে গিয়ে বহুবার কারাভোগ করেছে।

মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাতে অকাল মৃত্যুতে খাগড়াছড়িতে শোকের ছাড়া নেমে এসেছে। তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে নেতাকর্মীরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাতে অকাল মৃত্যুতে বিএনপির চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া, মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভূইয়া পৃথক শোক বার্তা দিয়েছেন।

শোক বার্তায় নেতৃবৃন্দ মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বলেন, মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত’র অকাল মৃত্যুতে খাগড়াছড়ি রাজনৈতিক অংগনের যে ক্ষতি হয়ে তার পূরণ হবার নয়।




খাগড়াছড়ি বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিল্লাত ইন্তেকাল করেছেন, খালেদা জিয়াসহ বিভিন্ন মহলের শোক


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি: সদ্য ঘোষিত খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত ইন্তেকাল করেছেন(ইন্নহিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

তিনি শুক্রবার দুপুর ১.৫০টায় ঢাকা পিজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫২ বছর। তার অকাল মৃতুতে জেলায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও দুই ছেলেসহ বহু আত্মীয়-স্বজনসহ বন্ধু-বান্ধব এবং গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

চলতি বছরের ২ মার্চ খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয়। ঘোষিত কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত। কিন্তু ঐ মহুর্তে তার ব্রেন ক্যানসার ধরা পড়ে। চিকিৎসার জন্য প্রথমে ঢাকার এ্যাপোলো এবং পরে ভারতে নেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, বিএনপির আগের কমিটিতে তিনি সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। রাজনীতিতে ত্যাগী ও আপোসহীন নেতা হিসেবে পরিচিত মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাত আন্দোলন করতে গিয়ে বহুবার কারাভোগ করেছেন।

মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাতে অকাল মৃত্যুতে খাগড়াছড়িতে শোকের ছাড়া নেমে এসেছে। তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে নেতাকর্মীরা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাতে অকাল মৃত্যুতে বিএনপির চেয়ারপার্সন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া, মহাসচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক সংসদ সদস্য ওয়াদুদ ভূইয়া পৃথক শোক বার্তা দিয়েছেন। শোক বার্তায় মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে নেতৃবৃন্দ বলেন, মোস্তাফিজুর রহমান মিল্লাতের অকাল মৃত্যুতে খাগড়াছড়ি রাজনৈতিক অংগনের যে ক্ষতি হয়ে তার পূরণ হবার নয়।




সর্বক্ষেত্রে পার্বত্য বাঙালিদের সাংবিধানিক অধিকার দিতে হবে

18901371_725631354306132_1958433159_o
প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

মোটর সাইকেল চালক নুরুল ইসলাম নয়ন (৪০) কে পরিকল্পিত ভাবে উপজাতি সন্ত্রাসী কর্তৃক হত্যার তীব্র্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন পার্বত্য নাগরিক পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জি: আলকাছ আল মামুন ভুইয়া। একই সাথে আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান তিনি। অন্যথায় পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ ও পার্বত্য নাগরিক পরিষদ রোববার হরতালসহ কঠিন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে।

শনিবার মো. সাহাদাৎ ফরাজি সাকিবের সভাপতিত্বে এক প্রতিবাদ সমাবেশে মামুন ভুইয়া এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

এ সময় নেতৃবৃন্দ বলেন, মহালছড়ির সাদিকুলকে যে ভাবে ডেকে নিয়ে পরিকল্পিত ভাবে হত্যা করা হয়েছে ঠিক একই ভাবে বৃহস্পতি বার দুপুর ১২টার সময় দিঘীনালা সড়কের চার মাইল নামক স্থানে লংগদু উপজেলা বাইট্রা পাড়ার মোটর সাইকেল চালক নুরুল ইসলাম নয়ন (৪০)কে ভাড়ার নামে উপজাতীয় সশস্র সন্ত্রাসীরা হত্যা করে।

লংগদুতে বাঙালিরা যখন নয়নের লাশের জানাজা ও বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ব্যস্ত ঠিক তখনই জেএসএস কর্মীরা উপজাতিদের ভাঙ্গা ও অকেজু ঘরে আগুন লাগিয়ে নয়ন হত্যার বিষয়টিকে ধামা চাপা দেয়ার চক্রান্ত চালায়।  ফেইসবুকে নাস্তিক ইমতিয়াজ মাহমুদ তার স্ট্যাটাসে উপজাতি সন্ত্রাসী কর্তৃক নিহত নুরুল ইসলাম নয়নকে শিবিরের কর্মী বলে উল্লেখ করে বিষয়টিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার পায়তারা করছেন। তার এহেন মানসিকতার নিন্দা জানিয়ে ইমতিয়াজ মাহমুদ এর কাছে প্রশ্ন উপজাতি সন্ত্রাসী কর্তৃক পার্বত্য চট্টগ্রামে আর কত নিরীহ বাঙালী খুন হলে তাদেরকে আপনি মানুষ হিসেবে গণ্য করবেন।

আপনারা নিশ্চয়ই জানেন, উপজাতিদের একটা পুরাতন কৌশল যে কোন ইস্যুতে তারা বাঙালীদের হত্যা করে, বাঙালী হত্যার দৃষ্টি অন্যদিকে প্রবাহিত করতে তারা নিজেরা নিজেদের ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। বারং বার একই রকম কাজ করে লাভবান হয় উপজাতিরা। কারণ বাঁশের বেড়ার ঘরের পরিবর্তে পাকা দালান ও তার সাথে সারা জীবন ঘরে বসে বসে খাবার মত বিপুল পরিমাণ সরকারি ও আন্তর্জাতিক সাহায্য তারা খুব সহজে পায়। এজন্য তাদের কাজই হচ্ছে জাতীয় বা আন্তর্জাতিক ভাবে বাঙালিদের তথা বাংলাদেশকে বহির্বিশ্বের কাছে হেয় প্রতিপন্ন করা। (৫ আগষ্ট ২০১৩ইং সাল) তাইন্দং ট্র্যাজেডি উজ্জল উদাহরণ। নাস্তিক ইমতিয়াজ মাহমুদের মত উস্কানিতে এ মুহুর্তে সকলকে ধৈর্য্য ধারণের আহ্বান জানান নেতৃবৃন্দ।

সমাবেশে পার্বত্য নাগরিক পরিষদের যুগ্ন সম্পাদক শেখ আহাম্মদ রাজু, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় নেতা সারোয়ার জাহান খানও পার্বত্য নাগরিক পরিষদের মো. সিরাজুল ইসলাম  বক্তব্য রাখেন।

অন্য দিকে রাঙ্গামাটিতে পার্বত্য নাগরিক পরিষদের আহ্বায়িকা বেগম নুর জাহান ও জাহাঙ্গীর এর নেতৃত্বে বি্ক্ষোভ মিছিল, খাগড়াছড়িতে পার্বত্য বাঙালি ছাত্রপরিষদের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আবদুল মজিদ/আসাদ এর নেতৃত্বে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয় । 




নয়ন হত্যাকারীদের গ্রেফতার করা না হলে কঠোর কর্মসুচির হুঁশিয়ারী রাঙ্গামাটি যুবলীগের

news pic
রাঙামাটি প্রতিনিধি: লংগদু উপজেলা সদর ইউনিয়ন শাখার যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়নের হত্যার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে রাঙামাটি জেলা যুবলীগ। বিক্ষোভ মিছিলটি শুক্রবার সকালে বনরূপা থেকে শুরু হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবারও বনরূপায় এসে এক প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় প্রতিবাদ সমাবেশে যুবলীগের সভাপতি মো. আকবর হোসেন চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক নুর মো. কাজল, শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মো. সাওয়ালসহ বিভিন্ন অংগ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা বক্তব্যে রাখেন।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তারা বলেন, নুরুল ইসলাম নয়ন একজন মোটর সাইকেল চালক নয় বরং সে একজন ফুটবল খেলোয়ার। এ নয়নকে পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীরা নির্মমভাবে হত্যা করেছে।

সমাবেশে বক্তারা আরো বলেন, আমরা এ হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই এবং আগামী ২৪ ঘন্টার মধ্যে নয়নয়ের খুনীদের গ্রেফতার করে তাদের শাস্তির আওয়তা আনার জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানানো হয়। তা না হলে আগামীতে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় সমাবেশ থেকে।




পাহাড়বাসীকে শান্ত থাকার আহবান ওয়াদুদ ভূইয়ার

Khagrachari Pic 02
নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:
খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সভাপতি, সাবেক সংসদ ও পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ওয়াদুদ ভূইয়া ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালক নুরুল  ইসলাম নয়নের হত্যাকান্ডকে কেন্দ্র করে লংগদুসহ পাহাড়ের সকল সম্প্রদায়ের মানুষকে শান্ত থাকার জন্য আহবান জানিয়েছেন।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে নিজের টাইমলাইনে দেয়া স্টাটাসে তিনি বলেছেন, আমি মনে করি যে কেউ শান্তিপূর্ণ উপায়ে, যে কোন হত্যাকান্ডের সুবিচার চাইতেই পারে। কিন্তু আইন হাতে তুলে নেওয়া যায় না।

এ জাতীয় ঘটনাকে কেন্দ্র করে কেউ কারো উপর কোন প্রকার হামলা চালাতে পারেন না। একে অন্যের সম্পদ হানি করা আরেকটি অন্যায়, অপরাধ ও অমানবিকতা। যেকোন হত্যাকান্ডের প্রতিবাদের ভাষা হামলা ও সংঘাত হতে পারে না। এটা সঠিক পথ ও উপায় নয়।

তিনি রাঙামাটির লংগদুসহ পার্বত্য অঞ্চলের পাহাড়ি বাঙ্গালি সবাইকে শান্ত থেকে, আইনের প্রতি আস্থাবান থেকে পাহাড়ি বাঙ্গালির মধ্যে বন্ধুত্বসুলভসহ অবস্থান বজায় রাখার জন্যে আহবান জানান।




খাগড়াছড়িতে বাঙালী ছাত্র পরিষদের সমাবেশ ও হরতালের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচী: জনমনে বিভ্রান্তি

Khagrachari Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ইউপিডিএফ ও জেএসএসসহ আঞ্চলিক পাহাড়ি সংগঠনগুলোর অপহরণ, খুন, গুম, চাঁদাবাজির প্রতিবাদে ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারের দাবিতে আগামী রবিবার(২১ মে) খাগড়াছড়িতে পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির ঘোষিত মহাসমাবেশের দিন সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদ জেলা কমিটির একাংশ।

এদিকে একই দিন বাঙালী ছাত্র পরিষদের দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচী ঘোষণায় শহর জুড়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছে।

শুক্রবার সকালে খাগড়াছড়ি শহরের একটি রেষ্টুরেন্টে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে সংগঠনটির জেলা কমিটির একাংশ রবিবার হরতাল ঘোষণা করে হরতাল সফল করতে সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করেন।

সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দাবীকারী মো. মাঈন উদ্দীন। পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা ইঞ্জিয়ার আলকাস আল মামুন ভুঁইয়ার দাবী মাইনুদ্দীন জেলা কমিটির সিনিয়র সহসভাপতি এবং সভাপতি হলেন ইঞ্জিনিয়ার লোকমান হোসেন ভুঁইয়া।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের জেলা সাধারণ সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর এস এম মাসুম রানা, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা কামাল, জেলা যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মো. জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, জেলা সহ সাংগঠনিক পারভেজ আলম, জেলা সহ সাংগঠনিক আশ্ররাফুল রণি, দপ্তর সম্পাদক বাবু মৃদুল বড়ুয়া, জেলা প্রচার সম্পাদক শাহীন আলম, পৌর সভাপতি মো. রাশেদুল ইসলাম, কলেজ সভাপতি ওমর ফারুক ভারপাপ্ত ও কলেজ সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন আরাফাতসহ অন্যান্য উপজেলা এবং সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সংবাদ সম্মেলনে এস এম মাসুম রানা বলেন, পার্বত্য বাঙালি ছাত্র পরিষদের জেলা কমিটি ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে ২১ মে খাগড়াছড়ি জেলার সকল উপজেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ঘোষণা করেছে। তিনি অভিযোগ করেন, এখন একটি মহল ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে আমাদের জেলা, উপজেলা ও সকল অংগকে বাদ দিয়ে বাঙালিদের নাম ভাঙ্গিয়ে পকেট ভারী করার জন্য তথাকথিত কিছু কর্মসূচি ঘোষণা করে মানুষের মাঝে বিভ্রাান্তি তৈরী করার চেষ্টা করছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, রাঙামাটিতে নির্যাতিত বাঙালীর ব্যানারে আয়োজিত মহাসমাবেশ ব্যাপকভাবে সফল হলে তার ধারাবাহিকতায় পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদ ও নাগরিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটি খাগড়াছড়িতে একই ধরণের একটি মহাসমাবেশ আয়োজনের ডাক দেয়। শুরুতে এই আয়োজন জেলার মধ্যে ব্যাপক সাড়া দিলেও পরবর্তীকালে এই সমাবেশে জেলার একজন বহুল আলোচিত সমালোচিত নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির সংশ্লিষ্টতার কথা প্রকাশিত হওয়ায় ওই প্রতিনিধির বিরোধী নিজ দলের ও প্রতিপক্ষ দলের একাধিক গ্রুপ সক্রিয় হয়ে ওঠে। তারা এ ধরণের সমাবেশে যোগ দিয়ে ওই জনপ্রতিনিধি যেন আরো শক্তিশালী হতে না পারে তা ঠেকাতে বাঙালী ছাত্র পরিষদের একাংশকে মাঠে নামায় সমাবেশ বাঞ্চাল করার জন্য। এ ক্ষেত্রে তারা বিভিন্ন প্রভাবশালী মহলকেও প্রভাবিত করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানা গেছে।

এদিকে জেলা কমিটির একাংশের ডাকা রবিবারের হরতাল প্রসঙ্গে পার্বত্য বাঙালী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় প্রধান উপদেষ্টা ও পার্বত্য নাগরিক পরিষদের সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আলকাস আল মামুন ভুঁইয়া পার্বত্যনিউজকে বলেন, যারা এই হরতাল ডেকেছে তাদের এই কর্মসূচী ডাকার কোনো নৈতিক অধিকার নেই। কারণ এই সংগঠনের একটি চেইন অভ কমান্ড ও গঠনতন্ত্র আছে। এ ধরণের কর্মসূচী ডাকার আগে কেন্দ্রীয় কমিটির অনুমোদন দরকার ছিলো কিন্তু তারা তা নেয়নি। এমনকি জেলা কমিটির সভাপতির অনুমোদনও নেয়নি। কাজেই এই কর্মসূচীর কোনো বৈধতা নেই।

এদিকে রবিবারের কর্মসূচীর এখনো অনুমতি দেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন জেলা পুলিশের গোয়েন্দা প্রধান আবদুস সামাদ মোড়ল। তিনি পার্বত্যনিউজকে বলেন, একটি আবেদন পেয়েছি, কিন্তু এখনো কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ বিষয়ে আলকাস আল মামুনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, আমার জানা মতে, অনুমতি পাওয়া গেছে। জেলা পুলিশের গোয়েন্দা প্রধানের বক্তব্য তাকে জানানো হলে তিনি বলেন, আমাকে আরেকটু খোঁজ নিয়ে দেখতে হবে।

বর্তমান প্রেক্ষিতে কর্মসূচী অব্যাহত রাখবেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, অবশ্যই আমাদের কর্মসূচী চলবে। প্রয়োজনে যারা হরতাল ডেকেছে তাদের সাথে আগামীকাল বৈঠক করে সমন্বয় করা হবে বলেও তিনি মত প্রকাশ করেন।