কখনো যদি বাংলাদেশ আর্মির সাথে একদিনও কাজ করার সু্যোগ পাই, চিরকৃতজ্ঞ থাকব

18010796

মাশরাফি বিন মুর্তজা

প্রথমে আমার অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই আপনাদের সবাইকে যারা দেশ ও দেশের মানুষের জন্য সেবা করে যাচ্ছেন। আমার এবারের খাগড়াছড়ি সেনানিবাস ভ্রমণ থেকে আমি বুঝতে পেরেছি একজন সৈনিক তাঁর মাতৃভূমির জন্য কি পরিমাণ আত্মত্যাগ করেন।

আপনারা হলেন সেই সব মানুষ যারা দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন সকল প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে, কিন্তু আপনাদের বীরত্ব গাঁথা হয়ত কখনো কোন জাতীয় দৈনিক বা সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হয়নি। আমার সাথে এমন একজন সৈনিক এর দেখা হয়েছে যিনি খুব শীগ্রই বাবা হবেন। অথচ দেশের জন্য দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি আজ তাঁর পরিবার থেকে বহুদূরের এই সেনা ক্যাম্প এ অবস্থান করছেন।

আমি স্বীকার করি অনেকের কাছেই সেপাই পলাশ এর দেশের প্রতি অঙ্গীকার একটি সামান্য পরিসংখ্যান ছাড়া আর কিছুই নয়। নিজের কাজ দিয়ে জাতীয় সঙ্গীত কে সমুন্নত রাখার প্রচেষ্টা কিংবা গ্যালারিতে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশ দলকে সমর্থন দেয়াকেই আমরা হয়ত দেশাত্মবোধের পরিচায়ক হিসেবে মনে করি। কিন্তু মনে রাখবেন, এর কোনকিছুই আপনাদের আত্মত্যাগের সতূল্য নয়।

আজ বাংলাদেশ আর্মির এবং বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের প্রত্যেক সদস্য দেশের জন্য জীবন উৎসর্গ করতে প্রস্তুত আছেন। আমার এই ভেবে খুব কষ্ট হয় যে আপনারা এবং আপনাদের আপনজনেরা অত্যন্ত কষ্ট সহ্য করেন যেন আমরা নিরাপদে ঘুম থেকে উঠতে পারি।

যেদিন আমাদের দেশের সকল নাগরিক একই ভাবে দেশের জন্য আত্মনিয়োগ করতে প্রস্তুত হবে সেদিন আমরা পাবো সমৃদ্ধির বাংলাদেশ। মনে রাখবেন, “সমরে আমরা শান্তিতে আমরা সর্বত্র আমরা দেশের তরে”।

সর্বশেষ এই বলতে চাই, “ যদি কখনো বাংলাদেশ আর্মির সাথে একদিনও কাজ করার সু্যোগ পাই, আমি চিরকৃতজ্ঞ থাকব।” এত সময় ধরে শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য আপনাদের কে অশেষ ধন্যবাদ।
– আপনাদের মাশরাফি (একজন ব্যক্তি যে শুধুমাত্র ক্রিকেট খেলে)

First and foremost, I’m shouting out a heartfelt “THANK YOU” for all you have done and continue to do for the countrymen and our country.
In my recent visit to Khagrachari Cantonment, I got to realize what an enormous sacrifice a soldier does for our motherland. You are the people who are doers in million small ways, but many of us won’t find your stories on any national news channel or in any newspaper. I met a sepoy(soldier) who just heard that he is going to be a father very soon and kept his pregnant wife away from the remote camp. There are thousands of soldiers & officers doing the same thing every night & day. I agree, many of us are slumbering, lost in our own minor problems of day to day living, with nary a thought to spare for our country and you, her guardians, and for whom, may be Sepoy Polash is nothing more than another statistic.
Standing for the national anthem in any comfortable zone or cheering loudly when Bangladesh beats any other team in a cricket match is the outer limit of our patriotism. But do remember, nothing compare to your sacrifice for the motherland, nothing!
o Today, every single member of the Bangladesh Army & Border Guard Bangladesh (BGB) is prepared to give up his life for the nation. I’m sorry for the fact that you and your near and dear ones have to suffer such hardships to ensure people like me wake up secure every morning.
The day each and every citizen of this country shows this same eagerness to sacrifice everything for the motherland, that will be the beginning of our glorious future.
Remember always: “In Peace or In War We are Everywhere for our Country”
Lastly, I would be ever grateful if I get a chance to work for Bangladesh Army even for a day.
I thank you for reading this through to the end, dear soldier, dear Countrymen!
–Yours Mashrafe, who just play Cricket only

— লেখকের ফেসবুক পেইজ থেকে




আন্ত: ব্যাটালিয়ন কুস্তি প্রতিযোগিতার উদ্বোধন

Untitled-1 copy

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ খাগড়াছড়ি সেক্টরের তত্বাবধানে আন্ত: ব্যাটালিয়ন কুস্তি প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করা হয়েছে। সোমবার সকাল ৯টার দিকে খাগড়াছড়ি জিওনেসিয়াম অডিটোরিয়ামে এ প্রতিযোগিতা উদ্বোধন করা হয়।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ খাগড়াছড়ি সেক্টরের সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল মতিউর রহমান প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়ে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, ৩২ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্ণেল হাসানুজ্জামান, ৩ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্ণেল রফিকুল ইসলাম, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জুয়েল চাকমাসহ সামরিক বেসামরিক ক্রীড়া সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিত্বরা।

প্রতিযোগিতায় চট্টগ্রামের দক্ষিণ-পূর্ব রিজিয়নের ২০টি ব্যাটালিয়নের প্রতিযোগীরা অংশগ্রহণ করেছে।




লংগদুতে গুণীজন সম্মাননা

IMG_20170414_162613

লংগদু প্রতিনিধি :
রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলায় ‘বন্ধুপ্রিয় ক্রীড়া ও সমাজ কল্যাণ সংগঠন’ এর পঞ্চম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, এলাকার গুণীজনদের সম্মাননা প্রদান ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

শুক্রবার, উপজেলার মাইনীমুখ মডেল হাই স্কুল মাঠে সকাল নয়টায় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শেষে বিদ্যালয়ের মিলনায়তনে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, ‘বন্ধুপ্রিয় ক্রীড়া ও সমাজ কল্যাণ সংগঠনের আহবায়ক মো. ইকবাল হোসেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, লংগদু জোনের উপ-অধিনায়ক মেজর মো. রফিকুল ইসলাম।

সংগঠনের সেক্রেটারী মো. আবুল কাশেম এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মো. জানে আলম।

এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন মাইনীমুখ ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল বারেক সরকার, লংগদু প্রেস ক্লাবের সভাপতি মো. এখলাস মিঞা খান।

পরে প্রধান অতিথি এলাকায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য আটজন গুণী ব্যাক্তিকে সম্মাননা স্বরূপ ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এরা হলেন, উপজেলার একজন শিক্ষানুরাগী ও শিক্ষা ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য লংগদু জোন কমান্ডার লে. কর্ণেল আব্দুল আলীম চৌধুরী (পক্ষে গ্রহণ করেন মেজর মো. রফিকুল ইসলাম), সাংবাদিকতায় অবদানের জন্য মো. এখলাস মিঞা খান, রাজনীতিতে সফলতার জন্য মো. জানে আলম, সফল ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হিসেবে আব্দুল বারেক সরকার, গাঁথাছড়া বায়তুশ শরফের বিশেষ অবদানের জন্য হাফেজ মাও. ফোরকান আহম্মদ (পক্ষে গ্রহণ করেন মো. ইলিয়াছ), শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদানের জন্য প্রভাষক মো. হারুনুর রশীদ ও মো. শাহ আলম, মাদ্রাসার শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদানের জন্য মাওলানা সাদুর রশীদ।

আলোচনা সভা শেষে প্রধান অতিথি ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের ও বিভিন্ন বিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে পুরস্কার তিরণ করেন।




খাগড়াছড়ি জোন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে সায়ারে স্পোটিং ক্লাব চ্যাম্পিয়ান

Khagrachari Picture 13-04-2017 copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

খাগড়াছড়িতে শুরু হওয়া জোন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে সায়ারে স্পোটিং ক্লাব চ্যাম্পিয়ান হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকালে খাগড়াছড়ি স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনাল খেলা ভাইবোনছড়া যুব সংঘ ক্লাবকে পরাজিত করে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার গৌরব অর্জন করে সায়ারে স্পোটিং ক্লাব।

ফাইনাল খেলায় খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে খেলা উপভোগ করেন এবং বিজয়ী ও বিজিতদের মাঝে পুরষ্কার বিতরণ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, খাগড়াছড়ি সদর জোন কমান্ডার লে.কর্ণেল জিএম সোহাগ, জেলা প্রশাসক মো. রাশেদুল ইসলাম ও পুলিশ মো. আলী আহমেদ খানসহ সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি ও ক্রীড়া সংস্থার নেতৃবৃন্দ।

শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়ন এ প্রতিপাদ্যে গত ৪ এপ্রিল খাগড়াছড়ি স্টেডিয়ামে বর্ণাঢ্য আনুষ্ঠানিকতায় খাগড়াছড়ি জোন কাপ ফুটবল টুনামেন্টের সূচনা হয়।

টুর্নামেন্টে নবীন স্মৃতি সংসদ, ঠাকুরছড়া, ভাইবোনছড়া যুব সংঘ ক্লাব, ফুরুং নিসাল ক্লাব, নব জাগরন সংঘ, শালবন আনসার ও ভিডিপি ক্লাব এবং সায়ারে ক্লাব অংশ নেয়।




বাইশারীতে স্থানীয়দের উদ্যোগে দারিয়াবান্দা খেলা

At-13 copy

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারীতে হারিয়ে যেতে বসা গ্রামীন জনপদের ঐতিহ্যবাহী হা-ডু-ডু, মল (দারিয়াবান্দা) ইত্যাদি খেলা গুলো পুণরায় ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে স্থানীয় লোকজন।

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষ্যে বৃহস্পতিবার বিকাল ২টায় ইউনিয়নের তুফান আলী পাড়ায় স্থানীয় লোকজনের উদ্যোগে ৫টি দলের অংশগ্রহণে মল (দারিয়াবান্দা) খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে নুরুল আলম গ্রুপ নামের একটি দল। খেলা পরিচালনা করেন প্রবনী মুরব্বী আবুল হোছন ও মোশারফ আলী।

আয়োজক কমিটির সদস্য ইউপি মেম্বার আবু তাহের জানান, বিলুপ্ত প্রায় এসব খেলাধুলা ফিরিয়ে আনতে স্থানীয় ইউপি সদস্যের উদ্যোগেই দারিয়াবান্দা খেলার আয়োজন করা হয়েছে। তাছাড়া এসব খেলা গুলো এলাকায় প্রচলণ থাকলে অপরাধ প্রবণতা কমার সম্ভাবনা রয়েছে।

ওই অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, মহিলা ইউপি সদস্যা সাবেকুন্নাহার, রাবার বাগান মালিক ইঞ্জিনিয়ার ফারুক খান, ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি মো. আবুল কালাম, যুবদল সভাপতি জসিম উদ্দিন, তুফান আলী পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নাজিম উদ্দিন, নাইক্ষ্যংছড়ি প্রেসক্লাবের ক্রীড়া সম্পাদক আব্দুর রশিদ, নির্বাহী সদস্য মুফিজুর রহমান, আয়োজক কমিটির সদস্য নুরুজ্জামান প্রমুখ।




পানছড়ি ফুটবল একাডেমির পাশে খাগড়াছড়ি জোন

ACADEMY PIC copy

পানছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলা ফুটবল একাডেমির পাশে দাঁড়িয়েছে খাগড়াছড়ি জোন। একাডেমির খেলোয়াড়দের জার্সি ক্রয়ের জন্য নগদ দশ হাজার টাকা অনুদান প্রদান করেছে খাগড়াছড়ি জোন অধিনায়ক জিএম সোহাগ পিএসসি।

কিছুদিন আগে পানছড়িতে ৩ বিজিবি লোগাং জোন কর্তৃক আয়োজিত জোন কমান্ডার কাপ ফুটবলের ফাইনালে পানছড়ি ফুটবল একাডেমির খেলোয়াড়দের খেলা দেখে মুগ্ধ হয়ে তিনি সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছিলেন। এ আশ্বাসকে বাস্তবে রুপ দিয়ে পানছড়ি একাডেমির খেলোয়াড়দের মনোবল আরও চাঙ্গা করে দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় খাগড়াছড়ি জোন সদর দপ্তরে এ নগদ অর্থ গ্রহণ করে একাডেমির ফুটবল কোচ ও পানছড়ি উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান কবির সাজু। এ সময় উপস্থিত ছিলেন খাগড়াছড়ি জোনের অধিনস্থ পানছড়ি সাব জোন অধিনায়ক মেজর রফিকুল ইসলাম।




মহালছড়ি জোন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০১৭ উদ্বোধন

IMG_20170410_155925 copy

মহালছড়ি প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলার মহালছড়ি উপজেলায় মহালছড়ি জোনকতৃক শান্তি, সম্প্রীতি ও উন্নয়ন এ প্রতিপাদ্যে মহালছড়িতে শুরু হয়েছে জোন কাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০১৭।

সোমবার  বিকালে মহালছড়ি ষ্টেডিয়ামে বর্ণাঢ্য আনুষ্ঠানিকতায় জোন টুনামেন্টের উদ্বোধন করেন, মহালছড়ি আর্মি জোনের জোন কমান্ডার লে. কর্নেল সৈয়দ মো. আব্দুল্লাহ্ জুনায়েদ পিএসসি।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন, মহালছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বাবু বিমল কান্তি চাকমা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা মো. মোমিন, মহালছড়ি ৬ আর্মড পু্লিশ ব্যাটালিয়নের উপ অধিনায়ক মো. শাহনেওয়াজ খালেদ, মহালছড়ি থানা অফিসার ইনর্চাজ মো. সেমায়ুন কবির চৌধুরী, মহালছড়ি সদর ইউপি চেয়ারম্যান বাবু রতন কুমার শীল, মহালছড়ির  মো. শাহজাহান পাটোয়ারী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জসিম উদ্দিন  ও স্থানীয় সাংবাদিকসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

এ টুর্নামেন্টে মোট ১২টি ক্লাবের ১২টি দল অংশ গ্রহণ করবে, এর মধ্যে উদ্বোধনীয় খেলায় অংশ গ্রহণ করে শাপলা সংঘ বনাম বন্ধন একাদশ।




টইটংয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ বিজয়ীদের সংবর্ধনা

পেকুয়া প্রতিনিধি:

পেকুয়া উপজেলার বঙ্গবন্ধু গেল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট/২০১৬ জাতীয় পর্যায়ে বিজয়ী ও চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করায় টইটং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ফুটবলদল ও ক্ষুদে ফুটবলারদের সংবর্ধনা ও ২০১৬ সালে অনুষ্টিত টেফ মেধা বৃত্তি পরীক্ষার বৃত্তিপ্রাপ্ত মেধাবীদের বৃত্তি ও পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠান ৬ এপ্রিল টইটং ইক্বরা স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে সুষ্টুভাবে সম্পন্ন হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন টইটং এডুকেশন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুহাম্মদউল্লাহ ফিরোজ। টইটং এডুকেশন ফাউন্ডেশনের পরিচালক আবদুল মজিদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পেকুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাফায়াত আজিজ রাজু।

অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ছিলেন টইটং এডুকেশন ফাউন্ডেশনের সাবেক চেয়ারম্যান লায়ন নুরুল আবছার এমজেএফ। প্রধান আলোচক ছিলেন টইটং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জাহেদুল ইসলাম চৌধুরী।

বিশেষ অতিথি ছিলেন টেফ মেধা বৃত্তি পরীক্ষার প্রধান সমন্বয়কারী মাস্টার জয়নাল আবেদীন, টইটং এডুকেশন ফাউন্ডেশনের জেনারেল সেক্রেটারী লায়ন মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, পেকুয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব আবুল হাসেম, টইটং ইক্বরা স্কুল এন্ড কলেজের কেন্দ্র সচিব মাষ্টার দলিল আহমদ, পেকুয়া উপজেলা কিন্ডার গার্টেন এসোসিয়েশনের সভাপতি নুরুল ইসলাম বিএসসি, টইটং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুর মোহাম্মদ।

টইটং এডুকেশন ফাউন্ডেশনের পরিচালক ও টইটং ইক্বরা স্কুল এন্ড কলেজের রেক্টর ডাক্তার ফরিদুল আলম, টেফের পরিচালক আবদুল মাবুদ প্রমুখ।




সবাই আন্তরিক হলে দেশে ক্রীড়া বিপ্লব ঘটবে

unnamed copy

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

সারাদেশের ন্যায় বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে প্রথম বারের মতো খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকালের দিকে উপজেলা পরিষদ থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ঘুরে মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে গিয়ে শেষ হয়।

বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী আর ক্রীড়া সংগঠনের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে দিনব্যাপী ক্রীড়া উৎসবের উদ্বোধন করেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান।

এসময় মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাহাদাত হোসেন টিটো, মাটিরাঙ্গা পৌরসভার প্যানেল মেয়র মো. আলাউদ্দিন লিটন, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জুয়েল চাকমা উপস্থিত ছিলেন।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সহযোগিতায় মাটিরাঙ্গা উপজেলা প্রশাসন  জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও ক্রীড়া উৎসবের আয়োজন করে।

সরকার জঙ্গি, সন্ত্রাস ও মাদকের বিরুদ্ধে যে লড়াই চালাচ্ছে ক্রীড়াই পারে সেই লড়াইকে সফল করতে এমন মন্তব্য করে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান বলেন, এজন্য আমাদের নতুন প্রজন্মকে ক্রীড়া চর্চায় মনোনিবেশ করতে হবে।

মাটিরাঙ্গার প্রতিটি এলাকায় ক্রীড়া উপযোগী সুন্দর পরিবেশসহ খেলাধুলার জায়গা নির্ধারণ করা হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাই বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্রীড়ার প্রতি বিশেষ আন্তরিক বলে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ ক্রীড়া ক্ষেত্রে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে। সরকারের পাশাপাশি সবাই আন্তরিক হলে দেশে ক্রীড়া বিপ্লব ঘটবে বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। আর সমাজ থেকে জঙ্গিবাদ ও মাদক নির্মূলে শিক্ষার্থীদের ক্রীড়া চর্চায় উদ্বুদ্ধ করার আহ্বান জানান তিনি।

পরে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশ গ্রহণে বিভিন্ন খেলাধুলা অনুষ্ঠিত হয়।




বর্ণাঢ্য আয়োজনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস পালিত

IMG_20170406_094107 copy

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

বর্ণাঢ্য আয়োজনে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ক্রীড়া দিবস পালন করেছে খাগড়াছড়ি জেলা ক্রীড়া সংস্থা। দিবসটি উপলক্ষে বৃহস্পতিবার সকাল ৯টার দিকে জেলার টাউনহল প্রাঙ্গণ থেকে শোভাযাত্রা বের করে। শোভাযাত্রাকারীরা শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রেসক্লাব পর্যন্ত পৌঁছে  সমাপ্ত করে।

শোভাযাত্রায় জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি রাশেদুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ সভাপতি এটিএম কাউছার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম সালাউদ্দিন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি মো. শানেআলম, সাধারণ সম্পাদক জুয়েল চাকমাসহ স্থানীয় সাংবাদিক, ক্রীড়াবিদ, ক্রীড়া সংগঠক এবং ক্রীড়া  সংশ্লিষ্টরা অংশ নেয়।