থানচিতে সরকারের অর্জিত উন্নয়নকে জনসম্পৃক্তকরণ সভা

IMG_6062 copy

থানচি প্রতিনিধি:

থানচিতে বর্তমান সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়ন সাফল্য ও অর্জিত সফলতাকে জনগণকে অবহিতকরণ ও জনসম্পৃক্তকরণ লক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা তথ্য অধিদপ্তরের আয়োজনে থানচির জনসেবা কেন্দ্রে (গোল ঘর) মঙ্গলবার সকাল ১১টায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, ভাইস চেয়ারম্যান চসাথোয়াই মারমা, বান্দরবান জেলা তথ্য অফিসার উষামং চৌধুরী প্রমুখ।

জেলা তথ্য অফিসার উষামং চৌধুরী জানান, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগে বিভিন্ন সেক্টরে সরকারের অর্জিত সফলতা ও উন্নয়ন ভাবনা এবং ভিশণ ২০২১ লক্ষ্য ও অর্জন সমূহ জনগণকে অবহিতকরণ ও সম্পৃক্তকরণের লক্ষ্যে  এ সভা। এতে ২৫ জন তরুণ অংশগ্রহণ করেন।




থানচি বিএনপি’র নেতৃবৃন্দ জেলা কমিটিকে অনাস্থা প্রস্তাব

IMG_5971 copy

থানচি প্রতিনিধি:

দলের ত্যাগি, জনবান্ধব, সংগ্রামী নেতাদের বাদ দিয়ে জেলার সমালোচিত দুর্নিতিবাজ, আতাঁতকারী ও অশুভ ব্যক্তি দিয়ে সদ্য ঘোষিত অগণতান্ত্রিকভাবে বিএনপি’র বান্দরবান জেলা কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে দাবি করে কেন্দ্রীয় নেতাদের বিএনপি’র সদ্য বান্দরবান জেলা বিএনপি কমিটি ঘোষিত কমিটির প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করে শনিবার সকাল ১১টায় থানচি বাজারে বিক্ষোভ মিছিল করে পরে বিএনপি অস্থায়ী কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি’র উপজেলা শাখা সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান খামলাই ম্রো সদ্য ঘোষিত জেলা কমিটিকে অনাস্থা প্রস্তাবটি  লিখিত পাঠ করে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, বিএনপি একটি গণতান্ত্রিক দল, তৃণমূলের মতামতকে উপেক্ষা করে, কাউন্সিল না দিয়ে বান্দরবান জেলা বিএনপি’র আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে, যা গঠনতন্ত্র বিরোধী ও অগণতান্ত্রিক। জেলা কমিটি অবৈধ দাবি করে অবিলম্বে সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি পূর্ণগঠন প্রক্রিয়া করার দাবি জানিয়ে সদ্য ঘোষিত কমিটিকে অনাস্থা প্রস্তাব করেন।

বিক্ষোভ মিছিল ও সংবাদ সম্মেলনের উপজেলা বিএনপি’র সহযোগী সংগঠন ছাত্র দল, যুব দল, স্বেচ্ছা সেবক দল, তাঁতী দল ও কৃষক দলের দুইশতাধিক নেতা কর্মী স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণ করেন। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, বিএনপি নেতা লালপিয়ামখুব বম, মংএনু মারমা, আবু নোমান, মো. জসিম উদ্দিন, আবদুল কুদ্দুছ, মংসাগ্য মারমা, উচমং মারমা, অংসাথুই হেডম্যান, উসাইঅং মেম্বার, মালা বম প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, গত ২মার্চ বৃহস্পতিবার বান্দরবান জেলা বিএনপি সভাপতি হিসেবে সাবেক এমপি ম্যামাচিং, সাধারণ সম্পাদক হিসেবে সাবেক পৌর মেয়র মো. জাবেদ রেজাকে মনোনিত করে বিএনপি’র আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় বিএনপি সহ-সম্পাদক মো. তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত এক বার্তার এ তথ্য জানা যায়।




থানচিতে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত

DSC04478 copy

থানচি প্রতিনিধি:

‘নারী-পুরুষ সমতায় উন্নয়নে যাত্রা, বদলে যাবে বিশ্ব,কর্মে নতুন মাত্রা’ প্রতিপাদ্যে উপজেলা নারী উন্নয়ন ফোরামে নারী সদস্যদের  অংশগ্রহণ ছাড়ায় এনজিও সংস্থা কর্মরত নারীদের নিয়ে আন্তর্জাতিক নারী দিবস পালিত হয় থানচিতে। এ উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ ও মহিলা ও শিশু বিষয়ক কর্মকর্তাদের যৌথভাবে নানা আয়োজন করেন।

এতে  জাতীয় এনজিও সংস্থা হেলেন কেয়ার’র কর্মরত নারীদের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে বুধবার সকাল ১১টায় থানচি উপজেলা পরিষদ জনসেবা কেন্দ্রে ( গোল ঘর) র‌্যালি  ঘুরে  একই গোল ঘরে আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন, থানচি থানা অফিসার ইনচার্জ প্রতিনিধি  এসআই  হরি গোপাল শিংহ, প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা, বিশেষ অতিথি হিসেবে প্রাথমিক সহকারী শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন, এএসআই  মোহাম্মদ ইউছুপ, জাতীয় এনজিও সংস্থা হেলেন কেয়ার  প্রকল্প কো-অর্ডিনেটর উমেচিং মারমা, মনিটরিং অফিসার নিবারণ চাকমা, আ’লীগের ইউপি সাধারণ সম্পাদক জয়না আবেদীন প্রমুখ।

সভা শেষে জাতীয় এনজিও সংস্থা হেলেন কেয়ার অর্থায়নে থানচি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ে নারী শিক্ষার্থীদের পুরষ্কার হিসেবে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করেন।




বিশ্ব নারী দিবস উদযাপনে থানচিতে মানববন্ধন

IMG_5762 copy

থানচি প্রতিনিধি:

“নারী-পুরুষ সমতায় উন্নয়নে যাত্রা, বদলে যাবে বিশ্ব, কর্মে নতুন মাত্রা” এ প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্ব নারী দিবস ২০১৭ উপলক্ষে থানচিতে  মানববন্ধন করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন,  মহিলা ও শিশু বিষয়ক কার্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে রবিবার সকাল ১০টায় থানচি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের  প্রাঙ্গনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে থানচি সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের নিয়মিত ক্লাসের সময় নারী শিক্ষার্থী, শিক্ষক/শিক্ষিকা ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা, ভাইস চেয়ারম্যান চসাথোয়াই মারমা স্বতষ্ফূর্ত অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখেন।

আরও বক্তব্য রাখেন, উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূর মোহাম্মদ, শিশু ও মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের প্রধান সহকারী (অফিস) মোহাম্মদ উমরান হোসেন প্রমুখ ।

বক্তারা বলেন , নারীর প্রতি সহিংসতা, নারী নির্যাতন প্রতিরোধ সহনশীলতা বজায় ও ৮ই মার্চ বিশ্ব নারী দিবস সফলভাবে  উদযাপনে দেশব্যাপী মানববন্ধনে অংশ হিসেবে আমরাও কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছি ।




শান্তি চুক্তির ফলে পাহাড়ে ফিরেছে শান্তি: প্রধানমন্ত্রী

Bandarban mp pic-1.3

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

তিন পার্বত্য জেলা এক সময় অশান্ত পরিবেশ ছিল। আওয়ামী লীগ সরকার শান্তি চুক্তির পর পাহাড়ে সত্যিই শান্তি ফিরে এসছে। বুধবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে বান্দরবান জেলার দুর্গম থানচি উপজেলার বিদ্যুতায়ন প্রকল্প উদ্বোধনের সময় এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পাহাড়ে মোবাইল নেটওয়ার্ক না থাকায় মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারতো না। আওয়ামী লীগ সরকার নেটওয়ার্কের অনুমতি দিয়ে মোবাইল ফোন ব্যবহারের সুযোগ করে দিয়েছে।

তিনি বলেন, বিদ্যুত প্লান্টের জন্য পার্বত্য চট্টগ্রামে ৬০০ কোটি টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। এছাড়া যেসব জায়গায় বিদ্যুৎ লাইন যাওয়া কষ্টকর সেসব জায়গায় ৪৬ হাজার সোলার প্যানেল বিতরণ করা হবে। পাহাড়ের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে আমরা ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, থানচিসহ বিভিন্ন এলাকায় স্কুলগুলোকে আবাসিক স্কুল তৈরি করে দেয়া হবে।  ছেলে মেয়েরা যাতে মন দিয়ে পড়ালেখা করতে পারে সেজন্য আবাসিক স্কুল করে দেয়া হবে।

২৪ কোটি ৬৪ লাখ ৪২ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মিত থানচি বিদ্যুতায়ন প্রকল্প উদ্বোধনের সময় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর, ৬৯ পদাতিক ব্রিগেড কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল যুবায়ের সালেহীন, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্য শৈহ্লা, জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিকসহ জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন ।




বিদ্যুতে আলোকিত দুর্গম থানচি

thanchi-power-house pic-28.2

নিজস্ব প্রতিবেদক,

স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর বিদ্যুতে আলোকিত হল বান্দরবান জেলা শহর থেকে ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে দুর্গম থানচি উপজেলা। বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকায় উপজেলা বাসিরা যেমন নাগরিক জীবনের সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয়েছে তেমনি মৌলিক চাহিদা থেকেও পিছিয়ে রয়েছে তারা।

শুধু থানচি উপজেলা নয় চিম্বুক পাহাড়ের প্রত্যন্ত পাহাড়ি পল্লীগুলো আলোকিত হয়ে উঠেছে বিদ্যুতের আলোতে। এতে করে দুর্গম এ উপজেলার সাধারণ মানুষের জীবনমান উন্নয়নের পাশাপাশি আর্থসামাজিক অবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন আসবে।

বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র জানায়, বান্দরবানের ৭টি উপজেলার মধ্যে ৬ উপজেলায় বিদ্যুৎ থাকলেও একমাত্র থানচি উপজেলা ছিল বিদ্যুতহীন। দুর্গমতা ও ব্যয়বহুল হওয়ায় স্বাধীনতার ৪৬ বছরেও সেখানে বিদ্যুৎ পৌঁছায়নি। ফলে অন্যান্য এলাকার চাইতে অনেকাংশেই পিছিয়ে ছিল থানচি উপজেলা। বিদ্যুৎ না থাকায় থানচি উপজেলার পাশাপাশি চিম্বুক পাহাড়ে বসবাসকারী পাহাড়ি পল্লীগুলো ছিল অন্ধকারে। এখন এ অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। দুর্গম উপজেলা থানচিতে পৌঁছেছে বিদ্যুৎ, আলোকিত হয়ে উঠছে চিম্বুক পাহাড়ের পাহাড়ি পাড়াগুলো।

প্রায় ২১ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩৩/১১ কেভি, ৪ লাইনে রাঙ্গামাটি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের তত্ত্বাবধানে বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের কাজ সম্পাদন হয়েছে। ওয়াই জংশন এলাকা থেকে থানচি পর্যন্ত দুটি উপকেন্দ্রসহ বিভিন্ন পর্যায়ে মোট ৮০ কিলোমিটার বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন টানা হয়েছে।

২৬ নভেম্বর প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি চিম্বুকে প্রকল্পের কাজ উদ্বোধন করেন।

বুধবার (১ মার্চ) সকালে বান্দরবান জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে এ প্রকল্প উদ্বোধনের কথা রয়েছে।

প্রাথমিক পর্যায়ে প্রায় ৩ হাজার প্রাহককে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আনা হয়েছে। দেরিতে হলেও বিদ্যুত সংযোগ পেয়ে খুশি এলকাবাসী।

থানচি নিবাসী অ্যাডভোকেট উবাথোয়াই বলেন, র্দীঘদিন পর পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি সহায়তায় আমাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়েছে। আমরা এখন আর পিছিয়ে থাকবো না।  সারা দেশের সাথে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাবো।

থানচি সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাংছার ম্রা জানান, থানচি এখন অনেক এগিয়ে যাবে। শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের পাশাপাশি পর্যটন খাতেও সাফল্য আসবে বিদ্যুতের কারণে।

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রনি মারমা বলেন, বিদ্যুতায়নের ফলে থানচি উপজেলার পিছিয়ে পরা সকল জনগোষ্ঠীর স্বাভাবিক জীবনযাত্রা মান উন্নীতকরণ ও সরকারের রাজস্ব আয় বৃদ্ধি, কর্মসংস্থানসহ পর্যটন শিল্পের প্রসার ঘটবে।

থানচি উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা জানান, বিদ্যুৎ না থাকায় থানচির চিত্রকে বিশ্বের দরবারে আকর্ষণীয় করে গড়ে তোলা সম্ভব হয়নি। এবারে বিদ্যুতায়নের সাথে সাথে পর্যটন সম্ভাবনাময় এ উপজেলায় কাঙ্খিত শিল্প বিকাশসহ আর্থসামাজিক উন্নয়ন সাধিত হবে বলেও প্রত্যাশা সকলের।

এ বিষয়ে বান্দরবানের সাংসদ ও পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর জানান, থানচিতে বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছানো এ সরকারের বড় একটি সাফল্য। স্বাধীনতার ৪৬ বছর পর দেশের সবচেয়ে দুর্গম থানচিবাসী বিদ্যুৎ সুবিধা পাওয়া স্বপ্নের মতো। পার্বত্য চট্টগ্রামের যে সব এলাকায় এখনো বিদ্যুত সুবিধা পৌঁছেনি যেসব এলাকায় প্রকল্পের আওতায় বিদ্যুত পৌঁছে দেওয়ার পাশাপাশি নতুন করে সোলার প্রকল্পের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সুবিধা প্রদান করা হবে।




প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুরের আগমন উপলক্ষে থানচিতে চলছে প্রস্তুতি

Untitled-1 copy

থানচি প্রতিনিধি:

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও বান্দরবান ৩০০ আসনের সংসদ বীর বাহাদুর ( উশৈসিং) এমপি সরকারী সফরে থানচি উপজেলা  আসবেন ২৩ফেব্রুয়ারি। ওই দিন সকাল পৌনে ১০টায় থানচি উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে উপস্থিত হবেন।

এ উপলক্ষে উপজেলা পরিষদ, প্রশাসন যৌথ উদ্যোগে  কঠোর নিরাপত্তা বেষ্টনি সহ সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। বীর বাহাদুরের আগমন উপলক্ষে সাংগু সেতুর শেষ অংশে ও বাস স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় গেইট নির্মান কাজ চলছে।

তিনি সরকারী উন্নয়ন তহবিল হতে নব নির্মিত ও বাস্তবায়িত ৭/৮টি প্রকল্পের উদ্বোধন করে জনসাধারণে ব্যবহারের উপযোগী করে তুলবেন। প্রকল্পের মধ্যে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে অর্থায়নে থানচি উচ্চ বিদ্যালয়ের  ৩য় তলা ভবন,  পার্বত্য উন্নয়ন বোর্ড অর্থায়নে সেগুম ঝিড়িতে সেতু , বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পাঠাগার ভবন, জেলা পরিষদের অর্থায়নে  দাকছৈ পাড়া বৌদ্ধ বিহারের উপাসকদের জন্য নির্মিত ভাবনা কেন্দ্রের ভবন, থানচি বান্দরবান সড়ক হতে হাইল মারা পাড়া যাওয়ার রাস্তা সিসি করণ, বাগান পাড়া হতে হিন্দু পাড়া রাস্তা সিসিকরণ, বান্দরবান থানচি সড়ক হতে মংনাই পাড়া রাস্তা উপর ব্রিক্স সলিং প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন।  উদ্বোধন শেষে  বলিপাড়া বাজার ভেজিট্যাবল সেট’র স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও সরকারী বেসরকারী কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় ও জনসভায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদান করবেন । জনসভা শেষে হত দরিদ্র শীতার্তদের মাঝে শীত বস্ত্র কম্বল বিতরণ করবেন বলেও সংশ্লিষ্টরা জানান।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী  বীর বাহাদুর (উশৈসিং) এমপি আগমনে উপলক্ষে নব নির্মিত ভবন, রাস্তা ইত্যাদিতে নতুন রুপে সাজানো হয়েছে। উপজেলা পরিষদ, প্রশাসন ও সংশ্লিষ্টরা ইতিমধ্যে আইন শৃঙ্খলা নিরাপত্তা বেষ্টনিসহ সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর (উশৈসিং) এমপির সাথে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, পার্বত্য উন্নয়ন বোর্ড’র নির্বাহী প্রকৌশলী, জেলা পরিষদ নির্বাহী প্রকৌশলী ও শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীগণ থাকবেন বলেও আশা করছেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা  জানান, থানচিবাসীদের প্রাণ প্রিয় নেতাকে আমাদের অফুরন্ত ভালবাসা শ্রদ্ধা নিবেদনের মাধ্যমে বরণ করা এবং নিরাপত্তা বেষ্টনিসহ সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে।




সকল জাতির সমাগমন ও সম্প্রীতি উৎসবের রুপান্তরে প্রস্তুতি চলছে

01 copy

থানচি প্রতিনিধি:

পাহাড়ি বাঙালি ও সকল জাতির সমাগমন ও একটি সম্প্রীতি উৎসবের পরিনত করার বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে থানচিতে শঙ্খ নদীর ঘাঁটে আগামী ৫, ৬ ও ৭ মার্চ তিন দিনব্যাপী সার্বজনীন গঙ্গা স্নান, গঙ্গা পূজা উৎসব দশম বারের মতো আয়োজন করেছে স্বনাতন ধর্মীয় সম্প্রদায় ।

আয়োজকরা জানান, পাহাড়ে জুম চাষ থানচি উপজেলা ৬টি বাজারের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সহ শঙ্খ নদীর পথে যাত্রীদের নিয়ে যায় প্রতিদিন শতাধিক ছোট ছোট নৌকা।এতে পর্যটক ও জনসাধারণ যাতায়াত ও  চলাচল করে । তাদের বিশ্বাস শঙ্খ নদীতে দর্শণ করেন গঙ্গা প্রতিমা। প্রতিমা তৈরি করে স্নাং এবং পূজা করে সকলের আর্শীবাদক হবেন। এবং সকল সম্প্রদায়ের  মুক্তি পাবেন।

আয়োজক কমিটির সভাপতি উত্তম কুমার চৌধুরী জানান, গত ২০০৭ সালে প্রথম শুরু করেছি এ পূজা  এবারে ১০ বছর দশম বারের মতো প্রতিমা বিসর্জন, ৫০ হাজারেরও বেশি ভক্তদের প্রসাদ ও ৫শত ছাগল বলি দিয়ে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদায় হিন্দু সম্প্রদায়ের আয়োজনের অসম্প্রদায়িকতায় এক যোগে  সার্বজনীন গঙ্গা স্নান, গঙ্গা পূজা উৎসব মূখর পরিবেশের মধ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে।

দশম বারের মতো সাংগু নদীর তীরের এক তীর্থ স্থানের আশীর্বাদক করার ধর্মউপাসনা এক মাত্র প্রয়াস থানচি উপজেলার অবস্থানরত বিভিন্ন ধর্মীয় গন্যমান্য জনপ্রতিনিধি ও সরকারী বেসরকারী দায়িত্বরত কর্মকর্তা কর্মচারীদের স্বতস্ফুর্ত অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছেন আয়োজক কমিটি।

এ উপলক্ষে সোমবার উদযাপন কমিটি সাধারণ সম্পাদক কার্তিক কর্মকারের সঞ্চালনায় থানচি বাজার প্রাঙ্গনের কমিটি সভাপতি রুপম কান্তি চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রস্তুতি সভা আয়োজন করেন। সভায় থানচি উপজেলার চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পূজা উৎসব উদ্বোধন করবেন বলেও সিন্ধান্ত হয়।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, হিন্দু ধর্মীয় নেতা ও প্রবীন আ’লীগের নেতা  স্বপন কুমার বিশ্বাস, মৃদুল কান্তি দাশ, যুব লীগের নেতা আশীষ কুমার দাশ, সুমন কর্মকার, জন্তু কর্মকার প্রমুখ।

অন্যবারের চেয়ে এবারে প্রতিমা সব চেয়ে বড় আকারে করা হবে বলেও সিদ্ধান্ত নিয়েছে। উপজেলা সকল সম্প্রদায়ের নেতৃবর্গ গন্যমান্য, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক এবং ধর্মীয় নেতারা উপস্থিত হয়ে প্রতিমা পূজা ও স্নাংগের অংশগ্রহণ করে আর্শীবাদক গ্রহণের সুযোগ রয়েছে বলেও পূজা উদযাপন কমিটির পক্ষে জানা যায়।




থানচিতে যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

থানচি প্রতিনিধি:

থানচিতে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়রা জানান, ৬ ফেব্রুয়ারি দুপুরে চিংক্য ম্রো’র ছেলে থানচি সদর ইউপি চেয়ারম্যান মাংসার ম্রো চাচাতো ভাই রেংচিং ম্রো, থানচি টিএনটি পাড়া নিবাসী নুরুল ইসলাম ওরফে লেদাইয়াকে অভিযোগকৃত মানিব্যাগ চুরির মিথ্যা অপবাদ দিয়ে থানচি বাজারের সাংগু নদীর ঘাঁট সিঁড়ির বটগাছের নিচে বেধড়ক মারধর করে।

পরে নুরুল ইসলাম গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নেন। ৯ ফেব্রুয়ারি অবস্থার অবনতি ঘটলে পরিবারের লোকজন চমেক ভর্তি করায়। ১৮ ফেরুয়ারি শনিবার রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চমেক তার মৃত্যু ঘটে। ময়নাতদন্ত শেষে থানচির স্থানীয় কবরে দাফন করানো হয়। এ রিপোর্ট লিখার আগ পর্যন্ত কোন মামলা হয়নি থানচি থানায়।

নিহতের ছোট ভাই আবদুস সালাম জানান, আমার ভাইকে মানিব্যাগ চুরির মিথ্যা অপবাদ দিয়ে প্রকাশ্যে মারধর করলে ভাইয়ের শরীরের বিভিন্ন অংশ ফেটে ফুলে যায়। যেহেতু ৯ তারিখ ভাইয়ের বিয়ে ঠিক হয়েছিল তাই তাকে স্থানীয়ভাবে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়িতে রাখা হয়েছিল। বিয়ের পরপরই তার অবস্থা খারাপ দেখে চট্টগ্রাম মেডিকেলে ভর্তি করানো হয়।

তিনি মামলা করার জন্য থানায় যাবার কথা স্বীকার করে বলেন, হত্যাকারীরা অত্যান্ত প্রভাবশালী হওয়ায় চাপের মুখে এবং পুলিশের কাছে জীবনের নিরাপত্তার সহায়তার আভাস না পাওয়ায় মামলা না করেই ফিরে আসেন। এছাড়া রবিবার সকালে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান খামলাই ম্রো আপোষের প্রস্তাব নিয়ে নিহতের পরিবারের কাছে যাবার কথাও বলেন নিহতের ছোট ভাই।

সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান খামলাই ম্রো বলেন, ঘটনাটি শুনেছি এ বিষয়ে রবিবার বিকালে বৈঠক হবার কথা রয়েছে। তিনি নিহতের বাড়িতে আপোষের প্রস্তাব বিষয়টি অস্বীকার করেন।

সদর ইউপি চেয়ারম্যান মাংসার ম্রো জানান, রেংচিং ম্রো আত্মীয় সর্ম্পকে আমার ছোট ভাই। সে লোদাইয়াকে মারলেও সে পুরুপুরি সুস্থ্য ছিল। অন্যকোন রোগে অসুস্থ্য হয়ে মারা যেতে পারে। আমরা স্থানীয়ভাবে ঘটনাটি মিমাংসা করার চেষ্টা করছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, নিহতের পরিবারের পক্ষে অভিযোগ পাইনি। মানিব্যাগ চুরি হলে থানা পুলিশ আছে, আইন আছে। কেউ আইন হাতে  নিতে পারেনা। ময়না তদন্তের রিপোর্ট না পৌঁছা  পর্যন্ত কি কারণে নিহত সঠিক ভাবে জানা সম্ভব নয়। অবশ্যই  প্রযোজনীয় ব্যবস্থা নেব। ইতিমধ্যে ওসির সাথে এ বিষয় কথা বলেছি।

উপজেলার চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা ঘটনা স্বীকার করে বলেন, ময়না তদন্ত হয়েছে। পুরোপুরি বলা যাচ্ছেনা এটি হত্যাকাণ্ড কিনা। রবিবার বিকালে সকলকে নিয়ে বসার কথা রয়েছে।

থানচি থানা ওসি আবদুস সাত্তার বলেন, নিহতের পরিবারের কেউ অভিযোগ করেনি মামলা নিতে পারিনি। পরিবারের পক্ষে অভিযোগ দিলে মামলা নেব। থানচি বাজারে জনমনে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।




 থানচিতে সম্প্রীতি ক্রেডিট ইউনিয়নে বার্ষিক সভা 

Untitled-1 copy

থানচি প্রতিনিধি:

থানচিতে বলিপাড়ায় সম্প্রীতি ক্রেডিট ইউনিয়নে ২য় বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সম্প্রীতি ক্রেডিট ইউনিয়নে সদস্যদের আয়োজনে রোববার সকাল ১০টা এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বলিপাড়া বাজার ও বিজিবি হেডকোয়াটার ঘুরে হাইল মারা পাড়া কমিউনিটি সেন্টারে গিয়ে শেষ হয়।

হাইল মারা পাড়া কমিউনিটি সেন্টারে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠিদের ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সম্প্রীতি ক্রেডিট ইউনিয়নের বার্ষিক সাধারণ সভা উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াঅং মারমা।

ক্রেডিট ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জ্ঞানলাল কারবারীর সভাপতিত্বে বলিপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান জিয়াঅং মারমা প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন,

বিশেষ অতিথি ছিলেন, কারিতাস কর্মসূচী কর্মকর্তা  রেমন আসাম, জুনিয়র কর্মসূচী কর্মকর্তা ক্যনুমং মারমা, প্রেসক্লাবের সভাপতি অনুপম মারমা, মাঠ কর্মকর্তা রাম চন্দ্র ত্রিপুরা, ব্যবসায়ী মংরাসিং মারমা প্রমুখ।

সম্প্রীতি ক্রেডিট ইউনিয়ন ২০০২ সালে স্থাপিত হয়। ২০১৪-১৫ সালে নভেম্বর মাসের  প্রথম বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সম্প্রীতি ক্রেডিট ইউনিয়নে প্রায় ৪শত সদস্যদের আয় ব্যয় হিসাব দেখানো হয় । রোববার ২০১৫-১৬ সালে হিসাব উপস্থাপন করেন সংশ্লিষ্টরা ।