মিয়ানমারে পানি উৎসবে নিহতের সংখ্যা ২৮৫, আহত সহাস্ত্রাধিক

myanmar

ডেস্ক রিপোর্ট :
মিয়ানমারে বর্ষবরণের সময় পানি উৎসব চলাকালে দুর্ঘটনা ও সংঘর্ষে ২৮৫ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। সংশ্লিষ্ট ঘটনায় আহত হয়েছেন হাজারের বেশি মানুষ। দেশটির বিভিন্ন রাজ্যে গত বৃহস্পতিবার থেকে পানি উৎসবকে কেন্দ্র করে চলমান সংঘর্ষে এ প্রাণহানির ঘটনা ঘটে।

দেশটির এক সরকারি কর্মকর্তার বরাত দিয়ে বিবিসি জানায়, পানি উৎসব চলাকালে মারামারি, গোষ্ঠীগত হামলা, দলবদ্ধ লড়াই, মাতাল অবস্থায় গাড়ি চালানোয় দুর্ঘটনা, ধর্ষণ, চুরিসহ দুই শতাধিক অপরাধের ঘটনা ঘটেছে। আর এ অপরাধগুলো ঘটনার সময়ে বিপুল পরিমাণ প্রাণহানি হয়। এগুলোর মধ্যে চেইন প্রদেশে পানিখেলাকে কেন্দ্র করে এক পরিবারের তিন নারীকে হত্যার ঘটনা আলোড়ন সৃষ্টি করেছে বলে উল্লেখ করা হয়।

অন্যমিডিয়া

মিয়ানমারের গত বছরের পানি উৎসবে মোট ৩৬ জনের প্রাণহানি ও আরো ৩১৬ জন আহত হয়েছিলেন।

সূত্র : কালের কণ্ঠ




২শ বছরের পুরনো মসজিদ গুঁড়িয়ে দিয়েছে মিয়ানমার

myanmer
পার্বত্যনিউজ ডেস্ক :
২শ বছরের প্রাচীন মসজিদ গুঁড়িয়ে দিয়েছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী মিয়ানমারের বুথিডাওং পৌরসভার একটি প্রাচীন মসজিদ বুলডোজার দিয়ে ভেঙে দিয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। সোমবার ভেঙে ফেলা ওই মসজিদটি ২শ বছরের প্রাচীন।

বুথিডাওংয়ের লাওয়াই ডেক গ্রামে ওই মসজিদের অবস্থান। স্থানীয় লোকমুখে জানা যায় ব্রিটিশরা আসার অাগে এমনকি আরাকান প্রদেশে ব্রিটিশদের আগমণের পূর্বে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছিল।

ব্রিটিশ শাসনামলে মসজিদের পাশের রাস্তায় দোকানপাট, বাজার চালু হয়। ওই বাজারটি বোতলি বাজার নামেই পরিচিত। ১৯৯০ সাল থেকে মসজিদটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

অন্যমিডিয়া

এতোকিছুর পরও মিয়ানমার সরকারের দাবি, আরাকান রাজ্যের সঙ্কট নিরসনে তারা সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। অথচ প্রার্থনাসহ সব ধরনের স্বাধীনতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সেখানকার রোহিঙ্গা মুসলিমরা। ২০১২ সাল থেকে সরকারিভাবে আরাকানের সংখ্যা গরিষ্ঠ জনগোষ্ঠীর প্রার্থনা করার ওপর নিষেধাজ্ঞা আনা হয়েছে।

মিয়ানমারে বিভিন্ন শাসনামলে রোহিঙ্গাদের ঐতিহাসিক স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেওয়ার মতো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেই চলেছে।

সূত্র : জাগোনিউজ




সামরিক পোশাক জব্দের ব্যাপারে বাংলাদেশকে সতর্ক করলো মিয়ানমার

teknaf-pic-30-3-17-copy

পার্বত্যনিউজ ডেস্ক :
মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পোশাক জব্দের ব্যাপারে বাংলাদেশকে সতর্ক করে দিয়েছে দেশটি। শনিবার দেশটির স্টেট কাউন্সিলরের অফিস বলছে, সহিংস হামলাকারীরা নিজেদের লুকিয়ে রাখার উদ্দেশ্যে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর পোশাক পরে গ্রামে হামলা চালিয়ে মানবাধিকার লঙ্ঘনের মাধ্যমে সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে এ কাজ করে থাকতে পারে।

উল্লেখ্য, গত বুধবার টেকনাফ স্থলবন্দরে ইঞ্জিন চালিত একটি নৌকায় তল্লাশি চালিয়ে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর শতাধিক ইউনিফর্ম জব্দ করেছে বন্দর শুল্ক বিভাগ। এছাড়াও মিয়ানমার সেনাবাহিনীর পদ, ব্যাকপ্যাক, রেইন কোর্ট, হেলমেট, রেইন কোর্ট ও বুট জব্দ করা হয়েছে।

চট্টগ্রামের রহমান ট্রেডিং নামের আমদানিকারক একটি কোম্পানির এক কর্মচারীকে সেনাবাহিনীর পোশাকসহ বুধবার বিকেলে টেকনাফে আটক করেছে বাংলাদেশি কর্তৃপক্ষ। পরে তদন্তে জানা যায়, নুরে আলম সিদ্দিকী নামের এক ব্যক্তি ওই কোম্পানির মালিক। যিনি মিয়ানমার থেকে শুকনো খাদ্য দ্রব্য আমদানির ব্যবসা করেন।

মিয়ানমার নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে উত্তর রাখাইনে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে। তবে, দেশটি বরাবরই এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে আসছে।

গত বছরের অক্টোবর ও নভেম্বরে সীমান্তে মিয়ানমার পুলিশের পোস্টে সশস্ত্র হামলার পর দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানে চরম মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ উঠে। এ ঘটনায় দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ইউ মিন্ত সুয়ে’কে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছে মিয়ানমার সরকার।

সূত্র : সিনহুয়া, জাগোনিউজ২৪.কম




৯০ রানের বিশাল ব্যবধানে শ্রীলঙ্কাকে হারালো বাংলাদেশ

bd

পার্বত্যনিউজ ডেস্ক :

ডাম্বুলায় শ্রীলঙ্কাকে ৯০ রানে হারিয়ে মাশরাফিরা ওয়ানডে সিরিজ শুরু করলেন জয় দিয়েই। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের আগের চারটি জয় ছিল উইকেটের ব্যবধানে। প্রথমবারের মতো রানের ব্যবধানে হারালেন মাশরাফিরা। ৪৫.১ ওভারে ২৩৪ রানে অলআউট হয়েছে শ্রীলঙ্কা।

৩২৫ রান তাড়া করতে নেমে স্কোরবোর্ডে কোনো রান না তুলতেই মাশরাফি বিন মুর্তজার করা প্রথম ওভারেই এলবিডব্লু গুনাথিলাকা। ঘুরে দাঁড়াবে কী, বাংলাদেশের বোলারদের দুর্দান্ত বোলিংয়ে আরও চাপে শ্রীলঙ্কা। ১১ ওভারে ৩১ রানে নেই ৩ উইকেট। কেন দেশ থেকে কেন তাঁকে উড়িয়ে নেওয়া হয়েছে, বোঝালেন মেহেদী হাসান মিরাজ। কুশল মেন্ডিসকে (৪) আউট করেছেন।ফিরিয়েছেন শ্রীলঙ্কার ইনিংসে একমাত্র ফিফটি পাওয়া দিনেশ চান্ডিমালকেও।

২৮.৫ ওভারে ম্যাচে ঘুরে দাঁড়ানোর সব সম্ভাবনা যেন শেষ করে দিল বাংলাদেশ। ১২১ রানে ৫ উইকেট নেই শ্রীলঙ্কার।

