৩০০ কি.মি. মানববন্ধন নেটওয়ার্ক জেলা উপজেলা সদরে সীমাবদ্ধ


প্রথমবারের মতো তিন পার্বত্য জেলা জুড়ে জেএসএস ও ইউপিডিএফ’র অঘোষিত ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী পালন

12485993_787861114693615_5916404005061567791_o

স্টাফ রিপোর্টার:

আয়োজক তিন সংগঠন থেকে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়নের দাবীতে তিন পার্বত্য জেলা জুড়ে ৩০০ কি. মি. ব্যাপী গণ-মানববন্ধন সফল হওয়ার দাবী করা হলেও কিন্তু অনুসন্ধান চালিয়ে দেখা গেছে, প্রধানত: জেলা ও উপজেলা সদরেই সীমাবদ্ধ ছিলো এ মানববন্ধন। এর বাইরে বিপুল এলাকায় মানববন্ধনকারীদের কোনো অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। এর মধ্যে প্রশাসনের অনুমতি না থাকায় খাগড়াছড়িতে মানববন্ধনের চেষ্টা করা হলেও পুলিশি বাধায় তা পণ্ড হয়ে যায়।

পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম (পার্বত্য চট্টগ্রাম শাখা) ও সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্ক এ মানববন্ধনের ডাক দিলেও এতে পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক সংগঠন জেএসএস(মূল ও সংস্কার) ইউপিডিএফ নেতারা এ মানববন্ধনে অংশ নিয়েছে। এর বাইরেও বিভিন্ন উপজাতীয় সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এ মানববন্ধনে অংশ নেয়। তবে এ মানববন্ধনের উল্লেখযোগ্য বিষয় ছিলো, প্রথমবারের মতো তিন পার্বত্য জেলা জুড়ে জেএসএস ও ইউপিডিএফ’র অঘোষিত ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচী পালন করা।

খাগড়াছড়ি

18.01

খাগড়াছড়ি থেকে পার্বত্যনিউজের জেলা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির যথাযথ, দ্রুত ও পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন এবং সমতল অঞ্চলে আদিবাসীদের জন্য পৃথক ভূমি কমিশনের দাবীতে পাহাড়ি তিনটি সংগঠনের ডাকা মানববন্ধন কর্মসূচীটি খাগড়াছড়িতে পুলিশি বাঁধায় পন্ড হয়ে যায়।

 শহরের চেঙ্গী স্কোয়ার মাইনী ভ্যালী এলাকায় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সদস্য ইউ কে জেন’র নেতৃত্বে মানববন্ধন কর্মসূচীতে দাঁড়ালে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এনায়েত হোসেন মান্না প্রশাসনিক অনুমতি না থাকায় তাদের বাধাঁ দিয়ে সরিয়ে দেন। পরে তাৎক্ষনিক জেলা শহরের মহাজন পাড়াস্থ একটি কনভেনশন সেন্টারে সংবাদ সম্মেলন করে আন্দেলনরতরা।

এতে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি,বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম ও সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সদস্য খাগড়াছড়ি সরকারি সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর বোধিসত্ত্ব দেওয়ান। এ সময় পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটির সদস্য ফেসর (অব) ড. সুধীন কুমার চাকমা, মধুমঙ্গল চাকমা, শেফালিকা ত্রিপুরা এসময় উপস্থিতি ছিলেন।

সংগঠনগুলো শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে বাঁধা প্রদানের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে, অবিলম্বের পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন ও সমতলের আদিবাসীদের জন্য স্বতন্ত্র ভূমি কমিশন গঠন, আদিবাসীদের ঐতিহ্যগত ও প্রথাগত ভূমি অধিকারের স্বীকৃতি প্রদানের দাবী জানান নেতৃবৃন্দরা।

এদিকে মহালছড়ি সদর ও মাইচছড়িতে পুলিশী বাধার কারণে মানববন্ধন পণ্ড হয়ে যায়। এসময় পুলিশের সাথে ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটেছে।

রাঙামাটি

দতকব

পূর্বঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসাবে রাঙামাটির বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন পালিত হয়েছে বিনা বাধায়। শহরের কল্যাণপুর এলাকায় এ মানববন্ধনের নেতৃত্ব দেন জেএসএস সভাপতি সন্তু লারমা এবং জেলা প্রশাসন অফিস প্রাঙ্গনে মানবন্ধনের আহ্বায়ক ও নাগরিক কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান এবং লংগদুতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে নেতৃত্ব দেন চাকমা সার্কেল চীফ ব্যারিস্টার দেবাশীষ রায় ও তার স্ত্রী য়েন য়েন।

রাঙামাটিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম (পার্বত্য চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি প্রকৃতি রঞ্জন চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি আহবায়ক গৌতম দেওয়ান, জাতীয় মানবাধিকার কমিশনে সদস্য নিরূপা দেওয়ান, সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের সাধরাণ সম্পাদক শান্তি বিজয় চাকমা প্রমুখ।

মানববন্ধনে ওই সংগঠনের নেতারা অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘ ১৮বছরেও সরকার পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের কোন আগ্রহ প্রকাশ করেনি। ভবিষ্যতে এ চুক্তি বাস্তবায়ন করা হবে কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন এখন পার্বত্যাঞ্চলের মানুষের মনে। সরকারের প্রতিনিধিরা বিভিন্ন সভা সমাবেশে বলেন ২০০৮সালের আওয়ামীলীগের নির্বাচনীয় সনদ হচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তি পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন করা। কিন্তু কবে এ সনদ বাস্তবায় করা হবে। সরকারের পক্ষ থেকে কোন সুনিদিষ্ট ঘোষণা দেওয়া হয়নি। তাই পার্বত্যাঞ্চলের মানুষ এখন হতাশ। পাহাড়ের জুম্মজাতিরা এখন আর সরকারের উপর বিশ্বাস রাখেনা।

তারা মনে করে সরকার চুক্তি বাস্তবায়ন না করলে, আন্দোলনের মধ্যমে সরকারকে চুক্তি বাস্তবায়নে বাধ্য করা হবে। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন না হলে আর কঠোর কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলে হুমকি দেন ওই সংগঠনের নেতারা।

বান্দরবান

Bandarban pic-3, 18.1

পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন ও সমতলে ‘আদিবাসীদের’ জন্য আলাদা ভূমি কমিশনের দাবিতে বান্দরবানে গণ মানববন্ধন করেছে পাহাড়ে বসবাসরত ক্ষুদ্র ও নৃ-গোষ্ঠীরা। মানববন্ধনে সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক উ নি হ্লা মানববন্ধন সফল করায় সকলকে ধন্যবাদ জানান।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রোয়াংছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেএসএস জেলা সাধারণ সম্পাদক ক্যবামং মারমা, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়রম্যান ও জেলা হিলউম্যান্স ফেডারেশনের সভানেত্রী ওয়াইচিং প্রু, অনন্যা নারী কল্যাণ সংস্থার পরিচালক ডনাই প্রু নেলী, পাহাড়ী বম সম্প্রদায়ের নেতা জিরকুম সাহা, এনজিও সংস্থার কর্মী অংচ মং মারমাসহ সংগঠনের নেতৃবিন্দরা।

মানববন্ধন কর্মসূচি থেকে জেএসএস জেলা সাধারণ সম্পাদক ক্যবামং মারমা বলেন, শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের নামে কালক্ষেপন করছে সরকার। পাহাড়ে স্থায়ী শান্তি প্রতিষ্ঠায় পার্বত্য শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নের বিকল্প কিছু নেই।

মানবন্ধন সফল হওয়ার দাবী তিন আয়োজক সংগঠনের

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির যথাযথ, দ্রুত ও পূর্ণাঙ্গ বাস্তবায়ন এবং সমতল অঞ্চলে আদিবাসীদের জন্য ভূমি কমিশনের দাবিতে আহুত গণ-মানববন্ধনে তিন পার্বত্য জেলার আপামর জনগণ শান্তিপূর্ণ, সুশৃংখল ও স্বত:স্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করে মানববন্ধন সফল হওয়ার দাবী করে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক কমিটি, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম (পার্বত্য চট্টগ্রাম শাখা) ও সিএইচটি হেডম্যান নেটওয়ার্কের পক্ষ থেকে সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানানো হয়েছে।

সংগঠনের পক্ষ থেকে নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক গৌতম দেওয়ানের পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, খাগড়াছড়ি জেলার জেলা প্রশাসন মানববন্ধন করার অনুমতি দেয়নি। ফলে প্রশাসন খাগড়াছড়ি সদরে মানববন্ধন আয়োজনে বাধা প্রদান করে এবং মানববন্ধনে আসা লোকদেরকে ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এছাড়া মহালছড়ি উপজেলাধীন মাইসছড়ি ইউনিয়ন ও মহালছড়ি সদরে বাধা প্রদান করে। প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনীর এ ধরণের গণতান্ত্রিক ও শান্তিপূর্ণ কর্মসূচীতে প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনী কর্তৃক বাধা প্রদান ও মানববন্ধনে আসা লোকজনের উপর নির্যাতন করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। 

তবে বাধার মুখেও খাগড়াছড়ি জেলার অন্যান্য জায়গায় মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে দাবী করে বিবৃতিতে তিন পার্বত্য জেলার মধ্যে রাঙ্গামাটি ও বান্দরবান জেলা প্রশাসন ও আইন শৃংখলা বাহিনীর সার্বিক সহযোগিতার জন্য তাদের প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়।

2 thoughts on “৩০০ কি.মি. মানববন্ধন নেটওয়ার্ক জেলা উপজেলা সদরে সীমাবদ্ধ

  1. আপনাদের লেখাগুলো Unicode ভিত্তিক হওয়া উচিত। নাহলে pdf ফাইল পড়া যাচ্ছে না। ধন্যবাদ।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *