parbattanews bangladesh

লংগদুতে রাবেতা মডেল কলেজের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভা

নিজস্ব প্রতিবেদক, লংগদু:

রাঙামাটির লংগদুতে স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে রাবেতা মডেল কলেজের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বৃহষ্পতিবার (১৭ আগস্ট) সকাল দশটায় উপজেলার রাবেতা মডেল কলেজ ক্যাম্পাসে আয়োজিত আলোচনা সভার শুরুতে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পূষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

পরে কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ এর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মাইনীমুখ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার।
কলেজের প্রভাষক হাসান আলীর পরিচালনায় অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, রাঙামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ জানে আলম, লংগদু থানার অফিসার ইনচার্জ রঞ্জন কুমার সামন্ত, লংগদু প্রেসক্লাবের সভাপতি মোঃ এখলাস মিঞা খান, কলেজের প্রভাষক হারুনুর রশীদ, কলেজ ছাত্র জাহাঙ্গীর আলম অপু। আলোচনা সভায় প্রভাষক খন্দকার হাসান আলী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর উদ্দেশ্যে একটি স্বরচিত কবিতা আবৃতি করেন।

প্রধান অতিথি আব্দুল বারেক সরকার বলেন, আজ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদৎ বার্ষিকী। যার জন্ম না হলে বাংলাদেশ বলে একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম হতো না। যার ভাষণ বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। সেই মহান নেতাকে কুচক্রীদের বুলেটের আঘাতে স্বপরিবারে শহীদ হলেন। এই মহান নেতার শূণ্যতা কোনদিন পুরণ হবার নয়।

তিনি ছাত্র ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সমাজ, জাতী, দেশ এবং নিজেকে উন্নয়ন করতে হলে শিক্ষা অর্জন করতে হবে। বর্তমান সরকার শিক্ষা উন্নয়নে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলছি তোমরা মাদক থেকে মুক্ত থাকবে। মাদক ভয়াবহ একটি ব্যাধি এটি জীবনকে ধ্বংস করে দেয়। রাবেতা মডেল কলেজ উপজেলা শিক্ষা আলো চড়াচ্ছে। এই কলেজে শিগ্রই ডিগ্রি চালু করা হবে। ডিগ্রি চালু করতে এবং কলেজের অবকাঠামোগত উন্নয়নে যা যা করতে হয় আমি আমার পক্ষ থেকে সব রকমের সহযোগিতা দিয়ে যাবো।

এসময় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, গাঁথাছড়া বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের সুপার মাওলানা ফোরকান আহম্মদ, লংগদু থানার এস আই দুলাল হোসেন পিপিএমসহ কলেজের শিক্ষকগন ও ছাত্র ছাত্রীরা।

শেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন। গাঁথাছড়া বায়তুশ শরফ কমপ্লেক্সের সুপার মাওলানা ফোরকান আহম্মদ।