কুতুবদিয়া থানায় নতুন ওসি দিদারুল ফেরদাউস

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:
কুতুবদিয়া থানায় নতুন অফিসার ইনচার্জ(ওসি) যোগদান করেছেন। রবিবার (১৩ আগষ্ট) ওসি মোহাম্মদ দিদারুল ফেরদাউস যোগদান করেন বলে থানা সূত্র জানিয়েছে।

তিনি বিদায়ী ওসি মুহাম্মদ মুস্তাফিজ ভুইয়ার স্থলাভিষিক্ত হলেন। এর আগে তিনি মহেশখালী থানায় কর্মরত অবস্থায় জাতিসংঘ মিশনে গিয়ে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন শেষে ফিরে এসে কুতুবদিয়ায় যোগদান করেন। তিনি চট্টগ্রামের পাহাড়তলীর বাসিন্দা বলে জানা গেছে।




কুতুবদিয়ায় বিষপানে বৃদ্ধের মৃত্যু, যুবক হাসপাতালে

 

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় বিষপানের ফলে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। পুথক আরেকটি বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টায় এক যুবক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত বুধবার (৯ আগস্ট) উপজেলার উত্তর ধুরুং প্রদীপ পাড়ার মৃত লাবনী দাশের পুত্র মৃদন দাশ (৫৫) বিষপান করলে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হয়। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রেফার করা হয় তাকে। চট্টগ্রামে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩ দিন পর শনিবার তার মৃত্যু হয় বলে থানা সূত্রে জানা গেছে।

অপর দিকে শনিবার (১২ আগস্ট) লেমশীখালী ইউনিয়নের আলী আকবর সিকাদার পাড়ার মো. আজমের পুত্র জিগার (২৫) সন্ধ্যা ৫টার দিকে স্থানীয় ধূরুং বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় মিরাখালী সড়কে বিষপান করে। এসময় পথচারিরা দেখে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তাকে প্রয়োজনীয় স্টমাক ওয়াশ করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বড় ভাইয়ের শালিকার অন্যত্র বিয়ের কাবিন হওয়ায় যুবকটি বিষপান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালিয়েছে বলে প্রতিবেশীরা জানান। অবশ্য সে কাবিনটিও বাতিল করা হয়েছে বলেও তারা জানান।




কুতুবদিয়ায় সাংবাদিক নজরুলের পিতার ইন্তেকাল

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

দৈনিক আজকের কক্সবাজার প্রতিনিধি, ক্রাইম ভিশন ২৪ ডটকম, কুতুবদিয়া মহিলা কলেজের প্রভাষক ও কুতুবদিয়া অনলাইন প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি এম. নজরুল ইসলামের পিতা মো. শরীফ (৬৮) বৃহস্পতিবার ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি —–রাজিউন)।

বৃহস্পতিবার (১০ আগস্ট) সকাল ১১টায় চকরিয়া বরইতলীস্থ অস্থায়ী বাসভবনে মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টায় কুতুবদিয়া উপজেলার বড়ঘোপ মুরালিয়া জামে মসজিদ সংলগ্ন মাঠে জানাজার নামাজ শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।

মৃত্যুকালে তিনি তিন পুত্র, দুই কন্যা ও আত্মীয়-স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার মৃত্যুতে কুতুবদিয়া অনলাইন প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক এম এ মান্নান, সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক ইফতেখার শাহজীদ, যুগ্ম সম্পাদক অধ্যাপক আওরঙ্গজেব সিকদার ও সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক আবুল কাশেমসহ সকল সদস্যরা গভীর শোক প্রকাশ ও শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।




হাসপাতাল গেইট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির কমিটি গঠিত

 

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কুতুবদিয়া বড়ঘোপ হাসপাতাল গেইট ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির নতুন কমিটি গঠিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে এক সাধারণ সভা সমিতি অস্থায়ী কার্যালয়ে সোমবার অনুষ্ঠিত হয়। সভায় এক বছরের জন্য ২১ সদস্য বিশিষ্ট কার্যকরি কমিটি গঠন করা হয়।

সভাপতি-ফজল কাদের, সাধারণ সম্পাদক-মুহাম্মাদ রাইসুল ইসলাম রুবেল, অর্থ সম্পাদক- এমএ মান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক-এডভোকেট তশরীফুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক-মো. তৌহিদুল ইসলাম, সদস্য- আনিসুজ্জামান খান সুমন, মো. তারেক, মাও. মো. শওকত ওসমান, তাকবীর হাসান, সাইফুল ইসলাম, আক্তার আলম সও:, তোফাইল আহমদ, সৈয়দ কামরুল হাসান, জিয়াউল হক, মো. ইছহাক উদ্দিন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, বেলাল সওদাগর, মন্জুর আলম, নাজিম উদ্দিন, মো. জালাল ও মো. ইছহাক।




কুতুবদিয়ায় ৩ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গম বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

 

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কুতুবদিয়ায় উত্তর ধুরুং, দক্ষিণ ধুরুং ও কৈয়ারবিল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ভিজিএফ গম বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ দেয়া হয়েছে উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে।

রবিবার (৬ আগস্ট) স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ এ অভিযোগ দেন। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ঈদুল ফিতর উপলক্ষে সরকারি বরাদ্দকৃত ভিজিএফ চালের পরিবর্তে “গম বিতরণে মাপে কম দেয়া হয়েছে কার্ডধারীদের।

কৈয়ারবিল ইউনিয়নে ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মনজুর আলম বাদী হয়ে গম আত্মসাতের অভিযোগ এনে ওই ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান জালাল আহমদের বিরুদ্ধে। দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোতাহের কোম্পানী, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ইয়াছিন ও জনৈক জাফর আলম বাদী হয়ে গম আত্মসাতের অভিযোগ করেছেন ওই ইউনিয়নের ইউপি চেয়ারম্যান ছৈয়দ আহমদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে।

অন্যদিকে একই অভিযোগ এনে উত্তর ধুরুং ইউপির চেয়ারম্যান আ.স.ম শাহরিয়ার চৌধুরীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই ইউনিয়নের ৬নং ওয়াড’র্র মৃত মোজাফ্ফর আহমদের পুত্র উপজেলা আওয়ামী লীগের সক্রিয় কর্মী দলিলুর রহমান।

অভিযোগে জানা যায়, বিগত ঈদুল ফিতর উপলেক্ষ্যে হত-দরিদ্র ও অসহায় পরিবারকে সরকারি ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় সহায়তা প্রদানের জন্য উত্তর ধুরুং ইউনিয়নে ২,৯৪০টি, দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়নে ১,৭৫০টি এবং কৈয়ারবিল ইউনিয়নে ১,৭০০টি কার্ড বিতরণ করা হয়। প্রতিটি কার্ডের বিপরীতে ১০ কেজি করে চাল বিতরণের কথা ছিল। কিন্তু কুতুবদিয়া খাদ্য গুদামে পর্যাপ্ত পরিমাণ চাল মজুদ না থাকায় চালের পরিবর্তে  গম বরাদ্দ দেয়া হয়।

কুতুবদিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ের ১৫/০৪/২০১৭ তারিখের ৫১.০১.২২৪৫.০০০.৪১.০০১.১৫.৬৭ স্মারকে কৈয়ারবিল ইউনিয়নে ১৭ টন, দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়নে ১৭.৫০ টন ও উত্তর ধুরুং ইউনিয়নের জন্য ২৯ টন চারশত কেজি চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। যা চালের বিপরীতে গমের অনুপাতে কার্ড প্রতি ১৩.২৭৫ কেজি গম দেয়ার কথা থাকলেও প্রত্যেক কার্ডধারীকে ৪/৫ কেজি কম দিয়ে বাকী গম আত্মসাৎ করেছে ইউপি চেয়ারম্যান ত্রয়। এর মধ্যে উত্তর ধুরুং ইউপি চেয়ারম্যান ১১ টন, দক্ষিণ ধুরুং ইউপি চেয়ারম্যান ৭ টন ও কেয়ারবিল ইউপির চেয়ারম্যান সাড়ে ৬ টন গম আত্মসাৎ করেছে বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

দক্ষিণ ধুরুং ইউপি চেয়ারম্যান ছৈয়দ আহমদ চৌধুরী বলেন,  প্রত্যেক কার্ডধারীকে সমানভাবে ১৩ কেজি করেই চাল/গম বিতরণ করা হয়েছে। কোন অনিয়ম হয়নি বলে জানান তিনি। এছাড়া উত্তর ধুরুং ও কৈয়ারবিল ইউপি চেয়ারম্যানদ্বয়ও একই কথা জানিয়ে বলেন, গম বিতরণে কোন অনিয়ম বা মাপে কম দেয়া হয়নি।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুজন চৌধুরী বলেন ভিজিএফ’র গম বিতরণে একাধিক ইউনিয়নে অনিয়মের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। কর্মকর্তাদের নিয়ে একটি তদন্তটিম তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।




কুতুবদিয়ায় বিষপানে কিশোরীর আত্মহত্যা

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় বিষপান করে এক কিশোরী আত্মহত্যা করেছে। সোমবার (৩১ আগস্ট) গভীর রাতে উপজেলার কৈয়ারবিল বিন্দা পাড়ায় বিষপানের ঘটনাটি ঘটেছে। মঙ্গলবার ভোর রাতে হাসপাতাল থেকে পুলিশ কিশোরীর লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করেছে।

হাসপাতাল ও থানা সূত্র জানায়, ওই গ্রামের আবুল কাশেমের কিশোরী কন্যা ফাতেমা বেগম(১৪) সোমবার রাত ১২টার দিকে নিজ ঘরে লুকিয়ে বিষপান করে। পরে পরিবারের সদস্যরা জানতে পেরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাতেমাকে মৃত বলে জানান।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জিয়া মো. মুস্তাফিজ ভুঁইয়া বলেন, কৈয়ারবিল বিন্দা পাড়ায় বিষপানে নিহত কিশোরীর লাশ মঙ্গলবার ভোর রাতে হাসপাতাল থেকে উদ্ধার করে ওই দিনই জেলা সদর হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। এব্যাপারে একটি অপমৃত্যু মামলার কথা জানান ওসি।

মা বকা দেয়ায় বিষপান করেছে বলে নিহতের পারিবারিক সূত্র জানিয়েছে।




কুতুবদিয়ায় বসত বাড়িতে অগ্নিকান্ড : লাখ টাকার ক্ষতি

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:
কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় বসত বাড়িতে আগুন লেগে এক বসত বাড়ি পুড়ে গেছে। অগ্নিকান্ডে প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে জানা গেছে। রবিবার ভোর রাতে উপজেলার দক্ষিণ ধুরুং নয়া পাড়া গ্রামে অগ্নিকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে। এতে প্রায় লক্ষাধিক টাকারও অধিক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীদের মধ্যে ইউপি সদস্য নুরুল আবছার, সাবেক সদস্য আবু তাহের আনচারী সহ বাসিন্দা আবদুল হক, মনজুর আলম, সেলিম প্রমুখরা জানিয়েছে, গত রবিবার ভোর রাত তিনটার দিকে নয়া পাড়া গ্রামের কলিম উল্লাহর বাড়িতে বাড়িতে আগুন লাগলে চারদিকে হৈ চৈ পড়ে যায় এবং প্রতিবেশীরা এসে আগুন নেভাতে চেষ্টা করেন। তবে এতক্ষণে বাড়ির লক্ষাধিক টাকার সম্পদ পুড়ে গেছে।

বাড়ির মালিক কলিম উল্লাহ বলেন, বসত বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে কে বা কারা ভোর রাতে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। ঘরে সাগরে মাছ ধরার জাল, মেশিন ও সিমেন্টের বস্তাসহ পাঁচ লক্ষাধিক টাকার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছিল। এসব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এলাকার কেউ শত্রুতাবশত: ঘরে আগুন দিয়েছে বলে মনে করছেন তিনি।

এদিকে বসত বাড়িতে আগুন লাগা নিয়ে এলাকায় দেখা দিয়েছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। স্থানীয়রা বলেছে আগুন লাগার আধ ঘন্টার মধ্যে পুড়ে ছাঁই হয়ে গেছে বাড়িটি। তাদের ধারণা বাহির থেকে পেট্রোল বা অন্য কোন দাহ্য পদার্থ ব্যবহার করে আগুন লাগানো না হলে এত কম সময়ের মধ্যে সম্পূর্ণ বসতবাড়ি পুড়ে ছাঁই হওয়া সম্ভব নয়।

এব্যপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান ছৈয়দ আহমদ চৌধুরী ঘটনা নিশ্চিত হয়ে বলেন, ভোর রাতে কলিম উল্লাহর বাড়িতে অগ্নিকান্ডটি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। এতে তার ঘরটি সম্পূর্ণ ভস্মিভূত হয়ে বিপুল পরিমাণ ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী পরিবারকে কুতুবদিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করার পরামর্শ দিয়েছেন বলে তিনি জানান।




কুতুবদিয়ায় উচ্চ মাধ্যমিকে সেরা সাবরিনা

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

সদ্য প্রকাশিত এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় কেউ জিপিএ-৫ পায়নি কুতুবদিয়া উপজেলায়। ফলাফল বিপর্যায়েও  সেরা ফলাফল করেছে সাবরিনা সুলতানা ডলি।

একটি সরকারি কলেজ, দু’টি মাদ্রাসা ও একটি টেকনিক্যাল কলেজ থেকে মোট ৪৮৫জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাশ করেছে ২০৫জন। এর মধ্যে সর্বোচ্চ জিপিএ পয়েন্ট ৪.৮৩ পেয়েছে কুতুবদিয়া টেকনিক্যাল ও বিএম কলেজের ছাত্রী সাবরিনা সুলতানা ডলি। সে উপজেলার ধুরুং বাজারের হোটেল ব্যবসায়ী মানিক সওদাগরের মেয়ে। ৭ বোনের মধ্যে ডলি ৩য়। পরীক্ষার মাত্র এক মাস আগেই তার বিয়ে হয়।

কলেজের শিক্ষকরা মনে করেন পরীক্ষার আগে তার বিয়ে না হলে জিপিএ-৫ অর্জন করতে পারতো সে।

 




কুতুবদিয়া হাসপাতালে ৪ ধাত্রী নার্সের যোগদান

 

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

কুতুবদিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আরো ৪ সিনিয়র নার্স যোগদান করেছেন। তারা ডেলিভারিতে বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে একটি প্রকল্পের অধিনে কাজ করবেন।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, আগে যোগদানকৃত ১২ নার্স রয়েছে। সম্প্রতি ঘুর্ণিঝড় মোরা’য় আঘাতের পর একটি প্রকল্পের বিশেষ টিম হিসেবে ডেলিভারিতে  ধাত্রী নার্স দেয়া হয়েছে। তারা প্রাথমিক পর্যায়ে ৪ মাস থাকবেন। নিয়মিত সাধারণ ডেলিভারির দায়িত্বের পাশা পাশি অন্য সেবাও দেবেন। এর আগে হাসপাতালে ডেলিভারি রোগীদের সেবা দেয়া হলেও ঝুঁকিপূর্ণ নরমাল ডেলিভারি করানো সম্ভব হতো না। এখন সে সেবাটাও নিয়মিত পাবে রোগীরা।

এ জন্যে লেবার রুম সহ আনুসাঙ্গিক যন্ত্রপাতিও প্রস্তুত। যোগাযোগ-যাতায়াত ব্যবস্থার অপ্রতুল দ্বীপে সাধারণ রোগীর পাশাপাশি গর্ভবর্তী রোগীদের ডেলিভারির পূর্ণ নিশ্চয়তা দেওয়া যেতনা অনেক সময়। এ ৪ নার্স যোগদানের পর সে ভোগান্তি দূর হবে বলে মনে করেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পালাক্রমে দিবা-রাত্রি সেবা দিবেন তারা।

হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. মো. জয়নুল আবেদীন বলেন, ধাত্রী বিদ্যায় বিশেষ প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত ৪জন নার্স যোগদান করায় প্রত্যন্ত অঞ্চলের গর্ভবর্তী মহিলাগণ চিকিৎসকের পরামর্শে এখন কুতুবদিয়া হাসপাতালে ২৪ ঘন্টা নিরাপদ ডেলিভারি করানোর সুযোগ পাবে সম্পূর্ণ বিনা পয়সায়। এ ছাড়া আনুসাঙ্গিক অতি প্রয়োজনীয় ঔষধ সেবাও পাবেন তারা। প্রাথমিক পর্যায়ে ধাত্রী নার্সগণ ৪ মাসের জন্য এলেও প্রয়োজনে এসময় বাড়ানো হতে পারে বলে তিনি জানান।




জোয়ার ও টানা বর্ষণে কুতুবদিয়ার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

কুতুবদিয়া প্রতিনিধি:

টানা বর্ষণ আর অতিরিক্ত জোয়ারে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে পানি ঢুকে তলীয়ে গেছে কক্সবাজারের কুতুবদিয়ার নিম্নাঞ্চল। গত কয়েকদিনে উপজেলার ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ বিশেষ করে নিম্নাঞ্চলের এলাকায় বন্যার ন্যায় মানুষ মানবেতর দিন কাটাচ্ছে।

মঙ্গলবার পর্যন্ত উপজেলার উত্তর ধুরুং ইউনিয়নের সব বাড়িতেই জোয়ারের সময় পানি প্রবেশ করছে। কাঁচা ঘর-বাড়ি ছেড়ে বাসিন্দারা অন্যত্র চলে গেছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান। পানি দ্রুত দক্ষিণ ধুরুং ইউনিয়নের অর্ধেক, কৈয়ারবিল ইউনিয়নে বেড়িবাঁধের বাইরে ছাড়াও ভিতরে কয়েক’শ কাঁচা বাড়িতে পানি ঢুকে তলিয়ে গেছে।

একই ভাবে আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নে ভাঙা বেড়িবাঁধ দিয়ে জোয়ারের পানি ঢুকে বর্ষণের পানির সাথে একাকার হয়ে নিম্নাঞ্চলের ঘর-বাড়িতে লোনা পানি এখন। এ সব এলাকার মানুষ ভাটার সময় বাড়িতে গেলেও জোয়ারের পানি বৃদ্ধির সাথে তারা অন্যত্র আশ্রয়ে চলে যান।

এ দিকে পানি বৃদ্ধির ফলে গতকাল থেকে ভোটার তালিকা হালনাগাদের কাজেও ব্যাঘাত সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তর ধুরুং বাঁকখালীর ৬নং ওয়ার্ডে নিবন্ধনে দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক মফিজুল আলম বলেন, পথ-ঘাট তলিয়ে যাওয়ায় বাড়ি বাড়ি যাওয়া সম্ভব হচ্ছেনা। কোথাও কোমড় পানি যানবাহনও চলাচল বন্ধ। বড়ঘোপ, লেমশীখালী ইউনিয়নেন বেশ কিছু গ্রামে পানি প্রবেশের খবর পাওয়া গেছে। সপ্তাহ ধরে এমন পরিস্থিতির দরুণ অধিকাংশ কাঁচা ঘর বিনষ্ট হয়ে পড়েছে বলেও এলাকাবাসি জানান।

উত্তর ধুরুং ইউপি চেয়ারম্যান আ.স.ম শাহরিয়ার চৌধুরী বলেন, সময় মতো ভাঙা বেড়িবাঁধ মেরামত করা হলে অন্ততঃ জোয়ারের অতিরিক্ত পানি ঠেকানো সম্ভব হতো। ভারি বর্ষণেও পানি বৃদ্ধির দরুণ উঁচু এলাকাতেও পানি প্রবেশ করেছে। পুরো ইউনিয়ন এখন ধু ধু পানির চরে পরিণত হয়েছে বলেও তিনি জানান।

আলী আকবর ডেইল ইউপি চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা নুরুচছাফা জানান, তার ইউনিয়নের অধিকাংশ নিম্নাঞ্চলে জোয়ারের পানি ও অবিরাম বৃষ্টির পানি প্রবেশ করেছে। কাচা ঘর-বাড়ি সহ ফসলের ক্ষতিও হয়েছে ব্যাপক।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজন চৌধুরী বলেন, বিভিন্ন ইউনিয়নে জোয়ারের পানি ও বৃষ্টির পানি বৃদ্ধির ফলে বেশ কিছু বাড়ি-ঘরে পানি প্রবেশ করেছে এবং অনেক জায়গায় বাড়ির কাছেও পানি প্রবেশ করেছে। ওই সব ইউনিয়নে খোঁজ-খবর নিয়মিত রাখা হচ্ছে। তবে লোকজন আশ্রয় কেন্দ্রে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়নি বলেও তিনি জানান।