রোহিঙ্গা শিশু মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে শুরু হচ্ছে পুষ্টি কার্যক্রম সপ্তাহ

কক্সবাজার প্রতিনিধি:

মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গার মধ্যে প্রায় ৫০ ভাগ’ই শিশু। আর এসব শিশু’র মধ্যে ২৬ ভাগ ভুগছে অপুষ্টিতে। তার মধ্যে ৭ ভাগ মারাত্বক পুষ্টিহীনতায় ভুগছে। শুরু থেকেই এসব রোহিঙ্গা শিশুদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সংস্থার পক্ষ থেকে। ক্যাম্পে ক্যাম্পে রয়েছে মেডিকেল টিম। যেখানে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

এরই ধারাবাহিকতায় আগামী ১৫ নভেম্বর থেকে ২৩  নভেম্বর এক সপ্তাহ পর্যন্ত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে চলবে পুষ্টি সপ্তাহ কার্যক্রম। সপ্তাহব্যাপী এ কার্যক্রমে ২ লক্ষ ৯৫ হাজার ১ শত ৫৬জন রোহিঙ্গা শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল আর কৃমিনাশক ওষধ খাওয়ানো হবে। আর এটি সফলভাবে বাস্তবায়ন করতে ৭০টি কেন্দ্র একসাথে ৭০টি টিম কাজ করবে। যেখানে ৫৬০জন ভলান্টিয়ার (স্বেচ্চাসেবী) থাকবে।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় সিভিল সার্জন কার্যলয়ে ‘পুষ্টি সপ্তাহ কার্যক্রম’ নিয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান, জেলা সিভিল সার্জন আব্দুর সালাম।

এসময় তিনি আরো বলেন, অপুষ্টিতে ভোগা রোহিঙ্গা শিশুরা যথাসময়ে চিকিৎসা না পেলে মারা যাবে। অনেক রোহিঙ্গা শিশু এই ধরনের একটা ঝুঁকির মধ্যে তারা বসবাস করছে। তাই পুষ্টি কার্যক্রম সপ্তাহ উপলক্ষ্যে ১ লক্ষ ৭৬ হাজার ৭ শত ৫৬জন শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।

যাদের বসয় ৬ মাস থেকে ৫৯ মাস। পাশাপাশি ১ লক্ষ ১৮ হাজার ৪ শত শিশুকে কৃমিনাশক ঔষধ খাওয়ানো হবে। যাদের বসয় ১২ মাস থেকে ৫৯ মাস পর্যন্ত। এ দুই কার্যক্রম এক সাথে চলবে। এর মধ্যে যেসব বাচ্চা মারাত্বক অপুষ্টিতে ভুগছে তাদের আলাদা করা হবে এবং উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হবে। আর এ চিকিৎসা কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।