পানছড়িতে এক ছড়ায় তিন শতাধিক কলা

Banana Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি :

জেলার পানছড়ি উপজেলায় এক ছড়ায় ৩ শতাধিক কলা দেখার জন্য জমে উঠছে উৎসুক জনতার ভীড়। আর এই ভীড় সামাল দিতে কলার মালিক শেষ পর্যন্ত নিজের পরিহিত লুঙ্গি দিয়ে ডেকে রেখেছেন ছড়াটিকে।

এই বিশালাকার ছড়াটি দেখা যায় উপজেলার ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির জিয়ানগর গ্রামের শরাফত আলীর দোকানে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিশালাকার ছড়াটি ঝুলে আছে শরাফত আলীর দোকানে। শরাফত আলী (৫৬) জিয়া নগর গ্রামের আ. হেকিমের ছেলে। দোকানে বিক্রির জন্য তিনি কলার ছড়াটি শান্তিপুর এলাকা থেকে ক্রয় করেছেন বলে জানান। গাছ থেকে কাটার পর ছড়াটি তার ভাতিজা সোহেল, ভাই টুকু ও নিজে কাধে করে এনেছেন।

ছড়াটির ১৫টি ফনায় ২১টি করে কলা রয়েছে। তার ধারণা এটার ওজন এক মণের অধিক হবে।

এলাকার ইউপি সদস্যা সোলেমা খাতুন এবং বয়োবৃদ্ধ নুরজাহান জানান, জীবনে এত বড় কলার ছড়া তারা কখনো দেখেননি।

পানছড়ি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন শেখও ছুটে আসেন এ খবরে। তিনি জানান, এটি সাগর কলা। এটাকে অনেকে জাহাজী কলাও বলে থাকে। তিনি বলেন কলাগুলো এখনো অপরিপক্ক। তবে এতবড় ছড়া তিনিও আগে কখনো দেখেননি বলে জানান।




নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই খর্বকায় প্রতিবন্ধী ফিরোজের স্বাধীনতা দিবস পালন

Feroz Pic copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

জেলার পানছড়ি উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের হাসান মিস্ত্রীর ছেলে ফিরোজ। জন্ম থেকেই সে খর্বকায় প্রতিবন্ধী। তার বয়স ২৮ আর উচ্চতা ৪ফুট। আনন্দমুখর পরিবেশে নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মহান স্বাধীনতা দিবস পালন করে সবার নজর কাড়ে ফিরোজ।

উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের প্রধান সড়কেই ফিরোজের ফার্নিচার দোকান। প্রতিষ্ঠানের মিস্ত্রী দিয়ে সম্পূর্ণ নিজ ফর্মূলায় ছোট্ট আকারের জাতীয় পতাকার ষ্ট্যান্ডসহ একটি শহীদ মিনার তৈরি করেছে ফিরোজ। প্রতিষ্ঠানে বসে মহান স্বাধীনতা দিবস পালন করে খর্বকায় ফিরোজ বুঝিয়ে দিল প্রতিবন্ধী হয়েও তা সম্ভব।

এ ব্যাপারে ফিরোজের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে সে জানায়, আমার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক মুক্তিযোদ্ধা শিশু মিয়া ছেলে বাচ্চু মিস্ত্রী। মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের দোকান ও মহান স্বাধীনতা দিবসের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করার জন্য নিজ ফর্মূলায় কাঠ দিয়ে শহীদ মিনার তৈরি করার প্ররিকল্পনা গ্রহণ করে অবশেষে বাস্তবে রুপ দিলাম।

প্রতিবন্ধী হয়েও ফিরোজের এ অনন্য দৃষ্টান্ত এখন সবার মুখে মুখে তাছাড়া ফেইসবুকেও অনেকে জানাচ্ছে বাহবা।




একটু ভিন্ন চিত্রে পানছড়িতে মহান স্বাধীনতা দিবস পালিত

26 m Pic

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

একটু ভিন্ন চিত্র দিয়েই পানছড়িতে এবার পালিত হলো মহান স্বাধীনতা দিবস। প্রতি বছরই এই দিবসটির সূচনালগ্নে শহীদ মিনারে পূষ্পমাল্য অর্পন করে উপজেলা প্রশাসন। এর নেতৃত্বে থাকতেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার।
কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ সূচনার গৌরবের এই দিনের প্রথমেই উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমার নেতৃত্বে শহীদ মিনারে পূষ্পমাল্য অর্পন করে উপজেলা পরিষদ।

পরবর্তীতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হাসেন ছিদ্দিকের নেতৃত্বে পূষ্পমাল্য অর্পন করে উপজেলা প্রশাসন। এ উপলক্ষে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে পানছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আ. জব্বারের নেতৃত্বে শুরু হয় ৩১ বার তোপধ্বনি। এর পর পরই  শুরু হয় শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পনের পালা।

উপজেলা পরিষদ ও উপজেলা প্রশাসনেরর পর পরই উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, অফিসার ইনচার্জের নেতৃত্বে পানছড়ি থানা, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বাহার মিয়ার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠন, উপজেলা বিএনপি সভাপতি বেলাল হোসেনর নেতৃত্বে বিএনপি ও সহযোগী অঙ্গ সংগঠন, উপজেলা জাতীয় পার্টি, উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি, পানছড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতি, জাবারাং পানছড়ি, পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয়, সানরাইজ কিন্ডার গার্টেন, উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘ ও জনসংহতি সমিতি ধারাবাহিকভাবে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন করে।

সকাল ৯টায় স্কুলের ছাত্রী-ছাত্রীদের নিয়ে শুরু হয় কুচকাওয়াজ ও ক্রীড়া প্রতিযোগিতা। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন সিদ্দিক শান্তির প্রতীক পায়রা ও পেষ্টুন উড়িয়ে হাজারো করতালির মধ্যে দিয়ে এর উদ্ভোধন করেন। দুপুর বারটা থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হয়। বেলা ১২টা থেকে শুরু হয় পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান।

কুইজ, চিত্রাংকন ও ক্রীড়া প্রতিযোগীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ ও প্রীতি ফুটবল খেলার মধ্যে দিয়ে অনুষ্ঠানের সুন্দর সমাপ্তি ঘটে।




জোন কাপ ফুটবলে ট্রফি জিতল পানছড়ি ফুটবল একাডেমি

FINAL PLAY PIC copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলায় বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে ৩ বিজিবি কর্তৃক আয়োজিত জোন কাপ ফুটবল টূর্ণামেন্ট১৭। এ টূর্ণামেন্টে নান্দনিক ও ছন্দময় ফুটবল খেলে ট্রফি জিতে নিল পানছড়ি ফুটবল একাডেমি।

বৃহষ্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টা থেকে ৩ বিজিবি মাঠে অনুষ্ঠিতব্য ফাইনালে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ ট্রফি বিতরণ করে খাগড়াছড়ি বিজিবির সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মতিউর রহমান, বিজিবিএম, পিবিজিএম, পিএসসি।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন ৩ বিজিবি লোগাং জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল মো. রফিকুল হাসান পিএসসি, খাগড়াছড়ি জোন কমান্ডার জিএম সোহাগ পিএসসি, পানছড়ি সাব জোন কমান্ডার মেজর মো. রফিকুল ইসলাম।

জানা যায়, গত ১২মার্চ থেকে ৮টি দলকে দুই গ্রুপে ভাগ করে লীগ পদ্ধতির এ খেলায় ফাইনালে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে পানছড়ি ফুটবল একাডেমি ও পূজগাং স্বপ্নসিড়ি ক্লাব। বৃহষ্পতিবার বেলা ২টা থেকে বর্ণিল সাজে সাজানো ৩ বিজিবি মাঠে উপস্থিত হয় হাজার হাজার দর্শক।

তীব্র উত্তেজনাকর ফাইনালে ফুটবল একাডেমি ১-০ গোলে পূজগাং স্বপ্নসিড়ি ক্লাবকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ন হয়। চ্যাম্পিয়ন দলকে ট্রফি ও নগদ ২০ হাজার টাকা এবং রানার্স আপ দলকে ট্রফি ও নগদ ১০ হাজার টাকা প্রদান করে ৩ বিজিবি। টূর্ণামেন্টের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয় ফুটবল একাডেমির জ্ঞান আলো চাকমা (দোকলা)।

ফাইনাল খেলাসহ টূর্ণামেন্টের সবকটি খেলা পরিচালনা করে নিখিল কুমার দে, সুমন ত্রিপুরা ও জ্যোতিষ ত্রিপুরা। ফাইনালে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আরও খেলা উপভোগ করে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি  মো. বাহার মিয়া, বিএনপি সভাপতি মো. বেলাল হোসেন, পানছড়ি থানার সাব-ইন্সপেক্টর মো. ইয়াছিন, ১নং লোগাং ইউপি চেয়ারম্যান প্রত্যুত্তর চাকমা, ২নং চেংগী ইউপি চেয়ারম্যান কালাচাঁদ চাকমা, ৩নং পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন, ৪নং লতিবান ইউপি চেয়ারম্যান কিরণ ত্রিপুরা ও ৫নং উল্টাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় চাকমা।




পানছড়িতে ইপসা-শো প্রকল্পের অবহিতকরণ কর্মশাল

IFSA Pic copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

পানছড়িতে বেসরকারী সমাজ উন্নয়ন সংগঠন ইপসার উদ্যোগে আয়োজিত শো-প্রকল্পের অবহিতকরণ সভায় পানছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা সকলে সন্মিলিতভাবে এগিয়ে এসে নারী ও শিশু মৃত্যুর হার শুন্যের কোটায় আনার লক্ষ্যকে সামনে রেখে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, প্রদত্ত স্বাস্থ্যসেবা বিষয়ে গণসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। স্বাস্থ্য সচেতন হলে মাতৃ ও শিশু মৃত্যু হ্রাসসহ সকল ক্ষেত্রে উন্নয়ন হবে। তিনি আরও বলেন, সকলের জন্য স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে সরকারী বেসরকারী সকল পর্যায়ে যার যার অবস্থান থেকে এগিয়ে আসতে হবে।

বুধবার সকালে পানছড়ি উপজেলা পরিষদ কনফারেন্স রুমে পানছড়ি উপজেলার ইয়ং পাওয়ার ইন সোশ্যাল এ্যাকশন (ইপসা) কর্তৃক বাস্তবায়িত গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স কানাডার আর্থিক সহায়তা এবং প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের কারিগরী সহযোগিতায় স্ট্রেংদিং হেলথ আউটকামস ফর ওমেন এন্ড সিলড্রেন (শো-প্রকল্প) প্রকল্পের উপজেলা পর্যায়ে অবহিতকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

পানছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হোসেন ছিদ্দিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই কর্মশালায় পানছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ প্রকল্পের উপজেলা পর্যায়ের উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

ইপসার ফিল্ড কো-অর্ডিনেটর আব্দুল হালিম ও নিপা তালুকদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত কর্মশালায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইপসা-শো প্রকল্পের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মো. জসিম উদ্দিন। প্রকল্পের কার্যক্রম উপস্থাপন করেন টেকনিক্যাল অফিসার মো. হাবিবুর রহমান।

প্রকল্প অবহিতকরণ কর্মশালায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, পানছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা. ইমরানুল হক, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সোহাগ ময় চাকমা, পানছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জয়নাথ দেব, পানছড়ি সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন, লোগাং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রতুত্তর চাকমা, চেঙ্গী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কালাচাঁদ চাকমা, লতিবান ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কিরণ ত্রিপুরা, উল্টাছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিজয় চাকমা, সাবেক চেয়ারম্যান সুব্রত চাকমা, সাংবাদিক নতুন ধন চাকমা, সাবেক ইউপি সদস্য রোজী আকতার প্রমুখ।

কর্মশালায় জানানো হয়, পানছড়িতে পাচঁটি ইউনিয়নের মধ্যে বসবাসরত দারিদ্রপীড়িত ও উচ্চ-স্বাস্থ্য ঝুকিতে রয়েছে এমন গর্ভধারণ সক্ষম নারী, গর্ভবতি মা, কিশোরী মেয়ে এবং নবজাতক ও পাচঁ বছরের নিচে শিশুদের নিয়মিত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে এ প্রকল্পের মাধ্যমে কাজ করা হবে।




পানছড়িতে প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘের এডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত

P BONDI PIC copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলায় প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘের আয়োজনে উপজেলা পর্যায়ের এডভোকেসি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।  ডিজএ্যাবিলিটি রাইটস ফান্ড ডিআরএফ ও রিহ্যাবিলিটেশন সেন্টার ফর প্রসটিটিউটস রুটলেস চিলড্রেন (পার্ক) এর সহযোগিতায় মঙ্গলবার সকাল ১১টা থেকে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রোগ্রাম অফিসার মো. সিরাজুল ইসলামের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হোসেন ছিদ্দিক।

পানছড়ি প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘের সভাপতি মো. হাছানুজ্জমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন জেলা প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা মো. শাহজাহান, ডিজএ্যাবিলিটি ফোকাল পারসন প্রফেসার লায়লা খালেদা লিমা, পানছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ প্রতিনিধি এএসআই মো. জহিরুল, ২নং চেংগী ইউপি চেয়ারম্যান কালাচাঁদ চাকমা, ৩নং পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন, ৫নং উল্টাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় চাকমা প্রমুখ।




পানছড়িতে সরকারী রাস্তায় প্রভাবশালীর পুকুর বাঁধ

Zia nagar Pic copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলায় পানছড়ি-জিয়ানগর ইট সলিং রাস্তার উপর পুকুরের বাঁধ নির্মান ও পানি চলাচলের নাশী বন্ধ করে রেখেছে এলাকার এক প্রভাবশালী। সরকারী এ সড়কের উপর বাঁধ নির্মান ও নাশী বন্ধে প্রশাসন কর্তৃক কোন বাধা না আসায় এলাকাবাসী হতাশ। যার ফলে শ্যাঁতশ্যাঁতে এ সড়কটি যে কোন মুহুর্তে বিলীন হওয়ার সম্ভবনায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে এলাকাবাসী ও চলাচলকারীদের মধ্যে। এবারের আগাম বৃষ্টির পানি জমে বর্তমানে রাস্তাটি দিয়ে মানবেতর চলাচল করছে পথচারীরা। অথচ এ সড়ক দিয়ে ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির জিয়ানগর, আলী নগর, মুসলিমনগর, ওমরপুর ও রসুলপুরসহ গ্রামের লোকজনের চলাচলের একমাত্র মাধ্যম।

সরেজমিনে দেখা যায়, জিয়ানগর পুলিশ পোস্টের সামনে সরকারী রাস্তার উপরেই পুকুরের বাঁধ। এ বাঁধের মালিক জিয়ানগর গ্রামের মৃত আবদুছ ছামাদের ছেলে হোসেন আলী। গত ৪/৫ বছর যাবৎ বাঁধের পানিতে সারাবছর রাস্তাটি শ্যাঁতশ্যাঁতে অবস্থা বিরাজ করে আসছে বলেও জানায় পথচারীরা।

তাছাড়া এ জায়গায় এসে বিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থী, মোটর সাইকেলবাহী ও পায়ে হেঁটে চলাচলকারীদেরও কর্দমাক্ত পানিতে কাপড়-চোপড় নষ্ট হচ্ছে বলে জানা যায়। সরকারী রাস্তায় নির্মিত কালভা্র্টে সে নিজের মনগড়ামত বাঁধ দিয়ে পানি ছাড়ে ও বন্ধ করে এবং শুকনো মৌসুমে এ পানি ধান্য জমিন মালিকদের মাঝে বিক্রি করে বলেও নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকে জানায়। এ প্রভাবশালীকে কেউ প্রতিবাদ করার সাহস পায়না। উচ্চ পর্যায়ের কোন প্রতিবাদ আসলেও তার পুকুরের ৮/১০ কেজি ওজনের মাছ দিয়ে ম্যানেজ করে নেয় বলেও বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে পানছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জাহিদ হেসেন ছিদ্দিক জানায়, সরকারী রাস্তা দখল করে পুকুরের বাঁধ নির্মান ও নাশী বন্ধের ব্যাপারে খুব দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

রাস্তা দিয়ে চলাচলকারীদের দাবি সরকারী কালভার্ট বন্ধ করা সম্পুর্ণ বে-আইনি। এ কালভার্ট বন্ধের ফলেই পুকুরের পানি উপচে সারাবছর রাস্তাটি থাকে কর্দমাক্ত। কালভার্টটি উন্মুক্ত ও পুকুরের বাঁধ সহসাই অপসারণ না করলে জনচলাচলের একমাত্র সড়কটি যে কোন মুহুর্তে আবারও ধ্বসে পড়তে পারে বলেও মনে করছেন ভুক্তভোগীরা।




পানছড়িতে বিদ্যুতের সাবস্টেশন উদ্বোধন করলেন সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা

MP PIC

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি :

খাগড়াছড়ির পানছড়ি উপজেলায় ৩৩/১১ কেভি বিদ্যুতের সাবস্টেশন উদ্বোধন করা হয়েছে। রবিবার উপজেলার কানুনগোপাড়া এলাকায় নব নির্মিত সাবস্টেশনটির ফিতা কেটে উদ্বোধন করে ২৯৮ নং খাগড়াছড়ি আসনের সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

পানছড়ি বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বাস্তবায়ন করে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিদ্যুতায়ন প্রকল্প (২য় পর্যায়)। এর ফলে উপজেলার উত্তরাঞ্চল তথা লোগাং-দুধুকছড়া এলাকার জনগণের ঘর আলোকিত হলো বিদ্যুতের আলোতে। এর মধ্যে দিয়ে পার্বত্য শান্তিচুক্তির প্রথম উৎসস্থল দুধুকছড়াবাসীর পূর্ণ হলো দীর্ঘ দিনের স্বপ্ন।

১৯৯৯ সালে তৎকালীন আওয়ামীলীগ সরকারের বিদ্যুৎ তার ও ডাক যোগাযোগ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম পূজগাংমূখ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিজয় মেলা উদ্বোধনের সময় এসব এলাকায় বিদ্যুতায়নের ঘোষণা দিয়েছিলেন। দীর্ঘ ১৮ বছর পর তা আজ বাস্তবায়িত হলো। পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের এটিও একটি অংশ।

কানুনগোপাড়া এলাকায় সাবস্টেশন উদ্বোধন শেষে দুধুকছড়া এলাকায় সুইচ টিপে বিদ্যুৎ চালু করেন সাংসদ। পরবর্তীতে উপজেলা চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমার সভাপতিত্বে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য প্রদান করে সাংসদ কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

আরো বক্তব্য রাখে খাগড়াছড়ি বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবু জাফর, জেলা পরিষদ সদস্য আশুতোষ চাকমা, সতীশ চন্দ্র চাকমা, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. বাহার মিয়া ও লোগাং ইউপি চেয়ারম্যান প্রত্যুত্তর চাকমা।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ২নং চেংগী ইউপি চেয়ারম্যান কালাচাঁদ চাকমা, ৩নং পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো: নাজির হোসেন, ৪নং লতিবান ইউপি চেয়ারম্যান কিরণ ত্রিপুরা, ৫নং উল্টাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় চাকমা প্রমুখ।




পানছড়ি ওমরপুরের খোদেজা হত্যা মামলার আসামী আটক

 OMAR PIC copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলার ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির ওমরপুর গ্রামে সীমানা বিরোধ নিয়ে সংঘর্ষে নিহত খোদেজা হত্যা মামলার আসামী  উমরপুর গ্রামের আবদুর রহিমের ছেলে মো. আলম (৩০) কে আটক করেছে পানছড়ি থানা পুলিশ।

ররিবার বেলা ৪টার দিকে খাগড়াছড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়। সে খোদেজা হত্যা মামলার তালিকাভুক্ত ২নং আসামী।

পানছড়ি থানার সাব ইন্সপেক্টর মো. ইয়াছিন জানায়, নিহত খোদেজার ছেলে খাইরুল বাদী হয়ে পানছড়ি থানায় একটি মামলা দায়ের করে। পানছড়ি থানার মামলা নং-০৩। মামলার পর থেকেই পানছড়ি থানা পুলিশ আসামীদের গ্রেফতারের ব্যাপারে বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালায়। অবশেষে মো. আলমকে খাগড়াছড়ি থেকে আটক করা হয়। মামলার অন্যান্য আসামীদের গ্রেফতারের ব্যাপারে পুলিশ আন্তরিকতার সহিত কাজ করে যাচ্ছে বলেও তিনি জানান।




পানছড়ির ওমরপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় স্বামী-স্ত্রী আহত

omarpur Pic copy

নিজস্ব প্রতিবেদক:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলার ৫নং উল্টাছড়ি ইউপির ওমরপুর গ্রামে সীমানা নিয়ে সংঘর্ষে দু’জন আহত হয়েছে। আহতরা ওমরপুর গ্রামের আ. রাজ্জাকের ছেলে কাজিম উদ্দিন (৫৫) ও তার স্ত্রী খোদেজা বেগম (৪৩)।

জানা যায়, ওমরপুর গ্রামের আ. রহিমের ছেলে মো. আলম ও আলমাসের সাথে কাজিম উদ্দিনের সীমানা নিয়ে দীর্ঘদিনের বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটে।

এ নিয়ে এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য মো. হাবিবুর রহমান সীমানা নির্ধারণ করে পিলার বসিয়ে দিলেও মো. আলম ও আলসাম তা মেনে নিতে পারেনি। এ নিয়ে শনিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে আলম, আলসাম ও তাদের মামা আবুল কাসেম পরিকল্পিতভাবে সীমানা পিলার তুলে ফেলার চেষ্টা চালায়।

এ সময় কাজিম উদ্দিন বাধা দিতে গেলে অতর্কিতভাবে তাদের মারধর করে। আঘাতে কাজিম উদ্দিন ও তার স্ত্রী খোদেজার মাথা ফেটে যায়। আহতবস্থায় তাদের পানছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মাথায় সেলাই দেয়। বর্তমানে তারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে।

অপরদিকে মো. আলম জানায়, কাজিম উদ্দিন সীমানা পিলার তুলে আরও ৩/৪ হাত সামনে নিয়ে আসে। এ বিষয়ে জানতে চাইলে কথা কাটাকাটি হয় এক পর্যায়ে আমার হাতে লাঠি দিয়ে আঘাত করে পরে আমিও আঘাত করি।

এ ব্যাপারে কাজিম উদ্দিনের ছেলে মো. খাইরুল পানছড়ি থানায় একটি অভিযোগ করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও জানায়।