এর আগে বাংলাদেশ ৫ উইকেটে করে ৩২৪ রান। তাতেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ নিজেদের সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটা নতুন করে লেখাল। শুরু থেকে একপ্রান্ত ধরে রেখে খেলে তামিম ইকবালই রাখলেন মূল ভূমিকা। ১৪২ বলের ইনিংসটায় মেরেছেন ১৫টি চার, ছয় একটি। ৪৮তম ওভারে আউট হওয়ার আগে বাংলাদেশকে দিয়ে গেছেন ৩০০-র গতিপথ। যে পথ ধরেই বাংলাদেশ পেয়েছে দুর্দান্ত এক জয়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর
বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ৩২৪/৫ (তামিম ১২৭, সাকিব ৭২, সাব্বির ৫৪, মোসাদ্দেক ২৪*, মাহমুদউল্লাহ ১৩*; লাকমাল ২/৪৫, গুনারত্নে ১/৪০, সান্দাকান ১/৪৩)।
শ্রীলঙ্কা: ৪৫.১ ওভারে ২৩৪ (চান্ডিমাল ৫৯, পেরেরা ৫৫, পাথিরানা ৩১, গুনারত্নে ২৪; মোস্তাফিজ ৩/৫৬, মাশরাফি ২/৩৫, মেহেদী ২/৪৩, সাকিব ১/৩৩, তাসকিন ১/৪১, মোসাদ্দেক ০/২১)।
ফল: বাংলাদেশ ৯০ রানে জয়ী।




উত্তরপ্রদেশে বিপুল জয়ের পথে বিজেপি

_95111376_img-20170311-wa0020

পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

ভারতের রাজনৈতিকভাবে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল জয়ের পথে এগোচ্ছে ভারতীয় জনতা পার্টি বা বিজেপি। উত্তরাখণ্ড রাজ্যেও বিজেপি বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতার দিকে এগোচ্ছে। এ ছাড়া পাঞ্জাব, গোয়া ও মনিপুর রাজ্যেও বিধানসভা নির্বাচনের ভোট গণনা চলছে। পাঞ্জাব আর মনিপুরে এগিয়ে রয়েছে কংগ্রেস।

এখনও সব আসনের ফলাফল ঘোষিত হয়নি, কিন্তু উত্তরপ্রদেশের ৪০৩টি আসনের মধ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে ৩৯৭টি আসনের ট্রেন্ড জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। তার মধ্যে ২৮৮ টি আসনে এগিয়ে রয়েছে বিজেপি। সে রাজ্যে বিদায়ী সরকার ছিল যে সমাজবাদী পার্টির। তারা কংগ্রেসের সঙ্গে জোট বেঁধে ভোটে নেমেছিল। সমাজবাদী-কংগ্রেস জোট ৭৩টি আসনে এগিয়ে রয়েছে।

ওই জোটের প্রচারে প্রধান মুখ ছিলেন দুই দলের দুই যুব নেতা-বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশ যাদব ও কংগ্রেসের সহ সভাপতি রাহুল গান্ধী। এখনও পর্যন্ত যত ভোট গোনা হয়েছে, তার মধ্যে বিজেপি প্রায় ৪০% ভোট পেয়েছে বলে জানাচ্ছে নির্বাচন কমিশন। প্রায় দেড় দশক পরে উত্তরপ্রদেশ রাজ্যে ক্ষমতায় ফিরতে চলেছে বিজেপি।

এ নির্বাচনের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজে ব্যাপক প্রচারাভিযানে নেমেছিলেন। মি. মোদি যেমন তার উন্নয়নের এজেন্ডা নিয়েই এগিয়েছিলেন প্রচারে, তেমনই রাজ্য সরকারের ব্যাপক দুর্নীতির বিরুদ্ধেও সরব হয়েছিলেন তিনি। নভেম্বর মাসে দেশের চালু নোটের ৮৬% বাতিল বলে ঘোষণা করেছিলেন নরেন্দ্র মোদী। ৫শ আর এক হাজার টাকার নোট বাতিলের পরে সারা দেশের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে ব্যাপক সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিলেন।

তারপরে এ প্রথম গুরুত্বপূর্ণ কোনও নির্বাচনের মুখোমুখি হয়েছিল নরেন্দ্র মোদির দল। উত্তরপ্রদেশের ভোটের ফলাফল জাতীয় রাজনীতিতে যেমন গুরুত্বপূর্ণ, তেমনই সংসদীয় রাজনীতিতেও বিজেপি’কে সুবিধাজনক অবস্থানে নিয়ে গেল। সংসদের উচ্চকক্ষ রাজ্যসভায় বিজেপি এখনও সংখ্যাগরিষ্ঠ দল নয়। তাই নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বাধীন সরকারের আনা অনেক বিলই সেখানে আটকে যায়। কিন্তু রাজ্য বিধানসভাগুলিতে নবনির্বাচিত বিজেপি সদস্যদের ভোটে যতজন সংসদ সদস্য রাজ্যসভায় পাঠাতে সক্ষম হবে ওই দলটি, তার ফলে উচ্চকক্ষের সেই সংখ্যার ভারসাম্য বিজেপির অনুকূলে অনেকটাই চলে যাবে।

 ‍সূত্র: বিবিসি




মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর ওপর গেরিলাদের হামলা, নিহত ৩০

201604_169

ডেস্ক রিপোর্ট :

মিয়ানমারের চীন সীমান্তের কাছে জাতিগত গেরিলাদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষে অন্তত ৩০ জন নিহত হয়েছে। দেশটির উত্তরাঞ্চলীয় কোকাং অঞ্চলের লাউক্কাই শহরের কাছে সংঘটিত এ সংঘর্ষে কামান ও হালকা অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে।

সোমবার গেরিলা যোদ্ধারা পুলিশের পোশাক পরে নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হঠাৎ করে আক্রমণ চালালে এ সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে পাঁচ পুলিশ, পাঁচ বেসামরিক নাগরিক ও ২০ গেরিলা নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

মিয়ানমারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অং সান সু চি এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘এমএনডিএএ সশস্ত্র গোষ্ঠীর হামলায় একজন প্রাইমারি স্কুল শিক্ষকসহ বহু বেসামরিক মানুষ নিহত হয়েছে বলে আমরা প্রাথমিক খবরে জানতে পেরেছি।’

কোকাং অঞ্চলের স্বাধীনতার জন্য দীর্ঘদিন ধরে সশস্ত্র সংগ্রাম করছে ‘মিয়ানমার ন্যাশনালিটিস ডেমোক্র্যাটিক অ্যালায়েন্স আর্মি’ বা এমএনডিএএ। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সোমবার ভোররাতে গেরিলারা পুলিশ ও সেনা ছাউনি লক্ষ্য করে হামলা শুরু করে। পরে গেরিলাদের আলাদা একটি গোষ্ঠী লাউক্কাই শহরের অন্যান্য এলাকায়ও নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলা চালায়।

সোমবার বিকেলে শহরটির একাংশে আগুন জ্বলতে এবং বেসামরিক লোকজনকে নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে ছুটে পালাতে দেখেছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।

এমএনডিএএ তাদের ফেসবুক পাতায় এ সংঘর্ষের খবর নিশ্চিত করে বলেছে, আত্মরক্ষার স্বার্থে এ হামলা চালিয়েছে তারা। গেরিলা গোষ্ঠীটি বলেছে, গত ডিসেম্বর থেকে সেখানে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী যে অভিযান চালাচ্ছে তার প্রতিশোধ হিসেবে সোমবারের হামলা চালানো হয়েছে।

সূত্র : নয়া দিগন্ত অনলাইন




কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক ঘুড়ি প্রদর্শনী

 

hhh copy

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

‘কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ভ্রমণ করুন’ এপ্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে কক্সবাজারে শুরু হচ্ছে আন্তর্জাতিক ঘুড়ি প্রদর্শনী।শনিবার (২৫ফেব্রুয়ারি) বিকেলে এঘুড়ি প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হবে। এ উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন শুক্রবার বিকেলে মোটেল প্রবাল চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন দেশের ঘুড়ির বর্ননা দেন আয়োজক বৃন্দ। যেখানে ছিল চীন, ভারত, বাংলাদেশ, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ভূটান, সিঙ্গাপুর সহ বিভিন্ন দেশের ঘুড়ি।

এঘুড়ি প্রদর্শনীতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন পুলিশ সুপার ড. একেএম ইকবাল হোসেন, টুরিস্ট পুলিশ কক্সবাজার জোনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফজলে রাব্বি, সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু তাহের, সাধারণ সম্পাদক জাহেদ সরওয়ার সোহেল, কক্সবাজার মোটেল প্রবালের ব্যবস্থাপক মাটিন টিন।




ইউরোপের বিলাসবহুল ভ্রমণতরী সিলভার ডিসকভারের ৯০ পর্যটকের মহেশখালী ভ্রমণ

unnamed copy
মহেশখালী প্রতিনিধি:

পর্যটন শিল্পের বিকাশে বাংলাদেশ আরও একধাপ এগিয়ে গেল। বহির্বিশ্বের সাথে জলপথে পর্যটক যাতায়াতে আন্তর্জাতিক রুটে শুভ সূচনা করল বাংলাদেশ। তারই অংশ হিসেবে ৯০ জন পর্যটকবাহী ইউরোপ ভিত্তিক বিলাসবহুল ভ্রমণতরী সিলভার ডিসকভার বুধবার সকালে ভিড়েছে মহেশখালী দ্বীপে।

স্থানীয় প্রশাসনের সার্বিক তত্বাবধানে পর্যটকরা ঘুরে দেখলেন মহেশখালীর ঐতিহ্যবাহী আদিনাথ মন্দির, বৌদ্ধ প্যাগোডা, রাখাইন পল্লী ও পর্যটন সম্ভাবনাময় সোনাদিয়া দ্বীপ। চড়ে বেড়ালেন স্থানীয় যানবাহন রিক্সা ও টমটম গাড়িতে।

পশ্চিম ইউরোপের মোনাকো শহরভিত্তিক সিলভার সি নামের একটি সংস্থার ব্যবস্থাপনায় ওই পর্যটকরা সাগর পথে সরাসরি মহেশখালী দ্বীপে এসে নামেন। বিভিন্ন দেশের পর্যটকের সমন্বয়ে ওই টিম মহেশখালীর বিভিন্ন পর্যটন স্পট ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং সোনাদিয়া পরিদর্শন শেষে বিকেলে সাগর পথে রওয়ানা দেন সুন্দরবনের পথে। সাগর পথে বাংলাদেশে এটিই প্রথম কোন ইন্টারন্যাশনাল ট্যুর। সাগর পথে বাংলাদেশে পর্যটক আগমনের এই বিষয়টি দেশের পর্যটন খাতে বড় ধরনের ইতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ দীর্ঘ দিন থেকে শ্রীলঙ্কা, ভারত-মিয়ানমারসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর সাথে সাগর পথে ট্যুরিজম ডেভেলপ করার প্রচেষ্টা চালিয়ে আসছিল। গত একবছর চেষ্টার পর এ দেশীয় এজেন্ট জার্নি প্লাসের মাধ্যমে ইউরোপ ভিত্তিক সংস্থা সিলভার সি’র মাধ্যমে বিলাসবহুল ভ্রমণতরী সিলভার ডিসকভার নামের একটি জাহাজ নিয়ে ৯০ জন পর্যটককে বাংলাদেশে পাঠাতে সম্মত হয়েছে।

জানা গেছে, ১১ ফেব্রুয়ারি সিলভার ডিসকভার যাত্রা শুরু করে কলম্বো থেকে। শ্রীলঙ্কা ও আন্দামানে ৯ দিন অতিবাহিত করার পর সিলভার ডিসকভার বঙ্গোপসাগরে যাত্রা শুরু করে। যাত্রার ১১ দিনের মাথায় এটি বুধবার মহেশখালী পৌঁছে। সিলভার ডিসকভারের পর্যটকরা বুধবার ভোরের দিকে বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী দ্বীপ সোনাদিয়ার বাইরে জাহাজটি নোঙ্গর করে স্পিড বোট যোগে প্রথমে সোনাদিয়া ও পরে মহেশখালীর বৌদ্ধবিহার, রাখাইন পল্লী এবং আদিনাথ মন্দির ভ্রমণ করেন এবং পুরোহিতগণের সাথে সাক্ষাত করে তাদের জীবনধারা সম্পর্কে জানেন। তারা স্থানীয় প্রায় ৪০টির মত টমটম গাড়িবহর নিয়ে স্থানীয় অধিবাসীদের জীবনধারা অনুভব করেন।

এসময় তারা বার্মিজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। এসময় মহেশখালী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. শহীদুল্লাহ পর্যটকদের টিম লিডারকে তার রচিত  কোয়েস্ট ফর কোয়ালিটি নামে বই উপহার দেন।

এ ব্যাপারে মহেশখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম জানান, ৯০ জনের বিদেশী পর্যটক দলটি সকাল ১০ টায় মহেশখালী পৌঁছেন। তারা প্রথমে সোনাদিয়ায় নামেন। সেখানে পরিদর্শন শেষে মহেশখালী জেটিতে পৌঁছলে কক্সবাজারের জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সহকারী পুলিশ সুপার বাবুল চন্দ্র বণিকের নেতৃত্বে মহেশখালী পুলিশ প্রশাসন এবং উপজেলা প্রশাসন পর্যটকদের সার্বিক নিরাপত্তা বিধান করেন। বিকালে তারা জাহাজে ফিরে গেছেন।

জানা গেছে পর্যটকবাহী ভ্রমণতরীটি ১৩তম এবং ১৪তম দিনে সুন্দরবন ভ্রমণ করবে। তারা সেখানে সুন্দরবনের বন্যপ্রাণীর অভয়ারণ্যে ঘুরে বেড়াবেন। ১৫তম দিনে এটি কলকাতার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ত্যাগ করবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে প্রাপ্ত খবরে জানা যায়, সমুদ্রপথে বিলাসবহুল জাহাজ পরিচালনাকারী ‘সিলভার সি’ গ্রুপ ৪৭টি জাহাজ দিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পর্যটক পরিবহন করছে। এদের দুটি রুটে যুক্ত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। প্রথম রুটটি হচ্ছে শ্রীলঙ্কার কলম্বো থেকে বাংলাদেশ হয়ে কলকাতা। দ্বিতীয় রুটটি হচ্ছে কলকাতা থেকে বাংলাদেশ হয়ে থাইল্যান্ড।




টেকনাফে ফের ৩০০ রোহিঙ্গা পরিবারের মাঝে মালয়েশিয়ার ত্রাণ বিতরণ

teknaf pic 23-2-17 (1) copy

টেকনাফ প্রতিনিধি:

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা শরনার্থী ক্যাম্পে ফের ৩০০ পরিবারের মাঝে মালয়েশিয়া সরকারের পাঠানো ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেছে জেলা প্রশাসক। বিতরণকালে জেলা প্রশাসক মো. আলী হোসেন সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেন, মালয়েশিয়া সরকারের পাঠানো ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ শুরু হয়েছে। এ ত্রাণ প্রায় সাড়ে ৫ হাজার পরিবারের মাঝে পর্যায়ক্রমে বিতরণ করা হয়েছে। এসব ত্রাণ সামগ্রী দিয়ে রোহিঙ্গা পরিবারের দুই মাসের চাহিদা পূরণ হবে।

সূত্র জানায়, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মাঝে বিতরণের জন্য মালয়শিয়ান সরকার ত্রাণ সামগ্রীগুলো বাংলাদেশে পাঠায়। ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, চিনি, খাদ্যশস্য, ভোজ্যতেল, কম্বল, চিকিৎসার সামগ্রীসহ প্রায় ৩৫ প্রকার পণ্য।

বৃহস্পতিবার সকালে লেদা ক্যাম্পে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সহযোগিতায় বিতরণকালে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার জেলা প্রশাসক আলী হোসেন, রোহিঙ্গা ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমের সমন্বয় কমিটির প্রধান ও কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) সাইফুল ইসলাম মজুমদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার চাউলাউ মারমা, ২ বিজিবির উপ-অধিনায়ক মেজর আবু রাসেল ছিদ্দিকী, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) তুষার আহমেদ, ওসি তদন্ত শেখ আশরাফুজ্জামান, আইওএম এর কক্সবাজার ইনচার্জ অফিসার শাহাজাদ মজিদ প্রমুখ।

 উল্লেখ্য, গত বছরের ৯ অক্টোবর রাখাইন রাজ্যে তিনটি পুলিশ ফাঁড়িতে হামলার ঘটনায় তিন পুলিশসহ ১৮ ব্যক্তি নিহত হয়। এরপর সেখানে সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান শুরু করে সেখানকার সেনাবাহিনী। এ পর্যন্ত গত চার মাসে সেনাবাহিনীর অত্যাচার-নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণ ও দমন-পীড়নের মুখে উখিয়া ও টেকনাফে পালিয়ে আসে অন্তত ৯০ হাজার রোহিঙ্গা। এর মধ্যে উখিয়ার কুতুপালং অনিবন্ধিত শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গা। আর টেকনাফের লেদা অনিবন্ধিত শিবিরে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৩৮ হাজার রোহিঙ্গা।

মালয়েশিয়া সরকার ত্রাণগুলো নটিক্যাল আলিয়া নামে একটি জাহাজে বাংলাদেশে পাঠায়।




শ্রীনগর সীমান্ত হাটে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে মহান ভাষা দিবস উদযাপন

Ramgarh 21.2

রামগড় প্রতিনিধি:

ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে মঙ্গলবার ছাগলনাইয়া ও ভারতের দক্ষিণ ত্রিপুরার সাব্রুমের শ্রীনগর সীমান্ত হাটে দু’দেশের যৌথ উদ্যোগে উদযাপন করা হয়েছে মহান একুশে ফেব্রুয়ারি, আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস। প্রথম বারের মত বাংলাদেশ ভারতের আয়োজনে অনুষ্ঠিত ভাষা দিবসের এ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে শ্রীনগর সীমান্ত হাট পরিণত হয় দুই দেশের মানুষের মিলন মেলায়।

ফেনী ও দক্ষিণ ত্রিপুরা জেলা প্রশাসন দিবসটি উপলক্ষে দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করে। সীমান্ত হাটে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে শহীদ ভাষা সৈনিকদের স্মরণে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন অনুষ্ঠানে দু’দেশের দুই প্রধান অতিথি ফেনীর এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী ও ত্রিপুরার লোকসভার সদস্য কমরেড জীতেন্দ্র চৌধুরী। পরে দুই দেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশনের পর বেলুন উড়িয়ে এবং মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথিদ্বয়।

দুই পর্বের অনুষ্ঠানমালার প্রথমে অনুষ্ঠিত হয় ভাষা দিবসের আলোচনা সভা। ছাগলনাইয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মেজবাউল হায়দার  চৌধুরী ও সাব্রুম মহকুমার শ্রীনগর পঞ্চায়েত কমিটির চেয়ারম্যান বাবুল সেনের যৌথ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, এমপি নিজাম উদ্দিন হাজারী, এমপি শিরিন আখতার, ত্রিপুরার লোকসভার সদস্য কমডর জীতেন্দ্র চৌধুরি, দক্ষিণ ত্রিপুরার এমএলএ  রীতা কর, ফেনীর জেলা প্রশাসক মো. আমিন উল আহসান, ফেনীর পুলিশ সুপার রেজাউল হক প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিজিবির জয়লস্কর ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্ণেল কামরুল ইসলাম, দক্ষিণ ত্রিপুরার পুলিশ সুপার তাপস দেব বার্মা, ডিএম  সিকে জমাতিয়া, ত্রিপুরার এমএলএ প্রভা চৌধুরী, ফেনী সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুর রহমান বিকম, পরশুরাম উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মজুমদার, ছাগলনাইয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার, দক্ষিণ ত্রিপুরার এডিএম মনোজ কান্তি সেনসহ দুই দেশের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও  বিভিন্ন পদস্থ সরকারী কর্মকর্তা।

আলোচনা সভা শেষে উভয় দেশের শিল্পীদের পরিবেশনায় এক মনোজ্ঞ সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।