৪৮ ঘন্টার হরতাল ৮ ঘন্টা পর প্রত্যাহার


স্টাফ রিপোর্টার:

৭মে থেকে ডাকা পিবিসিপি এবং পার্বত্য নাগরিক পরিষদের ডাকা তিন পার্বত্য জেলায় ৪৮ ঘণ্টার হরতাল প্রশাসনের দাবী পূরণের অাশ্বাসে সোমবার দুপুর ২ টার পর থেকে স্থগিত করা হয়েছে।

এদিকে হরতাল ঘোষণার পরপরই বান্দরবান জেলা থেকে আহ্বানকারী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ তাদের জেলায় হরতাল প্রত্যাখ্যান করে। ফলে হরতাল টিকে থাকে দুই জেলায়।

সোমবার সকাল থেকেই হরতালের পক্ষে সমর্থক নেতাকর্মীদের তেমন কোনো সক্রিয়তা দেখা যায়নি।

দুরপাল্লার সড়ক পরিবহন বন্ধ থাকলেও অভ্যন্তরীণ ও ছোটখাট যানবাহনগুলো চলেছে বিনা বাধায়। সকালে দোকানপাট বন্ধ থাকলেও বেলা বাগার সাথে সাথে দোকানপাট খুলতে শুরু করে এবং ধীরে ধীরে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরে আসে।

খাগড়াছড়িতে ভোরে হরতালের পক্ষে পিকেটিং করার অপরাধে ৪ হরতাল সমর্থককে পুলিশ আটক করে। রাঙামাটিতেও শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল পালিত হয়েছে প্রত্যাহার করার আগ পর্যন্ত। কোথাও থেকে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার সংবাদ পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য যে,মাটিরাঙায় অপহৃত তিন বাঙ্গালীকে উদ্ধার, নানিয়ারচরে বাঙ্গালী গাড়িচালক সজিব হাওলাদার সহ-পাঁচজন উপজাতি হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার এবং উপজাতি সশস্ত্র সন্ত্রাসী সংগঠন ইউপিডিএফ, জেএসএসকে নিষিদ্ধের দাবীতে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদ পার্বত্য নাগরিক পরিষদের পক্ষ থেকে এ হরতাল কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়েছিল।

পার্বত্য চট্টগ্রামে উপজাতি সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড প্রতিরোধের লক্ষে পার্বত্য বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসেবে গত ১৬ এপ্রিল ২০১৮ খাগড়াছড়ি জেলার মহালছড়ি উপজেলার মাইসছড়ি নামক এলাকায় মাটিরাঙা উপজেলার তিন বাঙ্গালী ব্যাবসায়ীকে অনতিলম্ব নিঃশর্ত মুক্তি এবং রাঙ্গামাটি জেলার নানিয়ারচর উপজেলাস্থ নিরীহ বাঙ্গালী গাড়িচালক সজিব হাওলাদার সহ পাঁচজন উপজাতির হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার পূর্বক বিচারের দাবীতে ও পার্বত্য অঞ্চল থেকে উপজাতি সকল সশস্ত্র সন্ত্রাসী সংগঠন(ইউপিডিএফ,জেএসএস)-কে নিষিদ্ধের দাবীতে এ হরতাল ডাকা হয়েছিল। তাদের ডাকা এ হরতালে পার্বত্য চট্টগ্রাম সম-অধিকার আন্দোলন রাঙ্গামাটি জেলা শাখা সমর্থন জানিয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *