বান্দরবানে মাউন্টেইন বাইসাইকেল প্রতিযোগিতায় প্রথম হয়েছেন মো. আব্দুলাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

বান্দরবানে মাউন্টেইন বাইসাইকেল প্রতিযোগিতায় মো. আব্দুলাহ প্রথম স্থান অর্জন করেছেন।

অংশ নেবার লক্ষ্যে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে শুক্রবার সকালে জাতীয় সাইক্লিং প্রতিযোগিতার উদ্যোগে এবং বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহযোগিতায় বাইসাইকেল প্রতিযোগিতা বান্দরবান-রাঙ্গামাটি সড়কের রাজবিলার ডাক বাংলো এলাকা থেকে সাইক্লিং প্রতিযোগিতা আরম্ভ হয়। প্রতিযোগিতায় প্রায় ৫০জন অংশ নেয়।

জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী সাইক্লিং প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন।

সূত্র জানায়, রাজবিলার ডাক বাংলো এলাকা থেকে সাইক্লিং প্রতিযোগিতায় শুরু পাহাড়ি দুর্গম পথ বেয়ে দীর্ঘ ২৫ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে শহরের স্থানীয় রাজার মাঠে শেষ হয়। মাত্র ৫৫ মিনিট সময় অতিক্রম করে প্রতিযোগিতার প্রথম হন মো. আব্দুলাহ্। তিনি পেশায় রিক্সা ও সাইকেল ম্যাকানিক। ৫৭ মিনিটে মো. কাউসার ৫৮ মিনিট ৩৩ সেকেন্ড ৩য় মাহামুদুল হাসান (সোহান) ২য় ও ৩য় স্থান লাভ করে। এছাড়া আরো ছয়জন প্রতিযোগীকে বিজয়ী হিসেবে নেয়া হয়েছে।

আয়োজকেরা জানান, আসন্ন বিজয় দিবসে ঢাকায় জাতীয় মাউন্টেইন বাইসাইকেল প্রতিযোগিতায় বান্দরবান থেকে এ আটজনকে প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রতিযোগিতায় পাঠানো হবে।




বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপে বালাঘাটা ও রাজবিলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা গোল্ডকাপ ফুটবল জেলা পর্যায়ের প্রতিযোগিতার ফাইনাল খেলায় বালাঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (বালক দল) ও রাজবিলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (বালিকা দল) চ্যাম্পিয়ান হয়েছে। প্রধান অতিথি ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈ সিং এমপি প্রতিযোগীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন।

এসময় জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কামরুজ্জামান, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ইসলাম বেবী, সহ-সভাপতি দিপ্তি কুমার বড়ুয়া, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রিটন বড়ুয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে স্থানীয় রাজার মাঠে ফাইনাল খেলায় সদর উপজেলার রাজবিলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বালিকা দল ১-০ গোলে পরাজিত করে লামা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় বালিকা দলকে। দলের পক্ষে গোলটি করেন মাশৈচিং মারমা।

বান্দরবান জেলা সদরের বালাঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দল বনাম নাইক্ষ্যংছড়ির বাইশারী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্ধারিত সময়ের খেলায় ৩-৩ গোলে ড্র থাকে। ফলে চ্যাম্পিয়ান দল নির্ধারণ করতে

টাইব্রেকারে ৩-২ গোলে ব্যবধানে বালাঘাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় দল চ্যাম্পিয়ান হয়।  টুর্নামেন্টে ৭টি গোল করে সেরা গোলদাতার পুরস্কার পান বাইশারী দলের রমজান আলী।

খেলা শেষে অংশগ্রহনকারী দলকে ট্রফি তুলে দেন প্রধান অতিথি বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি। এসময় তিনি চ্যম্পিয়ন দু-দলকে নগদ ১০ হাজার টাকা ও রানার আপ দলকে ৭ হাজার টাকা উপহার দেন। এছাড়াও সেরা খেলোয়াড়, সেরা গোলদাতার হাতেও ব্যক্তিগত আর্থিক পুরস্কার তুলে দেন মন্ত্রী। টুর্নামেন্টে জেলার ১৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান অংশ নেয়।




খাগড়াছড়িতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

“শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ” এ শ্লোগানে খাগড়াছড়িতে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ  মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট।

মঙ্গলবার(১৭অক্টবার) সকালে খাগড়াছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

এসময় খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, জেলা প্রশাসক মো. রাশেদুল ইসলাম, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, মো. নুরুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমএম সালাহউদ্দিন ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফাতেমা মেহের ইয়াসমিনসহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মকর্তাসহ বিপুল সংখ্যক দর্শক উপস্থিত ছিলেন।




শিশুদের লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও এগিয়ে আনতে হবে

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি:

শিশুদের লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও এগিয়ে আনতে হবে। শিশুদের প্রতি বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গমাতার এই অসীম ভালবাসার প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই আমাদের আগামী দিনের ভবিষ্যৎ আজকের শিশুদের গড়ে তুলতে হবে।  বৃহস্পতিবার রাঙ্গামাটি চিংহ্লা মং মারী ষ্টেডিয়ামে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্ণামেন্টের জেলা পর্যায়ের খেলার উদ্বোধনকালে পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমা এ কথা বলেন।

এসময় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাঙ্গামাটি জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রওশন আলী, এডিপিও মো. মনসুর আলী, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক বরুন বিকাশ দেওয়ান, সদর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ত্রিরতন চাকমা, বিশিষ্ট সমাজ সেবক দানবীর চাকমাসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

চেয়ারম্যান বৃষকেতু চাকমা বলেন, আমাদের আগামী দিনের ফুটবলার গড়ে তোলার জন্য তৃণমূল পর্যায় থেকে ক্ষুদে খেলোয়াড় সৃষ্টি করতে হবে। এই ধরনের ফুটবল টুর্নামেন্টের আয়োজন ভবিষ্যৎ খেলোয়াড়দের দক্ষ ফুটবলার হওয়ার পথ সৃষ্টি করবে। তিনি আরো বলেন, বিশ্বের বড় বড় খেলোয়াড়, পেলে, ম্যারাডোনা, মেসি, নেইমার, সুয়ারেজ, রোনাল্ডোসহ বিভিন্ন খেলোয়াড়দের কারণে আজ তাদের দেশ গর্বিত। এই দেশের দলগুলো ভালো খেলে বলেই বিশ্বের কাছে পরিচিত।

উদ্বোধনী খেলায় বঙ্গমাতা টুর্নামেন্টের বালিকাদের খেলায় কাপ্তাই উপজেলার চংড়াছড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় বরকল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে ২-০ গোলে পরাজিত করে। বালক দলের খেলায় বরকল মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ৩-১ গোলে কাপ্তাই মুরালীপড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়কে পরাজিত করে।




মেসির জাদুতে সরাসরি বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা

পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

জাদুকর তার রহস্যময় হ্যাট থেকে আসল বিস্ময়টা বের করে আনলেন একেবারে প্রদর্শনীর শেষে। পুরো পাহাড় বোঝা একা বয়ে নিলেন কাঁধে। লিওনেল মেসি, আর্জেন্টিনার গায়ে তার সম্ভাব্য শেষ ম্যাচ খেলতে নেমে গড়লেন নতুন ইতিহাস। ছাইভস্ম থেকে জেগে ওঠা ফিনিক্স পাখি। মেসির দুর্দান্ত হ্যাটট্রিকে ইকুয়েডরকে ৩-১ গোলে হারিয়ে সরাসরি বিশ্বকাপ নিশ্চিত করল আর্জেন্টিনা।

ড্র করলেও হয়তো বাদ পড়ে যেতে হবে, জিতলেও সরাসরি নিশ্চিত নয় বিশ্বকাপ-এমন কঠিন সমীকরণ ছিল আর্জেন্টিনার সামনে। ছিল ইকুয়েডরের পর্বতচূড়ায় খেলার কঠিনতম চ্যালেঞ্জ। যেখানে আর্জেন্টিনার সর্বশেষ জয় ছিল ১৬ বছর আগে। পুরো পর্বতমালা আর্জেন্টিনার কাঁধে চাপিয়ে দিয়ে ম্যাচের মাত্র ৪০ সেকেন্ডে গোল করল ইকুয়েডর! আর্জেন্টিনা তখন ১৯৭০ বিশ্বকাপের পর প্রথম বাছাইপর্বে ছিটকে যাওয়ার ফাঁদে।

এই অবস্থায় দ্রুত গোল না পেলে মানসিকভাবেই ভেঙে পড়ত আর্জেন্টিনা। বলের অস্বাভাবিক আচরণের সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে ইকুয়েডর পাল্টা আক্রমণে আরও কয়েকবার ত্রাসও ছড়াল। সেই চাপ থেকে দলকে বের করে আনতে জাদুকরি কিছু একটা করতেই হতো মেসিকে। মেসি পারবেন? নাকি রাশিয়া বিশ্বকাপটা মেসিকে ছাড়াই দেখতে হবে? ভাষ্যকারের গলাও তখন কাঁপছে।

১২ মিনিটে জন্ম নিল প্রথম জাদুকরি মুহূর্তটি। ড্রিবল করে বল বাড়ালেন বাঁ প্রান্তে থাকে অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া দিকে। দারুণ বোঝাপড়ায় ওয়ান-টু। ডি মারিয়ার বাড়িয়ে দেওয়া বলে বক্সের ভেতর থেকে সেই চেনা বাঁ পায়ের শট। উদ্‌যাপন করার সময় অতটা নেই। বল নিজেই জাল থেকে কুড়িয়ে বসালেন সেন্টারে।

২০ মিনিটে এবার মেসির একার জাদু। ইকুয়েডর ডিফেন্ডারের পা থেকে বল কেড়ে নিয়ে বক্সের বা প্রান্তে ঢুকে জোরালো কিন্তু মাপা শটে ক্রসবারের নিচ দিয়ে পাঠালেন জালে। ২-১!

এগিয়ে থাকলেও স্বস্তিতে নেই আর্জেন্টিনা। অন্তত ২ গোলের লিড তো চাই। সেটাও এনেই দিয়েছিলেন প্রায়। ৩২ মিনিটে দুর্দান্ত থ্রু বল। ডি মারিয়া রক্ষণের ফাঁদ গলে বেরিয়েও গেলেন। সামনে কেবল গোলরক্ষক। কিন্তু বলটা চিপ করতে পারলেন না ডি মারিয়া।

প্রথমার্ধ সেখানেই শেষ। কিন্তু পর্বতচূড়ার অক্সিজেনের ঘাটতি ৬০ মিনিটের ক্লান্তি এনে দিয়েছে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ইকুয়েডর আরও গোছালো আক্রমণ শুরু করল। ২-২ ড্র হলেও বিপদে পড়বে আর্জেন্টিনা। এবার ৬২ মিনিটে বক্সের মাথায় বল পেয়ে তিন ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে বল ভাসালেন হাওয়ায়। বোকা বনে গেলেন লাইন থেকে বেশ সামনে দাঁড়িয়ে থাকা অপ্রস্তুত গোলরক্ষক। হ্যাটট্রিক! বার্সেলোনার জার্সিতে ৩৯টি হ্যাটট্রিক করেছেন। আর্জেন্টিনার জার্সিতেও চারটি। কিন্তু ক্যারিয়ারের ৪৪তম হ্যাটট্রিকটি মেসি ভুলবেন না কখনো।

বদলি হিসেবে নামা ইকার্দি যোগ করা সময়ে সহজ সুযোগ হাতছাড়া না করলে ব্যবধান বড় হতে পারত। নতুন তারকা দিবালা মাঠে নামার সুযোগই পেলেন না। না হয়ে ভালো হলো বরং। ম্যাচটি পরিপূর্ণভাবে হয়ে গেল মেসি শো। আজকের দিনের জন্য মেসি একাই যেন হ্যারি হুডিনি, নয়তো ডেভিড কপারফিল্ড। যেদিন মেসির নিন্দুকেরাও মুখে যা-ই বলুন, মন থেকে প্রবল করতালি দিয়ে বলছেন, ব্রাভো, ব্রাভো!

সূত্র: প্রথম আলো




গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টে কাপ্তাই ইউনিয়ন চ্যাম্পিয়ন

কাপ্তাই প্রতিনিধি:

কাপ্তাই উপজেলা আন্তঃ ইউনিয়ন পরিষদ গোল্ডকাপ টুর্নামেন্ট এর ফাইনাল খেলা  শুক্রবার কর্ণফুলী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। এতে কাপ্তাই ইউনিয়ন পরিষদ ট্রাইবেকারের মাধ্যমে চিৎমরম ইউনিয়ন পরিষদের সাথে ৪-১ গোলে বিজয়ী হয়।

কাপ্তাই উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার উদ্যোগে আয়োজিত গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টে ফাইনাল খেলায় কাপ্তাই ইউনিয়ন পরিষদ ও চিৎমরম ইউনিয়ন পরিষদ অংশ নেয়। বেলা সাড়ে ৩টায় খেলা শুরু হয়ে গোলশুন্য অবস্থায় নির্ধারিত সময় অতিক্রান্ত হয়। পরে ট্রাইবেকারের মাধ্যমে কাপ্তাই ইউনিয়ন পরিষদ ৪-১ গোলে বিজয়ী হয়।

খেলা শেষে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও কাপ্তাই ইউএনও  তারিকুল আলমের সভাপতিত্বে গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের পুরষ্কার বিতরনী সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, সাবেক পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও রাঙ্গামাটি জেলা আ’লীগ সভাপতি দীপংকর তালুকদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য হাজী কামাল উদ্দিন, জেলা পরিষদ সদস্য থোয়াইচিং মং মারমা, জেলা আ’লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মফিজুল হক, উপজেলা আ’লীগ সভাপতি অংসুইছাইন চৌধুরী ও কেপিএম’র এমডি ড. এমএমএ কাদের ।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত বিকাশ তনচংগ্যা জটিল, ডা. ডেভিড খান, ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী বেবী, আব্দুল লতিফ, চিরনজীত তনচংগ্যা, খ্যাইসা অং মারমা ও কাপ্তাই থানা অফিসার ইনচার্জ সৈয়দ মো. নুর, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহাদাৎ চৌধুরী, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক ও টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটির আহবায়ক কাজী মাকসুদুর রহমান বাবুল প্রমুখ।

সভা শেষে প্রধান অতিথি বিজয়ী দল কাপ্তাই ইউপি’কে চ্যাম্পিয়ন গোল্ডকাপ ট্রফি প্রদান করেন।




পেরুর বিরুদ্ধে জিততেই হবে মেসিদের


পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

পরিসংখ্যানটা শুনলে চমকে উঠতে পারেন আর্জেন্তিনার সমর্থকরা। রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে ১৬ টি ম্যাচে লিওনেল মেসিদের দলের গোল সংখ্যা মাত্র ১৬। অর্থ্যাৎ ম্যাচ পিছু একটি করে গোল করেছেন জর্জ সাম্পাওলির ছেলেরা।

এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ( ৬ অক্টোবর) ভোরে পেরুর মুখোমুখি হতে চলেছে ম্যারাডোনার দেশ। আগামী বছর রাশিয়া বিশ্বকাপে যেতে গেলে যে ম্যাচে জিততেই হবে মেসিদের। ফল অন্য রকম হলেই বিশ্বকাপের মূলপর্বে যাওয়ার স্বপ্ন ফিকে হতে পারে মেসিদের।

দশ দলের লাতিন আমেরিকা গ্রুপে (কনমেবল) এই মুহূর্তে আর্জেন্তিনার পয়েন্ট ২৪। মেসিরা এই মুহূর্তে রয়েছে পঞ্চম স্থানে। গ্রুপের প্রথম চার দল সরাসরি খেলবে রাশিয়ায়। পঞ্চম দলকে ওসেনিয়া গ্রুপের দলের সঙ্গে প্লে-অফ খেলে যেতে হবে বিশ্বকাপে। খুব সম্ভবত সেই দলটি নিউজিল্যান্ড।

ফলে ঘরের মাঠে পেরু এবং তার পর অ্যাওয়ে ম্যাচে ইকুয়েডরকে হারালে বিশ্বকাপের টিকিট মিলতে পারে ১৯৭৮ ও ১৯৮৬-র বিশ্বকাপ জয়ী দেশের। কিন্তু পেরুর বিরুদ্ধে নামার আগে অনেক ‘যদি’, ‘কিন্তু’ অপেক্ষা করে রয়েছে আর্জেন্টিনার সামনে। কারণ, ১৬ ম্যাচে পেরুর পয়েন্টও ২৪। গোল পার্থক্যে তারা রয়ে গিয়েছে শেষ চারে। আর্জেন্টিনার চেয়ে এক পয়েন্ট পিছনে রয়েছে চিলে।

ফলে পেরুর বিরুদ্ধে জিতেও যদি আর্জেন্টিনা ইকুয়েডরের বিরুদ্ধে ড্র করে তা হলে নির্ভর করে থাকতে হবে চিলের উপর। তখন চিলেকে হারতে হবে বাকি দুই ম্যাচে। আর পেরুর বিরুদ্ধে ড্র করলে ইকুয়েডরকে দুই বা তার চেয়েও বেশি গোলে হারাতে হবে আর্জেন্টিনাকে। যাতে লিগ টেবলে পেরুর উপরে থাকতে পারে তারা। কিন্তু পেরুর বিরুদ্ধে হেরে গেলে মেসিদের মূলপর্বে যাওয়া বেশ কষ্টকর হবে। তখন আর্জেন্টিনাকে তাকিয়ে থাকতে হবে চিলের ফল খারাপ হয় কি না সে দিকে।

