‘সংশোধিত ভূমি আইন পাশ হলে পার্বত্যাঞ্চল সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে: মানিকছড়িতে পার্বত্য বাঙ্গালী সংগঠনের নেতারা


18(03) copy

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কমিশন আইন (সংশোধন) ২০১৬  পাশ হলে পার্বত্যাঞ্চল সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে বলে বক্তব্য দিয়েছেন পার্বত্য বাঙ্গালী সংগঠনের নেতারা। এই আইন বাতিলের দাবীতে ৩ পার্বত্য জেলায় টানা ৩৬ ঘন্টা হরতাল কর্মসূচি পালনের পর পূর্বঘোষিত কেন্দ্রীয় কর্মসূচি জেলা, উপজেলায় বিক্ষোভ মিছিলের অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার  মানিকছড়িতেও বিক্ষোভ মিছিল করেছে কয়েকটি পার্বত্য বাঙ্গালী সংগঠন।

মানিকছড়ি বাজার মসজিদ রোড থেকে সকাল সাড়ে ৯টায় বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের উদ্যোগে উক্ত বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেন এ অঞ্চলে আন্দোলনরত অন্যান্য আঞ্চলিক সংগঠনগুলোও। উক্ত বিক্ষোভ মিছিলটি বাজার হয়ে আমতলা গিয়ে উপজেলার দৃশ্যমান জনপদ ঘুরে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কের আমতলা মোড়ে একটি পথসভায় মিলিত হয়।

উক্ত পথসভায় বক্তব্য রাখেন, বাঙ্গালী ছাত্র পরিষদের খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. মাঈন উদ্দীন, স্থানীয় নেতা মো. মোক্তাদির, মো. জাহেদুল ইসলাম, মো. এয়াকুব আলী, ও আলী হোসেন।

বক্তারা বলেন, সরকার  পার্বত্যাঞ্চলে বসবাসরত বাঙ্গালীদের মতামত না নিয়ে ১৯৯৭ সালে সম্পাদিত পার্বত্য চুক্তির আলোকে গঠিত পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কমিশন আইন-২০০১ কে সংশোধণ করে ‘পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কমিশন (সংশোধন) আইন, ২০১৬’ এর খসড়া করা হয়।উক্ত খসড়া  নীতিগতভাবে গত ১ আগস্ট অনুমোদনও দেয় মন্ত্রী পরিষদ। অথচ ঐ আইনে পার্বত্য এলাকাকে সন্তু লারমার হাতে তুলে দিয়ে পার্বত্যাঞ্চলকে সরকারের নিয়ন্ত্রণের বাইরে ঠেলে দেয়া হচ্ছে।

এদিকে এ সংশোধিত আইন বাতিলসহ সর্বক্ষেত্রে পার্বত্য বাঙ্গালীদেও সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিত করার জোর দাবীও জানান বক্তারা।

 উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি ‘পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কমিশন (সংশোধন) আইন, ২০১৬’ এর খসড়ার মতে এখন থেকে এ আইনে ১জন অবসর প্রাপ্ত বিচারপতি কমিশনের চেয়ারম্যান, তিন পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, তিন সার্কেল চিফ, আঞ্চলিক পরিষদের চেয়ারম্যানের প্রতিনিধি ও বিভাগীয় কমিশনারের প্রতিনিধি নিয়ে ৯ সদস্যের এ পার্বত্য ভূমি বিরোধ নিস্পত্তি কশিশন। বাঙ্গালী সংগঠনগুলোর অভিযোগ এ আইনের ফলে বাঙ্গালীর পক্ষের কোন যুক্তিতর্ক এখানে অগ্রাধিকার পাবে না। কারণ কমিটির ৯ সদস্যের মধ্যে ৭ সদস্যই উপজাতিদের পক্ষের। ফলে এর প্রতিবাদ জানিয়ে সংশোধিত আইন বাতিলের দাবিতে এতদাঞ্চলে বসবাসরত বাঙ্গালীদের সংগঠনগুলো টানা ৩৬ ঘন্টা হরতাল পালন শেষে বৃহস্পতিবার জেলা , উপজেলা পর্যায়ে বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচী পালন করে।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *