থানচিতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২২ পরিবার ভস্মীভুত

 

থানচি প্রতিনিধি:

থানচিতে ২নং তিন্দু ইউনিয়নের অংথোয়াইপ্রু কারবারী পাড়ায় এক ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২২ উপজাতি পরিবার পুড়ে ভষ্মীভূত।

শনিবার দুপুর ২টায় উক্যসিং মারমা এর বাড়িতে পলিথিন ব্যাগের সাহায্যে চুলার আগুন ধরাতে গিয়ে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত ঘটে।

এ সময় এলাকাবাসীদের সহযোগিতায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। অংথোয়াইপ্রু পাড়া প্রধান নিংথোয়াইউ কারবারী বলে, আমাদের পাড়ায় মোট ৩০ পরিবারের মধ্যে ২২ পরিবার  প্রাথমিক ভাবে ৮০ লক্ষাধিক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারনা করা হচ্ছে।

ক্ষতিগ্রস্তরা হচ্ছে উক্যসিং মারমা, ঞোথোয়াইমং  মারমা, উচিং মারমা, থোয়াইচিংমং মারমা, সাথুইপ্রু মারমা, অংচিং মারমা, মংক্যউ মারমা, থোয়াইনুচিং মারমা, মংসেহ্লা মারমা, ম্রাসাংউ মারমা, থোয়াইসাপ্রু মারমা, উশৈমং মারমা, উহ্লামং মারমাসহ সর্বমোট ২২ পরিবার। তাৎক্ষনিকভাবে পরিদর্শনে যান তিন্দু ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মংপ্রুঅং মারমা।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তাদের জীবনে যার যা সম্বল ছিল পুড়ে ছাই হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত সকল পরিবারকে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষে সর্বাধিক সহযোগিতা করা হবে। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।




থানচিতে আতঙ্ক: ফের অজ্ঞাত রোগে মরছে গবাদিপশু

 

থানচি প্রতিনিধি:

ফের অজ্ঞাত রোগে থানচিতে গরু ও শুকর মারা যাচ্ছে। বৃহস্পতিবার ১ দিনে  থানচি সদরে ৭টি গরু ২টি শুকর মারা গেছে। এতে করে খামারী ও কৃষকরা আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে। উপজেলা প্রাণী সম্পদ দপ্তরে ঈদুল ফিতরে ছুটিতে অবকাশ করায় কোন কর্মকর্তা কর্মচারী না থাকায়। এ পরিস্থিতির ভয়াবহ রুপ নিতে পারে বলেও ভূক্তভোগীরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। উপজেলা সদরে বেশ কয়েকটি পাড়া এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। রোগাক্রান্ত পশুগুলো সুস্থ্য থাকায় অবস্থায় হঠাৎ কেঁপে কেঁপে কয়েক ঘন্টার মধ্যে মারা যাচ্ছে। এছাড়া বেশ কিছু  শুকর ও ইতিমধ্যে মারা গেছে। গত এপ্রিল মাসে এভাবে ২৫টি গরু ও বেশ কয়েকটি শুকর মারা গিয়েছিল।

সরেজমিনে ঘুরে জানা গেছে, ছান্দাক পাড়া ও টিএনটি পাড়া এ দুইটি পাড়া সামশুল সওদাগরে ৩টি, মো. ওসমান ১টি, চিংসামং মারমা ১টি, মো. সেলিম ১টি, রেদাকশে মারমা ১টি, মোট ৭টি গরু ও উবামং কারবারীর ১টি শুকর বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে মারা যায়।

থানচি বাজার পরিচালনা কমিটি সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন জানান, একদিকে ঈদের ছুটি অন্যদিকে আমাদের মহল্লা গবাদি পশু মারা যাওয়ায় আমরা খুবই আতঙ্কের মধ্যে জীবন যাপন করছি।

তিনি আরও বলেন, ঈদ তো আমাদের ইসলাম ধর্মীয় মানুষের, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ে অবশ্য অন্য ধর্মীয় লোকও থাকতে পারে। তাদের দিয়ে আক্রান্ত পশুর চিকিৎসা করতে পারলে আতঙ্ক কেটে যেত।

মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা  ডা. কাজী আসফুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, ঈদের ছুটিতে বাড়িতে আছি। তবে  আমার কর্মচারী জাহেদুল ইসলাম খবর দিয়েছে। আমি অপর ধর্মীয় তিনজন কর্মচারীকে শুক্রবার’র মধ্যে অফিসের পৌঁছে দিচ্ছি এবং আলিকদম উপজেলা থেকে রোগাক্রান্ত গরু ও শুকরের সু-চিকিৎসা প্রদানের জন্য দ্রুত যেতে বলেছি।

মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে বান্দরবান জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ আনিমুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, আমাদের যত ঈদ আসুক ছুটিতে থাকার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মস্থলে গিয়ে রোগাক্রান্ত গবাদিপশু ও শুকরের সু-চিকিৎসা ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছি।




থানচিতে সোলার প্যানেলের ত্রুটি থেকে অগ্নিকান্ড: সিংক্লাং ম্রো’র ঘর পুড়িয়ে ছাই


থানচি প্রতিনিধি :
থানচিতে এক ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে এক আদিবাসী ঘর পুরে ছাই  হয়ে যায়। বৃহস্পতিবার রাত ১২টা অতিরিক্ত তাপমাত্রায় ও সোলার প্যানেলে ব্যাটারীতে অতিরিক্ত চার্জ এবং কন্ট্রোল প্যানেল ত্রুটি হওয়ার কারণে থানচি সদর ইউনিয়নের ৬ নংওয়ার্ড রইহিন ম্রো পাড়া সিংক্লাং ম্রো ঘর পুড়িয়ে ছাই হয়ে যায়।

সিংক্লাং ম্রো জানান, পাড়ায় একজন বৃদ্ধ মারা যাওয়ায় পরিবারের সকলের মৃতদেহ সৎকারে সারারাত ওই  বৃদ্ধার বাড়ীতে ছিল। রাত ১২টা দিকে বাড়ীতে আগুন দেখা যাওয়ার পর ছুটে গিয়েও আর নিবানো সম্ভব হয়নি। তার মজুত করার বাছরের খোরাক ধান-চাল ও অন্যান্য জিনিজপত্রসহ ৬ লক্ষাধিক টাকার সম্পদ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলেও তিনি জানান।

এই দিকে তৎক্ষনিকভাবে সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান চেয়ারম্যান মাংসার ম্রো, ৩৬২নং থানচি মৌজা হেডম্যান হ্লাফসু মারমা ও ৪, ৫, ৬ নং ওয়ার্ড মহিলা সদস্য নুচিংপ্রু মারমা সাড়ে ৫ হাজার টাকা নগদ ও প্রয়োজনীয় হাঁড়ি পাতিল ও অন্যান্য জিনিষ পত্র প্র্রদান করেছেন। এ সময় রইহিং পাড়া প্রধান মাংপুন কারবারী, ৬নং ওয়ার্ডের মেম্বার উথোয়াইপ্রু মারমা উপস্থিত ছিল।




থানচিতে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত

20170605_092951 copy

থানচি প্রতিনিধি:

‘‘প্রানের স্পন্দনে, প্রকৃতির বন্ধনে” এ প্রতিপাদ্য নিয়ে থানচিতে বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন ও কারিতাসের উদ্যোগে দিবসটি উপলক্ষ্যে একটি বর্নাঢ্য র‌্যালি উপজেলার গুরুত্বপূর্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে র‌্যালি শেষে উপজেলা পরিষদ গোলঘরে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক কার্যালয়ের সহকারী প্রধান মো. এমরান হোসেন এর সঞ্চালনায় সভায় সভাপতিত্ব করেন থানচি রেঞ্চ কর্মকর্তা মো. মোখলেছুর রহমান।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বকুলি মার্মা প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, বিট অফিসার মো, কাজী মোকাম্মেল কবির, সহকারী সম্প্রসারন কৃষি কর্মকর্তা মো:. ইদ্রিস, পল্লী  সঞ্চয় ব্যাংক সহকারী মো. আলমগীর হোসেন, যুব উন্নয়ন অফিস সহকারী মা. সেলিম রেজা, কারিতাস খাদ্য নিরাপত্তা প্রকল্পের মাঠ কর্মকর্তা রতন জ্যোতি চাকমা প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, প্রচুর পরিমানে যে বিষাক্ত গ্যাস, বিভিন্ন কলকারখানা ও গাড়ির কালো ধোঁয়া নির্গমনের ফলে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের উঞ্চতা দিন দিন বৃদ্ধি পেয়ে এক সময়ে দেশের নিম্ম অঞ্চল পানিতে তলিয়ে যাবে। তাই এ দিবস পালনের মধ্য দিয়ে জনগণকে সচেতন হতে হবে। মানুষ সাধ্যের মধ্যে যা পারে পরিবেশ অনুকুলে রাখার জন্য পরিবেশ দূষণ না করে গাছ বেশি পরিমানে রোপন করে বাসযোগ্য পরিবেশ গড়ে তোলার আহ্বান জানান।




থানচি বার্ষিক ক্রীড়ায় বিজয়ীদের পুরষ্কার বিতরণ

 

IMG_9439 copy

থানচি প্রতিনিধি:

থানচি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০১৭ সালে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতায় বিজয়ীদের মধ্যে  পুরষ্কার বিতরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এ উপলক্ষ্যে বিদ্যালয়ের  মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় প্রধান শিক্ষক নূর মোহাম্মদ’র সভাপতিত্বে  উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

অন্যান্যদের মধ্যে প্রেসক্লাবের সভাপতি অনুপম মারমা, আওয়ামী লীগের সম্পাদক জয়নাল আবেদীন, অভিভাবক সদস্য মোহাম্মদ মোহসীণ মিঞা, নূর মোহাম্মদ ফরিদি, সহকারী শিক্ষক আবদুল হক বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ।

 




থানচিতে অস্ত্র ও চাঁদাবাজি মামলা ১ আসামি গ্রেফতার

থানচি প্রতিনিধি:

থানচিতে অস্ত্র ও চাঁদাবাজি মামলা জেলা জর্জ কোটে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি আসামি মিলন চাকমা (২৫)কে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ । তার বিরুদ্ধে ২০১৬ সালে বান্দরবান জর্জ কোটে অস্ত্র ও চাঁদাবাজি মামলা হয়েছিল।

থানচি থানা অফিসার ইনচার্জ ওসি মোহাম্মদ আবদুর সাক্তার জানান, গোপন সংবাদ প্রেক্ষিতে উপজেলা অনিল চেয়ারম্যান  পাড়া অভিযান চালিয়ে জেলা জর্জ কোটে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারিকৃত আসামিকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

 




থানচিতে আতঙ্ক কেটেছে গবাদি পশু মালিক ও স্থানীয় খামারীদের   

unnamed (8) copy

থানচি প্রতিনিধি :

থানচিতে বিভিন্ন সবজি ও জুমের ঘাসে বসকোয়াট কীটনাশক বা আগাছানাশক বিষক্রিয়ায় মারা গিয়েছিল গবাদি পশু গরু। তবে শুকর সোয়াইন ফ্লু রোগে মারা গিয়েছিল বলে দাবি করেন, উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. কাজী আসফুল ইসলাম ও সংশ্লিষ্টরা। রবি থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় শতাধিক গবাদি পশুকে প্রতিষেধক ভ্যাকসিন, পিপিআর টিকা ইনজেকশন দেয়া হয়। প্রতিদিন সকাল ৮টা হতে উপজেলা সদরের বিভিন্ন  পাহাড়িদের  ঘরে গিয়ে এ ভ্যাকসিন দেয়া হয়। ফলে এখন আতঙ্ক অনেকটাই কেটেছে গবাদি পশু মালিক ও স্থানীয় খামারীদের।

রবিবার থানচিতে আতঙ্ক, অজ্ঞাত রোগে মরছে গবাদিপশু শিরোনামে মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হয়। একই সংবাদে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার দপ্তরটি তালা ঝুলানো থাকায় কোনো কর্মকর্তাকে পাওয়া যায়নি বলে উল্লেখ করা হলে, রবিবার বিকাল থেকে উপজেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরে কর্মকর্তা ডা. কাজী আসফুল ইসলাম ভেটোরিনারি সার্জন ডা. খন্দকার মঈনুল হুদা নেতৃত্বে টিএনটি পাড়া, ছাংদাক পাড়া, বয়ক হেডম্যান পাড়া, থানচি বাজার, মরিয়ম পাড়াসহ বেশ কয়েকটি পাড়া ঘুরে সরেজমিনে ঘরে ঘরে গিয়ে শতাধিক গরু, ছাগল ,হাঁস ,মুরগী, শুকরের প্রতিষেধক ভ্যাকসিন দেয়া হয় । আগামী এক সপ্তাহ পর্যন্ত এই প্রতিষেধক হিসেবে টিকা দেয়ার কার্যক্রম চলবে বলেও জানা গেছে।

জানা গেছে, থানচি বাজার বাসিন্দা সামশু ইসলামের ২, টিএডটি পাড়া নিবাসী নুরুল আমিনের ১, কামরুল ইসলামে ১, থানা পাড়া নিবাসী মোস্তাক আহম্মদ ১, ফজল মিঞা ১, ছাংদাক পাড়া নিবাসী পুলুখয় মারমা ১, উচিংমং মারমা ১, বাজার পাড়া সিরাজ সওদাগর ১, নজির আহম্মদ ১, বয়ক হেডম্যান পাড়া  রানি দাশ ১, থানা পাড়া নিবাসী প্রেম কুমার ১টি গবাদি পশু বসকোয়াট কীটনাশক বা আগাছানাশক বিষক্রিয়ায় মারা যায়।

থানচি বাজার পরিচালনা কমিটি সাবেক সম্পাদক জসিম উদ্দিন, বয়ক হেডম্যান পাড়া কারবারী চিংক্য ম্রো, ছাংদাক পাড়া শিক্ষক উসাইনশৈ মারমা জানান, আগাছানাশক সবজি ক্ষেতে ব্যবহার করার পর গবাদি পশু ঘাস খাওয়ায় বিষক্রিয়াতে মারা যায়। এতে কেউ কেউ গবাদি পশুর মৃত দেহ মাটিতে দাফন করেছে আবার কেউ কেউ জবাই করে মাংস বিক্রয় করেছে।

উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. কাজী আসফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, অতীব তাপমাত্রা ও আগাছানাশকের বিষক্রিয়ায়  কয়েকদিনে ২০-২৫টা গরু মারা গেছে  তা সত্য, তবে ওই সময় বৌদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষ্যে সরকারি ছুটি ছিল। এ অঞ্চলে গবাদিপশুদের অজ্ঞাত রোগ কিংবা তড়কা ভাইরাস রোগ নেই। তড়কা রোগ হলে মৃত গরুর মাংস  মানুষ খেলে সেও মারা যাবে নিশ্চিত।

তিনি আরও বলেন, এ অঞ্চলে কৃষকদের প্রয়োজনে জুম, ফলদ বাগান, সবজি ক্ষেতে আগাছানাশক  প্রচুর পরিমাণে ব্যবহার করে। কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে কীটনাশক ব্যবহারের আগে ও পরে গবাদিপশুকে  নাগালের বাইরে রাখার জন্য প্রচার করা হলে এ ক্ষতি হতো না। ভবিষ্যতে গণসচেতনতার জন্য এ কৃত্রিম কীটনাশক ব্যবহারের উপর কৃষক, খামারী ও গবাদিপশু মালিকদের নিয়ে সভা সেমিনারের মাধ্যমে উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, কৃষি বিভাগ ও প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তাদের যৌথ সমন্বয়ের প্রচার প্রচারণা করা হলে  এ ধরনের ঘটনা প্রতিরোধ করার সম্ভব বলে পরামর্শ দেন তিনি।

 




থানচিতে বিশ্ব মা দিবস পালিত

unnamed (2)

নিজস্ব প্রতিবেদক,বান্দরবান:

মমতাময়ী মায়ের জন্য সন্তানের ভালবাসা চিরন্তন, প্রতিদিন ভালবাসার মানুষটিকে বিশেষ স্মরণে থানচি উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের যৌথ আয়োজনের ‘‘বিশ্ব মা দিবস’’ পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি থানচি বাজারের প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা জনসেবা কেন্দ্র  গোলঘর’র আলোচনা সভা রবিবার সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন, থানচি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নূর মোহাম্মদ, উপজেলা চেয়ারম্যান ক্যহ্লাচিং মারমা প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, প্রেস ক্লাবের সভাপতি অনুপম মারমা, উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন, একটি খামার একটি বাড়ির সম্মনয়ক মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরে অফিস সহকারী মোহাম্মদ ইমরান হোসেন বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন।




থানচিতে খুনের আসামি গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খুনের মামলার দুই আসামিকে গ্রেফতার করছে পুলিশ। থানচি থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আবদুল সাক্তার নেতৃত্বে শনি-রবি দুই দিনব্যাপী অভিযানে থানচি হেডম্যান পাড়া নিবাসী ম্রাসিংওয়াং মারমা ৪০, ওয়াক চাক্কু পাড়া নিবাসী মুয়ং ম্রোকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরোধে বান্দরবান জর্জ কোটে খুনের মামলা রয়েছে  বলেও পুলিশ জানায়।

অফিসার ইনচার্জ আরও জানান, ২০০৯ সালে ম্রাসিংওয়াং মারমা খামার বাড়িতে ১দিন মজুরিকে নৃসংশভাবে খুন করে। ২০১৫ সালে জর্জ কোট গ্রেফতারের আদেশে তাকে গ্রেফতার করেন ওই বছরে জামিনে সে মুক্তি পেয়েছিল। চলতি মাসের ১ম সপ্তাহের পুনরায় গ্রেফতারি পরোয়ানা আদেশে তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে বলে পুলিশ জানান, অপর মুয়ং ম্রোকে ২০১৩ সালে বোর্ডি ম্রো পাড়ায় চালা ম্রোকে নৃসংশভাবে খুন করেন।

ওই সময় তিনি ম্রো ন্যাশনাল পার্টি স্বক্রিয় সদস্য ও লিডার  ছিল। তাকে কয়েকদিন আগে জর্জ কোট গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। দুই খুনের আসামিকে রবিবার জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও পুলিশ জানান।




থানচিতে চিকিৎসা অভাবে অর্ধ-শতাধিক গরু-ছাগল ও শুকর’র মৃত্যু

unnamed (1) copy

থানচি প্রতিনিধি:

থানচিতে সু-চিকিৎসার অভাবে অর্ধ-শতাধিক গৃহপালিত গরু, ছাগল ও শুকরের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার থেকে শনিবার পর্যন্ত হঠাৎ করে সুস্থ অবস্থায় পশু গুলি মারা যাওয়ার ফলে উপজেলা ৪ ইউনিয়নের প্রায় শতাধিক মহল্লা আদিবাসীদের  ভয় ও অতংঙ্ক বিরাজ করছে। গরু-ছাগল ও শুকর মালিকদের হতাশা শেষ নেই ।

এ দিকে উপজেলা প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা কর্মচারীদের কার্যালয়ের দির্ঘদিন ধরে অনুপস্থিতির কারণে গৃহপালিত  গরু, ছাগল ও  শুকর গুলি ভ্যাকসিন টিকা দিতে অপরাগতায় ও তাপমাত্রা বেশির  কারণে এ সব গরু, ছাগল ও  শুকর মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটতে পারে বলে ধারনা করছেন অনেকে ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেচ্ছে, বুধবার  থানচি বাজারে ব্যবসায়ী সামশু ইসলামে ২টি, টিএডটি পাড়া নিবাসী নুরুল আমিনের ১টি, কামরুল ইসলামের ১টি, থানা পাড়া নিবাসী মোস্তাক আহম্মদ ১টি, ফজল মিঞা ১টি, ছাংদাক পাড়া নিবাসী  পুলুখয় মারমা ১টি, বাজার পাড়া সিরাজ সওদাগর ১টি, নজির আহম্মদ ১টি, বয়ক হেডম্যান পাড়া  রানি দাশ ১টি  গরু হঠাৎ সুস্থ অবস্থা মারা যায়। বয়ক হেডম্যান পাড়া নিবাসী চিংক্য ম্রো জানান, নাইন্দারী পাড়া, ছাংদাক পাড়া, মরিয়ম পাড়া, বয়ন হেডম্যান পাড়া, টিএন্ডটি পাড়া, বাজার পাড়া, থানচি হেডম্যান পাড়াসহ  আশে পাশে পাড়া গুলি গৃহপালিত গরু, ছাগল ও শুকরের হঠাৎ করে অজানা রোগে সুস্থ অবস্থা ২০-৩০ মিনিট  মধ্যে মারা যায়।

থানচি বাজার পরিচালনা কমিটি সাবেক সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন জানান, দীর্ঘদিন থেকে প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ও কর্মচারী উপস্থিত না থাকায় দুই তিন বছর ধরে গরু, ছাগল ,হাস-মুরগী, শুকর গুলিকে ভেকসিন টিকা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না।

থানচি ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার স্বপন কান্তি দাশ জানান, উপজেলা পরিষদের ন্যস্ত বিভাগের কর্মকর্তাদের উপস্থিতির নিশ্চিৎ করে সেবা প্রতিষ্ঠান গুলিতে সেবা বাড়ানো  জন্য চেয়ারম্যান ও জনপ্রতিনিধিদের বহুবার বলছি কিন্তু কাজের কাজ হলনা। আমি গত একমাস ধরে প্রতিদিন একবার করে প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের ধরনা দিয়েছি কিন্তু একদিনও তাদের পেলাম না ।

সরেজমিনে গিয়ে উপজেলা প্রাণী সম্পদ কার্যালয়ের  মোট ৬জন কর্মকর্তা কর্মচারী রয়েছে। ডা. কাজী আসরাফুল ইসলাম, প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা, ডা. খন্দকার মঈনুল হুদা ভেটারিনারি সার্জন, নাজিম উদ্দিন, ভেটারিনারি ফিল্ড এ্যাসিস্টেন ( ভিএসএ) মানষ কুমার দে, অফিস সহকারী, মো. জাহেদুল ইসলাম কৃত্রিম প্রজন্ম, ও মনিকা তংচংগ্যা কম্পনদার, তাদের এলাকাবাসী চিনেন না যোগাযোগ করা হলে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান চসাথোয়াই মারমা বলেন, ২০১৪ সালে আমি দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে তাদের কাউকে দেখা হয়নি এবং চিনিওনা।

যোগাযোগ করা হলে  মো. জাহেদুল ইসলাম বলেন, অতিরিক্ত তাপ মাত্রা  কারণে গরু-ছাগল ও শুকরের এক ধরনে ভাইরাস হতে পারে তা গরু ,ছাগল হলে পকড়া রোগ , শুকর হলে খঁড়া ( এসএমডি)রোগ হতে পারে এ রোগে সুস্থ অবস্থা থেকে হঠাৎ হয়। সুস্থ অবস্থা ভেকসিন টিকা দিলে প্রতিরোধ করার সম্ভব ।

তিনি আরও বলেন, তার কার্যালয়ের বিদ্যুৎ ও বিশুদ্ধ পানির  অভাবের  ফ্রিজ চালানো সম্ভব  না হওয়ার পর্যাপ্ত পরিমান ভেকসিন টিকা রাখা সম্ভব নয়। সোলার প্যানেল দিয়ে দুই একটা টিকা স্টোক আছে। যোগাযোগ করা হলে প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. কাজী আসরাফুল ইসলাম বলেন, আমি গত মাসের যোগদান করছি কার্যালয়ের বিদ্যুৎ ও বিশুদ্ধ পানির অভাব ও অফিস করার মত পরিবেশ না থাকায় চলে আসছি, এখন ছুটিতে অবস্থান করছি। আগামীকাল থেকে সব কর্মকর্তা -কর্মচারী থানচিতে যাবে সাথে পর্যাপ্ত ভেকসিন টিকা ও অন্যান্য ঔষধ নিয়ে যাচ্ছি। সকল গরু, ছাগল ও শুকর মালিকদের সাথে জনসচেতনতা মূলক সভা সেমিনার করার প্রস্তুতি নিয়েছি।