রামুর অবহেলিত ৮ গ্রামে বিদ্যুতের আলো জ্বলবে বৃহস্পতিবার


রামু প্রতিনিধি:

কক্সবাজারের রামু উপজেলার দুর্গম এলাকা বৃহত্তর উখিয়ার ঘোনার ৮টি গ্রাম বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হচ্ছে। আগামী বৃহস্পতিবার (২৩ নভেম্বর) এ মহতী কাজের উদ্বোধন করবেন কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সাংসদ আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল। কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের উখিয়ার ঘোনার লামার পাড়া, স্কুল পাড়া, বড়ুয়া পাড়া, মিয়াজি পাড়া, সওদাগর পাড়া, গুদামকাটা, গনিয়াকাটা ও পশ্চিম গনিয়াকাটা গ্রামে নতুন এ বিদ্যুৎ লাইন সংযোগ করা হচ্ছে।

বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন উপলক্ষ্যে ইতোমধ্যে স্থানীয়দের মাঝে পরিলক্ষিত হচ্ছে উৎসবের আমেজ। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানকে ঘিরে এলাকার প্রধান সড়কে সাজানো হচ্ছে নানা রঙের তোরণ।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সাংসদ আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল’র প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে এলাকার ছোট-বড় স্টেশন, রাস্তার মোড়, বিদ্যুতের খুটিতে সাঁটানো হচ্ছে ব্যানার-ফ্যাস্টুন।

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) এর চট্টগ্রাম অঞ্চলের বিদ্যুৎ বিতরণ সিস্টেম উন্নয়ন প্রকল্পের অধীনে প্রায় ১১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণ ও পুনর্বাসন, নতুন বিদ্যুৎ উপকেন্দ্র নির্মাণ(৩৩/১১ কেবি) এর অংশ হিসেবে রামুতে ১৮ কিলোমিটার নতুন লাইন নির্মাণের কাজ চলছে। এ প্রকল্পের ৫ কিলোমিটার নতুন বিদ্যুৎ লাইন সংযোগ কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের উখিয়ারঘোনা এলাকায় হচ্ছে বলে জানান, প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. রিয়াজুল হক। তিনি জানান, এ প্রকল্প বাস্তবায়নে সার্বিক সহযোগিতায় রয়েছেন রামু বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)।

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) রামু উপকেন্দ্রের আবাসিক প্রকৌশলী মো. হেলাল উদ্দিন জানান, রামু উপজেলার কাউয়ারখোপ ইউনিয়নে ইতোমধ্যে ৮০ ভাগ বিদ্যুতায়নের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। আগামী ছয় মাসের মধ্যে কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন শতভাগ বিদ্যুতানের আওতায় আসবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা থাকবেন, রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা যুবলীগ সভাপতি রিয়াজ উল আলম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাফর আলম চৌধুরী, কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক, কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ, লেখক ও গবেষক এম. সুলতান আহমদ মনিরী, কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মীর কাসেম সিকদার। এছাড়া বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা, রামুর এগার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, সাবেক চেয়ারম্যান, রাজনৈতিক, সামাজিক নেতৃবৃন্দ বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন। অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করবেন, কক্সবাজার জেলা পরিষদের সদস্য, কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান শামসুল আলম।

উখিয়ারঘোনা এলাকার বাসিন্দা, কাউয়ারখোপের সাবেক চেয়ারম্যান, জেলা পরিষদ সদস্য শামসুল আলম জানান, কাউয়ারখোপের সৃষ্টিলগ্ন থেকেই ওই এলাকা বিদ্যুতের আলো থেকে বঞ্চিত ছিল। অতীতে অনেক সাংসদ, রাজনৈতিক নেতা আমাদের এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট নিয়েছে। কিন্তু কেউ কথা রাখেনি। বারে বারে এলাকাবাসি প্রতারিত হয়েছে। একমাত্র আমাদের রামুর জন্মজাত সন্তান, আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল, এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর রামুর অবহেলিত এলাকা সমুহ চিহ্নিত করে অবকাঠামোগত উন্নয়নসহ শিক্ষার আলোর পাশাপাশি বিদ্যুতের আলোয়ও আলোকিত করে যাচ্ছেন। এরই ধারাবাহিকতায় আমাদের কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের উখিয়ারঘোনা এলাকার আটটি গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগের উদ্বোধন হচ্ছে। এটা আমাদের কাউয়ারখোপ বাসির লালিত স্বপ্নের বাস্তবায়ন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও  সাংসদ আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন।

একই ইউনিয়নের অপর এক সাবেক চেয়ারম্যান, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল হক জানান, আমাদের এলাকায় বিদ্যুতায়নের জন্যে অনেক এমপি, মন্ত্রীর কাছে হাজারবার ধর্না দিয়েছিলাম। সবাই শুধু আশ্বাসের বাণী শুনিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সরকার ও আমাদের সন্তান সাইমুম সরওয়ার কমল, এমপি নির্বাচিত হওয়ার পর কাউয়ারখোপসহ রামু উপজেলার অবহেলিত এলাকায় যে উন্নয়ন হয়েছে অতীতের কোন এমপি এর দু ভাগের এক ভাগও উন্নয়ন করতে পারেনি। কাউয়ারখোপের চির অবহেলিত উখিয়ার ঘোনা এলাকার আটটি গ্রাম আজ বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হচ্ছে, এটা আমাদের কল্পনার পরিপুর্ণতা।

কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ জানান, শুধুমাত্র গত এক বছরে কাউয়ারখোপ ইউনিয়নে সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমলের একান্ত প্রচেষ্টায় রাস্তা, ব্রিজ, কালভার্টসহ প্রায় ৬ কোটি টাকার অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে। আজ উখিয়ারঘোনা এলাকার আটটি গ্রামে বিদ্যুতায়িত হচ্ছে, এর চাইতে খুশির খবর আমাদের কাউয়ারখোপ বাসির আর হতে পারেনা।

কাউয়ারখোপের বাসিন্দা, অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক, কবি এম. সুলতান আহমদ মনিরী জানান, স্বাধীনতার ৪৬ বছর পরও কাউয়ারখোপের উখিয়ার ঘোনার মানুষ ছিলো অন্ধকারে। কয়েকটি পরিবার সৌর বিদ্যুৎ ব্যবহার করলেও বৃহত্তর জনগোষ্ঠি ছিলো বিদ্যুৎ সুবিধার বাইরে। কক্সবাজারের রামু-সদর উপজেলাকে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় আনার অংশ হিসেবে আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি দুর্গম ও অবহেলিত এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহের উদ্যোগ গ্রহণ করে। কবি এম. সুলতান আহমদ মনিরী আরো জানান, দুর্গম এলাকায় এমপি কমল শুধু বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত করছেন না। তিনি শিক্ষার আলো ছড়াতে ওই এলাকায় বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করে শিক্ষার আলোও ছড়াচ্ছেন। তার প্রচেষ্টায় কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন আজ আধুনিক ও মডেল ইউনিয়নে রূপান্তর হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *