parbattanews bangladesh

নোম্যান্স ল্যান্ডে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের সরিয়ে নেওয়া হবে: ঘুমধুমে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

ঘুমধুম প্রতিনিধি:

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আন্তরিকতার সহিত কাজ করছে।

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ৫ দফা প্রস্তাব দেশ ছাড়িয়ে বিশ্ব জনমতও পক্ষ নিয়েছে। শুধুমাত্র গুটিকয়েক মহল রোহিঙ্গা ইস্যুকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার প্ররোচনায় নামলেও জনগন ও বিশ্ব মিডিয়া তা প্রত্যাখ্যান করেছে। আমরাও কানে আনছিনা।

রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের শুরু থেকেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মন্ত্রী, সেনাবাহিনী সহ প্রশাসনের লোকজন, সংসদ সদস্য, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে শুরু থেকে তৃণমূল নেতাকর্মীরা নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের মানবিক সহায়তায় পাশে রয়েছে।দেশের হাওর অঞ্চলের বন্যা, খরা, নানা দুর্যোগ মোকাবিলা করে আবার রোহিঙ্গাদের পাশে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি ২৫ সেপ্টেম্বর সকাল পৌণে ১২টায় বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নে তুমব্রো জিরো পয়েন্টে অবস্থানরত রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণকালে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, রোহিঙ্গাদের ত্রাণ বিতরণে কোন প্রকার বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে। রোহিঙ্গাদের সাথে মানবিক আচরণ করে সর্বোচ্চ সহায়তা করা হচ্ছে। তাতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পুরোদমে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে।ইতিমধ্যে রোহিঙ্গাদের জন্য ১২টি ত্রাণ পয়েন্ট ও ৮টি লংগরখানা খোলা হয়েছে। যা থেকে প্রতিদিনই সুষ্ঠুভাবে ত্রাণ বিতরণ ও খাবার সরবরাহ করা হচ্ছে।  রোহিঙ্গাদের স্বদেশে (মিয়ানমার) ফিরিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী নিজেও কুটনৈতিক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছেন। আশা করছি রোহিঙ্গা সংকট সমাধান হবেই। তবে এখনো পর্যন্ত ইতিবাচক কি সিদ্ধান্ত হয়েছে তা বলা যাচ্ছেনা।

এসময় মন্ত্রীর সাথে পার্বত্য বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর এমপি, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান এমপি, বান্দরবান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ক্যশৈহ্লা মার্মা, বান্দরবানের জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিক, পুলিশ সুপার সঞ্জিত আচার্য্য, বান্দরবান জেলা পরিষদ সদস্য আবদুর রহিম চৌধুরী, বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, পৌর মেয়র মো. ইসলাম বেবী, জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি আঞ্চলিক পরিষদ সদস্য আলহাজ্ব শফিকুর রহমান, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান, কক্সবাজার জেলা শ্রমিকলীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লক্ষীপদ দাশ, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সাংসদ প্রতিনিধি আলহাজ্ব খাইরুল বশর প্রমূখ।

এছাড়াও কেন্দ্রীয়, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, অংগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভাশেষে অসহায় ১ হাজার রোহিঙ্গা পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন করেন এবং নাইক্ষ্যংছড়িতে রোহিঙ্গাদের ত্রাণ বাহীনি ট্রাক উল্টে নিহত ১০ পরিবারে আর্থিক সহায়তার নগদ ১লাখ টাকা বান্দরবান জেলা প্রশাসক দিলীপ কুমার বণিকের হাতে বুঝিয়ে দেন।

প্রসঙ্গতঃ সরকারের অধীনে প্রায় ৫ লক্ষাধিক রোহিঙ্গার মাঝে ত্রাণ তৎপরতা অব্যাহত রেখেছেন।