শাড়ি হাতে পেয়ে ঈদের আনন্দ লাগছে

sdr

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

শাড়িটা হাতে পেয়ে ঈদের আনন্দ লাগছে। ভাবছিলাম পুরাতন কাপড় পড়েই ঈদ করতে হবে। কিন্তু নিরাপত্তাবাহিনী নুতন কাপড় দিয়েছে। এখন নতুন কাপড় পড়ে ঈদ করতে পারবো।

শনিবার দীঘিনালা উপজেলার কবাখালী আল আমিন বারিয়া এবতেদায়ী মাদ্রাসা মাঠে যাকাতের নতুন শাড়ি হাতে পেয়ে এসব কথা বলেন, দীঘিনালা উপজেলার উত্তর কবাখালী এলাকা ছামেনা বেগম(৭৩)।

যাকাতের কাপড় বিতরণ অনুষ্ঠানে ৩নম্বর কবাখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর হোসেন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে হতদরিদ্রদের মাঝে এসব কাপড় তুলে দেন, দীঘিনালা জোন অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ফেরদৌস  জিয়াউদ্দীন মাহমুদ।

এছাড়া একই সময়ে ১নম্বর মেরুং ইউনিয়ন পরিষদে যাকাতের কাপড় বিতরণ করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. রহমান কবির রতন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে যাকাতের কাপড় তুলে দেন, দীঘিনালা জোনের উপ-অধিনায়ক মেজর সাব্বির আহমেদ। এসময় দুই ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের মাঝে ১শত চল্লিশটি শাড়ি, ১শত লু্ঙ্গি এবং ১শত শার্টপিস বিতরণ করা হয়।

 




দীঘিনালায় ইয়াবা ব্যবসায়ী আটক 

 

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

দীঘিনালায় একজন ইয়াবা ব্যবসায়ী আটক করা হয়েছে। আটক ব্যবসায়ীর নাম মো. ফারুক হোসেন(২১)। সে উপজেলার জামতলি এলাকার মৃত  ছিদ্দিকুর রহমানের ছেলে। শুক্রবার দুপুরে দীঘিনালা থানার পুলিশ তাকে আটক করে।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার দুপুরে উপজেলার জামতলি এলাকায় দীঘিনালা থানার পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে।

অভিযানে দশ পিস ইয়াবাসহ ইয়াবা ব্যবসায়ী ফারুক হোসেনকে আটক করে। পরে তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা রুজু করে আদালতে প্রেরণ করা হয়।

এব্যাপারে দীঘিনালা থানার এএস আই পলাশ দাশ ইয়াবা ব্যবসায়ী আটকের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।




দীঘিনালার কবাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ইফতার ও দোয়া মাহফিল

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

দীঘিনালা উপজেলার ১ নম্বর কবাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিদ্যালয়ের  সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে  সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি এবং ৩ নম্বর কবাখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর হোসেন।

সভায় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কবাখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ মো. মফিজুর রহমান, হাচিনসনপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শিবু দে, উত্তর কবাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. জহিরুল হক, কবাখালী ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মো. আবদুর রহমান এবং বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক একেএম বদিউজ্জামান।

ইফতার মাহফিলে দোয়া ও মিলাদ পরিচালনা করেন কবাখালী জালালাবাদ জামে মসজিদের ঈমাম মাওলানা মো. ইয়াসিন।




দীঘিনালা থানার উদ্যোগে ইফতার মাহফিল

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

দীঘিনালা থানার উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার থানার সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সামসুদ্দিন ভূইয়ার সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মো. আলী আহম্মদ খান।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন দীঘিনালা জোন অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দীন মাহমুদ, ৫১ বিজিবি’র অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মো. ইকবাল হোসেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নব কমল চাকমা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শেখ শহিদুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মোহাম্মদ কাশেম, দীঘিনালা প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম রাজু, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মো. জসিম, কবাখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, বাবুছড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান সুগত প্রিয় চাকমা এবং দীঘিনালা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান চন্দ্র রঞ্জন চাকমা প্রমূখ।




দীঘিনালায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, আশ্রয় কেন্দ্রে দুই শতাধিক পরিবার

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

দীঘিনালায় সোমবারের বর্ষণে সৃষ্ট বন্যায় নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ফলে প্লাবিত লোকজন পাশ্ববর্তী আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে। পাহাড় ধ্বস এবং বন্যার ফলে উপজেলার ৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এসব আশ্রয় কেন্দ্রে প্রায় দুই শতাধিক পরিবার আশ্রয় নিয়েছেন। মঙ্গলবার উপজেলা প্রশাসন ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, দীঘিনালা উপজেলার বড় মেরুং, চিটাগাংপাড়া, তিন নম্বর কলোনী পাড়া, দুই নম্বর কলোনী পাড়া, এক নম্বর কলোনী পাড়া, ছোটমেরুং বাজার এলাকা, ছোবহানপুর গ্রাম এবং হাজাছড়াপাড়া বন্যার পানিতে তলীয়ে যায়।

অন্যদিকে প্রবল বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড় ধ্বস আতঙ্কে কবাখালী ইউনিয়নের হেডম্যান পাড়া, আলী নগর এবং রশিক নগর এলাকায় লোকজন রশিকনগর দাখিল মাদ্রাসায় ১০ পরিবার, কবাখালী সরকারি প্রাথমিক  বিদ্যালয়ে ৭০ পরিবার, মধ্যম বোয়ালখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫ পরিবার আশ্রয় নেয়।

অন্যদিকে পানিবন্দি হয়ে এ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১৯ পরিবার, ছোটমেরুং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩৭ পরিবার, বাজেইছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২০ পরিবার আশ্রয় নেয়। এছাড়া প্রায় পাঁচ শতাধিক পরিবার বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এব্যাপারে কবাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক একেএম বদিউজ্জামান জানান, প্রবল বৃষ্টিপাতের কারণে পাহাড় ধ্বসের আশঙ্কায় আমার বিদ্যালয়ে ৭০ পরিবার গত সোমবার সন্ধায় আশ্রয় নিয়েছেন।

চিটাগাংপাড়া গ্রামের মুজিবুর রহমান (৫০) জানান, সোমবারের টানা বর্ষণে আমাদের মেরুং ইউনিয়নের অনেক গ্রামই পানিতে তলীয়ে যায়।  আমাদের পরিবারের সবাই গরু, ছাগল, হাসমুরগি নিয়ে আমরা আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছি।

এব্যাপারে মেরুং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ঘনশ্যাম ত্রিপুরা জানান, উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশে পাহাড় ধ্বস এবং পানিবন্দি লোকজনদের পাশ্ববর্তী আশ্রয় কেন্দ্রে নেয়া হয়েছে।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শেখ শহিদুল ইসলাম জানান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নব কমল চাকমা মহোদয়সহ আমরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছি। ক্ষতিগ্রস্ত তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। উপজেলায় প্রায় দুইশত পরিবার পাহাড় ধ্বস ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তারপর তাৎক্ষণিকভাবে আশ্রয় কেন্দ্রে অবস্থানরত পরিবার প্রতি ৫ কেজি হারে চাউল,  আধা কেজি ডাল, আধা কেজি লবণ, এক কেজি আলু, আধা কেজি তেল এবং মোমবাতি ও দিয়াশলাই বিতরণ করা হয়েছে।




খাগড়াছড়িতে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও দীঘিনালায় অবনতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

পাহাড় ধ্বসে ৪ জনের প্রাণহানি ও ব্যাপক ক্ষতির পর আকস্মিক বন্যায় পুরো খাগড়াছড়ি লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। বন্যায় ভেসে গেছে অসংখ্য ঘরবাড়ী, হাঁস-মুরগি, গবাদি পুশু ও পুকুরের মাছ। নষ্ট হয়েছে সবজির ক্ষেত। পরিস্থিতির উন্নতির সাথে  সাথে এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানি ও খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে দূর্গত এলাকাগুলোতে। খাগড়াছড়ি সদরে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও দীঘিনালায় অবনতি হওয়ায় খাগড়াছড়ির সাথে রাঙামাটির  লংগদু ও বাঘাইছড়ির সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।

খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা দূর্গতদে মাঝে ত্রাণ তিবরণ ও রামগড় এবং লক্ষ্মীছড়িতে পাহাড় ধ্বসে নিহতদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দিয়েছেন।

পাহাড় ধ্বসে নিহত ও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির পর খাগড়াছড়িতে আকস্মিক বন্যায় জনগণ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। সোমবার ভোর থেকে টানা বর্ষণে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের মুসলিমপাড়া, গঞ্জপাড়া, মেহেদীবাগ, মিলনপুর, সাতভাইয়া পাড়া মুখ, খবংপুড়িয়া, শান্তিনগর, অর্পণা চৌধুরী পাড়া, কল্যাণপুর, দীঘিনালা উপজেলার মেরুং-এ বন্যায়  ২০টি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার পরিবার পানি বন্দী হয়ে পড়ে। ৫ শতাধিক পরিবার শহরের শিশু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মুসসিলমপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রসহ আত্মীয় স্বজনের বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

ক্ষতিগ্রস্তরা জানায়, পাহাড় ধ্বসের পর আকস্মিক বন্যায় ভেসে গেছে অসংখ্য ঘরবাড়ী, হাঁস-মুরগি, গবাদি পুশু ও পুকুরের মাছ। নষ্ট হয়েছে সবজির ক্ষেত। খাগড়াছড়ি সদরে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতির সাথে  সাথে এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানির ও খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে দূর্গত এলাকাগুলোতে।

এদিকে খাগড়াছড়ি সদরে বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি হলেও দীঘিনালায় অবনতি হওয়ায় খাগড়াছড়ির সাথে রাঙামাটির লংগদু ও বাঘাইছড়ির সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। দীঘিনালার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সামসুউদ্দিন ভূইয়া জানান, দীঘিনালায় মেরুং- কবাখালী এ বন্যায় অন্তত ৮টি গ্রামে ১০ হাজার মানুষ পানি বন্দী হয়ে পড়েছে। শতাধিক দুর্গত পরিবার আশ্রয় নিয়েছে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। মেরং এলাকায় সড়কে পানি উঠায় দীঘিনালার সাথে রাঙামাটি ও দুই টিলায় সড়কের উপর পাহাড় ধ্বসে পড়ায় দীঘিনালার সাথে বাঘাইছড়ির সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

এদিকে মঙ্গলবার সকালে খাগড়াছড়ি জেলা সদরের খাগড়াছড়ি সদরের ৩নং গোলাবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদে দূর্গত এলাকার মানুষদের মাঝে ত্রাণের চাল, ডাল, আলু ও তেল বিতরণ করেন খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। এছাড়া রামগড় ও লক্ষ্মীছড়িতে পাহাড় ধ্বসে নিহত ৪ জনের প্রত্যেক  পরিবারকে ২৫ হাজার এবং ক্ষতিগ্রস্ত ১০টি পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা প্রদান করেন।

কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি জানান, ক্ষতিগ্রস্তদের দূর্ভোগ লাঘবে প্রাথমিকভাবে এ ত্রাণ দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকাও করা হচ্ছে।

পাহাড় ধ্বস ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ না নিলে খাগড়াছড়িতে মানবিক বিপর্যয়ের আশংকা রয়েছে।

 

 




দীঘিনালায় প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত হচ্ছে মাশরুম

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত মাশরুমের চাহিদা বেশি দীঘিনালায়। এখানে উপজাতি এবং বাঙালি সবার নিকট প্রিয় এ মাশরুম। চাহিদা থাকায় প্রতি আটি মাশরুম বিক্রি হয় একশত টাকায়।

মঙ্গলবার দীঘিনালার লারমা স্কোয়ারে বিক্রির সময় কথা হয় মাশরুম বিক্রেতা অমিয় চাকমার সাথে। তিনি জানান, এ মাশরুম প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত। স্থানীয় কৃষকরা সংগ্রহ করে বাজারে নিয়ে আসে। আর তা সংগ্রহ করে আমরা বিক্রি করে থাকি, চাহিদা থাকায় ভালো দরে বিক্রি হচ্ছে।

জানা যায়, বর্তমোনে বিশ্বের প্রায় ১০০টি দেশে মাশরুম চাষ হয়। দৈনন্দিন খাবার টেবিলে অপরিহার্য্য সবজি হিসেবে ইতিমধ্যে স্থান দখল করেছে মাশরুম। ১৯৭৯ সালে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ থাইল্যান্ড থেকে কিছু মাশরুম বীজ এনে আসাদ গেটে নার্সারিতে প্রথম পরীক্ষামূলক ভাবে চাষ শুরু করে।  তার পর জাপান সরকাররে সহযোগিতায় ১৯৮০ সালে একজন জাপানী বিশেষজ্ঞের মাধ্যমে বিজ্ঞান ভিত্তিক ভাবে মাশরুম চাষের জয়যাত্রা শুরু হয়।

মাশরুমের পুষ্টিমান সর্ম্পকে আরো জানা যায়,  ১০০ গ্রাম মাশরুমে আমিষ ২৫-৩৫ গ্রাম, ভিটামিন ও মিনারেল ৫৭-৬০ গ্রাম, শর্করা ৫-৬ গ্রাম, চর্বি ৪-৬ গ্রাম।

এব্যাপারে মাশরুম ক্রেতা মনি চাকমা জানান, আমাদের খাবার তালিকায় মাশরুম পরিবারের সবার পছন্দ। পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ এ মাশরুম যখনই পাই, তখনই কিনে থাকি ।

দীঘিনালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার  ডা. রাশেদুল আলম জানান, গর্ভবতী মা ও শিশুরা নিয়মিত মাশরুম খেলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। মাশরুমে চর্বি ও শর্করা কম থাকায় এবং আঁশ বেশি থাকায় এটি ডায়াবেটিস রোগীদের আদর্শ খাবার।

 




দুই খুনীর স্বীকারোক্তিতে মাইনী নদী থেকে যুবলীগ নেতা নয়নের মোটরসাইকেল উদ্ধার

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

টানা প্রায় পাঁচ ঘন্টা খাগড়াছড়ির দীঘিনালার মাইনী নদীতে অভিযান চালিয়ে রাঙামাটির লংগদু উপজেলার যুবলীগ নেতা নুরুল ইসলাম নয়নের ব্যহৃত মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করেছে, কাপ্তাইয়ের শহীদ মুয়াজ্জেম ঘাটির নৌবাহিনীর ডুবুরী দল ও চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিস।

শুক্রবার সকালে খাগড়াছড়ি পুলিশ ও পিবিআই নয়ন হত্যাকাণ্ডের আসামী জুনেল চাকমাকে (১৯) চট্টগ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার স্বীকারোক্তিতে খাগড়াছড়ির দীঘিনালা থেকে রুমেল চাকমাকে গ্রেফতার করে। তাদের স্বীকারোক্তিতে মাইনী নদী থেকে নয়নের মোটরসাইকেল উদ্ধার হয়।

খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান এক প্রেস ব্রিফিং-এ জানান, রাঙামাটির লংগদু উপজেলার বাসিন্দা জুনেল চাকমা ও বাবু রাজ চাকমা নামে দুই যুবক গত ১ জুন নুরুল ইসলাম নয়নকে খাগড়াছড়ি যাওয়ার কথা বলে ভাড়া করে আনে। পথিমধ্যে দীঘিনালা থেকে রুনেল চাকমা নামে আরেক যুবক তাদের সফর সঙ্গী হয়। খাগড়াছড়ি থেকে ফেরার পথে জেলা সদরের চার মাইল এলাকায় নয়নকে মাথায় রড দিয়ে আঘাত করে হত্যা করার পর তার মটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

পরবর্তীতে এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে লংগদুতে হামলা হওয়ায় সন্ত্রাসীরা মটরসাইকেলটি বিক্রি না করে গত ৪ জুন দীঘিনালার মাইনী নদীতে ফেলে দেয়। মোবাইলের কল তালিকা ধরে তদন্তের মাধ্যমে শুক্রবার(৯ জুন) চট্টগ্রামের কর্ণফুলী এলাকা থেকে লংগদুর রাঙ্গিপাড়ার জ্ঞান লাল চাকমার ছেলে জুনেল চাকমা(১৮) কে গ্রেফতার করা হয়।

পরবর্তীতে তার দেয়া স্বীকারোক্তি মোতাবেক একইদিন সন্ধ্যায় দীঘিনালার বাবুছড়া এলাকার রাজ মোহন চাকমা রুনেল চাকমাকে গ্রেফতার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা হত্যাকাণ্ডের কথা স্বীকার করেছে। তাদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক শনিবার মাইনী নদীতে তল্লাশি চালিয়ে নয়নের মটরসাইকেলটি উদ্ধার করা হয়।

মূলত মটরসাইকেল ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে নয়নকে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে। তিনি আঞ্চলিক কোন সংগঠনের সাথে নয়নের হত্যাকারীদের সম্পৃক্ত কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে পুলিশ সুপার জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানান। এছাড়া পলাতক বাবু রাজ চাকমাকেও গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

এর আগে, শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে বিকাল সোয়া ৪টা পর্যন্ত রাঙামাটির কাপ্তাইয়ের শহীদ মোয়াজ্জম নৌঘাটির ডুবুরি দল টানা পাঁচ ঘন্টা মাইনী নদীতে তল্লাশি চালিয়ে বিকেল ৪টা ১৫ মিনিটে নয়নের মটরসাইকেলটি উদ্ধার করে। উদ্ধার কাজে নৌ বানিহী ডুবুরি দলকে সহযোগিতা করেন চট্টগ্রামের ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল ও স্থানীয়রা।

তল্লাশি অভিযান চালানোর সময় খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান ছাড়াও শহীদ মোয়াজ্জম নৌ ঘাটির লে. এম কবির হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমএম সালাহউদ্দীন, পিবিআই চট্টগ্রাম বিভাগের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাঈন উদ্দিন, দীঘিনালা থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সামসুদ্দিন ভূইয়া, খাগড়াছড়ি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) তারেক মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান, পিবিআই’র পরিদর্শক সন্তোষ চাকমা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত ১ জুন দুপুরে খাগড়াছড়ির চার মাইল এলাকায় খুন করা হয় রাঙমাটির লংগদু উপজেলা যুবলীগের নেতা নুরুল ইসলাম নয়নকে। এঘটনাকে কেন্দ্র করে ২ জুন লংগদুর তিনটিলা, মানিকজোড় ছড়া ও বাইট্যাপাড়া এলাকায় ২১২টি পাহাড়ি বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও লুটপাট  করে দুর্বৃত্তা।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তারেক মো. আব্দুল হান্নান জানান, নয়ন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার ছোট ভাই লিটন বাদি হয়ে খাগড়াছড়ি সদর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের  আসামী করে মামলা দায়ের করেন।




দীঘিনালায় আল কারীম ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত 

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

দীঘিনালায় আল কারীম ফাউন্ডেশনের উদ্যোগ ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত  হয়েছে।

শুক্রবার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মিনহাজ উদ্দীন।

আল কারীম ফাউন্ডেশনের সভাপতি মো. বদিউজ্জামান এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা রিসোর্স সেন্টারের ইন্সট্রাক্টর মো. মাইনুদ্দীন, অনাথ আশ্রম আবাসিক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সিরাজুল ইসলাম, দীঘিনালা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন,  দীঘিনালা সদর মসজিদের ঈমাম মাওলানা জামালুল হাসান, বোয়ালখালী  ইউনিয়ন পরিষদ এর সদস্য মো. আমিনুল ইসলাম বুলু, মো. মোবারক হোসেন, বোয়ালখালী ইউনিয়ন পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শক মো. কামরুজ্জামান সুমন প্রমুখ।

 




দীঘিনালা বাবুছড়া ৫১ বিজিবি’র ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত 

18985360_1319909124782948_1536686415_n copy

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

দীঘিনালার বাবুছড়া ৫১ বিজিবি’র ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিজিবি’ দরবার হলে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, খাগড়াছড়ি বিজিবি’র সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মো. মোয়াজ্জেম হোসেন।

ইফতার মাহফিলে, ৫১ বিজিবি’র অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল মো. ইকবাল হোসেনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, দীঘিনালা জোন অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল ফেরদৌস জিয়াউদ্দীন মাহমুদ, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নব কমল চাকমা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শেখ শহিদুল ইসলাম, উপজেলা নারী ভাইস চেয়ারম্যান গোপাদেবী চাকমা, দীঘিনালা প্রেসক্লাবের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম রাজু,  বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মো. জসিম এবং বাবুছড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. মুজিবুর রহমান।