image_pdfimage_print

মহালছড়িতে অস্ত্রের মুখে জেএসএস নেতা ও সাবেক ইউপি সদস্য অমিয় চাকমা অপহৃত

অপহরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

খাগড়াছড়ির মহালছড়িতে অস্ত্রের মুখে জেএসএস (এমএন) গ্রুপের নেতা ও সাবেক ইউপি সদস্য অমিয় চাকমাকে অপহরণ করেছে প্রতিপক্ষের সন্ত্রাসীরা।  সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার বডানালা এলাকায় অপহরনের ঘটনা ঘটনা ঘটে। জেএসএস এ ঘটনার জন্য ইউপিডিএফকে দায়ী করেছে।

মহালছড়ি উপজেলা জনসংহতি সমিতি(এমএন) গ্রুপের সহযোগী সংগঠন যুব সমিতির সভাপতি সুজন চাকমার অভিযোগ, রাত সাড়ে ৮টার দিকে ইউপিডিএফর সন্ত্রাসী সজিৎ চাকমা ও মিন্টু চাকমার নেতৃত্বে ১২/১৪ সশস্ত্র সন্ত্রাসী বডানালায় জেএসএস নেতা ও সাবেক ইউপি সদস্য অমিয় চাকমার বাড়িতে হানা দিয়ে জোরপূর্বক তাকে অস্ত্রের মুখে তুলে নিয়ে যায়।

মহালছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা যোবাইরুল হক জানান, জেএসএস(এমএন) গ্রুপের নেতা ও সাবেক ইউপি সদস্য অমিয় চাকমাকে কে কারা তুলে নিয়ে গেছে বলে শুনেছি। তবে এখনো কেউ অভিযোগ করেনি।

পেকুয়ায় স্লুইচ গেইটে আটকে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরলো এক যুবক

পেকুয়া প্রতিনিধি:

পেকুয়ায় জাল তুলতে স্লুইচ গেইটে আটকে গিয়ে লাশ হয়ে ফিরেছে এক যুবক। জানা যায়, ২৫ সেপ্টেম্বর সকালে পেকুয়া উপজেলার মগনামা ইউনিয়নের চেপ্টাখালী নাশি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই ইউনিয়নের সাতঘর পাড়া এলাকার মনজুর আলমের পুত্র মো. কাইছার (৩৫) প্রতিদিন ওই নাশিতে জাল বসাতেন। ওই রাতেও জাল বসান কাইছার। ওই দিন সকালে জাল তোলার মুহুর্তে হঠাৎ করে পানির প্রবল স্রোতে ওই যুবক নাশির ভিতরে ঢুকে যায় নাশির অপরপ্রান্তে দরজা থাকায় কাইছার ওই দরজার সঙ্গে আটকে পড়ে। দরজাটি অনেক চেষ্টা করেও খোলা যায়নি। ভাটার টানে বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

কয়েক হাজার মানুষ ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ অনেক চেষ্টা করেও কোনো উপায়ে স্লুইচ গেইটের ভেতরে যেতে পারছেন না। অনেকক্ষণ পর স্লুইচ গেইটে আটকা পড়া যুবকের লাশ পানিতে ভেসে উঠে। স্থানীয়রা লাশ উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে পেকুয়া থানার ওসি জহিরুল ইসলাম খাঁনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত বরেন।

খাগড়াছড়িতে তুচ্ছ ঘটনায় হামলায় একজন আহত

নিজস্ব প্রতিবেদক, খাগড়াছড়ি:

তুচ্ছ ঘটনার জেরে খাগড়াছড়িতে দোকান ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জাহাঙ্গীর নামে এক পান দোকানদার আহত হয়েছে। সোমবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুর সোয়া ২টার দিকে খাগড়াছড়ি শহরের মক্কা হোটেল ও রেস্টুরেন্টে এ ঘটনা ঘটে। জেলার রামগড় পৌরসভার মেয়র কাজী রিপনের সমর্থকরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

মক্কা হোটেলের মালিক মো. আলমগীর বলেন, দুপুরে এক ব্যক্তি দোকানে এসে ২৫/৩০ জনের মাথাপিছু একশ’ ১০ টাকা করে খাবার দেওয়ার কথা বলেন।

তিনি কথা মতো প্রত্যেককে খাবার দেওয়া শুরু করলে তারা মাথাপিছু হিসেবের চেয়ে বেশি টাকার খাবার দাবি করে। এতে তিনি অপারগতা জানালে ক্ষুব্ধ হয়ে তারা দোকান ভাঙচুর শুরু করে। এসময় জাহাঙ্গীর নামে এক পান দোকানদারকে  মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়।

খাগড়াছড়ি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত  কর্মকর্তা (তদন্ত) মো. শাহনূর ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, হামলাকারীরা সবাই রামগড় পৌর মেয়র কাজী রিপনের সমর্থক। আদালতে হাজিরা দেওয়ার জন্য খাগড়াছড়ি আসে। ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে আবু ছালেক ও রঞ্জন দেবনাথ নামে দু’জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে এখনো থানায় কোনো অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

মিয়ানমারের উস্কানিতে সাড়া দিলে রোহিঙ্গাদের সংকট আড়াল হতো: বিজিবি মহাপরিচালক

নিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান:

মিয়ানমারের উস্কানিতে সাড়া দিলে রোহিঙ্গাদের মানবিক সংকটের বিষয়টি আড়াল হয়ে যেত বলে মন্তব্য করেছেন বিজিবির (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ) মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন। সোমবার কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যাং ইউনিয়নের দুর্গম উনচিপ্রাং এলাকায় অস্থায়ী রোহিঙ্গা বসতি পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, মিয়ানমারের হেলিকপ্টার আমাদের আকাশসীমা লংঘন করেছে, একটা দেশ এটা করতে পারে না, আমরা ধৈর্য্য ধরেছি, তবে আমরা সম্পূর্ণ প্রস্তুত আছি, সীমান্ত সুরক্ষার জন্য যা করা প্রয়োজন সব করা হবে, আমরা আক্রান্ত না হলে কোনো অ্যাকশনে যাব না।

উস্কানিতে সাড়া দিলে অন্য আর একটি ফ্রন্ট খুলে যেত, আমরা সেদিকে যেতে চাইনি বলে উল্লেখ করেন আবুল হোসেন।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের হার কিছুটা কমেছে, পরিস্থিতিও আস্তে আস্তে শান্ত হয়ে আসছে, তারা (মিয়ানমার) আমাদেরকে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছে, আগামী নভেম্বরে তাদের সাথে আমাদের বৈঠক হতে পারে।

মেজর জেনারেল আবুল হোসেন বলেন, রোহিঙ্গাদের ব্যবস্থাপনার ব্যাপারেও শৃঙ্খলা আসা শুরু হয়েছে, সেনাবাহিনী কাজ শুরু করেছে, তাদের জনবল ও লিডারশিপ দুইটাই আছে, খুব শীঘ্রই সব কিছু শৃঙ্খলায় চলে আসবে।

তিনি আরো বলেন, বিজিবি তাদের মানবিক তৎপরতা অব্যাহত রাখবে, মানবিক কাজের জন্য বিজিবির বাড়তি সদস্য মোতায়ন করা হয়েছে, এখান থেকে রোহিঙ্গারা যাতে কোনদিকে যেতে না পারে সেজন্য বিজিবির পাশাপাশি পুলিশ ও র‌্যাবও কাজ করছে।

আবুল হোসেন জানান, উনচিপ্রাংয়ের এই বসতিসহ সব রোহিঙ্গাদের বালুখালীতে নিয়ে যাওয়া হবে, সেখানে সেনাবাহিনী কাজ শুরু করেছে, বালুখালী অনেক বড় জায়গা সেখানে সবার থাকার ব্যবস্থা করা হবে।

এ সময় বিজিবির কক্সবাজার, টেকনাফ ও বান্দরবান অঞ্চলের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া বিজিবি প্রধান রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলেন এবং তাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণও করেন।

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেয়ার ডাক জাতিসংঘের

পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

বাংলাদেশ সফরে এসে জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর প্রধান ফিলিপো গ্র্যান্ডি বলেছেন মিয়ানমারের উচিৎ কোফি আনান কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেওয়া। এবং রাখাইনে জরুরী ভিত্তিতে সহিংসতা বন্ধের দাবিও করেছেন তিনি।

ইউএনএইচসিআর প্রধান রোববার কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করে সোমবার ঢাকার এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রশংসা করেছেন।

তিনি বলেন, পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ যখন শরণার্থীদের জন্য সীমান্ত বন্ধ করে দিচ্ছে, সেখানে বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের জন্য দরজা খুলে দিয়েছে।

কক্সবাজার এবং বান্দরবানের যে সব জায়গায় রোহিঙ্গা শরণার্থীরা আশ্রয় নিয়েছে সেখানকার স্থানীয় বাংলাদেশিদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করেছেন ফিলিপো গ্র্যান্ডি।

