কাঠ বোঝাই ট্রাকসহ ধ্বসে পড়া বেইলী ব্রিজ মেরামত না হওয়ায় লক্ষাধিক মানুষ দুর্ভোগে

Khagrachari Pic 24-01-2017 copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কুকিছড়ি কাঠ বোঝাই ট্রাকসহ ধ্বসে পড়া বেইলী ব্রিজ মেরামত না হওয়ায় খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়ক তিন দিন ধরে বিচ্ছিন্ন, লক্ষাধিক মানুষ চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে।

রবিবার বেলা ২টার দিকে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের কুকিছড়া এলাকার একটি বেইলী ব্রিজের উপর অতিরিক্ত কাঠ বোঝাই (ঢাকা মেট্টো-ট, ১৮-০৬৭০) ট্রাকটি উঠামাত্রই ব্রিজটি ধ্বসে পড়ে। এর পর থেকেই পানছড়ি-খাগড়াছড়ি সড়কে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। ফলে পানছড়ি উপজেলার লক্ষাধিক মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে। ওই উপজেলার যাত্রীরা বর্তমানের ধ্বসে পড়া ব্রিজের পাশ দিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে চলাচল করছে।

খাগড়াছড়ি সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী মোছলেম উদ্দিন চৌধুরী জানায়, ধ্বসে যাওয়া ব্রীজটির পাশেই একটি বিকল্প ব্রিজ রয়েছে সেটি দ্রুত চালু করার কাজ চলছে। তবে কবে নাগাদ বিকল্প ব্রিজটি চালু করা যাবে নিশ্চিত করে বলতে পারেননি তিনি। ট্রাকের মালিক ও ড্রাইভারের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি। তবে মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে ট্রাকটি পাওয়া যায়নি।




অপপ্রচার কখনো সুফল বয়ে আনে না- ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মীর মুশফিকুর রহমান

BGB PIC copy

নিজস্ব প্রতিনিধি:

এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হলে সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন। অপপ্রচার কখনও সুফল বয়ে আনে না। এদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে হবে।

সোমবার সকাল ১০টায় খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়িস্থ বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (৩ বিজিবি) লোগাং জোনের উদ্দ্যোগে এক মত বিনিময় সভায় রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মীর মুশফিকুর রহমান একথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, নিরাপত্তাবাহিনী ও বিজিবি প্রশিক্ষিত দীর্ঘ অভিজ্ঞতা রয়েছে তাদের। তাই অস্ত্রধারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

এগিয়ে যাওয়ার পরিবেশ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে রিজিয়ন কমান্ডার বলেন, পর্যটন শিল্পে যারা বাধা সৃষ্টি করছে তাদেরও কোন ছাড় দেওয়া হবে না। এ ব্যাপারে জনপ্রতিনিধিদের সহায়ক ভূমিকা একান্ত  প্রয়োজন।

সভায় এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান, সসদ্য-সদস্যা, শিক্ষক, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও গন্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে মত বিনিময় করেন সদ্য যোগ দেয়া খাগড়াছড়ি রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মীর মুশফিকুর রহমান।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন ৩ বিজিবি লোগাং জোন অধিনায়ক লে. কর্ণেল মোহাম্মদ রফিকুল হাসান পিএসসি, মেজর তানভীর, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রত্না তঞ্চঙ্গ্যা প্রমুখ।




নড়বড়ে বেইলী ব্রীজ ধ্বসে ট্রাক খাদে

Gari acc-F copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ি-পানছড়ি সড়কে বেইলী ব্রীজ ধ্বসে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে প্রায় আট ঘন্টা ধরে। রবিবার বেলা ২টার দিকে খাগড়াছড়ি সীমান্তে কুকিছড়া এলাকার একটি নড়বড়ে বেইলী ব্রিজের উপর গাছবাহী ট্রাক উঠা মাত্রই ব্রীজটি ধ্বসে পড়ে। এ পর্যন্ত কোন ক্ষয়-ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

কয়েকজন পথচারী জানায়, ঢাকা মেট্টো-ট, ১৮-০৬৭০ ট্রাকটি ব্রীজের উপর উঠা মাত্রই বিকট শব্দে গাড়ীসহ নিচে পড়ে যায়। এ পর থেকেই পানছড়ি-খাগড়াছড়ি সড়কে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে জনদুর্ভোগের সৃষ্টি হয়।

খাগড়াছড়ি সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী মোছলেম উদ্দিন চৌধুরী জানায়, ধ্বসে যাওয়া ব্রীজটির পাশেই একটি বিকল্প ব্রীজ রয়েছে সেটি দ্রুত চালু করার কাজ চলছে। দ্রুত সড়ক যোগাযোগ চালু করতে সড়ক ও জনপথ বিভাগ আন্তরিকতার সহিত কাজ করে যাচ্ছে বলেও তিনি জানান।




লটারিতে পানছড়ির এক ঘরের তিন ভাগ্যবান

LOTARY PIC copy

নিজস্ব প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়িতে অনুষ্ঠিতব্য বিজয় ও পৌষ মেলায় পানছড়ি উপজেলার একই পরিবারের তিনজন জিতেছে প্রথম পুরষ্কার। এ কৃতিত্বের অধিকারীরা উপজেলার পাইলট ফার্ম গ্রামের মো. বজল আহাম্মদের দুই ছেলে কামরুল হাসান, পারভেজ আহম্মেদ ও জামাতা সাইফুল ইসলাম।

জানা যায়, বিজয় মেলার প্রথম দিনে হাউজিতে বাম্পার পঞ্চাশ হাজার টাকা পায় জামাতা সাইফুল। বিজয় মেলার দ্বিতীয় দিনে লটারীতে প্রথম পুরষ্কার মোটর সাইকেল পায় বড় ভাই কামরুল হাসান ও পৌষ মেলার লটারীতে প্রথম পুরষ্কার একটি ব্যাটারী চালিত টমটম জিতে পারভেজ আহম্মেদ। এ নিয়ে পানছড়ির বিভিন্ন এলাকা ও দোকানপাটে তিন ভাগ্যবান ভাইকে নিয়ে চলছে মুখরোচক গল্প। তাছাড়া তাদের পিতা বজল আহাম্মদের কপালের সাথে অনেককে কপাল ঘষঁতেও দেখা গেছে।

বজল আহাম্মদের ছোট ছেলে খাগড়াছড়ি সরকারী কলেজের অর্নাসে পড়ুয়া পারভেজ জানায়, টাকা ভাংতি ছিলোনা তাই লটারি ক্রয় করব কিনা দ্বিধাদ্বন্দে ছিলাম। অবশেষে টাকা ভাংতি করে একটি মাত্র লটারি ক্রয় করে বাসায় এসে ঘুমিয়ে পড়ি। রাতে আমার বন্ধু জাহিদ মোবাইল ফোনে জানায় আমি প্রথম পুরষ্কার পেয়েছি। প্রথমে বিশ্বাস হচ্ছিল না। পরে মেলা পরিচালনা কমিটি থেকে ফোন পেয়ে অনুষ্ঠানস্থলে গিয়ে পুরষ্কার গ্রহণ করি। জীবনে এ প্রথম লটারীতে পুরষ্কার পেয়ে সে খুশীতে আত্মহারা বলেও জানায়।

বড় ভাই কামরুল জানায়, লটারী ক্রয় করে নামের জায়গায় লিখেছিলাম নামাজ কায়েম কর। পরে মাইকে ঘোষণা দেয় প্রথম পুরষ্কারপ্রাপ্ত লটারীর অপর পিঠে লিখা আছে নামাজ কায়েম কর। তখন আমি খুশীতে আত্মহারা হয়ে পড়ি। এদিকে ভাগ্যবান তিন ভাইকে পানছড়ি বাজার ও তার আশ-পাশ এলাকায় দেখা মাত্রই হাতে হাত মেলাতে ছুটে আসছে উৎসুক জনতা।




নির্মলেন্দু চৌধুরীর উপর হামলার প্রতিবাদে পানছড়ি পক্ষে-বিপক্ষে বিক্ষোভ মিছিল

A LIG NEW PIC copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নির্মলেন্দু চৌধুরীর উপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৫টা থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. বাহার মিয়া, সাধারণ সম্পাদক জয়নাথ দেব ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিজয় কুমার দেবের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি পানছড়ি বাজারসহ আশে-পাশের এলাকা প্রদক্ষিণ করে। এ সময় নির্মলেন্দু চৌধুরীর উপর হামলাকারীদের আইনের আওতায় এনে দ্রুত শাস্তির দাবী জানানো হয়।

অপরদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আবু তাহেরের নেতৃত্বে একটি মিছিল প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মুক্তিযোদ্ধা স্কোয়ারে এক সমাবেশ করে।

সমাবেশে আবু তাহের বলেন, খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্জ্ব মো. জাহিদুল আলম, ও খাগড়াছড়ি পৌর মেয়র আলহাজ্জ্ব মো. রফিকুল আলমের বিরুদ্ধে যারা ষড়যন্ত্র করছে তাদের বিরুদ্ধে সবাইকে রুখে দাঁড়াতে হবে।

এ সময় মো. জাহিদুল আলম ও দলের দু:সময়ের কাণ্ডারী মো. রফিকুল আলমের নেতৃত্বে সবাইকে একজোট হওয়ার আহ্বানও জানানো হয়।




পানছড়িতে ভিডিপি’র মৌলিক প্রশিক্ষানার্থীদের সমাপনী ও সনদ বিতরণ

Answer Pic n copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

জেলার পানছড়ি উপজেলায় ভিডিপি’র মৌলিক প্রশিক্ষনার্থীদের সমাপনী ও সনদ বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। গ্রাম ও আশ্রয়ন প্রকল্প ভিত্তিক অস্ত্রবিহীন ভিডিপি’র পুরুষ ও মহিলা সদস্যদের নিয়ে  উপজেলার ১নং লোগাং ইউপির ফাতেমা নগর এলাকায় দশ দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়।

এর আয়োজক ছিল উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয়। বৃহস্পতিবার সমাপনী দিনে অনুষ্ঠিতব্য সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল আহসান চৌধুরী (শিবলী)।

প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পানছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ মো.আ. জব্বার। সমাপনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য শেষে প্রশিক্ষানার্থীদের হাতে অতিথিরা সনদ তুলে দেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আনসার ও ভিডিপি’র এফএস নিমাই সরকার, হাবিলদার মো. সুবেদ আলী ও কমান্ডার মো. নাছির।




শীতার্তদের পাশে পানছড়ির ইউপি চেয়ারম্যান

UP KAMBAL PIC copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার পানছড়ি উপজেলার বিভিন্ন সম্প্রদায়ের শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করেছে ৩নং সদর পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন।

চলতি শীত মৌসুমে এ নিয়ে দ্বিতীয় বারের মতো চাকমা, ত্রিপুরা, মারমা, সাঁওতাল, হিন্দু ও মুসলিম সম্প্রদায়ের শীতার্তদের শীতবস্ত্র দিয়েছে পানছড়ি ইউপি। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে ইউপি ভবন এলাকায় প্রায় দুই শতাধিক শীতার্ত পরিবারের সদস্যরা শীতবস্ত্র গ্রহণ করে।

এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পানছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আ. জব্বার ও বিশেষ অতিথি ছিলেন পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. বাহার মিয়া।

শীতবস্ত্র নিতে আসা কয়েকজন বয়োবৃদ্ধ পার্বত্যনিউজকে জানান, এবারের মাঘের হাড়কাঁপানো শীতে কম্বল পেয়ে আমরা খুব খুশি। এটি শীত নিবারণে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। এ সময় ইউপির সকল ওয়ার্ডের পুরুষ ও মহিলা সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।




পানছড়িতে দিগন্ত গাইডের সাথে গিফট

DUIDE PIC copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার পানছড়ি উপজেলার বিদ্যালয়ে, বিদ্যালয়ে দৌরাত্ম বেড়েছে গাইড প্রকাশনীর দালালচক্রের। এ বছর তাদের মধ্যে অন্যতম রেখা প্রকাশণীর “দিগন্ত” গাইড। বছরের শুরুতেই নিম্নমানের গাইড পাঠ্য নিয়ে উপজেলার এপার-ওপার দাবড়িয়ে বেড়াচ্ছে অসাধু এ দালালচক্র। জানুয়ারিতেই তাদের আনাগোনা সবচেয়ে বেশী।

এবারে উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে “দিগন্ত” সৌজন্য সংখ্যা গাইডের পাশাপাশি শিক্ষকদের মন জয় করতে দেয়া হচ্ছে ফ্রি উপহার পানির জগ, বোতল, টিফিন বক্স, ডায়েরী ও সৌজন্য সংখ্যা। বিভিন্ন বিদ্যালয়ের আলমিরাতে এসব সামগ্রী শোভা পাচ্ছে বলে বিশ্বস্থ সূত্রে জানা যায়।

তাছাড়া গিফট সামগ্রী ও সৌজন্য সংখ্যা গাইড ভাগাভাগি নিয়ে শিক্ষকদের মাঝে গ্রুপিং ও দ্বন্দের সৃষ্টি হয় বলেও একাধিক সূত্রে জানা গেছে। তবে এবারের সবচেয়ে আলোচিত বিষয় প্রথম শ্রেণী ও দ্বিতীয় শ্রেণীর গাইড নিয়ে। উপজেলার বিভিন্ন বিদ্যালয়ে ইতিমধ্যে গাইড ক্রয়ের জন্য প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের ডিজিটাল পদ্ধতিতে চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। আবার কোন কোন বিদ্যালয়ের শিক্ষকরাই বই বহন করে বিদ্যালয়ে নিয়ে  বিলি করার পাশাপাশি লভ্যাংশের একটি ভাগও পাচ্ছে।

শনি থেকে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে আটটা থেকে সাড়ে নয়টার মধ্যে পানছড়ি বাজারের প্রধান সড়কে দাঁড়ালে শিক্ষকদের বইয়ের বোঝা বহন করার দৃশ্যটিও নজরে আসবে। তাছাড়া দালালচক্ররা বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে পানছড়ি বাজারে চায়ের আসরেই তাদের গোপন কার্যাদি সেরে নেয় বলেও জানা যায়।

অনেক অভিভাবক জানায়, ছাত্র-ছাত্রীদের বই কিনতে বাধ্য করার এক ধরনের চাপ প্রয়োগ করা হয় বিদ্যালয়ে। যা থেকে রেহাই পাচ্ছেনা প্রথম ও  দ্বিতীয় শ্রেণীতে পড়া কোমলমতি শিশুরাও। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর গাইড শিশুদের লেখাপড়ায় বিশাল প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করবে বলে তাদের ধারনা। তাছাড়া কোমলমতি শিশুরা বিদ্যালয় শেষে বাড়ি ফিরেই মা-বাবার কাছে আবদার গাইড কিনতে হবে।

এ ব্যাপারে পানছড়ি উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সুজিত মিত্র চাকমা জানায়, বিদ্যালয়ে কোন গাইড পাঠ্য করার নিয়ম নাই। এ সংক্রান্ত কোন অভিযোগ এলে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে বিহীত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সচেতন কয়েকজন অভিভাবক জানালেন, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীতে গাইড কেন তা বোধগম্য নয় তবে আমরা যতটকু জানি, এসব কোমলমতিদের বিভিন্ন আনন্দ-উৎসাহ দিয়েই পড়ালেখা শেখানো হয়। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণীর গাইড নিষেধসহ বিভিন্ন অসাধু প্রকাশনীর দালালেরা বিদ্যালয় এলাকায় যাতে প্রবেশ করতে না পারে এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা অধিদপ্তরের সু-দৃষ্টি কামনা করছেন অভিভাবক মহল।




পানছড়ি উপজেলা আনসার ও ভিডিপি’র বনভোজন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান

ans Pic copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলায় এক প্রাণবন্ত আয়োজনের মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে উপজেলা আনসার, ভিডিপি, হিল আনসার ও হিল ভিডিপি’র বনভোজন ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক আনসার ও ভিডিপি’র বেতন বৃদ্ধি হওয়ায় এ বনভোজন ও সাংস্কৃত্কি অনুষ্ঠানের আয়োজন বলে উপস্থিত সদস্যরা তাদের অভিমত ব্যক্ত করে।

‘শান্তি, শৃংখলা, উন্নয়ন, নিরাপত্তায় সর্বত্র আমরা এ ব্যানারে শনিবার উপজেলা আনসার ও ভিডিপি’র কার্যালয় সংলগ্ন মাঠে অনুষ্ঠিতব্য অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আনসার ও ভিডিপি কমড্যান্ট মো. রাজিব হোসাইন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্থানীয় শিল্পীদের নৃত্য ও গানে গানে মুখরিত করে তোলা অনুষ্ঠানকে আরও আনন্দিত করে সস্ত্রীক জেলা কমড্যান্টসহ উপস্থিতিদের করতালিতে। নৃত্য ও গানে গানে অনুষ্ঠানের প্রথম অধিবেশন শেষে দুপুরে মধ্যহ্ন ভোজনের পর শুরু হয় আনসার সদস্যদের নাটিকা উপস্থাপন, অতিথিদের নিয়ে হাড়ি ভাঙ্গা ও র‌্যাফেল ড্র।

অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, পানছড়িকে আমি খুব ভালোবাসি। তিনি আনসার ও ভিডিপি সদস্যদের আন্তরিকতার সাথে কাজ করার আহ্বান জানান।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল আহসান চৌধুরী শিবলী, ৩নং সদর পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন, এনজিও সংস্থা ইপসা’র এইচআরএস প্রকল্পের পানছড়ি ম্যানেজার বিলাস সৌরভ বড়ুয়া, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবী আনসার কোম্পানি কমান্ডার মো. নাছির সহ ও ইউনিয়ন ভিডিপি মহিলা দলনেত্রী জ্যোৎস্না বেগম ও অনুষ্ঠানের সার্বিক পরিচালক হাবিলদার মো. সুবেদ আলী।




পানছড়ির ১২টি অ-উপজাতীয় গুচ্ছগ্রামের রেশন দিচ্ছে প্রশাসন

RASON PIC copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলার ১২টি অ-উপজাতীয় গুচ্ছগ্রামে চলছে নীরব দুর্ভিক্ষ। দীর্ঘ প্রায় সাড়ে ছয় মাস যাবৎ রেশন না দেয়ার কারণে মানবেতর দিন যাবন করছে চার হাজার একশত উনত্রিশটি পরিবার। রেশন বিতরণের জন্য উপজেলার ১২টি অ-উপজাতীয় গুচ্ছগ্রামে ১২জন প্রকল্প চেয়ারম্যান নিয়োগ দেওয়া হয় এবং স্থানীয় খাদ্য গুদাম থেকে উত্তোলন করে তাদের নামে বরাদ্ধকৃত রেশন স্ব-স্ব এলাকায় বিতরণ করে থাকে। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গন্যমান্য ব্যক্তিরা গুচ্ছগ্রামে প্রকল্প চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ থাকার কথা থাকলেও ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরাই এসব গুচ্ছগ্রামে প্রকল্প চেয়ারম্যান নিয়োগ পেয়ে থাকে। তাই সোনার হরিণ হিসাবে খ্যাত প্রকল্প চেয়ারম্যান নিয়োগ সংক্রান্ত জটিলতা (রিট) থাকার কারণে ৪১২৯ টি পরিবার দীর্ঘদিন রেশন বঞ্চিত বলে প্রশাসন সূত্রে জানা যায়।

জানা যায়, প্রকল্প চেয়ারম্যান নিয়োগ সংক্রান্ত জটিলতায় এবারে রেশন বিতরণ হচ্ছে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে। জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের স্মারক নং-০৫.৪২.৪৬০০.০১০.০০.০১৯.১৬.১০তারিখ ৯/১/২০১৭ ও  ০৫.৪২.৪৬০০.০১০.০০.০১৯.১৬.১১ তারিখ ৯/১/২০১৭ মূলে মাসিক ৩৫.৯৫কেজি চাউল ও ৪৯.১০কেজি গম যা ছয় মাসে ২১৫.৭ মে. টন চাউল ও ২৯৪.৬ মে. চাউল প্রতি কার্ডধারীর অনুকুলে বরাদ্ধ প্রদান করা হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার অফিস সূত্রে জানা যায়, ওই স্মারক দুটির নির্দেশ মোতাবেক গম ও চাউল বিতরণ প্রক্রিয়া ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে প্রতি কার্ডধারীর অনুকুলে চিঠির মাধ্যমে ডিও কার্ডের জন্য উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে পাঠানো হচ্ছে। উপজেলা খাদ্য অফিস থেকে ডিও লেটার নিয়ে খাদ্য গুদাম থেকে রেশন উত্তোলন করবে কার্ডধারীরা।

শুক্রবার সকালে পানছড়ি খাদ্য গুদামে কথা হয় জিয়ানগর গুচ্ছগ্রামের চাউল ও গম উত্তোলনকারী নুরজাহান, আফিয়া, মাজেদা ও শুক্কুরজানের সাথে।

তারা জানায়, দুদিন কষ্ট হলেও চাউল ও গম ষোল আনা বুঝে পেয়েছে। তবে কার্ডধারীদের দাবী তারা গম খেতে অভ্যস্থ নয়। তাই বর্তমান দেশের উন্নয়নের রূপকার সরকারের কাছে দাবী এ অ-উপজাতীয় গুচ্ছগ্রামে গমের পরিবর্তে চাউল সরবরাহ করলে গুচ্ছগ্রামবাসী বেশী উপকৃত হবে।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক প্রমিত কুমার চাকমা জানায়, এ প্রক্রিয়ার চাউল ও গম বিতরণে অনেক লম্বা সময় লাগবে। ৪১২৯টি কার্ডের বিপরীতে ১৬৫১৬টি ডিও লেটার ইস্যূ করতে হবে। তাছাড়া ডিও বই পরিমানমত সরবরাহ নাই। তবে ডিও বই আসার পূর্বে প্রতিদিন ৫৪জন কার্ডধারী গুদাম থেকে রেশন তুলতে পারবে বলেও জানান।

পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. বাহার মিয়া জানায়, প্রকল্প চেয়ারম্যান জটিলতায় বর্তমানে উপজেলার গুচ্ছগ্রামগুলোতে অনেক অভাব অনটন দেখা দিয়েছে। গুচ্ছগ্রামবাসীর দুর্ভোগ লাঘবে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একটি ভালো উদ্যোগ নিয়েছে। এ উদ্দ্যোগের তিনি ভূয়শী প্রশংসা করেন।

অপরদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আবু তাহের জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে স্ব-স্ব গুচ্ছগ্রামে রেশন বিতরণের ব্যবস্থা করলে কার্ডধারীরা ভোগান্তি থেকে রেহাই পেত। এ ব্যাপারে প্রশাসনকে সার্বিক সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহিদ হোসেন ছিদ্দিক জানায়, রেশন বিলির ব্যাপারে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন প্রকার অবহেলা করা হবেনা। তবে রেশন বিলির সময় খাদ্য গুদামের আশ-পাশ এলাকায় কোন ধরণের বেচা-কেনাও নিষেধ। এ ধরণের কোন অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বিভিন্ন গুচ্ছগ্রামের কার্ডধারীদের দাবী, তারা অনেকেই দিনমজুর। উপজেলায় আসা ও ঘুরাঘুরিতে তাদের  অনেক কষ্ট পোহাতে হচ্ছে। তাছাড়া লোগাং, উমরপুর, রসুলপুর, মুসলিমনগর, আলী নগরের কার্ডধারীরা জানায়, খাদ্য গুদাম থেকে রেশন নিতে অনেক ভোগান্তি। তাছাড়া পরিবহন খরচও অনেক। এ ব্যাপারে প্রশাসন স্ব-স্ব এলাকায় রেশন বিলির ব্যবস্থা করলে কার্ডধারীরা অনেকটা উপকৃত হবে।