ফিটনেস টেস্টে ব্যর্থ যুবরাজ

 

 

নিজস্ব প্রতিবেদক:

শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ওয়ান ডে সিরিজে যুবরাজ সিং এবং সুরেশ রায়নার সুযোগ না পাওয়ার পিছনে উঠে আসছে তাদের ফিটনেস পরীক্ষায় ব্যর্থ হওয়ার কাহিনি।

জানা গিয়েছে, ভারতের জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমিতে হওয়া ‘ইয়ো-ইয়ো’ পরীক্ষায় ব্যর্থ হন দু’জনে। এটা এক ধরনের শারীরিক সহ্য ক্ষমতার পরীক্ষা। যে পরীক্ষাটা এই দুই ক্রিকেটারের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এই পরীক্ষা ‘বিপ টেস্ট’-এরও এক উন্নতমানের সংস্করণ। এই পরীক্ষায় পাশ মার্ক ধরা হয় অন্তত ১৯.৫ স্কোর। জানা গিয়েছে, যুবরাজ এবং রায়না এর অনেক কম স্কোর করেছেন। যুবরাজ কোনও মতে ১৬ ছুঁয়েছেন। দলের সবচেয়ে ফিট ক্রিকেটার, বিরাট কোহালির স্কোর ২১।

বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে ভারতীয় দল সবচেয়ে জোর দিয়েছে ফিটনেসের ওপর। এক বোর্ডকর্তা সংবাদসংস্থাকে বলেছেন, ‘‘এই টিমের থিঙ্ক ট্যাঙ্ক— কোচ রবি শাস্ত্রী এবং বিরাট কোহালি পরিষ্কার বুঝিয়ে দিয়েছে, কোনও ভাবেই ফিটনেস নিয়ে সমঝোতা করা যাবে না। অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটারেরা গড়ে ২১ স্কোর করে। আমাদের কোহালি, রবীন্দ্র জাডেজা, মণীশ পাণ্ডেরা নিয়মিত এই স্কোর করে। বাকিরা ১৯.৫-এর ওপরেই থাকে।’’

এই ইয়ো-ইয়ো পরীক্ষাটা কী? ২০ মিটারের তফাতে ‘কোন’ দিয়ে দু’টো লাইন করা হয়। একটা লাইনের পিছন থেকে দৌড় শুরু করেন খেলোয়াড়রা। এই দু’টো লাইনের মধ্যে দৌড়তে থাকেন তারা। যখন ‘বিপ’ শব্দ হয়, তখন ঘুরতে হয়। প্রতি মিনিটে দৌড়ের গতি বেড়ে যায়।

এর আগে ক্রিকেটারদের জন্য বিপ টেস্টের ব্যবস্থা থাকত। যেখানে নব্বইয়ের দশকের গড়পরতা ভারতীয় ক্রিকেটারেরা ১৬-১৬.৫ স্কোর করত। ব্যতিক্রম ছিলেন মহম্মদ আজহারউদ্দিন। এখন সে সব দিন বদলে গিয়েছে। ফিটনেস এখন নতুন মন্ত্র হয়ে গিয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটারদের। অস্ট্রেলিয়া টিমের মতো অধুনা ভারতীয় ক্রিকেটারেরাও ভাল স্কোর করছেন। আর ভারত অধিনায়ক কোহালি তো সবার আগে রয়েছেন এই ব্যাপারে।

২০১৯ বিশ্বকাপের কথা মাথায় রেখে ভারতীয় দল যে রোডম্যাপ করেছে, তাতে ফিটনেস বিরাট গুরুত্ব পাচ্ছে। যেমন পাচ্ছে ফিল্ডিং।




সুপার কাপের আগে নেইমার নিয়ে চর্চা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

স্পেনের পাততাড়ি গুটিয়ে এই মুহূর্তে তিনি প্যারিসে। কিন্তু তা সত্ত্বেও রবিবার ক্যাম্প ন্যু-তে স্প্যানিশ সুপার কাপে বার্সেলোনা বনাম রিয়াল মাদ্রিদ ম্যাচের আগে তিনি না থেকেও আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে।

তিনি নেইমার দ্য সিলভা স্যান্টোস জুনিয়র। বার্সেলোনা ছেড়ে আসার পর রবিবারই যার অভিষেক হওয়ার কথা প্যারিস সঁ জরমঁ জার্সি গায়ে। আর ঠিক সে দিনেই বার্সা-রিয়াল এল ক্ল্যাসিকো দিয়ে শুরু হচ্ছে স্পেনের ফুটবল মরসুম।

গত মরসুমে লা লিগা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর রিয়াল মাদ্রিদ। আর কোপা দেল রে গিয়েছিল লিও মেসির বার্সেলোনায়। তাই স্প্যানিশ সুপার কাপ কার দখলে যাবে তারই প্রথম পর্বের লড়াই  রবিবার ক্যাম্প ন্যু-তে। আর দ্বিতীয় পর্ব অনুষ্ঠিত হবে ঠিক তার তিন দিন পর সান্তিয়াগো বের্নাবাও-তে।

আর সেই ম্যাচের আগে রিয়াল মাদ্রিদ কোচ জিনেদিন জিদান সুযোগ পেয়েই চিমটি কেটেছেন প্রতিপক্ষকে। ‘‘নেইমারের পরিবর্তে যে  আসবে সে নিশ্চয়ই ভাল পারফর্ম করবে। কিন্তু নেইমারের পরিপূরক হবে বলে মনে হয় না।’’

বার্সা-রিয়াল সেই উত্তেজক ম্যাচের আগে জিদানের পাল্টা দিয়েছে বার্সা শিবিরও। জেরার পিকে যেমন বলেছেন, ‘‘নেইমারের প্রতিভা নিয়ে প্রশ্ন তোলাই অর্থহীন। কিন্তু তার মানে এই নয় যে ও ক্লাব ছেড়ে যাওয়ায় টিম দুর্বল হয়ে গিয়েছে।’’

চলতি মরসুমে এর আগে মায়ামিতে গত মাসে আন্তর্জাতিক চ্যাম্পিয়ন্স কাপে মুখোমুখি হয়েছিল এই দুই দল। যে ম্যাচে পিকে-র শেষ মুহূর্তের গোলেই ৩-২ জিতে ফিরেছিল বার্সেলোনা। তবে সেই ম্যাচ ছিল প্রস্তুতির আবহে। আর রবিবারের এল ক্ল্যাসিকো রয়েছে পুরনো মেজাজ এবং আমেজ নিয়েই।

গত সপ্তাহেই জোয়ান গ্রাম্পার ট্রফি জিতে মরসুম শুরু করেছে বার্সা। একে নেইমারের দলবদল। তার উপর চোটের কারণে নেই রাফিনহা। তাদের কোচও নবাগত। লুইস এনরিকের জায়গায় বার্সার হটসিটে এখন আর্নেস্তে ভেলভের্দে। তবে স্প্যানিশ ফুটবলে এস্প্যানিয়ল, ভ্যালেন্সিয়া, অ্যাথলেটিক বিলবাও-এর মতো দলে কোচিং করানো ভেলভের্দে নিজের হাতের তালুর মতোই জানেন স্পেনের ফুটবলের হালহকিকত। তাই নেইমার নিয়ে প্রশ্ন উঠতেই তার জবাব, ‘‘কে আছে আর কে নেই, তা নিয়ে ভাবছি না। যারা রয়েছে তাদের নিয়েই গোটা মরসুমের পরিকল্পনা ছকে রাখা আছে।’’

এই পরিস্থিতিতে মেসি ও সুয়ারেজের সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হতে পারে জেরার দিউলোফিউ। প্রথম একাদশে থাকতে পারেন নেলসন সেমেদোও। এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন বার্সা কোচ।

অন্য দিকে রিয়াল মাদ্রিদ ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেডকে হারিয়ে উয়েফা সুপার কাপ জিতেছে সম্প্রতি। যে ম্যাচে পরের দিকে মাঠে নেমেছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। রবিবার ম্যাচ সাসপেনশনে থাকায় রিয়ালও পাবে না লুকা মদরিচকে। তবে রোনাল্ডোর সঙ্গে আক্রমণে গ্যারেথ বেলের খেলার সম্ভাবনা যথেষ্টই।




মিষ্টার বাংলাদেশ হতে চায় রিফাত

কক্সবাজার প্রতিনিধি:
মোহাম্মদ রিফাত। বয়স ২১। পেশায় রাজমিস্ত্রি। তার স্বপ্ন একদিন মিষ্টার বাংলাদেশ হবে। আর বডিবিল্ডিংএ কক্সবাজারের সুনাম আরো এক ধাপ এগিয়ে নেবে। আর সেই স্বপ অনুযায়ী গত ৭ বছর ধরে শত প্রতিবন্ধকতার মাঝে শরীর চর্চা চালিয়ে যাচ্ছে। কারন দারিদ্রতা’ই যেন তার স্বপ্ন পূরনে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। রিফাত চকরিয়ার খুটাখালীর সেগুন বাগীচা এলাকার নজরুল ইসলামের ছেলে।

তিনি ৩ ভাই-বোনের মধ্যে সবার বড় এবং পরিবারের একমাত্র উপার্যনকারী। অসুস্থ পিতার দৈনিক ঔষধদের টাকা যোগানো ছাড়াও তাকে পুরো পরিবারের খরচ যোগাতে হয়। একদিন কাজে না গেলে বন্ধ থাকে পরিবারের খাবার। একদিকে দারিদ্রতা অন্যদিকে মিষ্টার বাংলাদেশ হওয়ার অদম্য ইচ্ছা। সব মিলে তাকে চ্যালেঞ্জের সম্মুখিন হতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। যার’ই প্রেক্ষিতে সারা দিনের অক্লান্ত পরিশ্রমের মাঝেও দৈনিক ৩ থেকে ৪ ঘন্টা ব্যায়াম করছে। রিফাত ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেছে। আর ভাল ফলাফলও করেছে। কিন্তু এই ফলাফলে সে সন্তুষ্ট নয়। কারন পরিশ্রম অনুযায়ী আশানুরূপ ফলাফল আসছে না। আর তার জন্য দায়ী একমাত্র আর্থিক সমস্যা।

টাকার অভাবে শরীর চর্চা অনুযায়ী পর্যাপ্ত প্রোটিন সম্মত খাবার খেতে পারছে না। ফলে পুষ্ট হচ্ছে না মাংস পেশী। যেটি প্রতিযোগিতার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ন। তার প্রত্যাশা, সকলের সহযোগিতা। যাতে করে শত প্রতিকূলতার মাঝেও মিষ্টার বাংলাদেশ হতে পারে।

গত ২৭ জুলাই কক্সবাজারে অনুষ্টিত শরীর চর্চা প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করতে আসা রিফাত এসব কথা বলেন। আর ওই প্রতিযোগিতায় ৬৫ কেঃজি’তে দ্বিতীয় স্থান লাভ করে।

শরীর চর্চাবিদরা জানান, রিফাতের শরীর মিষ্টার বাংলাদেশ হওয়ার উপযোগী। প্রয়োজন পর্যাপ্ত প্রোটিন এবং দক্ষ প্রশিক্ষক।

মোহাম্মদ রিফাত আরো জানান, ছোট বেলা থেকে ব্যায়ামের প্রতি আর আকর্ষণ। কোন বড়ি-বিল্ডার দেখলে’ই তার কাছে যেতাম। ঘরে নিয়মিত ব্যায়াম করতাম। পরে নিজ এলাকায় ব্যয়ামাগার না থাকায় ১০ কিলোমিটার দূরে ‘ঈদগাঁহ মাসেল ফিটনেস’ নামে এক ব্যয়ামাগারে ভর্তি হই। আর ওখানে প্রশিক্ষক নয়ন শর্মা’র সহযোগিতায় দৈনিক ৩ থেকে ৪ ঘন্টা ব্যায়াম করি। যদিও কয়েকবার অসুস্থ্যতা আর দারিদ্রতার কারনে কিছুদিন ব্যায়ার করতে যেতে পারিনি।

এ ব্যাপারে রিফাতের প্রশিক্ষক নয়ন শর্মা জানান, রিফাত খুবই ভাল এবং পরিশ্রমী। তিনি সারা দিন কাজ করার পরেও দৈনিক শরীর চর্চা করেন। ১০ কিলোমিটার দূর থেকে যাতায়ত করে নানা প্রতিবন্ধকতার মাঝে তাকে ব্যায়ারম করতে হচ্ছে।

এ ব্যাপারে কক্সবাজার শহরের ‘সী-কক্স’ ব্যায়ামাগারের পরিচালক ৪ বার মিষ্টার বাংলাদেশ খ্যাতি অর্জন করা নাহিদ রেজা খাঁন সুজন জানান, রিফাতের শরীর খুবই সুন্দর। তার শরীর ভাল ফলাফলের জন্য উপযুক্ত। কিন্তু পর্যাপ্ত প্রোটিন এর অভাব থাকায় তার শরীরে ভলিয়ম (মাসল পুষ্টিক) কম। আর পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণের অভাব’ও রয়েছে। এসব পূর্ণ হলে রিফাত অবশ্যই তার লক্ষে পৌছাতে পারবে।

এ ব্যাপারে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অপু জানান, রিফাতের পারিবারিক ও আর্থিক অবস্থা যেই স্থানে সাধারণত সেই অবস্থায় কেউ মিষ্টার বাংলাদেশ হওয়ার স্বপ্ন দেখে না। কিন্ত নানা প্রতিকূলতার মাঝে রিফাত যা করছে তা খুবই প্রশংসনীয় এবং শিক্ষনীয়। রিফাত যোগাযোগ করলে তাকে সুযোগ করে দেওয়া হবে।




গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় জিএমসি ইনষ্টিটিউশন কক্সবাজার জেলা চ্যাম্পিয়ন


পেকুয়া প্রতিনিধি:
৪৬তম জাতীয় স্কুল মাদ্রাসা গ্রীষ্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় পেকুয়া জিএমসি ইনষ্টিটিউশন কক্সবাজার জেলা চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। গতকাল কক্সবাজার সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে অনুষ্ঠিত ফাইনাল খেলায় মালুমঘাট আইডিয়াল হাইস্কুলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জিতে নেয়। এদিকে সকালে একই মাঠে অনুষ্ঠিত সেমি ফাইনালে উখিয়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়কে ৩-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে আইডিয়ালের মুখোমুখি হয় জিএমসি।

ফাইনালে মূল খেলায় কোন পক্ষই গোল করতে না পারায় ট্রাইবেকারে ৪-৩ গোলে মালুমঘাট আইডিয়ালকে হারায়। সেমি ফাইনালে একাই ৩ গোল করে হ্যাট্রিক করেছে ১০ শ্রেণীর ছাত্র হেফাজউদ্দিন। ফাইনালে জিএমসির অধিনায়কের দায়িত্বপালন করেন ১০ শ্রেণীর ছাত্র ইরফান, অন্যান্য খেলোয়াড়রা হলেন, হেফাজ, আবদুল্লাহ, শাওন, নেজাম, মিনহাজ, জোনাইদ, রাশেদ, সাঈদী, দিদার, জোনাইদ-২ প্রমূখ।।

ফাইনাল খেলায় উপস্থিত ছিলেন, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সালাহউদ্দিন, সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, কক্সবাজার সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাম মোহন সেন, নাছির উদ্দিন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি ফজলুল করিম সাঈদী, পেকুয়া জিএমসি ইনষ্টিটিউশনের সভাপতি উম্মে কুলসুম মিনু, মাষ্টার নুর মোহাম্মদ, মাষ্টার আবদুল গফুর উপস্থিত ছিলেন।




৬-৭ গোলে নাইক্ষ্যংছড়িকে হারিয়ে রোয়াংছড়ির জয়

রোয়াংছড়ি প্রতিনিধি:

৪৬তম বাংলাদেশ জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা কর্তৃক আয়োজিত গ্রীষ্মকালীন ফুটবল-২০১৭ প্রতিযোগিতা নাইক্ষ্যংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়কে ৬-৭ গোলে হারিয়ে রোয়াংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় জয় লাভ করেছে।

বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় বান্দরবান জেলা স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এর অনুষ্ঠানে জেলা শিক্ষা অফিসার সোমারাণী বড়ুয়া সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক দিলিপ কুমার বণিক। এছাড়াও জনপ্রতিনিধি সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তার এবং বিভিন্ন উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক, সহকারি শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন। রোয়াংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে ফুটবল খেলোয়ারদের মধ্যে অধিনায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালনে ছিলেন দশম শ্রেণি ছাত্র উহ্লাশৈ মারমা।

এসময় রোয়াংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র সহকারী শিক্ষক বোধিচন্দ্র তঞ্চঙ্গ্যা বলেন জেলা পর্যায়ে উপজেলার চ্যাম্পিয়ন দল অংশ গ্রহণ করে রোয়াংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় দল সেমি ফাইনালে লামা ইসলামিয়া মাদ্রাসাকে হারিয়ে ফাইনাল রাউন্ডে ওঠে রোয়াংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে দল।

আজ (৩ আগস্ট) বিকাল ৩টার দিকে রোয়াংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় দল বনাম শক্তিশালী নাইক্ষ্যংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় দলকে নিয়ে ফাইনাল খেলার প্রতিযোগিতা হলে নির্দিষ্ট সময়ে ১-১ গোলে ড্র হয়। পরে ট্রাইবেকারে ৬-৭ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় রোয়াংছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। বান্দরবান জেলার শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট চ্যাম্পিয়ন হয়ে গৌবর অর্জন করেছে। এবার বিভাগীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণের প্রস্তু রয়েছে।




ভেঙে গেল এমএসএন, নেইমারের ক্লাব ছাড়ার কারণ খুঁজছে ফুটবল দুনিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সবুজ গালিচার ওপর দিয়ে আর তারা পাশাপাশি দৌড়বেন না। গোল করে একে অন্যের কোলে উঠে পড়তে আর দেখা যাবে না তাদের। এমএসএন শব্দটা আপাতত ঢুকে গেল ফুটবলের জাদুঘরে।

বার্সেলোনা ছেড়ে যে চলে গেলেন নেইমার দ্য সিলভা স্যান্টোস (জুনিয়র)। ছেড়ে গেলেন লিওনেল মেসি, লুইস সুয়ারেজকে।

নেইমার থাকবেন? না, সত্যিই তিনি প্যারিস সঁ জরমঁ (পিএসজি)-তে চলে যাবেন? গত এক মাস ধরে এই প্রশ্নটা বার বার দুলিয়ে দিয়েছে ফুটবল দুনিয়াকে। হৃৎকম্প তুলেছে বার্সা ভক্তদের। এক এক দিন এক একটা খবর এসেছে, আর নেইমার থ্রিলারে এক একটা মোচড়। এ যেন কোনও থ্রিলারের চেয়ে কম নয়।

কখনও তার সতীর্থ জেরার পিকে, কখনও বা বার্সেলোনার নতুন কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে জোর গলায় বলেছেন, নেইমার ক্লাব ছাড়বে না। তার ঠিক পরে পরেই বিশ্বের অন্য প্রান্ত থেকে খবর ভেসে এসেছে, নেইমার কিন্তু প্যারিসেই যাচ্ছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে গেল বার্সেলোনা, দলের সঙ্গে ছিলেন নেইমার। দুর্দান্ত ফর্মে গোল করলেন, মেসির গলা জড়িয়ে উৎসব হল। আবার বার্সায় আশা জাগল, তা হলে তিনি বোধহয় থেকেই যাবেন।

কিন্তু এ আবার কী? যুক্তরাষ্ট্র ছাড়ার ঠিক আগে যে সদ্য যোগ দেওয়া সতীর্থ নেলসন সোমেদোর সঙ্গে প্র্যাকটিসে মারপিট করে বসলেন নেইমার এবং বার্সেলোনায় ফেরার বদলে চলে গেলেন চীনে।

সেখান থেকে তিনি বার্সেলোনায় ফিরলেন ঠিকই। বুধবার গেলেন ক্লাবের প্র্যাকটিস গ্রাউন্ডেই। কিন্তু মাত্র দশ মিনিটের জন্য। তার পর সতীর্থদের বিদায় জানিয়ে বেরিয়ে গেলেন নেইমার।

বুধবার দুপুরের দিকে বার্সেলোনার তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হল, নেইমার ক্লাব ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন। এবার যে ক্লাব তাকে নেবে, তাকে ২২২ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফার ফি দিতে হবে। যে পরিমাণ অর্থ এখনও কোনও ফুটবলারের ট্রান্সফার ফি-তে খরচ করেনি কোনও ক্লাব। সেই অবিশ্বাস্য দল বদলই এবার ঘটতে চলেছে।

কিন্তু এই একটা শুষ্ক বিবৃতিতে কি অবসান ঘটছে নেইমার নাটকের? না, কারণ, এর চেয়েও বড় প্রশ্নটা উঠে এসেছে। কেন নেইমার বার্সা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিলেন? কেন বাছলেন পিএসজি-কে?

এই প্রশ্নের উত্তরও নিশ্চই একদিন পেয়ে যাবে ফুটবল দুনিয়া।




চীনে নেইমারকে নিয়ে উন্মাদনা, দল বদলাতে পারেন আজই

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নেইমার দ্য সিলভা স্যান্টোসকে (জুনিয়র) ছাড়াই বার্সেলোনা ফিরলেন লিওনেল মেসিরা। মায়ামি থেকে ব্যক্তিগত বিমানে চীন উ়ড়ে গেলেন ব্রাজিলীয় তারকা। স্প্যানিশ সংবাদ মাধ্যমের দাবি, আজ, মঙ্গলবার প্যারিস সঁ জরমঁ (পিএসজি)-এর চুক্তিতে সই করতে পারেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রে ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে রিয়াল মাদ্রিদের বিরুদ্ধে ম্যাচের আগেই স্প্যানিশ ও ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছিল, বার্সার হয়ে শেষ ম্যাচ খেলতে নামছেন নেইমার। ম্যাচের পরেই বার্সার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করবেন তিনি। যদিও বার্সা শিবির থেকে দাবি করা হচ্ছিল, নেইমার ক্লাব ছাড়বেন না।রিয়াল ম্যাচের পর দলের সঙ্গে বার্সেলোনাতেই ফিরবেন।

কিন্তু ছবিটা পুরোপুরি বদলে গিয়েছে নেইমার চীন উড়ে যাওয়ায়। যদিও এ দিন ফের বার্সা শিবির থেকে জানানো হয়েছে, দলের সঙ্গে না ফিরলেও আগামী বুধবার ক্যাম্প ন্যু-তে অনুশীলনে যোগ দিচ্ছেন ব্রাজিলীয় তারকা। কিন্তু সে সম্ভাবনা বার্সেলোনার সংবাদ মাধ্যমগুলোই উড়িয়ে দিয়েছে। তারা জানাচ্ছে, বার্সেলোনা নয়, চীন থেকেই কাতার উড়ে যাবেন নেইমার। সেখানে পিএসজি-র প্রেসিডেন্ট নাসের আল খেলাফি-র সঙ্গে দেখা করে চুক্তিতে সই করবেন। তাঁর ডাক্তারি পরীক্ষাও হবে কাতারে। চীনে নেইমারকে নিয়ে রীতিমতো হুড়োহুড়ি পড়ে যায়। সেখানে একটি ফ্যাশন শো-এ হাজির ছিলেন তিনি। ছবি তোলেন সাংহাই ক্লাবে খেলা সতীর্থ হাল্কের সঙ্গেও।

তবে হাল ছাড়তে নারাজ বার্সা কর্তারা। আইনকে অস্ত্র করে তারা লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ইতিমধ্যেই লা লিগা প্রেসিডেন্ট উয়েফার কাছে পিএসজি-র বিরুদ্ধে নালিশ জানিয়েছেন। এবার বার্সাও অভিযোগ করেছে, উয়েফার নিয়ম (এফপিপি) অনুযায়ী ফুটবলার কেনার ক্ষেত্রে কোনও ক্লাব তাদের মোট আয়ের চেয়ে বেশি খরচ করতে পারবে না। নেইমারকে নেওয়ার জন্য ১৯৫ মিলিয়ন ইউরো খরচ করতে প্রস্তুত পিএসজি।

বার্সেলোনার দাবি, নেইমারকে নিতে হলে ২২২ মিলিয়ন ইউরো (১৬৭৪ কোটি) দিতে হবে। বার্সা কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, উয়েফার নিয়ম ভেঙে নেইমারকে নেওয়ার জন্য আয়ের চেয়ে বেশি খরচ করছে পিএসজি। উয়েফার কাছে অভিযোগ করলেও নেইমারকে আটকানো যে অসম্ভব তা জানিয়ে দিয়েছে স্প্যানিশ সংবাদ মাধ্যম।




সরকার লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মেধা বিকাশে কাজ করছে

চকরিয়া প্রতিনিধি:
চকরিয়া উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলার মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনে ৪৬তম জাতীয় স্কুল ও মাদরাসার গ্রীস্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ১৭ ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনার মাধ্যমে সমাপ্ত হয়েছে।

সোমবার ৩১ জুলাই ক্রীড়া প্রতিযোগিতার সমাপনী দিনে উপজেলা পরিষদস্থ মগবাজার কমিউনিটি সেন্টার মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা। অনুষ্টিত ফাইনাল ম্যাচে উপজেলার ইলিশিয়া জমিলা বেগম উচ্চ বিদ্যালয়কে পরাজিত করে মালুমঘাট আইডিয়েল স্কুল চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

মাসব্যাপী শুরু হওয়া জাতীয় স্কুল ও মাদরাসার গ্রীস্মকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় উপজেলার চারটি অঞ্চলে ভাগ করে মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ফুটবল, কাবাড়িসহ বিভিন্ন ইভেন্টের খেলায় অংশ নেন।

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)ও উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি মোহাম্মদ সাহেদুল ইসলামের সভাপতিত্বে মগবাজার কমিউনিটি সেন্টার মাঠে টুর্নামেন্টে বিভিন্ন ইভেন্টে বিজয়ী ও বিজীত দলের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরণ করেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চকরিয়া উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভুমি) মো. দিদারুল আলম, চকরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী, উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ফজলুল করিম সাঈদী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আসলাম খাঁন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শহীদুল ইসলাম শহীদ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সভাপতি শওকত হোসেন, ফুটবল কোচ নুরুল আবছার, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কাউছার উদ্দিন কছির, চকরিয়া পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিদ্যালয় ও মাদরাসার শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং সুধীজন উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম বলেছেন, জাতির পিতার সুযোগ্য উত্তরসুরী দেশরত্ম শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যখনই আওয়ামীলীগ সরকার রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসেন, তখনই বাংলাদেশের ক্রীড়াঙ্গনে নতুন করে আশার সঞ্চার ঘটে। কারন শেখ হাসিনা নিজেও ক্রীড়াকে বেশি ভালবাসেন। তিনি দেশের ক্রীড়াঙ্গনকে বিকশিত করতে কাজ করছেন। সরকার ইতোমধ্যে ঘোষণা করেছেন, সারাদেশে প্রতিটি উপজেলায় একটি করে স্টেডিয়াম নির্মাণ করা হবে। যাতে স্কুল মাদরাসার ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে নিজেকে তৈরী করতে পারে।

তিনি বলেন, সব সেক্টরে সমান উন্নয়নের পাশাপাশি শেখ হাসিনা সরকার ক্রীড়াঙ্গনকে ঢেলে সাজাতে কাজ করছেন। নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে মেধাবিকাশে বদ্ধপরিকর সরকার। এই লক্ষ্য থেকে সরকার সারাদেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের সুচনা করেছে।




আন্তঃ স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয়

নিজেস্ব প্রতিবেদক, পানছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলার পানছড়ি উপজেলায় বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে ৪৬ তম জাতীয় স্কুল ও মাদ্রাসা’র গ্রীষ্মকালীন খেলাধুলা।  এই খেলাধুলার সবচেয়ে বড় চমক ছিল ফুটবলে। ৮ টি বিদ্যালয় নিয়ে নক আউট পদ্ধতির খেলায় ফাইনালে মোকাবেলা করে পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয় ও লোগাং উচ্চ বিদ্যালয়।

বিকাল ৩ টায় পানছড়ি উপজেলা পরিষদ মাঠ পরিণত হয় জনসমুদ্রে। নিজ দলের খেলোয়াড়দের উৎসাহ যোগাতে ছাত্রদের চেয়ে ছাত্রীরা ছিল বেশ এগিয়ে। নিজ বিদ্যালয়ের খেলোয়াড়দের পায়ে বল এলেই শুরু হয় হাজারো করতালি। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বীতাপূর্ণ এই খেলায় পানছড়ি বাজার উচ্চ বিদ্যালয় লোগাং উচ্চ বিদ্যালয়কে  ১-০ গোলে পরাজিত করে আন্তঃ স্কুল ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হয়।খেলার দ্বিতীয়ার্ধে দলের হয়ে একমাত্র গোলটি করে দলীয় অধিনায়ক রাশেদ।

ফাইনালে চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স আপ দলের হাতে পুরষ্কার তুলে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবুল হাশেম। এসময় অতিথি হিসেবে ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো.  লোকমান হোসেন, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা অরূপ চাকমা, ১নং লোগাং ইউপি চেয়ারম্যান প্রত্যুত্তর চাকমা, ২নং চেংগী ইউপি চেয়ারম্যান কালাচাদ চাকমা, উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন বিভাগীয় প্রধান, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান, সহকারী শিক্ষকবৃন্দ।

ফাইনাল খেলাটি পরিচালনা করেন উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান কবির সাজু। দুই সহযোগী ছিলেন মানিক ও ল্যাপ্রুচাই মারমা।




সতীর্থের সঙ্গে সংঘর্ষ, ফের বিতর্কে নেইমার

নিজস্ব প্রতিবেদক:

ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপে এল ক্লাসিকোর আটচল্লিশ ঘণ্টা আগে অগ্নিগর্ভ বার্সেলোনা শিবির। সতীর্থ নেলসন সেমেদোর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে ফের বিতর্কের কেন্দ্রে নেইমার দ্য স্যান্টোস (জুনিয়র)!

শুক্রবার মায়ামিতে রিয়াল বধের মহড়ায় সেমেদোর কড়া ট্যাকলে ক্ষুব্ধ ব্রাজিলীয় তারকা তেড়ে যান বেনফিকা থেকে সদ্য যোগ দেওয়া পর্তুগাল ডিফেন্ডারের দিকে। ম্যানেজার আর্নেস্তো ভালভার্দের সামনেই সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন দুই ফুটবলার। হাভিয়ার মাসচেরানো ও সের্জিও বুস্কেৎস কোনও মতে সামলান নেইমারকে। কিন্তু তাতেও ক্ষোভ কমেনি ব্রাজিলীয় তারকার। ‘বিপ’ খুলে ছুড়ে ফেলে দেন। এখানেই শেষ নয়। সাইড লাইনের ধারে সাজিয়ে রাখা দু’টো বলে লাথি মেরে মাঠ ছেড়ে বেরিয়ে যান। সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং ওয়েবসাইটে এই ঘটনার ছবি ছড়িয়ে পড়তেই উত্তাল হয়ে ওঠে বিশ্বফুটবল।

টুইটারে নেইমারকে কটাক্ষ শুরু করে দেন ফুটবলপ্রেমীরা। সেই সঙ্গে জল্পনা শুরু হয়, তা হলে কি বার্সা ছাড়ার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন ব্রাজিলীয় তারকা? প্রশ্ন উঠছে সেই কারণেই কি ইচ্ছাকৃত ভাবে সতীর্থের সঙ্গে বিবাদে জড়ালেন নেইমার?

বার্সা তারকার ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা আরও বেড়েছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যমের চাঞ্চল্যকর দাবিতে। তারা জানিয়েছে, বার্সা প্রেসিডেন্ট জোসেপ মারিয়া বার্তোমেউ ইতিমধ্যেই সবুজ সংকেত দিয়ে দিয়েছেন নেইমারকে ছাড়ার ব্যাপারে। তিনি জানিয়েছেন, কোনও ফুটবলার যদি ক্লাব ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন, তা হলে তাকে আটকানোর ক্ষমতা নেই। বার্তোমেউ বলেছেন, ‘‘নেইমার অন্যতম সেরা ফুটবলার। ওকে আমরা কোনও মতেই হারাতে চাই না। ওর সঙ্গে আরও চার বছর চুক্তি রয়েছে আমাদের। তবে নেইমারকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে ও বার্সায় থাকবে কি না।’’

ব্রাজিলীয় তারকা অবশ্য তার ভবিষ্যৎ নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি। তবে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম কয়েক দিন আগেই দাবি করেছিল, নেইমার নাকি ইঙ্গিত দিয়েছে চ্যাম্পিয়ন্স কাপের পর দলের সঙ্গে স্পেনে না ফিরে চিনে যাবেন। কিন্তু শুক্রবারই জানা গিয়েছে, চিন সফরও বাতিল করেছেন ব্রাজিলীয় তারকা। জল্পনা শুরু হয়েছে, প্যারিস সঁ জরমঁ-এর সঙ্গে চুক্তি চূড়ান্ত করতেই কি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন নেইমার?

নেইমারকে নিয়ে নতুন বিতর্ক ও অস্বস্তির মধ্যেই অবশ্য মরসুমের প্রথম এল ক্লাসিকো জিততে মরিয়া বার্সা। প্রাক-মরসুম টুর্নামেন্ট হলেও এই ম্যাচকে একেবারেই হাল্কা ভাবে নিচ্ছেন না লিওমেল মেসি, লুইস সুয়ারেজ-রা। শুক্রবার প্র্যাকটিসের পরে ইভান রাকিতিচ সাংবাদিক বৈঠকে খোলাখুলিই বলেছেন, ‘‘এল ক্লাসিকোর গুরুত্ব সব সময়ই আলাদা। প্রাক-মরসুম প্রস্তুতি টুর্নামেন্ট হলেও এই ম্যাচটা জেতা ছাড়া আমরা কিছু ভাবছি না।’’

বার্সা প্রেসিডেন্টের মন্তব্যে স্পষ্ট নেইমার বার্সা ছাড়ছেনই। কিন্তু ব্রাজিলীয় তারকার সতীর্থ অবশ্য এখনও আশাবাদী। রাকিতিচ বলেছেন, ‘‘আমরা একটা পরিবারের মতো। নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পূর্ণ অধিকার রয়েছে নেইমারের। তবে বন্ধু হিসেবে আমি ওকে বলব— বার্সাতেই থাকতে।’’

রিয়াল শিবিরে কোনও অশান্তি না থাকলেও এল ক্লাসিকোর আগে খুব একটা স্বস্তিতে নেই ম্যানেজার জিনেদিন জিদান। চ্যাম্পিয়ন্স কাপে পরপর দুই ম্যাঞ্চেস্টারের কাছে হেরে কিছুটা চাপে করিম বেঞ্জেমা, গ্যারেথ বেল-রা। তার ওপর ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো নেই। এই পরিস্থিতিতে দুরন্ত ফর্মে থাকা নেমার, মেসি ও সুয়ারেজ-দের বিরুদ্ধে জেতা যে রীতিমতো কঠিন তা খুব ভালই জানেন কিংবদন্তি জিদান।