সড়ক দুর্ঘটনায় রামু উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি এসএম ফেরদৌসের ইন্তেকাল


রামু প্রতিনিধি:

রামু উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি, খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এসএম ফেরদৌস সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন।

রোববার (১০ ডিসেম্বর) সকাল ৭টা ১৫ মিনিটের সময় চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন, (ইন্না লিল্লাহি…..রাজিউন)।

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় কক্সবাজার শহরে ঝাউতলা এলাকায় মোটর সাইকেল আরোহী এসএম ফেরদৌস দুর্ঘটনায় গুরুতর ভাবে আহত হন। তাৎক্ষণিক তাকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় রাতেই চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

রোববার সকালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। রোববার আছরের নামাজের পর রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের পূর্ব ধেছুয়া পালং (মরিচ্যা চেকপোষ্ট) আল হাসান মাদ্রাসা মাঠে মরহুমের নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, মৃত্যুকালে তার বয়স ৬২ বছর। তিনি স্ত্রী, তিন ছেলে, এক ভাই, চার বোনসহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুনগ্রাহী রেখে যান। তার মৃত্যুতে পরিবার, আত্মীয় স্বজন ও রাজনীতিক-সামাজিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে আসে। তার মৃত্যুর খবরে আত্মীয় স্বজন, দলীয়-সামাজিক নেতৃবৃন্দরা শোকাহত পরিবারকে সমবেদনা জানাতে মরহুমের পরিবারের কাছে ছুঁটে যান।

এস এম ফেরদৌস রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নে পূর্ব ধেচুয়া পালং এলাকার মরহুম মো. হাসান মাস্টারের বড় ছেলে। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ব বিদ্যালয় থেকে বাংলায় এম এ ডিগ্রি অর্জন করেন। বিএনপি’র রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হয়ে ১৯৯২ সালে খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

তিনি প্রথমে খুনিয়াপালং ইউনিয়ন বিএনপি’র সভাপতি, দু’বার রামু উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক, পরে উপজেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক ও উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি এবং কক্সবাজার জেলা সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। তার পিতা মরহুম মো. হাসান মাস্টারও খুনিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *