মাটিরাঙ্গার তাইন্দং উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন সম্পন্ন

25.02.2017_Matiranga SMC Elec. NEWS Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্য দিয়ে জেলার মাটিরাঙ্গা উপজেলাধীন সীমান্তঘেষা ইন্দং উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির অভিভাবক সদস্য পদে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়ে টানা ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ করা হয় বলেও জানিয়েছেন প্রিজাইডিং অফিসার ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মীর মো. মোহতাসিম বিল্লাহ। একই সময়ে শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনও সম্পন্ন হয় বলেও জানান তিনি।

নির্বাচনকে ঘিরে সকাল থেকে প্রার্থী আর ভোটারদের পদচারনায় মুখর হয়ে উঠে তাইন্দং উচ্চ বিদ্যালয় এলাকা। এসময় সেখানে মৃদু উত্তেজনাও দেখা যায়। নির্বাচনকে ঘিরে যেকোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ ও বিজিবি মোতায়েন ছিল।

দুইটি প্যানেলে বিভক্ত এ নির্বাচনে অভিভাবক সদস্য পদে নির্বাচিত হয়েছেন তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর সমর্থিত প্যানেলের মো. সুরুজ মিয়া (৪৬১ ভোট), মো. অহিদ মিয়া মেম্বার (৪৩০ ভোট), মো. নজরুল ইসলাম (৪০৫ ভোট) ও বিক্রম ত্রিপুরা (৩৫১ ভোট) নির্বাচিত হয়েছেন। অন্যদিকে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে একই প্যানেলের নাসরিন আক্তার রীনা (৩৩৫ ভোট) নির্বাচিত হয়েছেন।

টানা ভোট গ্রহণ শেষে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ফলাফল ঘোষণা করেন তাইন্দং উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনের প্রিজাইডিং অফিসার ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মীর মো. মোহতাসিম বিল্লাহ। এসময় তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর, তাইন্দং উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রেজাউল করিম সরকার ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল হোসেন অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।




মাটিরাঙ্গার পিতা-কন্যার খাগড়াছড়ি জয়

25.02.2017_Khagrachari Edu News Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ২০১৭ উপলক্ষে খাগড়াছড়িতে জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ স্কাউট শিক্ষক ও তাৎক্ষনিক অভিনয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে পিতা-কন্যা। পাহাড়ি জেলা খাগড়াছড়ি জয় করা মেধাবী পিতা-কন্যা হলেন, মাটিরাঙ্গার শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মো. রফিকুল ইসলাম ও একই বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী ফারজানা ইসলাম রুবি।

জেলা পর্যায়ে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী উপজেলার প্রতিযোগিদের পেছনে ফেলে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করার মধ্য দিয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে কোয়ালিফাই করলো পিতা-কন্যা। আগামী ৩ মার্চ বিভাগীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় পিতা-কন্যা দুজনই শ্রেষ্ঠ স্কাউট শিক্ষক ও তাৎক্ষনিক অভিনয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে খাগড়াছড়ির প্রতিনিধিত্ব করবেন।

মো. রফিকুল ইসলাম শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কাউট শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে স্কাউট আন্দোলনের সাথে জড়িত আছেন। এছাড়াও একজন বিতার্কিক হিসেবে জেলাজুড়ে তার সুখ্যাতি রয়েছে। পাশাপাশি তিনি ব্রাকের ইংরেজি প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। একাধারে তিনি মাটিরাঙ্গা ডিবেটিং ক্লাবের সহ-সভাপতি।

অপরদিকে শান্তিপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী ফারজানা ইসলাম রুবি স্কুল বিতর্কের প্রিয়মুখ হিসেবে সব মহলে পরিচিত। একজন বিতার্কিক হিসেবে জেলাজুড়েই রয়েছে তার সুখ্যাতি। বিতর্কের পর এবার তাৎক্ষনিক অভিনয়েও নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমান করলো ফারজানা ইসলাম রুবি।

অন্যদিকে মো. রফিকুল ইসলামের কনিষ্ঠ কন্যা ফারহানা ইসলাম রুপা ২০১৭ সালের আন্ত. প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় নৃত্যে প্রথমস্থান অর্জন করে।




মাটিরাঙ্গার সাব্বির জাতীয় শিশু পুরষ্কার প্রতিযোগিতা বিভাগীয় পর্যায় সেরা 

23.02.2017_Matiranga NEWS Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা :

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত ‘জাতীয় শিশু পুরষ্কার প্রতিযোগিতা ২০১৭’ এ ১০০ মিটার দৌঁড় প্রতিযোগিতায় বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম স্থান অধিকার করেছে মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্র মো. সাব্বির হোসেন।

সে খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা পৌরশহরের কাজীপাড়ার গার্মেন্ট শ্রমিক মমতাজ বেগমের ছেলে। বিভাগীয় পর্যায়ের এ প্রতিযোগিতায় চট্টগ্রাম বিভাগের ৮টি জেলার প্রথম স্থান অর্জনকারী অংশগ্রহণকারীদের পেছনে ফেলে সে প্রথম স্থান অধিকার করার মধ্য দিয়ে জাতীয় পর্যায়ে কোয়ালিফাই করে। বিভাগীয় পর্যায়ে প্রথম স্থান অর্জন করায় চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ রুহুল আমিন তার হাতে সনদ ও প্রাইজবন্ড তুলে দেন। দেশের তৃণমূল পর্যায়ে শিশুদের সৃজনশীলতা, মেধা ও মনন অন্বেষণে প্রতিবছর দেশব্যাপী ‘জাতীয় শিশু পুরষ্কার প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়ে থাকে।

প্রসঙ্গত, মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্র মো. সাব্বির হোসেন বিভাগীয় পর্যায়ে সেরা হয়ে খাগড়াছড়ির জন্য সাফল্য বয়ে আনলো। সে খাগড়াছড়ির হয়ে জাতীয় পর্যায়ে প্রতিনিধিত্ব করবে। তার এ সাফল্যে উৎফুল্ল তার হত-দরিদ্র পরিবারসহ মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও তার সহপাঠিরা। বিভাগীয় পর্যায়ে সাফল্যের জন্য সে মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল মালেকসহ শিক্ষক-সহপাঠিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে মো. সাব্বির হোসেন।

জাতীয় পর্যায়ে সে সাফল্যের ধারাবাহিকতা বজায় রাখবে এমন প্রত্যাশা করে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান বলেন, জাতীয় পর্যায়ে সাফল্যের জন্য সম্ভব সবকিছুই করা হবে এ ক্ষুদে দৌঁড়বিদের জন্য।

উল্লেখ্য, মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণীর ছাত্র মো. সাব্বির হোসেন আন্ত: প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় উচ্চ লাফে বিভাগীয় পর্যায়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করে।




গুইমারা উপজেলা নির্বাচনে ঘুরে দাঁড়াতে চায় ইউপিডিএফ

22.02.2017_Guimara Election NEWS-UPDF

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

গুইমারা উপজেলা নির্বাচনের মনোনয়ন পত্যাহার ও প্রতীক বরাদ্ধের পর জমে উঠতে শুরু করেছে নির্বাচনী ময়দান। তিনটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত এ উপজেলায় জয় পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে সম্ভাব্য প্রার্থীরা। সরকারী দল আওয়ামী লীগ প্রার্থী মেমং মারমা ও দেশের অন্যতম রাজনৈতিক দল বিএনপির প্রার্থী মোহাম্মদ ইউছুফের পাশাপাশি সমানতালে মাঠ চষে বেড়াচ্ছে পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট-ইউপিডিএফ সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী উশেপ্রু মারমা।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি গভীর রাতে নিরাপত্তা বাহিনী লক্ষীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমাকে তার বাসভবন থেকে পাঁচ রাউন্ড গুলি ভর্তি আমেরিকার তৈরি একটি ফাইভ স্টার পিস্তলসহ গ্রেফতারের দুই মাস না পেরুতেই গেল ১০ ফ্রেব্রুয়ারি গভীর রাতে ইউপিডিএফ নেতা প্রদীপন খীসার খাগড়াছড়ির বাসা থেকে প্রায় ৮০ লাখ টাকা সহ গুরুত্বপূর্ণ দলিলাদি উদ্ধারের ঘটনায় অনেকটাই কোনঠাসা হয়ে পড়েছে পাহাড়ের আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠন ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট-ইউপিডিএফ।

সংগঠনটির অব্যাহত চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডসহ সাম্প্রতিক সময়ে দলটির শীর্ষ দুই নেতার বাসায় নিরাপত্তাবাহিনীর অভিযানে অস্ত্র ও চাঁদাবাজির অর্থ উদ্ধারের ঘটনায় মাঠ পর্যায়ে তাদের কর্মকাণ্ড যখন সাধারণ মানুষের কাছে  প্রশ্নবিদ্ধ তখন সদ্য ঘোষিত গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ঘুরে দাঁড়াতে চায় উগ্রসাম্প্রদায়িক এ সংগঠনটি। গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে টার্গেট করে ইতিমধ্যে সংগঠনটি কোমড় বেঁধে মাঠে নেমেছে।

গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করে দলটির সমর্থন নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মাঠে নেমেছেন হাফছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান উশেপ্রু মারমা। বয়সে তরুন এ নেতা ইতিমধ্যে লক্ষীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমাকে গ্রেফতারের পর তার মুক্তির দাবিতে অনেকটাই সরব ছিল। আর এ কারণেই তার প্রতি দলটিও আস্থাশীল বলে অসমর্থিত একাধিক সূত্রের সাথে কথা বলে জানা গেছে।

গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দুই তৃতীয়াংশ উপজাতীয় ভোটারকে লক্ষ্য করে আওয়ামী লীগ-বিএনপি’র দুই শক্তিশালী প্রার্থীকে পেছনে ফেলে জয় পেতে মরিয়া স্বতন্ত্র প্রার্থী উশেপ্রু মারমা। ইতিমধ্যে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাহলাপ্রু চৌধুরীর পদত্যাগের মধ্য দিয়ে উশেপ্রু মারমা অনেকটাই খোশ মেজাজে রয়েছেন বলেও জানা গেছে। দুর্গম পাহাড়ি জনপদের ভোটাররাই তার টার্গেট হতে পারে এমনটাই মনে করছেন সচেতন মহল।

সাধারণ ভোটারদের অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে জয় পাওয়ার দিন এখন আর নেই উল্লেখ করে গুইমারার সচেতন ভোটারদের অনেকেই বলেন ভয়ভীতি বা অস্ত্রের জোরে জয়ের যে স্বপ্ন দেখছে ইউপিডিএফ সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থী উশেপ্রু মারমা ৬মার্চের নির্বাচনে ব্যালটের কাছে হেরে গেলে আশ্চর্য হওয়ার তেমন কিছু থাকবেনা।

প্রসঙ্গত, গুইমারা সদর ইউনিয়নে ৯ হাজার ৫’শ ৫৬জন, হাফছড়ি ইউনিয়নে ১৩হাজার ২’শ ১৮জন এবং সিন্দুকছড়ি ইউনিয়নে ৪ হাজার ৬’শ ৭জন ভোটার ৬মার্চ অনুষ্ঠিতব্য গুইমারা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তাদের পছন্দের প্রার্থী নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।




ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই পাহাড়ে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির মাতৃভাষায় শিক্ষা অব্যাহত থাকবে

21.02.2017_Matiranga Vasa Mela news Pic (1)

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা :

পাহাড়ের নানা সংস্কৃতির মেলবন্ধন সৃষ্টি করেছে দাবী করে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী একটি বিশেষ মহলের প্রতি ঈঙ্গিত করে বলেন, সরকার যখন পাঁচটি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির জাতিসত্ত্বার জন্য প্রাক-প্রাথমিকে স্ব স্ব মাতৃভাষায় পাঠ্যবই প্রণয়ন করে তা শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছে দিচ্ছে তখন তারা সরকারের এ উদ্যোগকে প্রতারণা বলে প্রচারণা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, সব ধরনের ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করেই পাহাড়ে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির মাতৃভাষায় শিক্ষা অব্যাহত থাকবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কোন উদ্যোগই মাঝপথে থেমে যায়নি উল্লেখ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের একজন সৈনিক বেঁচে থাকতে আপনাদের কোন অপপ্রচারই সফলতার মুখ দেখবে না।

মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত তিন দিনব্যাপী ‘ভাষা-সংস্কৃতি ও বই মেলা‘র সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মেলা আয়োজক কমিটির আহবায়ক ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাটিরাঙ্গা জোন অধিনায়ক লে. কর্ণেল কাজী শামশের উদ্দিন পিএসসি, মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো. শামছুল হক ও মাটিরাঙ্গা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ প্রশান্ত কুমার ত্রিপুরা প্রমুখ বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন।

সমাপনী অনুষ্ঠানে মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কৃষ্ণলাল দেবনাথ, মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরনজয় ত্রিপুরা ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সুবাস চাকমা প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সন্ত্রাসীদেরকে শুধুমাত্র সন্ত্রাসী উল্লেখ করতে ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকদের প্রতি আহবান জানিয়ে প্রধান অতিথি বলেন, কিছু কিছু সংবাদ মাধ্যমে উপজাতীয় বা পাহাড়ী সন্ত্রাসী উল্লেখ করে সংবাদ পরিবেশন করছে। যা কাঙ্খিত হতে পারে না। তিনি বলেন, পাশের উপজেলা ফটিকছড়িতে কোন সন্ত্রাসী আটক হলে তাকে বাঙ্গালী বলা হয় না। সন্ত্রাসীদের পরিচয় শুধুমাত্র সন্ত্রাসী বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

স্ব-স্ব মাতৃভাষার স্বকীয়তাকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য ‘ভাষা-সংস্কৃতি ও বই মেলা’ গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে বলে মন্তব্য করে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী বলেন, এ জন্য সকলকেই নিজের মাতৃভাষার পাশাপাশি অন্যের মাতৃভাষার প্রতিও সমান শ্রদ্ধাশীল হতে হবে। তবেই আমাদের ভাষা ও সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখা সহজতর হবে।

অ-উপাজীয় গুচ্ছগ্রাম সমিতির কার্ডধারী সদস্যদের কোটি টাকা অলস পড়ে থাকার কথা উল্লেখ করে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী এসব অর্থ আয়বর্ধক খাতে ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে বলেন, গচ্ছিত অর্থের স্বদ্বব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। আয়বর্ধক খাতে বিনিয়োগের মাধ্যমে সকলকে স্বাবলম্বী করার উদ্যোগ নিতে হবে। এজন্য তিনি স্থানীয় সাংবাদিকদের সহযোগিতা কামনা করেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাটিরাঙ্গা জোন অধিনায়ক লে. কর্ণেল মোহাম্মদ জিল্লুর হমান মফস্বল শহরে এমন আয়োজন মাতৃভাষার প্রতি মানুষের ভালোবাসা সৃষ্টি করবে মন্তব্য করে বলেন, এ আয়োজনের মধ্য দিয়ে মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন যে পথ দেখিয়েছে স্থানীয়দেরকেই সে উদ্যোগ আগামীতে অব্যাহত রাখতে হবে।

পরে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে মাটিরাঙ্গা উপজেরা প্রশাসন আযোজিত স্ব-স্ব মাতৃভাষায় (বাংলা, চাকমা, মারমা ও ত্রিপুরা) কবিতা আবৃতি, চিত্রাঙ্কণ ও রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে সনদপত্র ও উপহার তুলে দেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরীসহ আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ। পরে তিনি মাটিরাঙ্গা শিল্পকলা একাডেমীর শীল্পিদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

এর আগে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরীসহ আমন্ত্রিত অতিথিদের সাথে নিয়ে ভাষা ও সংস্কৃতি মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন এবং স্টল মালিকদের সাথে কথা বলেন।




মাটিরাঙ্গায় ভাষা শহীদদের প্রতি বিএনপির শ্রদ্ধা নিবেদন

BNP Rally pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা :

কণ্ঠে ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি বুলিতে পারি’ গান আর বুকে  শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায়  ভোরে নগ্ন পায়ে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

সকাল পৌনে সাতটার দিকে খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার সাবেক মেয়র আবু ইউসুফ চৌধুরীর নেতৃত্বে দলীয় কার্যালয় থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা সহকারে শহীদ মিনারে গিয়ে পুস্পমাল্য অর্পণ করে দলটির নেতাকর্মীরা।

শহীদ বেদিতে পুস্পমাল্য অর্পণের পর ৫২‘র ভাষা শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামান করে এক মিনিট নীরবতা শেষে শহীদ বেদীতে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক ও মাটিরাঙ্গা পৌরসভার সাবেক মেয়র আবু ইউসুফ চৌধুরী। এ সময় তিনি ভাষার জন্য শহীদদের আত্মত্যাগ থেকে শিক্ষা নিয়ে দলের নেতাকর্মীদের সব বিভেদ ভুলে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ার আহবান জানান।

এসময় মাটিরাঙ্গা উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. বাহাদুর খান, সহ-সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মো. বদিউল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান, মাটিরাঙ্গা পৌর বিএনপির সভাপতি মো. তৈয়ব আলী, সহ-সভাপতি মো. শাহ আলম, সাধারণ সম্পাদক মো. বাদশা মিয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. শাহজালাল কাজল, মাটিরাঙ্গা উপজেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক মোরশেদ আলম, মাটিরাঙ্গা পৌর ছাত্রদলের সভাপতি মো. আলাউদ্দিন চৌধুরীসহ বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল, স্বোচ্ছাসেবকদল, মহিলাদল সহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।




মাটিরাঙ্গায় বর্ণাঢ্য প্রভাত ফেরী : শহীদ মিনারে হাজারো শিক্ষার্থীর ঢল

C02810

নিজস্ব প্রতিবেদ, মাটিরাঙ্গা :

‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি আমি কি ভুলিতে পারি’ মুখে মুখে এ গান আর হাতে হাতে ফুল নিয়ে মাটিরাঙ্গার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ঢল নামে হাজারো শিক্ষার্থীর। নানা রঙের ফুল হাতে নিয়ে আসা শিক্ষার্থীদের পদচারনায় মুখরিত হয়ে ওঠে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ।

সকাল পৌনে সাতটার দিকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীসহ শিক্ষকদের সাথে নিয়ে শহীদ বেদীতে পুস্পমাল্য অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি.এম মশিউর রহমান। এসময় মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরনজয় ত্রিপুরা, মাটিরাঙ্গা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মীল মো. মোহতাসিম বিল্লাহ, মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার কৃষ্ণলাল দেবনাথ, মাটিরাঙ্গা ইসলামিয়া আলিম মাদরাসার অধ্যক্ষ কাজী মো. সলিম উল্যাহ, মাটিরাঙ্গা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. আশরাফ উদ্দিন খোন্দকার ও মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল মালেক প্রমুখ অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

এরপরপরই সকাল সোয়া সাতটার দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি.এম মশিউর রহমান‘র নেতৃত্বে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাজারো শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ‘প্রভাত ফেরী’ মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বর থেকে শুরু করে প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে মাটিরাঙ্গা পৌর ভবন ও মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ঘুরে মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদ মাঠে গিয়ে শেষ হয়।

সেখানে ভাষা দিবস, ভাষা আন্দোলন আর ভাষার মাস নিয়ে বক্তব্য রাখেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি.এম মশিউর রহমান, মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরনজয় ত্রিপুরা ও মাটিরাঙ্গা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. আশরাফ উদ্দিন খোন্দকার প্রমুখ

বক্তারা বলেন, একুশে ফেব্রুয়ারি মায়ের ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে একুশে ফেব্রুয়ারী ছিল ঔপনিবেশিক প্রভুত্ব ও শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে বাঙ্গালির প্রথম প্রতিরোধ এবং জাতীয় চেতনার প্রথম উন্মেষ। পৃথিবীর ইতিহাসে ভাষার জন্য একমাত্র বাঙ্গালীরাই জীবন দিয়েছে উল্লেখ করে তারা বলেন, তারই পথ ধরে শুরু হয় বাঙ্গালীর স্বাধীকার আন্দোলন। যার মধ্য দিয়ে একাত্তরে ৯ মাস যুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত হয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ।




মাটিরাঙ্গা ভাষা শহীদদের প্রতি  শ্রদ্ধা নিবেদন

received_1914532318775672
নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা :
শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বি.এম মশিউর রহমান।
সোমবার দিবাগত রাত ১২টা ১টি মিনিটে মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান মিসেস হাসিনা বেগম, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মমো. মনছুর আলী ও মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাহাদাত হোসেন টিটোসহ বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে শহীদ বেদিতে পুস্পমাল্য অর্পন করেন।
এরপরপরই মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে নিয়ে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. মনছুর আলী, কাউন্সিলরদের সাথে নিয়ে মাটিরাঙ্গা পৌরসভার মেয়র মো. শামছুল হক, মাটিরাঙ্গা থানার অন্যান্য অফিসারদের সাথে নিয়ে মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাহাদাত হোসেন টিটো শহীদ বেদিতে পুস্পার্ঘ্য অর্পন করেন।
মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের পরপরই দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক মো. শামছুল হক ও পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. হারুনুর রশীদ ফরাজি ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এরপরপরই যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমিকলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ পুস্পার্ঘ্য অর্পন করেন।
একুশের প্রথম প্রহরে মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যার মিসেস কামরুন নাহার জাহাঙ্গীর।
এরপরপরই বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এরপর তারা সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে নীরবতা পালন করেন।



অপহরণকারীদের হাত থেকে পালিয়ে বাঁচলো মানিকছড়িতে অপহৃত যুবক

20.02.2017_Kidnaped NEWS Pic-02jpg

প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা :

অপহরণকারীদের হাত থেকে পালিয়ে বাঁচলো মানিকছড়ি থেকে তিন দিন আগে অপহৃত যুবক সুমন নন্দী (২৮)। সে মানিকছড়ির রহমান নগরের মৃত শ্যামল নন্দীর ছেলে ও মোবাইল রিচার্জ ব্যাবসায়ী। সোমবার সন্ধ্যার দিকে অপহরণকারীদের হাত থেকে পালিয়ে মাটিরাঙ্গা থানায় গিয়ে আত্মরক্ষা করে সে।

অপহৃত যুবক সুমন নন্দীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, গেল শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে মানিকছড়ি বাজার থেকে রহমান নগরের বাড়িতে যাবার পথে অজ্ঞাতনামা চার উপজাতীয় যুবক তাকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে যায়। অপহরনের পর অপহরণকারীরা তাকে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে গিয়ে কোমরে রশি দিয়ে বেঁধে রাখে। পরে সোমবার জায়গা বদলের সময় মাটিরাঙ্গা বাজারে একটি সিএনজিতে উঠানোর সময় তাদের হাত থেকে দৌড়ে পালিয়ে এক ব্যবসায়ীর সহায়তা চাইলে ঐ ব্যবসায়ী মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশকে জানালে পুলিশ তাকে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়।

অপহরণকারীরা তার কাছে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবী করেছে জানিয়ে সে বলে চাঁদা না দিলে তাকে মেরে ফেলারও হুমকি দেয় অপহরণকারীরা। তবে কে বা কারা তাকে অপহরণ করেছে সে তাদেরকে চিনতে পারেনি। তবে অপহরণকারীদের একজনকে দেখলে চিনতে পারবে বলেও জানায় সুমন নন্দী।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাহাদাত হোসেন টিটো বলেন, ছেলেটি স্থানীয় এক ব্যবসায়ীর মাধ্যমে পালিয়ে আত্মরক্ষা করে। অপহৃত যুবকের বিষয়ে মানিকছড়ি থানা পুলিশের সাথে কথা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, অপহরণকারীদের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া যুবককে মানিকছড়ি থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হবে।




মাটিরাঙ্গায় তক্ষকসহ একজনকে আটক করেছে নিরাপত্তাবাহিনী

Matiranga Sena NEWS Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা :

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় তক্ষকসহ বুদ্ধ মনি চাকমা নামে একজনকে আটক করেছে নিরাপত্তাবাহিনীর সেনা সদস্যরা। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোববার রাত সাড়ে ৯টার দিকে মাটিরাঙ্গা পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের কমলাকান্ত কার্বারী পাড়ায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

নিরাপত্তাবাহিনীর হাতে আটক বুদ্ধ মনি চাকমা কমলাকান্ত কার্বারী পাড়ার রবীন্দ্র লাল চাকমার ছেলে। এবং স্থানীয় তক্ষক ব্যাবসায়ী।

মাটিরাঙ্গা জোন সুত্রে জানা যায়, বুদ্ধ মনি চাকমার বাড়িতে তক্ষক রয়েছে এমন গোঁপন খবরের ভিত্তিতে মাটিরাঙ্গা জোনের জোনাল স্টাফ অফিসার ক্যাপ্টেন তানজিম হোসাইন‘র নেতৃত্বে নিরাপত্তাবাহিনী কমলাকান্ত কার্বারী পাড়ায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্য মতে তার ঘরে রাখা দুইটি তক্ষক উদ্ধার করা হয়।

এদিকে তক্ষকসহ আটক বুদ্ধমনি চাকমা নিজেকে স্থানীয় তক্ষক ব্যবসায়ী বলে নিরাপত্তাবাহিনীর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকার করে বলেছে, সে সহ স্থানীয় কয়েকজনের একটি সিন্ডিকেট মাটিরাঙ্গা ও আশেপাশের এলকা থেকে তক্ষক ধরে বিক্রয় করে আসছিল।

উদ্ধারকৃত দুইটি তক্ষকসহ আটক বুদ্ধ মনি চাকমাকে মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশে সোপর্দ করার প্রক্রিয়া চলছে বলে নিরাপত্তাবাহিনী সুত্রে জানা গেছে।