পানছড়িতে জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

জেলার পানছড়ি উপজেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস।

উপজেলা প্রশাসন আয়োজনে সার্বিক সহযোগিতায় ছিল উপজেলা তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং তথ্য ও প্রযুক্তি অধিদপ্তর। বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, বিভিন্ন দপ্তরের বিভাগীয় প্রধান ও সুশীল সমাজের ব্যক্তিবর্গরা স্বতস্ফর্তভাবে এতে অংশ নেয়।

এ উপলক্ষে মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) সকাল দশটা থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালির নেতৃত্বে ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রত্না তঞ্চঙ্গ্যা, পানছড়ি তথ্য ও প্রযুক্তি অধিদপ্তর পানছড়ি উপজেলা সহকারী প্রোগ্রামার বাবলী খীসা।

বিকেলে প্রজেক্টরের মাধ্যমে গেরিলা চলচ্চিত্র প্রদর্শনের মাধ্যমে দিনটির সমাপ্তি ঘটে।




পানছড়িতে দুর্নীতি বিরোধী ও বেগম রোকেয়া দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করেও খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়িতে যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী ও বেগম রোকেয়া দিবস। পানছড়ি উপজেলা প্রশাসন ও দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির আয়োজনে “আসুন দুর্নীতির বিরুদ্ধে একতাবদ্ধ হই” এ প্রতিপাদ্যের ব্যানারে একটি মানব বন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

অপরদিকে উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আয়োজনে বেগম রোকেয়া দিবসের র‌্যালিটি প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সকাল ১১টা থেকে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, সংবাদকর্মী, জনপ্রতিনিধি ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণে মানববন্ধন পরবর্তী আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি বকুল চন্দ্র চাকমা।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক ডা. সৈয়দ আহাম্মদ। বেগম রোকেয়া দিবসের আলোচনায় সভাপতিত্ব করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেম।

অনুষ্ঠান দু’টিতে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা। এ সময় মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের প্রতিনিধি লোকনাথ চাকমা ছাড়াও বিভিন্ন দপ্তরের বিভাগীয় প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।




পানছড়ি বাজারে অস্বাভাবিক আকৃতির মূলা

পানছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি বাজারে অস্বাভাবিক আকৃতির বেল, কচু, কলার মৌচা ও আনারস দেখা গেলেও এবার দেখা মিলল অস্বাভাবিক আকৃতির মূলা। যা দেখতে অনেকটা বসার আসন ও ইংরেজি এম এর মতো প্রায়।

বুধবার (৬ ডিসেম্বর) সকালে পানছড়ি সবজি বাজারে এই মূলাটি এক নজর দেখতে জমে উঠে উৎসুক দর্শনার্থীর উপচে পড়া ভীড়। প্রায় শতাধিক লোক এই মূলাটি একবার নিজ হাতে ছুঁয়ে দেখে।

উপজেলার ৩নং সদর পানছড়ি ইউপির দমদম গ্রামের মৃত মফিজ আহমদের ছেলে আবদুল হাফেজ সকালে নিজ জমিতে মূলা  তুলতে গেলে এই মূলাটি মাটি থেকে উঠে আসে।

তার ধারণা ছিল বাজারে নিয়ে আসলে এটা বিক্রি হয়ে যাবে কিন্তু বাজারে আসার পর দর্শনার্থী দেখে সে নিজেও অবাক। সে জানায়, বিগত ১২-১৩ বছর ধরে মূলা চাষ করলেও অস্বাভাবিক আকৃতির মূলার দেখা এই প্রথম।

পানছড়ি উপজেলার কৃষি অফিসার আলাউদ্দিন শেখ জানায়, মূলাটি অস্বাভাবিক আকৃতির এটা সত্য। তবে এমনটি কখনো হয়না। মূলার জন্মের সময় শেকড়ে ইনজুরির কারণে এটি দুভাগে ভাগ হয়ে অস্বাভাবিক আকৃতির হয়েছে বলে তিনি মনে করছেন।




বিশাল চাকমা এক দিনের রিমান্ডে


নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি: যৌথ বাহিনীর অভিযানে অস্ত্র ও গুলিসহ আটক ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট’র(ইউপিডিএফ)খাগড়াছড়ির পানছড়ি সামরিক শাখার প্রধান বিশাল চাকমা ওরফে প্রদীপময় চাকমাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক দিনের পুলিশ রিমান্ডে নিয়েছে। গত বৃহস্প্রতিবার বিকাল ৪টার দিকে গোপন সংবাদের জেলার ভাইবোনছড়া এলাকায় সিএনজি তল্লাসী করে নিরাপত্তা ইউপিডিএফ’র এ শীর্ষ সন্ত্রাসী বিশাল চাকমাকে অস্ত্র ও গুলিসহ আটক করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আব্দুল্লাহ আল মাসুদ জানান, মঙ্গলবার ৫ ডিসেম্বর খাগড়াছড়ির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আবু সুফিয়ান মো. নোমানের আদালতে বিশাল চাকমা ওরফে প্রদীপময় চাকমাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। আদালত শুনানীর পর এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।




বাইশ বছর ধরে চিতুই পিঠা বিক্রি করছে পানছড়ির আব্দুল আলী

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলার ভারত সীমান্তবর্তী উপজেলার নাম পানছড়ি। উপজেলার ৬২,১৯৮ লোকসংখ্যার বেশিরভাগই নানান পেশায় নিয়োজিত। কিন্তু আবদুল আলী এক ব্যতিক্রমী পেশাকে বুকে আকড়ে ধরে আছে প্রায় বাইশ বছরের অধিক সময় ধরে।

এই পেশা নাকি তার মন ও প্রাণের সাথে মিশে আছে। মৃত কলমধর আলী ও মাতা কালেমা খাতুনের সন্তান আবদুল আলীর বর্তমান বয়স ৬৪। পানছড়ি ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার পাশে ভাড়া করা ঝুপড়ির ঘরে স্ত্রী হামিদা আর দুই প্রতিবন্ধী সন্তান সাহানা ও হামিদকে নিয়ে বসবাস। তার সন্তান দুটি খর্বকয় প্রতিবন্ধী। মায়ের কোলে চড়েই তাদের চলাফেরা।

তাই স্বামীর পিঠা বিক্রিতে সহযোগিতা ছাড়া বাহিরে কোথাও কাজে যেতে পারেনা হামিদা। পানছড়ি বাজারের তবলছড়ি সড়কের পাশেই শীত মৌসুমে প্রতিদিন পিঠা বিক্রি করতে দেখা যায় আবদুল আলীকে। বাজার এলাকায় পিঠা মেম্বার নামেই সে ব্যাপক পরিচিত। দীর্ঘ বছর আগে সূতাকর্ম্মাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনে সদস্য পদে পাশ করার পরই পিঠা মেম্বার উপাধি পড়ে বলে জানায় আবদুল আলী।

তার সাথে কথা বলে জানা যায়, ১৯৯৩-৯৪ সালের দিকে সে পিঠা বিক্রি শুরু করে। ১৯৯৬ সালে মোল্লাপাড়া ব্রিজের পাশে, তারপর মুনমুন সিনেমা হলের সামনে ও পরবর্তীতে তবলছড়ি সড়কে দীর্ঘবছর ধরে পিঠা বিক্রি করছে।

যার আনুমানিক সময়কাল ২২ থেকে ২৩ বছর। বছরের ছয়মাস ফেরী করে আচার বিক্রি ও শীতের মৌসুমে চিতুই পিঠা বিক্রিই তার পেশা। তার দাবি প্রতিদিন গড়ে ২০০ থেকে ২৫০টি পিঠা বিক্রি হয় তবে শীত বেশি পড়লে ৩ শতাধিক পার হয়। এতে করে কোন রকম সংসার চললেও অভাবের পাল্লা বরবারই ভারী।

বিগত বছর দু’য়েক আগে ধার-কর্জ করে পানছড়ি মাদ্রাসা মার্কেটে একটি চায়ের দোকান দিয়েছিল। কিন্তু এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে দোকান পুড়ে ছাই হলে তাদের একটু স্বাবলম্বী হওয়ার শেষ আশাটুকু দুঃস্বপ্নে পরিনত হয়ে আবারো চিতুই পিঠা তৈরির সংগ্রামে নামে আবদুল আলী দম্পতি।




নবাগত রিজিয়ন কমান্ডারের পানছড়িতে মত বিনিময়

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

জেলার পানছড়িতে শান্তি, শৃঙ্খলা ও উন্নয়ন বিষয়ক এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার(৪ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টায় পানছড়ি ৩ বিজিবি সদর দপ্তরে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদ্য যোগ দেয়া খাগড়াছড়ি রিজিয়নের রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল মোতালেব সাজ্জাদ মাহমুদ।

এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন ৩ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্ণেল মোহাম্মদ রফিকুল হাসান, খাগড়াছড়ি জোন কমান্ডার জিএম সোহাগ, পানছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, পানছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেম, থানা অফিসার ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. বাহার মিয়া, উপজেলা বিএনপি সভাপতি মো. বেলাল হোসেন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সবাইকে সম্প্রীতির বন্ধন রেখে একসাথে চলার আহ্বান জানান।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ৩ বিজিবি’র সহকারী পরিচালক মো. আজগর আলী, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল আহসান চৌধুরী (শিবলী), পানছড়ি প্রেসক্লাবের সভাপতি নূতন ধন চাকমা, সাধারণ  সম্পাদক মো. শাহজাহান কবির সাজু, ৩নং পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন, লতিবান ইউপি চেয়ারম্যান কিরণ ত্রিপুরা, উল্টাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় চাকমা প্রমুখ।




 পার্বত্য চুক্তির ২০তম বর্ষপূর্তিতে পানছড়িতে প্রীতি ভলিবল অনুষ্ঠিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

পার্বত্য শান্তিচুক্তির ২০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে জেলার পানছড়িতে অনুষ্ঠিত হয়েছে এক মনোমুগ্ধকর প্রীতি ভলিবল।

রবিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকাল ৩টা থেকে উপজেলা পরিষদ মাঠে অনুষ্ঠিতব্য এই খেলায় অংশ নেয় পানছড়ি একাদশ বনাম ৩ বিজিবি একাদশ। খেলায় ২-১ সেটে জয়লাভ করে বিজিবি দল।

৩ বিজিবি লোগাং জোন অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো. রফিকুল হাসান পিএসসি এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে দু’দলের খেলোয়াড়দের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। তাছাড়া খাগড়াছড়ি জেলা ফুটবল লীগে অংশ নেয়া পানছড়ি ফুটবল দলকেও ৩ বিজিবি’র পক্ষ থেকে ক্রীড়া সামগ্রী প্রদান করা হয়।

এ সময় অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন সাব জোন অধিনায়ক মেজর মো. রফিকুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেম, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল আহসান চৌধুরী (শিবলী) ৩ বিজিবি’র সহকারী পরিচালক মো. আজগর আলী প্রমুখ।




পানছড়িতে যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

“সবার জন্য টেকসই ও সমৃদ্ধ সমাজ” এ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে জেলার পানছড়ি উপজেলায় যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস’১৭।

এ উপলক্ষে রবিবার (৩ ডিসেম্বর) সকাল ১১টায় প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘের কার্যালয় থেকে একটি র‌্যালি বের হয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালি পরবর্তী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় সংগঠনের কার্যালয়ের সামনে।

উপজেলা প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘের সভাপতি মো. হাসানুজ্জামান এর সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বাবু সর্বোত্তম চাকমা।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেম, ৩নং পানছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন, ৫নং উল্টাছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় চাকমা প্রমুখ। সংগঠনের সদস্য মো. আমজাদ হোসেনের সঞ্চালিত সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মো. হানিফ মিয়া।

অনুষ্ঠানে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিবন্ধী কল্যাণ সংঘের জন্য একটি ব্যাটারি চালিত টমটম উপহার দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়।




কুকুরের অত্যাচারে অতিষ্ঠ পানছড়িবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

কুকুরের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে পানছড়িবাসী। কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে প্রতিদিনই বিভিন্ন ফার্মেসীতে চিকিৎসা নিতে ছুটে আসছে বিত্তশালী থেকে শুরু করে নিম্ন বিত্তরা। দীর্ঘদিন ধরে কুকুর নিধন অভিযান বন্ধ থাকার কারণে এর উপদ্রব মাত্রাতিরিক্ত বেড়েছে বলে সর্বস্তরের জনগণের দাবী।

সরেজমিনে পানছড়ির বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, যেখানে-সেথানে দল বেঁধে কুকুরের অবাধ বিচরণের চিত্র। কাউকে একা পেলেই এরা হয়ে উঠে হিংস্র। শিশু থেকে শুরু করে বুড়ো পর্যন্ত কাউকেই ছাড় দেয় না কুকুরের দল। পানছড়ি বাজার এলাকার ৩ বছর বয়সী অর্পিতা পাল অর্নি ও টিএন্ডটি টিলার ৭৫ বছর বয়সী অর্ণদা পাল ইতিমধ্যে কুকুরের কামড়ে আহত হয়ে ব্যয়বহুল ভ্যাকসিন নিচ্ছে।

তাছ্ড়াা কুকুরের কামড়ে চিকিৎসা নিতে না পেরে অকালে ঝরেছে ইসলামপুর গ্রামের জয়নাল আবেদীন জনুর ৩য় শ্রেণীতে পড়ুয়া ছেলে মো. নাইমের প্রাণ। গত বছর ইসলামপুর এলাকায় এক কুকুরের কামড়ে আহত হয়েছিল ৯ জন। পরে এলাকাবাসী ঘাতক কুকুরকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে বিরল দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছিল। বর্তমানে কুকুরের অত্যাচার এতই বেড়েছে যে কোমলমতি শিশুরা বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার পথে প্রতিনিয়তই পড়ছে রোষানলে।

পানছড়ি বাজারের বিশ্বাস ফার্মেসীর স্বত্বাধিকারী বিমান দেব জানান, অক্টোবর-নভেম্বর মাসে কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে প্রায় ১৫০ জনের অধিক লোক ভ্যাকসিন নিয়েছে। তাছাড়া সুপ্রিয় মেডিকেল, পাল মেডিকেল, শেফালি ট্রেডার্সে ভ্যাকসিন নিয়েছে অর্ধশতাধিক।

এ ব্যাপারে পানছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য ও প: প: কর্মকর্তা ডা. সনজীব ত্রিপুরা জানান, কুকুরের কামড়ে মরণব্যাধি জলতাংক রোগ হয়। যার চিকিৎসা ব্যয়বহুল। কুকুরের কামড়ে ভ্যাকসিন না নিয়ে অপচিকিৎসা করলে মৃত্যু অনিবার্য। তবে পানছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ ভ্যাকসিন পাওয়া না গেলেও খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে পাওয়া যায়। পৌরসভা এলাকার মতো উপজেলাগুলোতেও কুকুর নিধনের পদক্ষেপ নেয়া দরকার বলে মনে করেন।

পানছড়ি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বাবু সর্বোত্তম চাকমা জানান, আগে একবার কুকুর মারার উদ্যেগ নেয়া হয়েছিল কিন্তু জনবল না পাওয়ায় তা সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন জরুরী ভিত্তিতে এর একটা বিহীত ব্যবস্থা নেয়া দরকার।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে আলাপ করে এ ব্যাপারে একটি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে আশ্বাস প্রদান করেন। পানছড়ির সচেতন মহল ও শিক্ষার্থী অভিভাবক এ ব্যাপারে দ্রুত প্রশাসনের হস্তক্ষেপ চায়।




পার্বত্য চুক্তির ২০তম বর্ষপূর্তিতে পানছড়িতে আনন্দ র‌্যালি

নিজস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

পার্বত্য শান্তি চুক্তির ২০ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে জেলার পানছড়িতে অনুষ্ঠিত হয়েছে এক মনোমুগ্ধকর আনন্দ র‌্যালি। এতে অংশ নেয় ৩ বিজিবি লোগাং জোন, পানছড়ি সাব জোন, উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি বাহিনী, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও উপজেলা আওয়ামী লীগসহ এলাকার সুশীল সমাজ। ২ ডিসেম্বর পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী থাকায় তা একদিন আগে অর্থ্যাৎ ১ ডিসেম্বর পালন করা হয়েছে।

জানা যায়, পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির মধ্যে একটি শান্তি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। যার পর থেকে পার্বত্য এলাকায় বইছে শান্তির সু-বাতাস।

তাই প্রতি বছর ২ ডিসেম্বর দিনটি উপলক্ষ্যে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়ে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ মাঠ এলাকা থেকে শুরু হয়ে ব্যান্ড পার্টির সুরেলা আওয়াজের সাথে সাথে আনন্দ র‌্যালিটি উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

র‌্যালিতে নেতৃত্ব দেয় ৩ বিজিবি লোগাং জোন অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো. রফিকুল হাসান, সাব জোন অধিনায়ক মেজর মো. রফিকুল ইসলাম, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সর্বোত্তম চাকমা, অফিসার ইনচার্জ মো. মিজানুর রহমান, ৩ বিজিবি’র সহকারী পরিচালক মো. আজগর আলী, উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা কামরুল আহসান চৌধুরী (শিবলী) উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো. বাহার মিয়া, সাধারণ সম্পাদক জয়নাথ দেব, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিজয় কুমার দেব, ৩নং পানছড়ি ইউপি চেয়ারম্যান মো. নাজির হোসেন প্রমুখ।

এ সময় উপজেলার বিভিন্ন সংগঠনের গন্যমান্য ব্যক্তিরাও বিশাল র‌্যালিতে অংশ নেয়। র‌্যালি শেষে পানছড়ি বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।