খাগড়াছড়িতে গণহত্যা দিবস পালন

Khagrachari Pic 01
নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:
খাগড়াছড়িতে নানা আয়োজনে গণহত্যা দিবস পালন করছে আওয়ামীলীগ।

শনিবার সকালে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার নেতৃত্বে শহীদ স্মরণে একটি শোক র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক ঘুরে টাউন হলের সামনে মুক্তিযুদ্ধে চেতনা মঞ্চে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণ শেষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা নুরুন্নবী চৌধুরী, সহ-সভাপতি কল্যান মিত্র বড়ুয়া, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য নির্মলেন্দু চৌধুরী, জেলা পরিষদ সদস্য মংশিপ্রু চৌধুরী অপু, এডভোকেট আশুতোষ চাকমা, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মো. শানে আলম, জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মেহেদী হাসান হেলাল, সাধারণ সম্পাদক কে এম ইসমাইল হোসেন ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মো জাবেদ হোসেনসহ জেলা আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।




রামগড় উপজেলা চেয়ারম্যানের প্রাণ নাশের চেষ্টার অভিযোগ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

২৪ মার্চ শুক্রবার অনুমানিক সন্ধ্যা ৭.৪৫টার সময় রামগড়ের উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম ফরহাদের বাসায় সন্ত্রাসী হামলা চালিয়েছে সরকারি দলের ক্যাডার-রা। রামগড় আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী আলমগীরের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জনের একটি সন্ত্রাসী গ্রুপ অতর্কিতভাবে দেশীয় অস্ত্র-স্বস্ত্রে বাড়ীতে হামলা চালিয়ে ঘরের প্রধান ফটক ভাঙ্গার চেষ্টা করে। ফটক ভাঙ্গতে ব্যর্থ হয়ে অন্যান্য দরজা-জানালা, লাইট পোস্ট সহ দুইটি মোটর সাইকেল ভাংচুর করে ব্যপক ক্ষতি সাধন করে এবং এ হামলায় পাঁচজন আহত হয়। আমরা আশংকা করছি বাড়ীর প্রধান ফটক ভাঙ্গতে পারলে উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম ফরহাদের প্রাণনাশের চেষ্টা করতো।

অপরদিকে একই সময়ে মাটিরাংগা উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল’কে তাইন্দং বাজারে একটি দোকানে চা-নাস্তা করা অবস্থায় সরকারি দলের ক্যাডার-রা অতর্কিতে হামলা করে। এতে ইসমাইলের ডানহাত ভেঙ্গে এবং শরীরের বিভিন্ন জায়গায় মারাত্মকভাবে জখম করে। বর্তমানে তাকে মুমুর্ষ অবস্থায় মাটিরাঙ্গা হাসপাতাল হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

উপরোক্ত ঘটনা ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড সমূহ পরিকল্পিত এবং এ জেলায় যাতে কোন বিএনপি নেতাকর্মী থাকতে না পারে সরকারি দলের ক্যাডার বাহিনী সে ব্যাবস্থা করছে বলে আমরা আশংকা করছি।

ঘটনা সমূহের তদন্তপূর্বক জড়িত সন্ত্রাসীদের আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবী করেছেন জেলা বিএনপির সভাপতি ওয়াদুদ ভূইয়া সহ সকল নেতৃবৃন্দ। অন্যথায় খাগড়াছড়ি জেলা বিএনপি হরতাল অবরোধ সহ কঠোর কর্মসূচী প্রদানে বাধ্য হবে।




মাটিরাঙ্গায় পল্লী চিকিৎসকের ধর্ষণের শিকার কিশোরী

ধর্ষণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গায় এক পল্লী চিকিৎসক কর্তৃক ১৫ বছরের এক কিশোরী ধর্ষণের শিকার হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাতে মাটিরাঙ্গার খেদাছড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ধর্ষিতার বাবা মো. হারুন খাঁ বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মাটিরাঙ্গা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এ অভিযোগে ধর্ষক মো. রফিকুল ইসলাম (৩৯) কে আটক করেছে মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশ। ধর্ষক মো. রফিকুল ইসলাম মাটিরাঙ্গার খেদাছড়া ডিপি পাড়ার মো. আবুল কাশেমের ছেলে।

ধর্ষিতার বাবার অভিযোগ মুলে জানা যায়, বুধবার সন্ধ্যার দিকে শারীরিক সমস্যা নিয়ে ধর্ষিতা তার ছোট ভাইকে নিয়ে খেদাছড়া বাজারের পল্লী চিকিৎসক মো. রফিকুল ইসলামের দোকানে আসলে সে তাকে স্যালাইন দিতে হবে বলে, তার ফার্মেসীর পেছনের কক্ষে নিয়ে যায়। এবং স্যালাইন দিয়ে শুইয়ে রাখে। এক পর্যায়ে স্যালাইন শেষ হতে বিলম্ব হবে জানিয়ে মেয়েটি তার দোকানেই রাত্রি যাপনের জন্য বলে। এক পর্যায়ে মধ্যরাতে তাকে ঘুমের ট্যাবলেট সেবন করায়। এসময় ধর্ষক তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে হাত দিলে তার মেয়ে চিৎকার করলে তাকে হত্যার হুমকি প্রদান করে ধর্ষক। পরে রাতে তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করে।

ঘটনাটি জানাজানি হলে, স্থানীয়ভাবে মিমাংসার উদ্যোগ নেয়া হলেও শেষ পর্যন্ত ধর্ষিতার বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে মাটিরাঙ্গা থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার রাতে ধর্ষক মো. রফিকুল ইসলামকে আটক করে।

এবিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সুনীল চন্দ্র সুত্রধর জানান, ধর্ষিতার বাবার অভিযোগের প্রেক্ষিতে ধর্ষক মো. রফিকুল ইসলামকে আটক করে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালে ধর্ষিতার মেডিকেল পরীক্ষা করানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।




রামগড়ে যাত্রীবাহী বাস উল্টে আহত ২০

Ramgarh 24

রামগড় প্রতিনিধি:

খাগড়াছড়ির রামগড়ে যাত্রীবাহী বাস উল্টে শিশু ও নারীসহ প্রায় ২০জন যাত্রী আহত হয়েছে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে জালিয়াপাড়া রামগড় সড়কের পাতাছড়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

পুলিশ ও আহত যাত্রীদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, জেলার মাটিরাঙ্গার তাইন্দং থেকে ফেণীর উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা একটি যাত্রীবাহী বাস (নম্বর ফেনী জ ১১-০০১৯) জালিয়াপাড়া রামগড় সড়কের পাতাছড়া আনসার ক্যাম্প এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি গাড়িকে সাইড দিতে গিয়ে পাশের উঁচু টিলার সাথে ধাক্কা খেয়ে  রাস্তার উপর উল্টে পড়ে। এতে শিশু ও নারীসহ প্রায় ২০জন যাত্রী আহত হয়।

24.3 copy

দুর্ঘটনার সাথে সাথে নিকটস্থ ক্যাম্পের আনসার সদস্য ও স্থানীয় এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে রামগড় হাসপাতালে পাঠায়। আহতদের মধ্যে  মেহেদী হোসেন(৫), তার মা আমেনা আক্তার(৩০), আবুল কাশেম(৩০), নুর আলম(৩৫) ও মনোয়ারা বেগম(৩৫)কে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রামগড় হাসপাতাল থেকে চট্টগ্রাম ও কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে রামগড় হাসপাতালে ১০জন চিকিৎসাধীন আছে। এরা হচ্ছে, অন্তর(১৬), মাহবুব আলম(৩০), স্ত্রী জামিলা(২৬), সুফিয়া বেগম(৩৪), জান্নাত(৮), মনির আলম(২২), খোরশেদ(১৭), মফিজ(৭০) রবিউল(১৫) ও মো. হোসেন(২৫)।

আহতদের মধ্যে অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরেছে। রামগড় সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সৈয়দ মোহাম্মদ ফরহাদ দুর্ঘটনায় আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান। তিনি তাদের চিকৎসার খোঁজখবর নেন।

রামগড় থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই আনোয়ার জানান, দুর্ঘটনাগ্রস্ত  বাসটি পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে। চালক পালিয়ে গেছে।




মাটিরাঙ্গায় ইউনিয়ন পরিষদ ফোরাম গঠিত

24.03.2017_UP Forum Pc

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

মাটিরাঙ্গার ৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আলী আকবরকে সভাপতি, বেলছড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক ও আমতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবদুল গণিকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে দেশের ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান-মেম্বার একমাত্র শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ ফোরামের ২১ সদস্য বিশিষ্ট মাটিরাঙ্গা উপজেলা কমিটি গঠন করা হয়েছে।

শুক্রবার সকালের দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির আহ্বায়ক ও কেন্দ্রীয় কমিটির পার্বত্য অঞ্চল বিষয়ক সম্পাদক হিরনজয় ত্রিপুরার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান।

স্থানীয় সরকার বিভাগের খাগড়াছড়ি জেলা ফ্যাসিলেটিটর নয়ন জ্যোতি চাকমা ও কিশোরগঞ্জ জেলা ফ্যাসিলেটিটর মো. আবদুর রাজ্জাক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে ৩নং বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আলী আকবর, তাইন্দং ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন কবীর, বেরচড়ির সংরক্ষিত মহিলা সদস্য রোজিনা বেগম, তাইন্দংয়ের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নুরজাহান বেগম ও বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. ইউনুছ মিয়া বক্তব্য রাখেন ।

রাজনৈতিক মতাদর্শের বাইরে এসে নিজেদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ ছাড়া প্রশাসনিক কাঠামোকে কল্পনা করা যায়না। চেয়ারম্যান-মেম্বারদের বেতন ভাতা বাড়ানোসহ স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করতে সরকারের পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ সংগঠনকে শুধুমাত্র নিজেদের দাবি আদায়ের সংগঠনে পরিনত না করে জনগণের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করতে হবে।

পরে নবনির্বাচিত কমিটির নেতৃবৃন্দকে শপথ বাক্য পাঠ করান খাগড়াছড়ি জেলা কমিটির আহ্বায়ক ও কেন্দ্রীয় কমিটির পার্বত্য অঞ্চল বিষয়ক সম্পাদক হিরনজয় ত্রিপুরা।




জনকল্যানেই ইউনিয়ন পরিষদকে শক্তিশালী করতে হবে

 

24.03.2017_Matiranga LGSP News

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

জনগণের সার্বিক কল্যাণেই ইউনিয়ন পরিষদকে শক্তিশালী করাতে হবে এমন মন্তব্য করে খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক এটিএম কাউছার হোসেন বলেছেন, সকল কাজে স্বচ্ছতা আনতে হবে। নিয়মের মধ্যে থেকে সকল কাজ করতে হবে। স্বেচ্ছাচারিতাকে কোন ভাবেই প্রশ্রয় দেয়া যাবেনা। প্রকল্প গ্রহণ ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বাস্তবায়নে জনগণের প্রয়োজনীয়তা ও মতামতকে প্রাধান্য দিতে হবে। তবেই জনগণ ও জনপ্রতিনিধির মধ্যে সেতুবন্ধন রচিত হবে।

শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে মাটিরাঙ্গা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মাটিরাঙ্গা ও গুইমারা উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, মেম্বার, উদ্যোক্তা ও সচিবদের আর্থিক ব্যবস্থাপনা ও ইউনিয়ন পরিষদ ম্যানুয়াল শীর্ষক দুই দিনব্যাপী কর্মশালার সমাপনী দিনে তিনি এসব কথা বলেন।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকার বিভাগের খাগড়াছড়ি জেলা ফ্যাসিলেটিটর নয়ন জ্যোতি চাকমা ও কিশোরগঞ্জ জেলা ফ্যাসিলেটিটর মো. আবদুর রাজ্জাক রিসোর্স পারসন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠানে মাটিরাঙ্গা সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হিরনজয় ত্রিপুরা, গুইমারা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মেমং মারমা, বড়নাল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. আলী আকবর, গুইমারা ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোক্তা মো. শাহ আলম তাদের অভিজ্ঞতা ও কর্মশালায় অর্জন বর্ণনা করে বক্তব্য রাখেন।

সভাপতির বক্তব্যে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিএম মশিউর রহমান দুই দিনব্যাপী কর্মশালার সফল বাস্তবায়নে সকলকে আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, জনগণের মতামতের ভিত্তিতেই প্রকল্প গ্রহণকে গুরুত্ব দিতে হবে। তবে সরকারের উন্নয়ন প্রকল্পসমূহের সদ্বব্যাবহার নিশ্চিত হবে।

পরে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি খাগড়াছড়ির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক এটিএম কাউছার হোসেন দুইদিন ব্যাপী কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে সনদ বিতরণ করেন।




সাজেক-নীলগিরি ‘ট্যুর ডি সিএইচটি মাউন্টেন বাইক প্রতিযোগিতা’ শুরু

Khagrachari Pi 03

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:
পার্বত্য চট্টগ্রামে পর্যটন শিল্পের বিকাশে সাজেক-নীলগিরি ২৫০ কিলোমিটার তিন দিন ব্যাপী ‘ট্যুর ডি সিএইচটি মাউন্টেন বাইক প্রতিযোগিতা’ শুরু হয়েছে। স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ এ্যাডভেঞ্চার ক্লাব যৌথভাবে এ প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।

২৪ মার্চ শুক্রবার সকালে দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে ভারতের মিজোরাম রাজ্য সন্নিহিত প্রাকৃতিক রূপে রূপময় ও অপার সম্ভাবনার জনপথ খাগড়াছড়ি রিজিয়নের আওতাধীন রাঙামাটির সাজেক পর্যটন কেন্দ্রের রুইলুইপাড়া এলাকায় প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী।
Khagrachari Pi 02

এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব এ.এস.এম শাহেন রেজা, সুবিনয় ভট্টাচার্য্য ও বাংলাদেশ এ্যাডভেঞ্চার ক্লাবের পরিচালক মশিউর খন্দকার প্রমুখ।

রাঙ্গামাটির সাজেক ভ্যালী থেকে খাগড়াছড়ি হয়ে বান্দরবানের নীলগিরি পর্যন্ত মোট ২৫০ কিলোমিটার পাহাড়ি পথে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে অংশ নিয়েছে মোট ৪২ জন প্রতিযোগী। প্রথম দিনে সাজেক হতে খাগড়াছড়ি পর্যন্ত ৬৮ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে তাঁরা। প্রথম দিন দুর্গম পাহাড়ি পথ পাড়ি দিতে গিয়ে বেশ কয়েকজন প্রতিযোগী আহত হয়।
Khagrachari Pi 04

প্রতিযোগিতায় প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারীকে যথাক্রমে ৮০ হাজার, ৬০ হাজার এবং ৪০ হাজার টাকা সমপরিমাণ অংকের এমটিভি হিমালয় স্পন্সরশীপ প্রদান করা হবে। যার মাধ্যমে বিজয়ীরা ভারতের একটি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের সুযোগ পাবেন।




সন্তু লারমার অনুমতি না পাওয়ায় খাগড়াছড়ির তিনটি সড়কের নির্মাণ প্রকল্প বাতিল

Khagrachari-Picture02-16-01-2017-1-copy-1-300x181
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি :

পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ চেয়ারম্যান সন্তু লারমা অনুমতি না দেয়ায় খাগড়াছড়ি জেলার ‘সিএইচটি’ সিলেক্টেড তিনটি সড়কের নির্মাণ প্রকল্প বাতিল করা হয়েছে। এমন অধিকতর জনগোষ্ঠীর উন্নয়নমুখী কাজ ব্যাহত হওয়ায় জনমনে হতাশা ও ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।

পাহাড়ি এ সড়কগুলোতে শুকনো মৌসুমে চাঁদের গাড়ী ও মোটরসাইকেলে যাতায়াত করলেও বর্ষা মৌসুমে মাটির এ সড়কপথে বড় বড় গর্ত সৃষ্টি হয় এবং যানবাহন  চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পায়ে হেঁটে যাতায়াত করতে হয় স্থানীয় অধিবাসীদের। সীমাহীন দুর্ভোগে পড়েন এসব এলাকার বাসিন্দারা। প্রকল্পগুলো বাতিল হওয়ায় এসব এলাকায় বসবাসকারী প্রায় অর্ধলক্ষাধিক মানুষের দীর্ঘ দিনের দুর্ভোগের অবসান ক্ষীণ হয়ে উঠছে। সড়কগুলো নির্মাণ করার দীর্ঘ দিনের যে দাবী তাও ভেস্তে যাচ্ছে।

11-1

সংশ্লিষ্ট সূ্ত্রে জানা যায়, লক্ষ্মীছড়ি থেকে বর্মাছড়ি ১৪.৮ কি. মি., মাটিরাঙ্গা  উপজেলার বেলছড়ি থেকে অযোদ্ধা ৯.৭ কি. মি. ও খাগড়াছড়ি থেকে সিঙ্গিনালা ২১ কি. মি. সড়ক নির্মাণকাজ প্রকল্পেরর জন্য প্রায় দু’শত কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিলো। এশিয়ান ডেভলাপম্যান্ট ব্যাংক এডিবি’র অর্থায়নে এলজিডি এ সড়কগুলো নির্মাণের উদ্যোগ নিয়ে সড়কের সার্ভের কাজসহ বেশকিছু কাজ সম্পন্ন করে।

তবে পার্বত্য চুক্তিমতে এলজিডির এ সমস্ত উন্নয়ন কাজে আঞ্চলিক পরিষদের অনুমোদন প্রয়োজন হওয়ায় সড়ক নির্মাণে আঞ্চলিক পরিষদের অনুমোদন চাওয়া হয়েছিলো। কিন্তু গত ২৮  ফেব্রুয়ারি  আঞ্চলিক পরিষদের নিয়মিত বৈঠকে প্রকল্পটি অনুমোদন না দেওয়াই বরাদ্দকৃত অর্থ বান্দরবন জেলায় স্থানান্তরিত করা হয়েছে। এর ফলে আবারো নতুন কোনো প্রজেক্ট না আসলে এ সড়কগুলো নির্মাণে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান সুপার জ্যোতি চাকমা পার্বত্যনিউজকে জানান, লক্ষ্মীছড়ি থেকে বর্মাছড়ি সড়কটি নির্মাণ করা অতীব জরুরী এবং অত্রাঞ্চল বসবাসরত নাগরিকদের দীর্ঘদিনের দাবী। সড়কটি নির্মাণে সরকারের পদক্ষেপ ব্যাহত হওয়ায় ক্ষোভ জানিয়ে তিনি বলেন, এ অঞ্চলের জনগণের দুর্ভোগের বিষয়টি চিন্তা করে আঞ্চলিক পরিষদ প্রকল্পটির অনুমোদন দেওয়া প্রয়োজন ছিলো।
3

এর আগে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড ২০০৮-০৯ অর্থ বছরে লক্ষ্মীছড়ি-বর্মাছড়ি সড়কের মরাচেঙ্গী গুঘাট, ডান্দি ছড়া ও মরাচেঙ্গী ছড়ার উপর তিনটি ব্রিজ নির্মাণের দরপত্র দিয়ে নির্মাণ কাজ শুরুকরে।কিন্তু ব্রিজ তিনটি অসমাপ্ত রেখে ঠিকাদাররা কাজ বন্ধ করে দেন।

একটি সূত্র জানায়, আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল ইউপিডিএফ’র চাঁদাবাজি ও পর্যাপ্ত বরাদ্দ না থাকায় ঠিকাদাররা ব্রিজের নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিতে বাধ্য হন।

খাগড়াছড়ি স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আশরাফুল হক জানান, খাগড়াছড়ি সদর,লক্ষ্মীছড়ি ও মাটিরাঙ্গা উপজেলার  তিনটি সড়কের নির্মাণ কাজ এলজিইডি করার সিদ্ধান্ত নিয়ে  সড়কের সার্ভে সম্পন্ন করে। তবে পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যানের অনুমোদন না পাওয়ায় অাপাতত প্রকল্পটি বাতিল করা হয়েছে । লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার অসমাপ্ত তিনটি ব্রিজ অন্য একটি প্রজেক্টের আওতায় আনার প্রস্তাব করা হয়েছে। চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে অনুমোদন পেলে কাজ শুরু করা হবে।




খাগড়াছড়িতে বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস পালিত

Khagrachari Pic 01
নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

“ঐক্যবদ্ধ হলে সবে, যক্ষ্মামুক্ত দেশ হবে” এই প্রতিপাদ্যে খাগড়াছড়ি পালিত হয়েছে বিশ্ব যক্ষ্মা দিবস।

দিবসটি উপলক্ষে শুক্রবার সকালে স্থানীয় টাউন হল প্রাঙ্গণ থেকে একটি বর্ণ্যাঢ্য র‌্যালি বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক ঘুরে শিল্পকলা একাডেমীতে খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার রাজেন্দ্র ত্রিপুরার সভাপতিতে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ, নাটাব ও ব্র্যাকের আয়োজনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ড. গোফরান ফারুকী। বিশেষ অতিথি ছিলেন, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আব্দুল কাদের, ব্র্যাকের ব্যবস্থাপক সৈয়দ নুরু ও খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের সভাপতি জীতেন বড়ুয়া।




মানিকছড়িতে মোটরসাইকেল ধাক্কায় একজন নিহত

17498967_872643126209343_7672096944482180657_n copy

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

মানিকছড়ি উপজেলার বড়ডলু এলাকায় মোটরসাইকেলের ধাক্কায় আমিনুল ইসলাম(১৯) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার  সন্ধ্যা সাড়ে ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্র জানায়, সন্ধ্যা সাড়ে ৮টার সময় আমিনুল মাগরিবের নামাজ পড়ে বাড়িতে যাওয়ার সময় পিছন থেকে আসা দ্রুতগামী মোটরসাইকেল তাকে ধাক্কায় দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই আমিনুলের মৃত্যু হয়।

মানিকছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুর রকিব ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।