মানিকছড়িতে উপজেলা ছাত্রদলের উদ্দ্যোগে বিএনপির নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম উদ্বোধন

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে মানিকছড়িতে উপজেলা ছাত্রদলের উদ্দ্যোগে বিএনপির নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে এবং গ্রামে গ্রামে চলবে বিএনপির সদস্য সংগ্রহ এবং নবায়ন কার্যক্রম।

বিএনপির নতুন সদস্য সংগ্রহ এবং পুরাতন সদস্য নবায়ন কার্যক্রমে নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ও উৎসাহ উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে।

মানিকছড়ি উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক এনাম এ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্ধোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে কয়েকশত নেতা-কর্মী সমাবেত হন।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মুজিবুল হক বাহার, উপজেলা যুবদলের যুব নেতা মোশারফ হোসেন মেম্বার, যুবনেতা মো. জয়নাল মেম্বার, উপজেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন কিশোর, সাংগঠনিক সম্পাদক মুনসুর আলীসহ কলেজ ও ইউনিয়ন ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ।




খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের উদ্যোগে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেল গঠন

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

নির্যাতিত নারী ও শিশুদের সহায়তা করতে খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের উদ্যোগে সদর মডেল থানায় চালু হয়েছে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেল। বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় খাগড়াছড়ি সদর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেলের উদ্বোধন করেন খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান।

উদ্বোধন শেষে পুলিশ সুপার আলী আহমদ খান উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেল প্রাথমিকভাবে নিষ্পত্তি ও সমাধানযোগ্য অভিযোগগুলো সুরাহার কাজ করবে। নিষ্পত্তিযোগ্য না হলে থানা বা আদালতের মাধ্যমে তাদের আইনী সহায়তা প্রদান করা হবে। একজন পুলিশ পরিদর্শক, তিন জন উপ পরিদর্শকসহ ১৪ জন পুলিশ ও একজন নারী এনজিও কর্মীর সমন্বয়ে চলবে কার্যক্রম।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এমএম সালাহউদ্দিন, খাগড়াছড়ি সদর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)তারেক মোহাম্মদ আব্দুল হান্নান, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেলে অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান ও সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) আব্দুল্লাহ আল মাসুদ উপস্থিত ছিলেন।




জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু একটি পর্বতের নাম আর শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কারিগর: কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা

গুইমারা প্রতিনিধি:

১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস। স্বাধীনতার স্থপতি, মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে গুইমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের  উদ্যোগে এক দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয় ।

১৬ আগস্ট বুধবার সকাল ৯টা থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে গুইমারা ১নং সদর ইউপি চেয়ারম্যান মেমং মারমার সঞ্চালনায় এই দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভার কার্যক্রম শুরু হয়ে দুপুর ২ টায় কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার নেতৃত্বাধীন গুইমারা উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক কাঙালী ভোজের মাধ্যমে শেষ হয় ।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি ও পার্বত্য টাস্কফোর্স এবং খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কংজরী চৌধুরী, রনবিক্রম ত্রিপুরা , বাসন্তি চাকমা, মংশেপ্রু চৌধুরী অপু , আ. জব্বার, খাগড়াছড়ি জেলা মহিলা লীগের নেতৃবৃন্দ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ।

এছাড়া গুইমারা, মাটিরাংগা, মানিকছড়ি,  রামগড়, পানছড়ি আওয়ামীলীগ ও সকল সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি তার বক্তব্যে বলেন, বঙ্গবন্ধু একটি পর্বতের নাম, শেখ হাছিনা একজন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কারিগর, তিনি কথা দিয়ে কথা রাখেন। সারা বাংলাদেশের ন্যায় গুইমারা উপজেলাকেও উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে জননেত্রী শেখ হাসিনা। আমরা পাহাড়ে শান্তি চাই, সেই লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার। পার্বত্য অঞ্চলের প্রতিটি ঘরের খবর নিচ্ছেন শেখ হাসিনা। যার প্রমাণ বিজিডি, বিজিএফ, ও ন্যায্য মূল্যের ১০টাকার চাউল। দেশের প্রতিটি মানুষের মনে শেখ হাসিনা আছেন। এই গুইমারার ৩টি ইউনিয়নে যে পরিমান উন্নয়ন আমরা করেছি বিএনপির আমলে পুরো খাগড়াছড়ি জেলাতেও এই পরিমান উন্নয়ন করতে পারে নাই। খালেদা জিয়ার চেয়ারা সুন্দর কিন্তু সে মিথ্যা বাদী মানুষ হত্যা  করে বিএনপি জামাত অপচেষ্টা চালিয়ে ক্ষমতা যাওয়ার যে স্বপ্ন দেখছে তা বাস্তবায়ন হবে না।

আলোচনা সভায় বক্তব্য কালে বেশীর ভাগ নেতাই অভিযোগ এনে বলেন পাহাড়ী বাঙ্গালী সম্প্রদায়িক উস্কানী দিয়ে একটি মহল পার্বত্য অঞ্চলে নিজেদের ফায়দা লুটার চেষ্টা করছে। এ থেকে সকল পার্বত্যবাসীকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান।

জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের আগমন উপলক্ষ্যে যে পরিমান লোক সমাবেশে হওয়ার কথা ছিল তার তুলনায় অনেক কম হয়েছে বৈরী আবহওয়া ও ইউপিডিএফ এর বাধার কারণে এমন হয়েছে বলে জানা যায়। ৪ হাজার লোকের জন্য কাঙ্গালী ভোজের আয়োজন করা হলেও লোকের সমাগম হয়েছে ২ হাজারের মত।




আঞ্চলিক সংগঠনগুলোকে জাতীয় রাজনীতির স্রোত ধারায় সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানালেন কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি জেএসএস, জেএসএস (এমএন) ও ইউপিডিএফসহ আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলগুলোকে অন্য স্বপ্ন বাদ দিয়ে জাতীয় রাজনীতির মূল স্রাত ধারায় সম্পৃক্ত হয়ে সরকারের উন্নয়নের সুফল ভোগ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বুধবার সকালে খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙায় দুটি বিদ্যুৎ সম্প্রসারণ কেন্দ্রের উদ্বোধন ও বঙ্গবন্ধ শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২ত শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে গুইমারা উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান।

কুজেন্দ্র ত্রিপুরা এমপি জেএসএস ও ইউপিডিএফকে ইঙ্গিত করে বলেন, নিজেরা স্বায়ত্বশাসনের স্বপ্ন দেখেছেন, সাধারণ পাহাড়িদেরও দেখিয়েছেন। আন্দোলনের নামে জীবন-যৌবন নষ্ট করেছেন। এখনোও নানা ইস্যুতে আন্দোণনের নামে সাধারন মানুষকে কষ্ট দিচ্ছেন।

তিনি আরও বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম বাংলাদেশের অবিচ্ছেদ্য অংশ। এখানে বাঙালিরা থাকবে, পাহাড়িরাও থাকবে। কাউকে বিতাড়িত করা যাবে না। কিন্তু একটি মহল নানা গুজব ছড়িয়ে পাহাড়ি-বাঙালির মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে ফায়দা লটতে চাচ্ছে।

গুইমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে শোক দিবসের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা নুরুন্নবী চৌধুরী, সিনিয়র সহ-সভাপতি রণ বিক্রম ত্রিপুরা, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি কংজরী চৌধুরী, সহ-সভাপতি কল্যান মিত্র বড়ুয়া, খাগড়াছড়ি জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার মো. রইছ উদ্দিনেন, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য মংক্যচিং চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য এডভোকেট আশুতোষ চাকমা, জেলা পরিষদ সদস্য মংশেপ্রু চৌধুরী অপু, আব্দুল জব্বার, জুয়েল চাকমা, জেলা পরিষদ সদস্য ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নীগার সুলতানা, জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা ও জেলা পরিষদ সদস্য শতরূপা চাকমা, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদিকা  বাসন্তি চাকমা, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সাংবাদিক নুরুল আজম, জেলা যুবলীগের সভাপতি যতন কুমার ত্রিপুরা, সাধারণ সম্পাদক কেএম ইসমাইল হোসেন ও  জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি টেকো চাকমাসহ অংগ ও সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

পরে একটি শোক র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।




পানছড়ি আলীনগর গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে মিথ্যে অপপ্রচারের অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন 

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি:

পানছড়ি আলীনগরের রঙ্গু মিয়া ও মানিক মিয়ার বিরুদ্ধে গ্রামবাসীর সংবাদ সম্মেলনের ৩ দিন পর গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে  মিথ্যে অপপ্রচারের অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করেছে মানিক মিয়া। বুধবার বেলা সাড়ে ১১ টায় খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবে মানিক মিয়ার পরিবার উপস্থিত হয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মানিক মিয়ার ছোট ভাই তুলা মিয়া। এসময় পরিবারের সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মানিক মিয়ার পিতা রঙ্গু মিয়া, মাতা ফিরোজা বেগম, ছোট ভাই আব্দুল হান্নান সহ দুই কন্যা মণি ও মুক্তা আক্তার।

সংবাদ সসম্মেলনে মানিক মিয়া অভিযোগ করেন, একই এলাকার বাসিন্দা বাহাদুর ও হাছান আলী গং’রা মিলে তাদের ভূমি দখলের চেষ্টা করছে। তার পরিবারের বিরুদ্ধে বারবার মিথ্যা মামলা দায়ের করে হয়রানী করছে। তাদের নামে ১৯৯৯ সাল থেকে এ যাবত ২৭ টি মামলা দিয়েছে। এর মধ্যে একটি মামলা এখনো বিচারাধীন রয়েছে। বাকি সব মামলা বিচার শেষে নির্দোষ প্রমাণ হয়েছে। বারবার মিথ্যে মামলা দায়ের করে আমাকে ও আমার পরিবারকে আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত ও হয়রানী করছে।  আমার ও আমার পরিবারকে সামাজিকভাবে হেয় পতিপন্ন করার লক্ষে ১৩ আগস্ট বাহাদুর মিয়া গং’রা সংবাদ সম্মেলন করেছে বলেও অভিযোগ করেন মানিক মিয়া।




দেশপ্রেম এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে: লে. কর্নেল আ. আলীম চৌধুরী

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, দীঘিনালা:

লংগদু  উপজেলায় বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মহান স্বাধীনতার স্থপতি  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন করা হয়েছে।

এ উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার (১৫ আগস্ট) সকালে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে  স্থাপিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এসময় উপজেলা মুক্তিযুদ্ধা সংসদ, পুলিশ প্রশাসন, বিভিন্ন বেসরকারি দপ্তর এবং শ্রেণী পেশার লোকজন  পুষ্পমাল্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পরে অনুষ্ঠিত শোকসভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.  মোসাদ্দেক মেহেদী ঈমাম এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লংগদু জোনের জোন কমান্ডার লে. কর্নেল আ. আলীম চৌধুরী, পি এস সি। শোক সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন লংগদু উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. তোফাজ্জল হোসেন, লংগদু থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মোমিনুল ইসলাম এবং লংগদু সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাজিব ত্রিপুরা প্রমূখ।

শোকসভায় প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন,  স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে রক্ষা করা আরো অনেক বেশি কঠিন। তাই আমাদের প্রত্যেককে দেশপ্রেমে এবং জাতির জনকের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে নিজ দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালনের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। যে কোন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে রুখে দাড়িয়ে সমন্নিতভাবে দেশকে সুখ, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতির দিকে নিয়ে যেতে হবে।

শোকসভার পর অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি লংগদু জোনের জোন কমান্ডার লে. কর্নেল আ. আলীম চৌধুরী, পিএসসি

এদিকে শোক দিবস উপলক্ষ্যে লংগদু সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের  শিক্ষার্থীদের মধ্যে  চিত্রাঙ্কণ, রচনা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে লংগদু জোনের জোন কমান্ডার লে. কর্নেল আ. আলীম চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্হিত থেকে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে পুরস্কার তুলে দেন। পরে বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধ এবং জাতির পিতার জিবনী সম্পর্কিত বই বিতরণ করা হয়। এছাড়া বিদ্যালয়ের ৬০জন শিক্ষার্থীদের  কম্পিউটার প্রশিক্ষণের বই দেয়া হয়।




মাটিরাঙ্গায় ১শ’ ৫০ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যাবসায়ী আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

মাদক ব্যবাসায়ী ও মাদকসেবীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযানের অংশ হিসেবে খাগড়াছড়ির মাটিরাঙ্গা পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের বলিপাড়া থেকে ১শ’ ৫০ পিস ইয়াবাসহ মো. খোরশেদ আলম (৩৭) নামে এক মাদক ব্যাবসায়ীকে আটক করে মাটিরাঙ্গা সেনা জোনের নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা। মঙ্গলবার রাত দেড়টার দিকে তাকে বলিপাড়ার নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়।

আটককৃত ইয়াবা ব্যবসায়ী মো. খোরশেদ আরম বলিপাড়ার মৃত সিরাজুল ইসলামের ছেলে। জানা গেছে, খোরশেদ আলম দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবার ব্যবসা করে আসছে এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাটিরাঙ্গা জোনের জোনাল স্টাফ অফিসার মেজর ইমরুল কায়েস এর নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে মাটিরাঙ্গা সেনা জোনের নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা।

পরে আটক খোরশেদ আলমের দেয়া তথ্যমতে বিক্রির উদ্দ্যেশ্যে তার ঘরে রাখা ১শ’ ৫০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা। পরে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে উদ্ধারকৃত ইয়াবাসহ আটক ইয়াবা ব্যাবসায়ী মো. খোরশেদ আলমকে মাটিরাঙ্গা থানায় সোপর্দ করা হয়।

মাটিরাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. সাহাদাত হোসেন টিটো ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আটক যুবকেরর বিরুদ্ধে মাটিরাঙ্গা থানায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।




খাগড়াছড়িতে মা ও শিশু কেন্দ্রের সামনে সিএনজিতে বাচ্চা প্রসব

 

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি

খাগড়াছড়ি মা ও শিশু কেন্দ্রের দায়িত্বরত চিকিৎসক ও নার্স না থাকায় কেন্দ্রের সামনে সিএনজিতে  মৃত বাচ্চা প্রসব করেছে রুনা ত্রিপুরা নামে এক মা। রুনা ত্রিপুরা খাগড়াছড়ির দীঘিনালা উপজেলার ইরিন ত্রিপুরার স্ত্রী। মঙ্গলবার বিকেল ৫টায় কেন্দ্রের সামনে সিএনজিতে অপেক্ষারত অবস্থায় প্রসব যন্ত্রণায় ওই মা মৃত বাচ্চা প্রসব করে বলেও জানান প্রত্যক্ষদর্শী ও রোগীর স্বজনরা।

সরেজমিনে বিকেল সাড়ে ৫টায় মা ও শিশু কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় দায়িত্বপ্রাপ্ত নার্স বিথীকা চাকমা অনুপস্থিত। তার সহকারী আয়েশা আক্তার জানান, নার্স বাজারে যাবেন বলে এক ঘন্টা আগে বের হয়েছে। রোগী আসার পর ফোন দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

প্রত্যক্ষদর্শী মিন্টু দত্ত জানান, বিকেল সাড়ে ৪টায় ওই রোগীকে মা ও শিশু কেন্দ্রে আনার পর স্বজনরা অফিসে গিয়ে ভর্তি করাতে চাইলে কাউকে না পেয়ে রোগীকে সিএনজিতে রেখে অপেক্ষা করার সময় বিকেল ৫টার দিকে সিএনজির উপর বাচ্চা প্রসব করেন।

রুনা ত্রিপুরার শ্বাশুড়ী শুকনতলা ত্রিপুরা অভিযোগ করে বলেন, আমার ছেলের বউয়ের বাচ্চা প্রসবের জন্য মা ও শিশু কেন্দ্রে আনার পর দীর্ঘ সময় অপেক্ষায় থেকেও ভর্তি করাতে পারিনি। তখন সেখানে কোন চিকিৎসক বা নার্স না থাকায় সিএনজির উপর মৃত বাচ্চা প্রসব করে। পরে তাকে সদর হাসপাতালের গাইনী বিভাগে ভর্তি করা হয়। এখন সেখানে তার চিকিৎসা চলছে।

বিকেল সাড়ে ৬টায় কেন্দ্রে ফিরে এসে নার্স বিথীকা চাকমা জানান, আমার ব্যক্তিগত সমস্যার কারণে ডা. আশুতোষ চাকমাকে বলে আমি কেন্দ্র থেকে বের হয়। কাজ শেষ করে আমি কেন্দ্রে ফিরেছি।

মা ও শিশু কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আশুতোষ চাকমাকে এবিষয়ে জানতে ফোন করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের উপ পরিচালক ডা. বিপ্লব বড়ুয়া জানান, ঘটনাটি শোনার পর মা ও শিশু কেন্দ্রে লোক পাঠিয়েছি। বিষয়টি তদন্তের পর পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।




মাটিরাঙ্গায় আ’লীগের শোকসভায় দলের ঐক্য বিরোধী অপতৎপরতা প্রতিহত করার আহ্বান

নিজস্ব প্রতিবেদক, মাটিরাঙ্গা:

শোকাবহ আয়োজনে বাংলাদেশের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষ্যে মাটিরাঙ্গায় সংগঠনের ঐক্য ও স্বার্থ বিরোধী অপতৎপরতা প্রতিহত করার আহ্বানের মধ্য দিয়ে মাটিরাঙ্গায় শোক র‌্যালি করেছে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। মঙ্গলবার বিকালের দিকে দলীয় কার্যালয় থেকে বের হওয়া শোক র‌্যালি মাটিরাঙ্গার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মাটিরাঙ্গা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় হয়ে দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে শেষ হয়।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের আয়োজনে নেতাকর্মীদের স্বতঃস্ফুর্ত অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত শোক ‌র‌্যালি পরিনত হয় জনস্রোতে। নিকট অতীতে সরকারি দল আওয়ামী লীগের কোন কর্মসূচিতে নেতাকর্মীদের এতো সমাগম দেখা যায়নি। তবে শোক দিবসের এ কর্মসূচিতে মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা উপস্থিত না থাকায় তৃনমুল নেতাকর্মীদের ক্ষোভ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।

শোক র‌্যালি শেষে দলীয় কার্যালয়ে মাটিরাঙ্গা পৌর আওয়ামী লীগের সিনি. সহ-সভাপতি মো. আবদুল সালাম’র সভাপতিত্বে মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক মো. তাজুল ইসলামের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত শোক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. এরশাদুজ্জামান।

মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. ওয়ালী উল্যাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আলী হোসেন, মাটিরাঙ্গা পৌর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এমএম জাহাঙ্গীর আলম, মাটিরাঙ্গা উপজেলা মহিলালীগের সভাপতি হোসনে আরা বেগম, মাটিরাঙ্গা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও প্যানের মেয়র মো. আলাউদ্দিন লিটন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মো. রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম খোন্দকার, মাটিরাঙ্গা পৌর যুবলীগের সভাপতি মো. মোশাররফ হোসেন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি ও ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো. এমরান হোসেন, পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মো. বাবুল আহমেদ, মাটিরাঙ্গা উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক ও ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোহাম্মদ আলী ও পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তছলিম উদ্দিন রুবেল বক্তব্য রাখেন।

শোক সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে স্বপরিবারে হত্যা করে খুনিচক্র বাঙ্গালি জাতীয়তাবাদকে হত্যা করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করে শোককে শক্তিতে পরিণত করে বঙ্গবন্ধুর সোনারবাংলা গড়ার আহ্বান জানান বক্তারা। মাটিরাঙ্গায় আওয়ামী লীগের রাজনীতির কবর রচনা করতে দলের ভেতর ঘাপটি মেরে থাকা একটি গোষ্ঠী অপতৎপরতা চালাচ্ছে উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, দলের বৃহত্তর ঐক্যের স্বার্থে তাদের যে কোন অপতৎপরতাকে প্রতিহত করা হবে। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে তৃনমুল নেতাকর্মীদের ঐক্যের ডাক দিলেন বক্তারা।  ১৫ আগস্ট বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার জন্মদিন পালনেরও সমালোচনা করেন বক্তারা।

এর আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র আত্মার শান্তি কামনা করে দলীয় কার্যালয়ে মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ মোনাজাত এবং কাঙালী ভোজের আয়োজন করা হয়। মিলাদ ও দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন মাটিরাঙ্গা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাও. মো. হারুন অর রশীদ




মাদার তেরেসা এ্যাওয়ার্ড পদকে ভূষিত হলেন উখিয়ার প্রভাষক শারিকা

উখিয়া প্রতিনিধি:

শিক্ষা ও সমাজ সেবায় বিশেষ অবদানের জন্য ‘ইউনাইটেড মুভমেন্ট হিউম্যান রাইটস’ কর্তৃক মাদার তেরেসা এ্যাওয়ার্ড’১৭-এ ভূষিত হয়েছেন কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী মাতবর পরিবারের উত্তরসূরী মরহুম গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীর সুযোগ্য কন্যা ও টেকনাফ ডিগ্রি কলেজের বাংলার প্রভাষক পারিয়েল সামিহা শারিকা।

১৩ আগস্ট ঢাকা সেগুন বাগিচাস্থ প্রফেসর আকতার ইমাম অডিটরিয়ামে ‘ইউনাইটেড মুভমেন্ট হিউম্যান রাইটস’এর উদ্যোগে আয়োজিত সম্মাননা-পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে পারিয়েল সামিহা শারিকাকে এ মাদার তেরেসা এ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়। এ সম্মাননা-পদক বিতরণ অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন ভাষা সৈনিক রেজাউল করিম, প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিচারপ্রতি মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান, বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব পীরজাহা শহীদুল হারুন, সভাপতিত্ব করেন ‘ইউনাইটেড মুভমেন্ট হিউম্যান রাইটস এর চেয়ারম্যান এড. লুৎফুল আহসান বাবু।

পারিয়েল সামিহা শারিকা’র মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, নারী শিক্ষা ও সমাজ সেবায় বিশেষ অবদান রাখায় ‘ইউনাইটেড মুভমেন্ট হিউম্যান রাইটস’ তাকে ‘মাদার তেরেসা এ্যাওয়ার্ড-২০১৭’-এ ভূষিত করেছেন। তিনি আরও বলেন, একই সংস্থা তাকে ২০১৬ সালে শান্তি পদকেও ভুষিত করেছিলেন। তিনি অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, আমি খুবই আনন্দিত। সমাজের কল্যাণে কাজ করে স্বীকৃতি পাওয়াটা বর্তমান সময়ে খুবই কঠিন তারপরও আমি যতটুকু স্বীকৃতি পেয়েছি তাতে ধন্য। সমাজ ও নারী শিক্ষা প্রসারে আগামীতেও কাজ করার ইচ্ছা আছে।

উল্লেখ্য, পারিয়েল সামিহা শারিকা চট্টগ্রাম কলেজ থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিষয়ে সম্মানোত্তর সম্পন্ন করে ২০১২ খ্রিস্টাব্দ থেকে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটি, কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজ ও সর্বশেষ টেকনাফ ডিগ্রি কলেজে প্রভাষক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।