লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের ভাড়াবাসা থেকে উপজাতি মহিলার লাশ উদ্ধার


unnamed

মানিকছড়ি প্রতিনিধি:

লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবী রাণী বসুর মানিকছড়িস্থ ভাড়াটিয়া বাসার টয়লেট থেকে এক উপজাতি ৪ সন্তানের জননীর ফাঁস দেয়া লাশ উদ্ধার করেছে মানিকছড়ি থানা পুলিশ। এ ঘটনায় ধুম্রজালের সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রাঙ্গামাটির কাউখালি উপজেলার নিচুপাড়া গ্রামের প্রবাসী পোয়াশি মারমার (মালেশিয়া) স্ত্রী ৪ সন্তানের জননী পাইমাপ্রু মারমা (৩৫) প্রতিবেশী এক বাঙ্গালি যুবকের সাথে পরকীয়ার সূত্রে ৫ এপ্রিল পালিয়ে এসে লক্ষ্মীছড়ির মগাইছড়িতে জনৈক ইউপি সদস্যের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। ৬ এপ্রিল স্থানীয় উপজাতি যুবকরা বিষয়টি টের পেয়ে পাড়া প্রধান কার্বারীদের মাধ্যমে ওই মহিলাকে জোরপূর্বক তুলে নেয়ার চেষ্টা করেন। খবর পেয় লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান

অংগ্যপ্রু মারমা ও বেবী রাণী বসু (ইউপিডিএফ নেত্রী) ছুঁটে আসেন। ইতোমধ্যে পাইমাপ্রু মারমার প্রেমিক ভয়ে পালিয়ে যায়। ফলে উপজাতি মহিলা বাঙ্গালির সাথে পালিয়ে আসার ঘটনাটিকে উপজাতি রীতি অনুযায়ী ভাইস চেয়ারম্যান বেবী রাণী বসুর বাড়িতে শুক্রবার বিকালে বিচারের সময় নির্ধারণ করে মহিলার বাবা-মা ও শ্বশুর পক্ষকে খবর দেয়া হয় এবং মহিলাকে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান বেবী রাণী বসুর মানিকছড়িস্থ ভাড়াটিয়া বাসায় নজরদারিতে রাখা হয়।

শুক্রবার ওই মহিলার অভিভাবকরা কাউখালি থেকে মানিকছড়ি আসার আগেই পাইমাপ্রু মারমার মরদেহ পাওয়া যায় ভাইস চেয়ারম্যানের পরিত্যক্ত টয়লেটে। শুক্রবার বেলা ২টার পর মানিকছড়ি থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করা হলে অফিসার ইনচার্জ আবদুল রকিব সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে সরজমিনে ছুঁটে যান। এ সময় সেখানে শতাধিক উৎসক মানুষের ভিড় জমে।

মানিকছড়ি উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা, লক্ষ্মীছড়ি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান এবং বর্তমান জেলা পরিষদ সদস্য রেম্রাচাই চৌধুরী, ভাইস চেয়ারম্যান অংগ্যপ্রু মারমা, বেবী রাণী বসুসহ উপজাতি নেতাদের উপস্থিতিতে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসেন। পরে নিহতের মা আনুমা মারমা (৫৫) স্বামী নিশি মারমা বাদী হয়ে অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-২ তারিখঃ- ৭.৪.১৭ খ্রি.।

থানার অফিসার ইনচার্জ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পরকীয়ার জের ধরে পালিয়ে এসে জনগণ(উপজাতি) কর্তৃক আটক হওয়া মহিলার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়না তদন্ত শেষে মৃত্যুর প্রকৃত ধরণ পাওয়া যাবে। তবে ধারণা করা হচ্ছে সামাজিক মান মর্যাদার ভয়ে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে মহিলা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *