টেকনাফে ২টি বিদেশী পিস্তল উদ্ধার

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

টেকনাফে কোস্টগার্ড অভিযানে ২টি বিদেশী পিস্তল ও ২ রাউন্ড তাজা গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাতে কোস্টগার্ড টেকনাফ স্টেশনের একটি টিম টেকনাফ সদরের মিঠাপানির ছড়া পাহাড়ের জঙ্গল থেকে এ অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার করে।

কোস্টগার্ড চট্রগ্রাম জোনের গনসংযোগ কমর্কতা লে. কমান্ডার শেখ ফকর উদ্দিন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পাহাড়ে ডাকাত ধরতে অভিযান চালানো হয়। কোস্টগার্ডের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়। পরে ওই এলাকা তল্লাসী চালালে একটি কালো রঙ্গের প্যাকেটে ২টি বিদেশী পিস্তল ও ২ রাইন্ড তাজা গুলি পাওয়া যায়। এসব অস্ত্র ও গুলি টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয়।




টেকনাফে আ’লীগ দু’গ্রুপে পৃথকভাবে শোক দিবস পালিত

 

টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগ দু’গ্রুপে পৃথকভাবে শোকদিবস পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ১০টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে সাংসদ আবদুর রহমান বদির একাংশ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে অপর একটি অংশ মিল্কী রিসোর্ট মিলনায়তনে শোক সভার আয়োজন করে।

টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আলম বাহাদুরের সভাপতিত্বে ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি সরোয়ার আলমের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন, উখিয়া-টেকনাফের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি। বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. শফিক মিয়া, উপজেলা চেয়ারম্যান জাফর আহমদ, ভাইস চেয়ারম্যান মাও. রফিক উদ্দিন, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবরাং ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন, বাহারছড়া ইউপি চেয়ারম্যান আজিজ উদ্দিন, জহির হোসেন এমএ, সদর ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়া, মহিলালীগের সভাপতি কোহিনুর আক্তারসহ টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগ, শ্রমিক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও অঙ্গসংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত শোক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবদুর রহমান বদি এমপি বলেন, ৭৫’র এ দিনে ষড়যন্ত্রকারীরা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যা করে। ষড়যন্ত্রকারী যেই হোক তাদের রক্ষা নেই।

দেশে চক্রান্ত চলছে, চক্রান্তকারীরা খোয়াব দেখছে ক্ষমতার মসনদে আসার জন্য। বিএনপি-জামাতের ইশারার ষোড়শ সংশোধনী বাতিল করেছে। সেখানে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে অবমাননাকর আপত্তি করা হয়েছে। শ্রীঘ্র্রই তাহা বাতিল করতে হবে। অন্যথায় দেশের জনগণ মানবেনা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন দেখে চক্রান্তকারীরা দিশেহারা। তাই আগামী নির্বাচনে আবারো আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আনতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে।  সভাশেষে কাঙ্গালী ভোজের আয়োজন করা হয়।

অপরদিকে মিল্কী রিসোর্ট মিলনায়তনে সাবেক সাংসদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ আলীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নুরুল বশরের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এড. আমজাদ হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রাজা শাহ আলম, সদস্য আদিল চৌধুরী, টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আনোয়ার মিয়া। সভাশেষে কাঙ্গালী ভোজের আয়োজন করা হয়।

অপরদিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় টেকনাফ উপজেলা প্রশাসন ও  বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক সংগঠনগুলো শোক দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও র‌্যালির আয়োজন করে।




টেকনাফে সমুদ্র সৈকতে গোসল করতে নেমে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফে সমুদ্র সৈকতে গোসল করতে নেমে নাহিদুল ইসলাম (১১) নামের এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। সে টেকনাফ উপজেলার শাহপরীর দ্বীপ উত্তরপাড়ার আহমদ হোসেনের ছেলে এবং শাহপরীর দ্বীপ উত্তরপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চর্তুথ শ্রেণির ছাত্র।

মঙ্গলবার সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ পশ্চিমপাড়ার সমুদ্র সৈকতে এ ঘটনাটি ঘটে।

নাহিদের বাবা আহমদ হোসেন বলেন, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে স্কুলের উদ্দেশে নাহিদুল বাড়ি থেকে বের হয়। স্কুলে গিয়ে জাতীয় শোক দিবসের শোভাযাত্রা শেষে স্কুল ছুটির পরে কয়েকজন সহপাঠী মিলে সমুদ্র সৈকতে ফুটবল খেলতে যায়। খেলা শেষে তারা ফুটবল নিয়ে সাগরে গোসল করতে নামে। একপর্যায়ে বলটি ভেসে যায়। নাহিদ সেটি আনতে গিয়ে স্রোতের টানে ডুবে যায়। ওই সময় অন্যরা চিৎকার করলে আশপাশের জেলেরা তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় পল্লী চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায়। তিনি নাহিদুলকে মৃত ঘোষণা করেন।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাইন উদ্দিন খান বলেন, স্থানীয় ইউপি রেজাউল করিম রেজু মেম্বার এক স্কুল ছাত্রের মৃত্যুর খবর জানিয়েছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।




কক্সবাজারের টেকনাফে ৩ কোটি টাকা মূল্যের ১ লাখ ইয়াবা উদ্ধার

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে ৩ কোটি টাকা মূল্যের ১ লাখ ইয়াবা উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা। আজ সকালে টেকনাফ উপজেলার নাইটংপাড়াস্থ বরফকল এলাকা থেকে এসব ইয়াবা উদ্ধার করা হয়।

বিজিবি টেকনাফস্থ ২নং ব্যাটালিয়নের অতিরিক্ত পরিচালক লে. কর্নেল শরীফুল ইসলাম জমাদ্দার জানান, মিয়ানমার থেকে ইয়াবার চালান আসার খবরে বিজিবি’র সদস্যরা অভিযানে নামেন। এসময় বিজিবি’র উপস্থিতি টের পেয়ে ইয়াবা পাচারকারীরা পালিয়ে যায়। পরে তল্লাশী করে ঘটনাস্থল থেকে একটি পলিথিনের ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। এতে গণনা করে এক লাখ ইয়াবা পাওয়া যায়। যার আনুমানিক মূল্য ৩ কোটি টাকা।

উদ্ধারকৃত ইয়াবাগুলো বিজিবি টেকনাফ ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে, যা পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।




টেকনাফে ৮ হাজার পিস ইয়াবাসহ পুলিশ দম্পতি আটক: সর্বত্র তোলপাড়

টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফে ৮ হাজার পিস ইয়াবাসহ চকরিয়া থানার এক পুলিশ দম্পতিকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন(বিজিবি)। আটককৃতরা হলেন, কক্সবাজারের চকরিয়া থানায় কর্মরত কুমিল্লা বুড়িচং উপজেলার পীর যাত্রাপুর এলাকার মৃত আলী আজমের ছেলে মো. এরশাদ উল্লাহ ও তার স্ত্রী কামরুন নাহার কক্সবাজার পিএমখালী ছনখোলা এলাকার আব্দুল হামিদের মেয়ে।

সোমবার রাতে পুলিশ সদস্য আটক হলেও আটকের বিষয়টি গোপনের চেষ্টা করে বিজিবি ও পুলিশ এবং এনিয়ে সর্বত্র তোলপাড় চলছে। পরে মঙ্গলবার বিষয়টি জানাজানি হলে সন্ধ্যায় ওই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে টেকনাফ মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়। যার মামলা নং- ৬৬২/১৭।

জানা যায়, বিজিবি হোয়াইক্যং বিওপির হাবিলদার মো. হায়দার আলী শেখ জানান, রাতে কক্সবাজারগামী যাত্রীবাহী মাইক্রোবাসে তল্লাশি চালিয়ে এরশাদ ও কামরুন নাহার দম্পতির সঙ্গে থাকা একটি শপিংব্যাগ থেকে ৪০টি ছোট পলিব্যাগে মোড়ানো অবস্থায় ৮ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। যার আনুমানিক মূল্য ২৪ লাখ টাকা। এ ছাড়া তাদের কাছ থেকে ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে। তবে আটক এরশাদ কোনো সরকারি বাহিনীর সদস্য কি না তা তিনি জানেন না বলে জানান।

টেকনাফ মডেল থানার পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) শেখ আশরাফুজ্জামান এ বিষয়টি এড়িয়ে গেলেও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জয়নাল জানান, মামলাটির যথাযত তদন্ত করা হবে।

এদিকে চকরিয়া থানার ওসি বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জানান, মো. এরশাদ আলম ৭/৮ মাস ধরে চকরিয়া থানায় পুলিশ কনস্টেবল হিসেবে কমর্রত রয়েছে। তবে গত ৩ দিন ধরে সে কর্মস্থলে অনুপস্থিত। এব্যাপারে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। বিষয়টি তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করেছেন বলেও জানান।




মিয়ানমারের শীর্ষ সন্ত্রাসী আবদুল হাকিম ডাকাতের আস্তায় অভিযান চালিয়ে ১৭টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৪৩৭ রাউন্ড কার্তুজসহ দুই সহযোগী আটক

 

টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফের গহীন পাহাড়ে অভিযান চালিয়ে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নবাদী জঙ্গি সংগঠন (আল অ্যাকিন) এর (সামরিক প্রধান) রোহিঙ্গা ডাকাত  ও শীর্ষ সন্ত্রাসী আব্দুল হাকিমের দুই সহযোগীকে ১৭টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৪৩৭ রাউন্ড কার্তুজসহ আটক করেছে ‌র‌্যাব-৭।

আটককৃতরা হচ্ছে, টেকনাফ পৌরসভার পুরান পল্লানপাড়ার আবুল হাসিমের ছেলে শামসুল আলম(২২) একই এলাকার মো. ধইল্ল্যার ছেলে মোহাম্মদ ফরিদ (২৬)। তারা দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিমের সহযোগী হিসেবে কাজ করে আসছিল।

সোমবার (৭ আগস্ট) রাতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। পরে তাদের দেয়া তথ্য মতে বিপুল পরিমান অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব-৭ কক্সবাজার ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর রুহুল আমিন অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

মেজর রুহুল আমিন জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে টেকনাফের গহীন পাহাড়ে অভিযান পরিচালনা করে ১৭টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৬৩৭ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি টেকনাফ থেকে রোহিঙ্গা ডাকাত আব্দুল হাকিমের শ্যালককে অস্ত্রসহ আটক করেছিল আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী।




সেন্টমার্টিনদ্বীপে ১৫ কোটি টাকার ইয়াবা ও ফিশিং ট্রলারসহ মিয়ানমারের ছয় মাঝিমাল্লা আটক

টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফ উপজেলার সেন্টমার্টিনদ্বীপের কাছাকাছি বঙ্গোপসাগরে অভিযান চালিয়ে ইয়াবাসহ ১৫ কোটি টাকা মূল্যের ৩ লাখ পিস ইয়াবা ও একটি মাছ ধরার ফিশিং ট্টলারসহ মিয়ানমারের ৬ নাগরিককে আটক করেছে কোস্টগার্ড সদস্যরা।

(৩ আগষ্ট) বৃহস্পতিবার ভোরে রাতে সেন্টমার্টিনের ছেড়াদ্বীপ এলাকায় ইয়াবাসহ মাঝিমাল্লাকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতরা হলেন, মিয়ানমারের মংডু’র মৃত সুলতান আহাম্মদের ছেলে রহিম উল্লাহ (৫০), মৃত কাদের আহাম্মদের ছেলে এনামুল হোসেন (১৬), মকবুল হোসেনের ছেলে নাজির আহমেদ (৬৫), মৃত হাবিরুলের ছেলে মো. করিম (১৭), মোহাম্মদ মো. রফিক (১৪) ও মৃত রহিম উল্লাহের ছেলে মো. ফারুক (১৫)।

টেকনাফ কোস্টগার্ড স্টেশন কর্মান্ডার লে. এম জাফর ইমাম সজীব জানান, একটি মাছ ধরার ফিশিং ট্রলার নিয়ে মিয়ানমার থেকে ইয়াবা আসার গোপন সংবাদে একটি বিশেষ টিম সেন্টমার্টিনের ছেড়াদ্বীপের পূর্বে অবস্থান নেয়। এসময় মিয়ানমারের সীমান্ত থেকে আসা একটি ট্রলারকে থামানো সংকেত দেয়। ট্রলারটি সংকেত অমান্য করে দ্রুত পালানোর চেষ্টা করে। এসময় কোস্টগার্ড সদস্যরা ৩ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করলে  অবস্থা বেগতিক দেখে পাচারকারীরা আত্মসমর্পন করতে বাধ্য হয়। আটক ট্রলারে তল্লাশি চালিয়ে ইঞ্জিনের বক্সের ভেতর থেকে একটি বস্তা উদ্ধার করা হয়। এসময় মিয়ানমারের ৬জন মাঝিমাল্লাকে আটক করা হয়।

তিনি আরো জানান,  উদ্ধারকৃত বস্তার ভেতর থেকে ৩ লাখ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। যার মূল্য ১৫ কোটি টাকা। আটককৃতদের বিরুদ্ধে মাদক ও অবৈধ অনুপ্রবেশ করার দায়ে পৃথক দু’টি মামলা দিয়ে টেকনাফ মডেল থানায় সোর্পদ করা হয়েছে।




টেকনাফে পুলিশের সাঁড়াশী অভিযান: ২৪ হাজার ইয়াবাসহ আটক-১৯

টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফে ইয়াবা বিরোধী সাঁড়াশী অভিযানের সময় পুলিশের উপর হামলা চালিয়েছে চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ীরা। এসময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপকালে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

অভিযানের সময় টেকনাফ হ্নীলা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা হোসাইন আহমদ ও শামশুল আলম বাবুলের স্ত্রী ছালেহা বেগম, চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী শামসুসহ বিভিন্ন মামলার গ্রেফতার পরোয়ানাভূক্ত ১৯ আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার ভোররাতে হ্নীলা ও হোয়াইক্যং ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় এ অভিযানে তাদেরকে আটক করা হয়।

আটককৃতরা হলেন, হ্নীলা ইউনিয়নের পশ্চিম পানখালী এলাকার মৃত সোনা আলীর ছেলে ইউপি সদস্য হোসেন আহাম্মদ (৪০), তার ভাই মৌলভী আলী আহাম্মদ(৩৫), মাষ্টার আহমুদুল রহমানের ছেলে লুৎফর রহমান (২৭),পূর্ব সিকদারপাড়ার  মৃত কালা মিয়ার ছেলে শামসুদ্দিন প্রকাশ শমসু(৫০), হোয়াইক্যং ইউনিয়নের নাছরপাড়ার মৃত সোলেমানের ছেলে নবী হোসাইন(৩৮), তার ছোট ভাই সিরাজ মিয়া(৩০), খারাংখালী এলাকার আবছার উদ্দিন(২৬), উলুবনিয়া এলাকার খাইরুল বশর(৩২), পানখালীর শামসুল আলম (৩৫), হ্নীলা ৩ নং ওয়ার্ডের তালিকাভূক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী ইউপি সদস্য শামশুল আলম বাবুলের স্ত্রী ছালেহা বেগম (৩২)। বাকীদের নাম জানা যায়নি।

এব্যাপারে টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা (ওসি তদন্ত) শেখ আশরাফুজ্জামান জানান, জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল ও উখিয়া-টেকনাফের সার্কেল চাইলাউ মারমার নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ও হোয়াইক্যং ইউনিয়নসহ কয়েকটি বিশেষ এলাকায় ইয়াবা পাচারকারীসহ চিহ্নিত অপরাধীদের ধরতে সাঁড়াশী অভিযান পরিচালনা করে।

তিনি জানান, কক্সবাজার পুলিশের বিশেষ টিম ইয়াবা প্রতিরোধে হার্ড লাইনে নেমেছে। তারই সূত্র ধরে বুধবার ভোর রাতে টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালায়। অভিযানকালে ইয়াবা ব্যবসায়ীর একটি গ্রুপ পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট পাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায় এবং অভিযানে হ্নীলা ফুলের ডেইল এলাকার ইউপি মেম্বার বাবুলের স্ত্রী সালেহা বেগমের কাছ থেকে ১০ হাজার ইয়াবা, হ্নীলা পানখালী এলাকার হোসন আহমদ মেম্বারের ভাই আলী আহমদের কাছ থেকে ৫ হাজার পিচ ইয়াবা ও পূর্ব সিকদার পাড়া এলাকার শামসুদ্দিনের কাছ থেকে ৩ হাজার পিচ, নবী হোসনের কাছ থেকে ২হাজার ১’শ, খাইরুল বশর থেকে ১ হাজার ৮’শ, আবসার উদ্দিনের কাছ থেকে ২ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।  তিনি আরো জানান, আটককৃতদেরকে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা রুজু করে কক্সবাজার আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত সোমবার তালিকাভূক্ত শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী ও একাধিক মামলার আসামি হ্নীলা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মো. জামাল হোসাইনকে গ্রেফতার করে। তার মুক্তির দাবিতে থানায় ঘেরাও করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।




টেকনাফে ৩ লাখ ৬২ হাজার পিস  ইয়াবা উদ্ধার: মিয়ানমারের তিন নাগরিক আটক

টেকনাফ প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবির পৃথক অভিযানে ৩ লাখ ৬২ হাজার পিস ইয়াবাসহ তিন মিয়ানমার নাগরিককে আটক করেছে।

আটককৃতরা হলেন, মিয়ানমারের মংডু থানার নাইটার ডেইল এলাকার মো. ইউনুছ আলীর ছেলে মো. আবু ফয়াজ (৩২), মো. আব্দুর রশিদের ছেলে মো. শফিক (২০) ও নোয়াপাড়া গ্রামের মো. ফয়জল আহম্মেদের ছেলে মো. রফিক (২৫)।  সোমবার ৩১ জুলাই ভোরে মৌচনী এলাকা থেকে তাদেরকে ইয়াবাসহ আটক করা হয়।

এ ব্যাপারে টেকনাফ ২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল এসএম আরিফুল ইসলাম জানান, ভোরে হ্নীলা ইউনিয়নের মৌচনী খাল দিয়ে ইয়াবা একটি চালান মিয়ানমার থেকে টেকনাফে আসছে এমন সংবাদে দমদমিয়া ক্যাম্পের সুবেদার মো. মিজানুর রহমান ও হাবিলদার লুৎফর রহমানের নেতৃত্বে বিজিবির একটি দল ওই এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে পাচারকারীরা কেওড়া বাগানে ভেতরে একটি বস্তা ফেলে পালিয়ে যায়। পরে ওই বস্তা থেকে ৩ লাখ ৪০ হাজার পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। যার দাম ১০ কোটি ২০ লাখ টাকা।

তিনি আরও জানান, এ ছাড়া রোববার রাতে পৌরসভার নাইট্যং পাড়া সংলগ্ন নাফনদের কিনারায় টেকনাফ চৌকির সুবেদার মো. ইব্রাহিম হোসেনের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে একটি নৌকাসহ তিন মিয়ানমার নাগরিককে আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ২২ হাজার ৪৮৬ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়।

বিজিবির এ কর্মকর্তা জানান, আটককৃতদের বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের দায়ে পৃথক দুইটি মামলা রুজু করে উদ্ধারকৃত ইয়াবাসহ টেকনাফ মডেল থানায় সোপর্দ করা হয়েছে এবং উদ্ধারকৃত নৌকাটি টেকনাফ শুল্ক গুদামে জমা করা হয়েছে।

টেকনাফ মডেল থানায় ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার  দায়িত্বে থাকা (ওসি তদন্ত) শেখ আশরাফুলজ্জামান জানান, ইয়াবাসহ আটক মিয়ানমার নাগরিকদের সোমবার সকালে কক্সবাজার আদালতে পাঠানো হয়েছে।




টেকনাফে ৫০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

টেকনাফ প্রতিনিধি:

টেকনাফে ৫০ হাজার পিস ইয়াবাবড়ি উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা। তবে এসময় কাউকে আটক করতে পারেনি বিজিবি।শুক্রবার সকালে সাবরাং ইউনিয়নের হারিয়াখালির ভাঙ্গারমুখ থেকে ইয়াবাগুলো উদ্ধার করা হয়।

টেকনাফ ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এসএম আরিফুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সকালে সাবরাং ইউনিয়নের হারিয়াখালী সংলগ্ন ভাঙ্গার মুখ দিয়ে ইয়াবা পাচারের খবর পেয়ে বিজিবির একটি বিশেষ টিম ভাঙ্গার মুখে অভিযান পরিচালনা করে। এসময় একটি পলিথিন ব্যাগ ফেলে পাচারকারীরা পালিয়ে যায়।

তিনি আরও বলেন, ওই ব্যাগ থেকে ৫০হাজার পিস ইয়াবা বড়ি পাওয়া যায়। যার দাম দেড় কোটি টাকা। উদ্ধার ইয়াবাগুলো ব্যাটালিয়ন সদর দফতরে জমা রাখা হয়েছে। পরবর্তীতে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের সামনে এগুলো ধ্বংস করা হবে বলেও জানান বিজিবির ওই কর্মকর্তা।