কুতুবদিয়ায় আ’লীগের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন প্রস্তুতি সভা 

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উদযাপন উপলক্ষে উপজেলার ৬ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এক প্রস্তুতি সভা বৃহস্পতিবার ধুরুং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিকাল ৪টায় অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বড়ঘোপ ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মেম্বার আবুল কালামের সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়ন আ’লীগ সভাপতি মোতাহের হোসেন কোম্পানী, সেক্রেটারি সাইফুল আলম সিকদার, উত্তর ধুরুং ইউনিয়ন সেক্রেটারি মামুনুর রশিদ কফিল, লেমশীখালী ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি রফিক সিকদার, সেক্রেটারি রেজাউল করিম, কৈয়ারবিল ইউনিয়ন আ‘লীগের যুগ্ন আহবায়ক মোসলেম উদ্দিন ও মোসলেম খাঁন, বড়ঘোপ ইউনিয়ন আ‘লীগের সেক্রেটারি মিজানুর রহমান টিটু, আলী আকবর ডেইল ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মেম্বার জাহাঙ্গীর আলম সিকদার, সেক্রেটারি আব্দুল মোতালেব প্রমুখ।

সভায় শহীদ দিবস যথাযথ মর্যাদায় উদযাপনে সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয় বলেও ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দরা জানান।




কুতুবদিয়ায় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে লবণচাষি আহত

Dakat-

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি :
কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় লবণ মাঠের পানি চলাচলে বাধা প্রদানকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে মো. হোছাইন (২৫) নামের এক লবণচাষি গুরুতর জখম হয়েছেন।

সোমবার( ১৩ ফেব্রুয়ারী) সকাল ১০টায় উপজেলার উত্তর ধুরুং তেলিয়াকাটা গ্রামে এঘটনা ঘটে।

আহত মো. হোছাইন ঐ গ্রামের মোজাফ্ফর আহমদের ছেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা আহত মো. হোছাইনকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করালে রোগীর অবস্থা আশংকাজনক দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে রেফার করা হয় বলে হাসপাতাল সূত্র জানিয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার সকালে লবণ মাঠে পানি তোলা নিয়ে একই এলাকার আব্দুল ছালামের ছেলে মো. হামিদের সাথে আহতের ছোট ভাই মো. শরীফের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। ঐ সময়ে মো. হোছাইন উভয়কে ঝগড়া থেকে বিরত রাখার চেষ্টাকালে ছালামের বড় ছেলে আবুল বশর ছুরি নিয়ে এসে মো. হোছাইনকে আঘাত করে।

এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে আহতের পিতা মোজাফ্ফর আহমদ জানান।




কুতুবদিয়ায় বিষপানে যুবতীর আত্মহত্যার চেষ্টা

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টায় এখন মৃতপথযাত্রী এক যুবতী। শুক্রবার ভোর ৬টার দিকে ওই যুবতীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে তার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, উপজেলা সদর বড়ঘোপ দক্ষিণ অমজাখালী গ্রামের নুরুচ্ছালামের যুবতী কন্যা কহিনুর (১৮) বৃহস্পতিবার গভীর রাতে বিষপান করে ঘরের দরজা বন্ধ করে রাখে। এ সময় বাড়ির সবাই অন্যত্র একটি বিয়ে বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন।

শুক্রবার ভোরে এসে ঘরের দরজা খুলে কহিনুরকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয় ভোর ৬টার দিকে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বিধায় জরুরী বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য জেলা সদর হাসপাতালে পাঠান।




কুতুবদিয়ায় বিষপানে যুবকের আত্মহত্যার চেষ্টা

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় গভীর রাতে বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে এক যুবক। মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে উপজেলার উত্তর জোন আকবর বলী পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, উত্তর ধুরুং আকবর বলী পাড়ার জকির আলমের পুত্র শাহরিয়ার (১৮) পারিবারিক কলহের জেরে মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে ঘরে রাখা বিষপান করে। বিষয়টি তার পরিবারের লোকজন জেনে দ্রুত তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। শাহরিয়ারকে জরুরী বিভাগে স্টমাক ওয়াশ করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

উল্লেখ্য, উপজেলার বিভিন্ন প্রান্তে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা আশঙ্কাজনক হারে বেড়েই চলেছে।




কুতুবদিয়ায় লবণের মাঠে সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ১১

16508483_1238411106272676_4149738391192376400_n

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় লবণের মাঠ দখলকে কেন্দ্র করে গোলাগুলিতে আহত হয়েছে ১১ জন। রবিবার সকাল ১১ টার দিকে উপজেলা সদর বড়ঘোপ আজম কলোনি এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, বড়ঘোপ আজম কলোনির পূর্ব পার্শ্বে প্রায় ৫০ একর লবণ জমি প্রান্তিক লবণ চাষিদের মাঝে জেলা শ্রমিকলীগ’র যুগ্ম সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরীর পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে লীজ নেয়া নিয়ে বিরোধ চলছিল।

রবিবার সকাল ১১টার দিকে ওই মাঠে অতর্কিত ২০/২২ জনের একটি গ্রুপ ও চাষিদের মাঝে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে। এ সময় মুখোশ পরিহিত কয়েকজন গুলি বর্ষণ করতে থাকে। এতে অন্তত ১১ জন গুলিবিদ্ধ হয়। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়।

আহতরা হলেন বড়ঘোপ বদাইয়া পাড়ার রাশেদ(২৮), একই পাড়ার মো. হোছাইন (২৫), জাফর আলম (৬০), মিয়াজির পাড়ার রহিম উল্লাহ (৭০), আজম কলোনির পেচুঁ মিয়া(৫৫), একই এলাকার মাহমুদ হোছাইন (৫০), জালাল আহমদ (৭৫), আনোয়ার হোসেন (৪০), বেলাল হোসাইন (২৮), মো. বেলাল (৩৬), মনোহর খালীর আমীর হামযা (৩০)।

গুলিতে আহতদের মধ্যে রাশেদ, রহিম উল্লাহ, পেঁচু মিয়া, মুহা. হোসেন, জালাল আহমদকে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হলে একজন ভর্তি ও বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

একই মাঠের লবণ চাষি আজম কলোনির বাদশা বলেন, লবণ মাঠ দখল করতে ব্যক্তিরা মাঠের পলিথিন কিরিচ দিয়ে কেটে লণ্ড-ভণ্ড করে দিয়েছে।

থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) অংসা থোয়াই বলেন, সংঘর্ষের খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌঁছলে তারা পালিয়ে যায়। তবে এ ঘটনায় কেউ মামলা দিলে তা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান।




কুতুবদিয়ায় জামাতার ছুরিকাঘাতে শ্বশুর খুন

Ahoto copy

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় পাষণ্ড জামাতার ছুরিকাঘাতে খুন হলেন শ্বশুর। শ্বশুর আবু মুছা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা চলা অবস্থায় শনিবার বিকাল ৩ টার দিকে প্রাণ হারান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ওই গ্রামের মৃত আশরফ মিয়ার পুত্র দেলোয়ার তার স্ত্রী শিমুকে শুক্রবার সন্ধ্যায় মারধর করে। এ খবর পেয়ে রাতে শিমুর পিতা আবু মুছা (৫০) জামাতার বাড়িতে গেলে দেলোয়ার ধারালো ছুরি দিয়ে শ্বশুরের পেটে সজোরে আঘাত করলে সহসাই পেটের ভুড়ি বেরিয়ে যায়।

অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ অবস্থায় তাকে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে অবস্থার প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান কর্তব্যরত চিকিৎসক।

শনিবার বিকাল ৩টার দিকে চিকিৎসা চলাকালীন আবু মুছা মারা যান বলে তার পরিবারের সদস্যরা নিশ্চিত করেন। তিনি একই ইউনিয়নের আলী ফকির ডেইল গ্রামের মৃত আ. মোতালেব‘র পুত্র। তার ৪ ছেলে ও ৫ মেয়ে রয়েছে। ছরিকাঘাত করেই জামাতা দেলোয়ার পালিয়ে যায় বলেও জানা গেছে।




কুতুবদিয়ায় পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু

মৃত্যু

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় পুকুরে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার দুপুরে দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়নের অলী পাড়া গ্রামে পানি ডুবির ঘটনাটি ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসাতাল সূত্র জানায়, ওই গ্রামের ইসমাঈলের শিশু কন্যা আইমন (২) বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সবার অগোচরে পাশের পুকুর পাড়ে খেলতে গিয়ে ডুবে যায়।

বেশ খানিক পর তাকে তল্লাশীর পর পুকুর থেকে উদ্ধার করে প্রথমে ধুরুং বাজারে একজন প্রাইভেট ডাক্তারের চেম্বারে এবং পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক শিশুটি মৃত বলে জানান।




কুতুবদিয়ায় বিষপানে এক ব্যক্তির আত্মহত্যার চেষ্টা

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় বিষপানে এক ব্যক্তি আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। মঙ্গলবার উপজেলা সদর বড়ঘোপ মাতবর পাড়ায় এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে বড়ঘোপ মাতবর পাড়ার তজু মিয়ার পুত্র ইদ্রিস (৩৫) স্ত্রীর সাথে ঝগড়া করে ছেলেকে কেড়ে নিতে চাইলে স্ত্রী বাধা দেওয়ায় ক্ষোভে বাড়িতে রাখা কীটনাশক পান করে।

এ সময় স্ত্রী সহ প্রতিবেশিরা তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। জরুরী বিভাগে স্টমাক ওয়াশ করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ইদ্রিসকে।

ইদ্রিসের স্ত্রী চট্টগ্রামে কন্যা সহ একটি গার্মেন্টস এ চাকুরী করে। ছুটি নিয়ে মঙ্গলবার সকালে বাড়িতে আসে বলেও জানা যায়।




কুতুবদিয়ায় বিষপানে শিশুর আত্মহত্যার চেষ্টা

Poision copy

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে এক হেফজ পড়ুয়া ছাত্র। সোমবার  উপজেলার উত্তর ধূরুং বাঁকখালী গ্রামে বিষপানের ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, সোমবার সন্ধ্যায় ওই গ্রামের জামাল উদ্দিনের শিশু পুত্র মো. ইয়াসিন আরাফাত (১১) নিয়মিত হেফজখানায় না যাওয়ায় তার পিতা মারধর করে। অভিমানে আরাফাত লবণমাঠে ব্যবহৃত কীটনাশক পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়।

শিশুটির মা নার্গিস আক্তার বলেন, আরাফাত স্থানীয় ওমর বিন ইবনে খাত্তাব মাদ্রাসায় হেফজ বিভাগে পড়া-শোনা করে। ১৬ পারা শেষ করলেও নিয়মিত মাদ্রাসায় না যাওয়ায় তার পিতা সোমবার মারধর করায় কাছারী ঘরে রাখা বিষপান করলে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। এ সময় জরুরী বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সহ হাসপাতালে ভর্তি করেন।

 




কুতুবদিয়ায় এসএসসি ১০৮৮, দাখিলে ৪৮৫ পরীক্ষার্থী

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় এবার দু‘টি কেন্দ্রে এসএসসিতে পরীক্ষার্থী ১০৮৮ জন। এর মধ্যে কুতুবদিয়া সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ৬৮৪ জন এবং ধুরুং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে  ৪০৪ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে বলে কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে।

কুতুবদিয়া সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের  ৭৬ জন, কুতুবদিয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৮৭ জন, ধুরুং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়’র ২০৫ জন, কবি জসীম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়’র ১১২ জন, আলী আকবর ডেইল উচ্চ বিদ্যালয়’র ৮০ জন, লেমশীখালী উচ্চ বিদ্যালয়’র ১১০ জন, সতরুদ্দীন উচ্চ বিদ্যালয়’র ১৩৬ জন এবং কৈয়ারবিল আইডিয়াল হাই স্কুলের ৮২ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে।

অপর দিকে মাদ্রাসা বোর্ডের অধিনে বড়ঘোপ ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে দাখিল পরীক্ষায় উপজেলার ৯টি মাদ্রাসার মোট ৪৮৫ জন শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে বলেও কেন্দ্র সূত্র জানায়। এর মধ্যে বড়ঘোপ ইসলামিয়া ফাজিল(ডিগ্রী) মাদ্রাসার ৮০ জন, ধুরুং ছমদিয়া আলিম মাদ্রাসার ৫৫ জন, গাউছিয়া দাখিল মাদ্রাসার ৬৭ জন, আল ফারুক দাখিল মাদ্রাসার ৮৭ জন, কুতুবদিয়া জামেয়া নুরানিয়া বালিকা দাখিল মাদ্রাসার ৪৩ জন, ইমাম আবু হানিফা একাডেমি দাখিল মাদ্রাসার ৩৫ জন, কুতুব আউলিয়া দাখিল মাদ্রাসার ৩৪ জন, আলী আকবর ডেইল দাখিল মাদ্রাসার ৩১ জন এবং দারুল হিকমাহ্ আল মালেকিয়া দাখিল মাদ্রাসার ৫৩ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

কুতুবদিয়া সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্র সচিব মাষ্টার সজল দাশ বলেন, এসএসসি পরীক্ষা গ্রহণে ইতিমধ্যে সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। অতীতের ন্যায় এবারও পরীক্ষা কেন্দ্রে সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ণ নকলমুক্ত পরিবেশে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।