সীমান্তে মিয়ানমার সেনাবাহিনী-বিজিপির গুলিবর্ষণ, আতঙ্কিত রোহিঙ্গারা


পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও বিজিপির ফাঁকা গুলিবর্ষণে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি তুমব্রু বাজার সীমান্তের জিরো লাইনে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

জিরো লাইনে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সাথে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।
রোহিঙ্গা আরিফ ও দিল মোহাম্মদসহ বেশ কয়েকজন জানান, মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এসে এখানে ভালোই ছিলাম। তবে গত এক সপ্তাহ ধরে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও বিজিপি প্রায়ই ফাঁকা গুলিবর্ষণ করছে। সবার মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে রবিবার সকালে সীমান্তের কাঁটাতারের বেড়ার কাছে জিরো লাইন থেকে সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও পুলিশ।

মাইকিং-এ বলা হয়, তোমরা(রোহিঙ্গা) আমাদের সঙ্গে কথা বলবে না। তোমরা আমাদের কেউ না। আমাদের ভূখণ্ড ছেড়ে চলে যাও বাংলাদেশে।

গত মাসে ইউএনএইচসিআর’র সহায়তায় নাইক্ষ্যংছড়ি সীমান্তের সাপমারা ঝিড়ি, বড় ছনখোলা, দোছড়ি ও ঘুনধুম সীমান্তে অবস্থানকারী রোহিঙ্গাদেরকে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং শরণার্থী শিবিরে সরিয়ে নেয়া হয়। কিন্তু তুমব্রু সীমান্তের ছয় হাজার রোহিঙ্গাকে কোথাও সরিয়ে নেয়া সম্ভব হয়নি।

কক্সবাজার বিজিবির সেক্টর কমান্ডার কর্নেল আবদুল খালেক জানান, জিরো লাইনে অবস্থানকারী রোহিঙ্গাদের অনুপ্রবেশে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের চাপ দেয়ার বিষয়টি আমরা জেনেছি। আমরা সার্বিক বিষয় পর্যবেক্ষণ করছি।

জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক জানান, এখানকার রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের ভূখণ্ডেই থাকায় তাদেরকে সরিয়ে নেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তবে মিয়ানমার সরকার নিজ দেশে তাদের নিতে কোনো চুক্তির প্রয়োজন নেই।

সূত্র: বিডি মর্নিং

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *