রামুতে সামাজিক বনায়ন উপকারভোগীদের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে সাংসদ কমল


ramu-pic-mp-komol-22-09-16

রামু প্রতিনিধি :
রামু-কক্সবাজার আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমল বলেছেন, সামাজিক বনায়ন পরিবেশ রক্ষার পাশাপাশি দেশের বেকার জনগোষ্ঠিকে স্বাবলম্বী করে তুলছে। তাই বর্তমান সরকার সামাজিক বনায়নকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিচ্ছে।

সাংসদ কমল আরো বলেন, বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ। আগের মতো দরিদ্র দেশের তালিকায় শীর্ষে নেই। এখন বাংলাদেশই বিভিন্ন দেশে সাহায্য পাঠাচ্ছে। বিশ্বের উন্নত দেশের চাইতেও এখানে মোবাইল ব্যবহার বেড়েছে। কমেছে সিম আর মোবাইলের দামও। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন এখন দ্বিগুন হয়েছে। যা বিশ্বে বিরল। অনেকে আওয়ামীলীগেক ইসলাম বিদ্বেষী বলে সমালোচনা কের। অথচ এ সরকারের আমলে কোথাও কোন মসজিদ মাদরাসা বন্ধ হয়নি। উল্টো মসজিদ মাদরাসা অনেক বেড়েছে।

সাংসদ কমল আজ বৃহষ্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সকাল দশটায় রামু উপজেলার বাঁঘখালী রেঞ্জের আওতাধিন সামাজিক বনায়নের উপকারভোগীদের চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

রামু উপজেলায় উন্নয়ন কর্মকান্ড প্রসংগে সাংসদ কমল বলেন, রামুতে বিগত ২ বছরে যে উন্নয়ন কর্মকান্ড হয়েছে তা স্বাধীনতার পর থেকেও হয়নি। ২ বছরে রামুতে ২৩ কিলোমিটার পাকা সড়ক নির্মিত হয়েছে। অনেক গ্রামে পৌঁছে যাচ্ছে বিদ্যুৎ। রামুতে ১১টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠা ছিলো। আর বিগত ২ বছরে রামুতে নতুন করে আরো ৭টি মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। কক্সবাজারের দীর্ঘ ও দর্শনীয় সেতু নির্মিত হচ্ছে রামুর চাকমারকুলে। আগামীতেও নৌকা প্রতীকের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে উন্নয়নের এ ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।

কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের বন কর্মকর্তা কেরামত আলী মল্লিকের সভাপতিত্বে চেক বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম অঞ্চলের বন সংরক্ষক মো. আবদুল লতিফ মিয়া। তিনি বলেন, সামাজিক বনায়ন একটি সফল বন ব্যবস্থানা। এর মাধ্যমে যেমন বন বিভাগ তথা সরকার লাভবান হচ্ছে তেমনি অসহায়, দরিদ্র, অস্বচ্ছল নারী-পুরুষ ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবার আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছে। তিনি উপকারভোগীদের সামাজিক বনায়ন যথাযথভাবে পরিচর্যা ও রক্ষনাবেক্ষণের মাধ্যমে আরো অধিকা মুনাফা অর্জনের তাগিদ দেন।

বাঘখালী বিট অফিসার সমীর রঞ্জন সাহার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন, সহকারি বন সংরক্ষক বেলায়েত হোসেন, কাউয়ারখোপ ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমদ, বাঘখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা ফখরুল আলম খান, কচ্ছপিয়া বিট অফিসার তপন কান্তি পাল, ঘিলাতলী বিট অফিসার তৌহিদুল ইসলাম।
অনুষ্ঠানে উপকারভোগীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সিপিজি গ্রুপ সভাপতি ছালামত উল্লাহ, উপকারভোগী মো. কালু ও আবু আব্দুল্লাহ মো. জহির উদ্দিন।

অনুষ্ঠানে রামুর বাঘখালী রেঞ্জের আওতাধীন কচ্ছপিয়া বিটের ২০০৩-০৪ সনের কৃষি বন বাগানের ৩০ জন উপকারভোগীর হাতে ১০ লাখ ৪৬ হাজার ৬০ টাকার চেক বিতরণ করা হয়। এরমধ্যে ১০ জনকে ৫৪ হাজার ২১২ টাকা, ১০ জনকে ৩০ হাজার ৮৪৭ টাকা, ১৯ হাজার ৪৬৭ করে প্রদান করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে রামু প্রেস ক্লাবের অর্থ সম্পাদক সোয়েব সাঈদ, কচ্ছপিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সোহেল সিকদার, কচ্ছপিয়া ইউপি সদস্য জয়নাল আবেদিন, রামু উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা ও সাংসদ কমলের ব্যক্তিগত সহকারি আবু বকর, কাউয়ারখোপ ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি নুরুল ইসলাম নাহিদ, সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করেন বাঘখালী রেঞ্জ অফিস জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবদুস ছালাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *