ইউরোপের বিলাসবহুল ভ্রমণতরী সিলভার ডিসকভারের ৯০ পর্যটকের মহেশখালী ভ্রমণ

unnamed copy
মহেশখালী প্রতিনিধি:

পর্যটন শিল্পের বিকাশে বাংলাদেশ আরও একধাপ এগিয়ে গেল। বহির্বিশ্বের সাথে জলপথে পর্যটক যাতায়াতে আন্তর্জাতিক রুটে শুভ সূচনা করল বাংলাদেশ। তারই অংশ হিসেবে ৯০ জন পর্যটকবাহী ইউরোপ ভিত্তিক বিলাসবহুল ভ্রমণতরী সিলভার ডিসকভার বুধবার সকালে ভিড়েছে মহেশখালী দ্বীপে।

স্থানীয় প্রশাসনের সার্বিক তত্বাবধানে পর্যটকরা ঘুরে দেখলেন মহেশখালীর ঐতিহ্যবাহী আদিনাথ মন্দির, বৌদ্ধ প্যাগোডা, রাখাইন পল্লী ও পর্যটন সম্ভাবনাময় সোনাদিয়া দ্বীপ। চড়ে বেড়ালেন স্থানীয় যানবাহন রিক্সা ও টমটম গাড়িতে।

পশ্চিম ইউরোপের মোনাকো শহরভিত্তিক সিলভার সি নামের একটি সংস্থার ব্যবস্থাপনায় ওই পর্যটকরা সাগর পথে সরাসরি মহেশখালী দ্বীপে এসে নামেন। বিভিন্ন দেশের পর্যটকের সমন্বয়ে ওই টিম মহেশখালীর বিভিন্ন পর্যটন স্পট ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সোনাদিয়া পরিদর্শন শেষে বিকেলে সাগর পথে রওয়ানা দেন সুন্দরবনের পথে। সাগর পথে বাংলাদেশে এটিই প্রথম কোন ইন্টারন্যাশনাল ট্যুর। সাগর পথে বাংলাদেশে পর্যটক আগমনের এই বিষয়টি দেশের পর্যটন খাতে বড় ধরনের ইতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ দীর্ঘ দিন থেকে শ্রীলঙ্কা, ভারত-মিয়ানমারসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সাথে সাগর পথে ট্যুরিজম ডেভেলপ করার প্রচেষ্টা চালিয়ে আসছিল। গত একবছর চেষ্টার পর এ দেশীয় এজেন্ট জার্নি প্লাসের মাধ্যমে ইউরোপ ভিত্তিক সংস্থা সিলভার সি’র মাধ্যমে বিলাসবহুল ভ্রমণতরী সিলভার ডিসকভার নামের একটি জাহাজ নিয়ে ৯০ জন পর্যটককে বাংলাদেশে পাঠাতে সম্মত হয়েছে।

জানা গেছে, ১১ ফেব্রুয়ারি সিলভার ডিসকভার যাত্রা শুরু করে কলম্বো থেকে। শ্রীলঙ্কা ও আন্দামানে ৯ দিন অতিবাহিত করার পর সিলভার ডিসকভার বঙ্গোপসাগরে যাত্রা শুরু করে। যাত্রার ১১ দিনের মাথায় এটি বুধবার মহেশখালী পৌঁছে। সিলভার ডিসকভারের পর্যটকরা বুধবার ভোরের দিকে বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী দ্বীপ সোনাদিয়ার বাইরে জাহাজটি নোঙ্গর করে স্পিড বোট যোগে প্রথমে সোনাদিয়া ও পরে মহেশখালীর বৌদ্ধবিহার, রাখাইন পল্লী এবং আদিনাথ মন্দির ভ্রমণ করেন এবং পুরোহিতগণের সাথে সাক্ষাত করে তাদের জীবনধারা সম্পর্কে জানেন। তারা স্থানীয় প্রায় ৪০টির মত টমটম গাড়িবহর নিয়ে স্থানীয় অধিবাসীদের জীবনধারা অনুভব করেন।

এসময় তারা বার্মিজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। এসময় মহেশখালী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. শহীদুল্লাহ পর্যটকদের টিম লিডারকে তার রচিত  কোয়েস্ট ফর কোয়ালিটি নামে বই উপহার দেন।

এ ব্যাপারে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম জানান, ৯০ জনের বিদেশী পর্যটক দলটি সকাল ১০ টায় মহেশখালী পৌঁছেন। তারা প্রথমে সোনাদিয়ায় নামেন। সেখানে পরিদর্শন শেষে মহেশখালী জেটিতে পৌঁছলে কক্সবাজারের জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সহকারী পুলিশ সুপার বাবুল চন্দ্র বণিকের নেতৃত্বে মহেশখালী পুলিশ প্রশাসন এবং উপজেলা প্রশাসন পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তা বিধান করেন। বিকালে তারা জাহাজে ফিরে গেছেন।

জানা গেছে পর্যটকবাহী ভ্রমণতরীটি ১৩তম এবং ১৪তম দিনে সুন্দরবন ভ্রমণ করবে। তারা সেখানে সুন্দরবনের বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্যে ঘুরে বেড়াবেন। ১৫তম দিনে এটি কলকাতার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ত্যাগ করবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে প্রাপ্ত খবরে জানা যায়, সমুদ্রপথে বিলাসবহুল জাহাজ পরিচালনাকারী ‘সিলভার সি’ গ্রুপ ৪৭টি জাহাজ দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পর্যটক পরিবহন করছে। এদের দুটি রুটে যুক্ত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। প্রথম রুটটি হচ্ছে শ্রীলঙ্কার কলম্বো থেকে বাংলাদেশ হয়ে কলকাতা। দ্বিতীয় রুটটি হচ্ছে কলকাতা থেকে বাংলাদেশ হয়ে থাইল্যান্ড।




টেকনাফে ফের ৩০০ রোহিঙ্গা পরিবারের মাঝে মালয়েশিয়ার ত্রাণ বিতরণ

teknaf pic 23-2-17 (1) copy

টেকনাফ প্রতিনিধি:

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে ফের ৩০০ পরিবারের মাঝে মালয়েশিয়া সরকারের পাঠানো ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছে জেলা প্রশাসক। বিতরণকালে জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, মালয়েশিয়া সরকারের পাঠানো ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ শুরু হয়েছে। এ ত্রাণ প্রায় সাড়ে ৫ হাজার পরিবারের মাঝে পর্যায়ক্রমে বিতরণ করা হয়েছে। এসব ত্রাণ সামগ্রী দিয়ে রোহিঙ্গা পরিবারের দুই মাসের চাহিদা পূরণ হবে।

সূত্র জানায়, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মাঝে বিতরণের জন্য মালয়শিয়ান সরকার ত্রাণ সামগ্রীগুলো বাংলাদেশে পাঠায়। ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, চিনি, খাদ্যশস্য, ভোজ্যতেল, কম্বল, চিকিৎসার সামগ্রীসহ প্রায় ৩৫ প্রকার পণ্য।

বৃহস্পতিবার সকালে লেদা ক্যাম্পে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সহযোগিতায় বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক আলী হোসেন, রোহিঙ্গা ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমের সমন্বয় কমিটির প্রধান ও কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) সাইফুল ইসলাম মজুমদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার চাউলাউ মারমা, ২ বিজিবির উপ-অধিনায়ক মেজর আবু রাসেল ছিদ্দিকী, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) তুষার আহমেদ, ওসি তদন্ত শেখ আশরাফুজ্জামান, আইওএম এর কক্সবাজার ইনচার্জ অফিসার শাহাজাদ মজিদ প্রমুখ।

 উল্লেখ্য, গত বছরের ৯ অক্টোবর রাখাইন রাজ্যে তিনটি পুলিশ ফাঁড়িতে হামলার ঘটনায় তিন পুলিশসহ ১৮ ব্যক্তি নিহত হয়। এরপর সেখানে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান শুরু করে সেখানকার সেনাবাহিনী। এ পর্যন্ত গত চার মাসে সেনাবাহিনীর অত্যাচার-নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণ ও দমন-পীড়নের মুখে উখিয়া ও টেকনাফে পালিয়ে আসে অন্তত ৯০ হাজার রোহিঙ্গা। এর মধ্যে উখিয়ার কুতুপালং অনিবন্ধিত শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গা। আর টেকনাফের লেদা অনিবন্ধিত শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৩৮ হাজার রোহিঙ্গা।

মালয়েশিয়া সরকার ত্রাণগুলো নটিক্যাল আলিয়া নামে একটি জাহাজে বাংলাদেশে পাঠায়।




শ্রীনগর সীমান্ত হাটে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে মহান ভাষা দিবস উদযাপন

Ramgarh 21.2

রামগড় প্রতিনিধি:

ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে মঙ্গলবার ছাগলনাইয়া ও ভারতের দক্ষিণ ত্রিপুরার সাব্রুমের শ্রীনগর সীমান্ত হাটে দু’দেশের যৌথ উদ্যোগে উদযাপন করা হয়েছে মহান একুশে ফেব্রুয়ারি, আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস। প্রথম বারের মত বাংলাদেশ ভারতের আয়োজনে অনুষ্ঠিত ভাষা দিবসের এ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে শ্রীনগর সীমান্ত হাট পরিণত হয় দুই দেশের মানুষের মিলন মেলায়।

ফেনী ও দক্ষিণ ত্রিপুরা জেলা প্রশাসন দিবসটি উপলক্ষে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে। সীমান্ত হাটে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে শহীদ ভাষা সৈনিকদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন অনুষ্ঠানে দু’দেশের দুই প্রধান অতিথি ফেনীর এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী ও ত্রিপুরার লোকসভার সদস্য কমরেড জীতেন্দ্র চৌধুরী। পরে দুই দেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর বেলুন উড়িয়ে এবং মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথিদ্বয়।

দুই পর্বের অনুষ্ঠানমালার প্রথমে অনুষ্ঠিত হয় ভাষা দিবসের আলোচনা সভা। ছাগলনাইয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার  চৌধুরী ও সাব্রুম মহকুমার শ্রীনগর পঞ্চায়েত কমিটির চেয়ারম্যান বাবুল সেনের যৌথ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী, এমপি শিরিন আখতার, ত্রিপুরার লোকসভার সদস্য কমডর জীতেন্দ্র চৌধুরি, দক্ষিণ ত্রিপুরার এমএলএ  রীতা কর, ফেনীর জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান, ফেনীর পুলিশ সুপার রেজাউল হক প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিজিবির জয়লস্কর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল কামরুল ইসলাম, দক্ষিণ ত্রিপুরার পুলিশ সুপার তাপস দেব বার্মা, ডিএম  সিকে জমাতিয়া, ত্রিপুরার এমএলএ প্রভা চৌধুরী, ফেনী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুর রহমান বিকম, পরশুরাম উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মজুমদার, ছাগলনাইয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার, দক্ষিণ ত্রিপুরার এডিএম মনোজ কান্তি সেনসহ দুই দেশের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও  বিভিন্ন পদস্থ সরকারী কর্মকর্তা।

আলোচনা সভা শেষে উভয় দেশের শিল্পীদের পরিবেশনায় এক মনোজ্ঞ সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।




রোহিঙ্গাদের উপর বর্বরোচিত নির্যাতনের বর্ণনা শুনলেন জাতিসংঘের বিশেষ দূত

16923558_662977730571495_1595652294_n

উখিয়া প্রতিনিধি :
কক্সবাজারে উখিয়ার বালুখালী নতুন রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংঘি লি। মঙ্গলবার একুশে ফেব্রুয়ারী দুপুরে এ ক্যাম্প পরিদর্শন করেন।

এ সময় প্রায় দুই ঘন্টা মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর হাতে নির্যাতিত অন্তত পঞ্চাশ জন নারী-পুরুষের কথা শুনেন জাতিসংঘের মানবধিকার বিষয় দূত ইয়াংঘি লি। পরিদর্শনকালে রোহিঙ্গা নাগরিকদের উপর বর্বরোচিত নির্যাতন, হত্যাযজ্ঞ, মানবধিকার লংঘন ও বাড়ি ঘরে অগ্নিসংযোগের বর্ণনা শুনে তিনি মর্মাহত হন।

রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব, স্ব-দেশে ফেরত বিষয়ে আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে মিয়ানমারকে চাপপ্রয়োগ সহ সমস্যা সমাধানের জন্য জাতিসংঘ কাজ করবে বলে নির্যাতিত রোহিঙ্গাদেরকে আশ্বস্ত করেন। এই সময় উপস্থিত ছিলেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহকারী পররাষ্ট্র সচিব বাকী বিবাহ, মিয়ানমারের মানবাদিকার বিষয়ক রিপোর্টার, উখিয়ার সহকারী কমিশনার (ভূমি ) নুরুদ্দিন মো. শিবলী, আইএমও প্রতিনিধি সৈকত বিশ্বাস ও জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারীর কার্যালয়ের বাংলাদেশস্থ কমিউনিকেশন এন্ড পার্টনারশিপ অফিসার নাজ্জিনা মোহসিন।

মিয়ানমারের খিয়াজী পাড়া গ্রামের আব্দুস ছবুরের স্ত্রী আয়েশা খাতুন (৪৫) বলেন, গত দুই মাস আগে দুই ছেলে দুই মেয়েকে নিয়ে নাফ নদী পার হয়ে এ দেশে চলে আসি। ওখানকার মিলিটারী আমার স্বামীকে ধরে নিয়ে গিয়ে গুলি করে হত্যা করেছে। মিয়ানমারের শীলখালী গ্রামের আলী আকবরের স্ত্রী দিলদার বেগম বলেন, গত দেড় মাস আগে স্বামী ও সন্তানকে মিলিটারি হত্যা করে। কোনমতেই পালিয়ে আসি এখানে ঝুপড়ি ঘরে আশ্রয় নিয়েছি। কেয়ারীপাড়া গ্রামের হাজেরা বেগম বলেন আমার স্বামী অনেক দিন ধরে নিখোঁজ আছে। এখনো জানি না কোথায় আছেন,জীবিত না মৃত। মেীলভী জাফর আলম বলেন মিয়ানমার সরকার য়দি নাগরিকত্ব দিলে নিজ দেশে ফিরে যেতে চাই। এ্খনো নতুন রোহিঙ্গা আসছে।

মিযানমারের পোয়াপাড়া গ্রামের সাবেক চেযারম্যান আবুল ফয়েজ বলেন মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী কর্তৃক এ  পর্যন্ত অনেক নারী গণ ধর্ষণের শিকার হয়েছে। তিনি আরো বলেন মিয়ানমার সামরিক বাহিনীর হাতে গণ ধর্ষণের শিকার ৪২ নারী ও গুলিবিদ্ধ ৩৬ পুরুষের নাম সম্বলিত একটি তালিকা ইয়াংঘি লি হাতে তুলে দেন ।




জনপ্রিয়তায় অতীতের সব প্রেসিডেন্টের চেয়ে তলানিতে ট্রাম্প

Trump10-BG20170205121528 (1)

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে কম রেটিংয়ে অবস্থান করছেন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম এক মাসে জনপ্রিয়তায় অতীতের সব প্রেসিডেন্টের চেয়ে তলানিতে অবস্থান করছেন তিনি। নতুন এক জরিপে এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম এক মাসে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টদের গড় রেটিং বা জনপ্রিয়তা হলো শতকরা ৬১ ভাগ। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প অবস্থান করছেন শতকরা ৪০ ভাগে। অর্থাৎ অন্যান্য প্রেসিডেন্টদের তুলনায় তিনি গড়ে ২১ ভাগ জনপ্রিয়তায় পিছিয়ে আছেন।

এ খবর দিয়েছে লন্ডনের অনলাইন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। এতে বলা হয়েছে উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত সংস্থা গ্যালাপ ওই জরিপ পরিচালনা করেছে। এতে ১৫২৭ জন মার্কিন নাগরিকের ওপর জরিপ পরিচালনা করা হয়। এতে বলা হয়েছে, মধ্য ফেব্রুয়ারিতে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের অন্য নেতাদের চেয়ে শতকরা ১১ পয়েন্টে পিছিয়ে পড়েছেন।

এর আগে ক্ষমতার মেয়াদের পথম মাসের শেষ দিকে জনপ্রিয়তায় সর্বনিন্নে ছিলেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন। তার জনপ্রিয়তা ছিল শতকরা ৫১ ভাগ। তবে জনপ্রিয়তার সর্বনিম্নে রেটিংয়ের একটু উপরে ছিলেন আরেক প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যান। এ পর্যায়ে তার জনপ্রিয়তা ছিল শতকরা ৫৫ ভাগ। ওদিকে ক্ষমতা গ্রহণের সময়ও প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা ছিল সর্বনিম্নে। তা ছিল শতকরা ৪৫ ভাগ।

সংখ্যাগরিষ্ঠের অনুমোদনের নিচে থেকে তিনিই প্রথম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেন। তবে হোয়াইট হাউজে প্রথম মাসে জনপ্রিয়তা শুধু তার একারই কমে নি। এ তালিকায় আরও আছেন। ক্ষমতা গ্রহণের প্রথম মাসে উল্লেখযোগ্য হারে জনপ্রিয়তা কমে যায় সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন ও বারাক ওবামার। গ্যালাপ রেকর্ড অনুযায়ী বিল ক্লিনটনের জনপ্রিয়তা কমে যায় শতকরা ৭ ভাগ। এটিই তখন সবচেয়ে বেশি পরিমাণ জনপ্রিয়তা কমে যাওয়া।

তবে প্রেসিডেন্সির প্রথম মাসে জনপ্রিয়তা শতকরা ৭০ ভাগের ওপরে পেয়েছিলেন দু’জন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তার একজন হলেন জন এফ কেনেডি। অন্যজন জিমি কার্টার। রিয়েল এস্টেটের সাবেক ব্যবসায়ী ডনাল্ড ট্রাম্প যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন। তাকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র সহ সারা দুনিয়ায় আলোচনা, সমালোচনা।

তবে বহুল বিতর্কিত মুসলিম বিরোধী নির্বাহী আদেশ  তার জনপ্রিয়তার বেশি ক্ষতি করেছে। তার ওই আদেশ পরে আদালত প্রত্যাহার করেছে। এ ছাড়া জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদ ত্যাগ করেছেন মাইকেল ফ্লিন। যুক্তরাষ্ট্রের ঘোর শত্রু রাশিয়ার সঙ্গে তিনি, ট্রাম্পের নির্বাচনী শিবিরের ও প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তা ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ স্থাপন করেছিলেন।

ট্রাম্প ক্ষমতা গ্রহণের আগেই তারা রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরোপিত অবরোধ নিয়ে আলোচনা করেছিলেন। এর ফলে রাশিয়ার সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। তার নিজের দল রিপাবলিকান ও বিরোধী ডেমোক্রেট দলের প্রথম সারির বেশ কিছু সিনেটর এ ঘটনার তদন্ত দাবি করেছেন। খুব কম সংখ্যক ডেমোক্রেট মনে করেন প্রেসিডেন্ট সুচারুভাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

এমন ডেমোক্রেটের শতকরা হার মাত্র ৮। এসব ঘটনায় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জনপ্রিয়তা কমেছে বলে ধারণা করা হয়। এর আগে প্রেসিডেন্টকে শতকরা ২৪ ভাগ ডেমোক্রেট সমর্থন দিয়েছিলেন। কিন্তু তা এখন নেমে এসছে শতকরা মাত্র ৮ ভাগে। সে যা-ই হোক। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এখনও রিপাবলিকানদের সমর্থন ধরে রেখেছেন।




সন্ত্রাসবাদ ঠেকাতে ভবিষ্যতের ফেসবুকে থাকবে ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা’

zuck021-600x391

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ফেসবুকে যারা আজগুবি খবর ছড়ান, সন্ত্রাসবাদে উস্কানি দেন কিংবা সহিংসতায় ইন্ধন যোগান, তাদের ওপর নজরদারি করতে পারে এমন ‘আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স’ বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা তৈরির পরিকল্পনা করছে ফেসবুক।

মার্ক জাকারবাগ ফেসবুকের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে শুক্রবার যে বিস্তারিত পরিকল্পনা ঘোষণা করেন, তাতে তিনি এরকম আরও কিছু বিষয়ের ওপর আলোকপাত করেছেন।

তিনি বলেছেন, এ কাজ করার জন্য যে ধরণের অ্যালগরিদম তারা তৈরি করবেন, সেটি দিয়ে যেসব ফেসবুক পোস্টে সন্ত্রাসবাদ, সহিংসতা বা উস্কানি থাকবে সেগুলো চিহ্নিত করা যাবে। এমনকি আত্মহত্যা ঠেকাতেও সহায়ক হবে এটি।

মার্ক জাকারবার্গ স্বীকার করেছেন যে অতীতে ফেসবুক অনেক ভুল করেছে।

যে ‘কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা’ বা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স তৈরির পরিকল্পনা ফেসবুক করছে, তাতে বহু বছর লাগবে বলেও জানান তিনি।

ইন্টারনেট সেফটি নিয়ে কাজ করে এমন একটি প্রতিষ্ঠান মার্ক জাকারবার্গের এ ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছে।মার্ক জাকারবার্গ ফেসবুকের ভবিষ্যত সম্পর্কে তার পরিকল্পনা তুলে ধরেছেন সাড়ে পাঁচ হাজার শব্দের এক চিঠিতে।

তিনি এতে বলেছেন, প্রতিদিন ফেসবুকে যে শত শত কোটি পোস্ট প্রকাশিত হয়, সেগুলোর সব পর্যালোচনা করা খুবই কঠিন। বর্তমান কাঠামো এবং প্রক্রিয়া দিয়ে তা করা সম্ভব নয়।

কিন্তু ফেসবুক এখন গবেষণা চালাচ্ছে কিভাবে টেক্সট, ছবি এবং ভিডিও পর্যালোচনা বা পরীক্ষা করে সেখানে বিপদজনক কিছুর ইঙ্গিত আছে কীনা তা বোঝা যাবে।

“এটা এখনো একেবারে প্রাথমিক পর্যায়ে আছে। কিন্তু কিছু কনটেন্ট বা বিষয়বস্তুর ওপর এখনই এটা পরীক্ষা করা হচ্ছে।”

“যেমন আমরা এখন দেখছি সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক খবর এবং সন্ত্রাসবাদ বিষয়ক প্রপাগাণ্ডা বা প্রচারণার পার্থক্য আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স দিয়ে ধরা যায় কিনা।”

মার্ক জাকারবার্গ বলেছেন, তার চূড়ান্ত লক্ষ্য মানুষ যাতে আইনের মধ্যে থেকে তাদের যা পছন্দ সেটা ফেসবুকে পোস্ট করতে পারেন। তবে অ্যালগরিদম সব পোস্টের ওপর নজর রাখবে। ফেসবুক ব্যবহারকারীরাও এমনভাবে সব পোষ্ট ফিল্টার করতে পারবেন, যাতে করে যে জিনিস তারা দেখতে চান না, সেটা যেন তাদের টাইমলাইনে না আসে।

কেউ যদি নগ্নতা পছন্দ না করেন, সেটা তার টাইমলাইনে আসবে না। কেউ সহিংসতা অপছন্দ করলে সেটা তিনি ফিল্টার করে বন্ধ করে দিতে পারবেন।

তবে এসবের জন্য আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে বড় ধরণের অগ্রগতির দরকার হবে বলেও জানান তিনি।

মার্ক জাকারবার্গ বলেন, এর মধ্যে কিছু কিছু বিষয় ২০১৭ সালেই করা যাবে। কিন্তু অন্য বিষয়গুলোর জন্য অনেক বছর অপেক্ষা করতে হবে।

সূত্র: বিবিসি




ট্রাম্পের মুসলিম বিদ্বেষ ইসলাম গ্রহণে উৎসাহ যুগিয়েছে মার্কিন তরুণী লিজাকে

1487258346_8

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : লিজা সাকলিন নামের এক মার্কিন নারী তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে বলেছেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘৃণিত আচরণই তাকে ইসলাম গ্রহণে উৎসাহ যুগিয়েছে। নওমুসলিম ওই নারী আরও বলেছেন, ট্রাম্পের ইসলামবিদ্বেষী কথাবার্তা আমাকে ইসলাম সম্পর্কে জানতে এবং বুঝতে উৎসাহ ও প্রেরণা যুগিয়েছে। যা আমাকে ইসলাম গ্রহণে অনুপ্রাণিত করেছে। এক বছর আগে ট্রাম্পের ঘৃণিত আচরণের কারণে তিনি ইসলাম সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হন বলেও স্ট্যাটাসে উল্লেখ করেন।

ফেসবুকে দেয়া স্ট্যাটাসটিতে বলা হয়েছে এভাবে- এক বছর আগের কথা, ডোনাল্ড ট্রাম্পের কিছু ঘৃণিত আচরণ আমাকে কোরআন পড়তে উদ্বুদ্ধ করে (আমি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত অবস্থায় তুলনামূলকভাবে ধর্মের বিষয়ে তেমন পড়তাম না) এবং আমি এখন এটা আন্তরিকতার সাথে পড়ি। আর এটাই মুসলমানদের সাথে আলাপচারিতার মাধ্যমে আমাকে ইসলাম গ্রহণের ক্ষেত্রে উদ্বুদ্ধ করে। যার ফলে আমি নিজেই কৃতজ্ঞ অনুভব করি।

আমি সিদ্ধান্ত নেই যে, ট্রাম্পের শপথগ্রহণের দিন অর্থাৎ ২০ জানুয়ারি ২০১৭ থেকেই আমি জনসম্মুখে হিজাব পরা শুরু করব সবসময়ের জন্য। আমি গর্বের সাথে হিজাব পরিধান করব এবং আমি মানুষকে গোপনে ও প্রকাশ্যে সবধরনের ধর্মান্ধতার ওপর জানার আহ্বান করব।




বাংলাদেশী তিন চাকমা যুবককে আটক করেছে ত্রিপুরা পুলিশ

গ্রেফতার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, পার্বত্যনিউজ, ঢাকা:
অবৈধ অনুপ্রবেশ, চোরাচালান ও সন্দেহজনক কাজে লিপ্ত থাকার অভিযোগে ভারতের দক্ষিণ ত্রিপুরার গোমতি জেলার বৈরাগি দোকান থেকে বাংলাদেশী তিন চাকমা যুবককে গ্রেফতার করেছে নতুন বাজার পুলিশ স্টেশন। গ্রেফতারকৃত যুবকদের বাড়ি বাংলাদেশের খাগড়াছড়ি ও রাঙামাটি জেলায় বলে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা গেছে।

১৪ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাত্রে নতুন বাজার পুলিশ স্টেশনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে একটি দল মিঠু চাকমা নামের স্থানীয় এক ব্যক্তির বাড়ি তল্লাশী করে এ যুবকদের আটক করা হয়। এসময় বাড়ির মালিক মিঠু চাকমাকেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো নয়ন চাকমা(২৩), বিহবন চাকমা(২৬) এবং ডি চাকমা(২৬)। এদের মধ্যে নয়ন চাকমা ও বিহবন চাকমার বাড়ি খাগড়াছড়ি জেলায় এবং ডি চাকমার বাড়ি রাঙামাটি জেলায়। তারা সকলে অবৈধভাবে ভারতে অনুপ্রবেশ করেছিলো।

প্রকাশিত খবরে দাবি করা হয়েছে, গ্রেফতারকৃতরা বাংলাদেশের নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে লড়াইরত ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্র্যাটিক ফ্রন্ট(ইউপিডিএফ)’র সক্রিয় সদস্য এবং তাদের হয়ে গোয়েন্দাবৃত্তির কাজে নিযুক্ত ছিলো।




সাত বছরের শিশু বানা আলাবেদের দু’লাইনের একটা ছোট্ট ভিডিও বার্তা সাড়া ফেলে দিয়েছে গোটা বিশ্বে

1486094892

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ার বিধ্বস্ত শহর আলেপ্পো থেকে সৌভাগ্যক্রমে প্রাণে বেঁচে যাওয়া শিশুটি ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ছোট্ট ভিডিও বার্তায় প্রশ্ন করে, ‘ট্রাম্প, আপনাকে কি কখনও খাবার বা পানি ছাড়া ২৪ ঘণ্টা ক্ষুধার্ত পেটে থাকতে হয়েছে?

টুইটারে তার ওই আবেগঘন বার্তা ভাইরাল হয়ে বিশ্বে বিবেকবান মানুষকে নাড়া দিয়েছে। সাত বছরের বানা আলাবেদ নিজে টুইটার ব্যবহার করতে পারে না। মা ফাতেমার সাহায্য নিয়ে টুইটারে বিচরণ তার।

সম্প্রতি সিরিয়াসহ সাতটি মুসলিম প্রধান দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর বানা ভিডিও বার্তাটি টুইট করেছে।

ট্রাম্পকে সম্বোধন করে সে বলছে, আপনি কি কখনও খাবার ও পানি ছাড়া ২৪ ঘণ্টা কাটিয়েছেন? শরণার্থী আর সিরীয় শিশুদের কথা একটু ভাবুন।’

যে ভাবে শরণার্থীদের মুখের উপর আমেরিকার দরজা বন্ধ করে দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প, তাতে মানবতার সঙ্কট তৈরি হয়েছে বলে উদ্বিগ্ন বিশ্ব নেতৃবৃন্দ। বানার ভিডিও বার্তা সেই বাস্তবতাটাকে আরও স্পষ্ট করে ফুটিয়ে তুলেছে।

সন্ত্রাসবাদীদের আমেরিকা প্রবেশ রাখার অজুহাতে সাতটি মুসলিম প্রধান দেশের নাগরিকদের আমেরিকায় ঢোকা বন্ধ করে দিয়েছেন ট্রাম্প। শরণার্থীদের আর আশ্রয় দেওয়া হবে না বলেও জানিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু বানা আলাবেদের মতো নিরীহদের কী হবে? তাদের কি যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়ায় ফেলে রেখে মৃত্যুর প্রহর গুণতে বাধ্য করা হবে? ভিডিওটা আরও এক বার এ প্রশ্ন তুলে দিয়েছে।

ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে আলেপ্পোর ওই ছোট্ট মেয়েটার টুইট অবশ্য প্রথম বার নয়। আগেও ট্রাম্পকে টুইটারে প্রশ্ন করেছে সে। সাতটি মুসলিম প্রধান দেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, খারাপ লোকেদের আমেরিকার বাইরে রাখতেই এ ব্যবস্থা।

বানা তখনও ট্রাম্পকে প্রশ্ন করেছিল, আমি কি সন্ত্রাসবাদী? প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের তরফ থেকে কোনও জবাব আসেনি। এ বারও হয়তো আসবে না। কিন্তু বানা উত্তরের অপেক্ষাতেই রয়েছে।

সিরিয়ার অবরুদ্ধ আলেপ্পো শহর থেকে বানা আলাবেদ মায়ের সহায়তায় নিয়মিত টুইট করত। ওই সময় তার টুইটার অ্যাকাউন্ট বিশ্বজোড়া খ্যাতি পায়। ‘আলেপ্পোর টুইটার বালিকা’ হিসেবে খ্যাতিও পেয়ে যায় বানা। ডিসেম্বরে আলেপ্পো থেকে যখন আটকে পড়া মানুষদের উদ্ধার করা হচ্ছিল তখন পরিবারের সঙ্গে উদ্ধার পায় বানা আলাবেদও। এখন সে তুরস্কে বসবাস করছে।




খালি পেটে লিচু: ভারত ও বাংলাদেশে শিশুমৃত্যুর কারণ

lychee

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ভারতের বিহারে দুইবছর আগে মৌসুমী ফল লিচু খাওয়ার পর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল ৩৯০ টি শিশু। তার মধ্যে ১২২ জনই মারা গিয়েছিল। গবেষকরা এখন বলছেন, খালিপেটে লিচু খাওয়ার ফলেই তাদের শরীরে বিষক্রিয়া দেখা দিয়েছিল।

লিচু মৌসুমী ফল হিসেবে বেশ জনপ্রিয় হলেও, ভারত ও বাংলাদেশে কিছু এলাকায় শিশুর মৃত্যুর কারণ হিসাবে লিচু থেকে বিষক্রিয়ার প্রমাণ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, ভারতের বিহার রাজ্য এবং বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে অনেক শিশুর মৃত্যুর কারণ এটি।

আন্তর্জাতিক চিকিৎসা বিজ্ঞান পত্রিকা ‘ল্যানচেট’-এর সাম্প্রতিক সংখ্যায় প্রকাশিত একটি গবেষণা পত্রে এই তথ্য উঠে এসেছে।

খালি পেটে অনেকগুলি লিচু খেয়ে ফেললে শরীরে যে বিষ তৈরি হয়, তার ফলেই সুস্থ-সবল শিশুদের হঠাৎ খিঁচুনি আর বমি শুরু হয়। তারপরেই অজ্ঞান হয়ে পড়ে তারা। আর এভাবে আক্রান্ত হওয়া অর্ধেকেরও বেশি শিশু মারা যায়।

বিহারে ‘লিচু রোগ’ বা বাংলাদেশের কোথাও কোথাও ‘অজানা কীটনাশকের প্রয়োগ’কেই এসব শিশুমৃত্যুর কারণ বলে মনে করা হতো এতদিন। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে যে মৃত্যুর কারণটা লুকিয়ে থেকেছে ‘লিচু’ ফলের মধ্যেই।

লিচুতে হাইপোগ্লাইসিন নামে একটি রাসায়নিক থাকে, যা শরীরে শর্করা তৈরি রোধ করে। খালি পেটে অতিরিক্ত লিচু খেয়ে ফেললে শিশুদের শরীরে শর্করার পরিমাণ অত্যন্ত কমে গিয়ে তা মৃত্যুর কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

বিহারের ঘটনায় বিজ্ঞানীরা প্রত্যেকটি শিশুর চিকিৎসা সংক্রান্ত তথ্য খুঁটিয়ে দেখে এ সিদ্ধান্তে এসেছেন যে ওই বাচ্চাগুলি আগের রাতে খাবার খায় নি অথবা কম খেয়েছিল। পরের দিন রাস্তায় পরে থাকা, নষ্ট হয়ে যাওয়া অথবা অপরিপক্ব লিচু একসঙ্গে অনেকগুলি খেয়ে ফেলেছিল তারা। তারপরেই অসুস্থ হয়ে পড়ে বাচ্চাগুলি।

মে থেকে জুলাই মাসেই লিচুর ফলন হয়ে থাকে। আর ওই সময়েই শিশুরা ওই উপসর্গ নিয়ে মারাও যায় সবথেকে বেশী।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, অপরিপক্ব লিচু বা লিচুজাতীয় ফল খেয়েই যে বিষক্রিয়ায় বহু শিশু মারা যায়, সেটা অনেক দিন আগেই ক্যারিবিয়ান দ্বীপে গবেষণায় জানা গিয়েছিল।

এরপর ‘জামাইকান ভমিটিং সিকনেস’ নামের ওই রোগটির ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য ভারত ও বাংলাদেশ সহ এশিয়ার কয়েকটি অঞ্চলে পৌঁছাতে অনেক দেরী হয়েছে, বলছে ‘ল্যানচেট’।

সূত্র: বিবিসি