মানিকছড়িতে বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস পালিত

25(1) copy

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

২৫ এপ্রিল বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস। এ উপলক্ষ্যে মানিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও ব্র্যাক স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্যোগে ‌ র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

‘চিরতরে ম্যালেরিয়া হোক অবসান’ এ প্রতিপাদ্যে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১০টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্বর থেকে র‌্যালি বের হয়।

র‌্যালিতে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, ইউএনও বিনিতা রানী, পাজেপ সদস্য এমএ জব্বার,  সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও আ’লীগ নেতা এমএ রাজ্জাক, ভাইস চেয়ারম্যান রাহেলা আক্তার, সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক, এসআই গৌতম চন্দ্র দে, ব্র্যাক স্বাস্থ্য বিভাগের এরিয়া ম্যানেজার শুভ্রাংকর চাকমাসহ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ ও ব্র্যাক স্বাস্থ্য বিভাগের তৃণমূল পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ।

র‌্যালি শেষে উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. মো. নোমান মিয়ার সভাপতিত্বে হাসপাতালের হল রুমে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অতিথিরা বক্তব্য রাখেন।




জ্ঞানী-গুনী হওয়ার একমাত্র সিঁড়ি বই

23(4) copy

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

’২৩ এপ্রিল বিশ্ব বই দিবস’। দিবসটিকে ঘিরে রবিবার মানিকছড়ির বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছিল ব্যাপক আয়োজন। পাঠাভ্যাসের গুরুত্ব তুলে ধরে আলোচনা সভা, বির্তক ও বিগত বছরে অনুষ্ঠিত পাঠাভ্যাস কর্মসূচির বার্ষিক মূল্যায়ন পরীক্ষায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়েছে।

এতে উপস্থিত অতিথিরা শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, বই এমন একটি বস্তু, যা পড়ার মাধ্যমে অর্জিত মেধা মানুষকে জ্ঞানী-গুনী হতে শেখায়। এ সিঁড়ি দিয়ে যারা জীবন অতিবাহিত করেছেন তারাই বিশ্ব জয় করেছেন।

২৩ এপ্রিল বিশ্ব বই দিবস উপলক্ষে মানিকছড়ির সেকায়েপ অন্তর্ভুক্ত মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিবসটি পালিত হয়েছে।

উপজেলার তিনটহরী উচ্চ বিদ্যালয়, কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয়, বড়ডলু উচ্চ বিদ্যালয় ও যোগ্যাছোলা উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা, বির্তক অনুষ্ঠান। এতে বিগত বছরে অনুষ্ঠিত পাঠাভ্যাস কর্মসূচির বার্ষিক মূল্যায়ন পরীক্ষায় বিজয়ীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়েছে।

সকাল সাড়ে ১১টায় তিনটহরী উচ্চ বিদ্যালয়ের হল রুমে অনুষ্ঠিত বিশ্ব বই দিবসে সভাপতিত্ব করেন প্রধান শিক্ষক মো. আতিউল ইসলাম। লাইব্রেরিয়ান আবদুল মান্নানের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন, অভিভাবক সদস্য সাথোয়াইঅং চৌধুরী, শিক্ষক সুদীপ কুমার নাথ, বিপ্লব কুমার দে, মো. আলমাছ মিয়া, মাওলানা  মো. ঈসা,  কান্তা বড়ুয়া, রুপেশ বড়ুয়া, সীমা ভট্টচার্য্য, মো. আনোয়ার হোসেন, জেপিএস বিশ্বজিৎ দে, কৃষ্ণ রাণী দে প্রমুখ।

23(6) copy

সভায় অতিথিদের পাশাপাশি বিজয়ী শিক্ষার্থী (সেরা পাঠক) ফাতেমা আক্তার (৮ম) তার অনুভূতি তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন। অতিথিদের বক্তব্য শেষে সভাপতির ভাষণে প্রধান শিক্ষক মো. আতিউল ইসলাম শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন, বই এমন একটি বস্তু, যা পড়ার মাধ্যমে অর্জিত জ্ঞান দ্বারা নিজেকে বিশ্ব দরবারে অথবা প্রতিযোগিতার মাঝে উপস্থাপন করা সহজ হয়। বই থেকে অর্জিত জ্ঞান ছাড়া কেউই জ্ঞানী হতে পারেনি। সুতরাং, পাঠ্যসূচির পাশাপাশি অবসর সময়ে মেধা অর্জনে দেশব্যাপী শিক্ষার্থীদের নিয়ে কাজ করছে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র, ঢাকা। অধ্যাপক মো. আবু সাঈদ এর প্রতিষ্ঠাতা।

সভা শেষে অতিথিরা বিগত বছরে পাঠাভ্যাস কর্মসূচির মূল্যায়ণ পরীক্ষায় বিজয়ীদের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন।

অপরদিকে, সকাল ১১টায় কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক মংশেপ্রু মারমার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় বিশ্ব বই দিবস। এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হরি কুমার মারমা, মনা ভাণ্ডারী, আছাই মারমা প্রমুখ।

এছাড়া বড়ডলু উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.বশির আহম্মদ ও যোগ্যাছোলা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এমকে. আজাদের সভাপতিত্বে পালিত হয় বিশ্ব বই দিবস।




মানিকছড়িতে সড়ক দুর্ঘটনায় দুই এইচএসসি পরিক্ষার্থীসহ আহত ৫

সড়ক দুর্ঘটনা
মানিকছড়ি প্রতিনিধি:
চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি মহাসড়কের মানিকছড়ি উপজেলার ধর্মঘর এলাকায় রবিবার সকাল সাড়ে নয়টার সময় ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা উল্টে ২জন এইচএসসি পরীক্ষার্থীসহ ৫জন আহত হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ওই দুইজন পরীক্ষার্থী মানিকছড়ি বাজার থেকে একটি অটোরিকশা যোগে মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে যাচ্ছিল। ধর্মঘর এলাকায় দাঁড়ানো মোটর সাইকেল অতিক্রম করতে গিয়ে ওই অটোরিকশাটি উল্টে যায়। এতে ওই দুইজন পরিক্ষার্থীসহ স্থানীয় হাই স্কুলের তিনজন শিক্ষার্থী আহত হয়।
আহত এইচএসসি পরিক্ষার্থী মো. বেল্লাল হোসেন(১৭) ও প্রিয়াঙ্কা রানী দে (১৮) আহতদের মাঝে তিনজন কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আথুইবাই মার্মা(১৫), ক্রবং মার্মা (১৪), রুচিমং মার্মা, আহতদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে নিলে এইচএসসি পরিক্ষার্থী বেল্লাল প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে পরীক্ষায় অংশ নেয়।ওপর পরিক্ষার্থী প্রিয়াঙ্কা রানী গুরুতর আহত হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য চমেক প্রেরণ করা হয়। বাকীরা স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে বলেও জানান চিকিৎসক মো. মহি উদ্দিন।



মানিকছড়িতে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত

17(03)
মানিকছড়ি প্রতিনিধি :
মানিকছড়ি উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় উপজেলা পরিষদ হল রুমে ইউএনও বিনিতা রানী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখছেন উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মো. সামায়উ ফরাজী সামু, প্রকল্প কর্মকর্তা মো. আবদুল জব্বার, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগ নেতা এম.এ. রাজ্জাক।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, সনাতন সমাজ কল্যাণ পরিষদ নেতা সজল বরণ সেনসহ বিভিন্ন দপ্তর প্রধান। পরে উপজেলা শিল্পকলা একাডেমীর আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।




মানিকছড়ির সাংগ্রাই’র জলকেলি ও ঘিলা উৎসবে তরুণ-তরুণীর আনন্দোল্লাস

16(1) copy

 মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

রবিবার সাংগ্রাই উৎসবের ৩য় দিন। সাংগ্রাই ৩য় দিনে ‘সাংগ্রাইং’ চূড়ান্ত শুভামন ঘটার দিন। এ দিনে মারমারা বুদ্ধকে ছোয়াইং দান, ফুল পূজা, প্রদীপ পূজাসহ শীল পালন ও পিতা-মাতা, গুরুজনদের পূজা অর্ঘ্য প্রদান  করেন। ওই দিন ‘জিংবুদ্ধিবা ক্যইং’(পৃথিবী) কে স্বাক্ষী রেখে তরোবোয়ে(সংঘ দানের জন্য যা প্রয়োজন হয়) ও পিদিসা (কল্পতরু) সাজিয়ে দান  করা হয়। জন্ম-জন্মান্তর, স্বর্গ সুখ ও সর্বোপরি নির্বাণ সুখ লাভের কামনা করে থাকে। আর তরুণ-তরুনীরা দলে মেতে উঠেন মহা আনন্দে।

আনন্দের অংশ হিসেবে মংরাজ আবাসস্থল মানিকছড়ির মহামুনি চত্বরে রাজপাড়া ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে আয়োজিত পানি খেলা(জল কেলি) ও গিলা খেলা অনুষ্ঠিত হয়। খেলায় মারমা তরুণ-তরুণীরা দলে দলে অংশ গ্রহণ করেছে। অবিবাহিত তরুণ-তরুণীরা দু’সারিতে বিভক্ত হয়ে একে অপরের দিকে পানি ছিটিয়ে আনন্দে মেতে উঠে। অপরদিকে ঘিলা খেলায় অংশ নেয় ছেলে-বুড়ো সকলে। আনন্দের এ মহা আয়োজন প্রত্যক্ষ করতে স্ব-পরিবারে আসেন গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. কামরুজ্জামান পিএসসি, এনডিসি, সিন্দুকছড়ি জোন কমান্ডার মো. গোলাম ফজলে রাব্বি, পিএসসি।

16(3) copy

অতিথিদের ফুল ছিটিয়ে বরণ করেন সাংস্কৃতিক, জলকেলি, ঘিলাখেলা ও ক্রীড়া অনুষ্ঠানের তরুণ-তরুণীরা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, ইউএনও বিনিতা রানী, অফিসার ইনচার্জ আবদুর রকিব, মারমা উন্নয়ন সংসদের সাধারণ সম্পাদক ও কলেজিয়েট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মংশেপ্রু মারমা, রাজপাড়া ক্রীড়া সংস্থার আহ্বায়ক আব্রে মারমা, অনুষ্ঠানের আহ্বায়ক নিউচাই মারমাসহ রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, সাংবাদিক, উপজাতি নেতৃবৃন্দ ও তরুণ-তরুণীরা।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি গুইমারা রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. কামরুজ্জামান বলেন,  এ অঞ্চলের মানুষ আনন্দ উৎসব প্রিয়। বৈসাবিকে ঘিরে এ জনপদের সকল জনগোষ্ঠী তাদের নিজ নিজ ধর্ম ও ঐতিহ্য-সংস্কৃতি পালনের মধ্য দিয়ে নিজেদের ঐতিহ্যকে লালন-পালন এবং জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সম্প্রীতির বাংলাদেশ গঠনে এগিয়ে আসুক এমনই প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন এ অঞ্চলের শান্তিকামি জনগণ। পরে তিনি ক্রীড়া অনুষ্ঠান, জলকেলি, ঘিলা খেলা উদ্বোধন শেষে আয়োজক কমিটির সাথে মতবিনিময় করেন।




মানিকছড়িতে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বর্ষবরণ

14(7)
মানিকছড়ি প্রতিনিধি :
মানিকছড়ি উপজেলা প্রশাসন ব্যাপক আয়োজনে ১৪২৪ বঙ্গাব্দকে বরণ করেছে। শুক্রবার সকালে প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক, শিক্ষার্থী, সাংবাদিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে বাংলার কৃষকের বন্ধু গরুর গাড়ী ও নববধুর সাজ-সজ্জায় সজ্জিত র‌্যালি শেষে ত্রি-মৈত্রী বটমূলে অনুষ্ঠিত হয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে এবং শিল্পকলা একাডেমীর পরিচালনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনষ্ঠানে বাঙ্গালীর কালচার তুলে ধরে মারমা,চাকমা ও ত্রিপুরা নৃত্য পরিবেশনার মধ্য দিয়ে দু’ঘন্টা ব্যাপী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাঙ্গালীর হারানো ঐতিহ্য তুলে ধরেন শিল্পিরা। অনুষ্ঠানে শেষ পর্যায়ে অতিথি শিল্পি উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা এবং চট্টগ্রামের পরিচিত শিল্পি জিয়া উদ্দীন বাদশা গান পরিবেশন করেন।
14(3)
অনুষ্ঠানে উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, ইউএনও বিনিতা রানী, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও বর্তমান পাজেপ সদস্য এম.এ. জব্বার, অফিসার ইনচার্জ আবদুর রকিব,ভাইস চেয়ারম্যান রাহেলা আক্তার, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. সফিউল আলম চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক, মো. রফিকুল ইসলাম বাবুল, মো. শহিদুল ইসলাম মোহন, আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মাঈন উদ্দীন, যুবলীগের সহ-সভাপতি মো. সামায়উন ফরাজী সামু, সাধারণ সম্পাদক মো. জাহেদুল আলম মাসুদসহ রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, উপজেলা পর্যায়ের অফিসারগণ উপস্থিত ছিলেন।

র‌্যালি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে অফিসার্স ক্লাবে অনুষ্ঠিত পান্তা-ইলিশ বিহীন আপ্যায়ন পর্ব।




ভেদাভেদ ভুলে পাহাড়ি-বাঙ্গালী সম্প্রীতির সেতুবন্ধন গড়ে তোলার আহ্বান

13(4) copy

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও পুরাতন বর্ষকে বিদায় এবং নববর্ষকে স্বাগত জানিয়ে শুক্রবার বিকালে মানিকছড়িতে মারমা জনগোষ্ঠির আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা।

এতে উপজেলার তৃণমূল  বড়বিল, বড়ডলু, ময়ূরখীল, ধর্মঘর, গচ্ছাবিল, রাজপাড়া, মহামুনিপাড়া, তিনটহরী থেকে পাড়া কেন্দ্রীক বিভিন্ন ব্যানার, পোস্টার, ফেস্টুনসহ উপজাতি সংস্কৃতির অংশ হিসেবে নানা সাজে সজ্জিত নর-নারী, শিশু-কিশোররা অংশ গ্রহণ করেন। ময়ূরখীল, গচ্ছাবিল ও ধর্মঘর থেকে বের হওয়া র‌্যালির সামনে ঘোড়া এবং ব্যান্ড দল এবং অন্যান্য র‌্যালিতে উপজাতি সংস্কৃতির অংশ দাবা, ছনের ঘর, লাঙ্গল, জোয়াল, জুম চাষী, কৃষক, জেল সেজে এসেছে শিশু-কিশোররা। এতে র‌্যালির সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি পেয়েছে।

র‌্যালিতে  উপজেলার রাজনৈতিক ও সামাজিক নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন, সিন্দুকছড়ি জোন অধিনায়ক লে.কর্ণেল গোলাম ফজলে রাব্বি পিএসসি, উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, ইউএনও বিনিতা রানী, অফিসার ইনচার্জ আবদুর রকিব প্রমুখ।

13(5) copy

র‌্যালিটি ধর্মঘর-রাজবাড়ী গেইট-আমতল হয়ে মহামুনি চত্বরে গিয়ে শেষ হয়েছে।  এ সময় সেখানে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন, সিন্দুকছড়ি জোন অধিনায়ক লে.কর্ণেল গোলাম ফজলে রাব্বি পিএসসি, উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা ও সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান ফারুক।

জোন অধিনায়ক লে.কর্ণেল গোলাম ফজলে রাব্বি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে বৈসাবি উৎসব পালনের মধ্য দিয়ে এ অঞ্চলের পাহাড়ি-বাঙ্গালীরা নিজেরা একে অপরের সাথে আত্মার-আত্মীয় হয়ে বন্ধনে মিলিত হয়। যেখানে জাতি-ধর্মের কোন ভেদাভেদ নেই, হিংসা নেই। এ যেন পাহাড়ি-বাঙ্গালীর সম্প্রীতির সেতুবন্ধন।

তিনি ভেদাভেদ ভুলে পাহাড়ি-বাঙ্গালীর সম্প্রীতির সেতুবন্ধন গড়ে তোলার আহ্বান জানান।




মানিকছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ‘সহায়ক’ বই কিনতে শিক্ষার্থীদের বাধ্য করছে শিক্ষকরা

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

মানিকছড়ি উপজেলার একমাত্র সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে বিষয় ভিত্তিক শিক্ষকরা সহায়ক বই বাংলা ব্যাকরণ ও ইংরেজি গ্রামার পাঠ্য ঘোষণা করেন এবং তা ২৪ ঘন্টার মধ্যে কিনতে শিক্ষার্থীদের বাধ্য করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। দরিদ্র ও অসহায় শিক্ষার্থীরা তা কিনতে ব্যর্থ হওয়ায় ছাত্র-ছাত্রীদের বেত্রাঘাত করার মত ঘটনাও ঘটেছে। এ নিয়ে অভিভাবকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার একমাত্র রাণী নীহার দেবী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মোফাজ্জাল হোসেন ১-৫ এপ্রিল ছুটি থাকা অবস্থায় বাংলা ও ইংরেজি শিক্ষকের যোগসাজসে এবং মোটা অংকের কমিশন নিয়ে ৬ষ্ঠ-নবম শ্রেণির তিন শতাধিক শিক্ষার্থীকে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দিয়ে বই কিনতে বাধ্য করার ঘটনায় তোলপাড় চলছে।

শিক্ষকদের আল্টিমেটাম মেনে ইতোমধ্যে ৯০% শিক্ষার্থী নিন্মমানের বই কিনলেও অসহায় ও দরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীরা বই সংগ্রহে ব্যর্থ হওয়ায় বেত্রাঘাত সহ্য করতে হয়েছে। নাম প্রকাশ না করে ৬ষ্ঠ শ্রেণির জনৈক মেধাবী ছাত্র জানায়, আমাদের নাঈম স্যার ও লতিফ স্যার রুমে গিয়ে সহায়ক বাংলা ব্যাকরণ ও ইংরেজি গ্রামার বইয়ের তালিকা ধরিয়ে দিয়ে ২৪ ঘন্টার মধ্যে তা কিনতে চাপ প্রয়োগ করে। আমি যথা সময়ে কিনতে না পারায় আমার দু’হাতে স্যারেরা বেত্রাঘাত করেছে।

হাফছড়ি থেকে আসা এক অভিভাবক জানায়, বইয়ের জন্য ছেলের পিড়াপিড়িতে শাক-সবজি ও মোরগ বিক্রি করে বই কিনে দিয়েছি। এখন বাড়ি যাওয়ার গাড়িভাড়া টুকুও নেই। অভিভাবক ও দোকানপাটে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে সহায়ক বই পাঠ্য নিয়ে তোড়জোরের খবর পেয়ে রবিবার বিকালে স্কুলে গিয়ে জানতে চাইলে প্রধান শিক্ষক মো. মোফাজ্জাল হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি ১-৫ এপ্রিল ছুটিতে ছিলাম।

এ সুযোগে বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক মো. নাঈমুল হক ও আবদুল লতিফ দু’জনে নিজ আগ্রহে সহায়ক বই কিনতে শিক্ষার্থীদেরকে বাধ্য করেছে। যা আইনসিদ্ধ নয়। শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ভিত্তিতে আমি বিষয়টি আমলে নিয়ে ৬ এপ্রিল ওই অভিযুক্ত শিক্ষকদের সাথে নিয়ে রুমে রুমে গিয়ে সেই বেআইনি আদেশ প্রত্যাহারসহ সকল বই ফেরত দেয়ার নির্দেশ দিয়েছি। ইতোমধ্যে ৫০-৬০% বই ফেরত আসতে শুরু করেছে। বিষয়টি সর্ম্পকে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে।

এদিকে একাধিক অভিভাবকরা জানান, এ বিদ্যালয়ে ইংরেজি পড়ানো শিক্ষক মো. নাঈমুল হক একজন বিতর্কিত শিক্ষক। বিগত সময়ে তার বিরুদ্ধে এসএসসি পরীক্ষার প্র্যাকটিক্যালে নম্বর কম দেয়া, বার্ষিক ও অর্ধবার্ষিক পরীক্ষায় খাতা মূল্যায়ণ না করে নম্বর বন্টন,৬ষ্ঠ শ্রেণির ভর্তি পরীক্ষায় স্বজনপ্রীতিসহ অসংখ্য অভিযোগ  থাকা সত্ত্বেও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে না কেউ। ফলে সে বহাল তবিয়তে থেকে শিক্ষার্থীদের জীবন নিয়ে তাল-বাহানা করছে।

অফিসে ফেরত আসা বই যাচাই করে দেখা গেছে, সবগুলো অক্ষর প্রকাশনার বই। লাইব্রেরিতে বইয়ের মূল্য সর্ম্পকে জানতে গিয়ে দেখা গেছে, ৬ষ্ঠ শ্রেণির বাংলা ব্যাকরণ ও ইংরেজি গ্রামার কিনতে প্রতি শিক্ষার্থীকে গুণতে হচ্ছে ৫৯৫ টাকা। ৭ম শ্রেণিতে ৬২০ টাকা, ৮ম শ্রেণিতে ৭৫০ টাকা এবং ৯ম শ্রেণিতে ৯২৫ টাকা।




মানিকছড়িতে এইচএসসি পরিক্ষার প্রথম দিনেই ১৩জন অনুপস্থিত

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

চট্রগ্রাম শিক্ষা বোডের অধিনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শান্তিপূর্ণ শৃঙ্খলাবদ্ধভাবে নকল মুক্ত পরিবেশে প্রথম দিন রবিবার মানিকছড়ি গিরি মৈত্রী ডিগ্রি কলেজে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

পরীক্ষায় কোন শিক্ষার্থী বহিস্কার না হলেও অনুপস্থিত ছিল ১৩জন।

কলেজ অফিস সূত্রে জানা যায়, রবিবার বাংলা প্রথম পত্র পরিক্ষায় মোট ৬০৪জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৩৩২জন ছাত্র, ২৭২জন ছাত্রী। এদের মধ্যে প্রথম দিনেই পরিক্ষায় অংশ নেননি ১৩জন।




মানিকছড়িতে ৫০০পিস ইয়াবাসহ একজন আটক 

FB_IMG_1491024817271 copy

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

মানিকছড়ি উপজেলায় মুহামনিতে ৫শত পিচ ইয়াবাসহ ১জনকে আটক করেছে মানিকছড়ি থানা পুলিশ।

শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টার সময় মুহামনির বাস স্টেশনে এএসআই মো. কামাল মিয়ার নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে ৫শত পিস ইয়াবাসহ মো. রশিদ (৩৫)কে আটক করা হয়। সে টেকনাফ হোয়াকং’র মীর আহম্মেদের ছেলে।

মানিকছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুর রকিব জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টায় মুহামনি এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৫শত পিস ইয়াবাসহ ওই যুবককে আটক করা হয়। আটককৃত ব্যক্তির বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা করা হয়েছে।