তিনি বলেন, যে কোনো ত্রাণ কর্মকাণ্ডের পরিকল্পনায় স্থানীয় বাসিন্দাদের কল্যাণের বিষয়টিকে গুরুত্ব দিতে হবে।

“স্থানীয় জনগোষ্ঠীর ওপর বড় ধরণের চাপ তৈরি হয়েছে। সুতরাং শুধুমাত্র রোহিঙ্গাদের কথা ভাবলে চলবে না। স্থানীয়দের নিরাপত্তা, তাদের ঘরবাড়ি, জমাজমি এবং পরিবেশের বিষয়টি সমস্ত পরিকল্পনায় গুরুত্ব পাওয়া দরকার।”

ত্রাণ সাহায্যে কি পরিমাণ অর্থ প্রযয়োজন-এই প্রশ্নে ইউএনএইচসিআর প্রধান বলেন, ৭৪ মিলিয়ন ডলারের প্রাথমিক হিসাবের চেয়ে অনেক বেশি অর্থ প্রয়োজন।

সূত্র বিবিসি।

নাইক্ষ্যংছড়ির সীমান্তজুড়ে কাঁটাতারের বেড়া রিপেয়ারিং করছে মিয়ানমার

 

নাইক্ষ্যংছড়ি প্রতিনিধি:

বাংলাদশে-মিয়ানমার সীমান্তে থাকা কাঁটাতারের বেড়া রিপেয়ারিং করছে মিয়ানমার। গত তিন দিন ধরে তারা সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে ক্ষতিগ্রস্ত কাঁটাতারের বেড়া এভাবে মেরামত করে যাচ্ছে তাদের দেশের প্রকৌশলী দিয়ে।

সোমবার(২৫ সেপ্টেম্বর ) নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার লেবুছড়ি, ফুলতলী, আশারতলী, চাকঢালা, ঘুমধুম, তমব্রু ও জলপাইতলী সীমান্তে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) সদস্যদের কাঁটাতারের বেড়া মেরামত করতে দেখেছে সীমান্তে বসবাসকারী লোকজন।

স্থানীয়দের ধারণা, আর কোনও রোহিঙ্গা যাতে মিয়ানমারে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য ক্ষতিগ্রস্ত কাঁটাতারের বেড়া মেরামত করে মজবুত করা হচ্ছে।

সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া মিয়ানমার সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে গিয়ে দেখা গেছে, সীমান্ত ঘেঁষে তাঁবু তৈরি করে শ্রমিক নিয়ে কাঁটাতারের বেড়া মেরামত করা হচ্ছে। সীমান্তের যেসব পয়েন্টে কাঁটাতারের বেড়া ক্ষতিগ্রস্ত করে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে মূলত সেসব পয়েন্টগুলোয় মেরামত করা হচ্ছে। একইসঙ্গে কাঁটাতারের বেড়ার সঙ্গে লাগোয়া সীমান্ত পিলারও পরিবর্তন করা হচ্ছে। যাতে করে কোনও রোহিঙ্গা ও অবৈধ অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমারের ভেতরে প্রবেশ করতে না পারে।

আশারতলী ও লেবুছড়ি সীমান্তে বসবাসকারী রাহামত নুরুল আলম ও কবির আহাম্মদ সহ অনেকে জানিয়েছেন, গত তিন দিন ধরে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী তাদের সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া মেরামত করছে। এসব কাজে নিয়োজিত বিভিন্ন ধরনের যানবাহন আসছে সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্টে।

তারা বলেন, রোহিঙ্গারা যাতে মিয়ানমারে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য সীমান্তে তাদের তৎপরতা বেশি দেখা যাচ্ছে। যেসব স্থানে কোনও দিন বিজিপি আসেনি এখন সেসব স্থানেও তাদের উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো।

ট্রাকে করে আনা হচ্ছে সরঞ্জামাদি নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তমব্রু সীমান্তের ছরার পাশ ঘেঁষে নো-ম্যানস ল্যান্ডে গড়ে উঠেছে একটি ছোট রোহিঙ্গা বস্তি। ওই বস্তিতে থাকা রোহিঙ্গা নাগরিক আব্দুল মতলব, ছৈয়দ আলম, কালো মিয়া, মরিয়ম বেগম, ফাতেমা জানান, রাখাইন রাজ্যের গ্রামগুলো এখন সবই ফাঁকা। সেখানে কোনও বসতিতে মানুষ নেই। যা কিছু লোক এখনও রয়েছে, তারাও বিভিন্ন ঝোঁপজঙ্গলে লুকিয়ে আছে। এ কারণে আর কোনও রোহিঙ্গা যাতে মিয়ানমারে ফিরে যেতে না পারে সে ব্যাপারে আরও কঠোর অবস্থান নিয়েছে মিয়ানমার সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া মেরামত, বিভিন্ন প্রবেশদ্বারে স্থল মাইন পুঁতে রাখা ও আকস্মিকভাবে সীমান্তে টহল জোরদারসহ নানা কার্যক্রম করে যাচ্ছে।

রোহিঙ্গারা জানান, সীমান্তের খুব কাছে অবস্থান নেওয়ার একটি উদ্দেশ্য ছিল যেন রাখাইনের পরিস্থিতি সামান্য শান্ত হলে তারা দেশে ফিরে যাবেন। তাদের কারও কারও বাড়ি সীমান্তের এক থেকে তিন কিলোমিটার দূরত্বের মধ্যে। এমনিতে মিয়ানমার সীমান্তরক্ষীদের ফাঁকি দিয়ে তারা দিনে একবার হলেও নিজের ক্ষতিগ্রস্ত বসতিগুলো দেখতে যেতো। আর এখন কাঁটাতারের বেড়া আরও মজবুত করায় সেটি আর সম্ভব হবে না।

মিয়ানমার সীমান্তে টহল জোরদার জানতে চাইলে কক্সবাজার ৩১ বিজিবি’র অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল ৩১ বিজিবি অধিনায়ক আনোয়ারুল আজিম বলেন, ‘মিয়ানমার কাঁটাতারের বেড়া মেরামত করছে সেটি তাদের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার। সেখানে আমাদের কোনও হস্তক্ষেপ নেই। তবে আমরা আমাদের সীমান্তে খুব সতর্কাবস্থায় আছি। সীমান্তের প্রতিটি পয়েন্ট সার্বক্ষণিক নজরদারিতে রয়েছে।’

বাংলাদেশ-মিয়ানমারের মধ্যকার সীমান্তপথ রয়েছে ২৭১ কিলোমিটার। এর মধ্যে ২০৮ কিলোমিটার স্থলপথ ও ৬৩ কিলোমিটার জলসীমান্ত। 3 বছর আগে থেকেই মিয়ানমার সরকার সীমান্ত জুড়ে আন্তর্জাতিক আইন ভঙ্গ করে দু’দেশের সীমানা ঘেষে তুমব্রু থেকে লেবুছড়ি হয়ে পাইনছড়ির আগা পর্যন্ত অধিকাংশ সীমান্তজুড়ে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করে রেখেছে সে দেশের সরকার

 

দীঘিনালায় বেইলী ব্রিজের পাটাতন ভেঙে যান চলাচল বন্ধ 

দীঘিনালা প্রতিনিধি:

দীঘিনালা উপজেলার বাবুছড়া সড়কে একটি বেইলী ব্রিজের পাটাতন ভেঙে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।  সোমবার(২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে এঘটনা ঘটে। এতে করে ব্রিজের দুইপাশের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এব্যাপারে প্রত্যক্ষদর্শী মো. জহিরুল ইসলাম জানান,  সোমবার দুপুরে উপজেলার পাবলাখালী এলাকায় ঢাকাগামী কাঠ বোঝাই একটি ট্রাক (চট্টমেট্টো ট ১১৬৩৯৯) বেইলী ব্রিজ পার হওয়ার সময় একটি পাটাতন দেবে চাকা আটকে যায়। পরে দুই পাড়ের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এব্যাপারে খাগড়াছড়ি সড়ক ও জনপথ বিভাগের কার্যসহকারী বীরভদ্র চাকমা জানান, ব্রিজের পাটাতন ভেঙে যাওয়ার পর খবর পেয়ে আমাদের অফিসের লোকজন ব্রিজটি দেখে এসেছেন। ব্রিজে আটকে যাওয়া ট্রাক সরিয়ে নেয়ার পর আগামীকাল(মঙ্গলবার) সকাল থেকে কাজ শুরু হবে। আশা করি বিকাল নাগাদ যান চলাচলের উপযোগী হবে।

কাপ্তাইয়ে পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে আশ্রয়ন সহায়তা প্রদান

কাপ্তাই প্রতিনিধি:

রাঙ্গামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলার সম্প্রতি পাহাড় ধসে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারসমুহের মাঝে জরুরী আশ্রয়ন সহায়তা প্রদান  ত্রান ও নগদ অর্থ প্রদান অনুষ্ঠান সোমবার কাপ্তাই উপজেলা প্রশাসন ও ইআরএফ, ইউএনডিপি আয়োজনে এবং নির্বাহী কর্মকর্তার তারিকুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।

কাপ্তাইয়ের ২শ ১৭ পরিবারের মধ্যে অর্থ প্রদান করা হয়। বেশি ক্ষতিগ্রস্ত ৯২ পরিবারকে নগদ ১৫ হাজার দুইশত টাকা এবং আংশিক ক্ষতিগস্ত ১১৭ পরিবারকে নগদ পাঁচ হাজার টাকা ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে ত্রান প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, পার্বত্য বিষয়ক মন্ত্রনালয় এবং এনপিডি, এসআইডি-সিএইচটি প্রকল্প অতিরিক্ত সচিব(উন্নয়ন), মো. কামাল উদ্দিন তালুকদার।

বিশেষ অতিথি ছিলেন, উপজেলা আ’লীগ সভাপতি অংসুইছাইন চৌধুরী, ইউএনডিপি পরিচালক প্রশেনজিৎ চাকমা, কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত বিকাশ তংচঙ্গ্যা, নুর নাহার বেগম, ইউপি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী আব্দুল লতিফ, জেলা ইউএনডিপি কর্মকর্তা জগৎখীসা চাকমা, কাপ্তাই সিএমসি সভাপতি কাজী মাকসুদুর রহমান বাবুলসহ ইউপি চেয়ারম্যানগণ।

প্রধান অতিথি বলেন, প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া কেউ পাহাড় কাটবেনা। পাহাড় ও গাছ কাটার ফলে রাঙ্গামাটি জেলার বিভিন্ন স্থানে পাহাড় ধসের মুল কারণ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন কাপ্তাই উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুপ্তশ্রী সাহা।

বজ্রপাত ও প্রাকৃতিক দূর্যোগ রক্ষায় কাপ্তাইয়ে দশ হাজার তাল বীজ রোপন

কাপ্তাই প্রতিনিধি:

বজ্রপাত ও প্রাকৃতিক দূর্যোগের কবল হতে মানুষকে রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় রাঙ্গামাটি জেলার প্রশাসকের সার্বিক তত্বাবধানে কাপ্তাই উপজেলায় সোমবার দশ হাজার তাল গাছের বীজ রোপন করা হয়। বজ্রপাতে প্রাণহানির সংখ্যা ও পরিবেশ হতে রক্ষা পাওয়ার জন্য সরকারের পক্ষ হতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়।

কাপ্তাইয়ের সরকারি/বেসরকারি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এক যোগে এ বীজ রোপন করা হয়। কাপ্তাই নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলম এ বীজ বোপন করে কাজের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধনের সময় কাপ্তাই উপজেলা আ’লীগ সভাপতি অংসুইছাইন চৌধুরী, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সুপ্তশী সাহা, উপজেলা স্কাউট সম্পাদক মাহাবুব হাসানসহ বিভিন্ন উপজেলা কর্মকর্তা এসময় উপস্থিত ছিলেন।

চকরিয়ায় বাগদা চিংড়ি চাষিদের ভাল চাষ ব্যবস্থাপনা শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত 

চকরিয়া প্রতিনিধি:

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের উপজেলা পরিচালন ও উন্নয়ন প্রকল্প, স্থানীয় সরকার বিভাগ ও জাপান ইন্টারন্যাশনাল কোঅপারেশন এজেন্সি (জাইকা) সহায়তায় ও চকরিয়া উপজেলা পরিষদের আয়োজনে বাগদা চিংড়ি চাষিদের ভাল চাষ ব্যবস্থাপনারর (GAP) ভিত্তিতে উন্নত সম্প্রসারিত পদ্ধতিতে বাগদা চাষ ব্যবস্থাপনা শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা উদ্বোধন সোমবার(২৫ সেপ্টম্বর) সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ হলরুম মোহনায় অনুষ্ঠিত হয়।

চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাহেদুল ইসলামের সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম বি.এ(অনার্স) এমএ।

এতে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চকরিয়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নারী নেত্রী সাফিয়া বেগম শম্পা, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. সাইফুর রহমান, পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ কাসেম, চিরিংগা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জসিম উদ্দিন প্রমুখ।

প্রশিক্ষণ কর্মশালাটি ২৫ সেপ্টম্বর থেকে ২৭ সেপ্টম্বর পর্যন্ত চলবে। এতে চকরিয়ায় ১৮ ইউনিয়ন ও পৌরসভার মৎস্য চাষিরা উপস্থিত ছিলেন।