এ রকম অবস্থায় আর্জেন্টিনা কোচ জর্জ সাম্পাওলির রাতের ঘুম গিয়েছে, গত সপ্তাহে তাঁর অন্যতম ফরোয়ার্ড সের্জিও আগুয়েরো নেদারল্যান্ডসে গাড়ি দুর্ঘটনায় পাঁজরের হাড় ভাঙায়। তাই ডাকা হয়েছে দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে থাকা ফের্নান্দো গাগো-কে। এরই মাঝে আর্জেন্টিনাকে নিয়ে হুঙ্কার ছেড়েছে পেরু। বলে দিয়েছে, মেসিকে নিয়ে বিশেষ কোনও পরিকল্পনা নেই তাদের। পেরুর আর্জেন্টাইন কোচ রিকার্ডো গারেকা বলেছেন, মেসিকে ম্যান মার্কিং করার রাস্তায় কোনও ভাবেই হাঁটবেন না তারা। তাঁর কথায়, ‘‘মেসি নিঃসন্দেহে এই বিশ্বের অন্যতম শ্রেষ্ঠ ফুটবলার। কিন্তু ওর জন্য বিশেষ পরিকল্পনা আমাদের নেই। বরং ওকে জোনাল মার্কিং করব আমরা।’’

তবে পেরু শিবিরে দুঃসংবাদ কার্ড সমস্যায় এই ম্যাচে তাঁরা পাচ্ছে না চার নির্ভরযোগ্য ফুটবলার, পাওলো হুর্তাদো, ক্রিশ্চিয়ান কুয়েভা, আন্দ্রে ক্যারিলো এবং ক্রিশ্চিয়ান রমোসকে। আর্জেন্তিনা কোচ জর্জ সাম্পাওলি যদিও জেতার ব্যাপারে একশো শতাংশ আশাবাদী। বলছেন, ‘‘জেতা ছাড়া আর কোনও রাস্তা নেই। বিশ্বকাপের মূলপর্বে যাওয়ার ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী আমাদের গোটা দল। ছেলেরা কথা দিয়েছে, পর পর দু’টো ম্যাচ জিতে তা বাস্তবে পরিণত করবে।’’

এরই মাঝে বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের ম্যাচ খেলতে এ দিন বলিভিয়া রওনা হল ব্রাজিল। লা পাজে বিশ্বের সবচেয়ে উচ্চতম ফুটবল মাঠে বলিভিয়ার মোকাবিলা করার অনেক আগেই মূলপর্বে চলে গিয়েছে তিতের ব্রাজিল। ফলে পেলের দেশ য়খন নিয়মরক্ষার ম্যাচ খেলতে নামছে, তখন ম্যারাডোনার দেশের কাছে জেতা ছাড়া অন্য কোনও রাস্তা আর খোলা নেই।

অন্যদিকে, ভেনেজুয়েলাকে হারালেই বিশ্বকাপের টিকিট পাকা করে ফেলবে দ্বিতীয় স্থানে থাকা উরুগুয়ে। তৃতীয় স্থানে থাকা কলম্বিয়া প্যারাগুয়েকে হারালে আর চিলে ঘরের মাঠে ইকুয়েডরের কাছে হারলে বিশ্বকাপের টিকিট হাতে চলে আসবে হামেস রদরিগেজ-দের হাতে।




থানচিতে ফুটবল টুর্নামেন্টে নাইন্দারী পাড়া চ্যাম্পিয়ন

থানচি প্রতিনিধি:

মাহা ওয়াগ্যোয়াই পোয়েঃ (প্রবারনা ) উপলক্ষ্যে যুব সমাজের উদ্যোগে এক প্রীতি ফুটবল টুর্নামেন্ট  থানচি মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত হয় ।

বুধবার (৪ অক্টোবর) বিকাল ৪টায় সমাপনী খেলায় নাইন্দারীপাড়া একাদশ বনাম চথোয়াই পাড়া একাদশ মধ্যে ফাইনালে চথোয়াই পাড়া একাদশকে ৩ -২ গোলে  হারিয়ে নাইন্দারী পাড়া একাদশ চ্যাম্পিয়ন ও চথোয়াই পাড়া একাদশ রানার্স আপ হয়।

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদে ভাইস চেয়ারম্যান চসাথোয়াই মারমা, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  প্রেসক্লাবের সভাপতি অনুপম মারমা, সাধারণ সম্পাদক শহীদুল ইসলাম, ওয়ার্ড মেম্বার নাইসিংচিং মারমা, তোয়ার দির বম, চাইসিংউ মারমা, মহিলা মেম্বার ডলিচিং মারমা, আয়োজক কমিটির সভাপতি মংছোরী মারমা প্রমূখ।

খেলা শেষে অতিথিরা চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলকে  পুরস্কার তুলে দেন।




কাপ্তাই উপজেলা আন্তঃ ইউনিয়ন পরিষদ গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন

 

কাপ্তাই প্রতিনিধি:

উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা কর্তৃক কাপ্তাই উপজেলা আন্তঃ ইউনিয়ন পরিষদ গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্ণামেন্ট সোমবার (২অক্টোবার) বিকাল সাড়ে তিনটায় কর্ণফুলী স্টেডিয়াম মাঠে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ও নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

আন্তঃ ইউনিয়ন পরিষদ খেলা উদ্বোধন করেন কাপ্তাই ১৯বিজিবি ওয়াগ্গা জোন অধিনায়ক লে. কর্ণেল মো. শহীদুল ইসলাম পিএসসি। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অংসুইছাইন চৌধুরী, কেপিএম এমডি এমএম কাদের, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত বিকাশ তংচঙ্গ্যা, কাপ্তাই থানার ওসি সৈয়দ মোহাম্মাদ নুর, পাঁচ ইউপি চেয়ারম্যান প্রমুখ।

উদ্বোধনী খেলায় ১নং চন্দ্রঘোনা ইউপি পরিষদ বনাম রাইখালী ইউপি পরিষদের মধ্যে খেলা অনুষ্ঠিত হয়।

রাইখালী ইউপিকে শূন্য-২ গোলে চন্দ্রঘোনা পরিষদ পরাজিত করে বিজয় অর্জন করে। খেলার রেফারির দায়িত্ব পালন করেন উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক কাজী মাকসুদুর রহমান বাবুল। মঙ্গলবার চিংমরম বনাম ওয়াগ্গা ইউপি পরিষদের মধ্যে খেলা অনুষ্ঠিত হবে।




জেলা ফুটবল লীগের উদ্বোধনী টুর্নামেন্টে শেখ জামাল চকরিয়া ক্লাবের শুভ সুচনা

চকরিয়া প্রতিনিধি:
২৯ সেপ্টেম্বর শুক্রবার কক্সবাজার বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়ামে জেলা ফুটবল লীগের উদ্বোধনী টুর্নামেন্টে উখিয়া কোটবাজার খেলোয়াড় সমিতিকে ৩-০ গোলে হারিয়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শেখ জামাল ক্লাবের শুভ সুচনা করেছে। উদ্বোধনী খেলায় শেখ জামাল চকরিয়া ক্লাবের এ অগ্রযাত্রায় মাঠে থেকে খেলোয়াড়দের উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা দেয়ায় ক্লাবের চেয়ারম্যান চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আলহাজ ফজলুল করিম সাঈদী চকরিয়াবাসির কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।

আগামীতেও জেলার আলোচিত ফুটবল দল শেখ জামাল ক্লাব চকরিয়ার খেলোয়াড়দের ক্রীড়া নৈপুণ্য অব্যাহত রাখতে টিমের জন্য সকলের কাছে দোয়া প্রত্যাশা করেছেন সাঈদী।

জানা গেছে, উদ্বোধনী খেলার প্রথমার্ধে শেখ জামাল ক্লাবের খেলোয়াড়রা প্রতিপক্ষের জালে ২টি গোল করেন। দ্বিতীয়ার্ধের খেলায় আরো একটি গোল দিয়ে মাঠ থেকে হাসিমুখে বের হন।

ক্লাবের চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী জানিয়েছেন, অতীতের মতো শেখ জামাল চকরিয়া ক্লাবকে এবার দেশ-বিদেশী তারকামানের খেলোয়াড় নিয়ে টিম গঠন করা হয়েছে। টিমের পক্ষে নিয়মিত খেলোয়াড়সহ কয়েকজন বিদেশী খেলোয়াড় টুর্নামেন্টে অংশ নিচ্ছে।