লামাকে জেলা করার গণআবেদন: আলীকদমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া


 

আলীকদম প্রতিনিধি:

বান্দরবানের লামাকে জেলা ঘোষণার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে গণআবেদনের দাবিকে ভূয়া ও ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন আলীকদম উপজেলার বিভিন্ন মহল। তাদের দাবি আলীকদমবাসী কখনোই লামাকে জেলা ঘোষণার দাবি করেননি। আমরা পত্রিকায় প্রকাশিত এ সংক্রান্ত সংবাদের তীব্র নিন্দা জানাই।

উল্লেখ্য, ১৩ জানুয়ারি শনিবার একটি আঞ্চলিক দৈনিকে প্রকাশিত ‘লামাকে জেলা ঘোষণার দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে গণআবেদন” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করা হয়। সংবাদে প্রকাশ, লামাকে জেলা ঘোষণার দাবি জানিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে গণ আবেদন দেয়া শুরু করেছে লামা, আলীকদম ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলাবাসী। এ সংবাদ প্রকাশের পর আলীকদমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে।

উপজেলার চৈক্ষ্যং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক মাস্টার মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, ভৌগলিক অবস্থার দিক থেকে লামার তুলনায় আলীকদমের গুরুত্ব অনেক বেশি। তাছাড়া আলীকদম উপজেলা থেকে পার্শ্ববর্তী তিনটি উপজেলার দুরত্ব সর্বোচ্চ ২০-৩০ কিলোমিটারের মধ্যে। যার কারণে বান্দরবান জেলাকে ভেঙ্গে যদি নতুন একটি জেলা করতে হয় তাহলে সব দিক থেকে আলীকদমই উপযুক্ত। গণস্বাক্ষরে আলীকদমবাসীর স্বাক্ষর আছে মর্মে দাবিটি মূলত ভূয়া।

একইভাবে নিন্দা জ্ঞাপন করে আলীকদম প্রেসক্লাবের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমদ বলেন, আমার জানামতে, কোন ব্যক্তি আলীকদমবাসী পরিচয়ে লামাকে জেলা করার দাবিসম্বলিত আবেদনে স্বাক্ষর করেননি। জেলার দাবি নিয়ে গণস্বাক্ষরের বিভ্রান্তিকর তথ্য উপস্থাপন কারো কাছ থেকে কাম্য নয়।

উন্নয়নকর্মী উইলিয়াম মার্মা বলেন, আমাদের জানামতে আলীকদমবাসীর পক্ষে কোন ব্যক্তি লামাকে জেলা করার আবেদনে স্বাক্ষর করেন নি। আলীকদমবাসীর নাম ব্যবহার করে এসব বিভ্রান্তিমূলক সংবাদ লামাবাসীর জেলা ঘোষণার দাবিকেই মূলত খাটো করছে।

আলীকদমের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক এনএম মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, মহকুমা ডিমোশন হয়ে উপজেলায় রূপান্তর হয় তা কিভাবে জেলার দাবি রাখে ! বর্তমানে আলীকদম সেনা জোন থেকে ব্রিগেড ও ক্যান্টেন্টমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ হয়েছে। আগামীতে এয়ার ফোর্সের জন্য প্লেনের মাঠ হবে। বিজিবির সেক্টর কমান্ডের সদর দপ্তরটিও আলীকদম। আলীকদম সরকারি কলেজ প্রতিষ্ঠার জন্য ইতোমধ্যে জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। আলীকদম উপজেলার নয়াপাড়ায় একটি সরকারি আবাসিক উচ্চ বিদ্যালয় নির্মাণের কাজ শীঘ্রই শুরু হচ্ছে। আলীকদম থেকে লামা-থানছি পর্যন্ত সড়ক এবং হাইওয়ে হয়েছে। আলীকদম উপজেলায় বার্মার সাথে সাথে স্থল বন্দর হচ্ছে। আর এ সবের ঠিক মধ্যখানে আলীকদম উপজেলার অবস্থান। আলীকদমকে একটি প্রাকৃতিক দুর্গ বলা চলে। এমন সুন্দর, প্রকৃতির মানসকন্যা আলীকদমই জেলা হওয়ার একমাত্র দাবীদার। আশেপাশের সব উপজেলার সাথে মাত্র ৩০-৬০ মিনিটের মধ্যেই যে উপজেলার সাথে যোগাযোগ করা যায় যে উপজেলাটি জেলা না হয়ে পারে কি? আমি আশা করব যারা বিভিন্ন উপজেলাকে জেলা করার দাবি করেন তারা যেন একটু সুস্থ সুন্দর মন নিয়ে নিরপেক্ষ দৃষ্টি দিয়ে বিষয়টি ভাবেন।

অন্যদিকে এক ফেসবুক স্ট্যাটাসে আলীকদম উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সমরঞ্জন বড়ুয়া জানান, লামাবাসীরা নিজেরাই নিজেদের কল্যান চান না। যার কারণে সরকার যখন লামা উপজেলার দুর্গম ইউনিয়নগুলোকে নিয়ে নতুন একটি উপজেলা সৃষ্টির জন্য ২৮ ডিসেম্বর গণশুনানীর দিন ধার্য্য করে, তখন লামার লোকজনই তার বিরোধিতা করেছে। সুতরাং লামাকে জেলা চাওয়াটা সম্পুর্ণ হাস্যকর। জেলা যদি হয় তাহলে আলীকদমই জেলা হওয়ার যোগ্য।

image_pdfimage_print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *