রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশ্বব্যাংকের অনুদানের পরিবর্তে ঋণ প্রস্তাবে টিআইবি’র উদ্বেগ


পার্বত্যনিউজ ডেস্ক:

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের সাহায্যের জন্য অনুদানের পরিবর্তে বিশ্বব্যাংকের ঋণ প্রস্তাবে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। রোহিঙ্গাদের  জন্য বিশ্বব্যাংকের গ্লোবাল কনসেশনাল ফিন্যান্সিং ফ্যাসিলিটি (জিসিএফএফ) থেকে ঋণ না নিয়ে সুদ বিহীন অনুদান সংগ্রহের সর্বাত্মক কূটনৈতিক প্রয়াস অব্যাহত রাখতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাটি।বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

 বিবৃতিতে টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা যাচ্ছে,  রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিবিধ চাহিদা পূরণে বাংলাদেশকে ঋণ সহায়তা দেওয়ার প্রচেষ্টা করছে, যা অনৈতিক, অগ্রহণযোগ্য ও উদ্বেগজনক। মানবিক বিপর্যয়ের সুযোগে সাহায্যের নামে বাংলাদেশের ওপর ঋণের বোঝা বাড়ানোর এ উদ্যোগ বিশ্বব্যাংকের সুদ ব্যবসা সম্প্রসারণের অংশ ছাড়া কিছুই না।’

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘দশ লাখ রোহিঙ্গার বোঝা বাংলাদেশের একার নয়, বরং মূলত মিয়ানমার সরকার ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের। বাংলাদেশের একার পক্ষে এ বোঝা বহনের সামর্থ্য ও যুক্তি, কোনোটাই নেই। দশ লাখ গৃহহীন ও নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের দায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কেই নিতে হবে। বাংলাদেশের ওপর এ ধরনের অতিরিক্ত ঋণের বোঝা চাপানোর অশুভ পাঁয়তারা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। ’

উল্লেখ্য, রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশকে আর্থিক সহায়তার বিষয়ে গত ১২ অক্টোবর ওয়াশিংটনে  বিশ্বব্যাংক ও অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের মধ্যে দ্বি-পাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্বব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে বৈঠক শেষে রোহিঙ্গা ও শরণার্থীদের আশ্রয় দেওয়া স্থানীয় জনগোষ্ঠীর জন্য সাহায্য কর্মসূচি গ্রহণ করতে প্রস্তুত রয়েছে বলে ঘোষণা দেয় বিশ্বব্যাংক। তবে বৈঠকের পর অর্থমন্ত্রী মোট সহায়তার শুধু অর্ধেক অনুদান হিসেবে পাওয়ার সম্ভাবনার কথা জানান।

 

বাংলা ট্রিবিউন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *