জাতির পিতার চেতনায় একাত্তরের ন্যায় উদ্বুদ্ধ হয়ে জঙ্গি প্রতিরোধ করতে হবে

26-03-2017 (1) copy

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

নাইক্ষ্যংছড়িতে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপন হয়েছে ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজিত নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে দিনভর দিবসটিকে শ্রদ্ধার সাথে উদযাপন করা হয়। সকাল ৫.৫১মিনিটে ৩১বার তোপধ্বনির পর স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম সরওয়ার কামালের নেতৃত্বে উপজেলা প্রশাসন, ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হামিদা চৌধুরীর নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদ, থানা অফিসার ইনচার্জ এএইচ তৌহিদ কবিরের নেতৃত্বে বাংলাদেশ পুলিশ, সভাপতি রাজা মিয়ার নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, আহ্বায়ক ক্যউচিং চাক ও সদস্য সচিব মো. ইমরান মেম্বারের নেতৃত্বে উপজেলা আওয়ামী লীগ, সভাপতি নুরুল আলম কোম্পানী ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ কামাল উদ্দিনের নেতৃত্বে উপজেলা বিএনপি, সভাপতি শামীম ইকবাল চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আবুল বশর নয়নের নেতৃত্বে প্রেসক্লাব, সভাপতি বদুর উল্লাহ ও উবাচিং মার্মার নেতৃত্বে উপজেলা ছাত্রলীগ, ছালেহ আহমদ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

পরে সকাল ৭.৪৫মিনিটে ছালেহ আহমদ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আনুষ্ঠানিক ভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও থানা অফিসার ইনচার্জ। এরপর ধারাবাহিক ভাবে ক্রীড়া অনুষ্ঠান, পুরষ্কার বিতরণ ও বীর মুক্তযোদ্ধাদের সংবর্ধণা দেওয়া হয়।

উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ শীর্ষক’ আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম সরওয়ার কামাল বলেন, আমাদের স্বাধীনতাকে ধারণ করতে হবে আমাদের হৃদয়ে, চেতনায় এবং আমাদের কন্ঠে। প্রতিটি আচরণে থাকবে স্বাধীনতা এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। বর্তমানে আমরা মধ্যম আয়ের দেশের দিকে অনেক দূর এগিয়ে এসেছি। তাই আমাদের দায়িত্ব কর্তব্য অনেক বেশি।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু কণ্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের দেশকে সামনের দিকে যখন এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন ঠিক সেই মূহুর্তে দেশকে পিছনের দিকে টানার জন্য নানা রকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। জঙ্গি হামলায় নাইক্ষ্যংছড়ি বাইশারীর নাম জড়িয়ে যাচ্ছে। স্বাধীনতা দিবসে জাতির পিতার চেতনায় আমাদের উদ্বুদ্ধ হতে হবে, সোনার বাংলা গঠনের জন্য প্রশাসনের পাশাপাশি সর্বস্তরের জনসাধারণকে জঙ্গি প্রতিরোধ এবং জঙ্গি লালনকারীদের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে উঠার আহ্বান জানান তিনি।

উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও শহীদদের স্মরণ করে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, বাঙ্গালী জাতি ঐক্যবদ্ধ থাকার কারণে স্বাধীনতা লাভ করেছে বাংলাদেশ। কিন্তু স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর  এ দেশকে ব্যার্থ রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত করে তোলার জন্য জঙ্গি হামলা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ষড়যন্ত্র চলছে। সর্বস্তরের জনগণকে সেই একাত্তরের ন্যায় জঙ্গি তৎপরতার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

 আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ক্যউচিং চাক, থানা অফিসার ইনচার্জ এএইচ তৌহিদ কবির, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. মোশারফ হোসেন, উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবু আহমদ, এমপি প্রতিনিধি আলহাজ্ব খায়রুল বাশার, হাজী এমএ কালাম ডিগ্রি কলেজ উপাধ্যক্ষ বশিরুল আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক মো. শফি উল্লাহ, যুগ্ম আহ্বায়ক তসলিম ইকবাল চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রাজা মিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা ডা. সিরাজুল হক, ডা. মোহাম্মদ ইসমাইল। বক্তব্য রাখেন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আবদুস সাত্তার, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ছালামত উল্লাহ প্রমুখ।




বাইশারীতে যথাযোগ্য মর্যাদায় স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

26 copy

বাইশারী প্রতিনিধি:

বান্দরবানের বাইশারীতে যথাযোগ্য রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় বিজয় দিবস উদযাপন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে সকাল ৮টা ৩০মিনিটে স্থানীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আলম কোম্পানীর নেতৃত্বে পরিষদ বর্গ, বাইশারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুরের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠন, সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, বাইশারী উচ্চ বিদ্যালয়, বাইশারী শাহ নুরুদ্দীন দাখিল মাদ্রাসা, বাইশারী মডেল কে.জি স্কুল, বাইশারী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ।

মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সকাল ৯টার সময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে বাইশারী হাইস্কুল মাঠে সম্মিলিতভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ডিসপ্লে অনুষ্ঠান ও খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বিকাল ৩ ঘটিকার সময় বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের উদ্যোগে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের উপর পরিষদ মাঠে এক আলোচনা সভা ও ক্রিড়া, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পুরষ্কার বিতরণের আয়োজন করা হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাইশারী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ কৃঞ্চ কুমার দাস। যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক এনকে রাশেদেও পরিচালনায় পবিত্র কোরআন ও ত্রিপিটক পাঠের মধ্য দিয়ে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাইশারী ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা জালাল আহাম্মদ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের কার্য নির্বাহী সদস্য ও বাইশারী ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলম, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম বাহাদুর, সাধারণ সম্পাদক মংথোয়াইলা মার্মা, বাইশারী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব কামাল হোছাইন, নারিচ বুনিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মংহ্লায়েই মার্মা, করলিয়ামুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাফর আলম, যুবলীগ সভাপতি মোহাম্মদ আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম, স্বেচ্ছা সেবকলীগ সভাপতি বাবুল হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা মৌলানা আব্দুর রহিম, ইউপি সদস্য আব্দুর রহিম, আবু তাহের, আনোয়ার সাদেক, মহিলা সদস্যা সাবেকুন্নাহার, সেলিনা আক্তার বেবী, সমাজ সেবক হাজী নুরুন্নবী প্রমুখ।

আলোচনা সভা শেষে ক্রিড়া ও সাংস্কৃতি অনুষ্ঠানে বিজয় অর্জনকারীদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।




সরকারের পাশাপাশি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সেবায় ভূমিকা রাখতে হবে

Satto Mela- 23-03-17 copy

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

ইউএসএআইডি ও ইউকেএইড’র অর্থায়নে এফডিএসআর পরিচালিত নাইক্ষ্যংছড়িতে বেসরকারী স্বাস্থ্য সংস্থা সূর্যের হাসি ক্লিনিকের আয়োজনে দিনব্যাপী স্বাস্থ্য মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ সংলগ্ন উন্মুক্ত মঞ্চে ফিতা কেটে এ স্বাস্থ্য মেলার উদ্বোধন করেন নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম সরওয়ার কামাল।

নিজের উন্নতির জন্য স্বাস্থ্যের উপর গুরুত্ব দিয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম সরওয়ার কামাল তার বক্তব্যে বলেন, সরকার নারী ও শিশুর স্বাস্থ্য উন্নয়নকে অগ্রধিকার দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। নারী স্বাস্থ্য উন্নয়নে দেশ অনেক দূর এগিয়েছে। তাই সরকারের পাশাপাশি দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সেবায় ভূমিকা রাখতে সূর্যের হাসি কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান। এসময় তিনি বেসরকারী এ প্রতিষ্ঠানটিকে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হামিদা চৌধুরী, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. মোশাররফ হোসেন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা দ্বিতীয়ময় চাকমা, উপজেলা আওয়ামী লীগ সদস্য সচিব মোহাম্মদ ইমরান মেম্বার, সূর্যে হাসি ক্লিনিকের এফডিএসআর মোহাম্মদ মূসা, রামু ম্যানেজার খন্দকার দেলেয়ার হোসেন, নাইক্ষ্যংছড়ি ম্যানেজার মোল্লা সরোয়ার্দী রাতুল, সদর ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, মহিলা আওয়ামী লীগ সভানেত্রী জুহুরা বেগম, আওয়ামী লীগে নেতা ফখরুল ইসলাম কালু, প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক আবুল বশর নয়ন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন স্বাস্থ্য সহকারী মো. শাহজাহান।

পরে অতিথিরা বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন এবং নিজেদের প্রাথমিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। মেলায় বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, এনজিও প্রতিনিধিসহ সকল স্তরের নারীরা স্বতস্ফূর্তভাবে অংশ গ্রহণ করেন।

দুপুরে মেলাস্থলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন মেলায় আগত দর্শণার্থীরা।




জঙ্গি দম্পত্তি নিহতের গ্রামের বাড়ি বাইশারীতে চলছে পুলিশের বিশেষ অভিযান: আটক ২

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে জঙ্গি আস্তানায় নিহত কামাল উদ্দিন ও জোবাইরা ইয়াসমিন দম্পত্তির গ্রামের বাড়ি নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারীতে চলছে পুলিশের বিশেষ অভিযান। বুধবার দিবাগত রাত ৩টায় বাইশারী ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা থেকে জঙ্গি সন্দেহে দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়। আটক দুইজন হলেন, উত্তর বাইশারী গ্রামের আকবর আহমদের ছেলে মো. আলম (৪৫) ও হলুদিশিয়া গ্রামের ছৈয়দ নুরের ছেলে মো. রফিক (২৬)। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ওই দুই ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে বলেও জানান নাইক্ষ্যংছড়ি থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এএইচ তৌহিদ কবির।

এদিকে চলমান অভিযানে আতঙ্কে দিনাতিপাত করছেন এলাকার সাধারণ মানুষ। তাদের দাবি ঘটনার সাথে জড়িত সত্যিকারের অপরাধীরা উপযুক্ত শাস্তি পাক, তবে নিরহ ব্যক্তিরা যাতে হয়রানীর শিকার না হয় সেদিকে প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করেন এলাকার সুশিল সমাজ।

৬ব্যক্তির হদিস নেই অনুসন্ধানে জানা গেছে, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে নিখোঁজ ৬ ব্যক্তির কোন হদিস এখনো পায়নি পরিবার ও এলাকাবাসী। তারা বিভিন্ন মামলার আসামী হওয়ায় এলাকা ছাড়া বলেও জানিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান মো. আলম। পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিখোঁজ ব্যক্তিদের তালিকা তৈরির ঘোষণায় নড়েচড়ে বসে অভিভাবক ও নিখোঁজ ব্যক্তিরা। এলাকার বাইরে অবস্থান করা ব্যক্তিরা নিজেরাই অভিভাবক এবং জনপ্রতিনিধিদের সাথে যোগাযোগ করছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি। সর্বশেষ একে একে সবাই যোগাযোগের চেষ্টা করলেও ছয় ব্যক্তির কোন হদিস মিলছেনা। পাশাপাশি তারা কোথায় আছেন এবং কি করছেন সে বিষয়ে কোন তথ্য নেই বলেও জানালেন ইউপি চেয়ারম্যান।

নিখোঁজ ব্যক্তিরা হলেন, ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড এলাকার জয়নাল আবেদীনের পুত্র মো. ইউনুছ (৪০), মোস্তাক আহমদের পুত্র আমির হোছেন (৩২), ৪নং ওয়ার্ড এলাকার বাসিন্দা মৃত হোছনের পুত্র মো. রুবেল (২২), ৭নং ওয়ার্ড এলাকার বাসিন্দা একই পরিবারের শফিক (৪৫), স্ত্রী রুবি আক্তার (৪০) ও ছেলে সালমান (১৯)।

৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবু তাহের এ প্রতিবেদককে জানান, সীতাকুণ্ডে ঘটনার পর প্রাথমিক ভাবে ওই এলাকায় ৭০জন ব্যক্তি বাহরে অবস্থানের খবর ছড়িয়ে পড়ে। এ সংবাদের পর পর বাহিরে অবস্থানরত ব্যক্তিরা নিজ নিজ পরিবারের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা শুরু করে। তবে মো. ইউনুছ ও আমির হোছনের খবর নেই দীর্ঘদিন ধরে।

ওই ছয় ব্যক্তিকে নিখোঁজ চিহ্নিত করে বাইশারী তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক আবু মুসা বলেন, এসব ব্যক্তিরা দীর্ঘদিন ধরে এলাকায় নেই বলে জানতে পেরেছি। তারা কোথায় আছেন বা কি করছেন এবং জঙ্গীবাদের জড়িয়ে পড়ছেন কিনা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। এদিকে ব্লক রেইড নামে চলা পুলিশী অভিযানের ফলে এলাকার সাধারণ মানুষদের মাঝে বিরাজ করছে নানা আতঙ্ক।

জানা গেছে ওই এলাকায় বসবাসকারী ব্যক্তিরা অনেকে স্থায়ী বাসিন্দা নয়। তাদের অধিকাংশই মায়ানমার ও পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে এসে আশ্রয় নিয়েছে।

নিহত জঙ্গি মো. কামালের পিতা মোজাফ্ফর আহমদ সাংবাদিকদের জানান, তারা রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা থেকে ১০ বছর পূর্বে যৌথখামার পাড়া এলাকায় বসতি স্থাপন করে। তার ছেলে কামাল হোসেন জঙ্গীপনায় জড়িয়ে পড়ায় নিজেকে ধিক্কার দিচ্ছেন প্রতিনিয়ত। তার কল্পনাকে হার মানিয়ে শেষ পর্যন্ত ছেলে জঙ্গী হয়েছে। তাই ছেলের লাশ গ্রহণে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন তিনি এবং পরে বেওয়ারিশ হিসেবে সোমবার দাফন কার্য সম্পন্ন করে সীতাকুণ্ড পুলিশ।

জোবাইরা পিতা জানিয়েছেন, তারাও ২০ বছর পূর্বে কক্সবাজার জেলার মহেশখালী উপজেলার শাপলাপুর থেকে এসে একই পাড়ায় বসতি তৈরি করে স্থায়ী ভাবে বাসবাস করছেন। দীর্ঘদিন অতিবাহিত হয়ে গেলেও তাদের পরিবারের কোন সদস্যদের সাথে এলাকায় ঝামেলা তৈরি হয়নি। তারও প্রশ্ন কিভাবে তার ছেলে ও মেয়েরা জড়িয়ে পড়ছেন এসব জগন্য কাজে। সমাজ ও রাষ্ট্রদ্রোহি এসব ছেলে-মেয়েকে দেশের আইনের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছেন বড় ভাই জিয়াবুল হক।

জঙ্গী আস্তানায় নিহত জোবাইরা ও আটক জহিরুল, মনজিয়ারার মা জান্নাত আরা জানান, হঠাৎ কি হয়ে গেল। তিনি কিছুই ভেবে পাচ্ছেন না। নিজেকে জাতির কাছে বেশ লজ্জিত মনে হচ্ছে। এলাকার সাধারণ মানুষদের কিভাবে নিজের মুখ দেখাব এ চিন্তায় ঘুম আসছে না এখন।

ঘটনার পরপরই ১৯ মার্চ (রবিবার) জঙ্গী আস্তানায় নিহতদের বাড়ি পরিদর্শনে আসেন বান্দরবান জেলা পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায়। তিনি এসময় বলেন, বাইশারীকে জঙ্গী আস্তানা হিসেবে ব্যবহার হওয়ার সুযোগ দেওয়া হবে না। আগের তুলনায় এলাকায় পুলিশী টহল জোরদার করা হয়েছে বলেও জানালেন বাইশারী তদন্ত কেন্দ্রের উপ-পরিদর্শক আবু মুসা।

অপরদিকে পুলিশ হন্যে হয়ে খুঁজছে ২৭ মে ২০১৪ সালে বাইশারী-ঈদগড়-ঈদগাঁও সড়কে অপহরণের শিকার হওয়া মাহবুবুর রহমান সেলিম ওরফে সোহেল রানা এবং তার সাথে বেড়াতে আসা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাষ্টার্সের শিক্ষার্থী ময়মসসিংয়ের বাসিন্দা নাফিজ হোসেনকে। কুমিল্লা ও সীতাকুণ্ডে আটক ছুরত আলম ওরফে হাসান, জহিরুল হক জসিম ও রাজিয়া সুলতানা আরজিনা পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে তার আসল রহস্য। ফেরিওয়ালা সেজে বাইশারী ইউনিয়নের লম্বাবিল ঘোনার পাড়ায় এলাকায় জমি ক্রয় করে বসতি স্থাপন করে সোহেল রানা ওরফে মাহবুবুর রহমান সেলিম।

উল্লেখ্য ২০১৬ সনের  ৩ ফেব্রুয়ারি বাইশারী বাজারে পুলিশের উপস্থিতির দেখে বোমা বিষ্ফোরণ, ১৩ মে বৌদ্ধ ভান্তে হত্যা ও ৩০ জুন এক আওয়ামী লীগ নেতাকে নির্মমভাবে হত্যা করে দুষ্কৃতিকারীরা। সীতাকুণ্ডে জঙ্গি আস্তায় বাইশারীর দুইজন মৃত্যুর খবরের পর বাইশারীর এ হত্যাকাণ্ডে তাদের সংশ্লিষ্টতা নিয়ে এলাকায় গুঞ্জণ ছড়িয়ে পড়ে।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার সীতাকুণ্ডে ৪ ঘন্টার রুদ্ধশ্বাস অভিযানে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ এবং গুলিতে ওই দম্পতিসহ চার জঙ্গির পাশাপাশি এক শিশু প্রাণ হারায়। ওই দম্পতি নিহত হওয়ার ঘটনা গনমাধ্যমে পাশাপাশি সর্বত্র ছড়িয়ে পড়লে নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারীর সাধারণ মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।




চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে নাইক্ষ্যংছড়ি ইউএনওকে অভিযোগ

Vomi Dokol 22-03-17 copy

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ২৬৮নং রেজু ও ২৭৩নং পাগলী মৌজায় সচিবের নাম ভাঙ্গিয়ে একশ একর পাহাড়ি ভূমি জবর দখলের চেষ্টার বিরুদ্ধে নাইক্ষ্যংছড়ি ইউএনও বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছে স্থানীয় জনসাধারণ। বুধবার দুপুরে সোনাইছড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বাহান মার্মার নেতৃত্বে এ অভিযোগ দেওয়া হয়।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, বিগত বহু বছর যাবত সোনাইছড়ি ইউনিয়নের ৭,৮,৯নং ওয়ার্ডে শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস করছে পাহাড়ি-বাঙালি জনসাধারণ। কিন্তু সম্প্রতি উখিয়া উপজেলার ফরিদুল আলম, ছুরুত আলম, জুহুরুল আলম, রাবেয়া বেগম ওই এলাকায় তাদের রাবার বাগান আছে মর্মে ভূমি জবর দখলের চেষ্টা করছে। এরই ধারাবাহিকতায় ১১মার্চ বহিরাগত ৫০-৬০জন ব্যক্তি সোনাইছড়িতে এসে বাগান কর্তণ ও ঘরবাড়িতে ভাংচুর চালায়।

অভিযোগ বিষয়ে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এসএম সরওয়ার কামাল বলেন, উভয় পক্ষের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। সার্ভেয়ার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তাই উভয় পক্ষকে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য অনুরোধ জানান।




নাইক্ষ্যংছড়িতে বিশ্ব পানি দিবস পালন

Pani Dibos- 22-03-17 copy

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

নদ নদী খাল বিলে দূষণ চলে যদি, জনগণের দুঃখ তাতে বাড়বে নিরবধি’ এ প্রতিপাদ্য নিয়ে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়িতেও বিশ্ব পানি দিবস পালিত হয়েছে। বুধবার উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিশ্ব পানি দিবসে সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারী, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রীরা সম্মেলিত ভাবে উপজেলা চত্বর থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি শুরু করে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পানির গুরুত্ব নিয়ে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম সরওয়ার কামালের সভাপতিত্বে বিশ্ব পানি দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. কামাল উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী শাহ আজিজ। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা ডা. মোশারফ হোসেন, সমন্বিত সমাজ উন্নয়ন প্রকল্পের উপজেলা ব্যবস্থাপক রেজাউল হক, উপজেলা শিক্ষা অফিসার আবু আহমদ, উপজেলা আওয়ামী লীগ য্গ্ম আহ্বায়ক তসলিম ইকবাল চৌধুরী, সদস্য সচিব মো.র ইমরান মেম্বার, কৃষকলীগ সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন মামুন শিমুল, মহিলা আওয়ামী লীগ নেতা জুহুরা বেগম, ওজিফা খাতুন রুবি প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ১৯৯২ সালে জাতিসংঘ পরিবেশ ও উন্নয়ন সম্মেলনে স্বাদু পানি নিয়ে একটি আন্তর্জাতিক দিবস পালনে প্রস্তাব রাখা হয়। জাতিসংঘের সাধারণ সভায় ২২ মার্চ ১৯৯৩ দিনটিকে প্রথম বিশ্ব দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।




নাইক্ষ্যংছড়িতে বিজিবির অভিযানে ইয়াবাসহ পাচারকারী আটক

Yaba pacarkari- 21-03-17 copy

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড (বিজিবি) নাইক্ষ্যংছড়ি ৩১ ব্যাটালিয়ানের নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে ৯৯০পিচ ইয়াবা ট্যাবলেটসহ পাচারকারীকে আটক করেছে। মঙ্গলবার উপজেলা সদরের পুরাতন বাস স্টেশন রোড থেকে ওই পাচারকারীকে আটক করে জোন সদরের বিজিবির হাবিলদার তরিকুল ইসলাম।

৩১ বিজিবি সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার বেলা ১২টায় নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার মায়ানমার সীমান্তের চাকঢালা ঘোনাপাড়া এলাকার বাসিন্দা ছৈয়দুর রহমানের ছেলে অলি আহমদ (২৮) রামু যাওয়ার পথে বিজিবির অপারেশন দল তাকে চ্যালেঞ্জ করে। এসময় তার দেহ তল্লাসী করে গোপন স্থান থেকে ৯৯০পিচ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। আটককৃত ব্যক্তি প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নিজেকে ইয়াবা পাচারকারী বলে স্বীকার করে। মঙ্গলবার রাতে তার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট মাদক দ্রব্য পাচার আইনে (মামলা নং-৫) রুজু করে নাইক্ষ্যংছড়ি থানায় হস্তান্তর করেছে বিজিবি।

নাইক্ষ্যংছড়ি ৩১ ব্যাটালিয়ানের জোনাল কমান্ডিং অফিসার লে. কর্ণেল আনোয়ারুল আযীম বলেন, নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে রবিবার দিবাগত রাতে দোছড়ি থেকে অস্ত্র উদ্ধার ও মঙ্গলবার সদর এলাকা থেকে ইয়াবাসহ এক পাচারকারীকে আটক করা হয়েছে। অভিযান অব্যাহত আছে বলেও জানান তিনি।




নাইক্ষ্যংছড়ি যুবলীগের কাউন্সিলে নতুন নেতৃত্ব চায় নেতাকর্মীরা

Jubo Lig copy

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

নানা জল্পনা কল্পনা শেষে চার বছর পর নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টির লক্ষ্যে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা যুবলীগের কাউন্সিল হতে যাচ্ছে। নেতাকর্মীদের মাঝে ইতিমধ্যেই উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। নতুন কমিটিতে পদ পেতে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছে বিগত দিনের পদধারীসহ নতুন নেতৃত্ব প্রত্যাশীরা। ৩১ মার্চের মধ্যে যুবলীগের কাউন্সিল সম্পন্ন করার নির্দেশ রয়েছে। এবারের কাউন্সিলে সভাপতি প্রার্থী কম থাকলেও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী বেশি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে ২০১৩ সনে উপজেলা যুবলীগের কাউন্সিলে সভাপতি নির্বাচিত হয় জসিম উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন হোসাইন আহমদ।

মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীরা মনে করেন, বর্তমান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি জসিম উদ্দিন একজন উপজেলা পর্যায়ে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি। তিনি নিজ দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনের সূত্র ধরে আগামীতে আওয়ামী লীগের মূল দলে নিঃসন্দেহে স্থান পাবেন। অপরদিকে উপজেলা যুবলীগে নতুন নেতৃত্ব সৃষ্টি করা হলে সাংগঠনিক তৃণমূল তৎপরতা বৃদ্ধি পাবে।

এ বিষয়ে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম সম্পাদক ইব্রাহিম আজাদ বলেন, আমার পিতা মরহুম হাজী মোহাম্মদ নবী চেয়ারম্যান স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হিসেবে নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন। তিনি আরও বলেন, দীর্ঘদিন একই নেতৃত্ব থাকলে সাংগঠনিক কার্যক্রম ব্যহত হয়। বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠান, সরকারী ও দলীয় অনুষ্ঠানে যোগ দেননি। এ অবস্থায় মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মীদের অনুরোধে তিনি আসন্ন কাউন্সিলে যুবলীগের হাল ধরতে সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হচ্ছেন।

উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান বলেন, বর্তমান সভাপতি গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি। তিনি আগামী কাউন্সিলে প্রার্থী না হলে নিজে সভাপতি প্রার্থী হতে চান নাজমুল।

অপর একটি সূত্রে জানা গেছে, মূল দলকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি উপজেলা যুবলীগের আগামী কমিটিতে ত্যাগি, যোগ্য ও সাবেক ছাত্রনেতাদের নাম বিশেষ ভাবে গুরুত্ব পাচ্ছে। একই সঙ্গে পদ আকড়ে রাখতে চলছে জোর তদবির।

আগামী কমিটিতে সভাপতি পদে পুনরায় প্রার্থী হতে পারেন বর্তমান সভাপতি জসিম উদ্দিন। এছাড়াও বর্তমান কমিটির সাধারণ সম্পাদক হোসাইন আহমদ এবার সভাপতি পদে লড়ার ঘোষণা দিয়েছেন। এছাড়াও সভাপতি পদে লড়ছেন বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান।

অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে স্থান পেতে নানা ভাবে আলোচনার শীর্ষে রয়েছে ইব্রাহিম আজাদ। এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যুবলীগের প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন ফাহিম ইকবাল খায়রু, জয়দত্ত বড়ুয়া, আলী হোসেন। নতুন নেতৃত্বের প্রতি ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির সমর্থন রয়েছে বলেও একাধিক নেতাকর্মী মনে করছেন।




জঙ্গি দম্পতির মরদেহ নেবে না পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ছায়ানীড় বাড়িতে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে নিহত জঙ্গি দম্পতি কামাল হোসেন ও জুবাইদা ইয়াসমিনের মরদেহ সনাক্ত করলেও পরিবারের সদস্যরা লাশ গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। সোমবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে থাকা কামাল উদ্দিন ও জোবাইদার লাশ শনাক্ত করে দুই পরিবার। এ সময় কামালের বাবা মোজাফফর আহমদ ও জোবাইদার বাবা নুরুল আলম সন্তানদের লাশ নিতে অস্বীকৃতি জানান।

মোজাফফর আহমদ বলেন, সীতাকুণ্ডে ঘটনার পর পুলিশ যোগাযোগ করেছিল জানিয়ে বলেন, এলাকার মানুষের মুখেও এরপর শুনেছি। আজ এখানে এসে দেখলাম এ আমারই সন্তান। তার দিকে আমি ফিরেও চাইব না। আমি লাশ নেব না। ছেলে যে এত বড় ঘটনা ঘটাবে তা কখনো কল্পনাও করিনি। হাসপাতালের মর্গে এলেও মেয়ের লাশ দেখতে যাননি নুরুল আলম, ছেলে জিয়াবুল গিয়ে বোনের লাশ শনাক্ত করেন।

৭০ বছর বয়সী মোজাফফর বান্দরবান জেলার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ইউনিয়নের বাসিন্দা। তার সঙ্গে একই এলাকার বাসিন্দা জোবাইদার বাবা নুরুল আলম মর্গে আসেন। তাদের সঙ্গে আসেন ছেলে ভাই জিয়াবুল হক।

মুঠোফোনে নিহত জুবাইদার ভাই জিয়াবুল হক বলেন, বোন ও বোনের সন্তানের মরদেহ আমি সনাক্ত করেছি। তবে এ মরদেহ আমরা গ্রহণ করব না। বোন ও তার স্বামীর জঙ্গি কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হওয়ায় আমরা লজ্জিত।

জিয়াবুল হক বলেন, নিহত কামালের বাবা মোজাফফারও তার ছেলের মরদেহ গ্রহণ করবেন না বলেও জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ছায়ানীড় বাড়িতে গত বৃহস্পতিবার পুলিশের অভিযানে আত্মঘাতী বিস্ফোরণে ও গুলিতে নিহত হয় পাঁচজন। তাদের মধ্যে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী এলাকার বাসিন্দা কামাল হোসেন ও তার স্ত্রী জুবাইদা ইয়াসমিন এবং তাদের শিশু সন্তান নিহত হন। জোবাইদার আরেক ভাই জহিরুল হক জসিম ও তার স্ত্রী মর্জিনাকে সীতাকুণ্ড পৌর সদরের নামার বাজার এলাকার সাধন কুটির থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ।




নাইক্ষ্যংছড়ির দোছড়ি সীমান্তে অস্ত্র উদ্ধার 

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার মিয়ানমার সীমান্তবর্তী দোছড়ি ইউনিয়নের কোলাচি থেকে দুটি দেশীয় তৈরি অত্যাধুনিক বন্দুক উদ্ধার করেছে বিজিবি।

রবিবার গভীর রাতে নাইক্ষ্যংছড়ি ৩১ বিজিবির নায়েব সুবেদার বাকি বিল্লাহর নেতৃত্বে অপারেশন দল এসব অস্ত্র উদ্ধার করে। তবে কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।

বিজিবির জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল আনোয়ারুল আযীম অস্ত্র উদ্ধারের কথা নিশ্চিত করে বলেন অভিযান অব্যাহত আছে।

উল্লেখ্য ২০০৩ থেকে ২০০৭ সন পর্যন্ত সময়ে দোছড়ি থেকে শত শত মরাণাস্ত্র উদ্ধার করে বিজিবি। ওসব অস্ত্র মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী দল আরএসও’র বলে বিভিন্ন তদন্তে প্রমানিত হয়।