লংগদুতে ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে র‌্যালি ও আলোচনা সভা


 

লংগদু প্রতিনিধি:

এশিয়ার সর্ববৃহৎ ছাত্র সংগঠনের নাম ‘বাংলাদেশ ছাত্রলীগ’। ইতিহাস, ঐতিয্যে ও গৌরবের এক সংগঠন। যে ছাত্রলীগ সংগঠনটি জন্ম দিয়েছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর মত এক মহান পুরুষকে। যার কারণে আমরা একটি স্বাধীন বাংলাদেশ নামে রাষ্ট্র পেয়েছি।

বৃহস্পতিবার, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এর ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন উপলক্ষে রাঙ্গামাটির লংগদু উপজেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভা পূর্ব উপজেলার মাইনীমুখ বাজারে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি বাজারের প্রধান সড়ক ঘুরে এসে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে আয়োজিত আলোচনা সভায় মিলিত হয়।

সভায় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জিয়াউল জিয়া এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মাইনীমুখ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বারেক সরকার।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাশেদ খান রাজুর পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদের সদস্য মো. জানে আলম, উপজেলা আ’লীগের সহসভাপতি মো. সেলিম মেম্বার, সহ সভাপতি হোসেন আলী মেম্বার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মীর সিরাজুল ইসলাম ঝান্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. মোশারাফ হোসেন।

এছাড়া অন্যান্যদের বক্তব্য রাখেন, যুবলীগের সদস্য মো. কালাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছোটন কুমার দাশ, সহ-সভাপতি মো. রাকিব ফরাজি, যুগ্ম সম্পাদক মো. হানিফ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাবলা দাশ, সদস্য মো. ইদ্রিছ হোসেন, মাইনীমুখ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ইমাম হোসেন ইমন, রাবেতা মডেল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি নেছার উদ্দিন হৃদয় প্রমুখ।

শেষে প্রধান অতিথি আনুষ্ঠানিকভাবে ছাত্রলীগের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটেন এবং সবাইকে খাইয়ে দেন।

আলোচনা সাভায় বক্তারা আরো বলেন, এই পার্বত্য এলাকায় কেবল আওয়ামী লীগ সরকাই উন্নয়ন করেছে। অন্যরা করেছে শুধু লুটপাট। বিএনপির নেত্রী এখন পদ্ধাসেতু নিয়ে মিথ্যাচার করছেন। সেই পদ্ধাসেতু বাস্তবায়ন হলে আপনারাই সুফল ভোগ করবেন আগে।

বক্তারা বলেন, পার্বত্য এলাকায় একটি সংগঠনের প্রধান আছেন যিনি সরকারের খেয়ে পড়ে, মন্ত্রির প্রটোকল নিয়ে ঘুরেন আবার সরকারের বিরুদ্ধে হুমকি দেন। আওয়ামী লীগের লোকজনকে হত্যা করেন। আমরা সেই নেতাকে হুঁশিয়ার করতে চাই আপনার সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজী, হত্যা, গুম, অপহরণ আর অস্ত্রের ঝনঝনানী বন্ধ করতে হবে। এই ধরনের কাজ আর সহ্য করা হবেনা। বক্তারা, আগামীতে দীপংকর তালুকদারকে জয়লাভ করতে একযোগ হয়ে কাজ করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *